20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
করোনা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগেও খাদ্য উৎপাদন অব্যাহত : কৃষিমন্ত্রী

করোনা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগেও খাদ্য উৎপাদন অব্যাহত : কৃষিমন্ত্রী

আগামী বোরো মৌসুমে উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য বোরো ধান বীজ প্রতি কেজিতে ১০ টাকা ভর্তুকি প্রদান করা হবে

কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, করোনা মহামারির বিরূপ পরিস্থিতি এবং ঘূর্ণিঝড়, বন্যার মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যেও বাংলাদেশে খাদ্য উৎপাদনের ধারা অব্যাহত রয়েছে। এ অর্থবছরে চালের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় তিন কোটি ৮৭ লাখ মেট্রিক টনে উন্নীত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার কৃষি মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বিশ্ব খাদ্য দিবস ২০২০ উদযাপন উপলক্ষ্যে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী এ তথ্য জানান।

মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, চলতি ২০২০-২১ অর্থ বছরে আউশের আবাদ হয়েছে ১৩ হাজার ২৯৬ লক্ষ হেক্টর এবং উৎপাদন হয়েছে প্রায় ৩৪ হাজার ৫১৭ লক্ষ মেট্রিক টন। আউশের আবাদ গত বছরের তুলনায় প্রায় দুই লাখ হেক্টর ও উৎপাদন চার লাখ মেট্রিক টন বৃদ্ধি পেয়েছে।

আগামী বোরো মৌসুমে উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য বোরো ধান বীজ প্রতি কেজিতে ১০ টাকা ভর্তুকি প্রদান করা হবে বলেও জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে কৃষি মন্ত্রণালয়ের বিশ্ব খাদ্য দিবসের কর্মসূচি জানানো হয়। শুক্রবার কৃষি মন্ত্রণালয় এবং জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) এর যৌথ উদ্যোগে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও পালিত হবে ‘বিশ্ব খাদ্য দিবস-২০২০’। এবারে দিবসটির প্রতিপাদ্য হলো ‘সবাইকে নিয়ে একসাথে বিকশিত হোন, শরীরের যত্ন নিন, সুস্থ থাকুন। আমাদের কর্মই আমাদের ভবিষ্যৎ।’

দিবসটি উপলক্ষে শুক্রবার সকাল ১০টায় রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে একটি আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

সেমিনারের পর বেলা আড়াইটায় সোনারগাঁও হোটেলেই একটি কারিগরি সেশন অনুষ্ঠিত হবে।

এর পাশাপাশি সচেতনতামূলক খুদে বার্তা পাঠানো, জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশসহ বিভিন্ন কর্মসূচি নেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য