× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

জীবনযাপন
When the fast starts is decided on Wednesday
google_news print-icon

রোজা শুরু কবে, বুধবার জানা যাবে

রোজা-শুরু-কবে-বুধবার-জানা-যাবে-
প্রতীকী ছবি
বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মুকাররম সভাকক্ষে এই বৈঠক হবে বলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে মঙ্গলবার জানানো হয়েছে।

১৪৪৪ হিজরি সনের পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখার সংবাদ পর্যালোচনা এবং এ বিষয়ে সিদ্ধান্তের জন্য বৈঠকে বসছে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি।

বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মুকাররম সভাকক্ষে এই বৈঠক হবে বলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে মঙ্গলবার জানানো হয়েছে।

সভায় সভাপতিত্ব করবেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান।

বাংলাদেশের আকাশে কোথাও পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেলে তা সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা প্রশাসক অথবা উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তাতে জনাতে সবাইকে অনুরোধ করা হয়েছে।

ফোন নম্বরগুলো হলো- ০২-২২৩৩৮১৭২৫, ০২-৪১০৫০৯১২, ০২-৪১০৫০৯১৬, ০২-৪১০৫০৯১৭।

আরও পড়ুন:
রোজায় ডায়াবেটিস রোগীর করণীয়, যা জানা দরকার
রোজার শুরুতে সামান্য বাড়তে পারে গরম
ইফতারে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার, যা জানা জরুরি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
Rain with thunder may occur in all the sections

ঢাকায় আজও বৃষ্টি, বজ্রসহ বর্ষণ হতে পারে সব বিভাগে

ঢাকায় আজও বৃষ্টি, বজ্রসহ বর্ষণ হতে পারে সব বিভাগে দেশজুড়ে বৃষ্টির আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। ফাইল ছবি
তাপমাত্রার বিষয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, সারা দেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

তীব্র গরমের মধ্যে বৃহস্পতিবার বৃষ্টি হয়েছিল রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায়। শুক্রবার স্বস্তির বৃষ্টি হয়েছে ঢাকায়।

এদিকে দেশের সব বিভাগে বজ্রসহ বৃষ্টির আভাস দিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর বলেছে, দুটিতে মাঝারি ধরনের ভারি থেকে ভারি বর্ষণ হতে পারে।

রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে এমন বার্তা দিয়েছে।

পূর্বাভাসে সিনপটিক অবস্থা নিয়ে বলা হয়, দক্ষিণপশ্চিম মৌসুমি বায়ু চট্টগ্রাম উপকূল পর্যন্ত অগ্রসর হয়েছে। লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও সংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে।

দিনভর আবহাওয়া কেমন থাকবে, তা নিয়ে জানানো হয়, চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগের অনেক জায়গা, রংপুর, ঢাকা, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গা এবং রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের দুই-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে ভারি বর্ষণ হতে পারে।

তাপপ্রবাহ বা দাবদাহ নিয়ে বলা হয়, রাজশাহী, নওগাঁ, সিরাজগঞ্জ, নেত্রকোণা ও সিলেট জেলাসহ রংপুর বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে অব্যাহত থাকতে পারে।

তাপমাত্রার বিষয়ে জানানো হয়, সারা দেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার অবস্থা নিয়ে অধিদপ্তর জানায়, এ সময়ের শেষের দিকে তাপমাত্রা বাড়তে পারে এবং দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ু চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগ পর্যন্ত আরও অগ্রসর হতে পারে।

আরও পড়ুন:
উত্তরের দুই জেলায় তীব্র দাবদাহ
তীব্র গরম কমতে পারে কবে
ঘূর্ণিঝড় মোখা: ত্রাণ নিয়ে মিয়ানমার যাচ্ছে নৌবাহিনীর জাহাজ
দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি হতে পারে চার বিভাগে
চার জেলায় তীব্র দাবদাহ

মন্তব্য

জীবনযাপন
No interference in internal affairs of Bangladesh Russian Ambassador

বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে আমাদের হস্তক্ষেপ নেই: রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত

বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে আমাদের হস্তক্ষেপ নেই: রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত
রাষ্ট্রদূত বলেন, পশ্চিমা দেশসমূহ রাশিয়ার বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক যুদ্ধে লিপ্ত হওয়ার কারণে বাংলাদেশসহ রাশিয়ার সাথে সম্পর্ক রয়েছে এমন বিভিন্ন দেশ বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। বিশ্বব্যাপী খাদ্য ও জ্বালানি নিরাপত্তা বাধাগ্রস্ত করছে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আলেক্সান্ডার মন্টিটস্কি বলেছেন, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে রাশিয়ার কোনো হস্তক্ষেপ নেই। তাই আগামী নির্বাচন নিয়ে আমার কোনো মন্তব্য নেই। সম্প্রতি গাজীপুরের সিটি করপোরেশনের নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে। তাই আগামী সংসদ নির্বাচনও সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হবে বলে আমার বিশ্বাস।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন। খবর বাসসের

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি সালাহ্উদ্দিন মো. রেজার সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় স্বাগত বক্তব্য দেন সাধারণ সম্পাদক দেবদুলাল ভৌমিক। প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক শহীদুল্লাহ শাহরিয়ারের সঞ্চালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি চৌধুরী ফরিদ এবং রাশিয়ার অনারারি কনসাল স্থপতি আশিক ইমরান।

রাষ্ট্রদূত বলেন, পশ্চিমা দেশসমূহ রাশিয়ার বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক যুদ্ধে লিপ্ত হওয়ার কারণে বাংলাদেশসহ রাশিয়ার সাথে সম্পর্ক রয়েছে এমন বিভিন্ন দেশ বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। বিশ্বব্যাপী খাদ্য ও জ্বালানি নিরাপত্তা বাধাগ্রস্ত করছে।

ইউক্রেনে চলমান যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশে রাশিয়ার সহায়তায় তৈরি পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ পিছিয়ে যাবে কিংবা বাধাগ্রস্ত হবে কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আলেক্সান্ডার মন্টিটস্কি বলেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে চলতি বছরের অক্টোবরেই পূর্ব নির্ধারিত শিডিউল মোতাবেক পারমাণবিক জ্বালানি সরবরাহ শুরু করবে রাশিয়া। পাবনার কাছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। বাংলাদেশের জাতীয় গ্রিডে এই পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র ২ দশমিক ৪ গিগাওয়াট বিদ্যুৎ যুক্ত করবে। ইতোমধ্যেই ২০২০-২০২১ সালে এই প্ল্যান্টের উভয় রি-এ্যাক্টর প্রেসার ভেসেল স্থাপনের কাজ সমাপ্ত হয়েছে।

মন্টিটস্কি বলেন, রাশিয়ার বৃহত্তম গ্যাস অনুসন্ধানকারী প্রতিষ্ঠান গ্যাজপ্রমের সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলো ২০১২ সাল থেকে বাংলাদেশের গ্যাসক্ষেত্রে সফলভাবে কূপ খনন করছে। সম্প্রতি ভোলা দ্বীপে ২০তম কূপ খননের কাজ শেষ হয়েছে। গ্যাজপ্রম বাংলাদেশে তার কার্যক্রমের পরিধি আরও বাড়াতে ইচ্ছুক। রাশিয়া বাংলাদেশের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

তিনি বলেন, ২০২২ সালে আমাদের সরকারি এবং বেসরকারি সংস্থাগুলি প্রায় ৯ লক্ষ ২০ হাজার মেট্রিক টন গম সরবরাহ করেছে, যা বাংলাদেশের আমদানির ৪২ শতাংশ। এ ছাড়া, ২০১৪ সাল থেকে রাশিয়াই বাংলাদেশের পটাশ সারের অন্যতম প্রধান রপ্তানিকারী দেশে। দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বাড়াতে রাশিয়ায় বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানির উদ্যোগও নেয়া হয়েছে। সম্প্রতি, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন এবং রাশিয়ান কোম্পানি ন্যাশনাল গ্রুপ এলএলসি-এর মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। এতে বাংলাদেশ থেকে রাশিয়ায় আলু এবং অন্যান্য খাদ্য সামগ্রী সরবরাহ করা যাবে।

