20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
কক্সবাজারের লোকালয়ে ‘বিষহীন আদিম’ অজগর

কক্সবাজারের লোকালয়ে ‘বিষহীন আদিম’ অজগর

বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা সোহেল রানা জানিয়েছেন, এদের পিছনের পায়ের চিহ্ন পুরো বিলুপ্ত হয়নি। সাপটি রামু ঈদগড় বনাঞ্চল থেকে লোকালয়ে চলে আসে।

কক্সবাজারের রামু ঈদগড় বনাঞ্চল থেকে রোববার রাতে লোকালয়ে চলে এসেছিল

বিরল প্রজাতির একটি অজগর।

বন বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তাদের উপস্থিতিতে রোববার রাতেই সাপটি ধরে ফেলেন স্থানীয়রা। সোমবার সাপটি পুনরায় ঈদগড় বনাঞ্চলে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা সোহেল রানা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এটা পৃথিবীর অন্যতম বৃহত্তম সাপ। অজগরের এই জাতকে ময়াল নামেও ডাকা হয়। এরা বিষহীন আদিম সাপ। এদের পিছনের পায়ের চিহ্ন পুরো বিলুপ্ত হয়নি। সাপটি রামু ঈদগড় বনাঞ্চল থেকে লোকালয়ে চলে আসে।’

বন বিভাগের টহলদলের অফিসার ইনচার্জ এমদাদুল হক জানান, রোববার খাঁচাসহ দুটি ময়না পাখি বিক্রির সময় এক শিকারীকে আটক করা হয়। পাখিগুলো সোমবার সকালে কক্সবাজার বন অধিদপ্তরের মাঠে নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

বন বিভাগের কর্মকর্তার শিকারিসহ দুটি ময়না পাখি আটক করে পরে সেগুলো ছেড়ে দেয়া হয়। ছবি: নিউজবাংল

এসময় উত্তর বনবিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা রাবেয়া আকতার, ঈদগড় রেঞ্জ কর্মকর্তা এনামুল হক, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি মনিরুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা তোহিদুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জীববৈচিত্র্য, বন ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা বিধানে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য