বর্ষার বৃষ্টি নামতে আর সাত দিন

বর্ষার বৃষ্টি নামতে আর সাত দিন

মৌসুমি বায়ু আন্দামান দ্বীপ পেরিয়ে এগিয়ে আসছে। এবার ক্যালেন্ডারে আষাঢ় শুরুর কয়েকদিন আগেই বর্ষকাল চলে আসতে পারে।

মাসের প্রথম বৃষ্টিকে অনেকেই বর্ষার আভাস ধরে নিলেও প্রকৃতিতে বর্ষাকাল আসতে এখনও বাকি আছে সাত থেকে ১০ দিন। কারণ মৌসুমি বায়ু নামক যে বৈশ্বিক বায়ুপ্রবাহের ওপর ভর করে আকাশ মেঘে মেঘে ছেয়ে যায়, তা এ দেশে ঢুকতে ওই সময়টুকু লাগবে।

প্রতি বছর জুনের মাঝামাঝি দেশে মৌসুমী বায়ু প্রবেশ করে, বিশ্বজুড়ে যেটি ‘মনসুন’ নামে পরিচিত। তবে এবার ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের কারণে এটি ত্বরান্বিত হয়েছে। এবার একটু আগেই দেশে ঢুকবে এই বিশেষ বায়ুপ্রবাহ– এমন আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

তবে আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, ইয়াসের কারণে উল্টো দেরি হতে পারে মৌসুমি বায়ুর। কেননা গতবার ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণে দেরি হয়েছিল মৌসুমি বায়ু আসতে। আগামী সাতদিন পর্যবেক্ষণ না করে কিছু বলা যাবে না।

এ বছর ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত বৃষ্টিপাত ছিল না বললেই চলে। তাপদাহ হুট করে বেড়ে যায়। তবে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের কারণে বদলে গেছে আবহাওয়ার গতিপ্রকৃতি। ইয়াসের প্রভাব চলে যাওয়ার পরও বৃষ্টি ছিল। উপকূলজুড়ে বৃষ্টি পেয়েছে মানুষ। মে মাসের শেষ সময়ে ও জুনের শুরুতে হঠাৎ টানা বর্ষণে অনেকের মনে হয়েছে, বর্ষাকাল বুঝিবা শুরু হয়ে গেল।

বর্ষার বৃষ্টি নামতে আর সাত দিন

কবে আসবে বর্ষাকাল

বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ শাহিনুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা আশা করছি, জুন মাসের মাঝামাঝিতে দেশে মৌসুমি বায়ুর প্রবেশ ঘটবে।’

ইয়াসের কারণে কোনো সমস্যা হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এমনিতেই জুন মাসের ৭ অথবা ১০ তারিখে মৌসুমি বায়ু আমাদের চট্টগ্রাম ও কুমিল্লাতে এসে পৌঁছায়। এটি সারা দেশে সক্রিয় হতে হতে জুন মাসের মাঝামাঝিতে পৌঁছায়। ইয়াসের কারণে এটি কিছুটা ত্বরান্বিত হতে পারে।’

মৌসুমি বায়ু এখন ভারত মহাসাগরের আন্দামান দ্বীপ পার হয়েছে। এখন যে বাংলাদেশে বৃষ্টি হচ্ছে, সেটি পুবালি ও পশ্চিমা বায়ুর সংমিশ্রণের কারণে। মৌসুমি বায়ুর সঙ্গে এর সম্পর্ক নেই। টেকনাফ উপকূলে এখনও মৌসুমি বায়ু এসে পৌঁছায়নি। এখন এটি মিয়ানমারের কাছাকাছি আছে।

আবহাওয়াবিদ মনোয়ার হোসেন বলেন, মৌসুমি বায়ুর এখনও প্রবেশ না ঘটলেও টেকনাফ উপকূলে মৌসুমি বায়ু ও পুবালি বাতাসের সংযোগে এই বৃষ্টি। দেশে আবহাওয়ার এই পরিস্থিতি আরও কয়েকদিন থাকবে। এরপর আবার স্বাভাবিক হতে শুরু করবে। তার মধ্যেই প্রবেশ ঘটবে মৌসুমি বায়ুর। মৌসুমি বায়ু আগামী কয়েকদিনে টেকনাফ উপকূল অতিক্রম করার সম্ভাবনা রয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবহাওয়া বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপিকা তৌহিদা রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এখন দেশে যে বৃষ্টি হচ্ছে তার সাথে মৌসুমি বায়ুর কোনো সম্পর্ক নেই। এটা সাধারণ নিম্নচাপ থেকেই হচ্ছে। মৌসুমি বায়ু আর এক সপ্তাহের মধ্যেই দেশে ঢুকবে। তবে ইয়াসের কারণে এই বায়ুর গতিপ্রকৃতির কোনো পরিবর্তন হয়নি বলেও জানান তিনি।

তৌহিদা রশিদ বলেন, গত বছর ৯ জুন এই বায়ুর প্রবেশ হয়েছিল। তখন আমফানের কারণে একটু দেরি হয়েছিল। এবারও ইয়াসের কারণে দেরি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

অধ্যাপিকা তৌহিদা রশিদ বলেন, ‘ইয়াস শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় হওয়ার কারণে বাতাসের অনেক কিছুর পরিবর্তন হয়েছে, যার প্রভাব মৌসুমি বায়ুর উপর পড়বে। আমরা এ মাসের ৯-১০ তারিখ পর্যন্ত পর্যবেক্ষণ করব। আশা করি, এর পরেই মৌসুমী বায়ুর প্রভাবটা দেখতে পাব।’

বর্ষার বৃষ্টি নামতে আর সাত দিন

তবে ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, বঙ্গোপসাগরের দিকে এগোচ্ছে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু। আন্দামান-নিকোবর পেরিয়ে এটি ক্রমশ পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর এবং দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে বিস্তার লাভ করেছে। শ্রীলঙ্কার অনেকটা অংশেই মৌসুমী বায়ু ঢুকে পড়েছে। আগামী সপ্তাহের শুরুতেই ভারতের মূল ভূখণ্ড কেরলে ঢুকে পড়বে মৌসুমী বায়ু। ভারতের মূল ভূখণ্ড কেরলে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু অর্থাৎ বর্ষা প্রবেশের নির্ধারিত দিন ১ জুন।

দেশে বৃষ্টিপাতের ৭০ ভাগ হয়ে থাকে মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে। এটি দেশের কৃষিতে বড় ধরনের প্রভাব ফেলে। দেশের প্রধান ফসল আমন ধানের চাষ সরাসরি বৃষ্টিপাতের ওপর নির্ভরশীল।

মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত বৃষ্টি হয়।

মৌসুমি বায়ুর আগমনের আগে দেশে মে মাসে গড়ে ২৭৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়ার কথা থাকলেও এবার হয়েছে ২০৩ মিলিমিটার, যা গড় বৃষ্টিপাতের চেয়ে ২৬ দশমিক ৬ ভাগ কম। ধারণা করা হচ্ছে, জুন মাসে মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে প্রায় ৪৩৫ মিলিমিটার স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হবে।

