মালয়েশিয়া, দুবাইয়েও নারী পাচারে নদীর নাম

মালয়েশিয়া, দুবাইয়েও নারী পাচারে নদীর নাম

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর শ্যামলীর কার্যালয়ে তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. শহিদুল্লাহ এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান, নদী ১০টি নাম ব্যবহার করে নারী পাচারের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ছবি: নিউজবাংলা

‘পাচারের উদ্দেশ্যে আনা মেয়েদের যশোর সীমান্তে বাড়িতে রেখে সুযোগমতো ভারতে পাচার করত চক্রটি। পাচারকৃত প্রত্যেক মেয়ের জন্য স্থানীয় এক ইউপি সদস্য এক হাজার টাকা করে নিতেন। পাচারকালে কোনো মেয়ে বিজিবির কাছে আটক হলে সেই ইউপি সদস্য তাকে আত্মীয় পরিচয় দিয়ে ছাড়িয়ে নিয়ে আসতেন।’

আন্তর্জাতিক নারী পাচারকারী চক্রের অন্যতম হোতা নদী আক্তার ইতি শুধু ভারতেই নারী পাচার করতেন না; মালয়েশিয়া ও দুবাইয়েও তার তৎপরতা বিস্তৃত ছিল।

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর শ্যামলীর নিজ কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মো. শহিদুল্লাহ বলেন, ‘নদী ভারত, মালয়েশিয়া ও দুবাইয়ের নারী পাচারকারী চক্রের সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করতেন।’

‘পাচারকৃত ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে নদীর ১০টির মতো ছদ্মনাম জানা গেছে।’

সোমবার বিকেলে নড়াইল ও যশোর সীমান্ত এলাকা নদীসহ নারী পাচারকারী চক্রের সাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে মোবাইল ফোন, জাতীয় পরিচয়পত্র, ভারতীয় আধার কার্ডসহ নগদ অর্থ জব্দ করা হয়।

নদী ছাড়া গ্রেপ্তার অন্যরা হলেন আল আমিন হোসেন, সাইফুল ইসলাম, আমিরুল ইসলাম, পলক মণ্ডল, তরিকুল ইসলাম ও বিনাশ শিকদার।

ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মো. শহিদুল্লাহ প্রেস ব্রিফিংয়ে আরও বলেন, ভারতফেরত পাচার হওয়া তরুণীর অভিযোগের অনুসন্ধান করতে গিয়ে এই চক্রের সন্ধান পায় হাতিরঝিল থানার পুলিশ।

মালয়েশিয়া, দুবাইয়েও নারী পাচারে নদীর নাম
ভারতে নারী পাচারের ঘটনায় আলোচিত হয়ে ওঠা নদী

‘পাচারের উদ্দেশ্যে আনা মেয়েদের যশোর সীমান্তে বাড়িতে রেখে সুযোগমতো ভারতে পাচার করত চক্রটি। পাচারকৃত প্রত্যেক মেয়ের জন্য স্থানীয় এক ইউপি সদস্য এক হাজার টাকা করে নিতেন। পাচারকালে কোনো মেয়ে বিজিবির কাছে আটক হলে সেই ইউপি সদস্য তাকে আত্মীয় পরিচয় দিয়ে ছাড়িয়ে নিয়ে আসতেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘২০০৫ সালে সন্ত্রাসী রাজীব হোসেন নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে নদীর বিয়ে হয়। ২০১৫ সালে রাজীব পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মারা যান।

‘এরপর থেকেই নদী পাচারকারী চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। পাচারকৃত ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে নদীর ১০টির মতো ছদ্মনাম জানা যায়। নদী ভারত, মালয়েশিয়া ও দুবাইয়ের নারী পাচারকারী চক্রের সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করতেন।’

শহিদুল্লাহ বলেন, ‘পাচার হওয়া নারীদের কাছে তিনি নদী হিসেবে পরিচয় দিলেও ভারতে তাকে সবাই ইতি নামে চেনে। ভারতীয় আধার কার্ডে তার নাম জয়া আক্তার জান্নাত। বাংলাদেশি পাসপোর্টে তার নাম নূরজাহান। সাতক্ষীরা সীমান্তে তার নাম জলি, যশোর সীমান্তে তিনি প্রীতি নামে পরিচিত।’

