৩ নম্বর সতর্ক সংকেত

৩ নম্বর সতর্ক সংকেত

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে উত্তাল সমুদ্র। ছবি: ফোকাস বাংলা

আবহাওয়াবিদ জানান, ঘণ্টায় আট থেকে দশ কিলোমিটার গতিতে এগোচ্ছে ‘ইয়াস’। এটি বুধবার সকালের পরিবর্তে দুপুর নাগাদ উত্তর ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ উপকূল অতিক্রম করতে পারে। আমাদের উপকূলে আঘাত হানার আশঙ্কা নেই।

উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও সংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হচ্ছে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে দূরত্ব কমে আসায় সমুদ্রবন্দরগুলোতে বাড়ানো হয়েছে সতর্ক সংকেত।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত নামিয়ে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

৩ নম্বর সতর্ক সংকেতে বলা হয়েছে, বন্দর ও বন্দরে নোঙর করা জাহাজগুলোর দুর্যোগকবলিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বন্দরে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। ঘূর্ণি বাতাসের একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় ৪০-৫০ কিলোমিটার হতে পারে।

আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান বলেন, ‘এখন ঝড়ের যে গতিপথ, তাতে এটির আমাদের উপকূলে আঘাত হানার আশঙ্কা নেই। তবে এর প্রভাব পড়বে। ঘণ্টায় আট থেকে দশ কিলোমিটার গতিতে এগোচ্ছে ইয়াস। তবে এটি বুধবার সকালের পরিবর্তে দুপুর নাগাদ উত্তর ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

ইয়াসের অবস্থান নিয়ে তিনি বলেন, উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ আরো উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে বর্তমানে একই এলাকায় (১৯.০° উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৮.০° পূর্ব দ্রাঘিমাংশ) অবস্থান করছে।

এটি মঙ্গলবার বেলা ৩টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৫৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৫২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪২৫ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪২০ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল।

প্রবল ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৮৯ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়ার আকারে ১১৭ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ধীরে ধীরে এটি সুপার সাইক্লোনে পরিণত হচ্ছে।

আবহাওয়ার বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঘূর্ণিঝড় অতিক্রমকালে খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, ভোলা, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, চট্টগ্রাম জেলাসমূহ এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণসহ ঘণ্টায় ৮০-১০০ কিলোমিটার বেগে দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

পূর্ণিমার প্রভাবে খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, ভোলা, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর ও চট্টগ্রাম জেলাসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ২-৪ ফুট অধিক উচ্চতার জোয়ারে প্লাবিত হতে পারে।

আরও পড়ুন:
‘ইয়াস’-এর পূর্ণিমাযোগে উপকূলে প্লাবন
ইয়াসে উত্তাল সমুদ্র, প্লাবিত উপকূল
প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিল ‘ইয়াস’
ঘূর্ণিঝড় ইয়াস: ঝুঁকি নেবেন না মমতা
‘ইয়াস’: ভঙ্গুর বেড়িবাঁধে আতঙ্কে উপকূলবাসী

শেয়ার করুন

মন্তব্য