গ্রীষ্মকালে ভারতের পশ্চিমাঞ্চলে ভূখণ্ডে প্রচণ্ড তাপের কারণে নিম্নচাপ কেন্দ্রের সৃষ্টি হয়, একই সময়ে ভারত মহাসাগর তুলনামূলকভাবে শীতল হওয়ায় উচ্চচাপ কেন্দ্রের সৃষ্টি হয়। ফলে প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্পসহ সাগর থেকে ভূখণ্ডে মৌসুমি বায়ু প্রবাহিত হয়, যা ভারি বৃষ্টিপাত ঘটায়।

ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, ইয়াসের কারণে তাদের দেশে মৌসুমি বায়ুর প্রভাব পড়বে আরও পরে। সাধারণত মে মাসের শেষদিকে এই বায়ু ভারতে প্রবেশ করলেও এবার তা বিলম্বিত হবে। কারণ হিসবে তারা বলেছে, পূর্ব ও মধ্য বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস তৈরি হওয়াতে মৌসুমি বায়ুর গতিপ্রকৃতি পাল্টেছে। ইয়াস আন্দামান সাগরের কাছে তৈরি হয়ে উত্তর-পশ্চিম দিকে ধেয়ে আসছে। তার বাঁকানো গতিপথে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু সাগরে বিলম্বিত হয়েছে।

বর্ষার বৃষ্টি নামতে আর সাত দিন

দেশে মৌসুমি বায়ুর প্রভাব

আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক মাসের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, জুন মাসে দেশে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। জুন মাসের প্রথমার্ধে সারাদেশে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু বিস্তার লাভ করতে পারে। এ মাসে বঙ্গোপসাগরে দুটি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এর মধ্যে একটি নিম্নচাপ, গভীর নিম্নচাপে রূপ নিতে পারে।

এ মাসে দেশের উত্তর থেকে মধ্যাঞ্চল পর্যন্ত চার দিন মাঝারি ঝড় হতে পারে। সেইসাথে দেশের কোথাও কোথাও ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে।

এ মাসে দেশে একটি মাঝারি তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে, যাতে তাপমাত্রা ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বাড়বে।

আরও পড়ুন:
গ্যারেজে পানি: রিকশা সরাতে গিয়ে মালিকসহ দুজনের মৃত্যু
চট্টগ্রামে ১২৬ মিলিমিটার বৃষ্টি, দুর্ভোগ
বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে ডুবেছে ঢাকা
নগরে স্বস্তি-অস্বস্তির বৃষ্টি
রাতের আকাশ পরিষ্কার থাকবে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

রাতে বাসায় বসে জন্ম সনদ দেন ইউপি সচিব

রাতে বাসায় বসে জন্ম সনদ দেন ইউপি সচিব

ইউপি চেয়ারম্যান সোলেমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিদ্যুৎ না থাকায় ও সার্ভারে চাপ থাকার কারণে দিনে জন্ম নিবন্ধন সনদ পেতে ঝামেলা হয়। সচিব রাতে নিজের বাসায় গিয়ে একটা একটা করে সনদ বের করেন।’

চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির দাঁতমারা ইউনিয়নের তারাখোঁতে থাকেন আমির হোসেন। জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য বেশ কয়েকবার ইউনিয়ন পরিষদে গিয়েও কাজ হয়নি তার। একপর্যায়ে দেড় হাজার টাকা ঘুষ দিলে এক দিনের মধ্যেই জন্ম নিবন্ধন সনদ পেয়ে যান বলে জানিয়েছেন তিনি।

আমির নিউজবাংলাকে বলেন, ‘চলতি বছরের জানুয়ারির মাঝামাঝিতে আমার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য জন্ম নিবন্ধন সনদের প্রয়োজন হয়। আমার জন্ম নিবন্ধন সনদ থাকলেও তা অনলাইন করা নেই।

‘অনলাইন করার জন্য বেশ কয়েকবার ইউনিয়ন পরিষদে গেলেও নানা বাহানায় ফিরিয়ে দিয়েছে। পরে একজনের পরামর্শে পরিষদের সচিবকে দেড় হাজার টাকা দিলে একদিনের মধ্যে আমার কাজ হয়ে যায়।’

একই অভিযোগ বখতপুর ইউনিয়নের ফাহমিদা আক্তারেরও। তিনি বলেন, ‘গত ফেব্রুয়ারিতে জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আমার জন্ম নিবন্ধনের প্রয়োজন হয়। ইউনিয়ন পরিষদে টানা সাত দিন গিয়েও কাজ হয়নি। পরে অফিসের একজনকে ৫০০ টাকা দিলে তখনই সনদ পেয়ে যাই।

‘ওরা তো সরকারি বেতনভুক্ত। তারপরও কেন আমাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নেবে? আর টাকা যদি নেবেই সেটা প্রথমদিন বলে দিলে কী ক্ষতি হতো?’

ফটিকছড়ি উপজেলার নাজিরহাট পৌরসভার ফাইজা হোসাইন বলেন, ‘বার্থ সার্টিফিকেটের জন্য পৌর অফিসে আজ গেলে বলে এই সমস্যা, কাল আইসেন। কাল গেলে বলে ওই সমস্যা, পরদিন আইসেন। এভাবে ৭-৮ দিন নষ্ট করছে আমার।

‘আবার জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আরেক ভোগান্তি। এসব সমস্যা কবে যাবে দেশ থেকে?’

ফটিকছড়ি ইউনিয়নের অনেকেই ঘুষ ছাড়া জন্ম নিবন্ধন সনদ পাওয়া যায় না বলে অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগ অস্বীকার করে বখতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সোলেমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের সচিব খুবই আন্তরিক। কারো কাছ থেকে টাকা নেয়া বা কাউকে ইচ্ছাকৃত হয়রানি করার কোনো অভিযোগ আমার কাছে নেই। মূলত বিদ্যুৎ না থাকায় ও সার্ভারে চাপ থাকার কারণে দিনে জন্ম নিবন্ধন সনদ পেতে ঝামেলা হয়। সচিব রাতে নিজের বাসায় গিয়ে একটা একটা করে সনদ বের করেন।’

রাতে বাসায় বসে জন্ম সনদ দেন ইউপি সচিব


সচিব অঞ্জন চৌধুরীকে একাধিকবার কল দেয়া হলেও তিনি ধরেননি।

তবে সুনির্দিষ্ট তথ্যসহ লিখিত অভিযোগ করলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহিনুল হাসান।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সরকার নির্ধারিত ফি-এর বাইরে অতিরিক্ত টাকা আদায় কোনোভাবে গ্রহণযোগ্য না। এক্ষেত্রে ভুক্তভোগী কেউ যদি আমার কাছে লিখিত অভিযোগ করে তাহলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আগে বাবা-মায়ের জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর দিয়েই জন্ম নিবন্ধন সনদ পাওয়া যেত। গত ১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হয়েছে নতুন নিয়ম।

