× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

জীবনযাপন
The number of pilgrims who have died in Saudi has exceeded a thousand
google_news print-icon

সৌদিতে মারা যাওয়া হজযাত্রীর সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে

সৌদিতে-মারা-যাওয়া-হজযাত্রীর-সংখ্যা-হাজার-ছাড়িয়েছে
ছবি: সংগৃহীত
মারা যাওয়া হজযাত্রীদের বড় অংশই অনিবন্ধিত। তাপপ্রবাহ থেকে রক্ষায় সৌদি সরকারের দেয়া সুবিধা থেকে অনিবন্ধিতরা বঞ্চিত হয়েছেন। এছাড়া পবিত্র হজের বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠান পালন করতে গিয়ে নিখোঁজ হয়েছেন বহুসংখ্যক হজযাত্রী। তাই মৃত হজযাত্রীর সংখ্যা আরও বৃদ্ধির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সৌদি আরবে পবিত্র হজ পালনের সময় তীব্র তাপপ্রবাহ ও অসহনীয় গরমে হজযাত্রী মৃত্যুর সংখ্যা এক হাজার ছাড়িয়েছে। মারা যাওয়া এসব হজযাত্রীর অর্ধেকেরও বেশি অনিবন্ধিত ছিলেন।

বার্তা সংস্থা এএফপি বৃহস্পতিবার এই তথ্য জানিয়েছে।

সৌদির সরকারি প্রশাসন, মক্কার বিভিন্ন হাসপাতাল এবং বিভিন্ন দেশের দূতাবাসের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মৃত হজযাত্রীদের সংখ্যাগত ওই টালি করেছে বার্তা সংস্থাটি। সেই টালির স্শেষ অবস্থা থেকে এই সংখ্যা নিশ্চিত করা হয়েছে।

বলা হয়েছে, হজ পালনের সময় মৃতদের তালিকায় বৃহস্পতিবার নতুন করে মিসরের আরও ৫৮ হজযাত্রীর নাম যুক্ত হয়েছে।

আরব উপসাগরীয় অঞ্চলের একজন কূটনীতিক এএফপিকে বলেছেন, হজ পালন করতে গিয়ে প্রাণ হারানো সহস্রাধিক হজযাত্রীর মধ্যে কেবল মিসরেরই নাগরিক আছেন ৬৫৮ জন।

সৌদিতে মারা যাওয়া মিসরীয়দের প্রায় ৬৩০ জনই অবৈধভাবে হজ করতে গিয়েছিলেন। যে কারণে তারা প্রখর তাপপ্রবাহ থেকে সুরক্ষা নিশ্চিতে যাত্রীদের জন্য যেসব সুবিধা ও পরিষেবা বরাদ্দ করেছে সৌদি সরকার, সেসব থেকেও বঞ্চিত হয়েছেন। অবৈধভাবে সৌদিতে প্রবেশ করা হজযাত্রীরা এবার থাকা-খাওয়া এবং এয়ার কন্ডিশন সুবিধা পাননি।

চলতি বছর হজ শুরু হয়েছে ১৪ জুন। সৌদির আবহাওয়া দপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, গত এক সপ্তাহ ধরে মক্কার তাপমাত্রা ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে উঠানামা করছে। বুধবারও মক্কার তাপমাত্রা ছিল ৫১ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

মিসরের বাইরে জর্ডান, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, সেনেগাল, তিউনিসিয়া, বাংলাদেশ ও ভারতের নাগরিকরাও রয়েছেন মৃত হজযাত্রীদের তালিকায়।

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, এবার হজ করতে মক্কায় গিয়ে মারা গেছেন ২৭ জন বাংলাদেশি।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রায় ১৮ লাখ হজযাত্রী এবার হজ করতে সৌদি আরবে গেছেন। বিদেশি হজযাত্রীদের অনেকেই মক্কার তীব্র গরমে অভ্যস্ত নন। তা ছাড়া এই হজযাত্রীদের মধ্যে এমন হাজার হাজার যাত্রী রয়েছেন, যারা বিধি মেনে সৌদিতে আসেননি। যেসব হজযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে, তাদের একটি বড় অংশই অবৈধভাবে সৌদিতে প্রবেশ করেছিলেন বলে জানিয়েছে দেশটির প্রশাসন।

