ফিলিস্তিনে ইসরায়েলি হামলার জবাবদিহি চায় বাংলাদেশ

ফিলিস্তিনে ইসরায়েলি হামলার জবাবদিহি চায় বাংলাদেশ

‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ইসরায়েলকে দেয়া দায়মুক্তি ও দুঃখজনক প্রতিক্রিয়া কেবল দখলদার বাহিনীকে উৎসাহিত করে। সাম্প্রতিক যুদ্ধবিরতি অবশ্যই আমাদের কাঁধ থেকে দায়বদ্ধতার ভার কমিয়ে দেয়ার কোনো অজুহাত নয়।’

ফিলিস্তিনে নির্বিচার হামলা চালানোর মধ্য দিয়ে ইসরায়েলের আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘনের ঘটনায় জবাবদিহি ও ন্যায়বিচার নিশ্চিতের ওপর জোর দিয়েছে বাংলাদেশ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন বৃহস্পতিবার ফিলিস্তিন ইস্যুতে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের বিশেষ অধিবেশনে বক্তব্য দেয়ার সময় এ দাবি জানান।

এ সময় তিনি ইসরায়েলের অবৈধ ও জঙ্গিবাদী কাজের তীব্র নিন্দা জানান। বলেন, ‘ইসরায়েলকে অবশ্যই ফিলিস্তিন ভূখণ্ডে অব্যাহত অবৈধ দখল, অবৈধ বন্দোবস্ত কার্যক্রম এবং সংযুক্তি বন্ধ করতে হবে।’

তিনি আফসোস করে বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ইসরায়েলকে দেয়া দায়মুক্তি ও দুঃখজনক প্রতিক্রিয়া কেবল দখলদার বাহিনীকে উৎসাহিত করে।

‘সাম্প্রতিক যুদ্ধবিরতি অবশ্যই আমাদের কাঁধ থেকে দায়বদ্ধতার ভার কমিয়ে দেয়ার কোনো অজুহাত নয়।’

জবাবদিহি এবং ন্যায়বিচারের গুরুত্ব তুলে ধরে মোমেন তদন্ত কমিশনের মাধ্যমে মানবাধিকার কাউন্সিলের পদক্ষেপের প্রস্তাব দেন।

ফিলিস্তিনিদের মানবিক সহায়তা দেয়ার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি এই সংকটের স্থায়ী সমাধানের জন্য জাতিসংঘের সিস্টেমভিত্তিক সমন্বিত পদ্ধতি এবং জাতিসংঘ সুরক্ষা কাউন্সিলের অর্থবহ পদক্ষেপের ওপর জোর দেন।

ভার্চুয়াল এ বৈঠকে ফিলিস্তিন, তুরস্ক, নামিবিয়া, পাকিস্তান, লিবিয়া, তিউনিসিয়া, কুয়েত, সিরিয়া, কাতার, মিসর, মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা অংশ নেন।

এ নিয়ে ১০ মে থেকে শুরু হওয়া ইসরায়েলের বিমান হামলায় গাজায় নিহত ফিলিস্তিনির সংখ্যা দাঁড়াল ২৪৩। এদের মধ্যে ৬৬টি শিশু রয়েছে। অন্যদিকে হামাসের রকেট হামলায় নিহত হয় দুই শিশুসহ ১২ ইসরায়েলি।

আরও পড়ুন:
গাজায় ইসরায়েলের হামলা যুদ্ধাপরাধ হতে পারে: জাতিসংঘ
ত্রাণের অর্থে ‘হাত দেবে না’ হামাস
কেউ ইসরায়েল গেলে বিচার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ফিলিস্তিনে জরুরি সহায়তা যাচ্ছে আজ
গাজা পুনর্নির্মাণে ওয়াশিংটন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন

শেয়ার করুন

মন্তব্য

এবার লোকমান-শফিকুলের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা

এবার লোকমান-শফিকুলের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা

মোহামেডান ক্লাবের পরিচালক লোকমান হোসেন ভূঁইয়া এবং কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের সভাপতি শফিকুল আলম ফিরোজ। ছবি: সংগৃহীত

দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার তাদের দেশত্যাগে এই নিষেধাজ্ঞা দেয় আদালত। লোকমান গত ১৯ মার্চ কাশিমপুর-১ এবং এর আগে ১ জানুয়ারি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান কালা ফিরোজ হিসেবে পরিচিত শফিকুল আলম ফিরোজ।

ক্যাসিনোকাণ্ডে জড়িত মোহামেডান ক্লাবের পরিচালক লোকমান হোসেন ভূঁইয়া এবং কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের সভাপতি ও কৃষক লীগ নেতা শফিকুল আলম ফিরোজের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার তাদের দেশত্যাগে এই নিষেধাজ্ঞা দেয় আদালত।

