১২ কার্যদিবসে শেষ বাজেট অধিবেশন

১২ কার্যদিবসে শেষ বাজেট অধিবেশন

২ জুন একাদশ জাতীয় সংসদের ২০২১-২২ অর্থ বছরের বাজেট অধিবেশন শুরু হয়। শেষ হলো ৩ জুলাই দুপুরের পর। করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১২ কার্যদিবস চলে জাতীয় সংসদের এই অধিবেশন। তবে গুরুত্বপূর্ণ এই অধিবেশনটি স্বাস্থ্যবিধিকে গুরুত্ব দিয়ে সংক্ষিপ্ত করা হয়।

১৫ ঘণ্টা ৩২ মিনিটের বাজেট অধিবেশন শেষ হলো শনিবার।

৩৫০ সংসদ সদস্যের মধ্যে ৮৫ জন সংসদ সদস্য এবারের অধিবেশনে আলোচনার সুযোগ পেয়েছেন।

২ জুন একাদশ জাতীয় সংসদের ২০২১-২২ অর্থ বছরের বাজেট অধিবেশন শুরু হয়। শেষ হলো ৩ জুলাই দুপুরের পর।

অধিবেশন সমাপ্ত সংক্রান্ত রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের নির্দেশ পড়ে শোনান স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১২ কার্যদিবস চলে জাতীয় সংসদের এই অধিবেশন। তবে গুরুত্বপূর্ণ এই অধিবেশনটি স্বাস্থ্যবিধিকে গুরুত্ব দিয়ে সংক্ষিপ্ত করা হয়।

এবারের অধিবেশনে যেদিন যেসব এমপি-মন্ত্রী বা সংসদের কর্মকর্তা-কর্মচারীর প্রয়োজন ছিল, তারাই শুধু সেদিন সংসদ ভবনে যেতে পেরেছেন। এই অধিবেশনে সাতটি বিল পাস হয় এবং বেশ কয়েকটি বিল উত্থাপিত হয়েছে।

এর আগে ২ জুন জাতীয় সংসদের ১৩তম ও বাজেট অধিবেশন শুরু হয়। পরদিন প্রস্তাবিত বাজেট উত্থাপন করা হয়।

৩০ জুন ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট পাস হয়। বাজেটে মোট ব্যয়ের আকার ধরা হয়েছে ছয় লাখ তিন হাজার ৬৮১ কোটি টাকা।

এটি মোট জিডিপির ১৭ দশমিক পাঁচ শতাংশ।

পরিচালনসহ অন্যান্য খাতে মোট বরাদ্দ রাখা হয়েছে তিন লাখ ৭৮ হাজার ৩৫৭ কোটি টাকা এবং বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে দুই লাখ ২৫ হাজার ৩২৪ কোটি টাকা।

এর আগে গত বছর দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত বাজেট অধিবেশন বসেছিল। নয় দিনের ওই বাজেট অধিবেশনে ১৮ জন সংসদ সদস্য ৫ ঘণ্টা ১৮ মিনিট আলোচনা করেন।

এবারের অধিবেশন জুড়ে সংসদ সদস্যরা বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনা করেন। বিরোধী দলের পাশাপাশি সরকারি দলের বেশ কয়েক জন সংসদ সদস্য স্বাস্থ্যসেবা, সরকারের আমলা নির্ভরতার সমালোচনা করেন।

করোনাভাইরাস মহামারি মধ্যে অনুষ্ঠিত অন্য অধিবেশনগুলোর মতো এবারও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংসদ চলে। এক্ষেত্রে কোভিড-১৯ নেগেটিভ সনদ থাকা সংসদ সদস্যরাই অধিবেশনে যোগ দিয়েছেন। প্রতিদিন ১০০-১২০ জন সংসদ সদস্যের উপস্থিতিতে বসে সংসদ।

মহামারিকালের অন্য অধিবেশনগুলোর মতো এবারও সংসদ ভবনে প্রবেশাধিকার ছিল না গণমাধ্যম কর্মীদের।

শনিবার রাষ্ট্রপতির আদেশ পড়ে শোনানোর মধ্য দিয়ে অধিবেশনের সমাপ্তি টানেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী।

এর আগে সংসদ কক্ষে দেখানো হয়, ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলায় দেয়া ভাষণ।

শেয়ার করুন

মন্তব্য