বজ্রপাতে প্রাণহানি ঠেকাতে সরকারের তিন প্রকল্প

বজ্রপাতে মানুষের প্রাণহানি ঠেকাতে বেশ কয়েকটি প্রকল্প গ্রহণ করতে যাচ্ছে সরকার বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব মো. মোহসীন। ছবি: নিউজবাংলা

বজ্রপাতে প্রাণহানি ঠেকাতে সরকারের তিন প্রকল্প

বজ্রপাত শোষণে যন্ত্র বসানোর কথা ভাবছে সরকার। বজ্রপাতের আগাম সতর্কবার্তা পেতে বিশেষ প্রযুক্তি স্থাপনের কথাও ভাবা হচ্ছে। এ ছাড়া কৃষকের জন্য আশ্রয় ছাউনি নির্মাণ করা হতে পারে।

সরকারি হিসাব অনুযায়ী, এ বছর এখন পর্যন্ত বজ্রপাতে মারা গেছেন ১০৭ জন। সাধারণ হিসাবে এপ্রিল থেকে জুলাই পর্যন্ত বজ্রপাতের আশঙ্কা থাকে। এক দশকের পরিসংখ্যানে মৃত্যুর সংখ্যা কম হলেও বিষয়টি ভাবিয়ে তুলেছে সরকারকে।

বজ্রপাতে মানুষের প্রাণহানি ঠেকাতে দীর্ঘমেয়াদি, মধ্যমেয়াদি ও তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণে বেশ কয়েকটি প্রকল্প গ্রহণ করতে যাচ্ছে সরকার। এগুলোর মধ্যে আছে বজ্রপাত শোষণে অ্যারেস্টার স্থাপন; বজ্রপাতের আগাম সতর্কবার্তা পেতে বিশেষ প্রযুক্তি স্থাপন এবং কৃষকের জন্য আশ্রয় ছাউনি নির্মাণ।

প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে দ্রুত একনেকে পাঠানো হবে বলে নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণসচিব মো. মোহসীন।

একই সঙ্গে অব্যাহত থাকবে তালগাছ রোপণের কাজ।

সরকারের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, বজ্রপাতে প্রতি বছর গড়ে দুই শতাশিক লোক মারা যায়। এর মধ্যে ২০১৮ সালে সর্বোচ্চ ৩৫৯ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণসচিব বলেন, ‘বজ্রপাত আবহমান কাল ধরে হচ্ছে, এখনও হচ্ছে, ভবিষ্যতেও হবে। এটা বন্ধ করার কোনো সুযোগ নেই। পৃথিবীতে বেশির ভাগ দেশেই আমাদের চেয়ে বেশি বজ্রপাত হয়।’

গত এক দশকে মৃত্যুর পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে তিনি বলেন, ‘২০১৭ সাল ছিল আমাদের জন্য ওয়েকআপ কল। সে বছর সুনামগঞ্জে বজ্রপাতে ৮০ জনের প্রাণহানি ঘটে। মারা গেছে শতাধিক পশুসম্পদও ।’

ওই ঘটনার পর বজ্রপাতে মানুষের মৃত্যু ঠেকাতে সারা দেশে ১০ লাখ তালগাছ রোপণের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

বজ্রপাতে প্রাণহানি ঠেকাতে সরকারের তিন প্রকল্প

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণসচিব মো. মোহসীন। ছবি: নিউজবাংলা

কিন্তু প্রকল্পটির সুফল পেতে অপেক্ষায় থাকতে হবে দীর্ঘ সময়। গত চার বছরে থামেনি মৃত্যুর মিছিল। এ বছরও বেড়েই চলেছে বজ্রপাতে মৃত্যুর সংখ্যা।

মৃত্যুর ঝুঁকি এখনও কাটেনি বলেও মনে করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সচিব। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সাধারণত এপ্রিল থেকে জুলাই পর্যন্ত বজ্রপাত হয়। একেকটা স্ট্রাইককে বলি বজ্রপাত। পুরো ঘটনাকে বলি আমরা বজ্রঝড়। বজ্রঝড় হলে একটার পর একটা ব্রজপাত হতেই থাকে। সাধারণত এটি ২৫ থেকে ৩০ মিনিটের মধ্যেই শেষ হয়ে যায়।’

সরকার বিষয়টিকে বেশ গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে বলে জানিয়ে মো. মোহসীন বলেন, ‘সুনামগঞ্জের বিষয়টি মাথায় রেখে প্রথমে আমরা চিন্তা করলাম হাওর-বাঁওড়ে যখন কৃষকরা কাজ করেন, তখন বজ্রপাত শুরু হলেও নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে ৩০-৪০ মিনিট সময় চলে যায়।’

আর তাই সেখানে আশ্রয় ছাউনি স্থাপনের কথা ভাবছে সরকার। সচিব বলেন, ‘হাওর অঞ্চলের জন্য একটি প্রকল্প করেছি। দুটো জেলায়, কয়েকটা উপজেলায় আমরা প্রথমে পাইলট প্রজেক্ট করে দেখব কী হয়। তারপর আমরা আগাব। এর সঙ্গে অর্থেরও সম্পর্ক আছে। তবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আন্তরিকভাবে চান বজ্রপাতে আমাদের দেশে মৃত্যুর কম হোক, ক্ষয়ক্ষতি কমে আসুক।’

বজ্রঝড়ের স্থায়িত্ব যেহেতু ৩০ মিনিটের বেশি নয়, তাই ছাউনি নির্মাণ করে মানুষের প্রাণহানি কমানো সম্ভব বলে মনে করেন সচিব। তিনি বলেন, ‘কংক্রিটের ছাউনি যদি করা যায়, লোকজন তাদের পশু নিয়ে আসল। নিরাপদে অবস্থান করল। ২০/২৫ মিনিট পর তারা আবার কাজে ফিরে গেল।’

