× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

জীবনযাপন
Hajjatri registration time extended again
google_news print-icon

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় আবার বাড়ল

হজযাত্রী-নিবন্ধনের-সময়-আবার-বাড়ল
ফাইল ছবি
ত ২৩ ফেব্রুয়ারি নিবন্ধনের শেষ সময় থাকলেও কোটা পূরণ না হওয়ায় নিবন্ধনের সময় বাড়িয়ে ২৮ ফেব্রুয়ারি করা হয়। এরপরেও কোটা পূরণ না হওয়ায় দ্বিতীয় দফায় ৭ মার্চ এবং তৃতীয় দফায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সময় বাড়িয়ে সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধনের ক্রমিক ৪৫ হাজার ৬০৫ পর্যন্ত এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধনের ক্রমিক ৮ লাখ ৮৬ হাজার ১৯০ পর্যন্ত নিবন্ধন করতে পারবে বলে জানানো হয়।

সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় আরও পাঁচ দিন বাড়িয়েছে সরকার।

ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হজ অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. মতিউল ইসলাম বৃহস্পতিবার রাতে জানান, হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় আগামী ২১ মার্চ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

এ সময়ের মধ্য কোটা পূরণ হওয়ার আশা জানিয়ে তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার কোথাও কোথাও নির্বাচনের জন্য ব্যাংকিং কার্যক্রমে সমস্যা হয়েছে। কোথাও কোথাও ব্যাংক সার্ভিস দিতে পারেনি বলে আমাদের কাছে খবর এসেছে। তাই সময় বাড়ানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৮টা পর্যন্ত সরকারিভাবে ৯ হাজার ৮৬৩ জন এবং বেসরকারিভাবে এজেন্সির মাধ্যমে হজে যেতে এক লাখ এক হাজার ১৯৩ জন নিবন্ধিত হয়েছেন। সৌদি আরবের সঙ্গে হজ চুক্তি অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১৫ হাজার জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ১২ হাজার ১৯৮ জন হজে যেতে পারবেন।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ২৭ জুন পবিত্র হজ হবে। এবার গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে হজযাত্রী নিবন্ধন শুরু করে সরকার। তখন বলা হয়েছিল সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধনের ক্রমিক ৪২ হাজার ২৯৩ পর্যন্ত এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধনের সর্বশেষ ক্রমিক ৭ লাখ ৮ হাজার ৩৬৪ পর্যন্ত নিবন্ধন করতে পারবে।

গত ২৩ ফেব্রুয়ারি নিবন্ধনের শেষ সময় থাকলেও কোটা পূরণ না হওয়ায় নিবন্ধনের সময় বাড়িয়ে ২৮ ফেব্রুয়ারি করা হয়। এরপরেও কোটা পূরণ না হওয়ায় দ্বিতীয় দফায় ৭ মার্চ এবং তৃতীয় দফায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সময় বাড়িয়ে সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধনের ক্রমিক ৪৫ হাজার ৬০৫ পর্যন্ত এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধনের ক্রমিক ৮ লাখ ৮৬ হাজার ১৯০ পর্যন্ত নিবন্ধন করতে পারবে বলে জানানো হয়।

সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১৫ হাজার জনের হজে যাওয়ার সুযোগ থাকলেও বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৮টা পর্যন্ত ৯ হাজার ৬৮৩ জন সরকারিভাবে হজে যেতে নিবন্ধন করেছেন। তবে সরকারি-বেসরকারি উভয় কোটা পূরণ হবে বলে আশা করছেন অতিরিক্ত সচিব মতিউল ইসলাম।

তিনি বলেন, সরকারিতে নিবন্ধনের হার একটু স্লো। কিন্তু বেসরকারি কোটা শেষ হওয়ার পর অনেকে সরকারিতে এসে নিবন্ধন করবেন। আশা করছি সরকারি-বেসরকারি উভয় কোটাই পূরণ হবে।

সবশেষ হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় ১৬ মার্চ পর্যন্ত বাড়িয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, সরকারি ব্যবস্থাপনা এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রী নিবন্ধনের আর বাড়ানো হবে না।