এই নিয়ম অনুযায়ী, যাদের জন্ম ২০০১ সালের পর তাদের জন্ম নিবন্ধনের জন্য বাবা-মায়ের জন্ম সনদ থাকতে হবে। এতে অনেককেই আগে নিজেদের জন্ম নিবন্ধন করতে হচ্ছে। এরপর পাচ্ছেন সন্তানেরটা।

নতুন নিয়মের কারণে ভোগান্তিতে পড়ার কথা জানিয়েছেন বেশ কয়েকজন অভিভাবক। তাদের মধ্যে একজন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের দক্ষিণ পাহাড়তলী ওয়ার্ডের ওমর ফারুক।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমার দুই ছেলেমেয়ের জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরির জন্য এসেছি। এসে শুনি আমাদের জন্ম সনদ দেখাতে হবে। আমাদের সনদ থাকলেও একজনেরটা ইংরেজিতে, আরেকজনেরটা বাংলায়।

‘এ কারণে আবেদনই করতে পারছি না। দুজনেরটা এক ভাষায় থাকতে হবে। নাহলে হবে না।’

দক্ষিণ পাহাড়তলী ওয়ার্ডের জন্ম নিবন্ধন সহকারী দেলোয়ার হোসেন জানান, সন্তানের জন্ম নিবন্ধনের জন্য বাবা-মা দুজনের জন্ম নিবন্ধন সনদ বাধ্যতামূলক। বাবা ও মায়েরটা যদি বাংলায় হয় তাহলে সন্তান বাংলায় জন্ম নিবন্ধন সনদ পাবে। আর দুটোই ইংরেজিতে হলে সন্তানের সনদও হবে ইংরেজিতে।

‘যদি দুজনেরটা দুই ভাষায় হয় তাহলে আবেদনই করতে পারবে না। যে কারোটা পরিবর্তন করে নিতে হবে।’

রাতে বাসায় বসে জন্ম সনদ দেন ইউপি সচিব

জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য কী কী প্রয়োজন?

নতুন নিয়ম অনুযায়ী, শূন্য থেকে ৪৫ দিন বয়সী শিশুর জন্ম নিবন্ধনের জন্য টিকার কার্ড, মা-বাবার অনলাইন জন্মনিবন্ধন সনদসহ জাতীয় পরিচয়পত্র, বাসার হোল্ডিং নম্বর ও চৌকিদারি ট্যাক্সের রশিদের হাল সনদ, আবেদনকারী অভিভাবকের মোবাইল নম্বর এবং এক কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি লাগবে।

৪৬ দিন থেকে ৫ বছর বয়সীদের জন্ম নিবন্ধনের জন্য টিকার কার্ড, স্বাস্থ্যকর্মীর স্বাক্ষর ও সিলসহ প্রত্যয়নপত্র, মা-বাবার অনলাইন জন্মনিবন্ধনসহ জাতীয় পরিচয়পত্র, প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে স্কুলের প্রধান শিক্ষকের প্রত্যয়ন, বাসার হোল্ডিং নম্বর ও চৌকিদারি ট্যাক্স রশিদের হাল সনদ, আবেদনকারী অভিভাবকের মোবাইল নম্বর এবং এক কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি লাগবে।

বয়স ৫ বছরের বেশি হলে শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র, শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র না থাকলে সরকারি হাসপাতালের এমবিবিএস ডাক্তারের স্বাক্ষর ও সিলসহ প্রত্যয়ন সনদ এবং জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরমের ৭ এর ১ নম্বর কলামে ওই ডাক্তারের স্বাক্ষর ও সিল বাধ্যতামূলক।

২০০১ সালের ১ জানুয়ারির পর জন্ম, কিন্তু মা-বাবা কেউ মৃত হলে তার অনলাইন মৃত্যু নিবন্ধন সনদ লাগবে। পাশাপাশি বাসার হোল্ডিং নম্বর ও চৌকিদারি ট্যাক্সের রশিদের হাল সনদ, আবেদনকারী অভিভাবকের মোবাইল নম্বর, ফরমের সঙ্গে এক কপি রঙিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি, সরকারি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যের স্বাক্ষরসহ সিল বাধ্যতামূলক।

যাদের জন্ম ২০০১ সালের ১ জানুয়ারির আগে তাদের মা-বাবার জাতীয় পরিচয়পত্র বাধ্যতামূলক। বাবা-মায়ের মধ্যে কেউ মৃত হলে মৃত্যুসনদ বাধ্যতামূলক।

আরও পড়ুন:
গ্যারেজে পানি: রিকশা সরাতে গিয়ে মালিকসহ দুজনের মৃত্যু
চট্টগ্রামে ১২৬ মিলিমিটার বৃষ্টি, দুর্ভোগ
বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে ডুবেছে ঢাকা
নগরে স্বস্তি-অস্বস্তির বৃষ্টি
রাতের আকাশ পরিষ্কার থাকবে

শেয়ার করুন

দেশে পেট্রল পাম্প হবে ইউরোপ-আমেরিকার আদলে

দেশে পেট্রল পাম্প হবে ইউরোপ-আমেরিকার আদলে

দেশের পেট্রল পাম্পগুলো ইউরোপ-আমেরিকার আদলে নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ছবি: সংগৃহীত

প্রস্তাবিত মডেল পাম্পের জন্য জমির প্রয়োজন হবে দেড় থেকে সোয়া দুই একর। সেখানে থাকবে রেস্টুরেন্ট যার আয়তন হবে ২৭০ বর্গমিটার বা দুই হাজার ৯০৬ বর্গফুট। শিশুদের খেলার স্থান থাকবে ১৫০ বর্গফুটের। বেবি ফিডিং এরিয়া থাকবে ১০০ বর্গফুটের। টয়লেট জোন হবে এক হাজার ১৫৫ বর্গফুটের।

মহাসড়কের পাশে পেট্রল পাম্পে উন্নত বিশ্বের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করতে চাইছে সরকার। এসব পাম্পে থাকবে রেস্টুরেন্ট, এটিএম বুথ, ওষুধের দোকান, টয়লেট, চালকদের গোসলের ব্যবস্থা, বিশ্রামাগার।

আরও থাকবে শিশুদের খেলার স্থান, বাচ্চাদের বুকের দুধ খাওয়ানোর আলাদা স্থাপনা। থাকবে শপিং ও গিফট কর্নারও।

একই স্টেশনে জ্বালানি তেল ও গ্যাসের পাশাপাশি থাকবে বৈদ্যুতিক গাড়ি চার্জের ব্যবস্থাও, থাকবে সৌর বিদ্যুতের মাধ্যমে চার্জের সুযোগ। ব্যাটারি পরিবর্তন, পাম্পিংসহ গাড়ির টুকিটাকি কাজও সেরে নেয়া যাবে এসব পাম্পে।

সরকার এগুলোকে বলছে ‘হাইওয়ে মডেল ফিলিং স্টেশন’। এর একেকটির আয়তন হবে আড়াই একর।

এসব উদ্যোগ পাম্প মালিকের খরচ প্রাথমিকভাবে বাড়ালেও তার আয় বাড়বে বহুগুণ। কারণ, প্রতিটি সেবার বিপরীতে তারা টাকা নিতে পারবে।