গ্রেপ্তার অন্য আসামিদের নারী পাচারে ভূমিকা

ডিসি মো. শহিদুল্লাহ ব্রিফিংয়ে জানান, গ্রেপ্তার আল আমিন হোসেন ২০২০ সালে ঈদুল আজহার চার দিন পর নারী পাচার করতে গিয়ে বিএসএফের গুলিতে আহত হন। তিনি পাচারের উদ্দেশ্যে আনা মেয়েদের তার বাড়িতে রেখে সুযোগমতো ভারতে পাচার করতেন। তিনি নারী পাচারের পাশাপাশি মাদক ব্যবসায় জড়িত। তার নামে যশোরের শার্শা থানায় দুটি মাদক মামলা রয়েছে।

গ্রেপ্তার সাইফুল ইসলামের শার্শার পাঁচভূলট বাজারে মোবাইল ফোন রিচার্জ ও মোবাইল ব্যাংকিংয়ের ব্যবসা আছে। মানব পাচারে জড়িত ইসরাফিল হোসেন খোকন, আব্দুল হাই, সবুজ, আল আমিন ও একজন ইউপি সদস্য তার মাধ্যমে মানব পাচার থেকে অর্জিত অর্থ বিকাশে লেনদেন করেন। পুলিশের উপস্থিতি টের পেলে তিনি মানব পাচারে জড়িত ব্যক্তিদের সতর্ক করে দেন। বিকাশ ট্রানজেকশনে ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি জব্দ করা হয়েছে। গ্রেপ্তার পলক মণ্ডল যশোরের মনিরামপুরের ঢাকুরিয়া স্কুল থেকে এসএসসি পাস করে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার গাহঘাটা থানার নলকড়া গ্রামে নানাবাড়িতে যান। সেখানে আবার পঞ্চগ্রাম স্কুলে ক্লাস সেভেনে ভর্তি হয়ে মাধ্যমিক পাস করেন।

বেনাপোলের ইসরাফিল হোসেন খোকন, ভারতে অবস্থানকারী বকুল, তাসলিমা, যার আরেক নাম বিউটি ও চক্রের অন্য সদস্যদের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে। আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা নিতে আসা গ্রাম্য দরিদ্র মেয়েদের বেঙ্গালুরুতে তাসলিমা বা বিউটির কাছে পাঠানোর মাধ্যমে তার নারী পাচারে হাতে খড়ি। পরবর্তী সমযে বাংলাদেশ থেকে পাচারকৃত মেয়েদের আধার কার্ড প্রস্তুত করে দেয়ার পাশাপাশি ‘সেফ হোম’-এ অবস্থান এবং বেঙ্গালুরুতে নির্ধারিত স্থানে পাঠানোর দায়িত্ব নেন তিনি।

এ ছাড়া তিনি ভারতীয় আধার কার্ড ও ভারতের নির্বাচন কমিশনের দেয়া আইডি কার্ডধারী। তিনি উত্তর প্রদেশের গোরাক্ষপুর জেলার বড়ালগঞ্জ থানার নেওয়াদা গ্রামেও থেকেছেন। তার কাছ থেকে তার ভারতীয় আধার কার্ড, ভারতে নির্বাচন কমিশনের দেয়া আইডি কার্ড, ভারতীয় আয়কর বিভাগের দেয়া আইডি কার্ড, ভারতীয় সিম কার্ড ও একজন ভিকটিমের আধার কার্ড জব্দ করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার বিনাশ সিকদার নড়াইলে দশম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন। তিনি বেনাপোলে বাসা ভাড়া নিয়ে পাসপোর্ট ফরম পূরণের কাজ করেন। তার স্ত্রী সোনালী সিকদার ভারতীয় নাগরিক। বেনাপোলে পাসপোর্ট ফরম পূরণের কাজ করতে গিয়ে ইসরাফিল হোসেন খোকন, আব্দুল হাই সবুজ ও মানব পাচারে জড়িত আরও কয়েকজনের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। সেই পরিচয়ের সূত্র ধরে মানব পাচারে তিনি জড়িয়ে পড়েন। যশোর ও নড়াইল থেকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে ভারতে উচ্চ বেতনে চাকরি বা প্রলোভন দেখিয়ে আনা নারীদের ইসরাফিল হোসেন খোকন, আল আমিন, তরিকুল, আমিরুল ও আরও কয়েকজনের মাধ্যমে সীমান্ত পার করে ভারতীয় দালালদের কাছে পৌঁছে দেন তিনি। তার কাছ থেকে বাংলাদেশি জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট এবং দুটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ থেকে যেসব আধার কার্ড ও অন্যান্য কাগজপত্র জব্দ করা হয়েছে, এসব ভারতীয়রা করেছেন নাকি বাংলাদেশি কেউ করে দিয়েছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মো. শহিদুল্লাহ বলেন, ‘এগুলো তৈরিতে ভারতীয় লোকেরা সহায়তা করেছে।’