চলতি বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় একটি প্যাকেজের মাধ্যমে হজ যাওয়ার সুযোগ রাখা হয়েছে। সরকারিভাবে হজে যেতে এবার খরচ ধরা হয়েছে ৬ লাখ ৮৩ হাজার ১৮ টাকা। আর হজ এজেন্সির মাধ্যমে বেসরকারিভাবে হজে যেতে এবার সর্বনিম্ন খরচ ধরা হয়েছে ৬ লাখ ৭২ হাজার ৬১৮ টাকা, এর সঙ্গে যুক্ত হবে কোরবানির খরচ।

গত বছর সরকারিভাবে দুটি প্যাকেজের মাধ্যমে হজে যাওয়ার সুযোগ রাখা হয়। প্যাকেজ-১ এর ক্ষেত্রে এবার খরচ বেড়েছে ৯৬ হাজার ৬৭৮ টাকা, প্যাকেজ-২ এ এবার খরচ বেড়েছে এক লাখ ৬১ হাজার ৮৬৮ টাকা। বেসরকারিভাবে হজে যেতে গত বছরের থেকে এবার এক লাখ ৪৯ হাজার ৮৭৪ টাকা খরচ বেড়েছে।

হজযাত্রীদের বিমান ভাড়া কমানোর সুপারিশ করেছে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। গত বুধবার কমিটির সভায় বিমান ভাড়া এক লাখ ৯৭ হাজার ৭৯৭ টাকা থেকে কমিয়ে এক লাখ ৫০ হাজার টাকা করার সুপারিশ করা হয়েছে। গত বছর হজযাত্রীদের বিমান ভাড়া ধরা হয়েছিল এক লাখ ৪০ হাজার টাকা। তবে হজযাত্রীদের বিমান ভাড়া কমানোর বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন:
হজ প্যাকেজের দাম বাড়ার কারণ জানাল ধর্ম মন্ত্রণালয়
পৌনে ৭ লাখ টাকার হজ প্যাকেজ অমানবিক: হাইকোর্ট
কীভাবে কোমরে ব্যথা পেলেন, জানালেন মেহজাবীন
হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় আরও ৯ দিন বৃদ্ধি
হজের খরচ ৪ লাখে আনতে আইনি নোটিশ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
Hajj ends with stoning Satan and Tawaf of Kaaba Sharif

শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ ও কাবা শরিফ তাওয়াফের মাধ্যমে হজ সমাপ্ত

শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ ও কাবা শরিফ তাওয়াফের মাধ্যমে হজ সমাপ্ত মিনায় তিন দিনের পাথর ছুঁড়ে মারার অনুষ্ঠানটি হজের চূড়ান্ত আনুষ্ঠানিক কার্যক্রমগুলোর মধ্যে একটি। ছবি: সংগৃহীত
মঙ্গলবার সৌদি আরবের জাতীয় আবহাওয়া অফিসের তথ্যানুসারে, মক্কা ও এর আশেপাশের পবিত্র স্থানগুলোতে তাপমাত্রা ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল। প্রচণ্ড গরমে বৃদ্ধদের অনেকে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এছাড়া, হিট স্ট্রোকে হাজিদের বেশ কয়েকজনের মৃত্যুও হয়েছে বলে জানা গেছে।

গ্রীষ্মের প্রচণ্ড উত্তাপের মধ্যে তৃতীয় দিন মঙ্গলবার শয়তানকে প্রতীকী পাথর নিক্ষেপ এবং মক্কায় ইসলামের পবিত্রতম স্থান কাবা শরিফ তাওয়াফ (প্রদক্ষিণ) করার মধ্য দিয়ে হজের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শেষ করেছেন হাজিরা।

মক্কার বাইরে মরু এলাকা মিনায় তিন দিনের পাথর ছুঁড়ে মারার অনুষ্ঠানটি হজের চূড়ান্ত আনুষ্ঠানিক কার্যক্রমগুলোর মধ্যে একটি। এটি অশুভ ও পাপ দূরীকরণের প্রতীক হিসেবেও বিবেচিত। শনিবার আরাফাতের ময়দানে হাজিদের জমায়েতের একদিন পর এই কার্যক্রম শুরু হয়।