তিনি বলেন, রাশিয়ার বাজারে বাংলাদেশে তৈরি ওষুধ, পাট, চামড়া এবং সামুদ্রিক খাবারের চাহিদা রয়েছে এবং এর যথেষ্ট সম্ভাবনাময় বাজার রয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশ নেন নুরুল আলম, মো. শহীদুল ইসলাম, বিপুল বড়ুয়া, কামাল উদ্দিন খোকন, হাজেরা শিউলী, নুরউদ্দিন আলমগীর এবং হামিদুল ইসলাম।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Tobacco kills 161000 people a year
জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেলের তথ্য

‘বছরে ১ লাখ ৬১ হাজার প্রাণ কাড়ছে তামাক’

‘বছরে ১ লাখ ৬১ হাজার প্রাণ কাড়ছে তামাক’
খুলনা সার্কিট হাউজ সম্মেলন কক্ষে বৃহস্পতিবার ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন বাস্তবায়নে করণীয় বিষয়ে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। ছবি: নিউজবাংলা
এছাড়া দেশের মোট মৃত্যুর ৬৭% শতাংশ অসংক্রামক রোগের কারণে হয়। এই অসংক্রামক রোগের পেছনে তামাকের ব্যবহার বহুলাংশে দায়ী।

দেশের জনসংখ্যার ৩৫ দশমিক ৩ শতাংশ বা ৩ কোটি ৭৮ লাখ মানুষ ধূমপানসহ বিভিন্ন তামাকজাত দ্রব্যে আসক্ত। তামাকজনিত রোগে বছরে এক লাখ ৬১ হাজার লোক মারা যায় এবং তামাকজনিত রোগের চিকিৎসায় বছরে প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকা ব্যয় হয়। এ ছাড়া দেশের মোট মৃত্যুর ৬৭% শতাংশ অসংক্রামক রোগের কারণে হয়। এই অসংক্রামক রোগের পেছনে তামাকের ব্যবহার বহুলাংশে দায়ী।

বৃহস্পতিবার দুপুরে খুলনা সার্কিট হাউজ সম্মেলন কক্ষে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন বাস্তবায়নে করণীয় বিষয়ে এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনের মাধ্যমে এ সব তথ্য জানান জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেলের কারিগরি উপদেষ্টা সৈয়দ মাহবুবুল আলম।

তিনি বলেন, “আইন অনুযায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, ক্লিনিক, শিশুপার্ক ও খেলাধুলার স্থান থেকে এক শ মিটারের মধ্যে তামাকজাত দ্রব্য বিক্রি নিষেধ। তামাকজাত দ্রব্য অথবা সিগারেট ফেরি করে বা ভ্রাম্যমান দোকানের মাধ্যমে বিক্রি করা যাবে না। সিগারেটের বিজ্ঞাপন প্রচার ও নাটক-সিনেমার দৃশ্যে ধূমপান ও মাদক গ্রহণের দৃশ্য প্রদর্শন করা নিষিদ্ধ। পাবলিক প্লেস, গণপরিবহন, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি দপ্তরে ‘ধূমপানমুক্ত এলাকা’ সাইন বোর্ড স্থাপনা না করলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আর্থিক জরিমানার মুখোমুখি করা হয়।

“ধূমপান মানে জেনেশুনে বিষপান। তামাকজাত দ্রব্য অথবা ধূমপানের ইতিবাচক কোনো প্রাপ্তি নেই বরং ক্ষতির অনেক দিক রয়েছে। ধূমপায়ী ব্যক্তি নিজে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং আশপাশে থাকা মানুষদেরও ক্ষতি করে।”

কালের বিবর্তনে তামাকের ব্যবহারেও ভিন্নতা এসেছে বলে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘তামাক, জর্দা, হুক্কা, বিড়ি, সিগারেট পেরিয়ে তরল নিকোটিন বহনকারী ক্ষতিকর ই-সিগারেটের ব্যবহারও এখন দৃশ্যমান।’

