সুপ্রিম কোর্ট বার নির্বাচনে ১৪ পদে লড়ছেন ৫১ প্রার্থী

সুপ্রিম কোর্ট বার নির্বাচনে ১৪ পদে লড়ছেন ৫১ প্রার্থী

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচনের আগে প্রার্থী পরিচিতি অনুষ্ঠান। ছবি: নিউজবাংলা

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২১-২২ বছরের নির্বাচনে ১০ ও ১১ মার্চ ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে ৭ হাজার ৭২২ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পাবেন।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি (সুপ্রিম কোর্ট বার) নির্বাচনের সময় ঘনিয়ে এসেছে। প্রচারও উঠেছে জমে। নির্বাচনে ১৪টি পদের বিপরীতে ৫১ জন প্রার্থী হয়েছেন।

রোববার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনে প্রার্থী পরিচিতি হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২১-২২ বছরের নির্বাচনে ১০ ও ১১ মার্চ ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে ৭ হাজার ৭২২ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পাবেন।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচন নির্দলীয় হলেও অঘোষিতভাবে এবারও সরকারে থাকা আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত আইনজীবীদের দুটি আলাদা প্যানেল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। দুই দলের সমর্থকদের মধ্য থেকে বিদ্রোহী প্রার্থীও হয়েছেন অনেকেই।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আইনজীবীদের সংগঠন বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ থেকে সভাপতি পদে সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরু এবং সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট আবদুল আলীম মিয়া জুয়েলকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

বিএনপি সমর্থিত আইনজীবীদের সংগঠন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের (নীল প্যানেল) সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমানকে সভাপতি এবং সম্পাদক পদে বারের বর্তমান সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল পেয়েছেন মনোনয়ন।

এটি ছাড়াও বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের মধ্যে আরেকটি প্যানেলে সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট ওয়ালিউর রহমান খান এবং সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট মির্জা আল মাহমুদ নির্বাচন করছেন।

এ ছাড়া লাল প্যানেল নামে আরেকটি প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছে। ওই প্যানেলে সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট কে এম জাবির ও সম্পাদক পদে গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর বাইরেও সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট ইউনুস আলী আকন্দ স্বতন্ত্রভাবে প্রার্থী হয়েছেন।

নির্বাচনের প্যানেল পরিচিতি অনুষ্ঠানে আওয়ামী সমর্থিত সাদা প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী আবদুল মতিন খসরু বলেন, ‘আপনারা যদি আমাকে একটা ভোট দেন। আমি চেষ্টা করব কিছু করতে। আইনজীবী ভবনসহ আইনজীবীদের জন্য সার্বিক উন্নয়নে কাজ করে যাব। আইনজীবীদের জন্য জায়গা সংকট হচ্ছে সেটি দূর করতে চেষ্টা করব।’

সুপ্রিম কোর্ট বার নির্বাচনে ১৪ পদে লড়ছেন ৫১ প্রার্থী
প্রার্থী পরিচিতি অনুষ্ঠানে আইনজীবীদের ভিড়। ছবি: নিউজবাংলা

বিএনপি সমর্থিত সভাপতি প্রার্থী অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান বলেন, ‘এ দেশে টাকাপয়সা ক্ষমতাই শেষ কথা নয়। শেষ কথা হলো আইন, মানবাধিকার, আইনের শাসন ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা। এ লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাব। আপনারা আমাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় কাজ করতে সহায়তা করবেন।’

সম্পাদক পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী অ্যাডভোকেট আবদুল আলীম মিয়া জুয়েল বলেন, ‘নবীন আইনজীবীরা এই বারের ভবিষ্যৎ। এই বার থেকেই দেশের বড় বড় আইনজীবী হয়েছেন, বিখ্যাত হয়েছেন। আইনজীবীদের বসার জায়গা সংকট নিরসনে কাজ করে যাব। আমি যদি নির্বাচিত হই, তাহলে আইনজীবীদের যে প্রধান সমস্যা জায়গা সংকট এবং উচ্চ আদালতের নিয়মিত বেঞ্চ চালু করার উদ্যোগ নেব।’

অন্যদিকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের মনোনীত সম্পাদক প্রার্থী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল গত বছরে তার উন্নয়নের বিষয়টি তুলে ধরে বলেন, ‘আগামীতেও যদি তিনি নির্বাচিত হন তাহলে উন্নয়নের সে ধারা অব্যাহত রাখব।’

