হেফাজতের নতুন কমিটির ঘোষণা আসছে সোমবার

হেফাজতের নতুন কমিটির ঘোষণা আসছে সোমবার

২৫ এপ্রিল গ্রেপ্তার অভিযানের মুখে সরকারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার পর কওমি মাদ্রাসাকেন্দ্রিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। ফাইল ছবি

২৫ এপ্রিল পূর্ণাঙ্গ কমিটি বিলুপ্ত হওয়ার পর হেফাজত এখন চলছে পাঁচ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে। আনাস মাদানী বলেন, ‘উনারা কমিটি ঘোষণা করুক। তারপর আমাদের বক্তব্য আমরা দেব।’

বিভেদের মধ্যেই সোমবার ঘোষণা আসছে হেফাজতে ইসলামের নতুন কেন্দ্রীয় কমিটির। বেলা ১১টায় খিলগাঁও চৌরাস্তায় কওমি মাদ্রাসাভিত্তিক সংগঠনটির রাজধানীর মহাসচিবের কার্যালয়ে (মাখজানুল উলুম মাদ্রাসা) প্রেস বিফ্রিংয়ের ডাক দেয়া হয়েছে।

হেফাজতে ইসলামের সাবেক কেন্দ্রীয় সদস্য মাওলানা রাশেদ বিন নূরের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গত ২৫ এপ্রিল গ্রেপ্তার অভিযানের মুখে সরকারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার পর কওমি মাদ্রাসাকেন্দ্রিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে পাঁচ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটির ঘোষণা দেয় কওমিভিত্তিক সংগঠনটি।

বিলুপ্ত কমিটির আমির জুনায়েদ বাবুনগরীকেই এই কমিটির প্রধান করা হয়। আগের কমিটির মহাসচিব নুরুল ইসলাম জেহাদীকে আহ্বায়ক কমিটির মহাসচিব আর সিনিয়র নামেবে আমির মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীকে করা হয় প্রধান উপদেষ্টা। সদস্য করা হয়েছে আল্লামা সালাহউদ্দীন নানুপুরী ও মিজানুর রহমানকে (পীরসাহেব দেওনা)।

নতুন কমিটির উদ্যোগের বিষয়ে এখনও কোনো বক্তব্য আসেনি হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা আমির শাহ আহমদ শফীপন্থিদের পক্ষ থেকে। এ পক্ষটি শাহ আহমদ শফীর ছোট ছেলে আনাস মাদানীপন্থি হিসেবে পরিচিত।

মাওলানা রাশেদ বিন নূর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘খিলগাঁও চৌরাস্তায় ওই প্রেসবিফ্রিং থেকে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে। তবে কমিটিতে কারা আসছেন এ বিষয়ে আমি এখনও কিছু জানি না। এ বিষয়ে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব বলতে পারবেন।’

এ বিষয়ে জানতে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব নুরুল ইসলাম জেহাদীকে একাধিকবার মোবাইলে ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

এর আগে গত এপ্রিলে ঘোষিত হেফাজতে ইসলামের আহ্বায়ক কমিটিকে ‘অবৈধ’ ঘোষণা করে হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা আমির শফীপন্থিরা। সংগঠনের আমির জুনায়েদ বাবুনগরীর ওই কমিটিকে ‘পকেট কমিটি’ বলে আখ্যায়িত করেন তারা।

হেফাজতে ইসলামের নতুন কমিটি এমন এক সময় ঘোষণা করা হচ্ছে, যখন আগে বাবুনগরীপন্থি হিসেবে পরিচিত সংগঠনটির সাবেক নায়েবে আমির ও মধুপুরের পীর আবুদল হামিদ পক্ষ ত্যাগ করে শফীপন্থিদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। গত ২ জুন শফীপন্থিদের এক সংবাদ সম্মেলনে যোগ দিয়ে তিনি বাবুনগরীকে গ্রেপ্তার ও আহ্বায়ক কমিটিকে অবৈধ ঘোষণার দাবির প্রতি একাত্মতা জানান।

এ বিষয়ে সোমবার আনাস মাদানী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘উনারা কমিটি ঘোষণা করুক। তারপর আমাদের বক্তব্য আমরা দেব।’

হেফাজতে ইসলামের শফীপন্থি হিসেবে পরিচিত মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ওনারা যে কমিটি করেছেন, এটাকে আমরা গত ২ জুন সংবাদ সম্মেলনে পকেট কমিটি বলেছি। এটাই এখনও আমাদের বক্তব্য। ওনাদের কমিটি ঘোষণা হোক, আমরা আপনাদেরটা জানাব।’

তিনি দাবি করেন, ‘উনাদের (বাবুনগরীপন্থি) কমিটি মানেনি এবং মানছে না এমন অনেকেই আছে। তাদের ৫ সদস্যদের আহ্বায়ক কমিটি অনেকেই মানেনি।’

আরও পড়ুন:
হেফাজতের তাণ্ডব: সেই রেলস্টেশন চালুর দাবিতে আলটিমেটাম
দেয়াল টপকে ডিসির বাসভবনে যুবক
সন্ত্রাসে বহিরাগতরা, পুলিশকে মামুনুল
হেফাজতের দুই নেতাকে গ্রেপ্তারের দাবিতে স্মারকলিপি
বাবুনগরীবিরোধী জোটে এবার মধুপুরের পীর

শেয়ার করুন

মন্তব্য