মেহেরপুরের গাংনীতে ছোট ছোট কয়েকটি ছাউনি করা হয়েছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘আমরা এটা হাওরে শুরু করতে চাই। এটা খুব গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে। আগামী অর্থবছরে বরাদ্দ থেকে আমরা আশা করছি, ছাউনি যদি করতে পারি তাহলে অনেক কাজ আসবে।’

শুধু ছাউনি নির্মাণে আটকে থাকতে চায় না সরকার। খোঁজা হচ্ছে আরও আধুনিক প্রযুক্তি। সচিব মো. মোহসীন জানালেন, অ্যারেস্টার নামের একটি যন্ত্রের কথা, যা স্থাপন করা হলে বজ্রপাত শোষণ করে নেবে ওই যন্ত্র। ঠেকানো যাবে মানুষের প্রাণহানি। বেঁচে যাবে ফসল ও প্রাণিসম্পদ।

মো. মোহসীন বলেন, ‘উন্নত দেশগুলোর সঙ্গে কথা বললাম। প্রতিটি অ্যারেস্টার স্থাপনে ৬ থেকে ৭ লাখ টাকা লাগবে। তার মানে, এটা দিয়ে কভার করতে অনেক টাকা লেগে যাবে।’

অ্যারেস্টার নিয়ে সরকার চিন্তাভাবনা করার ফাঁকে পাওয়া গেল আরেকটি প্রযুক্তির সন্ধান। বলা হচ্ছে, স্পেনের এই প্রযুক্তি দিয়ে কোনো স্থানে বজ্রপাতের অন্তত ৩৫ মিনিট আগে পূর্বাভাস পাওয়া যাবে। দেয়া যাবে সতর্কতা।

যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ায় এমন একটি যন্ত্রের ব্যবহার নিজেই দেখেছেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীন। সেই অভিজ্ঞতা বিনিময় করে তিনি বলেন, ‘এই প্রযুক্তির চ্যালেঞ্জ হলো, মানুষকে আবার সেই তথ্য জানিয়ে দিতে হবে।’

বজ্রপাতে প্রাণহানি ঠেকাতে সরকারের তিন প্রকল্প

কীভাবে মানুষের কাছে এই সতর্কবার্তা পৌঁছানো যাবে, সেটাও ভেবে রাখা হয়েছে। সচিব বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে মোবাইল অনেকটা এগিয়ে রেখেছে। মাইকিং করা যেতে পারে। সেখানে যদি একটা স্টেশন বসানো হয়, তা হলে তারা বলতে পারবে এখানে বজ্রপাত এই সময়ের মধ্যে হতে পারে।’

গোটা বাংলাদেশকে বজ্রপাতের হাত থেকে রক্ষা করতে হলে ‘তিন শতাধিক স্টেশন স্থাপন করতে হয়’ বলে জানালেন সচিব।

আর তালগাছ রোপণ কাজকে চলমান রাখতে চায় সরকার। তারা বলছে, এটি দীর্ঘমেয়াদি এবং ফলপ্রসূ।

কারণটাও ব্যাখ্যা করলেন সচিব। বলেন, ‘যেকোনো ধরনের উঁচু গাছ বজ্রপাতের হাত থেকে রক্ষা করে। যখন বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে, তখন উঁচু গাছ সেটা নিউট্রালাইজ করতে পারে। সেজন্য আমরা তালগাছ রোপণের একটি প্রকল্প নিয়েছি। তাই যেকোনো টিআর আর কাবিখা প্রকল্পে বলি, তালগাছ রোপণের ব্যবস্থা করতে। ৫০ লাখ বলি, ৫৫ লাখ বলি-এটা শুরু হয়ে গেছে। প্রতিবছর রোপণ করা হচ্ছে। কিন্তু এটির সুফল পেতে অনেক দিন সময় লাগবে।’

সরকারের এই ভাবনাগুলো কোন পর্যায়ে আছে জানতে চাওয়া হলে সচিব বলেন, ‘প্রকল্পগুলো এখনও প্রণয়ন পর্যায়ে আছে। একটি প্রকল্প পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে, শুধু হাওর অঞ্চলের জন্য।’

তিনি বলেন, ‘আলাদা করে অ্যারেস্টার বসানোর জন্য একটি প্রকল্প নিতে চাই। আধা ঘণ্টা আগে পূর্বাভাস জানতে আমরা একটি প্রকল্প নিতে চাই। তালগাছের কাজ তো চলছে। ছাউনির জন্য আমরা আলাদা প্রকল্পের কথাও চিন্তা করছি, আবার প্রতিবছর কাবিখার ক্ষেত্রে কয়েক হাজার কোটি টাকা খরচ করি, সেখানেও ওই প্রকল্পে নেয়া যায় কি না… এটার সুবিধা হলো এর জন্য পরিকল্পনা কমিশনে যেতে হবে না। আমাদের এখান থেকে আমরা করতে পারব।’

বজ্রপাতে প্রাণহানি ঠেকাতে সরকারের তিন প্রকল্প
মেহেরপুরের মুজিবনগরে বজ্রপাতে মৃত কৃষকের পরিবারের আহাজারি

প্রস্তুতি নিতেই বছর দেড়েক সময় চলে গেল জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আগামী অর্থবছরে আমরা আশা করি এগুলোর বাস্তবায়ন পর্যায়ে যেতে পারব।’

কোন প্রকল্পটিকে অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে জানতে চাইলে সচিব বলেন, ‘প্রকল্পগুলোকে আমরা পাশাপাশি নিতে চাই। তাহলে বুঝতে পারব, কোনটাতে সুফল আমরা বেশি পাচ্ছি। আমরা অ্যারেস্টারে বেশি পাচ্ছি, নাকি আগাম সতর্কবার্তায় বেশি পাচ্ছি, নাকি ছাউনিতে বেশি পাচ্ছি।’