আইনজীবীদের বহুতল ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান।

আওয়ামী সমর্থিত সাদা প্যানেল

বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ থেকে (সাদা প্যানেল) এ বছর নির্বাচনে সভাপতি পদে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু, সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট আবদুল আলীম মিয়া জুয়েল প্রার্থী হয়েছেন। এ প্যানেলের অন্য প্রার্থীরা হলেন সহসভাপতি পদে অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ শফিক উল্ল্যা ও অ্যাডভোকেট আলী আজম, কোষাধ্যক্ষ ইকবাল করিম, সহসম্পাদক ব্যারিস্টার সাফায়েত সুলতানা রুমি ও অ্যাডভোকেট নুরে আলম উজ্জ্বল। সদস্য পদে অ্যাডভোকেট মিন্টু কুমার মণ্ডল, ব্যারিস্টার মুনতাসীর উদ্দিন আহমেদ, ব্যারিস্টার সানোয়ার হোসেন, অ্যাডভোকেট এবিএম শিবলী সালেকীন, অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক, অ্যাডভোকেট মহিউদ্দিন আহমেদ, অ্যাডভোকেট মাহফুজুর রহমান রোমান।

বিএনপি সমর্থিত নীল প্যানেল

বিএনপি সমর্থিত নীল প্যানেল থেকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমানকে সভাপতি এবং সম্পাদক পদে ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল প্রার্থী হয়েছেন।

এ ছাড়া দুটি সহসভাপতি পদে জয়নাল আবেদিন তুহিন ও জালাল আহমেদ, দুটি সহ-সম্পাদক পদে মাহমুদ হাসান ও রাশিদা আলম ঐশী, কোষাধ্যক্ষ আব্দুল্লাহ আল মাহবুব এবং সাতটি সদস্য পদে মনজুরুল আলম সুজন, শফিকুল ইসলাম শফিক, গোলাম মোহাম্মদ জাকির, পারভীন কাওসার মুন্নি, রেদওয়ান আহমেদ রানজিব, নিয়াজ মুহাম্মদ মাহবুব ও ইফতেখার আহমেদ প্রার্থী হয়েছেন।

অন্যান্য

এর বাইরে বিএনপি সমর্থিত আইনজীবীদের মধ্য থেকে বিদ্রোহী হয়ে প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছে। এ প্যানেলে সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট ওয়ালিউর রহমান খান এবং সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট মির্জা আল মাহমুদ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ ছাড়া সহসভাপতি অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা এবং অ্যাডভোকেট সাবিনা ইয়াসমিন লিপি, কোষাধ্যক্ষ অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান সম্রাট, সহসম্পাদক অ্যাডভোকেট জুলফিকার আলী জুনু এবং অ্যাডভোকেট মো. সুলতান মাহমুদ। প্যানেলের সদস্য পদে প্রার্থী হয়েছেন অ্যাডভোকেট শাফিউর রহমান শাফি, মুনির হোসেন, অ্যাডভোকেট একেএম মুক্তার হোসেন, অ্যাডভোকেট মহিত উদ্দিন জুবায়ের, আকবর হোসেন, ওয়ালিউর রহমান শুভ ও নাজমুল হাসান।

সব ছাড়িয়ে এবার রেড প্যানেল নামে ভিন্ন আরেকটি প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছে।

এ প্যানেলে সভাপতি পদে কে এম জাবির, সম্পাদক পদে গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, সহসভাপতি পদে নজরুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ পদে বদিউজ্জামান তপাদার, সহসম্পাদক পদে সাজ্জাদ হোসেন, সদস্য পদে শহিদুল হক, এস কে এম আনিসুর রহমান খান, জহিরুল আলম বাবর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

নির্বাচনে এবারও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ড. ইউনুছ আলী আকন্দ।

আরও পড়ুন:
সেই পাঁচ কেন্দ্রের পরীক্ষা আবার নেবে বার কাউন্সিল
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় ভাঙচুরে সিলেটের সেই কাউন্সিলর
বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় ভাঙচুর, ২৪ জন রিমান্ডে
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় হাঙ্গামা: কী হবে পরীক্ষার্থীদের
বার কাউন্সিল পরীক্ষাবঞ্চিতরা ফের সুযোগ পেতে পারেন

শেয়ার করুন

মন্তব্য

প্রতি উপজেলায় ফায়ার স্টেশনের কাজ শেষ পর্যায়ে

প্রতি উপজেলায় ফায়ার স্টেশনের কাজ শেষ পর্যায়ে

ফায়ার সার্ভিস ট্রেনিং কমপ্লেক্সে ৪১তম ব্যাচের অফিসার্স ফাউন্ডেশন কোর্সের সমাপনী কুচকাওয়াজ। ছবি: নিউজবাংলা

