লকডাউন: ট্রাক-বাইকে বাড়ি ফেরার ধুম

লকডাউন: ট্রাক-বাইকে বাড়ি ফেরার ধুম

গাবতলী-আমিন বাজার এলাকায় শুধু মাইক্রোবাস, ট্রাক কিংবা পিকআপে নয় মোটরসাইকেলেও মানুষ বাড়িতে ফিরছে। ছবি: নিউজবাংলা

গাবতলী-আমিন বাজার এলাকায় শুধু মাইক্রোবাস, ট্রাক কিংবা পিকআপে নয় মোটরসাইকেলেও মানুষ বাড়িতে ফিরছে। অ্যাপভিত্তিক পাঠাও চালক মো. হোসেন বলেন, ‘আরিচা ঘাট যেতে একজনের কাছ থেকে নিই ১,২০০ টাকা। আমার বাড়ি বগুড়া। বগুড়া গেলে মানুষ বুঝে ভাড়া নেই। তিন হাজার থেকে ছয় হাজার টাকা নেই বগুড়া যেতে। তবে আমি ভাড়া একটু বেশি নিই কারণ, আমি একজনের বেশি যাত্রী নিই না।’ বগুড়ার ভাড়া জানতে চাইলে মাইক্রোবাসের চালক মিজান বলেন, ‘ভাই বগুড়ার ভাড়া ১,৪০০ টাকা। গেলে উঠেন পুরা গাড়ি ফিলাপ, এক সিট ফাঁকা আছে।’

‘এই বগুড়া বগুড়া বগুড়া। আরিচা ৫০০ আরিচা ৫০০। ট্রাকে ঘুমাইয়া রাজশাহী যাইবো কে কে, এইদিক আহেন। এই যে ত্রিপল পাতাইয়া ঘুমাইয়া ঘুমাইয়া বাড়ি যাইবেন। ঘুম থেইকা উইঠাই বাড়ি।’ গাবতলী-আমিন বাজার এলাকায় এমনভাবে যাত্রী ডাকছেন এক চালক।

তবে হঠাৎ বৃষ্টির কারণে এই ত্রিপলের নিচেই তারা বাড়ি ফিরছেন।

আমিন বাজার ব্রিজ পার হয়ে চামড়া পট্টির প্রাইভেটকার স্টান্ড পর্যন্ত প্রধানসড়কে এই গাড়িগুলো যাত্রী নিয়ে ছুটছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। তবে রাস্তায় কোন যানজট নেই। মানুষের বাড়ি ফেরার চাপও কম।

কাছে গিয়ে বগুড়ার ভাড়া জানতে চাইলে মাইক্রোবাসের চালক মিজান বলেন, ‘ভাই বগুড়ার ভাড়া ১,৪০০ টাকা। গেলে উঠেন পুরা গাড়ি ফিলাপ, এক সিট ফাঁকা আছে।’

একটু এগুলেই আরেকজন বলেন বগুড়ায় ভাড়া ১,৫০০ টাকা। রাজশাহীতে ট্রাকে ৭০০ টাকা ভাড়া। মাইক্রোবাসে সিরাজগঞ্জ ১,২০০ টাকা। আরিচা ঘাটে মাইক্রোবাসের ভাড়া ৫০০ টাকা।

তবে যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া নেয়ার ব্যাপারে রয়েছে অসামঞ্জস্যতা। যে যত আদায় করে নিতে পারে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সোমবার সকাল ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত আংশিক লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। এই সময়ে সারা দেশে রিকশা ছাড়া যাত্রী পরিবহনে আর কোনো বাহন চলবে না।

গাবতলী-আমিন বাজার এলাকায় শুধু মাইক্রোবাস, ট্রাক কিংবা পিকআপে নয় মোটরসাইকেল করেও মানুষ বাড়িতে ফিরছে।

লকডাউন: ট্রাক-বাইকে বাড়ি ফেরার ধুম

যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া নেয়ার ব্যাপারে রয়েছে অসামঞ্জস্যতা। যে যত আদায় করে নিতে পারে। ছবি:নিউজবাংলা

