20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
ইরফান সেলিম রিমান্ড শেষে কারাগারে

হাজী সেলিমের ছেলে ইরফানকে কারাগারে নেয়া হয়। ফাইল ছবি

ইরফান সেলিম রিমান্ড শেষে কারাগারে

আদালতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডর বরখাস্ত হওয়া কাউন্সিলর ইরফান সেলিমের জামিন আবেদন করেন তার আইনজীবী প্রাণনাথ। রাষ্ট্রপক্ষে ধানমন্ডি থানার কর্তব্যরত জিআরও উপপরিদর্শক মো. আশরাফ জামিনের বিরোধিতা করেন।

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর ও হত্যাচেষ্টা মামলায় হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদুল মোল্লাকে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

দুই দফায় ৫ দিনের রিমান্ড শেষে বুধবার তাদের আদালতে হাজির করা হয়। এসময় তাদের কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) মবিনুল হক।

জাহিদুল মোল্লা স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে রাজি হন। তার জবানবন্দি রেকর্ড ও ইরফান সেলিমকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।

ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক হাবিবুর রহমান চৌধুরী জাহিদুল মোল্লার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন ।

এদিকে, ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক জিয়াউর রহমানের আদালতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডর বরখাস্ত হওয়া কাউন্সিলর ইরফান সেলিমের জামিন আবেদন করেন তার আইনজীবী প্রাণনাথ।

রাষ্ট্রপক্ষে ধানমন্ডি থানার কর্তব্যরত সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) এস আই মো. আশরাফ জামিনের বিরোধিতা করে। শুনানি শেষে আদালত জামিন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলাটিতে গত ২৮ অক্টোবর এ দুই আসামির তিন দিন এবং ১ নভেম্বর দুই দিন করে রিমান্ডের আদেশ দেয় আদালত।

গত ২৫ অক্টোবর নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমদ খান মোটরসাইকেলে করে যাচ্ছিলেন। এ সময় ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমের গাড়ি তাকে ধাক্কা দেয়। এরপর তিনি সড়কের পাশে মোটরসাইকেলটি থামিয়ে গাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে কথা বলতে চান।

তখন গাড়ি থেকে ইরফানের সঙ্গে থাকা অন্যরা একসঙ্গে তাকে কিল-ঘুষি মারেন এবং মেরে ফেলার হুমকি দেন। তার স্ত্রীকে গালিগালাজ করেন।

এ ঘটনায় ২৬ অক্টোবর সকালে ইরফান সেলিম, তার দেহরক্ষী মো. জাহিদুল মোল্লা, এ বি সিদ্দিক দিপু এবং গাড়িচালক মিজানুর রহমানসহ অজ্ঞাত ২-৩ জনকে আসামি করে ওয়াসিফ আহমদ খান ধানমন্ডি থানায় একটি মামলা করেন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য