20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
ডিএসসিসিকে টাওয়ারের বকেয়া পরিশোধ গ্রামীণফোনের

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রের কাছে চেক হস্তান্তর করেন গ্রামীণফোনের কর্মকর্তারা।

ডিএসসিসিকে টাওয়ারের বকেয়া পরিশোধ গ্রামীণফোনের

২০১৩-১৪ অর্থবছর হতে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বকেয়া বাবদ এই অর্থ দেয়া হয় বলে সোমবার ডিএসসিসির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

মোবাইল ফোনের টাওয়ার ব্যবহার বাবদ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনকে (ডিএসসিসি) ৯ কোটি ৬৩ লাখ টাকা বকেয়া পরিশোধ করেছে গ্রামীণফোন।

রোববার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের কাছে গ্রামীণফোনের কর্মকর্তারা ওই বকেয়ার চেক হস্তান্তর করেন। ২০১৩-১৪ অর্থবছর হতে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বকেয়া বাবদ এই অর্থ দেয়া হয় বলে সোমবার ডিএসসিসির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফুল হক বলেন, আইন ও তফসিল অনুযায়ী করপোরেশন মোবাইল ফোন অপারেটরদের কাছ থেকে অর্থ প্রাপ্য হলেও এ বিষয়ে উদ্যোগের অভাবে করপোরেশন এ খাত হতে কখনো অর্থ আদায় করতে পারেনি।

আরিফুল হক বলেন, ‘ডিএসসিসি মেয়রের নির্দেশনায় আমরা এ বিষয়ে উদ্যোগ নিই এবং সকল মোবাইল ফোন অপারেটরকে করপোরেশন এলাকায় ব্যবহৃত টাওয়ারের তথ্য-উপাত্ত চেয়ে পত্র পাঠাই। তারই আলোকে গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষ তাদের টাওয়ারগুলোর সার্বিক বিবরণসহ তথ্য-উপাত্ত সরবরাহ করে।’

আরিফুল হক আরও বলেন, ‘আমাদের সাথে কয়েক দফা বৈঠকের মাধ্যমে গ্রামীণফোন বিগত সাত বছরের বকেয়া বাবদ ৯ কোটি ৬৩ লাখ সাত হাজার তিনশত পঁচাশি টাকা পরিশোধ করে। আমরা বিশ্বাস করি, অন্য মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোও দ্রুততার সঙ্গে করপোরেশনের কাছে তাদের সমুদয় বকেয়া পরিশোধ করবে।’

আদর্শ কর তফসিল ২০১৬ এর ১০(৪.২৯৭) ধারা অনুযায়ী করপোরেশন এলাকায় মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো তাদের টাওয়ার ব্যবহারে সংশ্লিষ্ট বাড়ির মালিকের সঙ্গে যে চুক্তি করে থাকেন; সেই চুক্তির ছয় ভাগের এক ভাগ অর্থ সিটি করপোরেশনকে দিতে হয়।

শেয়ার করুন