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের প্রতিটি উপজেলায় ন্যূনতম একটি করে ফায়ার স্টেশন স্থাপনের কাজ এখন শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আমাদের ক্ষমতা গ্রহণের আগে দেশে ফায়ার স্টেশন ছিল মাত্র ২০৪টি। এখন সারা দেশে চালু ফায়ার স্টেশন ৪৫৬টি। চলমান প্রকল্পগুলো শেষ হলে ফায়ার স্টেশনের সংখ্যা হবে ৫৬৫টি এবং জনবলের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়াবে ১৬ হাজার।’

দেশে অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা আরও শক্তিশালী করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। বলেছেন, দেশের প্রতিটি উপজেলায় অন্তত একটি করে ফায়ার স্টেশন নির্মাণের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে।

রাজধানীর মিরপুর ফায়ার সার্ভিস ট্রেনিং কমপ্লেক্সে ৪১তম ব্যাচের অফিসার্স ফাউন্ডেশন কোর্সের সমাপনী কুচকাওয়াজে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘দেশের প্রতিটি উপজেলায় ন্যূনতম একটি করে ফায়ার স্টেশন স্থাপনের কাজ এখন শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আমাদের ক্ষমতা গ্রহণের আগে দেশে ফায়ার স্টেশন ছিল মাত্র ২০৪টি। এখন সারা দেশে চালু ফায়ার স্টেশন ৪৫৬টি। চলমান প্রকল্পগুলো শেষ হলে ফায়ার স্টেশনের সংখ্যা হবে ৫৬৫টি এবং জনবলের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়াবে ১৬ হাজার।

‘আমরা প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন অনুযায়ী এই জনবলকে ২৫ হাজারে উন্নীত করার জন্য ফায়ার সার্ভিসের সাংগঠনিক কাঠামো পুনর্গঠনের কাজ শুরু করেছি। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এখন আর আগের দমকল বাহিনী নয়। আমরা ফায়ার সার্ভিসকে সকল দিক থেকে সমৃদ্ধ করার মাধ্যমে এর সক্ষমতা বৃদ্ধি করেছি। প্রতিষ্ঠানটি এখন বহুমাতৃক সেবাকাজে নিয়োজিত।’

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরকে ঢেলে সাজানোর জন্য নানা কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। বলেন, ‘সারা বিশ্বে প্রতিনিয়ত দুর্যোগ-দুর্ঘটনার চিত্র পরিবর্তিত হচ্ছে। বাংলাদেশও তার ব্যতিক্রম নয়। দুর্ঘটনাগুলো আমাদের সামনে নতুন নতুন চরিত্রে আবির্ভূত হচ্ছে; আবার নতুন নতুন দুর্ঘটনাও যোগ হচ্ছে আমাদের জীবনে। প্রকৃতিগতভাবে দুর্যোগপ্রবণ এই দেশে আপনাদের সবসময় দুর্যোগ প্রশমনের জন্য যেমন কাজ করতে হবে; তেমনি উদ্ভাবনী বিবেচনা শক্তি দিয়ে সংঘটিত দুর্ঘটনার ক্ষয়ক্ষতিও সীমিত রাখতে হবে।

‘আমি আশা করব, ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা প্রশিক্ষনলব্ধ জ্ঞানকে ধরে রাখবেন এবং নিয়মিত চর্চার মাধ্যমে তা আরও শাণিত করবেন। আরেকটি বিষয় সব সময় মনে রাখতে হবে, এটি একটি ইউনিফর্মধারী সুশৃঙ্খল বিভাগ। প্রতিটি ক্ষেত্রে আপনাদেরকে শৃঙ্খলার মান বজায় রাখতে হবে।’

সবসময় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আদেশ-নির্দেশ মেনে চলতে হবে জানিয়ে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘আমি আশা করি, আগামী দিনে আপনারাই হবেন ফায়ার সার্ভিসের মূল চালিকা শক্তি। সুন্দর মন-মানসিকতা এবং শৃঙ্খলাপূর্ণ আচরণ দিয়ে এই বিভাগের সুনাম ও মর্যাদা বৃদ্ধিতে আপনারা অগ্রণী ভূমিকা পালন করবেন বলে আমি আশা করছি।’