দুদক পরিচালক (ক্যাসিনো সংক্রান্ত অনুসন্ধান টিমের প্রধান) সৈয়দ ইকবাল হোসেন নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ক্যাসিনোর মাধ্যমে অবৈধ পথে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে এর আগে সোমবার বর্তমান সংসদের তিন সদস্যসহ ছয়জনের বিদেশ ভ্রমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় আদালত।

তারা হলেন চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী, সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, ভোলা-৩ আসনের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম প্রধান সাজ্জাদুল ইসলাম, সাবেক অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. আব্দুল হাই এবং ঢাকা ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের কর্মচারী আবুল কালাম আজাদ।

হাইকোর্টের সাম্প্রতিক এক নির্দেশনার কারণে দেশত্যাগে বা বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞার জন্য নিম্ন আদালতের অনুমতি নিতে হচ্ছে দুদককে। এমন পরিস্থিতিতে দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আদালত।

২০১৯ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর রাজধানীতে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরু করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ অভিযানের ধারাবাহিকতায় ক্যাসিনোর মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনকারীদের বিরুদ্ধে ৩০ সেপ্টেম্বর অনুসন্ধান শুরু করে দুদক।

অনুসন্ধানে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে অন্তত ২৩টি মামলা হয়। ১২টির চার্জশিটও দাখিল হয়েছে। এসব মামলায় সম্পৃক্ত অবৈধ সম্পদও জব্দ করা হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে বেশ কয়েকজন আসামিকে।

আরও পড়ুন: অবৈধ সম্পদ: ৩ এমপির বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা

দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবালের নেতৃত্বে সাত সদস্যের একটি টিম অনুসন্ধান ও তদন্তের দায়িত্ব পালন করছে। টিমের অপর সদস্যরা হলেন দুদকের উপ-পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম, মো. সালাহউদ্দিন, গুলশান আনোয়ার প্রধান, সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী, সাইফুল ইসলাম, আতাউর রহমান ও মোহাম্মদ নেয়ামুল আহসান গাজী।

অভিযানে যুবলীগ ও কৃষক লীগ নেতা এবং ওয়ার্ড কাউন্সিলরসহ গ্রেপ্তার ১২ জনের মধ্যে লোকমান-শফিকুলসহ তিনজন জামিন নিয়ে কারাগার থেকে বেরিয়ে গেছেন।

লোকমান গত ১৯ মার্চ কাশিমপুর-১ এবং এর আগে ১ জানুয়ারি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান কালা ফিরোজ হিসেবে পরিচিত শফিকুল আলম ফিরোজ। যুবলীগের বহিষ্কৃত দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমান কারামুক্ত হন গত ৯ মার্চ।

২০১৯ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে তেজগাঁওয়ের মনিপুরীপাড়ার বাসা থেকে লোকমানকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। এর আগে ২২ সেপ্টেম্বর রাতে শফিকুলকে কলাবাগান ক্রীড়াচক্র থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় লোকমানকে দেয়া নিম্ন আদালতের জামিন বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করার সিদ্ধান্ত গত ১১ জুন জানায় দুদক। এর তিন দিন পর ১৪ জুন হাইকোর্টের ভার্চুয়াল বেঞ্চে দুদকের পক্ষে আবেদনটি করা হয়।

শফিকুলের বিরুদ্ধে ২ কোটি ৬৮ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদের তথ্য পেয়ে ২০১৯ সালের ৩১ অক্টোবর তার বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক।

আরও পড়ুন:
গাজায় ইসরায়েলের হামলা যুদ্ধাপরাধ হতে পারে: জাতিসংঘ
ত্রাণের অর্থে ‘হাত দেবে না’ হামাস
কেউ ইসরায়েল গেলে বিচার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ফিলিস্তিনে জরুরি সহায়তা যাচ্ছে আজ
গাজা পুনর্নির্মাণে ওয়াশিংটন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন

শেয়ার করুন

বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দেয়ার এখতিয়ার হারায়নি দুদক

বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দেয়ার এখতিয়ার হারায়নি দুদক

আদালত থেকে নিষেধাজ্ঞার অনুমতি নিতে গিয়ে সেটা দেরি হয়ে যাচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নে দুদক সচিব বলেন, ‘দেরি হচ্ছে না। আদালতে নির্দেশ অনুযায়ী দুদকের তদন্তকারী কর্মকর্তা বা দুদক যদি মনে করে তাকে এখনই নিষেধাজ্ঞা দেয়া দরকার, এখনই পারা যাবে। পরে আদালত থেকে অনুমাদন নেয়া যাবে। এতে দুদকের কাজে কোনো অসুবিধা হবে না।’

