‘দাবি একটাই, ডেথ ফর রেপ’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভে যোগ দেন চিত্র নায়িকা মৌসুমি। ছবি: সাইফুল ইসলাম

‘দাবি একটাই, ডেথ ফর রেপ’

টানা তৃতীয় দিনের মতো রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় সড়কে বিক্ষোভ। বিক্ষোভকারীদের দাবি, সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড হলে ধর্ষণ কমবে

নারী নিপীড়ন ও ধর্ষণের প্রতিবাদে টানা তৃতীয় দিনের মতো রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভ হয়েছে। বিক্ষোভকারীরা আইন সংশোধন করে মৃত্যুদণ্ডের বিধান করার আগ পর্যন্ত কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

গত রোববার নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ভিডিও ফাঁসের ঘটনায় তৈরি হয়েছে ক্ষোভ। সামনে আসছে ধর্ষণ এবং নারীর নিরাপত্তাহীনতার বিষয়টি।

বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড না হওয়ায় ধর্ষণ থামছে না।

বুধবার সকালে বৃষ্টি উপেক্ষা করে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় জড়ো হয় প্রতিবাদকারীরা। উত্তরা, শাহবাগ, মিরপুর ও রামপুরাতে হয়েছে সমাবেশ। শাহবাগের অবস্থান চলে রাত পর্যন্ত।

সড়কে শিক্ষার্থীদের অবস্থানের কারণে রাজধানীতে চলাচলে ব্যাঘাত ঘটে। তীব্র যানজট তৈরি হয় প্রধান সড়কগুলোতে।
ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করার দাবিতে রাজধানীতে বিক্ষোভ

সকাল ১১ টায় উত্তরায় নর্থ টাওয়ারের সামনে সড়কে অবস্থানের কারণে উত্তরা থেকে টঙ্গী পর্যন্ত সড়কে যান চলাচল একেবারে বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশের অনুরোধে রাস্তা ছাড়ে বিক্ষোভকারীরা। তবে বৃহস্পতিবার একই সময়ে অবস্থান নেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

আন্দোলনে অংশ নেয়া শিক্ষার্থী লাবিব বলেন, ‘আমরা দাবিতে অটল। যতক্ষণ না পর্যন্ত আমাদের দাবি মেনে নেয়া না হচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত আন্দোলন আমরা চালিয়ে যাব।’

‘ছাত্রসমাজ দেখিয়ে দেবে কীভাবে আইন সংশোধন করে।’

মিরপুর-১০ নম্বর গোলচত্বরেও অবস্থান শেষে মিছিল নিয়ে যায় মিরপুর-১ নম্বর সনি সিনেমা হলের সামনে যান ছাত্ররা। সেখানে সাত দফা তুলে কর্মসূচি শেষ করে।

মিরপুর কলেজের ছাত্র অর্ক বলেন, ‘আমরা আইনের ফাঁক-ফোকর বুঝি না। শুধু জানি, ধর্ষণের ঘটনায় মৃত্যুদণ্ড দিতে হবে।’

মিরপুর গার্লস আইডিয়াল কলেজের শিক্ষার্থী অর্পিতা বলেন, ‘দাবি একটাই, ডেথ ফর রেপ।’

‘উই আর স্টুডেন্টস’ ব্যানারে ধানমন্ডি-২৭ নম্বরে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা।

ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলোজির শিক্ষার্থী নাইম বলেন, ‘আমাদের কোনো রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা নেই। সরকার যেই হোক তা নিয়ে মাথাব্যথা নেই, আমাদের দাবি, ধর্ষকদের সাজা ফাঁসি হোক।’

একই সময়ে রামপুরা ব্রিজের ওপর জড়ো হয় বিক্ষোভকারীরা। সেখান থেকে বের হয় মিছিল।

শাহবাগে গণঅবস্থান করে বামপন্থী ও বেশ কয়েকটি ছাত্র সংগঠন। ‘ধর্ষণের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ’ ব্যানারে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে অবস্থান নেয় আন্দোলনকারীরা।

ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক অনিক রায় বলেন, ‘দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাস্তা ছাড়ব না, আন্দোলন থামবে না।’

একই এলাকায় জাতীয় জাদুঘরের সামনে মানববন্ধন করে ‘উইমেন ফর বাংলাদেশ’ নামে একটি সংগঠন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্য এলাকার জমায়েতে যোগ দেন চিত্রনায়িকা মৌসুমি এবং অভিনেতা ওমর সানি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংগঠন ডাকসুর সাবেক জিএস গোলাম রাব্বানীর নেতৃত্বে ‘টিম পজিটিভ বাংলাদেশ’ এর ব্যানারে সেখানে অবস্থান নেয় বিক্ষোভকারীরা।

বেলা বারোটার পরে শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে আসে ‘ধর্ষণ ও নিপীড়ন বিরোধী ছাত্র জনতার মঞ্চ’।

শেয়ার করুন