ফায়ার অ্যাকাডেমি নির্মাণের জন্য মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ায় ১০০ একর জায়গা নেয়া হয়েছে বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এই বাহিনীর সদস্যদের সুযোগ-সুবিধাও অনেক বৃদ্ধি করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ঝুঁকিভাতা প্রদান, পূর্ণাঙ্গ রেশন ইউনিট চালু, ৩ রঙের মর্যাদাপূর্ণ কমব্যাট পোশাক প্রবর্তন, রাষ্ট্রীয় পদক সংখ্যা ও সম্মানি বৃদ্ধি এবং ফায়ারফাইটার ও অফিসারসহ পাঁচটি পদের বেতন গ্রেড বৃদ্ধি করা হয়েছে। কাজের সক্ষমতা ও সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর এই প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখার মাধ্যমে এই বাহিনীকে বিশ্বমানের একটি সেবা বাহিনীতে পরিণত করা হবে।

ফায়ার সার্ভিস জানায়, বিসিএস নন-ক্যাডারের সুপারিশ অনুযায়ী ফায়ার সার্ভিস অধিদপ্তরের যোগ দেয়া স্টেশন অফিসারসহ মোট ৪৪ জন অফিসারের প্রশিক্ষণ সমাপ্তি শেষে তাদের পদায়নের আগে এই সমাপনী কুচকাওয়াজ হয়।

দীর্ঘ ১১ মাসের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের সকল দুর্যোগে নেতৃত্ব প্রদানের জন্য যোগ্য করে গড়ে তোলা হয়েছে বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

সমাপনী অনুষ্ঠানে ৪৪ জন অফিসারের মধ্য থেকে শারীরিক যোগ্যতা, বুদ্ধিমত্তা, শিষ্টাচার, শৃঙ্খলা, আচার-ব্যবহার, লিখিত পরীক্ষা, ব্যবহারিক পরীক্ষা এবং মৌখিক পরীক্ষাসহ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর দক্ষতার ভিত্তিতে তিনজনকে চৌকস নির্বাচিত করা হয়। চৌকস অফিসারদের পদক পরিয়ে দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের মহাপরিচালক (ডিজি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সাজ্জাদ হোসাইন।

অনুষ্ঠানে প্যারেড কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করেন অধিদপ্তরের উপ সহকারী পরিচলক মো. আনোয়ারুল হক। প্যারেড অ্যাডজুটেন্ট ছিলেন ওয়ারহাউজ ইন্সপেক্টর মো. নাজিম উদ্দিন সরকার।

এসময় পতাকাবাহী দলের নেতৃত্ব দেন জুনিয়র ইন্সট্রাক্টর মো. শামীম আহম্মেদ, প্রথম কনটিনজেন্টের নেতৃত্ব দেন প্যারেড অ্যাডজুটেন্ট এবং দ্বিতীয় কনটিনজেন্টটির নেতৃত্ব দেন স্টেশন অফিসার মো. জিল্লুর রহমান।

আরও পড়ুন:
সেই পাঁচ কেন্দ্রের পরীক্ষা আবার নেবে বার কাউন্সিল
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় ভাঙচুরে সিলেটের সেই কাউন্সিলর
বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় ভাঙচুর, ২৪ জন রিমান্ডে
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় হাঙ্গামা: কী হবে পরীক্ষার্থীদের
বার কাউন্সিল পরীক্ষাবঞ্চিতরা ফের সুযোগ পেতে পারেন

শেয়ার করুন

‘গুলাব’ এর কারণে বাড়ল সতর্কতা সংকেত

‘গুলাব’ এর কারণে বাড়ল সতর্কতা সংকেত

ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ বাংলাদেশে আঘাত হানার আশঙ্কা করছে না আবহাওয়া অধিদপ্তর। ফাইল ছবি

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বাংলাদেশে গুলাবের আঘাতের সম্ভাবনা খুবই কম। তবে উপকূলে ২ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখানো হয়েছে।’

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ থেকে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হওয়া ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ এর কারণে দেশের উপকূল অঞ্চলে সতর্কতা সংকেত বাড়ানো হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বাংলাদেশে গুলাবের আঘাতের আশঙ্কা খুবই কম। তবে উপকূলে ২ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখানো হয়েছে।’

আবহাওয়া অধিদপ্তরের সামুদ্রিক সতর্কবার্তায় বলা হয়, ঘূর্ণিঝড়টি আজ সকাল ৬টার দিকে পশ্চিম দিকে আরও খানিকটা অগ্রসর হয়ে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এবং এর কাছাকাছি পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থান করছে।

আগে ‘গুলাব’ চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৬৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫২৫ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৩০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল। এটি আরও পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে বলে জানিয়েছে সূত্রটি।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়া আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর কেন্দ্রের কাছে সাগর এখন খুবই উত্তাল রয়েছে।

সতর্কবার্তায় বলা হয়, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা এবং পায়রা সমুদ্রবন্দরগুলোকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখানো হয়েছে।

