× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

জীবনযাপন
234 Lead Hodge Agency Final
google_news print-icon

২৩৪ ‘লিড হজ এজেন্সি’ চূড়ান্ত

২৩৪-লিড-হজ-এজেন্সি-চূড়ান্ত
চলতি বছর ছোট ছোট এজেন্সিগুলো পর্যাপ্তসংখ্যক হজযাত্রী নিবন্ধনে ব্যর্থ হয়েছে। এ অবস্থায় সেসব এজেন্সিকে ২৩৪টি বড় এজেন্সির সঙ্গে একত্রিত করা হয়েছে। এসব এজেন্সির মাধ্যমে হজযাত্রী পরিবহনের কার্যক্রম চলবে।

পর্যাপ্তসংখ্যক হজযাত্রী না পাওয়া ছোট ছোট এজেন্সিগুলোকে বড় এজেন্সির সঙ্গে একত্রিত করা হয়েছে। ‘লিড এজেন্সি’ হিসেবে উল্লেখ করে এমন ২৩৪টি এজেন্সি চূড়ান্ত করে তালিকা প্রকাশ করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

সোমবার ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এই তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

চলতি বছর এক হাজার ৫৩৩টি হজ এজেন্সির মাধ্যমে হজযাত্রী পাঠানোর অনুমোদন দেয় ধর্ম মন্ত্রণালয়। কিন্তু একাধিক বার নিবন্ধনের সময় বাড়িয়েও সেই লক্ষ্য পূরণ হয়নি। ছোট ছোট এজেন্সিগুলো পর্যাপ্তসংখ্যক হজযাত্রী নিবন্ধনে ব্যর্থ হয়েছে। এ অবস্থায় সেসব এজেন্সিকে ২৩৪টি বড় এজেন্সির সঙ্গে একত্রিত করা হয়েছে। যাকে বলা হয়েছে ‘লিড এজেন্সি’।

ধর্ম মন্ত্রণালয় ও সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে হজযাত্রী পরিবহন ইস্যুতে এসব লিড এজেন্সির সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করবে।

মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সৌদি হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুসারে ২০২৪ সালে হজের সৌদি আরব পর্বের যাবতীয় ব্যয় ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ হজ অফিস, জেদ্দার ব্যাংক হিসাবে পাঠাতে হবে। বাংলাদেশ হজ অফিস, জেদ্দার ব্যাংক হিসাব থেকে এজেন্সির আইবিএএন (IBAN) হিসাবে অর্থ গ্রহণ করবে।

ইতোমধ্যে হজযাত্রী সমন্বয়ের মাধ্যমে লিড এজেন্সি নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে হজযাত্রী সমন্বয় করা হলেও হজযাত্রীর অর্থ সমন্বয়কারী এজেন্সি থেকে লিড এজেন্সির ব্যাংক হিসাবে পাঠানো হয়নি।

এছাড়া, ইতোপূর্বে হজযাত্রীর সংখ্যানুসারে প্রয়োজনীয় অর্থ সোনালী ব্যাংক, রমনা করপোরেট শাখায় ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় পরিচালিত ‘AGENCY PILGRIMS FUND PAYBLE TO KSA’ শিরোনামে ৪৪২৬৩০২০০৩৭৬৫ নম্বর হিসাবে জমাদানের জন্য প্রতিটি লিড এজেন্সিকে অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
হজযাত্রীদের নিবন্ধন ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত
সময় বাড়ল হজযাত্রী নিবন্ধনের
সৌদি সুযোগ দিলে হজ নিবন্ধনের সময় বাড়ানো হবে
হজ প্যাকেজের টাকা নির্ধারণ নিয়ে রুল
সময় বাড়ল হজযাত্রী নিবন্ধনের

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
Prime Ministers instructions not to hold official big Iftar parties

সরকারিভাবে বড় ইফতার পার্টি না করার নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর

সরকারিভাবে বড় ইফতার পার্টি না করার নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: ফোকাস বাংলা
মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে বেসরকারিভাবে ইফতার পার্টি আয়োজনকেও নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। তিনি বলেছেন, কারও যদি এ ধরনের অনুষ্ঠান করার ইচ্ছা থাকে তাহলে যেন সেই অর্থে খাদ্য কিনে গরিব মানুষদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।’