এ সময় তামাক চাষ বন্ধের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করেন তিনি। বলেন, ‘তামাক চাষ কৃষি জমির উর্বরতা নষ্ট করে। সরকার ২০৪০ সালের মধ্যে বিড়ি, সিগারেট, জর্দার মতো তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার পুরোপুরি বন্ধ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হলে দেশের মানুষ তামাকের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা পাবে।’

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেলের সহযোগিতায় খুলনা বিভাগীয় প্রশাসন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী।

অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) মো. ফিরোজ শাহের সভাপতিত্বে সেমিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনার জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন ও বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের স্থানীয় সরকার দপ্তরের পরিচালক মো. হুসাইন শওকত।

সেমিনারে বিভাগীয় পর্যায়ের বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা ও এনজিও প্রতিনিধিরা অংশ গ্রহণ করেন।

আরও পড়ুন:
তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন শক্তিশালীকরণে সহযোগিতা থাকবে: তথ্যমন্ত্রী
কর কাঠামোর ত্রুটির কারণে তামাক পণ্য ভোক্তার নাগালেই থেকে যাচ্ছে
‘সংশোধিত তামাক নিয়ন্ত্রণ’ আইন দ্রুত পাসের দাবি
তামাক সেবনে বছরে ১ লাখ ৬১ হাজার মৃত্যু

মন্তব্য

জীবনযাপন
Raindrops reducing the heat

গরম কমাচ্ছে বৃষ্টির ফোঁটা

গরম কমাচ্ছে বৃষ্টির ফোঁটা ফাইল ছবি
সরকারি ছুটি শুরু হওয়ার আগের দিন সন্ধ্যায় এমন পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এতে কর্মজীবী নগরবাসীর চোখে-মুখে কিছুটা স্বস্তির ছাপ মিলেছে। টানা গরমে অফিসে যাওয়া-আসার যে কষ্ট তা অন্তত দুটো দিন নেই, এর সঙ্গে যুক্ত হলো ঠান্ডা পরিবেশ।

টানা তাপপ্রবাহের পর সকালের শুরুটা হয়েছে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি দিয়ে। সামান্য বৃষ্টিতে প্রকৃতিতে এসেছে হালকা ঠান্ডা বাতাসের পরশ। তবে গরম এখনও পুরোপুরি কমেনি, কার্যত কমার পথে। গরম আরও কমবে শিগগিরই। সঙ্গে হতে পারে ভারী বৃষ্টিও।

সরকারি ছুটি শুরু হওয়ার আগের দিন সন্ধ্যায় এমন পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এতে কর্মজীবী নগরবাসীর চোখে-মুখে কিছুটা স্বস্তির ছাপ মিলেছে। টানা গরমে অফিসে যাওয়া-আসার যে কষ্ট তা অন্তত দুটো দিন নেই, এর সঙ্গে যুক্ত হলো ঠান্ডা পরিবেশ।

রেকর্ড করার মতো খুব বেশি না হলেও রাজধানী ঢাকাসহ দেশের অনেক স্থানেই দিনভর অল্প করে বৃষ্টি পড়েছে বলে খবর এসেছে। সঙ্গে বইতে শুরু করেছে কিছুটা শীতল বাতাসও। অবশ্য রাজধানীবাসীকে যানবাহনের জন্য সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকতে হয় বলে অল্প পরিমাণের বৃষ্টি কিছুটা ভোগান্তি যোগ করেছে তাদের জন্য।

এ অবস্থায় তাপমাত্রা আরও কমবে, গরম কমার সঙ্গে সঙ্গে বৃষ্টি হওয়ারও সম্ভাবনা আছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে অধিদপ্তর বলেছে, চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগের দু-এক জায়গায়, ঢাকা ও খুলনা বিভাগের কিছু জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, একই সঙ্গে চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। সারা দেশের দিনের তাপমাত্রা ১ থেকে ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পেতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পার।

এতে বলা হয়েছে, রাজশাহী, পাবনা, নওগাঁ, দিনাজপুর, যশোর ও চুয়াডাঙ্গা জেলার ওপর দিয়ে তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। সিলেট জেলাসহ ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগ এবং রংপুর, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের অবশিষ্টাংশের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং কিছু জায়গা থেকে প্রশমিত হতে পারে।