এ ছাড়া পবিত্র হজের বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠান পালন করতে গিয়ে নিখোঁজ হয়েছেন বহুসংখ্যক হজযাত্রী। এই গরমে নিরাপদ আশ্রয়ের বাইরে থাকা এই হজযাত্রীদের সবাই বেঁচে আছেন- এমন নিশ্চয়তা নেই। তাই সামনের দিনগুলোতে মৃত হজযাত্রীর সংখ্যা আরও বৃদ্ধির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সৌদি আরবে পবিত্র হজের সময় পদদলন, তাঁবুতে অগ্নিকাণ্ড ও অন্যান্য দুর্ঘটনায় গত ৩০ বছরে শত শত মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। যে কারণে হজের আনুষ্ঠানিকতা নিরাপদে সম্পন্ন ও হজযাত্রীদের সুরক্ষা নিশ্চিতে নতুন অবকাঠামো তৈরি করতে বাধ্য হয়েছে সৌদি সরকার।

তবে দেশটির কর্তৃপক্ষ বর্তমানে চরম তাপদাহ থেকে হজযাত্রীদের রক্ষা করতে গিয়ে নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে।

ট্রাভেল অ্যান্ড মেডিসিন জার্নালের চলতি বছরের এক সমীক্ষায় দেখা যায়, ক্রমবর্ধমান বৈশ্বিক তাপমাত্রা তাপ প্রশমনের প্রচলিত কৌশলগুলোকে ব্যর্থ করে দিচ্ছে।

জিওফিজিক্যাল রিসার্চ লেটার্সের ২০১৯ সালের এক গবেষণায় বলা হয়, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সৌদি আরবে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় হজযাত্রীরা ভবিষ্যতে ‌‌‘চরম বিপদের’ সম্মুখীন হবেন।

সৌদির এক সমীক্ষায় বলা হয়েছে, দেশটিতে প্রত্যেক দশকে আঞ্চলিক তাপমাত্রা গড়ে শূন্য দশমিক ৪ সেন্টিগ্রেড হারে বাড়ছে এবং প্রশমন ব্যবস্থা নেয়ার পরও তাপদাহ পরিস্থিতি ক্রমাগতভাবে খারাপ আকার ধারণ করছে।

আরও পড়ুন:
সৌদিতে মারা যাওয়া বাংলাদেশি হজযাত্রীর সংখ্যা বেড়ে ১১৭

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
Israeli attack on mosque in refugee camp kills 15

শরণার্থী শিবিরের মসজিদে ইসরায়েলের হামলা, নিহত ১৫

শরণার্থী শিবিরের মসজিদে ইসরায়েলের হামলা, নিহত ১৫ ইসরায়েলের হামলায় ফিলিস্তিনে নিহতদের স্বজনের আহাজারি। ফাইল ছবি
ফিলিস্তিনের সরকারি বার্তা সংস্থা ওয়াফা এক প্রতিবেদনে জানায়, শনিবার গাজা শহরের পশ্চিমে আল-শাতি শরণার্থী শিবিরে এই হামলা চালায় ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী। হামলায় আরও বহু মানুষ আহত হয়েছে।

উত্তর গাজার আরও একটি শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলের বিমান হামলায় অন্তত ১৫ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। শিবিরের একটি মসজিদ লক্ষ্য করে ইসরায়েলি যুদ্ধবিমান থেকে এই হামলা চালানো হয়।

ফিলিস্তিনের সরকারি বার্তা সংস্থা ওয়াফা এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে।

শনিবার গাজা শহরের পশ্চিমে আল-শাতি শরণার্থী শিবিরে এই হামলা চালায় ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী। হামলায় আরও বহু মানুষ আহত হয়েছে।

এ ঘটনায় ইসরায়েলের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে এর আগে তারা এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, গাজা উপত্যকাজুড়ে তাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এর আগে হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, খান ইউনিসের মাওয়াসি এলাকার শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলের হামলায় অন্তত ৭১ জন নিহত হয়েছে। ওই ঘটনায় আরও অন্তত ২৮৯ জন আহত হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে ঢুকে হামাসের হামলায় দেশটির অন্তত এক হাজার ২০০ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়। সে সময় ২৫০ ইসরায়েলিকে জিম্মি করে নিয়ে যায় ফিলিস্তিনের সশস্ত্র শাসক গোষ্ঠী হামাস। ওই ঘটনার পর থেকে গাজায় আগ্রাসন চালিয়ে আসছে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী।