আদালতের বিধিনিষেধ থাকলেও দুর্নীতি অনুসন্ধানে যে কাউকে বিদেশ যাত্রায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) নিষেধাজ্ঞা দিতে পারবে বলে জানিয়েছেন কমিশনের সচিব ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার। বলছেন, দুদকের এ ক্ষমতা রয়েছে।

মঙ্গলবার দুদক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন আনোয়ার হোসেন।

সম্প্রতি উচ্চ আদালতের এক নির্দেশনায় বলা হয়েছে, আদালতের অনুমতি ছাড়া দুদক কাউকে বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দিতে পারবে না। বিষয়টি ব্যাখ্যা দিয়ে দুদক সচিব বলেন, ‘কমিশন চাইলেই কাউকে আর দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিতে পারবে না। কারণ এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রায় আছে।

‘তবে আমাদের আরও একটি আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত সিদ্ধান্ত দিয়েছে, তদন্তের যেকোনো পর্যায়ে যদি কারো বিদেশযাত্রা রহিত করা প্রয়োজন হয় দুদকের কার্যক্রমের স্বার্থে, তাহলে দুদক সেটা করতে পারবে। তবে এটা করার পরে পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে আদালত থেকে ভূতাপেক্ষিক অনুমোদন নিতে হবে।’

আদালতের রায় ছাড়া দুদক কীভাবে কাউকে বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দেবে, এমন প্রশ্নের জবাবে দুদক সচিব বলেন, নিষেধাজ্ঞা দিতে হলে কী কারণে, কেন, বিদেশযাত্রা রহিত করা হলো, কেন তার পাসপোর্ট জব্দ করা হলো কিংবা তাকে জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হলো সেই কারণ উল্লেখ করে আদালতকে জানালে আদালত তিনটি বিষয়ে ভূতাপেক্ষিক অনুমোদন দেবেন।

‘একটি হলো তার বিদেশযাত্রা, একটি তার পাসপোর্ট রহিত করা, আরেকটি পাসপোর্ট নিয়ে আসা বা জব্দ করা। এটা নিয়ে আর কোনো জটিলতা নেই।’

এর আগে বিভিন্ন সময়ে দুই শতাধিক মানুষের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দুদক। আদালতের রায়ে সেসব নিষেধাজ্ঞা তো আর থাকছে না, এমন প্রশ্নে দুদক সচিব বলেন, ‘সেগুলো বহাল আছে, আমরা শুধু আদালত থেকে অনুমোদন করে নিয়ে আসব। তবে আদালত যদি এটা গ্রহণ না করে বা রিজেক্ট করে দেয় তখন সেটা আর ভেলিড থাকবে না। যদি অনুমোদন করে সেটা ভেলিড থাকবে।’

আদালত থেকে নিষেধাজ্ঞার অনুমতি নিতে গিয়ে সেটা দেরি হয়ে যাচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নে আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘দেরি হচ্ছে না। আদালতে নির্দেশ অনুযায়ী দুদকের তদন্তকারী কর্মকর্তা বা দুদক যদি মনে করে তাকে এখনই নিষেধাজ্ঞা দেয়া দরকার, এখনই পারা যাবে। পরে আদালত থেকে অনুমাদন নেয়া যাবে। এতে দুদকের কাজে কোনো অসুবিধা হবে না।’

কমিশনে মঙ্গলবারের মিটিংয়ে সিদ্ধান্তের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আজকে যে সিদ্ধান্ত হয়েছে সেগুলো জানানোর মতো না। কারণ, কমিশন মনে করে একটি সিদ্ধান্ত নিলে সেটা যখন বাস্তবায়ন হয় তখন জানানো যায়। ধরেন আজকে একটি মামলা করার সিদ্ধান্ত হয়েছে, মামলা করার পর আমরা জানিয়ে দেব।’

আদালতের অনুমতি নিয়ে বিমান বাংলাদেশের সাবেক এমডি মোসাদ্দিক, মোহামেডান ক্লাবের পরিচালক লোকমান হোসেন ভূঁইয়া ও কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের সভাপতি শফিকুল আলমের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দুদক।

আরও পড়ুন:
গাজায় ইসরায়েলের হামলা যুদ্ধাপরাধ হতে পারে: জাতিসংঘ
ত্রাণের অর্থে ‘হাত দেবে না’ হামাস
কেউ ইসরায়েল গেলে বিচার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ফিলিস্তিনে জরুরি সহায়তা যাচ্ছে আজ
গাজা পুনর্নির্মাণে ওয়াশিংটন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন

শেয়ার করুন

কোরবানিতে নেই পশুসংকট

কোরবানিতে নেই পশুসংকট

দেশে উৎপাদিত পশু দিয়েই মেটানো যাবে কোরবানির পশুর চাহিদা। রাজধানীর বসিলায় গরুর খামার। ছবি: সাইফুল ইসলাম।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘আসন্ন ঈদুল আজহায় যে পরিমাণ কোরবানির পশুর প্রয়োজন হবে, তার চেয়ে অনেক বেশি পশু দেশে রয়েছে। এবার কোরবানির পশুর সংখ্যা অনেক বেশি থাকায় আমদানির প্রয়োজন নেই। তাই বন্ধ থাকবে পশু আমদানি।’

