20201002104319.jpg
নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন: ইউপি সদস্য গ্রেফতার

নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন: ইউপি সদস্য গ্রেফতার

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় এক নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানোর ঘটনায় স্থানীয় এক ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্যসহ আরও দুই জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার গভীর রাতে ঢাকার শাহবাগ ও বেগমগঞ্জ থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ছয়জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ঘটনার মদদদাতা দেলোয়ার বাহিনীর প্রধান দেলোয়ার, মামলার প্রধান আসামি বাদলও রয়েছেন।

গ্রেফতারকৃত একজন মামলার এজাহারের ৫ নম্বর আসামি মো. সাজু (২১)। আরেকজন একলাশপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন সোহাগ (৪৮)।

বেগমগঞ্জ থানার ওসি হারুন রশীদ চৌধুরী জানান, বেগমগঞ্জ থানার পুলিশ সোমবার রাতে অভিযান চালিয়ে সাজুকে ঢাকার শাহবাগ এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। স্থানীয় ইউপি সদস্য মোয়াজ্জেমকে বেগমগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করা হয়।

ইউপি সদস্য সোহাগ মামলায় আসামি না হলেও তিনি ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। দেলোয়ার বাহিনীকে আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়ার অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

এর আগে সোমবার দেলোয়ার বাহিনী প্রধান দেলোয়ারকে নিয়ে অভিযান চালিয়ে তার মৎস্য খামার থেকে সাতটি তাজা ককটেল উদ্ধার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

বেগমগঞ্জ থানার ওসি হারুন জানান, ঘটনা পর্যবেক্ষণ ও সরেজমিনে দেখতে মঙ্গলবার পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি আনোয়ার হোসেন নোয়াখালী যাবেন।

তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ভুক্তভোগী ও তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলবেন।

ঘটনার ৩২দিন পর রোববার গৃহবধূকে নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

এক মিনিট ৩৮ সেকেন্ডের ভিডিওতে দেখা যায়, ওই নারী নিজেকে রক্ষার আপ্রাণ চেষ্টা করছেন। কয়েকজন পুরুষ তাকে ক্রমাগত মারধর করছেন।

স্থানীয়রা জানান, ওই নারীর স্বামী বেশ কিছুদিন এলাকার বাইরে ছিলেন। বাড়িতে ফেরার পর বাদল ও সহযোগীরা স্বামীকে বেঁধে রেখে ওই নারীকে নির্যাতন ও ভিডিও ধারণ করেন।

ঘটনার পর এক মাস পরিবারটিকে অবরুদ্ধ করে রেখেছিল জড়িতরা। সে জন্য তারা থানায় অভিযোগও জানাতে পারেনি।

শেয়ার করুন