রাস্তায় দুধ ফেলে প্রতিবাদ

রাস্তায় দুধ ফেলে প্রতিবাদ

খামারিদের অভিযোগ, লকডাউনের কারণে বেশ কিছুদিন ধরেই গ্রামের বাজারগুলোতে দুধের দাম কমে যায়। প্রতি কেজি দুধ ২০ টাকা কেজি দরেও তারা বিক্রি করতে পারছেন না। ছবি: নিউজবাংলা

খামারিদের অভিযোগ, লকডাউনের কারণে বেশ কিছুদিন ধরেই গ্রামের বাজারগুলোতে দুধের দাম কমে যায়। প্রতি কেজি দুধ ২০ টাকা কেজি দরেও তারা বিক্রি করতে পারছেন না। এ অবস্থায় আনুমানিক ৫০ জনের মতো খামারি একজোট হয়ে প্রায় ১০০ কেজি দুধ বাজারের রাস্তায় ফেলে দেন। তারা সরকারি ব্যবস্থাপনায় মিল্কভিটার মাধ্যমে দুধ কেনার দাবি জানান।

ঢাকায় ৭৫ থেকে ৮০ টাকা লিটার দরে দুধ বিক্রি হলেও নাটোরের খামারিরা গ্রাম এলাকার বিক্রি করতে পারছেন না ২০ টাকা দরেও। এমনকি জেলা শহরেও দুধের দাম ৬০ টাকা।

অনন্যোপায় হয়ে খামারিরা রাস্তায় দুধ ফেলে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। শনিবার দুপুরে জেলার সিংড়ার বাহাদুরপুর বাজারে এ কাজ করেন তারা।

খামারিদের অভিযোগ, লকডাউনের কারণে বেশ কিছুদিন ধরেই গ্রামের বাজারগুলোতে দুধের দাম কমে যায়। প্রতি কেজি দুধ ২০ টাকা কেজি দরেও তারা বিক্রি করতে পারছেন না।

এ অবস্থায় আনুমানিক ৫০ জনের মতো খামারি একজোট হয়ে প্রায় ১০০ কেজি দুধ বাজারের রাস্তায় ঢেলে ফেলে দেন। তারা সরকারি ব্যবস্থাপনায় মিল্কভিটার মাধ্যমে দুধ কেনার দাবি জানান।

বাহাদুরপুর পুরানপাড়ার খামারি আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, ‘দুধের ন্যায্য দাম পাচ্ছি ন্যা। এই দুধ লিয়্যা আমরা কী করব্যো? তাই মনের দুখখে দুধ ঠাইল্যে ফেল্যাই দিছি।’

আরেক খামারি বাহাদুরপুর কান্দিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘আমরা অনেক লস দিছি। গাভীর পোয়ারের দাম বাইড়্যে গেছে। কিন্তু দুধের দাম বাড়িচ্ছে না। এখন সরকার মুখ তুলে না তাকালে আমারেক মরতে হবি।’

সিংড়া উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা খুরশিদ আলম জানান, ‘শহরে এখনও ৬০টাকা কেজি দরে দুধ বিক্রি হচ্ছে। তবে শুক্র-শনিবার ছুটির দিন হওয়ায় গ্রামাঞ্চলে দুধের দাম কিছুটা কমে গেছে।’

ন্যায্যমুল্যে দুধ বিক্রি নিশ্চিত করতে তারা উদ্যোগ নিচ্ছেন বলেও জানান তিনি। তবে কী সেই পরিকল্পনা, সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি এই কর্মকর্তা।

শেয়ার করুন

মন্তব্য