করোনা: ভারত সীমান্তে বিজিবির রেড অ্যালার্ট

করোনা: ভারত সীমান্তে বিজিবির রেড অ্যালার্ট

লে. কর্নেল মোজাম্মেল বলেন, বুড়িমারী সীমান্তের ওপারে ভারতের চ্যাংরাবান্ধা ও বিএসবাড়ী বিএসএফ ক্যাম্পের দুই সদস্য শ্বাসকষ্টজনিত কারণে গত শুক্রবার মারা গেছেন। এ খবর পাওয়ার পর সীমান্তে রেড অ্যালার্ট জারির সিদ্ধান্ত হয়।

ভারতে ব্যাপক করোনা সংক্রমণের কারণে লালমনিরহাটের বুড়িমারী ও দহগ্রাম সীমান্ত দিয়ে অবৈধ প্রবেশ ঠেকাতে রেড অ্যালার্ট জারি করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

নিউজবাংলাকে রোববার সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিজিবির ৬১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোজাম্মেল।

তিনি বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যা থেকেই সীমান্তে বিজিবি সদস্যরা সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন।

করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে ব্যাপক সংক্রমণে পর্যদুস্ত ভারত। দেশটিতে টানা ৯ দিন ধরে ৩ লাখের বেশি মানুষের দেহে এ ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

শুক্রবার আগের সব রেকর্ড ভেঙে দৈনিক সংক্রমণ ৪ লাখ ছাড়িয়ে যায়। শনাক্তের পাশাপাশি পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর দিক দিয়ে কয়েক দিনে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলকে পেছনে ফেলেছে ভারত।

লে. কর্নেল মোজাম্মেল বলেন, বুড়িমারী সীমান্তের ওপারে ভারতের চ্যাংরাবান্ধা ও বিএসবাড়ী বিএসএফ ক্যাম্পের দুই সদস্য শ্বাসকষ্টজনিত কারণে গত শুক্রবার মারা গেছেন। এ খবর পাওয়ার পর সীমান্তে রেড অ্যালার্ট জারির সিদ্ধান্ত হয়।

সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি থাকার ওপর শনিবার এক ভার্চুয়াল মিটিংয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক আবু জাফর। রোববার সন্ধ্যায় তিনি নিউজবাংলাকে এ কথা বলেন।

বুড়িমাড়ীর পানবাড়ি কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার নজরুল ইসলাম বলেন, তিনি শনিবার সন্ধ্যায় তিনবিঘা করিডোরে জনসাধারণকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

তিনি জানান, দহগ্রাম ইউনিয়ন কাঁটাতারবিহীন সীমান্ত। ভারতীয় কোনো নাগরিক যেন সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে ঢুকতে না পারে সেজন্য সবাইকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, গত এক সপ্তাহে দহগ্রাম ও পানবাড়ি চেকপোস্টে ১১ জন বাংলাদেশিকে আটক করে পাটগ্রাম থানায় দেয়া হয়েছে। ভারত থেকে দহগ্রাম হয়ে নিজ বাড়ি ফেরার সময় তারা বিজিবির হাতে আটক হন।

কমান্ডার সুবেদার নজরুল বলেন, মাস্ক ছাড়া কাউকে তিনবিঘা করিডোর পার হতে দিচ্ছে না বিজিবি-বিএসফ।

পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুর রহমান নিউজবাংলাকে জানান, ২৬ এপ্রিল থেকে ৯ মে পর্যন্ত বুড়িমারী ইমিগ্রেশন হয়ে ভারত থেকে বাংলাদেশে এসেছেন ১৬২ জন। এর মধ্যে ৭৭ জনকে বিভিন্ন হাসপাতালে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

তবে বুড়িমারী ছাড়া অন্য কোনো সীমান্তে রেড অ্যালার্ট জারির তথ্য পাওয়া যায়নি। সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, সীমান্তপথে চলাচল বন্ধ আছে। তবে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়নি।

আরও পড়ুন:
জৈন্তাপুরে খাসিয়ার গুলিতে বাংলাদেশি নিহত
গরু রাখতে প্রতিদিন ব্যয় ৪৪৩ টাকা!
ময়নাবিবির ছাগল নিয়ে বিজিবি-বিএসএফ বৈঠক
সীমান্তে প্রবেশ নিয়ন্ত্রণের সুপারিশ জাতীয় কমিটির
দৌলতপুর সীমান্তে গুলিবিদ্ধ যুবক

শেয়ার করুন

মন্তব্য