20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
নিয়মে সীমাবদ্ধ দুর্গাপূজা

রাজধানীর শাখারীবাজারে একটি মণ্ডপে পূজার প্রস্তুতি। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস

নিয়মে সীমাবদ্ধ দুর্গাপূজা

বৃহস্পতিবার পূজার প্রথম দিনে রাজধানীর বিভিন্ন মণ্ডপ ঘুরে দেখা গেছে, সকাল থেকেই কোনো মণ্ডপে নেই তেমন ভক্ত সমাগম। অন্যান্য বারের মতো দেখা যায়নি দর্শনার্থীর ভিড়।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা। ছয়দিনের এ উৎসবে প্রতিদিনই থাকে নানা আয়োজন। তবে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মানতে গিয়ে নিয়মেই সীমাবদ্ধ হয়ে পড়েছে এবারের পূজা।

বৃহস্পতিবার মহাষষ্ঠীর মাধ্যমে শুরু হয়েছে এ বছরের দুর্গা পূজা। ২৬ অক্টোবর দশমীতে দেবী বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে উৎসব।

পূজার প্রথম দিনে রাজধানীর বিভিন্ন মণ্ডপ ঘুরে দেখা গেছে, সকাল থেকেই কোনো মণ্ডপে নেই তেমন ভক্ত সমাগম। অন্যান্য বারের মতো দেখা যায়নি দর্শনার্থীর ভিড়।

সরকার নির্ধারিত স্বাস্থ্যবিধির কারণে অনেক মণ্ডপেই বিতরণ করা হচ্ছে না প্রসাদ। কোনো মণ্ডপে প্রসাদ বিতরণ করা হলেও মানা হচ্ছে কঠোর নিয়ম।

রাজধানীর শাখারীবাজার এলাকায় অনেকগুলো পূজা মণ্ডপ থাকলেও এবার কোন আড়ম্বরপূর্ণ আয়োজন নেই। সকালে দেবী দুর্গার আরম্ভিক পূজা হয়ে গেলেও তা বোঝার উপায় ছিল না।

শাখারীবাজার পূজা কমিটির সদস্য বঙ্কিম সরকার নিউজবাংলাকে জানান, এবার নিয়মনীতি মেনে যা করা প্রয়োজন সবই হচ্ছে, শুধু বাইরের আনুষ্ঠানিকতা একেবারেই কম।

তিনি বলেন, শুধু পূজার ইমেজ ঠিক আছে। সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মানার বাধ্যবাধকতার কারণে সকাল থেকে লোক সমাগমও নেই। তাদের নিজেদের অনেক সদস্যও সকালে মণ্ডপে যাননি।

তিনি আরও জানান, এবারের পূজায় খরচও কমে গেছে। সাউন্ড সিস্টেম নেই, অন্য আনুষ্ঠানিকতাও অনেক কম। ভক্ত সমাগম কম থাকায় প্রসাদের জন্য ফল ও খিচুড়ির খরচও অর্ধেক হয়ে গেছে।

নিরাপত্তা নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে পূজা কমিটির এই সদস্য বলেন, সাত সদস্যের পুলিশের একটি দল সবসময় মণ্ডপে রয়েছেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে সবরকম ব্যবস্থা নিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

durga-puja-2020
রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরী মন্দিরে দুর্গা প্রতিমা। ছবি: নিউজবাংলা

একই কথা জানান সিদ্ধেশ্বরী পূজা কমিটির আয়োজকেরা। সকালে ওই মন্দিরে গিয়ে দেখা যায়, দর্শনার্থী নেই। পুলিশের আধিক্য বেশি। পূজার আয়োজনও চলছে ঢিমেতালে।

আয়োজক কমিটির সদস্য নির্মল কান্তি বিশ্বাস জানান, সকালেই দেবীর পূজা সম্পন্ন হয়েছে। তবে ভক্ত সমাগম ছিল না। আবার সন্ধ্যায় নিয়ম অনুযায়ী পূজা হবে।

সার্বজনীন মন্দির হওয়ার ফলে এখানে একটু লোক সমাগম বেশি হতে পারে জানান এই সদস্য।

তিনি বলেন, করোনার জন্য মানুষের মধ্যেও একটা ভয় কাজ করছে, তাই অনেকেই আসেননি। সন্ধ্যায়ও তেমন আনুষ্ঠানিকতা না থাকায় ভক্ত সমাগম কম থাকতে পারে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রসাদ বিতরণের জন্য আলাদা ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার কাছাকাছি সময়ে বন্ধ হয়ে যাবে মণ্ডপের দুয়ার। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আরতি প্রতিযোগিতা হবে না। বের হবে না প্রতিমা বিসর্জনের শোভাযাত্রাও।

Durga-puja-2020
সিদ্ধেশ্বরী মন্দিরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অবস্থান। ছবি: নিউজবাংলা

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ এবার ঢাকা মহানগরের সব পূজা মণ্ডপের জন্য ২২টি নির্দেশনা দিয়েছে।

এ বিষয়ে সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কিশোর রঞ্জন মণ্ডল নিউজবাংলাকে বলেন, সন্ধ্যার পরই মূলত মণ্ডপে ভিড় বেশি দেখা যায়। সংক্রমণ বাড়ার শঙ্কায় তাই এই সময়ে মণ্ডপে ঢোকা বন্ধ থাকবে।

এদিকে পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হলেও রয়েছে বৃষ্টির ভয়। আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, অক্টোবরের ২২ থেকে ২৬ তারিখ পর্যন্ত বৃষ্টি হতে পারে। এর মধ্যে ২৩ তারিখ অর্থাৎ সপ্তমী পূজার দিন সবচেয়ে বেশি বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য