20201002104319.jpg
‘কাজী রেহান নবীকে বলবেন বাচ্চাদের যাতে কিছু না হয়’

‘কাজী রেহান নবীকে বলবেন বাচ্চাদের যাতে কিছু না হয়’

পিতৃহারা দুই ভাতিজাকে বাসায় ঢুকতে না দেয়ার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে হবে কে এস নবীর আইনজীবী ছেলেকে

পিতৃহারা দুই ভাতিজাকে বাসায় ঢুকতে না দেয়ার ঘটনায় সাবেক অ্যাটর্নি জেনারল কে এস নবীর ছেলে কাজী রেহান নবীকে ডেকেছে হাইকোর্ট।

আগামী ১১ অক্টোবর আদালতে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দিতে হবে সুপ্রিম কোর্টের এই আইনজীবীকে। শিশু দুটির যেন কিছু না হয়, সে বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছে উচ্চ আদালত।

শিশু দুটির নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তাদেরকে আদালতে হাজির করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে।

রোববার বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমান ও বিচারপতি জাকির হোসেনের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ওয়ায়েস আল হারুনী নিউজবাংলাকে বলেন, আদালত উভয়পক্ষকে হাজির হতে বলেছে। ওই দিন উভয়পক্ষকে শুনে পরবর্তী আদেশ দেবেন।

ধানমন্ডির বাড়িতে প্রবেশে বাধা দেওয়ার ঘটনায় গত মধ্য রাতে আদালত বসিয়ে দুই শিশুকে প্রবেশ এবং নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণে পুলিশকে আদেশ দেয় হাইকোর্টের এই বেঞ্চ। আদেশ বাস্তবায়ন করে ধানমন্ডির থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইকরাম মিয়া সকালে প্রতিবেদন দেন।

পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়ে আগামী ১১ অক্টোবর পর্যন্ত নিরাপত্তার বিধানের ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয় আদালত।

ওসি ইকরামকে বিচারক বলেন, ‘আপনি ১১ অক্টোবর পর্যন্ত জাস্ট এক-দুইজন পুলিশ পাঠিয়ে খোঁজ নেবেন তারা (শিশু দুটি) ঠিক আছে কি না, এটা শুধু মনিটরিং করেন। এই শিশুদের মনে একটা ভয়-ভীতি আছে, ফলে তারা নিরাপদ বোধ করবে না।’

এ সময় রেহান নবী আদালতে ছিলেন না। আদেশটি বিশেষ বার্তাবাহকের মাধ্যমে পাঠিয়ে দেয়ার কথা বলেন বিচারক।

ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে উদ্দেশ্য করে বিচারক বলেন, ‘যিনি বাচ্চাদের বের করে দিয়েছেন, ওই বাসায় গিয়ে তাকে বলবেন আদালত বলেছেন, কোনো ধরনের সিদ্ধান্ত বা পদক্ষেপ না নিতে। সবাই যেন বাসায় অবস্থান করেন। তাদের বাড়ির নিরাপত্তা তাদেরকেই নিশ্চয়তা দিতে হবে। পুলিশ মানুষের জীবন রক্ষা করতে পারে না। আমরা নিজেরা নিজেরা যদি সচেতন না হই তাহলে কিছু হবে না। সুতরাং ব্যারিস্টার কাজী রেহান নবীকে বলবেন বাচ্চাদের যাতে কিছু না হয়।’

১৯৯৬ থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করা কে এস নবী মারা যান ২০১৮ সালে। তার ছোট ছেলে ও শিশু দুটির বাবা সিরাতুন নবী মারা যান গত ১০ আগস্ট।

সিরাতুন নবীর সঙ্গে তার স্ত্রীর বিচ্ছেদ ঘটেছে আগেই। বাবার মৃত্যুর পর দুই শিশুকে মায়ের কাছে পাঠানো হয়। গত শনিবার তারা ঘরে ফেরে। কিন্তু গেইট খোলেননি চাচা রেহান নবী।

পরে শিশু দুটিকে নিয়ে একটি বেসরকারি টেলিভিশনের অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যোগ দেন তাদের ফুপু মেহরীন আহমেদ। জানান, বাড়িটি এখনও কেএস নবীর নামে। সেদিক থেকে দেখলে শিশু দুটিও ওই বাড়ির উত্তরাধিকারী। কিন্তু তাদেরকে ঢুকতে দেননি রেহান।

বিষয়টি আমলে নিয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ মধ্য রাতে বসে আদেশ দেয়।

রেহান নবী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এই ঘটনা সত্য নয়, এটা ফেইক।’

তাহলে আদালতের অর্ডার, পুলিশের ব্যবস্থা- এগুলো কেন হলো, এমন প্রশ্নে রেহান বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি কাল আপনার সঙ্গে কথা বলব।’

শেয়ার করুন