করোনাভাইরাসের তীব্র সংক্রমণের মধ্যে টানা দ্বিতীয়বারের মতো ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদের প্রস্তুতি নিচ্ছেন দেশের মানুষ। তবে চলমান মহামারির মধ্যেও কোরবানির পশু নিয়ে কোনো সংকট হবে না বলছে সরকার। দেশের পশু দিয়েই মেটানো যাবে কোরবানির পশুর চাহিদা।

দেশে প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ কোরবানি যোগ্য পশু প্রস্তুত আছে বলে নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, এই পশুগুলোর মধ্যে গরু-মহিষের সংখ্যা ৪৫ লাখ ৪৭ হাজার। ছাগল-ভেড়ার সংখ্যা ৭৩ লাখ ৬৫ হাজার। অন্যান্য পশুর সংখ্যা ৪ হাজার ৭৬৫।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘আসন্ন ঈদুল আজহায় যে পরিমাণ কোরবানির পশুর প্রয়োজন হবে, তারচেয়ে অনেক বেশি পশু দেশে রয়েছে। প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ কোরবানির পশু প্রস্তুত রয়েছে, যা কোরবানির জন্য বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে হাটবাজারে বিভিন্ন স্থানে নেয়া হবে।’

গত বছর কোরবানির জন্য প্রস্তুত রাখা পশুর সংখ্যা ছিল ১ কোটি ১৮ লাখ ৯৭ হাজার ৫০০ পশু। তবে হাট থেকে মানুষ কিনেছিল এক কোটির চেয়ে সামান্য সংখ্যক বেশি পশু। মন্ত্রী বলেন, এবার কোরবানির পশুর সংখ্যা অনেক বেশি থাকায় আমদানির প্রয়োজন নেই। তাই বন্ধ থাকবে পশু আমদানি।

দেশের অভ্যন্তরে খামারিরা যে পশু উৎপাদন করেছে তা দিয়েই আমাদের কোরবানির চাহিদা মেটানো সরকারের লক্ষ্য বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘প্রতিবেশি কোনো দেশ থেকে কোরবানির পশু আমদানির কোন প্রয়োজন হবেনা। চোরাইপথেও যাতে কোনো কোরবানির পশু ভারত-মিয়ানমার বা অন্য কোন দেশ থেকে না আসতে পারে এজন্য সীমান্তবর্তী এলাকায় পুলিশ র‌্যাব এবং বর্ডারগার্ড সার্বক্ষণিক পাহারায় থাকবে।’

কোরবানি ঈদকে ঘিরে সীমান্তে চোরাচালানকারিদের তৎপরতা বন্ধে বিশেষ কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়েছে কী-না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘কোনোভাবে যেন দেশের বাইরে থেকে কোনো গবাদিপশু দেশের ভেতরে না আসতে পারে সেজন্য বর্ডার গার্ড, স্থানীয় প্রশাসন, পুলিশ, র‌্যাব কাজ করছেন। আমাদের কর্মকর্তারা কাজ করছেন। এবং প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট থাকবে। ফলে অঘোষিত কোনো পথ থেকেও কোনোভাবে গবাদিপশু বাংলাদেশের প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য আমরা কড়াকড়ি ব্যবস্থা আরোপ করছি।’

মন্ত্রী বলেন, কোরবানির পশু যাতে রোগাক্রান্ত না হয় এজন্য ১ হাজার ২০০ মেডিক্যাল টিম কাজ করবে। প্রতিটি মেডিক্যাল টিমে একজন করে ভেটেরিনারি সার্জন থাকবেন, সঙ্গে থাকবেন অন্যান্য বিশেষজ্ঞরাও।

‘বাজারে অথবা বিক্রয় কেন্দ্রে যে পশুটি আসুক, সেটাকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা হবে রোগগ্রস্ত কী-না। কারণ রোগগ্রস্ত একটা পশুর মাংস অন্য কেউ খেলে, সেটা তার শরীরেও প্রবাহিত হতে পারে।’

পশু বিক্রি ও ব্যবস্থাপনা এবং এক স্থান থেকে আরেক স্থানে আনা নেয়ার ক্ষেত্রে যাতে কোনো জটিলতা বা সমস্যা তৈরি না হয় সেজন্য সকল প্রকার প্রস্তুতি রাখা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতিকে মাথায় রেখে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে কোরবানির হাট বসানো হলেও অনলাইনে পশু বিক্রিকে উৎসাহিত করতে চায় সরকার।

