বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় নিতে চায় চীন

বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় নিতে চায় চীন

বাংলাদেশের সঙ্গে কৌশলগত সম্পর্ক নতুন পর্যায়ে নিয়ে যেতে প্রস্তুত চীন। এ জন্য যে কোনো কৌশল নির্ধারণ করে সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিতে বাংলাদেশের সঙ্গে একযোগে কাজ করতে চায় দেশটি। এ আগ্রহের কথা জানিয়ে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদকে চিঠি দিয়েছেন চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং।

রোববার দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৪৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদকে এ চিঠি লেখেন সি চিন পিং। ঢাকায় চীনা দূতাবাসের ফেসবুক পেজে এ তথ্য প্রকাশ করেছে দেশটি।

চিঠির শুরুতেই চীনা প্রেসিডেন্ট দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কের ৪৫তম বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতিকে আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান।

সি চিন পিং তার বিশেষ বার্তায় বলেছেন, চীন ও বাংলাদেশের মধ্যকার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের ইতিহাস দীর্ঘ। এ বন্ধুত্ব শ্রদ্ধা, সাম্যতা, সুদৃঢ় রাজনৈতিক আস্থা ও দুই দেশের জনসাধারণের সুস্পষ্ট সুবিধা অর্জনের লক্ষ্যে পারস্পরিক লাভজনক সহযোগিতার ওপর প্রতিষ্ঠিত।

বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের ইতিহাস দীর্ঘদিনের। এ ঐতিহাসিক সম্পর্ক সময়ের সঙ্গে আরও দৃঢ় হয়েছে উল্লেখ করে সি চিন পিং বলেন, ৪৫ বছর আগে দুই দেশের মধ্যে কুটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হয়। কূটনৈতিক সম্পর্ক গড়ে ওঠার পর থেকেই দুই দেশ একে অন্যের প্রতি সবসময় শ্রদ্ধা দেখিয়েছে, একে অন্যকে সমান হিসেবে দেখেছে, পারস্পরিক রাজনৈতিক আস্থা ও সহযোগিতা বেড়েছে।

তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারির এই সময়ে দুই দেশ একে অপরের পাশে থেকে বন্ধুত্বের নতুন অধ্যায় রচনা করেছে। এরপর তিনি উন্নয়ন কৌশলসমূহকে আরো সহজতর করা, যৌথভাবে বেল্ট অ্যান্ড রোড উদ্যোগকে সামনে এগিয়ে নেয়া এবং চীন-বাংলাদেশ কৌশলগত অংশীদারত্বকে আরো উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার ওপর জোর দেন।

জবাবে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ তার বার্তায় বলেন, বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যকার সম্পর্ক দ্রুত বিকাশ লাভ করছে এবং গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতা অব্যাহত রয়েছে, যার প্রতি বাংলাদেশ বেশ গুরুত্ব দেয়। সামনের দিনগুলোতে এই সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক আরো জোরদার হবে।

শেয়ার করুন