20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
এসআই আকবরকে সহায়তা, আরেক এসআই বরখাস্ত 

এসআই আকবরকে সহায়তা, আরেক এসআই বরখাস্ত 

‘বরখাস্ত এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে ফাঁড়ি থেকে পালাতে সহায়তা করা ও তথ্য গোপনের অপরাধে ফাঁড়ির টুআইসি এসআই হাসান উদ্দিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। মহানগর পুলিশের পক্ষে থেকে সিদ্ধান্তটি নেয়া হয়েছে।’  

বন্দরবাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে পালাতে সহায়তা করার অভিযোগে আরেক এসআই হাসান উদ্দিনকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে সিলেট মহানগর পুলিশ।

বুধবার সিএমপির এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সিএমপির অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার বিএম আশরাফ উল্যাহ তাহের নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বরখাস্ত এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে ফাঁড়ি থেকে পালাতে সহায়তা করা ও তথ্য গোপনের অপরাধে ফাঁড়ির টুআইসি এসআই হাসান উদ্দিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। মহানগর পুলিশের পক্ষে থেকে সিদ্ধান্তটি নেয়া হয়েছে।’

রায়হান নামের ওই যুবককে বন্দরবাজার থানা পুলিশ গত ১০ অক্টোবর বিকেলে আটক করে। অভিযোগ আছে তাকে ছেড়ে দিতে পুলিশ টাকা দাবি করে। রায়হান তার বাবাকে টাকা নিয়ে ফাঁড়িতে যেতে বলেন।

ভোরে তার বাবা টাকা নিয়ে ওই ফাঁড়িতে গেলে তাকে জানানো হয় রায়হান ঘুমাচ্ছেন, সকাল ১০টার দিকে আসতে হবে।

সকালে এলে বলা হয় সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজে যেতে। সেখানে গিয়ে বাবা জানতে পারেন তার ছেলে মারা গেছে।

এরপর মৃত ছেলের শরীরে নির্যাতনের চিহ্ন দেখতে পান বাবা। রায়হানের হাতের নখগুলোও ওপড়ানো ছিল।

তখন, পুলিশ দাবি করে রায়হানকে ছিনতাইকারী সন্দেহ করে জনতা গণপিটুনি দেয়ায় তার মৃত্যু হয়েছে। তবে সিসিটিভি ফুটেজে সত্যতা পাওয়া য়ায়নি। আর ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক বলেছেন, রায়হানকে চার ঘণ্টা পেটানো হয়েছে।

গত ১২ অক্টোবর এ ঘটনায় সিলেট কোতয়ালি থানায় মামলা করেন রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি। আসামি করা হয়েছে ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবরকে।

মামলাটি তদন্ত করছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই।

শেয়ার করুন

মন্তব্য