রাস্তার ময়লা ফেলা হলো অ্যাপার্টমেন্টের ফটকে

রাস্তার ময়লা ফেলা হলো অ্যাপার্টমেন্টের ফটকে

রাস্তায় ফেলে দেয়া ময়লা ফেলা হচ্ছে সরকারি কর্মকর্তাদের অ্যাপাটমেন্টের ফটকের সামনে

মেয়র আতিক বলেন, ‘এই আবাসনে ৬৫০টির বেশি ফ্ল্যাট আছে। যারা এই ভবনটা করেছেন তারা একবারও চিন্তা করেননি যে, এসব ফ্ল্যাটের বাসিন্দারা ময়লাটা কোথায় ফেলবেন? ওনারা ময়লাটা রাস্তায় ফেলে দিয়েছেন। সরকারি কর্মকর্তারা রাস্তায় ময়লা ফেললে বাকিরা কী করবেন?

নিষেধ থাকা সত্ত্বেও রাস্তায় ময়লা ফেলায় শাস্তিস্বরূপ উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলামের নির্দেশে সেই ময়লা তুলে নিয়ে সরকারি কর্মকর্তাদের অ্যাপার্টমেন্টের ফটকের সামনে ফেলা হয়েছে। সোমবার সকালে রাজধানীর মিরপুরে এ ঘটনা ঘটেছে।

সকালে মশক নিধন কার্যক্রম পরিদর্শন করতে রাজধানীর মিরপুরের ৬ নম্বর সেকশনের রাস্তা ধরে যাচ্ছিলেন মেয়র আতিকসহ উত্তর সিটি করপোরেশনের অন্য কর্মকর্তারা।

এ সময় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষের নির্মাণ করা ‘সরকারি কর্মকর্তা আবাসন প্রকল্প’-এর সামনের সড়কে ময়লার স্তূপ দেখে গাড়ি থেকে নামেন তিনি। এ সবই সরকারি কর্মকর্তাদের আবাসনের গৃহস্থালির বর্জ্য। এরপর ওই বর্জ্য সরকারি কর্মকর্তাদের আবাসনের ফটকের সামনে রাখার নির্দেশ দেন। মেয়রের নির্দেশ অনুযায়ী ময়লা অপসারণ যন্ত্রের সাহায্যে সব ময়লা সরকারি আবাসনের গেটের সামনের ফাঁকা জায়গায় ফেলেন সিটি করপোরেশনের কর্মীরা।

এ বিষয়ে মেয়র আতিক সাংবাদিকদের বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে আগেও তাদের বলা হয়েছিল রাস্তায় এভাবে ময়লা না ফেলতে। আমি তাদের আগে বলেছিলাম ভেতরে ময়লা ফেলার জায়গা করে দিতে, ওনারা বলেছেন ভেতরে গন্ধ হবে। ভেতরে গন্ধ হবে আর রাস্তার ওপরে ফেলে দিলে এটা তো হাজার হাজার জনগণ গন্ধ পাবে।

‘তাই আমি তাদের একটা বার্তা দিতে চাই যে আপনারা দ্রুত সবার সঙ্গে আলাপ করে একটা জায়গা দিন আমি এসটিএস করে দেব। এসটিএসের জন্য টাকা চাচ্ছি না। আমরা নিজের খরচে এসটিএস করে দেব।’

মেয়র আতিক আরও বলেন, ‘এই আবাসনের আওতায় ৬৫০টির বেশি ফ্ল্যাট আছে। যারা এই ভবনটা করেছেন তারা একবারও চিন্তা করেননি যে, এসব ফ্ল্যাটের বাসিন্দারা ময়লাটা কোথায় ফেলবেন? ওনারা ময়লাটা রাস্তায় ফেলে দিয়েছেন। সরকারি কর্মকর্তারা রাস্তায় ময়লা ফেললে বাকিরা কী করবেন?

‘তাই বলেছি রাস্তার ময়লাটা পরিষ্কার করে ওনাদের গেটের সামনে যে সুন্দর জায়গা আছে সেখানে ফেলে দিতে।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য