প্রাথমিকভাবে যে হিসাব করা হয়েছে, তাতে ধারণা করা হচ্ছে, একেকটি পাম্প স্থাপনে খরচ হবে ১২ থেকে ১৫ কোটি টাকা।

একেবারেই প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে এই পরিকল্পনা, যা বিভিন্ন অংশীদারদের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে এগিয়ে নেয়া হবে।

প্রথমে তিনটি থেকে ছয়টি পাম্প স্থাপন করবে সরকারি তিনটি তেল বিপণনকারী কোম্পানি পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা অয়েল। পরে বেসরকারি খাতে করা হবে আরও।

সরকার বলছে দীর্ঘদিন ধরেই প্রচলিত পেট্রোল পাম্পগুলোর বিরুদ্ধে ভেজাল তেল বিক্রি, ওজনে কম দেয়াসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। সেই সঙ্গে পাম্পগুলোর পরিবেশও উন্নত বিশ্ব তো দূরে থাকুক, এশিয়ার মানেরও নয়। তাই সরকার এইসব মাথায় রেখেই একটি সমন্বিত উদ্যোগ নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী পালনের বছরকে তাই এ প্রকল্প গ্রহণের বছর হিসেবে নেয়া হয়ছে।

দেশে পেট্রল পাম্প হবে ইউরোপ-আমেরিকার আদলে
প্রস্তাবিত পেট্রল পাম্পগুলোর মডেল

যেমন হবে মডেল পাম্প

প্রস্তাবিত মডেল পাম্পের জন্য জমির প্রয়োজন হবে দেড় থেকে সোয়া দুই একর। এর মধ্যে হাইওয়ে ব্যবহারকারীদের সুযোগ সুবিধার জন্য বরাদ্দ থাকবে ৯৫৩ বর্গ কিলোমিটার বা ১০ হাজার ২৫৮ বর্গফুট জায়গা।

সেখানে থাকবে রেস্টুরেন্ট যার আয়তন হবে ২৭০ বর্গমিটার বা ২ হাজার ৯০৬ বর্গফুট। ৮২ জন এই রেস্টুরেন্টে একসঙ্গে খাবার গ্রহণ করতে পারবেন। শিশুদের খেলার স্থান থাকবে ১৫০ বর্গফুটের। বেবি ফিডিং এরিয়া থাকবে ১০০ বর্গফুটের। নামাজের স্থান থাকবে ২৪০ বর্গফুট। রান্নাঘরের আয়তন হবে এক হাজার ৪৮৫ বর্গফুট।

পাম্প মালিকের কেবিন থাকবে ৩০০ বর্গফুটের। প্রক্ষালন (ওয়াশরুম) কক্ষের আয়তন হবে ৬৫ বর্গফুট। এটিএম বুথের জন্য থাকবে ২২৫ বর্গফুট।

টয়লেট জোন হবে ১ হাজার ১৫৫ বর্গফুটের। এর মধ্যে পুরুষ টয়লেট ৫৪৮ বর্গফুট (একসঙ্গে ২০ জনের ব্যবহার যোগ্য), নারীদের টয়লেট হবে ২৭০ বর্গফুটের (একসঙ্গে ৯ জন ব্যবহার যোগ্য)। প্রতিবন্ধীদের জন্য থাকছে ৬৭ বর্গফুট এলাকা।

পাম্পের কাউন্টার এবং লুব্রিকেন্ট স্টোরেজের জন্য বরাদ্দ থাকবে ৩১২ বর্গফুট জায়গা। আট জনের অফিস কক্ষের জন্য থাকছে ৪১৫ বর্গ ফুট, স্টাফ বিশ্রামের জন্য থাকছে ৪৬২ বর্গফুট।

এই পাম্প ব্যবহারকারীদের জন্য থাকছে মোবাইল ফোন চার্জিং পয়েন্ট। ওয়াটার বডি থাকছে ১ হাজার ৪০০ বর্গফুটের। থাকছে মেডিক্যাল ইউনিট।

পাম্প শেডের আয়তন হবে প্রায় ১০ হাজার বর্গফুটের। এতে একসঙ্গে ২২টি গাড়ি তেল ও গ্যাস নিতে পারবে। থাকবে রেস্টুরেন্টের মধ্যে ৫৫ বর্গফুটের খোলা স্থান।

সার্ভিস এরিয়া

সার্ভিস এরিয়ায় থাকবে বাস ও গাড়ি ওয়াশিং জোন। এর মধ্যে টুলস রুম থাকবে ২২৬ বর্গফুটের। সেখানে ব্যাটারি পরিবর্তন-চার্জিং ও টায়ার পাম্পিং সুবিধা থাকবে। থাকবে অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থাও।

ড্রাইভার জোনের আয়তন হবে ২ হাজার ২৫৩ বর্গফুট। সেখানে ৯৪৩ বর্গফুটের রেস্টুরেন্ট, ৪৯০ বর্গফুটের কিচেন, ৩৮০ বর্গফুটের টয়লেট থাকছে। থাকছে চালকদের গোসলের ব্যবস্থা।

ট্যাংক স্টোরেজ ও পার্কিং ক্যাপাসিটি

হাইওয়ে মডেল পাম্পে অকটেন স্টোরেজ ক্যাপাসিটি থাকবে ১৮ হাজার লিটার। পেট্রোল স্টোরেজ ক্যাপসিটি থাকবে ১৩ হাজার লিটার। দুইটি হাইস্পিড ডিজেল স্টোরেজ ট্যাংকের মোট স্টোরেজ ক্যাপসিটি থাকবে ৬০ হাজার লিটার। অটো গ্যাস (এলপিজি) ক্যাপাসিটি হবে ২০ হাজার লিটার।

এই পাম্পে ১৩ টি ব্যক্তিগত গাড়ি, ২০টি বাস ও ট্রাক পার্কিং ব্যবস্থা থাকবে। ফুয়েল আনলোডিং ক্যাপাসিটি থাকবে একটি। একই সঙ্গে চারটি ব্যাটারিচালিত গাড়ি চার্জের ব্যবস্থাও থাকছে।

কেন এই উদ্যোগ?

