বিচারে ‘বিগ মিসটেক’, যাবজ্জীবনের আসামি খালাস

বিচারে ‘বিগ মিসটেক’, যাবজ্জীবনের আসামি খালাস

খালাস পাওয়া আসামি নরসুন্দর শফিকুল ইসলাম। ১৯৯৬ সালে রওশন আলী নামে আরেক নরসুন্দরকে হত্যার অভিযোগে তাকে যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছিল বিচারিক আদালত।

বিচার প্রক্রিয়াকে ‘বিগ মিসটেক’ মন্তব্য করে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত এক আসামিকে খালাস দিয়েছে আপিল বিভাগ।

বুধবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনসহ তিন বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

খালাস পাওয়া আসামি নরসুন্দর শফিকুল ইসলাম। ১৯৯৬ সালে রওশন আলী নামে আরেক নরসুন্দরকে হত্যার অভিযোগে তাকে যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছিল বিচারিক আদালত।

এই হত্যা মামলার বিচার প্রক্রিয়া ভুল ছিল উল্লেখ করে আপিল বিভাগ বলেছে- “এটা ‘বিগ মিসটেক’ (বড় ভুল)।”

পরে আদালত মামলার মেরিট ও অন্যান্য বিষয় দেখে আসামি শফিকুল ইসলামের আপিল মঞ্জুর করে তাকে খালাসের রায় আদালত। সেই সঙ্গে খালাসপ্রাপ্ত এই আসামি যদি কারাগারে থাকেন তবে তাকে অবিলম্বে মুক্তির ‘অ্যাডভান্স অর্ডার’ দেয়া দেয়।

আদালতে মামলার বিস্তারিত তুলে ধরে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ জানান, ১৯৯৬ সালে ১৫ বছর বয়সী রওশন আলীকে হত্যার মামলায় একই এলাকার ১৬ বছর বয়সী নরসুন্দর শফিকুল ইসলামসহ তিন জনকে ২০০০ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেন বিচারিক আদালত।

‘২০০৭ সালে বিচারিক আদালতের রায় বহাল রাখে হাইকোর্ট। পরবর্তীতে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে আসামি শফিকুল ইসলাম। আপিলের শুনানি নিয়ে আদালত এ পর্যবেক্ষণ রায় দেন। একই সঙ্গে শফিকুল ইসলামকে খালাস দিয়ে দ্রুত মুক্তির নির্দেশ দেয় আপিল বিভাগ।’

মামলার বাকি দুই আসামির বিষয়ে কোনো তথ্য জানা যায়নি বলে জানান রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী।

আরও পড়ুন:
হাজিরা দিতে এসে আদালতে আসামির মৃত্যু

শেয়ার করুন

মন্তব্য