আরও পড়ুন:
হামাসের সামরিক প্রধানকে লক্ষ্য করে ইসরায়েলের হামলা, নিহত ৭১
ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ বন্ধের সময় এসেছে: বাইডেন
যুদ্ধবিরতির চেষ্টার মধ্যে গাজায় এক দিনে ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৭৭
যুদ্ধবিরতির আলোচনার মধ্যে গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ২৭
ইসরায়েলের সেনা অবস্থানে ২০০ রকেট ছুড়েছে হিজবুল্লাহ

মন্তব্য

জীবনযাপন
Israeli strike targeting Hamas military chief kills 71

হামাসের সামরিক প্রধানকে লক্ষ্য করে ইসরায়েলের হামলা, নিহত ৭১

হামাসের সামরিক প্রধানকে লক্ষ্য করে ইসরায়েলের হামলা, নিহত ৭১ ইসরায়েলের টানা আগ্রাসনে মৃত্যু নগরীতে পরিণত হয়েছে গাজা উপত্যকা। ছবি: সংগৃহীত
ইসরায়েল নির্ধারিত ‘নিরাপদ’ এলাকা মুওয়াসির ভেতরে হামলাটি চালানো হয়, যা উত্তর রাফাহ থেকে খান ইউনিস পর্যন্ত বিস্তৃত। বাস্তুচ্যুত হাজার হাজার ফিলিস্তিনি সেখানে তাঁবু করে আশ্রয় নিয়ে আছে। তবে নিহতদের মধ্যে মোহাম্মদ দাইফ আছেন কিনা তাৎক্ষণিকভাবে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

ফিলিস্তিনে দক্ষিণ গাজার খান ইউনিসে হামাসের সামরিক শাখার প্রধান মোহাম্মদ দাইফকে লক্ষ্যবস্তু করার দাবি করে ব্যাপক হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। এই হামলায় কমপক্ষে ৭১ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

ইসরায়েল নির্ধারিত ‘নিরাপদ’ এলাকা মুওয়াসির ভেতরে হামলাটি চালানো হয়, যা উত্তর রাফাহ থেকে খান ইউনিস পর্যন্ত বিস্তৃত। বাস্তুচ্যুত হাজার হাজার ফিলিস্তিনি সেখানে তাঁবু করে আশ্রয় নিয়ে আছে।

নিহতদের মধ্যে মোহাম্মদ দাইফ আছেন কিনা তাৎক্ষণিকভাবে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে ইসরায়েলি কর্মকর্তাদের দাবি, দাইফ ও হামাসের দ্বিতীয় কমান্ডার রাফা সালামাকে লক্ষ্য করে এই হামলা চালানো হয়।

হামলায় আরও অন্তত ২৮৯ জন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এক বিবৃতিতে মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, হতাহতদের বেশ কয়েকজনকে পাশের নাসের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

অনেকের মতে, গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের দক্ষিণাঞ্চলে হামলার মূল কারিগর ছিলেন হামাসের এই কমান্ডার। ওই ঘটনায় এক হাজার ২০০ বেসামরিক ইসরায়েলি নিহত হয়। আর এর পর থেকে নয় মাসের বেশি সময় ধরে গাজায় আগ্রাসন চালিয়ে আসছে ইসরায়েল।

মোহাম্মদ দাইফ বেশ কয়েক বছর ধরে ইসরায়েলের মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকার শীর্ষে রয়েছেন। অতীতে ইসরায়েলের একাধিক হত্যাচেষ্টা থেকে রক্ষা পেয়েছেন তিনি।

দাইফকে লক্ষ্য করে এই হামলা চলমান যুদ্ধবিরতি আলোচনাকে হুমকির মুখে ফেলেছে।

তবে ইসরায়েলের দাবি প্রত্যাখ্যান করে হামাসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দখলদারদের (ইসরায়েল) ফিলিস্তিনি নেতাদের লক্ষ্যবস্তু করার দাবি এটিই প্রথম নয়। কিন্তু প্রতিবারই তাদের এসব দাবি মিথ্যা প্রমাণ হয়েছে।

