20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
দুই দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল ৪ মোটরসাইকেল আরোহীর

দুই দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল ৪ মোটরসাইকেল আরোহীর

পুলিশ জানিয়েছে, হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলা সদর থেকে কাজ শেষে তিন যুবক মোটরসাইকেলে জগদীশপুর যাচ্ছিলেন। রাত ৮টার দিকে তারা মীরনগর এলাকায় পৌঁছলে ঢাকামুখি একটি ট্রাক্টরের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়।

হবিগঞ্জের মাধবপুরে মঙ্গলবার রাতে ট্রাক্টরের সঙ্গে মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে তিন যুবক নিহত হয়েছেন। এর আগে সন্ধ্যায় সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটায় ট্রাকের সঙ্গে মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে প্রাণ গেছে এক স্কুলছাত্রের; আহত হয়েছেন আরও চারজন।

দুই জেলার এ দুর্ঘটনায় নিহত চারজনই মোটরসাইকেল আরোহী।

পুলিশ জানায়, মাধবপুর উপজেলা সদর থেকে প্রয়োজনীয় কাজ শেষে তিন যুবক মোটরসাইকেলে জগদীশপুর যাচ্ছিলেন। রাত ৮টার দিকে তারা মীরনগর এলাকায় পৌঁছলে ঢাকামুখি একটি ট্রাক্টরের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তিন মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হন।

তারা হলেন- মাধবপুর উপজেলার শাহপুর এলাকার আব্দুর রশিদ মিয়ার ছেলে বাসচালক মাসুক মিয়া (২৫), ফরিদ গাজীর ছেলে বাসের হেলপার জাহাঙ্গীর মিয়া (২৬) ও সুরুজ মিয়ার ছেলে ইলেক্ট্রিশিয়ান মান্নান মিয়া (২৭)।

মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন বলেন, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে মাধবপুর থানা ও শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মরদেহ তিনটি উদ্ধার করে। দুর্ঘটনার পরপর ট্রাক্টর নিয়ে পালিয়ে যান চালক।

সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা উপজেলার কুমিরার তালতলা এলাকায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান মোটরসাইকেল চালক জুয়েল হোসেন (১৭)।

তিনি তালা উপজেলার তৈলকুপি গ্রামের মফিদুল ইসলাম মোড়লের ছেলে এবং পাটকেলঘাটা হাইস্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র।

আহতরা হলেন- একই গ্রামের ফিরোজ মোড়লের ছেলে ইমন (১৮), ইমনের মামাতো ভাই মারুফ হোসেন (১৯), জামসেদ আররি ছেলে মেহেদি হাসান (১৯), নন্দ পালের ছেলে বিপ্লব পাল (১৮)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে কুমিরার তালতলায় সাতক্ষীরা থেকে যশোরগামী একটি ট্রাকের সঙ্গে কেশবপুর থেকে সাতক্ষীরাগামী দুটি মোটরসাইকেলের সংঘর্ষ হয়।

পাটকেলঘাটা থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) জয়বালা জানান, ঘটনাস্থল থেকে একজনের লাশ উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আহত চারজনকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে; চালককে পাওয়া যায়নি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য