সংক্রমণ ঝুঁকি কমাতে খোলা জায়গায় পশুর হাট বসানোর কথা ভাবা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘গতবার অনলাইনে গরু বিক্রিকে উৎসাহিত করা হয়েছে। আমি নিজেও কয়েকটা অনলাইন গরুর বাজার উদ্বোধন করেছি। কেনা বেচাও হয়েছে। সেটাকে এবার আরও বেশি প্রমোট করা ব্যবস্থা আমরা নিচ্ছি।’

পশুর হাট সম্পর্কে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘যে সমস্ত খোলা জায়গা আছে, বা যেখানে করলে মানুষের সংক্রমণ ঝুঁকি থাকবে না সেখানেই করা হবে। স্থানীয়ভাবে ইউএনও, উপজেলা চেয়ারম্যান, তারা সবাই মিলে মিটিং করবে। মিটিং করে স্থানগুলো নির্ধারণ করবে।’

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করি বলেন, ‘কোরবানির নির্ধারিত হাটের বাইরে রাস্তা ঘাটেও যদি কেউ গবাদি পশু বিক্রি করতে চান, বা তার নিজের বাড়িতে বসে বিক্রি করতে চান সেটা অনুমোদন দেয়া হবে।’

হাটের সংখ্যা বাড়ানো হবে কী-না জানতে চাইলে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, ‘এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেই। তবে যেখানে যেখানে দরকার হবে, মানুষের সুবিধা হবে, সেখানে বসানো হবে।’

সীমান্তবর্তী জেলা এবং দেশের কোনো স্থানে লকডাউন কার্যকর থাকলে সেখানে ‘তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত’ নেয়া হবে বলে জানান তাজুল ইসলাম।

আরও পড়ুন:
গাজায় ইসরায়েলের হামলা যুদ্ধাপরাধ হতে পারে: জাতিসংঘ
ত্রাণের অর্থে ‘হাত দেবে না’ হামাস
কেউ ইসরায়েল গেলে বিচার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ফিলিস্তিনে জরুরি সহায়তা যাচ্ছে আজ
গাজা পুনর্নির্মাণে ওয়াশিংটন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন

শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিষয়ে বলবেন চমস্কি

বাংলাদেশ বিষয়ে বলবেন চমস্কি

বিশ্বরাজনীতির বিশ্লেষক নোয়াম চমস্কি। ছবি: সংগৃহীত

চট্টগ্রামভিত্তিক একজন ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক রিপন বলেন, ‘২০১৮ সালে নোয়াম চমস্কিকে পাঠানো আমার একটি ই-মেইলের জবাব দেন তিনি নিজেই। রাজনীতি, সাংবাদিকতা ও জীবন সম্পর্কীয় আমার বিভিন্ন অভিমত তার ভালো লাগে। এর পরই তিনি আমাকে সাক্ষাৎকার দিতে রাজি হন।’

যুক্তরাষ্ট্রের প্রখ্যাত ভাষাবিজ্ঞানী, দার্শনিক ও বিশ্বরাজনীতির বিশ্লেষক নোয়াম চমস্কি প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের একটি ফেসবুক লাইভে যুক্ত হতে যাচ্ছেন।

বুধবার সকাল ১০টায় টি-কাপ নামের বাংলাদেশের একটি সাক্ষাৎকারভিত্তিক প্রতিষ্ঠানের ফেসবুক লাইভে যুক্ত হবেন তিনি।

সরাসরি যুক্ত হয়ে চমস্কি কথা বলবেন বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের রাজনীতি এবং সম্ভাবনা ও শরণার্থী ইস্যুতে। এ সময় দক্ষিণ এশিয়ার সমসাময়িক রাজনীতিও গুরুত্ব পাবে তার আলোচনায়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন টি-কাপের প্রতিষ্ঠাতা ও অনুষ্ঠানটির উপস্থাপক তানবিরুল মিরাজ রিপন।

চট্টগ্রামভিত্তিক একজন ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক রিপন বলেন, ‘২০১৮ সালে নোয়াম চমস্কিকে পাঠানো আমার একটি ই-মেইলের জবাব দেন তিনি নিজেই। রাজনীতি, সাংবাদিকতা ও জীবন সম্পর্কীয় আমার বিভিন্ন অভিমত তার ভালো লাগে। এর পরই তিনি আমাকে সাক্ষাৎকার দিতে রাজি হন।’

টি-কাপ একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। এটি বাংলাদেশের সম্ভাবনাসহ দক্ষিণ এশিয়ার রাজনৈতিক বিষয়ে সাক্ষাৎকারের আয়োজন করে থাকে।

প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক ইস্যুতে বিশ্বের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে সাক্ষাৎকারের আয়োজন করে থাকে।

এবারের অনুষ্ঠানটির প্রযোজনা করেছে টি-কাপের আরেকটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান মোহর ফ্যাশন হাউস।