একই সঙ্গে, উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাঝিদের মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার নিয়ে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। গভীর সাগরে তাদের বিচরণ করতে নিষেধ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সেই পাঁচ কেন্দ্রের পরীক্ষা আবার নেবে বার কাউন্সিল
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় ভাঙচুরে সিলেটের সেই কাউন্সিলর
বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় ভাঙচুর, ২৪ জন রিমান্ডে
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় হাঙ্গামা: কী হবে পরীক্ষার্থীদের
বার কাউন্সিল পরীক্ষাবঞ্চিতরা ফের সুযোগ পেতে পারেন

শেয়ার করুন

বিআরআইসিএস জোটের নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে বাংলাদেশ

বিআরআইসিএস জোটের নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে বাংলাদেশ

১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখে ব্যাংকটিতে বাংলাদেশের যোগদান নিশ্চিত হয়। এ সদস্যপদ বাংলাদেশকে নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদে ভোট দেয়ার ক্ষমতা প্রদান করবে।

ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন ও দক্ষিণ আফ্রিকার সমন্বয়ে গঠিত বিআরআইসিএস জোটের নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে যোগ দিয়েছে বাংলাদেশ।

নিউইয়র্ক বাংলাদেশ মিশন থেকে শনিবার রাতে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়। এটিকে সময়োপযোগী অর্জন হিসেবে উল্লেখ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এক বার্তায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটি আমাদের জন্য বৈদেশিক অর্থায়নের একটি নতুন ক্ষেত্র উন্মোচিত করবে। যা আমাদের উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনে সহায়ক ভূমিকা রাখবে।’

গত ১৬ সেপ্টেম্বর ব্যাংকটিতে বাংলাদেশের যোগদান নিশ্চিত হয়। এ সদস্যপদ বাংলাদেশকে নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদে ভোট দেয়ার ক্ষমতা দেবে।

২০১৫ সালে স্থাপিত এ ব্যাংকে বিআরআইসিএস জোটের বাইরে বাংলাদেশই প্রথম সদস্যপদ লাভ করল। এর ফলে বিশ্বব্যাংক, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক, এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক এবং ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের পাশাপাশি আরও একটি বহুজাতিক ব্যাংকে বাংলাদেশের সদস্যপদ নিশ্চিত হলো।

বাংলাদেশের চলমান অর্থনৈতিক উন্নয়নের গতি ধরে রাখার পাশাপাশি টেকসই উন্নয়ন অভীষ্টসমূহ ২০৩০ সালের মধ্যে অর্জন এবং বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে একটি সুখী-সমৃদ্ধ-উন্নত দেশে পরিণত করতে বৈদেশিক অর্থায়ন নিশ্চিত করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মেধাভিত্তিক উন্নত দেশে পরিণত করতে বহির্বিশ্বের সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বহুগুণে বাড়ানো প্রয়োজন। একই সঙ্গে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবকাঠামোতে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ ও অংশীদারত্ব নিশ্চিত করা প্রয়োজন। কোভিড-১৯ পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কার্যক্রম সফল করতেও বৈদেশিক অর্থায়ন জরুরি।

বাংলাদেশ এখন রূপকল্প-২০৪১ অর্জনে এগিয়ে যাচ্ছে। ভৌত ও সামাজিক অবকাঠামো এবং নগর উন্নয়নে সরকার প্রচুর বিনিয়োগ করছে। এ ছাড়া সরকারের বেশ কিছু মেগা প্রকল্প বর্তমানে বাস্তবায়নাধীন আছে।

নতুন ব্যাংকটির সদস্যপদ অর্জন করায় বৈদেশিক অর্থায়নের ক্ষেত্রে আরও নতুন সুযোগ সৃষ্টি হবে।

আরও পড়ুন:
সেই পাঁচ কেন্দ্রের পরীক্ষা আবার নেবে বার কাউন্সিল
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় ভাঙচুরে সিলেটের সেই কাউন্সিলর
বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় ভাঙচুর, ২৪ জন রিমান্ডে
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় হাঙ্গামা: কী হবে পরীক্ষার্থীদের
বার কাউন্সিল পরীক্ষাবঞ্চিতরা ফের সুযোগ পেতে পারেন

শেয়ার করুন

ওয়াশিংটনে গেলেন প্রধানমন্ত্রী

ওয়াশিংটনে গেলেন প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ৭৬তম অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ। ছবি: নিউজবাংলা

