সম্প্রীতি রক্ষায় তৎপর থাকব: র‌্যাব প্রধান

সম্প্রীতি রক্ষায় তৎপর থাকব: র‌্যাব প্রধান

‘এখানে সব ধর্মের বর্ণের মানুষ যেন তাদের ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান শান্তিতে নির্বিঘ্নে পালন করতে পারে সেজন্য আমরা সজাগ রয়েছি।’

দুর্গা পূজা কেন্দ্র করে কেউ যেন নাশকতা করতে না পারে সেজন্য নজরদারি জোরদার করেছে র‌্যাব। কোনো বিষয়ে আশঙ্কা থাকলে তথ্য দেয়ার আহ্বানও জানিয়ে বাহিনীটির প্রধান বলেছেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় তারা তৎপর।

শারদীয় দুর্গোৎসব শুরুর দিন বৃহস্পতিবার রাজধানীর গুলশান-বনানীর সার্বজনীন পূজামণ্ডপ পরিদর্শনে গিয়ে র‌্যাবের মহাপরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন এ কথা বলেন।

র‌্যাব প্রধান বলেন, ‘সব ধর্মের বর্ণের মানুষ যেন তাদের ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান শান্তিতে নির্বিঘ্নে পালন করতে পারে সেজন্য আমরা সজাগ রয়েছি।'

তবে আশঙ্কা করার মতো কোনো তথ্য পাননি বলেও জানান বাহিনীটির প্রধান।

তিনি বলেন, ‘যে কোনো বিষয়ে আশঙ্কা করলে সঙ্গে সঙ্গে আমাদেরকে তথ্য দিন। আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করব। দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির যে উদাহরণ আমরা সৃষ্টি করেছি, তা অক্ষুণ্ন রাখতে আমরা তৎপর।’

আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘দুর্গা পূজায় জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিতে র‌্যাবের বোমা নিষ্ক্রিয়কারী ইউনিট, ডগ স্কোয়াডসহ অন্যান্য ফোর্স সক্রিয় থাকবে।'

দেশের কয়েকটি জায়গায় পূজামণ্ডপে হামলা প্রসঙ্গে র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, ‘ফরিদপুরে প্রতিমা ভাঙার ঘটনায় জড়িতদের আমরা গ্রেফতার করেছি।’

র‌্যাব ত্রিমাত্রিক অভিযান পরিচালনায় সক্ষম জানিয়ে মামুন বলেন, ‘নাশকতা রোধে আমাদের প্রিভেন্টিভ পেট্রোল ও গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত থাকবে। দ্রুত সময়ের মধ্যে আমরা যাতে অন্যান্য এলাকায় যোগাযোগ রক্ষা করতে পারি তার জন্য আমাদের কুইক টিম প্রস্তুত থাকবে।’

গত ১৭ সেপ্টেম্বর মহালয়ার মধ্য দিয়ে দূর্গা পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। তবে বৃহস্পতিবার মহাষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে মূল আনুষ্ঠানিকতা।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে এবার সীমিত আকারে পূজার আয়োজন করা হয়েছে। সন্ধ্যা আরতির পর মণ্ডপে দর্শনাথী প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে পূজা উদযাপন পরিষদ।

শেয়ার করুন

মন্তব্য