আসন্ন পবিত্র রমজানে সরকারিভাবে বড় ধরনের কোনো ইফতার পার্টি উদযাপন না করার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় তিনি এই নির্দেশনা দেন।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় এই বৈঠকে একইসঙ্গে বেসরকারিভাবেও এ ধরনের ইফতার পার্টি আয়োজনকে নিরুৎসাহিত করার কথা বলেছেন সরকার প্রধান।

বিকেলে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বৈঠকের সিদ্ধান্ত ও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার কথা জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে একটা নির্দেশনা আছে, সেটা হলো রমজান মাসে সরকারিভাবে বড় করে কোনো ইফতার পার্টি আয়োজন করা যাবে না।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে নির্দেশনা আছে, রমজান মাসে সরকারিভাবে বড় ধরনের ইফতার পার্টি নামক কোনো বিষয় উদযাপন করা যাবে না। তিনি এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক করেছেন।

তিনি বলেন, বেসরকারিভাবে ইফতার পার্টি আয়োজনকে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কারও যদি এ ধরনের অনুষ্ঠান করার ইচ্ছা থাকে তাহলে যেন সেই অর্থে খাদ্য কিনে গরিব মানুষদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।

মাহবুব হোসেন আরও বলেন, ‘আপনাদের বুঝতে হবে আমরা যেন অপচয় না করি। আমরা যেন লোক দেখানো কার্যক্রমে নিজেদের নিয়োজিত না করি। তার বদলে ওই টাকাটা যদি আপনি কারও কল্যাণে ব্যবহার করতে চান, গরিব মানুষ যাদের টার্গেট করলেন তাদের আপনি বিলিয়ে দিতে পারেন। আমি-আপনি বসে খেলাম, ওখানে অনেক খাদ্যের অপচয় হলো, অর্থের অপচয় হলো। এটার তো ধর্মীয় দিক থেকেও যুক্তি থাকতে পারে না।

প্রসঙ্গত, রমজান মাসের চাঁদ দেখা সাপেক্ষে এ বছর রোজা শুরু হতে পারে ১২ বা ১৩ মার্চ।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Crowds of worshipers in mosques on the night of destiny

ভাগ্য নির্ধারণের রাতে মসজিদে মসজিদে মুসল্লিদের ভিড়

ভাগ্য নির্ধারণের রাতে মসজিদে মসজিদে মুসল্লিদের ভিড় রোববার পবিত্র শবে বরাত; ইবাদত-বন্দেগিতে মহিমান্বিত এ রাতটি পালন করছেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। গুনাহ মাফের আশায় ধরনা দিচ্ছেন মহান আল্লাহর দরবারে। ছবিটি বায়তুল মোকাররম মসজিদ থেকে তোলা। ছবি: ফোকাস বাংলা।
রোববার মাগরিবের নামাজের পর থেকেই আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় তারা আদায় করছেন নামাজ। ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় মহান রাব্বুল আলামিনের রহমত কামনায় নফল ইবাদত-বন্দেগির মধ্যদিয়ে রাতটি অতিবাহিত করছেন।

সৌভাগ্যের বা মুক্তির রাত হিসেবে পরিচিত পবিত্র শবে বরাতে ইবাদত বন্দেগির জন্য রাজধানীর মসজিদে মসজিদে এখন মুসল্লিদের ভিড়।

রোববার মাগরিবের নামাজের পর থেকেই আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় তারা আদায় করছেন নামাজ। ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় মহান রাব্বুল আলামিনের রহমত কামনায় নফল ইবাদত-বন্দেগির মধ্যদিয়ে রাতটি অতিবাহিত করছেন।

রাজধানীসহ সারা দেশজুড়েই রাতভর মসজিদে প্রার্থনা করে সময় কাটানোর প্রস্তুতি নিয়েছেন মুসল্লিরা। এ উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকেও নেয়া হয়েছে ব্যবস্থা।

রাত জেগে ইবাদাত করবেন বলে ঠিক করেছেন মগবাজার নিবাসী সজিব তাওহীদ। তাই দূরে না গিয়ে বাড়ির পাশের মসিজদেই নামাজ আদায় করতে আসেন তিনি। তিনি বলেন, ‘আজকের রাতে আল্লাহর দরবারে বেশি সময় থাকব। নিজের ভুল ত্রুটির জন্য ক্ষমা চাইব।’

