20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
অনলাইনে অঞ্জলি

অনলাইনে অঞ্জলি

বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে ঘরে বসেই মায়ের পূজার্চনা ও আরাধনা করার আহ্বান জানায় ঢাকা মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটি ।

করোনা মহামারি মানুষের অনলাইন নির্ভরতা বাড়িয়েছে। অনলাইনে বেড়েছে কেনাকাটা, চলছে ক্লাস-পরীক্ষা, মিটিং, এমন কি অফিসও।

এমন সময় এসেছে শারদীয় দুর্গাপূজা। পূজায় লোকসমাগম কমাতে অনলাইনে অঞ্জলি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে ঢাকা মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটি।

বুধবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে ঘরে বসেই মায়ের পূজার্চনা ও আরাধনা করার আহ্বান জানায় তারা।

বলা হয়, ‘ভক্তদের অবগতির জন্য জানাতে চাই, মহানগর কেন্দ্রীয় পূজা মণ্ডপে সপ্তমী, অষ্টমী ও নবমীর দিন সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে মায়ের পুষ্পাঞ্জলি সরাসরি সম্প্রচার করবে কয়েকটি টেলিভিশন। এতে আপনারা ঘরে বসেই মায়ের চরণে অঞ্জলি দিতে পারবেন। আমরা পূজা কমিটি মনে করি, এবারের দুর্গা পূজায় ঘরে থাকা উচিত।’

একই সময়ে মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটি, শ্রী শ্রী ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির নামে দুটি ফেসবুক পেইজ থেকেও পুষ্পাঞ্জলি সরাসরি সম্প্রচার করা হবে।

১৭ সেপ্টেম্বর মহালয়া হলেও এবার মল মাস (অশুভ মাস) থাকায় ষষ্টী দিয়ে পূজা শুরু হচ্ছে বৃহস্পতিবার। দেবী দুর্গার আরাধনাকে ঘিরেই আবর্তিত হয় সনাতনধর্মীদের এ উৎসব।

সংবাদ সম্মেলন শেষে অনলাইনে কীভাবে অঞ্জলি দেয়া হবে ও সেটি গ্রহণযোগ্য কিনা, এসব বিষয় নিয়ে নিউজবাংলার সঙ্গে একান্তে কথা বলেন মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কিশোর রঞ্জন মণ্ডল।

তিনি বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী করোনায় বিপর্যস্ত মানবজাতি। পূজায় হাজার হাজার মানুষের সমাগম হয়। কে করোনা নিয়ে আসছে, কে কীভাবে আসছে, তা জানা সম্ভব নয়। তাই স্বাস্থ্যবিধি মানার লক্ষ্যেই আপনারা ঘরে বসেই অঞ্জলি দিন। টেলিভিশনে, ফেসবুকে লাইভ হবে। আপনারা ঘরে বসেই মাকে ডাকুন।’

মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘সবার ঘরে ঘট থাকে। আপনারা অনলাইনে অঞ্জলি দেয়ার কর্মসূচি দেখবেন। অঞ্জলি দিয়ে সেই ঘটে রাখবেন। মা সব জায়গায় বিরাজমান। তাই মন থেকে ডাকলে যেকোনো জায়গা থেকেই মাকে পাওয়া যাবে।’

বিজয়ার শুভেচ্ছা জানিয়ে কিশোর রঞ্জন বলেন, ‘স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, করোনামুক্ত জীবন গড়ুন। ঘরে থাকুন সুস্থ থাকুন, ঘরে বসেই মাকে ডাকুন।’

তবে ভক্তরা অনলাইনে পূজা দেয়ার ব্যাপারে নিরুৎসাহের কথা জানিয়েছেন।

বৈশাখী বড়ুয়া নামের এক ভক্ত বলেন, 'অনলাইনে অঞ্জলি দেয়ার কথা আগে কখনো শুনিনি। ঘরে বসে আবার অঞ্জলি দেয় কীভাবে? এটা ঠিক কিনা তা আমি জানি না। কিন্তু শুনতেই তো কেমন লাগছে। আমি মণ্ডপে গিয়েই দেব।’

ব্যাংক কর্মকর্তা অতীশ কুমার নিউজবাংলাকে বলেন, 'পূজা তো ঘরে বসে সারাবছরই হয়। দুর্গাপূজা আয়োজনের উদ্দেশ্য শুধুমাত্র পূজা-অর্চনা নয়। এটা একটা উৎসব। মণ্ডপে গিয়ে দেবী দর্শনে যে আনন্দ, যে টান, তা ঘরে বসে হবে না।’

শেয়ার করুন