তবে বিল্ডিং কোড চূড়ান্ত হওয়ায় বজ্রপাতে ঝুঁকি অনেকাংশে কমে আসবে বলে মনে করেন সরকারের এই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘বিল্ডিং কোডে বলা আছে, একটা ঘর করতে গেলে তার ওপরে বজ্রপাত নিরোধক মানসম্মত দণ্ড দিতে হবে। অনেকে বলেন দণ্ড আছে। কিন্তু সেটা মানসম্মত হয় না।’

প্রতিটি ভবনে বজ্রপাত নিরোধক দণ্ড স্থাপন করা হচ্ছে কি না সেটা তদারকি করার ওপর জোর দেন মো. মোহসীন। তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি, এর ফলে বজ্রপাতের ৭০ শতাংশ সংকট কেটে যাবে।’

আরও পড়ুন:
বজ্রপাতে ৪ দিনে ৫৮ মৃত্যু
আম কুড়িয়ে ফেরার পথে বজ্রপাতে মৃত্যু
রাজশাহীতে বজ্রপাতে শিশুসহ ৪ জনের মৃত্যু
বজ্রপাতে বাড়ির উঠানে যুবকের মৃত্যু
ছাগলের ঘর বাঁচাতে গিয়ে বজ্রপাতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

শেয়ার করুন

মন্তব্য

বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা, বললেন না কিছুই

বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা, বললেন না কিছুই

আদালতে জবানবন্দি শেষে বাড়ি ফিরছেন ত্ব-হা। ছবি: নিউজবাংলা

কোতোয়ালি থানার ওসি আব্দুর রশীদ বলেন, আদালতের কাজ শেষে তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

নিখোঁজের আট দিন পরে অবশেষে আদালত হয়ে বাড়ি ফিরলেন আলোচিত ইসলাম বিষয়ক বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান এবং তার দুই সঙ্গী।

এসময় তারা সাংবাদিকদের কোনো প্রশ্নের জবাব দেননি।

ত্ব-হার বাকি দুই সঙ্গী হলেন আমির হোসেন ও আব্দুল মুহিত।

রাত সাড়ে ১১টায় রংপুর মহানগর আমলি আদালতের বিচারক কে এম হাফিজুর রহমানের আদালতে জবানবন্দি শেষে আইনজীবী সোলায়মান আহমেদ সিদ্দিকী বাবুর জিম্মায় তারা বাড়ি ফেরেন।

আদালত চত্বরে এসময় তিন পরিবারের স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মহানগর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রশীদ। তিনি বলেন, আদালতের কাজ শেষে তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

আইনজীবী সোলায়মান সিদ্দিকী বাবু বলেন, ‘যেহেতু তারা প্রাপ্তবয়স্ক এবং তাদেরকে কেউ অবরুদ্ধ করেনি এ কারণে বিজ্ঞ আদালত মনে করেন যে, তারা নিজ জিম্মায় বাড়ি যেতে পারবে। পরে আদালত চাইলে অবশ্যই তারা উপস্থিত হতে বাধ্য থাকবেন।’

বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা, বললেন না কিছুই
আদালতে ত্ব-হার জবানবন্দিকে ঘিরে সংবাদকর্মীদের ভিড়

আদালত চত্বরে থাকা ত্ব-হার মা আজেদা বেগম বলেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ। আমি আমার ছেলেকে ফিরে পেয়েছি।’

শুক্রবার বিকেলে ত্ব-হাকে রংপুর মহানগরীর আবহাওয়া অফিস মাস্টার পাড়ার তার প্রথম স্ত্রীর বাসা থেকে বের করে মহানগর পুলিশের ডিবি কার্যালয়ে নেয় পুলিশ। বিকেল ৫টার দিকে প্রেস কনফারেন্স করেন পুলিশের অপরাধ বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার আবু মারুফ হোসেন।

সেখানে তিনি জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ত্ব-হাকে আদালতে নেয়া হবে।

আদালত পরিদর্শক নাজমুল কাদের জানান, ইসলাম বিষয়ক বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান ও তার দুই সঙ্গীকে রাত সাড়ে ৯টার দিকে আদালতে আনা হয়। মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক কেএম হাফিজুর রহমানের আদালতে জবানবন্দি দেন তারা।

১০ জুন থেকে চার সহযোগীসহ নিখোঁজ হন ত্ব-হা। কোথা থেকে কীভাবে নিখোঁজ হন, এমন তথ্য দিতে পারছিল না আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও।

অনেকে অভিযোগ তুলছিল, সমসাময়িক অন্যান্য ইস্যুতে আন্তরিকতা দেখালেও ত্ব-হার নিখোঁজের বিষয়ে তেমন কোনো তৎপরতা দেখাচ্ছে না সরকার। এই নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছিল।

আরও পড়ুন:
বজ্রপাতে ৪ দিনে ৫৮ মৃত্যু
আম কুড়িয়ে ফেরার পথে বজ্রপাতে মৃত্যু
রাজশাহীতে বজ্রপাতে শিশুসহ ৪ জনের মৃত্যু
বজ্রপাতে বাড়ির উঠানে যুবকের মৃত্যু
ছাগলের ঘর বাঁচাতে গিয়ে বজ্রপাতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

শেয়ার করুন

আবরার স্মরণে ‘এক মুঠো ভাত’

আবরার স্মরণে ‘এক মুঠো ভাত’

আবরার ফাহাদ হত্যার দ্রুত বিচার দাবি করে বুয়েট ক্যাম্পাসে ‘এক মুঠো ভাত’ কর্মসূচি পালন করেছে অঙ্কুর ফাউন্ডেশন। ছবি: নিউজবাংলা