মাহে রমজান ও সৌভাগ্যের আগমনী বার্তা নিয়ে পবিত্র শবে বরাত সমাগত হয়। ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা এ রাতে মহান আল্লাহর রহমত ও নৈকট্য লাভের আশায় নফল নামাজ, কোরআন তিলাওয়াত, জিকির-আজগারসহ বিভিন্ন ইবাদতে মশগুল হন।

হিজরি বর্ষের ১৪ শাবান রাতকে বলা হয় সৌভাগ্যের রজনী। বলা হয়ে থাকে, মহিমান্বিত এ রাতে আল্লাহ তার বান্দাদের ভাগ্য নির্ধারণ করেন।

বাংলাদেশের আকাশে গত ১১ ফেব্রুয়ারি হিজরি শাবান মাসের চাঁদ দেখা যায়। পরদিন থেকে শাবান মাস গণনা শুরু হয়। সে হিসাবে ২৫ ফেব্রুয়ারি দিনগত রাতে নির্ধারিত হয় পবিত্র শবে বরাত।

পবিত্র শবে বরাত উপলক্ষে মাগরিব ও এশার নামাজের পর এবং রাতে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদেও নেয়া হয়েছে প্রস্তুতি।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে নামাজ আদায় করে মোনাজাতে অংশ নিতে দূর দূরান্ত থেকে অনেকেই এসেছেন। তাদের অনেককেই নিজের জায়নামাজ সঙ্গে নিয়ে আসতে দেখা গেছে।

অনেকে মসজিদ থেকে ফিরে নিজ বাসাতেও ইবাদাত বন্দেগিতে মশগুল হবেন। বিশেষ করে নারীরা আজকের রাতে বাসায় বসে আল্লাহর নৈকট্য লাভে ইবাদাতে অংশ নিচ্ছেন।

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য আর ইবাদাত বন্দেগির মধ্য দিয়ে দিনটি পার হলেও, এদিন নানা উপাদেয় খাবার তৈরির এক ধরনের সংস্কৃতি চালু রয়েছে।

নানা স্বাদের মিষ্টান্ন, সেমাই, হালুয়া তৈরি করা হয়। এ নিয়ে পুরান ঢাকায় রীতিমত ব্যবসায়ীরা তাদের পসরা সাজিয়ে বসেন। যারা বাসা-বাড়িতে এসব তৈরি করতে পারেন না, তারা সেখান থেকে পছন্দের খাবার কিনে নিয়ে যান। এদিন বাড়িতে বাড়িতে ভালো খাবার তৈরিরও প্রচলন রয়েছে।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Holy Shabbat today

পবিত্র শবে বরাত আজ

পবিত্র শবে বরাত আজ প্রতীকী ছবি
শবে বরাতের পরদিন বাংলাদেশে নির্বাহী আদেশে সরকারি ছুটি। এবার এই ছুটি পড়েছে ২৬ ফেব্রুয়ারি সোমবার।

সারা দেশে পবিত্র শবে বরাত পালিত হবে আজ রোববার।

ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় মহান রাব্বুল আলামিনের রহমত কামনায় নফল ইবাদত-বন্দেগির মধ্যদিয়ে আজকের রাতটি অতিবাহিত করবেন।

বাংলাদেশের আকাশে ১১ ফেব্রুয়ারি হিজরি শাবান মাসের চাঁদ দেখা যায়। পরদিন থেকে শাবান মাস গণনা শুরু হয়। সে হিসাবে আজ ২৫ ফেব্রুয়ারি দিনগত রাতে পবিত্র শবে বরাত পালিত হবে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে শবে বরাতের তারিখ নির্ধারণে ১১ ফেব্রুয়ারি রোববার সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয় বলে ফাউন্ডেশনের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

এ রাতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ মহান আল্লাহর রহমত ও নৈকট্য লাভের আশায় নফল নামাজ, কোরআন তেলাওয়াত, জিকির, ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিলসহ এবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে কাটাবেন।

মুসলিম উম্মাহর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে মুসলমানরা বিশেষ মোনাজাত করবেন।

শবে বরাতের পরদিন বাংলাদেশে নির্বাহী আদেশে সরকারি ছুটি। এবার এই ছুটি পড়েছে ২৬ ফেব্রুয়ারি সোমবার।

শাবান মাস শেষে মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতরের আনন্দ বার্তা নিয়ে শুরু হয় সিয়াম সাধনার মাস পবিত্র রমজান।