মো. হোসেন একজন অ্যাপভিত্তিক পাঠাও চালক। তবে মানুষের বাড়ি ফেরার হিড়িক পড়ার কারণে তিনি এখন যাত্রী নিয়ে ঢাকা জেলার বাইরে যাচ্ছেন।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আরিচা ঘাট যেতে একজনের কাছ থেকে নিই ১,২০০ টাকা। আমার বাড়ি বগুড়া। বগুড়া গেলে মানুষ বুঝে ভাড়া নেই। তিন হাজার থেকে ছয় হাজার টাকা নেই বগুড়া যেতে। তবে আমি ভাড়া একটু বেশি নিই কারণ, আমি একজনের বেশি যাত্রী নিই না।’

সরকারের লকডাউনের সিদ্ধান্তের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সরকার দুই দিন পর পর উদ্ভট সিদ্ধান্ত নেয়। তাদের সিদ্ধান্তের কোন ঠিকঠিকানা নাই। এই বলে সোমবার লকডাউন, আবার বলে বৃহস্পতিবার। ঢাকার সব মানুষ তো আর শিক্ষিত না। তারা সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না, বাড়ি যাবে না ঢাকায় থাকবে।’

মো. ফারুক। বাড়ি সিরাজগঞ্জ। ২৫ বছর ধরে রিকশা চালান ঢাকায়। লকডাউনের কারণে তিনি বাড়ি যাচ্ছেন।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘একে তো স্কুল-কলেজ বন্ধ। তার ওপর লকডাউন। ভাড়া মাইরা পোষায় না। তাই বাড়ি যাইতাছি। দেহি ঈদের পর সব ঠিক হইলে আবার আসুম। থাকা-খাওয়ায় ঝামেলা হইতাছে। হুদাই ঢাকা থাইকা কি করমু।’

গাবতলী বাস টারমিনাল ও টিকিট কাউন্টার বন্ধ থাকলেও ঢাকার গাড়ি ঢাকার বাইরে যাওয়ার নিষেধ থাককেও কিছু লোকাল বাস গাবতলী বাসস্টান্ডের প্রধান সড়ক থেকে যাত্রী নিয়ে যাচ্ছে সাভার, চন্দ্রাসহ বিভিন্ন যায়গায়। গাবতলী ব্রিজে অবস্থানরত ট্রাফিক পুলিশ মো. ফাহিদের সামনে দিয়েই যাচ্ছে গাড়িগুলো।

ঢাকার গাড়ি ঢাকার বাইরে যাওয়ার কারণ জানতে চাইলে ফাহিদ বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি কোন মন্তব্য করতে পারবো না। আপনি টিআই স্যারের সাথে কথা বলেন।’

তবে গাবতলী পুলিশ বক্সের ট্রাফিক ইনচার্জ (টিআই) এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করেননি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ট্রাফিক পুলিশের মিরপুর জোনের এডিসি সোহেল রানা বলেন, ‘আমিন বাজারে যেখান থেকে ইউ-টার্ন করাতো গাড়ি ওই যায়গা নষ্ট হয়ে গেছে। একারণে আমরা গাবতলী দিয়ে ঘুরিয়ে দিচ্ছি।’

গাবতলী থেকে দিগুণ ভাড়ায় পাশাপাশি সিটে স্বাস্থবিধি না মেনে যাত্রী নিয়ে লোকাল বাস সাভার চন্দ্রাসহ বিভিন্ন জায়গায় যাচ্ছে। গাবতলী ট্রাফিক পুলিশ বক্সের সামনে থেকেও যাত্রী নিচ্ছে। এ বিষয়ে আপনারা কতটুকু উদ্যোগ নিচ্ছেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, এটা তো হওয়ার কথা না। তার পরেও আপনি যেহেতু অভিযোগ করেছেন আমি এখনি ব্যবস্থা নিতে বলছি। দেখি সেখানে কে আছে। তার সাথে আমি কথা বলছি।’

আরও পড়ুন:
লকডাউন তামাশায় পরিণত হয়েছে: বিএনপি
শাটডাউনে মাঠে নামছে সেনাবাহিনী
সোমবার নয়, শাটডাউন বৃহস্পতিবার থেকে

শেয়ার করুন

মন্তব্য