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (অপারেশন) ড. মহ. শের আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পেট্রল পাম্প নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা ও অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা একটি জরিপ চালিয়েছিলাম। এই জরিপে মারাত্মক ও চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসে। এতে দেখা যায় দেশের প্রচলিত পাম্পগুলোর ৬২ ভাগই তেল বিক্রি করে লাভ করতে তো পারেই না, উল্টো লোকসানে থাকে।

‘তারা ভেজাল তেল বিক্রি করে ও ওজনে কম দিয়ে ব্যবসা টিকিয়ে রাখে বা সামান্য লাভও করে। এতে দেশের পাম্পগুলোর সেচ্ছ্বাচারিতা ও গ্রাহক ভোগান্তির এক করুণ চিত্র ফুটে ওঠে।’

নতুন ধরনের পাম্পে ভেজাল তেল বিক্রি বন্ধ হবে-এমন নিশ্চয়তা কী, এমন প্রশ্নে যুগ্মসচিব বলেন, ‘এসব পাম্পে ভেজাল বা ওজন কম দেয়ার প্রয়োজন পড়বে না। কারণ, তেল বেচে যদি লাভ নাও হয়, তাহলেও অন্যান্য যে সেবা থাকবে, তাতে মালিকের মুনাফা হবে অনেক বেশি।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের পেট্রল পাম্পগুলোর ফ্রেশ রুমগুলো অত্যন্ত নোংরা। নেই কোনো রিফ্রেসমেন্ট ব্যবস্থাও। এতে নারী, শিশু ও প্রবীণরা ঝামেলায় পড়েন। চালকদের বিশ্রামের ব্যবস্থা না থাকায়, দুর্ঘটনাও ঘটে।

‘এরপরই সরকার প্রতিকারের বিষয়ে চিন্তা করতে থাকে এবং নতুন করে পেট্রল পাম্পের অনুমোদন দেয়া বন্ধ করে দেয়। এরপর আমরা একটি হাইওয়ে মডেল পাম্পের চিন্তা ও পরিকল্পনা করি। সেই মোতাবেকই একটি ডিজাইনও করা হয়।‘

শের আলী বলেন, ‘আমাদের দেশের অর্থনীতির আকার বড় হচ্ছে। মহাসড়কগুলো দুই লেন থেকে চার লেন ও এক্সপ্রেসওয়েতে উন্নত হচ্ছে। দক্ষিণ এশিয়া, এশিয়া ও ট্রান্স এশিয়ান হাইওয়ের যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ভারত, নেপাল, ভুটান ও বাংলাদেশের মধ্যে বিবিআইএন চুক্তি সাক্ষর হয়েছে। তারা চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দর ব্যবহার করবে। ফলে আমাদের পাম্প গুলোও আন্তুর্জাতিক মানের হওয়া উচিত। আমরা সে ধরনেরই নকশা করেছি।

‘এই পাম্প বাস্তবায়ন হলে এমনিতেই প্রচলিত পাম্প বন্ধ হয়ে যাবে।’

এ বিষয়ে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু নিউজবাংলাকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যে উন্নত বাংলাদেশের স্বপ্ন, ভিশন-২০৪১; হাইওয়ে মডেল ফিলিং স্টেশন তারই একটা অংশ।

তিনি জানান, দেশের জ্বালানি সক্ষমতা অর্জনের সঙ্গে সঙ্গে, কোয়ালিটি সার্ভিস নিশ্চিতের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এজন্য নেয়া হয়েছে বিশ্বমানের নানা কার্যক্রম ও প্রকল্প।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘উন্নত বিশ্বের আদলে পাম্পগুলো বদলে গেলে প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতেও পাম্প ঘিরে অর্থনৈতিক কর্মচাঞ্চল্য সৃষ্টি হবে। অন্যদিকে গ্রাহকরা একই স্থানে অনেকগুলো সেবা পাবেন। মোট কথা অকটেন, পেট্রোল, ডিজেল, অটো গ্যাস ও সৌরবিদ্যুৎ চার্জিংয়ের মতো পাঁচটি সেবা, সেই সঙ্গে চাকা ও ব্যাটারি পরিবর্তন ও মেরামতের সুযোগ থাকছে।’

মালিকদের আগ্রহ কম যে কারণে

সরকার উচ্ছ্বসিত হলেও বেসরকারি উদ্যোক্তাদের আগ্রহ এখন পর্যন্ত কম। এর ফলে রাষ্ট্রায়ত্ত পেট্রলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) সারা দেশে মডেল ফিলিং স্টেশন নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে।

পেট্রল পাম্প মালিকদের সংগঠন পেট্রল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সৈয়দ সাজ্জাদুল করিম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মডেল পেট্রল পাম্প করার প্রথম সমস্যা হচ্ছে এটি করতে প্রায় ১০ বিঘা জমি দরকার, যা ব্যয়বহুল। বিশাল বিনিয়োগ করতে হবে। এটি আমাদের দেশের জন্য উপযোগী নয়।’

তিনি বলেন, ‘অনেক মালিক ঋণ করে পাম্প দেন। সেই ঋণের সুদ দিতেই তাদের গলদঘর্ম হতে হয়। এখন বাড়তি এত কিছুর পেছনে বিনিয়োগ করতে বলাটা অমানবিক বটে।

‘এদিকে নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়েও আমরা ভাবছি। এ রকম সুবিধা থাকলে অনেক লোকই পাম্পে আসবে। পাম্পে নগদ টাকা থাকে। সেটিও বিবেচনা করতে হবে। এ ছাড়া এ কাজের জন্য যে জমির কথা বলা হচ্ছে তা হাইওয়ের পাশে পাওয়া আরও কঠিন। জমির দামও বেশি পড়বে। এখন কারোরই এত বড় জমি নেই।’

এই অবস্থার মধ্যে বিপিসি জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের এক সভায় বলছে, কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ, পদ্মা সেতু এবং মিরেরসরাই বঙ্গবন্ধু অর্থনৈতিক অঞ্চলে মডেল ফিলিং স্টেশন নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া যেতে পারে। তেল বিপণন কোম্পানি পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা নিজস্ব অর্থায়নে এগুলো বাস্তবায়ন করবে।

জ্বালানি বিভাগের সিনিয়র সচিব আনিছুর রহমান ওই সভায় বিপিসির এই উদ্যোগে সায় দেন এবং এই বিষয়ে কাজ শুরু করতে গুরুত্ব আরোপ করেন।

জ্বালানি সচিব আনিছুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এই ধরনের ফিলিং স্টেশন নির্মাণের খরচ বেশি। তাই উদ্যোক্তাদের আগ্রহ কম। এই কারণেই এবার বিপিসির অধীন বিপণন সংস্থাগুলো তাদের নিজস্ব জায়গায় মডেল ফিলিং স্টেশন নির্মাণ করবে। এটা দেখে অন্যরাও উৎসাহিত হবে।’

তিনি বলেন, ‘বিপিসির জমি ছাড়াও পূর্বাচলে কয়েকটি স্টেশন নির্মাণের জন্য আমরা জমি চেয়েছি। পেলে সেখানেও নির্মাণ করা হবে।’

চ্যালেঞ্জটা কী?