নোয়াম চমস্কির সাক্ষাৎকারটি সরাসরি দেখা যাবে টি-কাপের ফেসবুক পেজে। যার লিংক হচ্ছে https://www.facebook.com/tcupinterview/।

নোয়াম চমস্কি বিশ্বরাজনীতি ও সামাজিক ইস্যুতে একজন গঠনমূলক সমালোচক হিসেবে খ্যাতি পেয়েছেন।

আরও পড়ুন:
গাজায় ইসরায়েলের হামলা যুদ্ধাপরাধ হতে পারে: জাতিসংঘ
ত্রাণের অর্থে ‘হাত দেবে না’ হামাস
কেউ ইসরায়েল গেলে বিচার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ফিলিস্তিনে জরুরি সহায়তা যাচ্ছে আজ
গাজা পুনর্নির্মাণে ওয়াশিংটন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন

শেয়ার করুন

দুর্নীতি: বিমানের সাবেক এমডির বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা

দুর্নীতি: বিমানের সাবেক এমডির বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আবদুল মুনীম মোসাদ্দিক আহম্মেদ।

২০১৯ সালের ২৪ জুলাই ক্ষমতার অপব্যবহার, বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে ঘুষ নিয়ে ক্যাডেট পাইলট নিয়োগসহ জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে মোসাদ্দিক আহম্মেদকে তলব করে দুদক। অভিযোগের বিষয়ে জবাব দিতে তাকে ৩০ জুলাই দুদকের প্রধান কার্যালয়ে হাজির হতে বলা হয়।

দুর্নীতির অভিযোগে চাকরিচ্যুত বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আবদুল মুনীম মোসাদ্দিক আহম্মেদের বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আদালত।

প্রাপ্ত অভিযোগের ভিত্তিতে অনুসন্ধানে প্রমাণ পাওয়ায় তার দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে মঙ্গলবার আদালতে আবেদন করেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে নিম্ন আদালত তার বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

সংস্থাটির পরিচালক (ক্যাসিনো সংক্রান্ত অনুসন্ধান টিমের প্রধান) সৈয়দ ইকবাল হোসেন নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবালের নেতৃত্বে সাত সদস্যের একটি টিম অনুসন্ধান ও তদন্তের দায়িত্ব পালন করছে।

টিমের অপর সদস্যরা হলেন- দুদকের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম, মো. সালাহউদ্দিন, গুলশান আনোয়ার প্রধান, সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী, সাইফুল ইসলাম, আতাউর রহমান ও নেয়ামুল আহসান গাজী।

২০১৯ সালের ২৪ জুলাই ক্ষমতার অপব্যবহার, বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে ঘুষ নিয়ে ক্যাডেট পাইলট নিয়োগসহ জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে মোসাদ্দিক আহম্মেদকে তলব করে দুদক। অভিযোগের বিষয়ে জবাব দিতে তাকে ৩০ জুলাই দুদকের প্রধান কার্যালয়ে হাজির হতে বলা হয়।

সাবেক এমডির বিরুদ্ধে অভিযোগ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে বিমানের সে সময়ের ভারপ্রাপ্ত এমডি ক্যাপ্টেন ফারহাত হাসান জামিলকেও সে সময় তলব করা হয়। তাকে ২৯ জুলাই দুদকে হাজির হতে বলা হয়। একই দিন হাজির হতে বলা হয় বিমানের চিফ ফাইন্যান্সিয়াল অফিসার বিনীত সুধ, পরিচালক (মার্কেটিং ও সেলস) আশরাফুল আলম, পরিচালক (প্ল্যানিং) মাহবুব জামান খান ও চিফ অব ট্রেইনিং ফজল মাহুমুদ চৌধুরীকে।

২৮ জুলাই তলব করা হয় বিমানের পরিচালক (প্রশাসন) পার্থ কুমার পণ্ডিত, পরিচালক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যাটেরিয়াল ম্যানেজমেন্ট) সাজ্জাদুর রহিম, পরিচালক (কাস্টমার সার্ভিস) মমিনুল ইসলাম ও মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) বুশরা ইসলামকে।

ওই বছরের ২ মে বিমানের ১০ জনের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক বরাবর চিঠি পাঠায় দুদক। এসবির বিশেষ পুলিশ সুপার (ইমিগ্রেশন) এবং শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ওসি (ইমিগ্রেশন) বরাবর চিঠির অনুলিপি পাঠানো হয়।