আবহাওয়ার সার্বিক পর্যবেক্ষণে বলা হয়, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে।

সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার হিসাবে দেশে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল রাজশাহীতে ৪১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই সময়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে চট্টগ্রামে ৭৪ মিলিমিটার। ঢাকায় ২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে, সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ৩৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Proposing a bill in the Parliament with the opportunity to take action against the directors and officers of the bank
ব্যাংক কোম্পানি (সংশোধন) বিল-২০২৩

পরিচালক ও কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যাংকের ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ রেখে সংসদে বিল উত্থাপন

পরিচালক ও কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যাংকের ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ রেখে সংসদে বিল উত্থাপন ফাইল ছবি
অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বৃহস্পতিবার বিলটি সংসদে তোলেন। পরে সাত দিনের মধ্যে বিলটি পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়।

ব্যাংকের পরিচালক বা নির্বাহী কর্মকর্তাদের অনিয়মের কারণে আর্থিক ক্ষতি পূরণে দায়ী ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারবে ব্যাংক- এমন বিধান যুক্ত করে ব্যাংক কোম্পানি (সংশোধন) বিল-২০২৩ সংসদে তোলা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বৃহস্পতিবার বিলটি সংসদে তোলেন। পরে সাত দিনের মধ্যে বিলটি পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়।

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ফখরুল ইমাম বিলটি উত্থাপনে আপত্তি জানান। পরে তা কণ্ঠভোটে নাকচ হয়।

আপত্তি তোলার সময় ফখরুল ইমাম অভিযোগ করেন, আইএমএফের শর্ত মেনে এই সংশোধনী বিলটি আনা হয়েছে। সংসদে কোনো কিছু গোপন করা উচিত না।
তবে অর্থমন্ত্রী বলেন, কারও পরামর্শে এই সংশোধনী আনা হচ্ছে না। আধুনিক ও সময়োপযোগী ব্যাংকিং ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কিছু সংশোধন আনা হচ্ছে।

বিলে বলা হয়েছে, কোনো ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে একটি একক পরিবারের সদস্যের বাইরে তার স্বার্থসংশ্লিষ্ট বা নিয়ন্ত্রণাধীন সর্বোচ্চ দুটি প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানির পক্ষে প্রতিনিধি পরিচালক থাকতে পারবে। তবে কোনো ব্যাংকের পর্ষদে কোনো প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানির পক্ষে একজনের বেশি ব্যক্তি প্রতিনিধি পরিচালক নিযুক্ত হতে পারবে না।

আইনের খসড়ায় বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি ব্যাংকের শেয়ারের মালিক হলে তার প্রতিনিধি হিসেবে অন্য কোনো ব্যক্তিকে ব্যাংকের পর্ষদে পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দেয়া যাবে না।

বিদ্যমান আইনে কোনো ব্যাংক পরিচালক একই সময়ে অন্য কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালক থাকতে পারবেন না বলে বলা আছে। তবে এই আইন কার্যকর হওয়ার পর সর্বোচ্চ দুই মেয়াদে বিমা কোম্পানির পরিচালক হওয়ার সুযোগ রয়েছে। যদিও ২০১০ সালে প্রণীত বিমা আইন অনুযায়ী কোনো বিমা কোম্পানির পরিচালক ব্যাংক কোম্পানির পরিচালক হতে পারেন না।

সংসদে তোলা বিলে কোনো ব্যাংক পরিচালকের একই সঙ্গে বিমা কোম্পানির পরিচালক পদে থাকার সুযোগ বাতিল করা হয়েছে।

এ ছাড়া কোনো পরিচালক ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি কোম্পানির পরিচালক হতে পারবেন কি না, সে বিষয়ে বিদ্যমান আইনে কিছু বলা নেই। কিন্তু একজন পরিচালক আর কোনো কোম্পানিতে পরিচালক থাকতে পারবেন না বলে বিলে বলা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি ব্যাংকের পরিচালক হলে একই সময়ে তিনি অন্য কোনো ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বিমা কোম্পানি বা এসব কোম্পানির কোনো সাবসিডিয়ারি কোম্পানির পরিচালক থাকতে পারবেন না।