হামাসের মুখপাত্র জিহাদ ত্বহা বলেছেন, দাইফ হামলার লক্ষ্যবস্তু ছিলেন বলে যে দাবি করা হয়েছে তা ভিত্তিহীন এবং (গাজায় সংঘটিত) অপরাধ ও গণহত্যার ন্যায্যতা ও তা ধামাচাপা দেয়ার উদ্দেশ্যেই এগুলো রটানো হচ্ছে।

মোহাম্মদ দাইফ দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে আত্মগোপনে রয়েছেন। একাধিক গুপ্ত হত্যাচেষ্টা থেকে বেঁচে যাওয়ার পর তিনি পক্ষাঘাতগ্রস্ত বলে ধারণা করা হয়। ইসরায়েলের প্রকাশিত একটি পরিচয়পত্রে তার ৩০ বছর বয়সী ছবিই এখন পর্যন্ত দেখা গেছে। এমনকি গাজায়ও খুব বেশি মানুষ তাকে দেখেননি।

আরও পড়ুন:
ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ বন্ধের সময় এসেছে: বাইডেন
যুদ্ধবিরতির চেষ্টার মধ্যে গাজায় এক দিনে ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৭৭
যুদ্ধবিরতির আলোচনার মধ্যে গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ২৭
ইসরায়েলের সেনা অবস্থানে ২০০ রকেট ছুড়েছে হিজবুল্লাহ
যুদ্ধবিরতি ও জিম্মি চুক্তির ‘দ্বারপ্রান্তে’ ইসরায়েল ও হামাস

মন্তব্য

জীবনযাপন
There is no bar to the release of the Imran couple who were acquitted in the last case

শেষ মামলায় ইমরান দম্পতি খালাস, কারামুক্তিতে বাধা নেই

শেষ মামলায় ইমরান দম্পতি খালাস, কারামুক্তিতে বাধা নেই ইমরান খান ও তার স্ত্রী বুশরা বিবি। ছবি: সংগৃহীত
ইদ্দত মামলার কারণেই পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জেলে আটকে আছেন। অন্য মামলাগুলোর কোনোটিতে জামিন আবার কোনোটিতে খালাস পেয়েছেন। শনিবারের এই রায়ের পর তাকে জেলে আটকে রাখার আর কোনো বিদ্যমান মামলা নেই।

কারাগার থেকে মুক্তি পাচ্ছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ইসলামাবাদের জেলা ও সেশন কোর্টের একজন বিচারপতি শনিবার ইমরান খান ও তার স্ত্রী বুশরা বিবির বিরুদ্ধে ইদ্দত মামলায় দেয়া অভিযোগ তুলে নিয়েছেন।

এই মামলাটির কারণেই পাকিস্তান তেহরিক ই ইনসাফের (পিটিআই) প্রতিষ্ঠাতা জেলে আটকে আছেন। অন্য মামলাগুলোর কোনোটিতে জামিন আবার কোনোটিতে খালাস পেয়েছেন। শনিবারের এই রায়ের পর তাকে জেলে আটকে রাখার আর কোনো বিদ্যমান মামলা নেই।

অনলাইন ডনের এক রিপোর্টে বলা হয়, ইমরান খান এই মামলায় প্রায় এক বছর জেলে আছেন। শনিবার দিনের শুরুতে মামলার রায় সংরক্ষিত রাখার পর স্থানীয় সময় বিকেল ৩টার পর বিচারক আফজাল মাজোকা রায় ঘোষণা করেন।

আপিল গ্রহণ করে বিচারক বলেন, ‘অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আর কোনো মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা না থাকলে অবিলম্বে পিটিআই প্রতিষ্ঠাতা ইমরান খান ও বুশরা বিবিকে মুক্তি দেয়া উচিত।

‘পিটিআই প্রধান এবং তার স্ত্রীর মুক্তির আদেশও ইস্যু করা হয়েছে।’