জ্বালানি বিভাগ থেকে জানানো হয়, তারা ৯টি মডেল পেট্রোল পাম্প স্থাপনের বিষয়ে অনাপত্তিপত্র দিয়েছে। এর মধ্যে ৩টি তেল বিপণন কোম্পানির অর্থায়নে ৫টি আর ৬টি ডিলারের অর্থায়নে নির্মাণ করা হবে।

এর মধ্যে পদ্মা ও যমুনা অয়েলের মাধ্যমে দুটি করে এবং মেঘনা পেট্রলিয়ামের মাধ্যমে একটি মডেল পাম্প নির্মাণে লেটার অব ইনটেন্ট (এলওআই) বা প্রাথমিক সম্মতিপত্র ইস্যু করা হয়েছে।

তবে বিপিসির চেয়ারম্যান আবু বকর ছিদ্দিক বলেন, ‘যতদূর জানি এ নিয়ে কাজ চলছে। আমি নতুন। তাই বেশি কিছু জানি না। তবে এটা এমন কোনও বড় বিষয় নয়।’

আরও পড়ুন:
গ্যারেজে পানি: রিকশা সরাতে গিয়ে মালিকসহ দুজনের মৃত্যু
চট্টগ্রামে ১২৬ মিলিমিটার বৃষ্টি, দুর্ভোগ
বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে ডুবেছে ঢাকা
নগরে স্বস্তি-অস্বস্তির বৃষ্টি
রাতের আকাশ পরিষ্কার থাকবে

শেয়ার করুন

হিসাব তলব সাংবাদিকদের ভয় দেখানোর নতুন কৌশল: ফখরুল

হিসাব তলব সাংবাদিকদের ভয় দেখানোর নতুন কৌশল: ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ফাইল ছবি

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ভয়াবহ দুঃশাসনে দেশের সাধারণ মানুষের পাশাপাশি সাংবাদিকরাও সরকারি জুলুম-নির্যাতনে জর্জরিত। সম্প্রতি অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধের ঘোষণায় আবারও প্রমাণিত হয়েছে যে দেশের গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের কোনো স্বাধীনতা নেই। বিভিন্ন কায়দায় সংবাদ মাধ্যমগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে চায় কর্তৃত্ববাদী সরকার।’

১১ সাংবাদিক নেতার ব্যাংক হিসাব তলবের ঘটনাকে সাংবাদিকদের ভীতি প্রদর্শনের নতুন কৌশল বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

অবিলম্বে সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে সত্য প্রকাশে দেশের বিবেক তথা গণমাধ্যম ও গণমাধ্যমের কর্মীদের স্বাধীনতা নিশ্চিতের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে সোমবার এক বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল এ আহ্বান জানান।

দলের ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্সের সই করা বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘কর্তৃত্ববাদী ফ্যাসিস্ট সরকার সারাদেশে যে দমন-নিপীড়ন চালাচ্ছে তা থেকে সাংবাদিকরাও রেহাই পাচ্ছেন না। সত্য প্রকাশে নির্ভীক সাংবাদিকদের বিভিন্ন উপায়ে টুটি চেপে ধরার পর এখন জাতীয় প্রেসক্লাব, বিএফইউজে, ডিইউজে ও ডিআরইউর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের ব্যাংক হিসাব তলবের মাধ্যমে সাংবাদিকদের মাঝে ভীতি ও আতঙ্ক সৃষ্টির চেষ্টা চলছে।’

এ ঘটনা স্বাধীন সাংবাদিকতা এবং মত প্রকাশে চরম হুমকি বলেও মনে করেন মির্জা ফখরুল।

তিনি বলেন, ‘গোটা দেশ এখন আওয়ামী দুঃশাসনের লীলাভূমিতে পরিণত হয়েছে। ক্ষমতা দীর্ঘস্থায়ী করার খায়েশে বিভোর ভোটারবিহীন সরকার কেবল বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় নেতাকর্মী, মানবাধিকার কর্মী ও বিরুদ্ধ মতের নাগরিকদের ওপরই জুলম-নির্যাতন চালাচ্ছে না, সত্য প্রকাশের কারণে সাংবাদিকদেরও নির্যাতন শুরু করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভয়াবহ দুঃশাসনে দেশের সাধারণ মানুষের পাশাপাশি সাংবাদিকরাও সরকারি জুলুম-নির্যাতনে জর্জরিত। সম্প্রতি অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধের ঘোষণায় আবারও প্রমাণিত হয়েছে যে দেশের গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের কোনো স্বাধীনতা নেই। বিভিন্ন কায়দায় সংবাদ মাধ্যমগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে চায় কর্তৃত্ববাদী সরকার।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশে এক ব্যক্তির শাসন প্রতিষ্ঠা করাই এখন আওয়ামী লীগের লক্ষ্য। এ লক্ষ্যকে বাস্তবে রূপ দিতে অনৈতিক সরকার নির্ভীক সাংবাদিকতা ও সাংবাদিকদের কলম চেপে ধরছে।’

আরও পড়ুন:
গ্যারেজে পানি: রিকশা সরাতে গিয়ে মালিকসহ দুজনের মৃত্যু
চট্টগ্রামে ১২৬ মিলিমিটার বৃষ্টি, দুর্ভোগ
বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে ডুবেছে ঢাকা
নগরে স্বস্তি-অস্বস্তির বৃষ্টি
রাতের আকাশ পরিষ্কার থাকবে

শেয়ার করুন

ট্রাকের চাকা ঘুরবে না ৩ দিন

ট্রাকের চাকা ঘুরবে না ৩ দিন

অগ্রিম আয়কর (এআইটি) প্রত্যাহারসহ ১৫ দফা দাবি আদায়ে ৭২ ঘণ্টা কর্মবিরতির ডাক দিয়েছেন পণ্যবাহী পরিবহনের শ্রমিকরা। দাবি মানা না হলে মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে শুক্রবার সকাল ৬টা পর্যন্ত এ ধর্মঘট চলবে।

মোটরযান মালিকদের ওপর আরোপ করা অগ্রিম আয়কর (এআইটি) প্রত্যাহারসহ ১৫ দফা দাবি আদায়ে ৭২ ঘণ্টা কর্মবিরতির ডাক দিয়েছেন পণ্যবাহী পরিবহনের শ্রমিকরা।

দাবি মানা না হলে মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে শুক্রবার সকাল ৬টা পর্যন্ত এ ধর্মঘট চলবে।

সোমবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ কাভার্ড ভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার পণ্য পরিবহন মালিক অ্যাসোসিয়েশনের বন্দরবিষয়ক সম্পাদক সামশুজ্জামান সুমন।

তিনি জানান, বাংলাদেশ কাভার্ড ভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার পণ্য পরিবহন মালিক অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ ট্রাকচালক শ্রমিক ফেডারেশনের যৌথ উদ্যোগে এ কর্মবিরতির ডাক দেয়া হয়েছে।

এর আগে শনিবার দুপুরে চট্টগ্রামের কদমতলীতে আন্তজেলা মালামাল পরিবহন সংস্থা ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান মালিক সমিতির কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছিল।

ওই দিন সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জাফর আলম বলেন, ‘রোববারের মধ্যে ১৫ দফা দাবি না মানলে মঙ্গলবার থেকে আমাদের কর্মবিরতি সারা দেশে শুরু হবে। দাবিগুলো সরকারের উচ্চপর্যায়ে জানানো হয়েছে।

‘তবে এ বিষয়ে এখনও কোনো সমাধান হয়নি। দাবিগুলো বাস্তবায়ন হলে শ্রমিকদের আগামী ২০ বছর আর কোনো আন্দোলনে যেতে হবে না।’