নিউ ইয়র্কে জন এফ কেনেডি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানাতে আসেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতিমা। আর ওয়াশিংটনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. শহিদুল ইসলাম ডালাস আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান। নিউ ইয়র্কে অবস্থানকালে শেখ হাসিনা শুক্রবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৬তম অধিবেশনে ভাষণ দেন।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৬তম অধিবেশন ও উচ্চ পর্যায়ের পার্শ্ব-আলোচনার আনুষ্ঠানিকতা শেষে দেশটির রাজধানী ওয়াশিংটন পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম শনিবার সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি চার্টার্ড ফ্লাইট প্রধানমন্ত্রী ও তার সফর সঙ্গীদের নিয়ে স্থানীয় সময় সকাল ৯টা ১৫ মিনিটে ওয়াশিংটন ডিসির উদ্দেশে নিউ ইয়র্কের জন এফ কেনেডি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রওনা হয়।’

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় সকাল ১০টা ০৩ মিনিটে ওয়াশিংটন ডিসির ডালাস আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমানটি অবতরণ করেছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

নিউ ইয়র্কে জন এফ কেনেডি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানাতে আসেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতিমা। আর ওয়াশিংটনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. শহিদুল ইসলাম ডালাস আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান।

নিউ ইয়র্কে অবস্থানকালে শেখ হাসিনা শুক্রবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৬তম অধিবেশনে ভাষণ দেন।

১৯ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে অবস্থানকালে তিনি বেশ কয়েকটি উচ্চ পর্যায়ের ও রুদ্ধদ্বার বৈঠকে অংশ নিয়েছেন। এ ছাড়াও বিভিন্ন সরকার, রাষ্ট্র ও সংগঠন প্রধানের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকও করেন সরকারপ্রধান।

২০ সেপ্টেম্বর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে তার সম্মানে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের নর্থ লনের ইউএন গার্ডেনে একটি ফুলের চারাগাছ রোপণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর আগে, ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিংকিতে দুই দিনের যাত্রা বিরতির পর ১৯ সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্কে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী।

১৭ সেপ্টেম্বর সকালে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীরা বিমানের একটি ফ্লাইটে করে নিউ ইয়র্কের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন।

১ অক্টোবর ফিনল্যান্ডের হেলসিংকি হয়ে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা ফেরার কথা রয়েছে।

আরও পড়ুন:
সেই পাঁচ কেন্দ্রের পরীক্ষা আবার নেবে বার কাউন্সিল
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় ভাঙচুরে সিলেটের সেই কাউন্সিলর
বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় ভাঙচুর, ২৪ জন রিমান্ডে
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় হাঙ্গামা: কী হবে পরীক্ষার্থীদের
বার কাউন্সিল পরীক্ষাবঞ্চিতরা ফের সুযোগ পেতে পারেন

শেয়ার করুন

‘গুলাব’ বাংলাদেশে আঘাতের আশঙ্কা ক্ষীণ

‘গুলাব’ বাংলাদেশে আঘাতের আশঙ্কা ক্ষীণ

ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ বাংলাদেশে আঘাত হানার আশঙ্কা করছে না আবহাওয়া অধিদপ্তর। ফাইল ছবি

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ আব্দুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘‘গুলাব’ ঘূর্ণিঝড় ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশ ও উড়িশ্যায় আগামীকাল রোববার বিকেল নাগাদ আঘাত হানতে পারে। বাংলাদেশে এটির আসার আশঙ্কা খুবই কম। তবে তার প্রভাবে উপকূলে ভারী বৃষ্টিপাত হবে।’

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপটি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এটি ভারতীয় ভূখণ্ডে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ নামে আঘাত হানবে। ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশে আঘাতের আশঙ্কা খুবই কম বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ নামটি পাকিস্তানের দেয়া, যার ইংরেজি নাম রোজ; বাংলায় যার অর্থ গোলাপ ফুল।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ আব্দুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘‘গুলাব’ ঘূর্ণিঝড় ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশ ও উড়িশ্যায় আগামীকাল রোববার বিকেল নাগাদ আঘাত হানতে পারে। বাংলাদেশে এটির আসার আশঙ্কা খুবই কম। তবে তার প্রভাবে উপকূলে ভারী বৃষ্টিপাত হবে।’

রাজধানীসহ দেশের দক্ষিণাঞ্চলে শনিবার বৃষ্টি হয়েছে। এ বৃষ্টি রোববারও হবে জানিয়ে আব্দুর রহমান বলেন, ‘‘ঢাকায় শনিবার ৫৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এটি নিম্নচাপের প্রভাবেই হয়েছে। ‘গুলাবের’ কারণে এখনও ভারী বর্ষন হয়নি কোথাও। সমুদ্রবন্দরগুলোতে এক নম্বর সতর্ক সংকেত দেয়া হয়েছে। তবে গতিবিধি অনুযায়ী পরে সংকেত দেয়া হতে পারে।’’

বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত নিম্নচাপটি আরও ঘনীভূত হয়ে একই এলাকায় গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এটি শনিবার সকাল ৯টার দিকে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৪১৫ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৪০৫ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি-বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

সেই সঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। সারা দেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

ভারতীয় আবহাওয়া বিভাগ বলছে, ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ শনিবার পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা ও উপকূলীয় অন্ধ্রপ্রদেশের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এর প্রভাবে রোববার দক্ষিণ ওড়িশা, অন্ধ্রপ্রদেশের উত্তরাঞ্চলে প্রচুর বৃষ্টিপাত হতে পারে। এ ছাড়া তেলেঙ্গনা, চত্তিশগড়ে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। সাগর উত্তাল থাকায় উপকূলীয় অঞ্চলে বাতাসের গতিবেগ বেশি। মাছ ধরার ট্রলারকে সোমবার পর্যন্ত গভীর সমুদ্রে না যেতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সেই পাঁচ কেন্দ্রের পরীক্ষা আবার নেবে বার কাউন্সিল
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় ভাঙচুরে সিলেটের সেই কাউন্সিলর
বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় ভাঙচুর, ২৪ জন রিমান্ডে
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় হাঙ্গামা: কী হবে পরীক্ষার্থীদের
বার কাউন্সিল পরীক্ষাবঞ্চিতরা ফের সুযোগ পেতে পারেন

শেয়ার করুন

ওসি হতে পারেন হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা: আইজিপি

ওসি হতে পারেন হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা: আইজিপি

শনিবার ঢাকা রেঞ্জের আগস্ট মাসের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন আইজিপি বেনজীর আহমেদ।

আইজিপি বলেন, ‘থানার ওসি চাইলেই হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা হতে পারেন‌। মানুষের জন্য কাজ করে তাদের হৃদয় ও মন জয় করা যায়। এটা টাকা দিয়ে কেনা যায় না।’

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা চাইলেই ‘হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালার’ মতো মানুষের মন জয় করতে পারেন বলে মন্তব্য করেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ।

তিনি বলেছেন, ‘থানার ওসি চাইলেই হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা হতে পারেন‌। মানুষের জন্য কাজ করে তাদের হৃদয় ও মন জয় করা যায়। এটা টাকা দিয়ে কেনা যায় না।’

শনিবার ঢাকা রেঞ্জের আগস্ট মাসের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আইজিপি বলেন, ‘সমাজ পরিবর্তনের সঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা ও অপরাধ পরিস্থিতির পরিবর্তন হয়। সর্বদা সমাজের পরিবর্তনশীল চাহিদার প্রতি লক্ষ্য রেখে পুলিশিং কার্যক্রম চালু রাখতে হবে।’

বিট পুলিশিংকে একটি কার্যকর পদ্ধতি হিসেবে উল্লেখ করে বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু প্রতিটি ইউনিয়নে থানা করার যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, বিট পুলিশিং ওই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনী ইশতেহারে ঘোষণা করেছিলেন, প্রতিটি গ্রামে শহরের সুবিধা পৌঁছে দেয়া হবে। এক্ষেত্রে প্রতিটি ইউনিয়নে অপরাধ ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় বিট পুলিশং কার্যকর অবদান রাখতে পারে।’

আইজিপি বলেন, ‘কোনো পুলিশ সদস্য যদি অপরাধে জড়িত থাকে, তাহলে তাকে সেটি বন্ধ করতে হবে। পুলিশে কোনো অপরাধীর জায়গা নেই। আমরা যত ভালো কাজ করি না কেন, একটি খারাপ কাজ সব অর্জন নষ্ট করে দেয়।’

জুনিয়রদের যোগ্য করে গড়ে তোলা সিনিয়রদের দায়িত্ব উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘জুনিয়রদের জন্য ভালো উদাহরণ তৈরি করতে হবে। ভালো কাজে তাদেরকে মোটিভেট করতে হবে। তাদেরকে সুপারভাইজ করতে হবে।’

আইজিপি বলেন, ‘চাকরিতে প্যাশন আনতে হবে। প্রত্যেক পুলিশ সদস্যের সম্মান ও মর্যাদাবোধ থাকতে হবে। পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে।’

মাদারীপুর জেলা পুলিশ আয়োজিত এ সভায় ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজিরাসহ রেঞ্জের আওতায় থাকা সব জেলার পুলিশ সুপার এবং কর্মকর্তারা অংশ নেন।