নদীর সঙ্গে টিকটক হৃদয়ের ঘনিষ্ঠতা ছিল উল্লেখ করে ডিসি শহিদুল্লাহ বলেন, ‘নদী, হৃদয় বাবুসহ আরও দুয়েকজনের নাম আগে উল্লেখ করেছিলাম। তাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে এবং তাদের সহযোগিতায় নদীরা নারী পাচার করেছেন।’

ভারতে যে ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে, ওই ভিডিওর সঙ্গে নদীর সম্পৃক্ততা কতটুকু? এ বিষয়ে তেজগাঁও ডিসি বলেন, ‘টিকটক হৃদয়ের সঙ্গে যেহেতু নদীর সংশ্লিষ্টতা রয়েছে, সেহেতু ওই ভিডিওর সঙ্গেও নদীর সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি।’

সাতক্ষীরা ও যশোর এলাকায় মানব পাচারের সঙ্গে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ততা পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেবেন কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানতে পেরেছি, স্থানীয় কিছু জনপ্রতিনিধি পাচারকাজে জড়িত রয়েছেন। তবে তদন্তের শেষ পর্যায়ে বলতে পারব কারা কারা পাচারে সহযোগিতা করেছেন। যাদের বিরুদ্ধে মানব পাচারের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাবে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

যেভাবে পাচার

যে তরুণীর মামলায় নদী গ্রেপ্তার হয়েছেন, তার ছদ্মনাম সায়মা। তিনি জানান, চার বোনের মধ্যে তিনি মেজো। থাকতেন রাজধানীর মাতুয়াইলে। তার বাবা টাইলস মিস্ত্রি। ২০১৪ সালে বাবা-মায়ের বিবাহবিচ্ছেদ হয়। মা আরেকজনকে বিয়ে করেন। মা ও সৎবাবার সঙ্গে চার বোন কাজলায় থাকতে শুরু করেন।

ফেসবুকে ভারতপ্রবাসী নদীর সঙ্গে পরিচয় হয় সায়মার। তিনি জানান, বেঙ্গালুরুতে বিউটি পারলারে লোক নেবে। মাসে ৩০ হাজার টাকা বেতন। ৫ জন মেয়ে নেবে।

এই প্রস্তাব সায়মা তার মাকে জানালে তিনি রাজি হননি। কিন্তু বড় বোন সংসারের অভাব-অনটনের কথা চিন্তা করে মাকে রাজি করান।

সায়মা জানান, নদীর কথামতো যশোরের বেনাপোল এলাকার ইসরাফিল হোসেন খোকন তার বড় বোনকে ফোন করেন।

পরে নদীর নির্দেশনা মতো তার বড় বোন ২০২০ সালের ২০ নভেম্বর রাতে যশোরের উদ্দেশে বাসযোগে যাত্রা শুরু করেন। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে খোকনের নির্দেশনা মোতাবেক যশোরের শার্শা এলাকায় বাস থেকে নামেন তার বড় বোন।

মালয়েশিয়া, দুবাইয়েও নারী পাচারে নদীর নাম
ভারতে নারী পাচারের বিষয়টি সামনে আসে সে দেশে বাংলাদেশি তরুণীকে যৌন নির্যাতনের ভিডিও ছড়ানোর পর

সেখান থেকে তরিকুল নামে একজনের ইজিবাইকে আল-আমিন নামে একজনের বাসায় যান বোন।

২১ নভেম্বর রাত ১০টার দিকে বেনাপোল সীমান্তের দিকে যাওয়ার সময় শেষবার বোনের সঙ্গে কথা হয় সায়মার। পরের দিন তার ইমো নম্বরে ফোন করেন নদী। কিন্তু তিন-চার দিন পর বোনের খোঁজ নিতে নদীর ইমো নম্বরে ফোন দিয়ে বন্ধ পান তিনি।