এ ছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের বিবেচনায় এমন কোনো কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠান যা ওই ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা বিমা কোম্পানির ওপর নিয়ন্ত্রণ বা যৌথ নিয়ন্ত্রণ বা প্রভাব বিস্তার করে- এমন কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের পরিচালক থাকবে না বলেও বিলে উল্লেখ করা হয়েছে।

বিদ্যমান আইনে বিকল্প পরিচালক নিয়োগের সুযোগ থাকলেও তার মেয়াদকাল এবং বিকল্প পরিচালকদের যোগ্যতা সম্পর্কে কিছু বলা নেই। খসড়া আইনে এসব বিষয় সুনির্দিষ্ট করা হয়েছে। খসড়া আইনে বলা হয়েছে, কোনো পরিচালক নিরবচ্ছিন্নভাবে কমপক্ষে তিন মাস বিদেশে অবস্থান করলে তার অনুপস্থিতির কারণে পর্ষদ চাইলে মূল পরিচালকের বিপরীতে বছরে সর্বোচ্চ একবার একজন বিকল্প পরিচালক নিযুক্ত করতে পারবে। পরিচালক নিয়োগের যেসব শর্ত রয়েছে, সেগুলো বিকল্প পরিচালক নিয়োগের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে।

খসড়া আইনে বলা হয়েছে, কোনো ব্যাংক-কোম্পানির সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনার স্বার্থে এর পর্ষদ এবং পর্ষদ কমিটিগুলোর কর্মপরিধি বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক সময় সময় নির্দেশনা জারি করতে পারবে।

নতুন আইনে ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি কোম্পানিগুলোর ওপর বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা পাবে। এতে নতুন ধারা যোগ করে বলা হয়েছে, যে উদ্দেশ্যেই ব্যাংক কোনো সাবসিডিয়ারি কোম্পানি গঠন করুক না কেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্ধারিত হার বা পরিমাণের বেশি সাবসিডিয়ারি কোম্পানির মূলধন হিসেবে বিনিয়োগ করতে পারবে না।

নতুন আইনের আওতায় সাবসিডিয়ারি কোম্পানির পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার যোগ্যতা ও উপযুক্ততার বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক সার্কুলার জারি করবে।

সংসদে উপস্থাপিত বিলে বলা হয়েছে, ইচ্ছাকৃত খেলাপি ঋণগ্রহীতা শনাক্ত করা ও চূড়ান্ত করার বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো দুটি পৃথক কমিটি গঠন করবে। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো সময়ে সময়ে ইচ্ছাকৃত ঋণ খেলাপির তালিকা বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠাবে।

তালিকা চূড়ান্ত হওয়ার পর ইচ্ছাকৃত ঋণ খেলাপি ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান চাইলে ৩০ দিনের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকে আপিল করতে পারবে এবং এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংকের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে। এছাড়া, ইচ্ছাকৃত খেলাপিদের বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা, ট্রেড লাইসেন্স ইস্যুতে নিষেধাজ্ঞাসহ বেশ কিছু ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা দেয়ার সুযোগ রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
১০ সংসদীয় আসনে সীমানা পরিবর্তন করল ইসি
সংসদে ‘নাতি কোটায়’ সময় চাইলেন নাসিমপুত্র, হাসির রোল
বেআইনি ধর্মঘট নিষিদ্ধ, শাস্তির বিধান রেখে বিল সংসদে

মন্তব্য

জীবনযাপন
Apart from criticism the media will also highlight the development activities of the government President

সমালোচনার পাশাপাশি সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমকেও তুলে ধরবে গণমাধ্যম: রাষ্ট্রপতি

সমালোচনার পাশাপাশি সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমকেও তুলে ধরবে গণমাধ্যম: রাষ্ট্রপতি দেশের বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল মালিকদের সংগঠন অ্যাটকোর ১১ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বৃহস্পতিবার বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে। ছবি: পিআইডি
রাষ্ট্রপ্রধান বলেন, ‘আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাসীদের জন্য একটি এসিড টেস্ট। তাই গণমাধ্যমকে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।’

