লংমার্চে হামলার প্রতিবাদে ঢাকায় সমাবেশ

লংমার্চে হামলার প্রতিবাদে ঢাকায় সমাবেশ

বক্তারা বলেন, ধর্ষণ ও বিচারহীনতার বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ এই লংমার্চে আন্দোলনকারীদের রক্তাক্ত করে সাধারণ মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনকে কোনোভাবেই দমানো যাবে না।

ফেনীতে ধর্ষণবিরোধী লংমার্চে হামলার প্রতিবাদে ঢাকায় বিক্ষোভ-সমাবেশ করেছে বিভিন্ন বামপন্থী ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। ‘ধর্ষণ ও বিচারহীনতার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ’ ব্যানারে শনিবার বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এই সমাবেশ হয়।

শুক্রবার ঢাকা থেকে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ অভিমুখে রওয়ানা হওয়া লং মার্চে সকালে হামলা হয় ফেনীতে।

সেখানকার শহীদ মিনারের সমাবেশে স্থানীয় সংসদ সদস্য নিজামউদ্দিন হাজারীর আপত্তিকর ছবি প্রদর্শনের পর সেখানে হামলা করে একদল যুবক। ভাঙচুর হয় গাড়ি, পেটানো হয় বেশ কয়েকজনকে।

ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা-কর্মীরা এই হামলা করেছে বলে অভিযোগ করেছেন লং মার্চের নেতা-কর্মীরা। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে ছাত্রলীগ।

এর প্রতিবাদে সমাবেশে উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সহ-সাধারণ সম্পাদক সঙ্গীতা ঈমাম বলেন, ‘এই লংমার্চ ছিল ধর্ষণের বিরুদ্ধে, সরকার পতনের আন্দোলন নয়। সেখানে যখন ছাত্রলীগ যুবলীগ হামলা চালায় তখন বুঝতে হবে কারা ধর্ষকদের পৃষ্ঠপোষকতা করে।’

বাংলাদেশের কমিউনিষ্ট পার্টি-সিপিবির ঢাকা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাজেদুল হক রুবেল বলেন, ‘যারা ধর্ষণের প্রতিবাদে লংমার্চে হামলা করতে পারে তাদের প্রতি শুধু নিন্দা জানালে হবে না। ছাত্র-কৃষক-শ্রমিক সমস্ত পেশাজীবীকে একসঙ্গে রাস্তায় নেমে তাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে হবে।’

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতা হাসিব মোহাম্মদ আশিক, ছাত্র ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় নেতা রিয়াজ মাহমুদ, সিপিবি নারী সেলের নেত্রী রোকেয়া সুলতানা, বাংলাদেশ যুব ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সভাপতি হাফিজ আদনান রিয়াদ।

বক্তারা বলেন, ধর্ষণ ও বিচারহীনতার বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ এই লংমার্চে আন্দোলনকারীদের রক্তাক্ত করে সাধারণ মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনকে কোনোভাবেই দমানো যাবে না।

একই ঘটনায় পল্টন মোড়ে সিপিবি ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ করে বাম গণতান্ত্রিক জোট।

শেয়ার করুন

মন্তব্য