‘প্রধানমন্ত্রিত্ব আমার কাছে কিছু না’

‘প্রধানমন্ত্রিত্ব আমার কাছে কিছু না’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: টিভি ফুটেজ থেকে নেয়া

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা যখনই সরকারে এসেছি বাংলাদেশের মানুষের সেবক হিসেবে কাজ করেছি। প্রধানমন্ত্রিত্ব আমার কাছে অন্য কিছু না। শুধু একটা সুযোগ। সুযোগটা হলো মানুষের জন্য কাজ করার, মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করা এবং যে আদর্শ নিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে সে আদর্শ বাস্তবায়ন করা। এটাই আমার একমাত্র লক্ষ্য।’

বঞ্চিত মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে আদর্শ হিসেবে নিয়েই পথ চলেন বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বললেন, সরকারপ্রধানের পদটাকে বিশেষ কিছু মনে করেন না তিনি।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে রোববার বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ২০২১-২২ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) স্বাক্ষর এবং এপিএ ও শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘আমরা যখনই সরকারে এসেছি বাংলাদেশের মানুষের সেবক হিসেবে কাজ করেছি। প্রধানমন্ত্রিত্ব আমার কাছে অন্য কিছু না। শুধু একটা সুযোগ। সুযোগটা হলো মানুষের জন্য কাজ করা, মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করা এবং যে আদর্শ নিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে সে আদর্শ বাস্তবায়ন করা। এটাই আমার একমাত্র লক্ষ্য।’

ধারাবাহিকভাবে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আছে বলেই বাংলাদেশের উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘আজকে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ। কিন্তু আমাদের অগ্রযাত্রায় আজকে এমন একটা বাধা আসল, যেটা শুধু বাংলাদেশ না বিশ্বব্যাপী বাধা। সেটা হচ্ছে করোনাভাইরাস।

‘এই করোনাভাইরাস আজকে পুরো বিশ্বকে সংকটের মুখে ফেলেছে। এই ধরনের সংকট বোধহয় অতীতে আর কখনও দেখা যায়নি। এই অবস্থায় আমাদের কীভাবে চলতে হবে, আমরা সে কর্মপন্থা সুনির্দিষ্ট করেছি। করোনা শুধু সংকট নয়, এর থেকে সবচেয়ে বেশি আঘাত এসেছে আর্থসামাজিক উন্নয়নের ওপর। আমাদের দুঃখটা হলো, বাংলাদেশকে আমরা যেভাবে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলাম সেখানে একটা বিরাট ধাক্কা লেগেছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যেহেতু এটা বিশ্বব্যাপী সমস্যা, সেখানে আমাদের একার কিছু করার নেই। তারপরেও আমাদের চেষ্টা রয়েছে করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধ করা, জনগণের সুরক্ষা নিশ্চিত করা এবং আর্থসামাজিক অবস্থা গতিশীল রেখে যেন আমরা মানুষের জন্য কাজ করতে পারি। মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের যে প্রচেষ্টা সেটা যেন একেবারে থেমে না যায়।

‘আওয়ামী লীগের পক্ষে যখনই আমরা সরকার গঠন করেছি বা আমরা যখনই বিরোধী দলে ছিলাম তখন থেকেই পরিকল্পনা ছিল আমাদের অর্থনৈতিক পরিকল্পনা কী ছিল বা কী কী কাজ করব। সেগুলো কিন্তু আমাদের প্রস্তুত করা ছিল।’

আরও পড়ুন:
আগে ছিলাম ছোট জেলখানায়, এখন বড় জেলখানায়
সৎ নির্মোহ ও জনবান্ধব সেনা কর্মকর্তাদের পদোন্নতির নির্দেশ
বিরোধীদলীয় নেতাকে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ শুভেচ্ছা
প্রধানমন্ত্রীর উপহারের এক টন আম যাচ্ছে নেপালে
বিএনপির ‘পি’তে পাকিস্তান: শেখ হাসিনা

শেয়ার করুন

মন্তব্য