বান্দরবানে সাবেক ইউপি সদস্যকে গুলি করে হত্যা

বান্দরবানে সাবেক ইউপি সদস্যকে গুলি করে হত্যা

‘সাউপ্রু মারমা রোয়াংছড়ি সদর ইউপির ১ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য ছিলেন। পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি জেএসএস’র (এমএন লারমা) জেলা কমিটির সদস্য ছিলেন।’

বান্দরবানের রোয়াংছড়ির নতুন পাড়ায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক এক সদস্য নিহত হয়েছেন। তার নাম সাউপ্রু মারমা। তিনি পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি জেএসএস’র (এমএন লারমা) জেলা কমিটির সদস্য ছিলেন বলে দাবি করেছে সংগঠনটি।

বৃহস্পতবিার রাত আটটার দিকে খুনের এই ঘটনা ঘটে। সাউপ্রু মারমা (৫২) রোয়াংছড়ি সদর ইউপির ১ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য ছিলেন।

পুলিশ জানায়, রোয়াংছড়ি বাজার থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার দূরে নতুন পাড়ায় নিজ বাড়ি ফিরছিলেন সাউপ্রু। নিজ বাড়ি অদূরে বৌদ্ধমন্দিরের সামনে পৌঁছালে দুর্বৃত্তরা তাকে গুলি করে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলইে সাউপ্রু মারা যান। পরে পুলিশ ও সেনা সদস্যরা গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে।

ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি বান্দরবান সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস সংস্কারপন্থী) জেলা সাধারণ সম্পাদক উবামং মার্মা জানান, ঘটনার সময় তাদের সংগঠনের আরেকজন সদস্য পাশের পুকুরে গোসল করছিলেন। গুলির শব্দ শুনে তিনি পালিয়ে বাঁচেন।

মূল দল জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) সন্তু লারমার কর্মীরা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন বলে তিনি অভিযোগ করেন।

তবে এ ব্যাপারে জেলা জেএসএসের দায়িত্বশীল কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

শুক্রবার দুপুরে জানতে চাইলে রোয়াংছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তৌহিদুল কবির বলেন, এই হত্যার সঙ্গে কারা জড়িত তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

এর আগে ১০ অক্টোবর বান্দরবান সদর উপজেলার রাজবিলা ইউনিয়নের জামছড়ি বাজারে দুর্বৃত্তরা বাচমং মারমা (৩৮) নামের এক পল্লীচিকিৎসককে গুলি করে হত্যা করে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য