মোসাদ্দিক আহম্মেদ ছাড়াও জুনিয়র গ্রাউন্ড সার্ভিস অফিসার-বিমান শ্রমিক লীগের সভাপতি ও বিমানের সিবিএ নেতা মশিকুর রহমান, গ্রাউন্ড সার্ভিস সুপারভাইজার জি এম জাকির হোসেন, মিজানুর রহমান ও এ কে এম মাসুম বিল্লাহ, কমার্শিয়াল সুপারভাইজার রফিকুল আলম ও গোলাম কায়সার আহমেদ, জুনিয়র কমার্শিয়াল অফিসার মারুফ মেহেদী হাসান এবং কমার্শিয়াল অফিসার জাওয়েদ তারিক খান ও মাহফুজুল করিম সিদ্দিকীর ওপরও দেয়া হয় নিষেধাজ্ঞা।

হাইকোর্টের সাম্প্রতিক এক নির্দেশনার কারণে দেশত্যাগে বা বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞার জন্য বিচারিক আদালতের অনুমতি নিতে হচ্ছে দুদককে।

আরও পড়ুন:
গাজায় ইসরায়েলের হামলা যুদ্ধাপরাধ হতে পারে: জাতিসংঘ
ত্রাণের অর্থে ‘হাত দেবে না’ হামাস
কেউ ইসরায়েল গেলে বিচার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ফিলিস্তিনে জরুরি সহায়তা যাচ্ছে আজ
গাজা পুনর্নির্মাণে ওয়াশিংটন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন

শেয়ার করুন

ভারতে ইলিশ না পাঠানো নিয়ে মোমেন যা বললেন

ভারতে ইলিশ না পাঠানো নিয়ে মোমেন যা বললেন

ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘এমন সরলীকরণ করাটাও ঠিক হবে না যে, প্রতিশ্রুত টিকা পাঠানো হয়নি বলেই ইলিশ রপ্তানি বন্ধ থাকল। কিন্তু এটাও ঠিক, দুই পক্ষের সম্পর্ক এতটাই আড়ষ্ট হয়ে গিয়েছে, ইলিশ-কূটনীতির আবহাওয়াটাই আর নেই।’

দিল্লি টিকা দিচ্ছে না বলে বাংলাদেশ ইলিশ পাঠাচ্ছে না– ভারতীয় গণমাধ্যমে এমন খবরে মুখ খুললেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, ‘আমরা এত নিচু মানসিকতার নই।’

মঙ্গলবার কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়, দিল্লি টিকা দিচ্ছে না বলে বাংলাদেশ ইলিশ পাঠাচ্ছে না।

মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ব্রিফিংয়ের সময় সাংবাদিকেরা এ বিষয়টি তার নজরে আনেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন তখন এক বাক্যের এ মন্তব্য করেন।

ভারতে বেশ কয়েক বছর ধরে আনুষ্ঠানিকভাবে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ রেখেছে বাংলাদেশ।

কোভিড টিকা পাঠায়নি দিল্লি, ইলিশও আসছে না ঢাকা থেকে, প্রশ্নের মুখে মোদির ‘সোনালি অধ্যায়' শিরোনামে প্রকাশিত আনন্দবাজার পত্রিকার ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, 'প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও তার বিদেশ মন্ত্রকের বহু বিজ্ঞাপিত ‘ভারত-বাংলাদেশ সোনালি অধ্যায়’-এর রং এই মুহূর্তে যথেষ্ট ফিকে। বাংলাদেশের প্রায় ১৬ লাখ মানুষ ভারতীয় করোনা প্রতিষেধকের প্রথম ডোজ নিয়ে বসে রয়েছেন। সময় পেরিয়ে গিয়েছে। ভারত জানাচ্ছে, আপাতত ভ্যাকসিনের আর একটি ডোজও পাঠানো সম্ভব নয়। ঢাকা সূত্রের বক্তব্য, বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ আর চাপা থাকছে না সে দেশে। যার সরাসরি প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে বাঙালির প্রিয় মাছ ইলিশ প্রসঙ্গে।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ‘দীর্ঘদিন ধরেই ভারতে ইলিশ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে বাংলাদেশের। তা সত্ত্বেও গত বছর জামাইষষ্ঠীর সময়ে পশ্চিমবঙ্গে দুই হাজার টন ইলিশ রপ্তানিতে ছাড়পত্র দিয়েছিল হাসিনা সরকার। কিন্তু এ বছর পশ্চিমবঙ্গের পাতে পড়েনি পদ্মার ইলিশ।’

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ‘এমন সরলীকরণ করাটাও ঠিক হবে না যে, প্রতিশ্রুত টিকা পাঠানো হয়নি বলেই ইলিশ রপ্তানি বন্ধ থাকল। কিন্তু এটাও ঠিক, দুই পক্ষের সম্পর্ক এতটাই আড়ষ্ট হয়ে গিয়েছে, ইলিশ-কূটনীতির আবহাওয়াটাই আর নেই।’

প্রসঙ্গত, ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্কের ওঠা-পড়ায় ইলিশ এক কূটনৈতিক প্রতীকও বটে। এর আগে স্থলসীমান্ত চুক্তি সই করতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন ঢাকায় গিয়েছিলেন, ইলিশ নিয়ে কিছুটা রসিকতার ঢঙে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা হয়েছিল তার। ভোজের তালিকায় ইলিশের পঞ্চপদ দেখে মমতা হাসিনাকে প্রশ্ন করেছিলেন, কেন তারা ইলিশ আটকে রেখেছেন? হাসিনার জবাব ছিল, ‘তিস্তার পানি এলেই মাছ সাঁতার কেটে চলে যাবে ওপারে!'