আরও পড়ুন:
শবে বরাতের তারিখ নির্ধারণে চাঁদ দেখা কমিটির সভা রোববার

মন্তব্য

জীবনযাপন
Citizens of 29 countries can perform Umrah without visa

ভিসা ছাড়াই ওমরাহ করতে পারবেন ২৯ দেশের নাগরিক

ভিসা ছাড়াই ওমরাহ করতে পারবেন ২৯ দেশের নাগরিক ছবি: সংগৃহীত
সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ওমরাহ প্রক্রিয়া সহজ, উন্নতমানের সেবাসহ সৌদির সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করার জন্য দেশটির ভিশন-২০৩০-এর অংশ হিসেবে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) ২৭ দেশের নাগরিকদের ভিসা ছাড়াই ওমরাহ করার সুযোগ দেবে সৌদি আরব সরকার। ওমরাহ পালন করার জন্য এসব দেশের নাগরিকদের ভিসা প্রক্রিয়া সহজ করতেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে হজের তত্ত্বাবধায়ক দেশটি।

সোমবার সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়ের বরাতে এসব তথ্য জানিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম গালফ নিউজ।

এছাড়া এসব দেশের নাগরিকদের জন্য ভিসা অন-অ্যারাইভাল প্রক্রিয়া আরও সহজ করার সিদ্ধান্তও নিয়েছে সৌদি সরকার। এমনকি, তারা ভ্রমণের উদ্দেশ্যে এসেছেন, না কি ওমরাহ পালনের জন্য এসেছেন, সে বিষয়টিও ধরা হবে না। এটি ভিসাধারীদের নিকটাত্মীয়দের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে বলে ওই প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে।

সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ওমরাহ প্রক্রিয়া সহজ, উন্নতমানের সেবাসহ সৌদির সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করার জন্য দেশটির ভিশন-২০৩০-এর অংশ হিসেবে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

মন্ত্রণালয় আরও জানিয়েছে, হজের জন্য যোগ্য ব্যক্তিরা সহজেই নুসুক অ্যাপের মাধ্যমে তাদের ওমরাহ পালনের পরিকল্পনা সাজাতে পারবেন। চাইলে এসব দেশের নাগরিকরা সৌদিতে পৌঁছেই ওমরাহ করতে পারবেন।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Biswa Zaker Manjil Urs begins in Faridpur

ফরিদপুরে বিশ্ব জাকের মঞ্জিলের উরস শুরু

ফরিদপুরে বিশ্ব জাকের মঞ্জিলের উরস শুরু ছবি: নিউজবাংলা
শুক্রবার থেকে শুরু হয়ে আগামী মঙ্গলবার ফজর নামাজ পর শাহসুফি ফরিদপুরী (কু ছে আ) রওজা জিয়ারত করা হবে। এরপর বিশ্বশান্তি কামনায় আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে চার দিনের এই উরস শরীফ।

ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার আটরশী বিশ্ব জাকের মঞ্জিলের বিশ্বওলি হজরত মওলানা শাহ্ সুফি খাজাবাবা ফরিদপুরী ছাহেবের চার দিনব্যাপী পবিত্র উরস শুরু হয়েছে।

উরস উপলক্ষে শুক্রবার লক্ষাধিক মানুষের অংশগ্রহণে বিশ্ব জাকের মঞ্জিল প্রাঙ্গণে জুমার নামাজ আদায় করা হয়।

উরস প্রাঙ্গণে কয়েক কিলোমিটারজুড়ে তাঁবু স্থাপন করা হয়েছে। দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সড়ক, নৌ ও রেলপথসহ বিভিন্ন যানবাহনে চেপে আশেকান ও জাকেরানরা সমবেত হচ্ছেন।

জাকের মঞ্জিল কর্মী গ্রুপের সমন্বয়কারী শহিদুল ইসলাম শাহিন এক প্রেস বিফিংয়ে জানান, শনিবার ফজর নামাজের পর ফাতেহা শরীফ পাঠ ও তরিকতের আমল পালনের মধ্য দিয়ে উরসের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। প্রতিদিন ফরজ আমলের পাশাপাশি পবিত্র কুরান তেলাওয়াত, জিকির আজগার, মোরাকাবা-মোশাহেদা, ওয়াজ নসিহত, ওয়াজ মাহফিল এবং সুন্নাত এবাদতের পাশাপাশি নফল এবাদত চলবে। যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে উরসের আয়োজন সফল করতে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