অ্যাসোসিয়েশনের ১৫ দাবির মধ্যে রয়েছে, মোটরযান মালিকদের ওপর আরোপিত অগ্রিম আয়করে (এআইটি) চাপানো বর্ধিত আয়কর প্রত্যাহার, যেসব চালক ভারী মোটরযান চালাচ্ছে তাদের সবাইকে সহজ শর্তে এবং সরকারি ফির বিনিময়ে লাইসেন্স দেয়া, ড্রাইভিং লাইসেন্সের নবায়নের হয়রানিমূলক ফিটনেস ও পরীক্ষা পদ্ধতি বাতিল করা এবং সরকার নিবন্ধিত শ্রমিক ইউনিয়নের কল্যাণ তহবিল সংগ্রহের ওপর কোনো বিধিনিষেধ আরোপ না করা।

এ ছাড়া চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে পেশ করা শ্রমিকদের প্রস্তাব বা সুপারিশগুলো বাস্তবায়নেরও দাবি জানিয়েছেন শ্রমিকরা।

বাংলাদেশ কাভার্ড ভ্যান, ট্রাক, প্রাইমমুভার পণ্য পরিবহন মালিক অ্যাসোসিয়েশনের আওতায় সারা দেশে দুই লাখের বেশি যানবাহন রয়েছে।

আরও পড়ুন:
গ্যারেজে পানি: রিকশা সরাতে গিয়ে মালিকসহ দুজনের মৃত্যু
চট্টগ্রামে ১২৬ মিলিমিটার বৃষ্টি, দুর্ভোগ
বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে ডুবেছে ঢাকা
নগরে স্বস্তি-অস্বস্তির বৃষ্টি
রাতের আকাশ পরিষ্কার থাকবে

শেয়ার করুন

জলবায়ু পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ছয় প্রস্তাব

জলবায়ু পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ছয় প্রস্তাব

ফাইল ছবি

জাতিসংঘ সদর দপ্তরে জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে বিভিন্ন রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের ‘রুদ্ধদ্বার বৈঠকে’ পৃথিবীর জরুরি অবস্থা মোকাবিলায় বিশ্ব নেতাদের দ্রুত সাহসী ও অধিক শক্তিশালী পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এবং জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস এ বৈঠক আহ্বান করেন।

জলবায়ু পরিবর্তন ও ‍পৃথিবীর জরুরি অবস্থা মোকাবিলায় বিশ্ব নেতাদের দ্রুত সাহসী ও অধিক শক্তিশালী পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংকট উত্তরণে বিশ্ব নেতাদের সামনে ৬টি প্রস্তাবও পেশ করেছেন তিনি।

জাতিসংঘ সদর দপ্তরে সোমবার জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে বিভিন্ন রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের ‘রুদ্ধদ্বার বৈঠকে’ এ আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এবং জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস এ বৈঠক আহ্বান করেন।

ছয়টি প্রস্তাব পেশ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব নেতাদের বলেন, ‘পৃথিবীর জরুরি অবস্থা মোকাবিলায় আমাদের জরুরিভাবে সাহসী এবং অধিকতর শক্তিশালী ব্যবস্থা নিতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রীর ছয় প্রস্তাব

প্রথম প্রস্তাবে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে রাখতে প্যারিস চুক্তি কঠোর বাস্তবায়নের কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

দ্বিতীয় প্রস্তাবে, উন্নত দেশগুলো থেকে বার্ষিক ১০০ বিলিয়ন ডলার তহবিল আদায় করার কথা বলেন শেখ হাসিনা। এ বিষয়ে তিনি আরও বলেন, বিশেষ করে জলবায়ু ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর জন্য এ টাকার ৫০ শতাংশ অভিযোজন এবং স্থিতিস্থাপকতার জন্য খরচ করা উচিত।

তৃতীয় প্রস্তাবে, উন্নয়নশীল দেশগুলোর কাছে নতুন আর্থিক মেকানিজম এবং পরিবেশবান্ধব সবুজ প্রযুক্তি হস্তান্তর করার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

চতুর্থ প্রস্তাবে, জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতি ও ধ্বংস এবং এর কারণে বড় পরিসরে জনগণের বাস্তুচ্যুত হওয়ার সংকট মোকাবিলা করতে বলেন শেখ হাসিনা।

পঞ্চম প্রস্তাবে, মহামারি এবং দুর্যোগ মোকাবিলায় বিশেষ করে ক্রমবর্ধমান জলবায়ু পরিবর্তন দুর্যোগ বাড়ার সঙ্গে ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের (সিভিএফ) দেশগুলোর সক্ষমতা তৈরিতে সহায়তা প্রয়োজন।

ষষ্ঠ ও সবশেষ প্রস্তাবে আগামী প্রজন্মের জন্য টেকসই ভবিষ্যৎ রেখে যেতে সবাইকে বৈশ্বিক মনোভাব নিয়ে কাজ করার কথা বলেন শেখ হাসিনা।

বৈশ্বিক গ্রিন হাউজ গ্যাস নিঃসরণের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর কথা তুলে ধরে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘বৈশ্বিক গ্রিন হাউজ গ্যাস নিঃসরণে সবচেয়ে কম ভূমিকা রাখছে জলবায়ু ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলো। যদিও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবের কারণে তারাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত।’

সাম্প্রতিক আইপিসিসি রিপোর্টে জলবায়ু ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর ভবিষ্যৎ নিয়ে ভয়ানক চিত্র তুলে ধরার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বৈশ্বিক তাপমাত্রা যদি ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি বৃদ্ধি পায় ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলো স্থায়ী ক্ষতির মুখে পড়ব।’

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দায়িত্বের কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অভিযোজন এবং ক্ষতি প্রশমনে ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে সহায়তা করা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের বিশেষ দায়িত্ব রয়েছে।

সম্পদের সীমাবদ্ধতার সঙ্গে জলবায়ু ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হওয়া সত্ত্বেও অভিযোজন ও স্থিতিস্থাপকতায় বাংলাদেশ বিশ্বে পথপ্রদর্শক বলেও মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা।

‘সবুজ প্রবৃদ্ধি’, অবকাঠামোগত স্থিতিস্থাপকতা এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানিকে গুরুত্ব দিয়ে ‘মুজিব জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনা’ গ্রহণ করার কথা উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আমরা জলবায়ু ভালনারেবিলিটি থেকে জলবায়ু রেজিলেন্স, জলবায়ু রেজিলেন্স থেকে জলবায়ু সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যাচ্ছি।’

ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম (সিভিএফ) এবং ভি২০ চেয়ার শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের মূল লক্ষ্য ক্লাইমেট ভালনারেবল দেশগুলোর স্বার্থ অগ্রাধিকার দেয়া। আমরা আমাদের প্র্যাকটিস এবং অভিযোজন জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা একে অন্যের সঙ্গে বিনিময় করছি।

আরও পড়ুন:
গ্যারেজে পানি: রিকশা সরাতে গিয়ে মালিকসহ দুজনের মৃত্যু
চট্টগ্রামে ১২৬ মিলিমিটার বৃষ্টি, দুর্ভোগ
বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে ডুবেছে ঢাকা
নগরে স্বস্তি-অস্বস্তির বৃষ্টি
রাতের আকাশ পরিষ্কার থাকবে