রিপোর্টে বলা হয়, ইমরান খানের কারামুক্তিতে আর কোনো বাধা নেই। তোষাখানা ও সাইফার বা কূটনৈতিক বার্তা বিষয়ক মামলায় এর আগে তিনি বেকসুর খালাস পেয়েছেন। জাতীয় নির্বাচনের কয়েকদিন আগে ৩ ফেব্রুয়ারি ইমরান দম্পতিকে ইদ্দত মামলায় অভিযুক্ত করা হয়। বুশরা বিবির সাবেক স্বামী খাওয়ার ফরিদ মানেকার মামলায় তাদেরকে অভিযুক্ত করা হয়েছিল।

ফরিদ মানেকার অভিযোগ করেন, বুশরা বিবির ইদ্দতের সময় শেষ হয়ে যাওয়ার আগেই ইমরান খানের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছে। এ মামলার শুনানিতে সিনিয়র সিভিল জজ কুদরাতুল্লাহ সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও তার স্ত্রী বুশরাকে সাত বছর করে জেল এবং পাঁচ লাখ রুপি করে জরিমানা করেন।

নাগরিক সমাজ, নারী অধিকারকর্মী এবং আইনজীবীরা আদালতের এই রায়ের কড়া সমালোচনা করেন। তোষাখানা ও সাইফার মামলায় তাদেরকে জেল দেয়ার কাছাকাছি সময়ে এই রায় দেয়া হয়।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Obamas concern about Biden

বাইডেনকে নিয়ে ওবামার শঙ্কা

বাইডেনকে নিয়ে ওবামার শঙ্কা প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। ছবি: সংগৃহীত
বারাক ওবামা জো বাইডেনের পুনর্নির্বাচনে জয়ী হওয়ার ক্ষমতা নিয়ে গভীর সংশয় প্রকাশ করেছেন বলে সিএনএনকে জানিয়েছেন একাধিক ডেমোক্র্যাট সদস্য।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এবং হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি নভেম্বরের নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ভবিষ্যৎ নিয়ে ব্যক্তিগত মতামত দিয়েছেন।

রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেনের জয়ের বিষয়ে সাবেক প্রেসিডেন্ট ও স্পিকার উভয়েই উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

কংগ্রেসের এক ডজনের বেশি সদস্য, কর্মী এবং ওবামা ও পেলোসি উভয়ের যোগাযোগে থাকা একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলার পর বৃহস্পতিবারের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে সিএনএন।

ওই ব্যক্তিরা বলেছেন, ওবামা ও পেলোসি দুজনই মনে করেন যে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের পক্ষে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে পরাজিত করা অনেক বেশি কঠিন হয়ে উঠেছে।

প্রথম দফার প্রেসিডেন্ট বিতর্কে প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাম্পের বিপক্ষে দুর্বল ও বিব্রতকর ফলের পর নভেম্বরের নির্বাচনের প্রার্থিতা থেকে পদত্যাগ করতে জো বাইডেনকে সরাসরি ও ব্যক্তিগতভাবে আহ্বান জানিয়ে আসছে ডেমোক্র্যাটদের একাংশ।

২৭ জুনের বিতর্কের পর ওবামা এক এক্স বার্তায় বলেছেন, ‘বিতর্কে খারাপ রাত আসে কখনও কখনও। এমনটা ঘটতে পারে। আমাকে বিশ্বাস করুন, আমি জানি।’

এর ঠিক পরের রাতে হাউস ডেমোক্র্যাটদের জন্য নিউ ইয়র্কে এক তহবিল সংগ্রহে ওবামা একই অনুভূতির পুনরাবৃত্তি করেন।

বারাক ওবামা জো বাইডেনের পুনর্নির্বাচনে জয়ী হওয়ার ক্ষমতা নিয়ে গভীর সংশয় প্রকাশ করেছেন বলে সিএনএনকে জানিয়েছেন একাধিক ডেমোক্র্যাট সদস্য।

দুই সপ্তাহ পার হলেও এ বিষয়ে ওবামার জনসমক্ষে মন্তব্য না করার সিদ্ধান্তকে অনেক নেতৃস্থানীয় ডেমোক্র্যাট মনে করছেন যে পুরনো রাজনৈতিক সহকর্মীর বিরুদ্ধে প্রকাশ্য বিবৃতি দেয়ার পরিকল্পনা তার নেই।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে শীর্ষ নেতৃত্বের ঘনিষ্ঠ এক ডেমোক্র্যাট সিএনএনকে বলেন, ‘তারা প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নিজের সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর জন্য অপেক্ষা করছেন ও দেখছেন।’