দেশ-বিদেশের বিপুল সংখ্যক ভক্ত-মুরিদান এবারের উরসে অংশ নেবেন বলে জানান তিনি।

বিশ্ব জাকের মঞ্জিলের কর্মী গ্রুপের ফরিদপুরের প্রধান কবিরুল ইসলাম সিদ্দিকী জানান, উরসে আসা প্রত্যেকের জন্য তবারক, রাত্রিযাপন ও বিভিন্ন যানবাহন রাখার জন্য পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। নিরাপত্তার জন্য নেয়া হয়েছে বাড়তি ব্যবস্থা।

তিনি বলেন, ‘বিশ্বওলি হজরত মাওলানা শাহ সুফি খাজাবাবা ফরিদপুরী কেবলাজান ছাহেবের স্থলাভিষিক্ত পীরজাদা মাহফুজুল হক মুজাদ্দেদী উরসের চার দিনই আশেকান-জাকেরানদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।’

আগামী মঙ্গলবার ফজর নামাজ পর শাহসুফি ফরিদপুরী (কু ছে আ) রওজা জিয়ারত করা হবে। এরপর বিশ্বশান্তি কামনায় আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে চার দিনের এই উরস শরীফ।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Saraswati Puja in Jabi by Nari Purohi

নারী পুরোহিতে জবিতে সরস্বতী পূজা

নারী পুরোহিতে জবিতে সরস্বতী পূজা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে বুধবার সরস্বতী পূজায় পুরোহিত ছিলেন শিক্ষার্থী সমাদৃতা ভৌমিক। ছবি: নিউজবাংলা
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ৩৭টি মণ্ডপে বুধবার সরস্বতী পূজার আয়োজন হয়েছে। এর মধ্যে ইংরেজি বিভাগের পূজায় পুরোহিত ছিলেন একই বিভাগের ২০১৮-১৯ সেশনের শিক্ষার্থী সমাদৃতা ভৌমিক।

পূজা-পার্বণে পৌরহিত্য করে থাকেন ব্রাহ্মণ পুরুষ। নারীরা বাকি সব কাজে অংশগ্রহণ করলেও পুরোহিতের দায়িত্বে তাদের দেখা যায় না। এবার সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সরস্বতী পূজায় ব্যতিক্রমী এক দৃশ্যের সাক্ষী হলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থীরা। পৌরহিত্য করলেন এক নারী শিক্ষার্থী।

মাঘ মাসের শুক্লপক্ষের শ্রী পঞ্চমী তিথিতে প্রতি বছর দেবী সরস্বতীর পূজা করা হয়। এবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ৩৭টি মণ্ডপে সরস্বতী পূজার আয়োজন হয়েছে। এর মধ্যে ইংরেজি বিভাগের পূজায় পুরোহিত ছিলেন একই বিভাগের ২০১৮-১৯ সেশনের শিক্ষার্থী সমাদৃতা ভৌমিক।

সমাদৃতা ভৌমিক বলেন, ‘আমাদের সনাতন শাস্ত্রমতে কোথাও বলা নেই যে নারী পুরোহিত পৌরোহিত্য করতে পারবে না। তবে সমাজের সম্মানীয় কাজগুলো এখনও পুরুষদের দখলে। এ কারণে নারী পুরোহিতদের ভিন্ন দৃষ্টিতে দেখা হয়। তবে আমার বিভাগের শিক্ষকদের অনুপ্রেরণা ও উৎসাহে আমি পৌরোহিত্য করতে উদ্বুদ্ধ হয়েছি।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. রবীন্দ্রনাথ মন্ডল বলেন, ‘আমাদের ক্যাম্পাসে এবারই প্রথম নারী পুরোহিত কোনো পূজা সম্পন্ন করলো। আমরা তাকে সাধুবাদ ও ধন্যবাদ জানিয়েছি। নারী পুরোহিতদের আমরা স্বাগত জানাই।’

এদিন ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা ও আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় পূজা উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সহযোগিতায় পূজার আয়োজন করা হয়। এবার ৩৩টি বিভাগ, ২টি ইনস্টিটিউট এবং বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল সহ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ৩৬টি পূজামন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনস্থ পোগোজ ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজেও পূজার আয়োজন করা হয়েছে।

এর আগে বুধবার সকালে বিদ্যাদেবী সরস্বতীর বন্দনায় ঢাকঢোল, কাঁসর, শঙ্খ ও উলুধ্বনিতে মুখর হয়ে ওঠে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। বাণী-অর্চনা শেষে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো. হুমায়ুন কবীর চৌধুরী পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করেন।