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার দ্রুত বিচার দাবি করে বুয়েট ক্যাম্পাসে ‘এক মুঠো ভাত’ কর্মসূচি পালন করেছে অঙ্কুর ফাউন্ডেশন। এ কর্মসূচির আওতায় শুক্রবার দুপুরে ক্যাম্পাসে ১০০ জনের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার দ্রুত বিচার দাবি করে বুয়েট ক্যাম্পাসে ‘এক মুঠো ভাত’ কর্মসূচি পালন করেছে অঙ্কুর ফাউন্ডেশন।

এ কর্মসূচির আওতায় শুক্রবার দুপুরে ক্যাম্পাসে ১০০ জনের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়।

রাজধানীরসহ দেশের ৬৪টি জেলা শহরে শুক্রবার এ কর্মসূচি পালিত হয়েছে বলে নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন সংগঠনটির সিনিয়র স্বেচ্ছাসেবক জুবায়ের।

জুবায়ের জানান, আবরারের নিজ জেলা কুষ্টিয়াতে আয়োজিত কর্মসূচিতে আবরার ফাহাদের বাবা উপস্থিত ছিলেন।

সংগঠন সূত্রে জানা যায়, ‘অঙ্কুর ফাউন্ডেশন’ একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। এই ফাউন্ডেশনের বেশ কয়েকটি প্রজেক্টের মধ্যে ‘এক মুঠো ভাত’ অন্যতম।

কর্মসূচির বিষয়ে সংগঠনটির মিডিয়া সমন্বয়ক মো. আলাউদ্দিন বলেন, ‘আবরার হত্যার পর আসামীদের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচারের কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু প্রায় এক বছর ৯ মাস পার হয়ে গেলেও বিচার কাজে তেমন অগ্রগতি হয়নি।’

আবরার স্মরণে ‘এক মুঠো ভাত’
আবরার হত্যার দ্রুত বিচার দাবি করে বুয়েট ক্যাম্পাসে অঙ্কুর ফাউন্ডেশন বিশেষ কর্মসূচী পালন করে। ছবি: নিউজবাংলা

‘সম্প্রতি আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বুয়েট থেকে আজীবন বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী আশিকুল ইসলাম বিটু ক্লাসে ফিরেছেন। আবার হত্যার বিচারের দীর্ঘসূত্রতা ও সাম্প্রতিক ঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন।’

আলাউদ্দিন বলেন, সংগঠনের অবস্থান প্রশাসন বা সরকারের বিরুদ্ধে নয়। বরং আমরা সরকারের কাছে অভিনব এই প্রক্রিয়ায় আবরার ফাহাদের জন্য দ্রুত ন্যায় বিচার দাবি করছি।

আবরার স্মরণে ‘এক মুঠো ভাত’
নিহত আবরার ফাহাদ। ফাইল ছবি

আরও পড়ুন:
বজ্রপাতে ৪ দিনে ৫৮ মৃত্যু
আম কুড়িয়ে ফেরার পথে বজ্রপাতে মৃত্যু
রাজশাহীতে বজ্রপাতে শিশুসহ ৪ জনের মৃত্যু
বজ্রপাতে বাড়ির উঠানে যুবকের মৃত্যু
ছাগলের ঘর বাঁচাতে গিয়ে বজ্রপাতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

শেয়ার করুন

চাকরির কথা বলে ভ্রমণ ভিসায় লোক পাঠাতেন অমি

চাকরির কথা বলে ভ্রমণ ভিসায় লোক পাঠাতেন অমি

পরীমনির করা মামলায় প্রধান আসামি নাসিরউদ্দিন মাহমুদের সঙ্গে অমি, যাকে এই ঘটনার পরিকল্পনাকারী বলছেন এই অভিনেত্রী। ছবি: নিউজবাংলা

এবার অমির বিরুদ্ধে মানবপাচারের মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার অমির রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে দুবাইয়ে যাওয়া দুই ব্যক্তির এক আত্মীয় এ মামলা করেন। এর আগে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চিত্রনায়িকা পরীমনি জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য নাসির ইউ মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমির নাম উল্লেখ করে মামলা করেন।

চিত্রনায়িকা পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার আসামি তুহিন সিদ্দিকী অমির বিরুদ্ধে এবার অভিযোগ উঠেছে মানবপাচারের।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে চাকরি দেয়ার কথা বলে নিজের রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে লোকজনের কাছ থেকে টাকা নিলেও তিনি তাদের পাঠাতেন ভ্রমণ ভিসায়। নির্ধারিত দেশে যাওয়ার পর উচ্চ বেতনে চাকরির পরিবর্তে পুলিশের ভয়ে পালিয়ে বেড়াতে হয় অমির মাধ্যমে বিদেশে যাওয়া ব্যক্তিদের।

এমনই দুই ভুক্তভোগীর আত্মীয় সাভারের আব্দুল কাদের নামে এক ব্যক্তি বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর পুলিশের দক্ষিণখান থানায় মানবপাচার আইনে মামলা করেছেন। তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ পাঁচজনকে এই মামলায় আসামী করা হয়। মামলার অন্য আসামীরা অমির রিক্রুটিং এজেন্ট।

মামলাটি তদন্ত করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি। মানবপাচার ও প্রতারণার ঘটনায় বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অমিকে রিমান্ডে আনার জন্য আবেদন করা হবে বলে জানিয়েছেন সিআইডির পরিদর্শক মো. মোস্তফা। মামলাটি তিনি তদন্ত করছেন।