বাইডেন প্রচার ক্যাম্পেইন এ বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছে।

তবে ওবামার সঙ্গে নিয়মিত কথা বলা একজন ডেমোক্র্যাট বলেছেন, ‘তিনি ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থীর জন্য সর্বাত্মক প্রচারে নামতে চলেছেন। আমাদের মনোনীত প্রার্থী যেই হোন না কেন, তিনি নভেম্বরে সেই ব্যক্তির বিজয় নিশ্চিত করতে সাহায্য করবেন।’

ওবামা এ বছর দুটি তহবিল সংগ্রহের ইভেন্টে বাইডেনের পাশে ছিলেন।

অন্যদিকে ক্যালিফোর্নিয়ার একজন ডেমোক্র্যাট স্পষ্ট করে বলেছেন যে পেলোসি বিতর্কের পর থেকে কয়েক বার বাইডেনের সঙ্গে কথা বলেছেন। তবে তিনি বাইডেনের রেসে থাকার সিদ্ধান্তকে চূড়ান্ত হিসাবে দেখছেন না।

পেলোসির ঘনিষ্ঠ ওই ডেমোক্র্যাট এ বিষয়ে আর কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

ডেমোক্র্যাটদের অনেকেই আশা করছেন যে ওবামা এবং পেলোসি গত দুই সপ্তাহ ধরে ডেমোক্র্যাটদের আচ্ছন্ন করে রাখা অশান্তির অবসান ঘটাতে পারবেন।

বেশ কয়েকজন নেতৃস্থানীয় ডেমোক্র্যাট বলেছেন, নির্বাচনের চার মাসের মতো সময় থাকতে আরও বেশি ক্ষতি হওয়ার আগে তাদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব প্রেসিডেন্ট বাইডেনের বিষয়ে পরিষ্কারভাবে বলা দরকার।

আরও পড়ুন:
সুপ্রিম কোর্টে ট্রাম্পের দায়মুক্তি বিপজ্জনক নজির: বাইডেন
তহবিল সংগ্রহ অনুষ্ঠানে বাইডেনের কণ্ঠে জয়ের প্রত্যয়
বাইডেনকে সরে দাঁড়াতে বলল নিউ ইয়র্ক টাইমস সম্পাদকীয় পরিষদ
বিতর্কে বাজে পারফরম্যান্স স্বীকার করে ট্রাম্পকে হারানোর প্রতিজ্ঞা বাইডেনের
বিতর্কে বাইডেনকে ‘খুব খারাপ ফিলিস্তিনি’ বললেন ট্রাম্প

মন্তব্য

জীবনযাপন
Nepal Prime Minister Pushpa Dahal deposed

নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প দাহাল ক্ষমতাচ্যুত

নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প দাহাল ক্ষমতাচ্যুত পুষ্প কমল দাহাল। ছবি: সংগৃহীত
শুক্রবার পার্লামেন্টে আস্থা ভোটে জোট সরকার থেকে দেশটির সবচেয়ে বড় দল ইউএমএল নিজেদের সরিয়ে নিলে ক্ষমতা হারাতে হয় প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কমল দাহালকে। নতুন প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন কমিউনিস্ট পার্টির নেতা খড়গ প্রসাদ অলি।

পার্লামেন্টে আস্থা ভোটে হেরে ক্ষমতাচ্যুত হলেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কমল দাহাল। শুক্রবার পার্লামেন্টে আস্থা ভোটে জোট সরকার থেকে দেশটির সবচেয়ে বড় দল নিজেদের গুটিয়ে নিলে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়। সূত্র: এপি

প্রধানমন্ত্রী পুষ্প দাহালের জোট সরকারের ওপর থেকে ৩ জুলাই সমর্থন প্রত্যাহার করে নেয় জোটের সবচেয়ে বড় দল ইউএমএল। ফলে সংবিধান অনুযায়ী বাধ্য হয়ে পুষ্পকে সংসদে আস্থা ভোটের আয়োজন করতে হয়।

