20201002104319.jpg
তিন কেজির ইলিশ, দাম ৫৩০০

তিন কেজির ইলিশ হাতে হাস্যোজ্জ্বল মণ্টু

তিন কেজির ইলিশ, দাম ৫৩০০

বাগেরহাটের সামুদ্রিক মাছ ক্রয়-বিক্রয় কেন্দ্র কেবি বাজারে আবেদ আলীর আড়তে আসা মাছটি দেখতে ভিড় জমে যায়।

এক থেকে দেড় কেজি ওজনের ইলিশ পেলেই আনন্দে আত্মহারা! যদি তারও দ্বিগুণ হয় রূপালী মাছের আকার?

এত বড় হয় ইলিশ, চাক্ষুষ দেখেও চোখ ছানাবড়া। কেনার সাধ্য নেই সবার। তবে দেখেও তৃপ্তি। তাই মাছের পাশে ভিড়। ছবিও তুলছিলেন কেউ কেউ, সঙ্গে হাল আমলের ট্রেন্ড সেলফি।

মঙ্গলবার সকালে বাগেরহাটের সামুদ্রিক মাছ ক্রয়-বিক্রয় কেন্দ্র কেবি বাজারে আবেদ আলীর আড়তে মাছটির নিয়ে আসা রীতিমত বড়সড় সংবাদ হয়ে যায়।

একটি মাছ বারবার মাপা হতে থাকে। ডিজিটাল বাটখারার মিটার দুই কেজি নয়শ গ্রামে গিয়ে ঠেকে।

মাছটি কেনেন বাগেরহাট শ্রমিক লীগের সভাপতি রেজাউর রহমান মণ্টু। গুণতে হয়েছে পাঁচ হাজার তিনশ টাকা।

 

ইলিশ প্রিয় মণ্টু বলেন, ‘কেবি বাজারে প্রায়ই আসি, মাঝে মাঝে ইলিশ কিনি, কখনও পছন্দ না হলে চলে যাই। আজকে দেখছিলাম একটি মাছ নিয়ে অনেকের ভিড়। কাছে এসে দেখলাম বিশাল আকারের ইলিশ।’

এত বড় মাছ জীবনে প্রথম দেখেছেন। পকেটে টাকাও ছিল। তাই কিনবেনই সিদ্ধান্ত নেন মণ্টু। বলেন, ‘অনেকেই দাম বলছিলেন। আমাকেও বাড়াতে হলো। কি আর করা! এমন মাছ দেখে না কিনে পারা যায়?’

জেলেরা জানান, এবার ইলিশের আকার বেশ ভালো। এক থেকে দেড় কেজি ওজনের মাছ উঠছে নিয়মিত। তবে এত ইলিশ মাছ এর আগে কখনো দেখেননি তারা।

গত কয়েক বছর ধরেই সাগরে-নদীতে বড় আকারের ইলিশ ধরা পড়ছে। মৎস্য অধিদপ্তর ও আন্তর্জাতিক সংস্থা ওয়ার্ল্ড ফিশের ইকো ফিশ প্রকল্পের তথ্য বলছে, ২০১৪ সালে ধরা পড়া ইলিশের গড় ওজন ছিল ৫১০ গ্রাম। ২০১৮ সালে তা বেড়ে হয়েছে ৮৮০ গ্রাম।

শেয়ার করুন

মন্তব্য