পরিদর্শক মোস্তফা জানান, বাদী অভিযোগ করেছেন, তার দুজন আত্মীয়কে বিদেশ পাঠাতে অমির অফিসে যোগাযোগ করা হয়। অমির অফিস জানায়, দুবাইয়ের একটি মার্কেটে ফ্লোর ম্যানেজার হিসেবে চাকরি হয়েছে তাদের। মাসে পাবে ১৬৯০ দিরহাম। তাদের এজেন্সির মাধ্যমে যেতে হলে জনপ্রতি দিতে হবে ২ লাখ ৭০ হাজার টাকা। সে অনুযায়ী দুজন তাদের টাকা জমা দেয়। দুবাইয়ে পাঠানোও হয়।

দুবাই যাওয়ার পর বাদীর দুই আত্মীয় বুঝতে পারেন তাদের কাজের ভিসার কথা বলে ভ্রমণ ভিসায় পাঠানো হয়েছে। এরপর থেকে তারা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। বৈধভাবে তারা কোনো কাজ করতে পারছেন না বলে জানান পরিদর্শক মোস্তফা।

তিনি বলেন, বাদী আব্দুল কাদের দুই আত্মীয়ই নয়, সাভারের আরও দুজন এভাবে প্রতারিত হয়েছেন।

তিনি বলেন, মামলার অন্য আসামীদের আটকে আমাদের অভিযান চলছে।

ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে ১৪ জুন চিত্রনায়িকা পরীমনি জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য নাসির ইউ মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমির নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। আরও চারজনকে এ মামলায় অজ্ঞাত পরিচয় আসামি করা হয়।

পরীমনির মামলার পর ওই দিনই নাসির, অমিসহ পাঁচজনকে উত্তরার ১ নম্বর সেক্টরের একটি বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। এরপর তাদের বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনেও একটি মামলা হয়।

গত ১৫ জুন রাতে উত্তরার দক্ষিণখানে অমির অফিসে অভিযান চালায় সাভার থানা পুলিশ। দক্ষিণখানে রিক্রুটিং এজেন্সির অফিসে অভিযান চালিয়ে শতাধিক পাসপোর্ট জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় দক্ষিণখান থানায় অমিসহ তিনজনের বিরুদ্ধে বুধবার পাসপোর্ট আইনে মামলা করেছে সাভার থানা পুলিশ।

ধর্ষণ চেষ্টা, মাদক, পাসপোর্ট আইনে তিনটি মামলার তদন্ত চলাকালেই ১৭ জুন মানবপাচার আইনে নতুন এই মামলাটি হয় অমির বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন:
বজ্রপাতে ৪ দিনে ৫৮ মৃত্যু
আম কুড়িয়ে ফেরার পথে বজ্রপাতে মৃত্যু
রাজশাহীতে বজ্রপাতে শিশুসহ ৪ জনের মৃত্যু
বজ্রপাতে বাড়ির উঠানে যুবকের মৃত্যু
ছাগলের ঘর বাঁচাতে গিয়ে বজ্রপাতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

শেয়ার করুন

আপনার ছেলে বাসায় এসেছে: ত্ব-হার মাকে পুত্রবধূর ফোন

আপনার ছেলে বাসায় এসেছে: ত্ব-হার মাকে পুত্রবধূর ফোন

কী থেকে কী হচ্ছে আমি জানি না। আমার ছেলে জীবিত ফিরে এসেছে এ জন্য শুকরিয়া আদায় করছি। কোনো যেন বিপদ-আপদ না হয় সেই দাবি করছি: ত্ব-হার মা আজেদা বেগম।

নিখোঁজের আট দিন পর আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানের ফিরে আসার খবর তার মা আজেদা বেগম জেনেছেন পুত্রবধূ আবিদা নূরের কাছে। তবে ছেলেকে দেখতে পারেননি তিনি। তার আগেই নিয়ে আসে পুলিশ।

আজেদার সঙ্গে কথা হয়েছে নিউজবাংলার। তিনি বলেন, “আমার ছেলের স্ত্রী আমাকে দুপুরে ফোন করে জানায়, ‘মা, আপনার ছেলে ফিরে এসেছে, এখন বাসায় আছে আপনি আসেন’।”

‘দেরি না করে সঙ্গে সঙ্গে যাই। কিন্তু শুধু তাকে দেখতে পাই, এর মধ্যে পুলিশ এসে নিয়ে যায়’- আট দিন ধরে উৎকণ্ঠিত মা তার ছেলের সঙ্গে কথা না বলতে পারার আক্ষেপ তুলে ধরেন এভাবে।

আবিদা নূর তার বাবা আজহারুল ইসলাম মণ্ডলের বাড়িতেই থাকেন। বাসাটি রংপুর সদরের আবহাওয়া অফিসের কাছে।

গত ১০ জুন থেকে ত্ব-হার নিখোঁজ হওয়ার কথা জানা যায়। বিষয়টি প্রথমে গণমাধ্যমের সামনে আনেন দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন্নাহার। পরে আজেদা বেগমও বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন নিউজবাংলার সঙ্গে।

ত্ব-হার মা বলেন, ‘কী থেকে কী হচ্ছে আমি জানি না। আমার ছেলে জীবিত ফিরে এসেছে এ জন্য শুকরিয়া আদায় করছি। কোনো যেন বিপদ-আপদ না হয় সেই দাবি করছি।’

ঢাকায় থাকা দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন্নাহারের মতো স্বামীর ফিরে আসা নিয়ে কথা বলতে চাননি প্রথম স্ত্রী আবিদা নূরও। তবে কথা বলেছেন আবিদার ছোট বোন নিশা মনি।

তিনি বলেন, ‘ভাইয়া (ত্ব-হা) দুপুরে এসেই আপুর ঘরে যায়। আমরা আত্মীয়স্বজনদের খবরটা জানাই। এর কিছুক্ষণ পর পুলিশ এসে ভাইয়াকে নিয়ে যায়।’