ছোট বোন খালাকে পাচারের ফাঁদ

১০-১২ দিন পর আবার নদীর ভারতীয় ইমো নম্বরে ফোন করে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। এরপর বিউটি নামে আরেকজনের ইমো নম্বরে ফোন করলে তিনি জানান, তার বড় বোন অসুস্থ। হাসপাতালে ভর্তি আছে। চিকিৎসা হচ্ছে। তবে সেখানে দেখাশোনা করার মতো লোক নেই।

এ কথা শুনে সায়মা ও তার ছোট খালা ভারত যেতে চান।

২০২০ সালের ১৬ ডিসেম্বর মগবাজারের নূরজাহান আবাসিক হোটেলের সামনে নদীর সঙ্গে দেখা হয় তার ও ছোট খালার। নদী সিএনজিচালিত অটোরিকশায় সেখান থেকে তাদের কল্যাণপুরে নিয়ে যান। এরপর যশোরের বেনাপোলের দুটি টিকিট করে বাসে উঠিয়ে দিয়ে জানান, সকালের দিকে তার লোক এসে তাদের নিয়ে যাবেন।

২০২০ সালের ১৮ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ১০টার দিকে হেঁটে হেঁটে সীমান্ত পাড়ি দেন তারা।

মালয়েশিয়া, দুবাইয়েও নারী পাচারে নদীর নাম
ভারতে নারী পাচারে টিকটক হৃদয় বাবু ও নদী মিলে একটি চক্র গড়ে ওঠার তথ্য জানিয়েছে পুলিশ

ভারতে বিউটি পারলারে কাজের কথা বলে বেঙ্গালুরুর ইলেকট্রনিক সিটির একটি বাসায় সায়মাকে এবং তার খালাকে কেরালার একটি হোটেলে পাঠানো হয়। সেখানে তাদের দুজনের ওপরই যৌন নির্যাতন চালানো হয় বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়।

সেখানে হৃদয় বাবু, সাগর, আখিল, রুবেল ওরফে রাহুল, সবুজ বিউটির বাসায় এসে সায়মার বোনকে খুব মারধর করেন।

পরে তাকে ও তার সঙ্গে কয়েকজনকে চেন্নাই, কেরালা ও বেঙ্গালুরুর বিভিন্ন হোটেলে ও ম্যাসেজ সেন্টারে পাঠানো হয়। একপর্যায়ে তার পেটে বাচ্চা আসে।

গত ২ মে বেঙ্গালুরুর একটি ম্যাসেজ সেন্টারের জানালা ভেঙে পালাতে সক্ষম হন। আর ট্রেনে কলকাতা এসে ৬ মে বাংলাদেশে আসেন।

পালিয়ে আসা এই তরুণী জানান, বেঙ্গালুরুতে অবস্থানকালে কৌশলে সবার নাম ও মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে রাখেন।

২২ জন ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা

সায়মার করা মামলায় ২২ আসামির নাম উল্লেখ করা হয়েছে। তারা হলেন নদী, ইসরাফিল হোসেন ওরফে খোকন, তরিকুল, আল-আমিন, আব্দুল হাই ওরফে সবুজ, সাইফুল, তাসলিমা ওরফে বিউটি, বিনাশ শিকদার, আমিরুল, মেম্বার, আনিস, আলম, মেহেদী হাসান বাবু, মহিউদ্দিন, সালাম, বকুল ওরফে ছোট খোকন, পলক মণ্ডল, রিফাদুল ইসলাম হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, আখিল, সাগর, রুবেল ওরফে রাহুল ও সবুজ।

হাতিরঝিল থানায় করা আরেক মামলায় টিকটক হৃদয়সহ ১৪ আসামির নাম উল্লেখ আছে। অপর ১৩ জন হলেন ইসরাফিল হোসেন ওরফে খোকন, তরিকুল, আল-আমিন, আব্দুল হাই ওরফে সবুজ, আমিরুল, সাইফুল, পলক মণ্ডল, বকুল ওরফে ছোট খোকন, সাগর, সবুজ, রুবেল ওরফে রাহুল, আখিল ও ডালিম।

শেয়ার করুন

মন্তব্য