নেপালের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে ২৭৫টি আসন রয়েছে। কোনো প্রধানমন্ত্রীকে আস্থা ভোটে জিততে কমপক্ষে ১৩৮টি ভোট প্রয়োজন। কিন্তু শুক্রবারের ওই আস্থা ভোটে পুষ্প পেয়েছেন মাত্র ৬৩টি ভোট। ২৫৮ জন আইনপ্রেণেতার মধ্যে তার বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন ১৯৪ জন।

পুষ্প দাহালের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করে ইউএমএল হাত মেলায় দেশটির অন্যতম রাজনৈতিক দল নেপালি কংগ্রেসের সঙ্গে। এই জোট এখন দেশটির নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কমিউনিস্ট পার্টির নেতা খড়গ প্রসাদ অলিকে নির্বাচিত করবে।

গত বছরের ডিসেম্বরে নেপালে নির্বাচন হয়। এতে পুষ্প কমল দাহালের দল সংসদে তৃতীয় সর্বোচ্চ আসন পেলেও তিনি প্রধানমন্ত্রী হন। তবে ওই সময় থেকেই তার জোটটি নড়বড়ে ছিল। শেষ পর্যন্ত এ বছরের জুলাইয়ে এসে তাকে ক্ষমতা হারাতে হলো। সবমিলিয়ে তিনি মাত্র ১৯ মাস প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।

আরও পড়ুন:
নেপালের নতুন প্রেসিডেন্ট রাম চন্দ্র পাওদেল
নাগরিকত্ব নিয়ে ঝামেলায় মন্ত্রিত্ব হারালেন নেপালের উপপ্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

জীবনযাপন
Time to stop Israel Hamas war Biden

ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ বন্ধের সময় এসেছে: বাইডেন

ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ বন্ধের সময় এসেছে: বাইডেন ছবি: সংগৃহীত
ওয়াশিংটনে সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে কঠিন, জটিল সমস্যা রয়ে গেছে। যুদ্ধ শেষ করার ক্ষেত্রে এখনও ফাঁক রয়েছে। তবে আমরা অগ্রগতি অর্জন করছি। এই চুক্তিটি সম্পন্ন করতে এবং এই যুদ্ধের অবসান ঘটাতে আমি দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।’

গাজায় যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে পৌঁছানোর লক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতাকারীদের উদ্যোগে যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি বলেছেন, ‘সময় এসেছে ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ বন্ধের।’

যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র দেশ ইসরায়েলের প্রতি সামগ্রিক সমর্থন সত্ত্বেও ইহুদি রাষ্ট্রটির পদক্ষেপ সম্পর্কে উদ্বেগের কথা স্বীকার করেন বাইডেন। তার পুনর্নির্বাচিত হওয়ার ব্যাপারে সন্দেহকারীদের দাবি বাতিল করার লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটনে প্রায় ঘণ্টাব্যাপী সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট এসব কথা বলেন।

ওয়াশিংটনে ন্যাটো শীর্ষ সম্মেলনের পর জো বাইডেন বলেন, ‘অনেক কিছু আছে, যেসব বিষয়ে আমি ইসরায়েলিদের রাজি করাতে পারতাম। কিন্তু মূল কথা হল আমাদের এখন সুযোগ আছে। এই যুদ্ধ শেষ করার সময় এসেছে।’

‘ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে কঠিন, জটিল সমস্যা রয়ে গেছে। যুদ্ধ শেষ করার ক্ষেত্রে এখনও ফাঁক রয়েছে। তবে আমরা অগ্রগতি অর্জন করছি।’

তিনি বলেন, ‘প্রবণতাটি ইতিবাচক এবং আমি এই চুক্তিটি সম্পন্ন করতে এবং এই যুদ্ধের অবসান ঘটাতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, যা এখনই শেষ হওয়া উচিত।’

বাইডেন এক মাসেরও বেশি আগে একটি পরিকল্পনা তৈরি করেছিলেন যাতে ইসরায়েল সাময়িকভাবে গাজায় হামলা বন্ধ করবে এবং হামাস যোদ্ধারা জিম্মিদের মুক্তি দেবে। একইসঙ্গে ধ্বংসাত্মক নয় মাসব্যাপী চলমান যুদ্ধের স্থায়ী সমাপ্তির জন্য আলোচনার মঞ্চ তৈরি হবে।

