পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি না মানলে শাস্তি

পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি না মানলে শাস্তি

কঠোর শাটডাউনে রাজধানীর পশুর হাটগুলোতে প্রচুর কোরবানির পশুর আমদানি থাকলেও জমে ওঠেনি বাজার। ছবিটি কাজলা কুতুবখালী থেকে তোলা। ছবি: সাইফুল ইসলাম

হাটে আগত সবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পাশাপাশি পশুর হাটে জাল টাকা শনাক্তকরণে সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। ক্রেতা-বিক্রেতা প্রত্যেকের তাপমাত্রা মাপার যন্ত্র, হাত ধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত বেসিন, পানি এবং জীবাণুনাশক সাবান রাখতে হবে।

ঈদুল আজহায় অনলাইনের পাশাপাশি যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি এবং নির্দেশনা মেনে কোরবানির পশুর হাট বসাতে হবে বলে জানিয়েছে সরকার। এ নির্দেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পশুর হাটে ক্রেতা-বিক্রেতাদের একমুখী চলাচল নিশ্চিত করতে হবে। তাই হাটে ঢোকা ও বের হওয়ার আলাদা পথ থাকতে হবে।

বুধবার এক তথ্য বিবরণীতে সরকারের এ নির্দেশনা জানিয়েছে তথ্য অধিদপ্তর।

পশুর হাট নিয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে তাতে। বলা হয়েছে, হাতে পর্যাপ্ত সময় রেখে পশু কিনতে হবে। বয়স্ক ও শিশুদের পশুর হাটে ঢুকতে দেয়া যাবে না।

যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটায় এমন স্থানে পশুর হাট বসানো যাবে না বলেও জানিয়েছে সরকার। এ নির্দেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

হাটে আগত সবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পাশাপাশি পশুর হাটে জাল টাকা শনাক্তকরণে সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। ক্রেতা-বিক্রেতা প্রত্যেকের তাপমাত্রা মাপার যন্ত্র, হাত ধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত বেসিন, পানি এবং জীবাণুনাশক সাবান রাখতে হবে।

তবে অনলাইনে পশু ক্রয়-বিক্রয়ে মানুষকে উৎসাহিত করছে সরকার। অনলাইনের মাধ্যমে পশু কেনাবেচায় সকল ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে জানিয়ে তথ্য বিবরণীতে বলা হয়েছে, ‘মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়, তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগ ও ই-ক্যাবের যৌথ উদ্যোগে এবং এটুআই-এর কারিগরি সহায়তায় এ ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। এর আওতায় www.digitalhaat.net প্ল্যাটফর্মে সারা দেশের ২৪১টি ডিজিটাল হাট যুক্ত করা হয়েছে।’

সরকার নির্ধারিত স্থানে পশু কোরবানি দিতে হবে ৷ পশু কোরবানির পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বর্জ্য অপসারণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ারও নির্দেশ দিয়েছে সরকার।

শেয়ার করুন

মন্তব্য