এসময় বিভিন্ন অনুষদের ডিন, ইনস্টিটিউটের পরিচালক, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, প্রক্টর, শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পূজামণ্ডপ পরিদর্শন শেষে উপাচার্যের সভাকক্ষে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আরও পড়ুন:
আজ সরস্বতী পূজা

মন্তব্য

জীবনযাপন
Ahmadiyya Jalsa begins in Panchgarh with unprecedented security

পঞ্চগড়ে নজিরবিহীন নিরাপত্তায় আহমদিয়া জলসা শুরু

পঞ্চগড়ে নজিরবিহীন নিরাপত্তায় আহমদিয়া জলসা শুরু পঞ্চগড়ে কঠোর নিরাপত্তায় মঙ্গলবার শুরু হয়েছে আহমদিয়া সম্প্রদায়ের তিন দিনব্যাপী জলসা। ছবি: নিউজবাংলা
জলসার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আহমদনগর এলাকাসহ পঞ্চগড় শহরের প্রতিটি আবাসিক হোটেল, মসজিদের সামনে ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। আর নিরাপত্তার স্বার্থে নিয়োজিত পুলিশ সদস্যরা রাতযাপন করছেন ২৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। ফলে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধ রয়েছে।

পঞ্চগড়ে আহমদিয়া সম্প্রদায়ের তিন দিনব্যাপী ৯৯তম সালানা জলসা (বার্ষিক সম্মেলন) শুরু হয়েছে। শহরের আহমদ নগরে মঙ্গলবার শুরু হওয়া এই জলসা চলবে ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এই জলসা ঘিরে প্রশাসনের নিরাপত্তার চাদরে ঢেকেছে পুরো পঞ্চগড়। মোতায়েন করা হয়েছে বিপুলসংখ্যক পুলিশ।

সূত্র জানায়, আগামী ২৩ থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি জলসার দিনক্ষণ নির্ধারণ করা ছিলো। তবে নিরাপত্তার স্বার্থে জলসা আয়োজনের সময় এগিয়ে আনা হয়েছে।

জলসার নিরাপত্তার স্বার্থে আহমদনগর এলাকাসহ শহরের প্রতিটি আবাসিক হোটেল, মসজিদের সামনে ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

পঞ্চগড়ে নজিরবিহীন নিরাপত্তায় আহমদিয়া জলসা শুরু
আহমদিয়া সম্প্রদায়ের বার্ষিক জলসা আয়োজন ঘিরে পঞ্চগড় শহরে পুলিশের সতর্ক অবস্থান। ছবি: নিউজবাংলা

এদিকে নিরাপত্তার স্বার্থে নিয়োজিত বিপুলসংখ্যক পুলিশ সদস্যরা রাতযাপন করছেন জেলা শহরসহ সদর উপজেলার ২৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। ফলে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধ রয়েছে।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল মালেক বলেন, ‘জেলা প্রশাসনের চিঠির আলোকে ১১ থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারি পাঁচ দিন নির্দিষ্ট কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। একেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৫০ থেকে ২০০ পুলিশ সদস্য থাকছেন। এ অবস্থায় পাঠদান করা সম্ভব হবে না বলেই এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে বিদ্যালয়ের অফিস খোলা রয়েছে এবং শিক্ষকরা দাপ্তরিক কার্যক্রম চলমান রাখছেন।

গত বছরের ২ থেকে ৪ মার্চ ৯৮তম সালানা জলসা ঘিরে পঞ্চগড় শহরে সংঘর্ষ, হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুজন নিহত হন। এ ছাড়া আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, সাংবাদিকসহ শতাধিক মানুষ আহত হন। ওই ঘটনার পর ৩২টি মামলায় ১৪ হাজারের বেশি মানুষকে আসামি করা হয়।

এবারও জলসা বন্ধের দাবিতে ২৮ জানুয়ারি সম্মিলিত খতমে নবুওয়ত সংরক্ষণ পরিষদ জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি দিয়েছে।

আরও পড়ুন:
পঞ্চগড়ে পুলিশ-বিক্ষোভকারী সংঘর্ষে নিহত ১, বিজিবি মোতায়েন
আহমদিয়াদের জলসাকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্র পঞ্চগড়

মন্তব্য

p
উপরে