20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
নিজ স্কুলে শেখ রাসেলের ম্যুরাল

ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল মাঠে শেখে রাসেলের ম্যুরাল। ছবি: নিউজবাংলা

নিজ স্কুলে শেখ রাসেলের ম্যুরাল

শেখ রাসেলের ৫৭তম জন্মদিনে রোববার ম্যুরালটি উন্মোচন করেন তার বড় বোন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাসেলের স্মৃতিকে ধরে রাখার চেষ্টা করায় সবাইকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যায় চত্বরে ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলের মাঠজুড়ে শেখ রাসেলের স্মৃতি। এই স্কুলেই ক্লাস ফোর পর্যন্ত পড়েছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ সন্তান। তার স্মৃতিকে জাগরুক রাখতে মাঠের প্রান্তে স্কুলের এক কোণে তৈরি করা হয়েছে শেখ রাসেলের ম্যুরাল।

শেখ রাসেলের ৫৭তম জন্মদিনে রোববার ম্যুরালটি উন্মোচন করেন তার বড় বোন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাসেলের স্মৃতিকে ধরে রাখার চেষ্টা করায় সবাইকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রাসেল আজ আমাদের মাঝে নেই। ওই স্কুলের ছাত্রছাত্রী যুগ যুগ ধরে যারা পড়াশোনা করবে, তারা এইটুকুই শিখবে, এইটুকুই জানবে যে, একটা ছোট শিশু ছিল এই স্কুলে কিন্তু সেই শিশুটাকে বাঁচতে দেওয়া হয় নি, তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল।’

ক্লাসের বিরতিতে এ স্কুলের খেলার মাঠে দুরন্ত কিন্তু বুদ্ধিদীপ্ত রাসেল ছুটে বেড়িয়েছেন সহপাঠীদের সঙ্গে। এই মাঠেই ক্লাস শুরুর আগে স্বাধীন দেশের জাতীয় পতাকার প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে সহপাঠিদের সাথে জাতীয় সংগীত গেয়েছেন তিনি।

প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ মিসেস সেলিনা বানু নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ম্যুরালটি আমাদের স্কুলের শিশুরা সব সময় দেখবে। আমরা এ ম্যুরাল এমন জীবন্তভাবে করেছি, যাতে মনে হয় শেখ রাসেলও শিশুদের সাথে খেলায় অংশ নিচ্ছেন।’

মুর‌্যালটির নকশা করেছেন শিল্পী শেখ আসমান। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এতে পাঁচটি পায়রা আছে, যার অর্থ হলো জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের জন্মের পাঁচ দশক। এ ছাড়া কোণায় একটা সূর্য আছে, যা শোককে শক্তিতে রূপান্তরের প্রতীক। ম্যুরালে তিনটি পিলার আমি দিয়েছি, ওইদিন ঘাতকের হাতে শেখ রাসেল ও তার দুই ভাইয়ের মৃত্যু স্মরণে।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য