ত্ব-হার শ্বশুর আজহারুল ইসলাম মণ্ডল বলেন, ‘ঘটনার দিন (১০ জুন) আমি আমার গ্রামের বাড়ি গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে ছিলাম। সেখানে ঘটনাটা শুনে মনটা খারাই হয়ে গেছিল। এই কয়দিন কিছু ভালো লাগছিল না। ছটছট করি বেড়াইছি। আজ বাসায় আসছে। কিন্তু দেখা হয় নাই। এলাও দেখা হয় না।’

ত্ব-হাকে নিয়ে আসার পর রংপুর মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা কার্যালয়ে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে পুলিশ। বাহিনীটির অপরাধ বিভাগের উপকমিশনার আবু মারুফ হোসেন দাবি করেন, ব্যক্তিগত কারণে ত্ব-হা ও তার চার সঙ্গী আত্মগোপনে ছিলেন।

তার ভাষ্যমতে, ঘটনার দিন থেকেই ত্ব-হা গাইবান্ধায় তার এক বন্ধুর বাসায় ছিলেন। এই কয়দিন নিজের ও সঙ্গীদের সব ফোন বন্ধ করে রাখেন তিনি।

তবে কেন ত্ব-হা এই কাজ করতে গেলেন, সেই প্রশ্নের জবাব এখনই দিতে চাননি এই পুলিশ কর্মকর্তা। বলেন, বিষয়টি যেহেতু ব্যক্তিগত, তাই তারা প্রকাশ করতে চান না এখনই। এ নিয়ে আরও যাচাই-বাছাই করবেন তারা।

আরও পড়ুন:
বজ্রপাতে ৪ দিনে ৫৮ মৃত্যু
আম কুড়িয়ে ফেরার পথে বজ্রপাতে মৃত্যু
রাজশাহীতে বজ্রপাতে শিশুসহ ৪ জনের মৃত্যু
বজ্রপাতে বাড়ির উঠানে যুবকের মৃত্যু
ছাগলের ঘর বাঁচাতে গিয়ে বজ্রপাতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

শেয়ার করুন

ত্ব-হা ছিলেন আত্মগোপনে: পুলিশ

ত্ব-হা ছিলেন আত্মগোপনে: পুলিশ

রংপুর ডিবি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ত্ব-হার বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়। ছবি: নিউজবাংলা

তিনি বলেন, গাবতলী থেকে ত্ব-হা গাইবান্ধায় আসেন, সেখানে তিনি আত্মীয়র বাড়িতে ছিলেন। সেখান থেকে আজ দুপুরে প্রথম স্ত্রীর বাবার বাড়িতে আসেন। খবর পেয়ে আমরা তাকে সেখান থেকে নিয়ে আসি।

নিখোঁজ নয়, ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান গত ৮ দিন যাবৎ ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন বলে জানিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ।

রংপুর ডিবি কার্যালয়ে শুক্রবার বিকেলে প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান উপপুলিশ কমিশনার (অপরাধ) আবু মারুফ হোসেন।

তিনি বলেন, '(ত্ব-হা) ঘটনার দিন গাবতলী থেকে গাইবান্ধা চলে আসেন। সেখানে এক আত্মীয়র বাড়িতে আত্মগোপনে ছিলেন। শুক্রবার ত্ব-হা আবহাওয়া অফিস মাস্টারপাড়ার শ্বশুরবাড়িতে চলে আসেন। পরে তাকে ডিবি কার্যালয়ে আনা হয়। উনি এখন আমাদের হেফাজতেই আছেন।

‘জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার পাশাপাশি বগুড়ায় খোঁজ মেলা আরেকজনকেও আমরা নিয়ে আসছি। তারা আপাতত আমাদের হেফাজতেই আছে। আমরা জিজ্ঞাসাবাদ করছি।’

বেলা সোয়া তিনটার দিকে রংপুর মহানগর কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মজনু নিউজবাংলাকে জানান, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ থেকে ত্ব-হাকে উদ্ধার করা হয়েছে।

কোতোয়ালি থানার আরেক এসআই এরশাদ হোসেন জানান, শুক্রবার দুপুরে তাকে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

বেলা ৩টার দিকে রংপুরের আবহাওয়া অফিসের মাস্টারপাড়ায় ত্ব-হার শ্বশুর আজহারুল ইসলামের বাড়ি থেকে তাকে পুলিশ বের করে নিয়ে যায়।

তবে খোকন নামে এক স্থানীয় বাসিন্দা জানান, শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে তিনি মাস্টারপাড়ায় তাকে দেখেন। কিন্তু ত্ব-হা সে সময় কোনো কথা বলেননি। মুখে আঙুল দিয়ে চুপ থাকতে বলেন।

১০ জুন থেকে চার সহযোগীসহ নিখোঁজ হন ত্ব-হা। কোথা থেকে কীভাবে নিখোঁজ হন, এমন তথ্য দিতে পারছিল না আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও।

অনেকে অভিযোগ তুলছিল, সমসাময়িক অন্যান্য ইস্যুতে আন্তরিকতা দেখালেও ত্ব-হার নিখোঁজের বিষয়ে তেমন কোনো তৎপরতা দেখাচ্ছে না সরকার। এই নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছিল।

আরও পড়ুন:
বজ্রপাতে ৪ দিনে ৫৮ মৃত্যু
আম কুড়িয়ে ফেরার পথে বজ্রপাতে মৃত্যু
রাজশাহীতে বজ্রপাতে শিশুসহ ৪ জনের মৃত্যু
বজ্রপাতে বাড়ির উঠানে যুবকের মৃত্যু
ছাগলের ঘর বাঁচাতে গিয়ে বজ্রপাতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

