20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
হৈ চৈ নেই, ভোটারও কম

কেন্দ্রের বাইরে জটলা থাকলেও কেন্দ্রের ভেতর ভোটার উপস্থিতি বেশ কম। ছবি: সাইফুল ইসলাম

হৈ চৈ নেই, ভোটারও কম

প্রথম দুই ঘণ্টায় ভোটার উপস্থিতি ৫ থেকে ১০ শতাংশ। বিএনপির প্রার্থীর অভিযোগ, আওয়ামী লীগের কর্মীরা ভোটারদের বাধা দিচ্ছে। তাদের এজেন্টদের বের করে দিচ্ছে। আওয়ামী লীগের প্রার্থীর দাবি, বিএনপির এজেন্ট দেয়ার লোকই নেই।

মাতুয়াইল আদর্শবাগের নোকিয়া আহসান কলেজ কেন্দ্র। মোট ভোটার ৩ হাজার ৭০৬জন। দুই ঘণ্টায় ভোট পড়ে ১৭৫টি। শতকরা হিসেবে পাঁচ শতাংশ। এই হারে ভোট হলে আট ঘণ্টায় পড়ার কথা ২০ শতাংশ।

একই চিত্র সামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে। প্রিজাইডিং অফিসার দেলোয়ার হোসেন জানান, আড়াই ঘণ্টায় তার কেন্দ্রে ২ হাজার ৯২১ ভোটারের মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৯৭ জন।

মাতুয়াইল দক্ষিণপাড়া যাত্রাবাড়ী হাজী মনির হোসেন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রেও প্রথম দুই ঘণ্টায় পাঁচ শতাংশের মতো ভোট পড়ে।

ইভিএমে ভোট চলছে ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে। সকাল থেকে পরিবেশ শান্তিপূর্ণ। তবে ভোটারের লাইন চোখে পড়েনি।

Dhaka-5 election

মাতুয়াইল ডেমরা শামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজে ভোট দিতে আসা সরদার আব্দুর রহমান বলেন, ‘শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হচ্ছে। ভোট দিতে কোন ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হইনি। তবে ভোটারের সংখ্যা কম। বিএনপি প্রার্থীর পোলিং এজেন্টকে দেখিনি। তবে অধিকাংশ প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট রয়েছেন।’

প্রয়াত সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লার মৃত্যুতে শূন্য হওয়ায় এই নির্বাচন করতে হচ্ছে। ঢাকার এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ছয়জন। তবে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের কাজী মনিরুল ইসলাম ও বিএনপির সালাহ উদ্দিন আহমেদ।

আসনটিতে মোট ভোটার ৪ লাখ ৭১ হাজার ১২৯ জন। ভোট কেন্দ্র ১৮৭ টি।

অধিকাংশ কেন্দ্র থেকে এজেন্টকে বের করে দেয়ার অভিযোগ করেছেন বিএনপির প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ। যাত্রাবাড়ি আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্র পরিদর্শনে শেষে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী সন্ত্রাসীরা পুরো এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে আসতে বাধা দিচ্ছে।’

তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছেন মাতুয়াইল দক্ষিণপাড়া যাত্রাবাড়ী হাজী মনির হোসেন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার মাহমুদুল হাসান মিল্টন। তিনি বলেন, ‘বিএনপি প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট আসেননি। তবে অধিকাংশ প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট রয়েছেন।’

অভিযোগ করার জন্যই বিএনপির পক্ষ থেকে পোলিং এজেন্ট বের করে দেয়ার মিথ্যা দাবি করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী কাজী মনিরুল ইসলাম মনু।

তিনি বলেন, ‘অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন হচ্ছে। বিএনপির পোলিং এজেন্ট দেয়ার মতো লোকই নেই। তারা কেন্দ্রে না এসেই বের করে দেয়ার মিথ্যা অভিযোগ করছে।’

নির্বাচনী এলাকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়েছেন যাত্রাবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজাহারুল ইসলাম। তিনি বলেন, কোথাও কোনো সমস্যা নেই। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন হচ্ছে।

বিভিন্ন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের সমর্থকদের কেন্দ্রের ভেতর যখন তখন আসা যাওয়া করতে দেখা গেছে। জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী আব্দুস সবুর আসুদের পক্ষে সমর্থকদের দেখা গেছে। তবে বিএনপি প্রার্থীর পক্ষে সমর্থকদের বিভিন্ন কেন্দ্রের আশপাশে পাওয়া যায়নি। শুধুমাত্র প্রার্থী সালাহউদ্দিন যখন যে কেন্দ্রে যাচ্ছে সেখানে বিএনপির কিছু নেতাকর্মী রয়েছে।

শেয়ার করুন