নিখোঁজ জাবি শিক্ষার্থীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ

নিখোঁজ জাবি শিক্ষার্থীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ

জাহিদ হাসান রাজু বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের স্নাতকোত্তর শ্রেণির শিক্ষার্থী। তার বাড়ি বরগুনার পাথরঘাটা থানার দক্ষিণ গোলবুনিয়া গ্রামে। তার মা, স্ত্রী ও মেয়ে বাড়িতে থাকেন। ঢাকার মিরপুরে একটি মেসে থাকতেন রাজু।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) নিখোঁজ শিক্ষার্থী জাহিদ হাসান রাজুকে ফিরে পাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সদয় দৃষ্টি কামনা করেছে তার পরিবার।

বুধবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের গ্যালারিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি করেন রাজুর মা আকলিমা বেগম।

জাহিদ হাসান রাজু বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের স্নাতকোত্তর শ্রেণির শিক্ষার্থী। তার বাড়ি বরগুনার পাথরঘাটা থানার দক্ষিণ গোলবুনিয়া গ্রামে। তার মা, স্ত্রী ও মেয়ে বাড়িতে থাকেন। ঢাকার মিরপুরে একটি মেসে থাকতেন রাজু।

সংবাদ সম্মেলনে একটি লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন রাজুর মা আকলিমা।

লিখিত ওই বক্তব্যে বলা হয়, গত ২৪ জুন থেকে রাজু নিখোঁজ। ওই মেস থেকে বের হয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে স্থানীয় মসজিদে মাগরিবের নামাজ পড়তে গিয়ে আর ফেরেননি তিনি। তার মোবাইল ফোন তখন থেকেই বন্ধ ছিল। অনেক খোঁজার পরও তাকে না পাওয়ায় ২৬ জুন পল্লবী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। কিন্তু এখনও পুলিশ রাজুর বিষয়ে কোনো তথ্য দিতে পারেনি।
নিখোঁজ জাবি শিক্ষার্থীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ

আকলিমা বেগম বলেন, ‘২৬ জুন সকালে একটি নম্বর থেকে ছেলেকে ছেড়ে দেয়া হবে বলে ১ লাখ টাকা চাওয়া হয়। পরে জাহিদের নম্বর থেকে ফোন করে ৫০ হাজার টাকা চাওয়া হয়। পরে ৩০ হাজার টাকা চেয়ে একটি নগদ নম্বর পাঠানো হয়। সেই নম্বরে ১৩ হাজার টাকা পাঠানোর পর সব নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়।

‘আমরা হয়রানি ও প্রতারণার শিকার হয়েছি। জাহিদকে ফিরিয়ে দিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি আর্জি জানাচ্ছি।’

জাহিদের স্ত্রী হাফসা আক্তার বলেন, ‘জাহিদ ছাড়া আমাদের পরিবারে উপার্জনক্ষম কেউ নেই। আমার মেয়ে তাবিয়াকে কী বলে সান্ত্বনা দেব, সে ভাষাও আমার জানা নেই। প্রধানমন্ত্রী আমাদের মায়ের মতো। তিনি যেন আমার স্বামীকে ফিরিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করেন।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক মাহবুব কবির, অধ্যাপক সুবর্ণা কর্মকার ও সহযোগী অধ্যাপক আওলাদ হোসেন।

জাহিদের নিখোঁজের জিডির ভিত্তিতে তদন্ত করছেন পল্লবী থানার উপপরিদর্শক জহির উদ্দিন আহমেদ।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জাহিদ নিখোঁজ হওয়ার পর পত্রিকায় হারানো বিজ্ঞপ্তি ও সংবাদ দেখে কিছু প্রতারক তার পরিবারকে কল করে টাকা চেয়েছে। তবে ২৪ তারিখের পর জাহিদের ফোন নম্বরটি চালু হয়নি। তার সর্বশেষ লোকেশন ছিল পল্লবী। আমরা তাকে উদ্ধারে চেষ্টা করছি।’

আরও পড়ুন:
ছোট ভাইকে খুঁজতে গিয়ে বড় ভাইও নিখোঁজ
জাবিতে ভর্তি আবেদনে যোগ্যতা শিথিলের দাবি
শীতলক্ষ্যায় গোসলে নেমে কিশোর নিখোঁজ
নর্দমায় নিখোঁজের ২৩ ঘণ্টা পর উদ্ধার আবুলের মরদেহ
বোতল কুড়াতে গিয়ে নিখোঁজ নর্দমায়

শেয়ার করুন

মন্তব্য