আরও পড়ুন:
সেই পাঁচ কেন্দ্রের পরীক্ষা আবার নেবে বার কাউন্সিল
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় ভাঙচুরে সিলেটের সেই কাউন্সিলর
বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় ভাঙচুর, ২৪ জন রিমান্ডে
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় হাঙ্গামা: কী হবে পরীক্ষার্থীদের
বার কাউন্সিল পরীক্ষাবঞ্চিতরা ফের সুযোগ পেতে পারেন

শেয়ার করুন

পেন্সিলের ভারসাম্য নিয়ে গিনেস বুকে মনিরুল  

পেন্সিলের ভারসাম্য নিয়ে গিনেস বুকে মনিরুল  

৩০ সেকেন্ডে ৫০টি পেনসিল ব্যালান্স করে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড করেন নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মনিরুল ইসলাম। ছবি: নিউজবাংলা

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের এ শিক্ষার্থী বলেন, ‘প্রথমে গিনেস রেকর্ডের ওয়েবসাইটে আমি আবেদনের নিয়ম-কানুনগুলো পড়ি। এরপর সে অনুযায়ী, ভিডিও করে পাঠাই। খুব শিগগিরই সার্টিফিকেটের জন্য আবেদন করব।

এক হাতের উপর সর্বোচ্চ সংখ্যক পেন্সিলের ভারসাম্য রক্ষা করে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড করেছেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মনিরুল ইসলাম। ৩০ সেকেন্ডে ৫০টি পেন্সিল ব্যালান্স করে এ কৃতিত্ব অর্জন করেন তিনি।

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড বুক কর্তৃপক্ষ শুক্রবার তাকে স্বীকৃতি দিয়েছে। শনিবার সকালে নিউজবাংলাকে স্বীকৃতির বিষয়টি নিশ্চিত করেন মনিরুল নিজেই। এ বছরের ৩ জুন এটি করেছিলেন মনিরুল।

মনিরুল জানান, ফেব্রুয়ারিতে ইউটিউবে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস বুক প্রতিযোগিতার এই ইভেন্টটি দেখতে পান তিনি। তিনি পারবেন মনে হওয়ায় ওই দিনই ৫০টি পেন্সিল কিনে আনেন অনুশীলনের জন্য।

প্রথম দিকে পারছিলেন না, তবে বাবা-মা আর বন্ধুদের অনুপ্রেরণায় বারবার চেষ্টা করে সফল হয়েছেন বলে জানান তিনি।

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের এ শিক্ষার্থী বলেন, ‘প্রথমে গিনেস রেকর্ডের ওয়েবসাইটে আমি আবেদনের নিয়ম-কানুনগুলো পড়ি। এরপর সে অনুযায়ী, ভিডিও করে পাঠাই। খুব শিগগিরই সার্টিফিকেটের জন্য আবেদন করব। আরও কয়েকটি ইভেন্টের জন্য আমি প্রস্তুতি নিচ্ছি।

‘বাংলাদেশের হয়ে এমন কৃতিত্ব অর্জন করতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত। আগামীতে যেন দেশের জন্য আরও বড় কিছু করতে পারি সে জন্য সবার দোয়া চাই।’

পেন্সিলের ভারসাম্য নিয়ে গিনেস বুকে মনিরুল

মনিরুলের বাড়ি কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলায়। বাবা জহিরুল ইসলাম ও মা খায়রুন নাহার। দুই ভাইবোনের মধ্যে তিনি বড়।

বাংলাদেশের হয়ে ১৫তম গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডধারী মনিরুল ইসলামের কৃতিত্বে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন তার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লোকজন।

অবশ্য এই ইভেন্টে আগের রেকর্ডটিও ছিল বাংলাদেশির। ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী টাঙ্গাইলের সিয়াম রেজোয়ান খান ৩০ সেকেন্ডে ৪৪টি পেন্সিল ব্যালান্স করে রেকর্ডটি করেছিলেন।

আরও পড়ুন:
সেই পাঁচ কেন্দ্রের পরীক্ষা আবার নেবে বার কাউন্সিল
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় ভাঙচুরে সিলেটের সেই কাউন্সিলর
বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় ভাঙচুর, ২৪ জন রিমান্ডে
বার কাউন্সিল পরীক্ষায় হাঙ্গামা: কী হবে পরীক্ষার্থীদের
বার কাউন্সিল পরীক্ষাবঞ্চিতরা ফের সুযোগ পেতে পারেন

শেয়ার করুন