মুক্তিযুদ্ধ ও উন্নয়নকে প্রাধান্য দিয়ে নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা গড়ে তুলতে গণমাধ্যমের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন।

তিনি বলেছেন, গণমাধ্যম অবশ্যই সরকারের গঠনমূলক সমালোচনা করবে। সে সঙ্গে দেশ ও জনগণের উন্নয়নে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ ও কার্যক্রমকেও তুলে ধরতে হবে।

দেশের বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল মালিকদের সংগঠন অ্যাটকোর ১১ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বৃহস্পতিবার বঙ্গভবনে সাক্ষাৎ করতে গেলে রাষ্ট্রপতি এ আহ্বান জানান।

সাক্ষাত শেষে রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

রাষ্ট্রপ্রধান বলেন, ‘আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাসীদের জন্য একটি এসিড টেস্ট। তাই গণমাধ্যমকে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।

‘দেশ ও জনগণের জন্য কারা অপরিহার্য এবং কোন ধারার জনপ্রতিনিধি অবশ্যক তা ঠিক করতে এবং জনমত তৈরিতে গণমাধ্যমের কার্যকরী ভূমিকা রাখতে হবে।’

গণমাধ্যমকর্মীদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপ্রতি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ ও উন্নয়নকে প্রাধান্য দিন। নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা গড়ে তুলতে কার্যকরী ভূমিকা রাখুন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে না পারলে আমাদের সব অর্জন বৃথা হয়ে যাবে। স্বাধীনভাবে কাজ করতে গণমাধ‍্যমকে সরকার সার্বিক সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে।’

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘বিগত পাঁচ দশকের বেশি সময়ে দেশে অনেক পরিবর্তন এসেছে। এই সময়ে স্বাধীনতা বিরোধীরা আমাদের মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাসকে বিকৃত করার অনেক চেষ্টা চালিয়েছে।’

স্বাধীনতা বিরোধীচক্র মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাসকে বিকৃত করে কোনোভাবেই যেন মানুষকে বিভ্রান্ত করতে না পারে সে লক্ষ্যেও গণমাধ্যমকে আরও তৎপর হওয়ার তাগিদ দেন রাষ্ট্রপতি।

দেশি সংস্কৃতির বিকাশে গণমাধ্যমকে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে রাষ্ট্রপতি সাহাবুদ্দিন বলেন, ‘কেউ যাতে ছদ্মাবরণে ও চতুরতার সঙ্গে আমাদের ইতিহাসকে বিকৃতি করতে না পারে সেজন্য টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান ও রাষ্ট্রপতির সচিবগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও অ্যটকোর সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অঞ্জন চৌধুরী এবং ডিবিসি নিউজের চেয়ারম্যান ও অ্যাটকোর সহ-সভাপতি প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল চৌধুরী ১১ সদস্যের অ্যাটকোর প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে দেন।

অ্যাটকো সভাপতি সংগঠনের বিভিন্ন কার্যক্রম রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন।

আরও পড়ুন:
পুলিশকে আরও জনবান্ধব হওয়ার তাগিদ রাষ্ট্রপতির
সীমান্ত হত্যা বন্ধে বিজিবিকে আরও তৎপর হতে বললেন রাষ্ট্রপতি

মন্তব্য

জীবনযাপন
Electricity has started coming to the country from the second unit of Adani

আদানির দ্বিতীয় ইউনিট থেকে দেশে বিদ্যুৎ আসা শুরু

আদানির দ্বিতীয় ইউনিট থেকে দেশে বিদ্যুৎ আসা শুরু
১৫০০ মেগাওয়াটের ওই বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে ৭৫০ মেগাওয়াটের একটি ইউনিট গত মে মাসে বাণিজ্যিক উৎপাদনে এসেছে। আর ৭৫০ মেগাওয়াটের দ্বিতীয় ইউনিট থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে পরীক্ষামূলকভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়।

ভারতের ঝাড়খন্ডের গোড্ডা এলাকায় দেশটির বৃহৎশিল্প গ্রুপ আদানির বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে বাংলাদেশের জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ ফের শুরু হয়েছে।