হামাস পাল্টা প্রস্তাব নিয়ে ফিরে এসেছে এবং ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু তার কিছু কট্টর-ডান সরকারের মিত্রদের কাছ থেকে পুশব্যাকের মুখোমুখি হয়েছেন।

তবে কূটনীতিকরা মূল মধ্যস্থতাকারী কাতারে বৃহস্পতিবার শেষ হওয়া সবশেষ আলোচনায় অগ্রগতির কথা বলেছেন।

হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান বলছে, ইসরায়েলি হামলায় গাজায় কমপক্ষে ৩৮ হাজার ৩৪৫ জন নিহত হয়েছে। এদের বেশিরভাগই নারী ও শিশু।

আরও পড়ুন:
লেবাননে ইসরায়েলি হামলায় হিজবুল্লাহর সিনিয়র কমান্ডার নিহত
গাজায় যুদ্ধে বাস্তুচ্যুত ১৯ লাখ ফিলিস্তিনি: জাতিসংঘ
সুপ্রিম কোর্টে ট্রাম্পের দায়মুক্তি বিপজ্জনক নজির: বাইডেন
তহবিল সংগ্রহ অনুষ্ঠানে বাইডেনের কণ্ঠে জয়ের প্রত্যয়
বাইডেনকে সরে দাঁড়াতে বলল নিউ ইয়র্ক টাইমস সম্পাদকীয় পরিষদ

মন্তব্য

জীবনযাপন
Tulip Siddique is Britains Minister of Cities

ব্রিটেনের নগরমন্ত্রী হলেন টিউলিপ

ব্রিটেনের নগরমন্ত্রী হলেন টিউলিপ টিউলিপ সিদ্দিক। ছবি: সংগৃহীত
৫ জুলাই বাকিংহাম প্যালেস থেকে ফিরেই মন্ত্রিসভা গঠনের কাজ শুরু করেন নতুন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী কিয়ার স্টারমার। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। লেবার এমপি অ্যাঞ্জেলা রেনারকে উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। আর ব্রিটেনের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড হাইগেট আসন থেকে নির্বাচিত এমপি টিউলিপকে নগরমন্ত্রী করা হয়েছে।

ব্রিটেনের নগরমন্ত্রী হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপ সিদ্দিক।

বিবিসির প্রতিবেদন মতে, ৫ জুলাই বাকিংহাম প্যালেস থেকে ফিরেই মন্ত্রিসভা গঠনের কাজ শুরু করেন নতুন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী কিয়ার স্টারমার।

ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। লেবার এমপি অ্যাঞ্জেলা রেনারকে উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। সেই ধারাবাহিকতায় ব্রিটেনের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড হাইগেট আসন থেকে নির্বাচিত এমপি টিউলিপকে নগরমন্ত্রী করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্যের সদ্যসমাপ্ত নির্বাচনে ১৪ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা কনজারভেটিভ পার্টিকে বিশাল ব্যবধানে হারায় টিউলিপের দল লেবার পার্টি। নির্বাচনে টানা চতুর্থবারের মতো জয় পান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি টিউলিপ সিদ্দিক। লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড হাইগেট আসন থেকে লেবার পার্টির হয়ে লড়েন তিনি।

জয়ের পর টিউলিপ সিদ্দিক বলেন, ‘সবাইকে শুভেচ্ছা জানাই। আপনাদের দোয়ায় চতুর্থবারের মতো আমি নির্বাচিত হলাম। বাংলাদেশি কমিউনিটি সব সময় আমাকে সমর্থন করে। আমি তাদের প্রতি খুবই কৃতজ্ঞ যে, তারা এবারও আমাকে সমর্থন দিয়েছেন।’

মেয়ের জয়ে উচ্ছ্বসিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ রেহানাও। তিনি বলেন, ‘আমার মেয়ে আবার এমপি নির্বাচিত হলো। মানুষের সেবায় সে নিষ্ঠার সঙ্গে তার দায়িত্ব পালন করবে। শুধু নির্বাচনের সময় নয়, সারা বছরই সে এলাকায় কাজ করে। সবার কাছে দোয়া চাই, সে যেন তার কাজ নিষ্ঠার সঙ্গে করতে পারে।’

মন্তব্য

p
উপরে