শেয়ার করুন

৬ মাসের মধ্যে মৎস্যজীবীদের নিবন্ধন

৬ মাসের মধ্যে মৎস্যজীবীদের নিবন্ধন

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশনের নবনির্মিত মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র উদ্বোধন করেন মৎস ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। ছবি: নিউজবাংলা

প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘মাছ ধরা বন্ধের সময় প্রকৃত মৎস্যজীবীদের ভিজিএফ সহায়তার পাশাপাশি বিকল্প কর্মসংস্থানের উপকরণ বিতরণ করা হচ্ছে। মৎস্য আহরণ বন্ধ থাকার সময় প্রকৃত মৎস্যজীবীরা সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাবেন।’

মৎস্যজীবীদের সরকারি সব সুবিধা পৌঁছে দেয়ার জন্য নিবন্ধন প্রক্রিয়া ছয় মাসের মধ্যে শেষ হবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশনের নবনির্মিত মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র উদ্বোধন শেষে সোমবার তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘মৎস্যজীবী নিবন্ধন একটি চলমান প্রক্রিয়া, মৎস্যজীবীদের তালিকা হালনাগাদ করা চলমান রয়েছে। ৬ মাসের মধ্যে মৎস্যজীবীদের নিবন্ধন হালনাগাদ হয়ে যাবে। প্রকৃত মৎস্যজীবীরা এ তালিকার আওতায় আসবেন।

‘মাছ ধরা বন্ধের সময় প্রকৃত মৎস্যজীবীদের ভিজিএফ সহায়তার পাশাপাশি বিকল্প কর্মসংস্থানের উপকরণ বিতরণ করা হচ্ছে। মৎস্য আহরণ বন্ধ থাকার সময় প্রকৃত মৎস্যজীবীরা সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাবেন।’

রেজাউল করিম বলেন, ‘মৎস্য আহরণ বন্ধ রাখার সময় পরিবর্তনের বিষয়টিও বিবেচনা করা হবে। যারা সমুদ্রে মাছ ধরতে যাবেন তাদের আধুনিক প্রযুক্তির সুযোগ-সুবিধা দেয়ার বিষয়টিও সরকারের বিবেচনায় রয়েছে।’

দেশের মৎস্যসম্পদ বৃদ্ধির জন্য ব্যাপক পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘দেশের মৎস্যসম্পদ বৃদ্ধির জন্য শেখ হাসিনা সরকার ব্যাপক পরিকল্পনা নিয়েছে। ইলিশ নিয়ে গবেষণার জন্য গবেষণা কেন্দ্র করা হয়েছে। দেশের যে প্রান্তে ইলিশ কমে যাচ্ছে সে প্রান্তে উৎপাদন যাতে বাড়ানো যায়, ইলিশ যাতে নির্বিঘ্নে প্রজনন করতে পারে, এ বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখা হয়েছে।

‘যেসব নদীতে ইলিশ ছিল, কিন্তু এখন নেই সেখানে ইলিশের উৎপাদন বাড়ানোর জন্য ব্যাপক পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘মাছের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য অভয়াশ্রম করা হচ্ছে। অনাকাঙ্ক্ষিত মৎস্য আহরণ বন্ধ করার জন্য যেসব এলাকায় নজর দেয়া দরকার, সেসব এলাকায় নজর দেয়া হচ্ছে। নদীর গভীরতা যাতে নষ্ট না হয়, নদীর গতি-প্রকৃতি যাতে বিঘ্নিত না হয়, সে বিষয়ে আমরা খেয়াল রাখছি।

‘নদীর নাব্যর কারণে মৎস্যসম্পদ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার বিষয়টি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের নজরে আনা হবে।’

এ সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, বাংলাদেশে মৎস্য আহরণ বন্ধ থাকার সময় সীমান্তবর্তী ভারতের নদী বা সমুদ্র এলাকায় একই সময়ে মৎস্য আহরণ বন্ধের বিষয়টি ভারতীয় হাইকমিশনারের সঙ্গে বৈঠকে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এর আগে পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলায় বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশনের আলীপুর মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র এবং বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের খেপুপাড়া নদী উপকেন্দ্রের অফিস কাম গবেষণা কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন মন্ত্রী।

আরও পড়ুন:
গ্যারেজে পানি: রিকশা সরাতে গিয়ে মালিকসহ দুজনের মৃত্যু
চট্টগ্রামে ১২৬ মিলিমিটার বৃষ্টি, দুর্ভোগ
বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে ডুবেছে ঢাকা
নগরে স্বস্তি-অস্বস্তির বৃষ্টি
রাতের আকাশ পরিষ্কার থাকবে

শেয়ার করুন

কনডেম সেলের তথ্য চাইল হাইকোর্ট

কনডেম সেলের তথ্য চাইল হাইকোর্ট

কাশিমপুর কারাগার। ফাইল ছবি

ফাঁসির আসামিকে কনডেম সেলে রাখার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে করা রিটের শুনানির সময় সোমবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

দেশের কারাগারগুলোতে মৃত্যুদণ্ডাদেশ প্রাপ্ত বন্দি, কনডেম সেলের সংখ্যা, কারাগারের সংস্কার, ব্যবস্থাপনা, কনডেম সেলের সুযোগ-সুবিধা সংক্রান্ত প্রতিবেদন চেয়েছে হাইকোর্ট।

রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তাকে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে আদালতে এ প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

ফাঁসির আসামিকে কনডেম সেলে রাখার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে করা রিটের শুনানির সময় সোমবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

এ সময় অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিনও এ বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দেন। পরে আদালত পরবর্তী শুনানির জন্য ৩১ অক্টোবর রিটের তারিখ ঠিক করে দেয়।

গত ১৮ জুন একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন যুক্ত করে রিট আবেদনটি করা হয়।

কনডেম সেলের তথ্য চাইল হাইকোর্ট

তিন আবেদনকারী হলেন চট্টগ্রাম কারাগারের কনডেম সেলে থাকা সাতকানিয়ার জিল্লুর রহমান, সিলেট কারাগারে থাকা সুনামগঞ্জের আব্দুল বশির এবং কুমিল্লা কারাগারে থাকা খাগড়াছড়ির শাহ আলম।

বিচারিক আদালতের মৃত্যুদণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে তাদের আপিল ও ডেথ রেফারেন্স (মৃত্যুদণ্ডাদেশ অনুমোদনের আবেদন) হাইকোর্টে বিচারাধীন।

রিটে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব, আইন সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, আইজি প্রিজন্স, চট্টগ্রাম, সিলেট ও কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপারকে বিবাদী করা হয়।

রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী শিশির মনির। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

আরও পড়ুন:
গ্যারেজে পানি: রিকশা সরাতে গিয়ে মালিকসহ দুজনের মৃত্যু
চট্টগ্রামে ১২৬ মিলিমিটার বৃষ্টি, দুর্ভোগ
বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে ডুবেছে ঢাকা
নগরে স্বস্তি-অস্বস্তির বৃষ্টি
রাতের আকাশ পরিষ্কার থাকবে

শেয়ার করুন