শেয়ার করুন

ত্ব-হার কাছে এখনই যাবেন না সাবিকুন্নাহার

ত্ব-হার কাছে এখনই যাবেন না সাবিকুন্নাহার

বুধবার সংবাদ সম্মেলন করে ত্ব-হার কাছে যাওয়ার আকুতি জানিয়েছিলেন দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন্নাহার। তবে স্বামীর সন্ধান মেলার পর এখনই না যাওয়ার কথা জানিয়েছেন।

‘ত্ব-হাকে আমার কাছে ফিরিয়ে দেন, না হলে তার কাছে আমাকে নিয়ে যান’ বলে সংবাদ সম্মেলনের দুই দিনের মাথায় স্বামী ফিরে আসার পর সাকিবুন্নাহারের কাছে নিউজবাংলা প্রশ্ন রাখে, ‘আপনি রংপুর যাচ্ছেন না কি?’। জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি রংপুর কেন যাব এখন? দেখি কী হয়। বলতে তো পারছি না, ওরা যদি গ্রেপ্তার দেখায় কোনো মামলায়।’

ত্ব-হার খোঁজ নেই। প্রথমে বিষয়টি জানান দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন্নাহারই। থানায় গিয়ে সাধারণ ডায়েরি করার চেষ্টা, সেটি নেয়া হচ্ছে না বলে গণমাধ্যমে অভিযোগ, সংবাদ সম্মেলন করে ‘ত্ব-হাকে আমার কাছে ফিরিয়ে দেন, না হলে তার কাছে আমাকে নিয়ে যান’ বলে আবেগপ্রবণ বক্তব্য দিলেও স্বামীর খোঁজ পাওয়ার পর তিনি এ প্রসঙ্গে এখন কিছু বলতে রাজি হচ্ছেন না। তার কাছেও এখনই যেতে চাইছেন না।

গত ১০ জুন রাতে রংপুর থেকে ত্ব-হা আসছিলেন ঢাকা। সঙ্গে দুজন, আর গাড়িচালক। রাত ২টা ৩৮ মিনিটের পর ফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন সাবিকুন্নাহার।

দুই দিন ধরে নানা জল্পনা-কল্পনার পর পরিবারটি অভিযোগ করতে থাকে, পল্লবী থানা সাধারণ ডায়েরি নেয়নি।

তবে এ ঘটনায় একটি ডায়েরি হয় রংপুরে। ত্ব-হার মা আজেদা বেগম সাধারণ ডায়েরি করেন রংপুর থানায়। সেখানেই তার বাড়ি। আর সেই সূত্র ধরে তদন্ত করতে থাকে পুলিশ।

তার অন্তর্ধানের বিষয়টি তুমুল আলোচনা তৈরি করে সারা দেশে। অনুসারীরা অভিযোগ করতে থাকেন, দেশি-বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থা তাকে তুলে নিয়েছে। তবে আট দিন পর তিনি ফেরেন রংপুরে তার প্রথম স্ত্রীর বাবার বাড়ি। স্থানীয়রা বিষয়টি দেখেন। পরে পুলিশ গিয়ে নিয়ে আসে তাকে।

পুলিশ জানিয়েছে, ত্ব-হা গাইবান্ধায় তার এক বন্ধুর বাসায় ছিলেন।

তার অন্তর্ধানের চেয়ে বেশি আলোড়ন তোলে তার ফিরে আসার বিষয়টি। গণমাধ্যমগুলোতে আসতে থাকে ‘ব্রেকিং নিউজ’।

দুই দিন আগে সাবিকুন্নাহার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আসেন সংবাদ সম্মেলনে। পরে বেসরকারি টেলিভিশনে দিতে থাকেন সাক্ষাৎকার। আকুতি জানাতে থাকেন ত্ব-হাকে ফিরিয়ে দিতে।

ত্ব-হার কাছে এখনই যাবেন না সাবিকুন্নাহার
দুপুরে রংপুর শহরে আবহাওয়া অফিসের কাছে শ্বশুর বাড়ি থেকে ত্ব-হাকে নিয়ে আসে পুলিশ

শুক্রবার দুপুরে ত্ব-হা ফিরে আসার পর কয়েক ঘণ্টার চেষ্টায় সাবিকুন্নাহারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে নিউজবাংলা। তবে এই চেষ্টাটা সহজ ছিল না।

দুপুর থেকে তার ফোনে কখনও কল যাচ্ছিল না, কখনও পাওয়া যায় ব্যস্ত। পরে মিরপুর-১১ নম্বরের ‘এ’ ব্লকের একটি বাসায় যায় নিউজবাংলা।

এই বাসার ঠিকানা ব্যবহার করেই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গত ১৪ জুন ত্ব-হাকে উদ্ধারের আবেদন করে চিঠি দেয়া হয়।

তবে সেই বাসায় থাকেন না সাবিকুন্নাহার। সেটি নারীদের একটি কওমি মাদ্রাসা। মাদ্রাসাটি পরিচালনা করেন সাবিকুন্নাহার এবং তার বোন। এই মাদ্রাসায় কখনও আসেননি ত্ব-হা। শুক্রবার থাকায় মাদ্রাসাটি বন্ধ পাওয়া যায়।

দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করেও মাদ্রাসার কাউকে পাওয়া যায়নি। পরে সেই বাড়ির বাসিন্দা আল-আমিন নামে একজনের সঙ্গে কথা হয়। তিনি বাড়ির মালিকের ভাই বলে পরিচয় দেন।

তিনি জানান, নিচতলার পাঁচটি কক্ষ নিয়ে এই মাদ্রাসা। তিন মাস আগে বাসাটি ভাড়া নেন সাবিকুন্নাহার।