১৫০০ মেগাওয়াটের ওই বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে ৭৫০ মেগাওয়াটের একটি ইউনিট গত মে মাসে বাণিজ্যিক উৎপাদনে এসেছে। আর ৭৫০ মেগাওয়াটের দ্বিতীয় ইউনিট থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে পরীক্ষামূলকভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়।

ঝাড়খন্ড থেকে আসা বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইন নির্মাণের কাজ শেষ হলেও বাংলাদেশ অংশের কাজ এখনো শেষ না হওয়ায় ১৫০০ মেগাওয়াট সক্ষমতার আদানির কেন্দ্রটি পুরোপুরি চালু করা যাচ্ছে না। ফলে ১ হাজার ৫০ মেগাওয়াটের বেশি বিদ্যুৎ নিতে পারবে না বাংলাদেশে সঞ্চালন লাইন নির্মাণের দায়িত্বে থাকা পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি)।

এ বিষয়ে পিজিসিবি মুখপাত্র এ বি এম বদরুদ্দোজা খান বলেন, ‘আদানির বিদ্যুৎ পরীক্ষামূলকভাবে সরবরাহ শুরু হয়েছে। যন্ত্রপাতি পরীক্ষা করা হচ্ছে। যেহেতু তাদের দুটি ইউনিট রয়েছে, প্রতিটি ইউনিটের ক্ষমতা ৭৪০ মেগাওয়াট করে। এখন তারা ৭৫০ মেগাওয়াট করে সরবরাহ করছে।’

আদানির একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘আমরা ইচ্ছে করলেই এখন ১৫০০ মেগাওয়াট দিতে পারি। আমাদের কেন্দ্র পুরোপুরি প্রস্তুত। কিন্তু পিজিসিবির সঞ্চালন লাইন নির্মাণ শেষ না হওয়ায় এখন ১ হাজার ৫০ মেগাওয়াটের বেশি দিতে পারছি না। বৃহস্পতিবার বিকেল সারে চারটার দিকে আদানির ৭৫০ মেগাওয়াটের দ্বিতীয় ইউনিট থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়েছে। প্রথমে এটি ৭০ থেকে ৮০ মেগাওয়াট সরবরাহ করলেও সন্ধ্যা ও রাতে আরও বেশি বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে।’

জ্বালানির অভাব ও দাবদাহের কারণে দেশে তীব্র লোডশেডিং শুরু হয়েছে। বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে ১৭ হাজার মেগাওয়াটের পৌঁছেছে। তবে দেশের কোথাও কোথাও বৃষ্টি হওয়ায় চাহিদা নেমে পিক আওয়ারে (সন্ধা ৭ টা থেকে রাত ১১টা) ১৬ হাজার মেগাওয়াটে ঠেকেছে। এই সময় আদানির দ্বিতীয় ইউনিট উৎপাদনে আসায় স্বস্তি এসেছে বিদ্যুৎ বিভাগের।

আদানির বিদ্যুৎ ভারতের ঝাড়খন্ড থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুর দিয়ে বগুড়া হয়ে আনার জন্য সঞ্চালন লাইন করা হয়েছে। বুধবার বিকেল পৌনে ৩টার দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুর এলাকায় সঞ্চালন লাইন ‘ট্রিপ’ করলে আদানি পাওয়ারের বিদ্যুৎ আসা বন্ধ হয়ে যায়। ১৩ ঘন্টা পর বৃহস্পতিবার ফের লাইনটি সচল করা সম্ভব হয়।

কয়লার অভাবে ২৫ মে দেশের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎকেন্দ্র পায়রার ৬৬০ মেগাওয়াটের একটি ইউনিট বন্ধ হয়ে যায়। দ্বিতীয় ইউনিটটি গত সোমবার দুপুরে বন্ধ হয়ে যায়। এটি ২৫ জুনের আগে চালু হবে না।

আরও পড়ুন:
নারায়ণগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মা-ছেলের মৃত্যু
মেহেরপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মা-মেয়ের মৃত্যু
বন্ধ হয়ে গেল পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্র

মন্তব্য

p
উপরে