আরও পড়ুন:
গাজায় ইসরায়েলের হামলা যুদ্ধাপরাধ হতে পারে: জাতিসংঘ
ত্রাণের অর্থে ‘হাত দেবে না’ হামাস
কেউ ইসরায়েল গেলে বিচার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ফিলিস্তিনে জরুরি সহায়তা যাচ্ছে আজ
গাজা পুনর্নির্মাণে ওয়াশিংটন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন

শেয়ার করুন

এবার বন্ধ রেল

এবার বন্ধ রেল

বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক সরদার শাহদাত হোসেন জানান, ঢাকার সঙ্গে রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকবে ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত। এরপর সরকারের সিদ্ধান্তের আলোকে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এই সিদ্ধান্তের আগে যারা অগ্রিম ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কেটেছেন, তারা টিকিট ফেরত দিতে পারবেন।

করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ঢাকাকে সারা দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন রাখতে পার্শ্ববর্তী কয়েকটি জেলায় কঠোর লকডাউনের পর এবার রাজধানীর সঙ্গে সব ধরনের রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

রাত ১২টা থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে বলে মঙ্গলবার রেল মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক সরদার শাহদাত হোসেন বলেন, ‘এ সিদ্ধান্ত ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। এরপর সরকারের সিদ্ধান্তের আলোকে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

সরকারের এই সিদ্ধান্তের আগে যারা অগ্রিম ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কেটেছেন, তারা টিকিট ফেরত দিতে পারবেন বলেও জানিয়েছেন সরদার শাহদাত হোসেন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ঢাকাকে বিচ্ছিন্ন করতে পার্শ্ববর্তী ৪ জেলাসহ ৭ জেলায় ৯ দিনের কঠোর লকডাউন আরোপ করা হলেও অন্যান্য জেলার সঙ্গে রাজধানীর রেল যোগাযোগ অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সরকার। পরদিনই সে সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসলো রেল মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার সকালে রেল মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছিল গাজীপুরে চলাচলরত তুরাগ এক্সপ্রেস ও কালিয়াকৈর কমিউটার ট্রেন মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত সময়ের জন্য বাতিল করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তি আরও বলা হয়েছিল গাজীপুরের মধ্যে অবস্থিত সকল স্টপেজ লকডাউন থাকা পর্যন্ত বাতিল থাকবে, থামবে না কোনো আন্তঃনগর ট্রেন। গোপালগঞ্জ-রাজশাহীর মধ্যে চলাচলকারী টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস, খুলনা-রাজবাড়ীর মধ্যে চলাচলকারী নকশীকাঁথা এক্সপ্রেস ও রাজবাড়ী-ভাঙ্গা-রাজবাড়ীর মধ্যে চলাচলকারী রাজবাড়ী এক্সপ্রেস বাতিল করা হয়েছে।

এ ছাড়া খুলনাগামী চলাচলকারী সকল যাত্রীবাহী ট্রেন যশোর পর্যন্ত চলাচল করবে। এ সিদ্ধান্ত ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত অথবা সংশ্লিষ্ট জেলায় লকডাউন থাকা পর্যন্ত কার্যকর থাকবে বলে জানিয়েছিল রেল মন্ত্রণালয়।

সন্ধ্যায় এসে সেসব সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে ঢাকার সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্নের সিদ্ধান্ত জানায় রেল মন্ত্রণালয়।

সচিবালয়ে সোমবার দুপুরে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জরুরি বৈঠকে ঢাকাতে করোনা রুখতে সারাদেশের সঙ্গে রাজধানীকে বিচ্ছিন্নের সিদ্ধান্ত হয়। কঠোর লকডাউন আরোপ করা হয় নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, রাজবাড়ীতে, যা চলবে ৩০ জুন পর্যন্ত।

আরও পড়ুন:
গাজায় ইসরায়েলের হামলা যুদ্ধাপরাধ হতে পারে: জাতিসংঘ
ত্রাণের অর্থে ‘হাত দেবে না’ হামাস
কেউ ইসরায়েল গেলে বিচার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ফিলিস্তিনে জরুরি সহায়তা যাচ্ছে আজ
গাজা পুনর্নির্মাণে ওয়াশিংটন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন

শেয়ার করুন