তবে সাবিকুন্নাহারের বাসার ঠিকানা কোনটি, সেটি জানাতে পারেননি আল আমিন। বলেন, ‘কয়েক মাস আগে মাদ্রাসার পাশের গলির একটি বাসায় থাকতেন তারা। কিন্তু এখন অন্য জায়গায় থাকেন। কোথায় সেটি জানি না।’

সেখান থেকে চলে এসে সন্ধ্যায় অবশেষে ফোনে কথা হয় ত্ব-হার স্ত্রীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমি আসলে আপনাদের কাছে কিছু বলতে পারব না।‘

ত্ব-হার কাছে এখনই যাবেন না সাবিকুন্নাহার
মিরপু-১১ নম্বরের এই মাদ্রাসাটি চালান ত্ব-হার দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন্নাহার

ফোনে কথা বলতে না চাইলে বাসায় আসব কি না- এমন প্রশ্নে সাবিকুন্নাহার বলেন, ‘আমার কথা বলা নিষেধ আছে। আপনারা বোঝার চেষ্টা করেন।’

তবে কার নিষেধ, সেটি বলেননি তিনি।

ত্ব-হার সঙ্গে দেখা করতে রংপুরে যাবেন কি না- এমন প্রশ্নে তার স্ত্রী বলেন, ‘আমি রংপুর কেন যাব এখন? দেখি কী হয়। বলতে তো পারছি না, ওরা যদি গ্রেপ্তার দেখায় কোনো মামলায়।’

উদ্ধার হওয়ার পর ত্ব-হার সঙ্গে কথা হয়েছে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি কিছু বলতে পারছি না।’

আপনি বলছিলেন, ত্ব-হা আপনার কাছে আসছে। কিন্তু তিনি তো গেলেন প্রথম স্ত্রীর কাছে।

এই মন্তব্যের জবাবে সাবিকুন্নাহার কিছু না বলে চুপ থাকেন।

আরও পড়ুন:
বজ্রপাতে ৪ দিনে ৫৮ মৃত্যু
আম কুড়িয়ে ফেরার পথে বজ্রপাতে মৃত্যু
রাজশাহীতে বজ্রপাতে শিশুসহ ৪ জনের মৃত্যু
বজ্রপাতে বাড়ির উঠানে যুবকের মৃত্যু
ছাগলের ঘর বাঁচাতে গিয়ে বজ্রপাতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

শেয়ার করুন

‘গ্রিনজেন মুভমেন্ট’ ক্যাম্পেইন শুরু

‘গ্রিনজেন মুভমেন্ট’ ক্যাম্পেইন শুরু

ব্লাডম্যানের উদ্যোগে ‘গ্রিনজেন মুভমেন্ট’-এ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বৃক্ষরোপণের বিষয়ে ব্যাপক সচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি ১০ হাজার চারা রোপন করা হবে। ছবি: সংগৃহীত

‘গ্রিনজেন মুভমেন্ট’ ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে একটি বৈশ্বিক আন্দোলনের সূচণা হতে যাচ্ছে। যার মাধ্যমে তরুণরা পরিবেশের ভারসাম্য সংরক্ষণে বৃক্ষরোপণের গুরুত্ব বুঝতে পারবে। সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নেবে এবং একটি নিরাপদ, সবুজ বিশ্ব গড়ে তুলবে।

সবুজ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে তারুণ্যের অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করতে ‘গ্রিনজেন মুভমেন্ট’ উদ্যোগ নিয়েছে ব্ল্যাডম্যান নামে একটি প্রতিষ্ঠান।

এ উদ্যোগের আওতায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বৃক্ষরোপণের বিষয়ে ব্যাপক সচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি সাভার, গাজীপুর, মুন্সিগঞ্জ ও খুলনা অঞ্চলে ১০ হাজার চারা রোপন করা হবে।

এই কার্যক্রমের উদ্বোধনী আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল।

এ ছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. আখতার হোসেন, বাংলাদেশে নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মোস্তফা ওসমান তুরান, ব্লাডম্যানের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান শাহরিয়ার হাসান জিসান।

‘গ্রিনজোন মুভমেন্ট’ ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে একটি বৈশ্বিক আন্দোলনের সূচণা হতে যাচ্ছে। যার মাধ্যমে তরুণরা পরিবেশের ভারসাম্য সংরক্ষণে বৃক্ষরোপণের গুরুত্ব বুঝতে পারবে। সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নেবে এবং একটি নিরাপদ, সবুজ বিশ্ব গড়ে তুলবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এ উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন, ‘বাংলাদেশের অগ্রগতিতে তরুণ সমাজের ভূমিকা অসামান্য। একটি দেশের টেকসই উন্নয়নে অর্থনৈতিক অগ্রগতির পাশাপাশি প্রয়োজন পরিবেশের ভারসাম্য নিশ্চিত করা। ব্ল্যাডম্যানকে ধন্যবাদ এই সময়োপযোগী আয়োজন বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেবার জন্য।’

ক্যাম্পেইনে বিশ্বের যে কোনো স্থান থেকে যে কেউ নিজের জন্য একটি গাছ লাগিয়ে সেটি তার সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রকাশ করে অন্যদেরকে উৎসাহিত করতে পারবে।

সাভার, গাজীপুর, মুন্সিগঞ্জ ও খুলনা অঞ্চলে ১৬ জুন থেকে আগামী ৩০ জুলাই পর্যন্ত ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে গাছ লাগানো হবে।

আরও পড়ুন:
বজ্রপাতে ৪ দিনে ৫৮ মৃত্যু
আম কুড়িয়ে ফেরার পথে বজ্রপাতে মৃত্যু
রাজশাহীতে বজ্রপাতে শিশুসহ ৪ জনের মৃত্যু
বজ্রপাতে বাড়ির উঠানে যুবকের মৃত্যু
ছাগলের ঘর বাঁচাতে গিয়ে বজ্রপাতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

শেয়ার করুন