হজের শেষ দিনগুলোতে বিশ্বজুড়ে মুসলমানরা একসঙ্গে ঈদুল আজহা উদযাপন করে। এসময় আর্থিক সামর্থ্যের আলোকে বিশ্বাসীরা ইসলামের নবী ইব্রাহিম (আ.)-এর বিশ্বাসের পরীক্ষার কথা স্মরণ করেন। আল্লাহ তাকে (নবী ইব্রাহিম) তার একমাত্র পুত্রকে (ইসমাইল) কোরবানি দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে গবাদি পশু জবাই করে এর মাংস দরিদ্রদের মধ্যে বিতরণ করে থাকে মুসলমানরা।

ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে হজ অন্যতম। ইসলামের পবিত্র গ্রন্থ কুরআন অনুসারে, এর অনুষ্ঠানগুলো মূলত নবী ইব্রাহিম ও তার পুত্র নবী ইসমাইল, ইসমাইলের মা হাজেরা এবং নবী মুহাম্মদের (সা.) বর্ণনায় উঠে এসেছে।

ইসলামের বিশ্বাস অনুযায়ী, সেদিন আল্লাহ তার রহমতের হাত বাড়িয়ে দিয়ে ইসমাইলকে রক্ষা করেন।

ইয়েমেন থেকে আসা হাজি মেজাহেদ আল-মেহরাবি পাথর ছুড়ে মারার অনুষ্ঠানের তৃতীয় দিনে বার্তাসংস্থা এপিকে বলেন, ‘আমি শান্তি পেয়েছি। এখন বেশ স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছি। যদি কারও (মক্কায়) গ্র্যান্ড মসজিদ পরিদর্শন করার সুযোগ থাকে, তার তা অবশ্যই করা উচিত।’

নাইজেরিয়ার হাজি আমির ওমর প্রতীকী পাথর নিক্ষেপ শেষ করার পর আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়েন। তিনি বলেন, ‘আমার খুব ভালো লাগছে যে, আমি আমার ধর্মের একটি ফরজ পালন করেছি। আমি (আল্লাহর প্রতি) খুব কৃতজ্ঞ বোধ করছি।’

মঙ্গলবার সৌদি আরবের জাতীয় আবহাওয়া অফিসের তথ্যানুসারে, মক্কা ও এর আশেপাশের পবিত্র স্থানগুলোতে তাপমাত্রা ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল। প্রচণ্ড গরমে বৃদ্ধদের অনেকে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এছাড়া, হিট স্ট্রোকে হাজিদের বেশ কয়েকজনের মৃত্যুও হয়েছে বলে জানা গেছে।

জর্ডান ও তিউনিসিয়া কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে অন্তত ৪১ জন জর্ডানের এবং ৩৫ জন তিউনিসিয়ার নাগরিক। মিসরের স্থানীয় গণমাধ্যমও মিশরীয় হাজিদের মধ্যে বেশ কয়েক জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছে। এবারের হজে এখনও মোট মৃত্যুর সংখ্যা জানায়নি সৌদি কর্তৃপক্ষ।

হজ পালনের সময় আরও অনেক হাজির হিসাব পাওয়া যায়নি। অনেক মিসরীয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আরাফাতের ময়দান ও মিনা উল্লেখ করে তাদের আত্মীয়দের খোঁজে পোস্ট দিয়েছেন। কয়েকজন হাজি গরমে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাদের মক্কার আশপাশের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার তৃতীয় দিনের প্রতীকী পাথর নিক্ষেপের পর হাজিরা গ্র্যান্ড মসজিদে কাবা শরিফকে সাতবার তাওয়াফ করতে করতে মক্কার দিকে রওনা হন। শেষ তাওয়াফ নামে পরিচিত এই প্রদক্ষিণের মাধ্যমে হজের সমাপ্তি করে হাজিরা মক্কা শহর ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

হজ শেষে পুরুষরা তাদের মাথা ন্যাড়া করবে এবং নারীরা সমস্ত চুল ধরে আঙুলের এক কড় কেটে ফেলবেন, যা ইসলামের নবী রাসূলের সুন্নাহ।

এরপর অধিকাংশ হাজি মক্কা ছেড়ে প্রায় ৩৪০ কিলোমিটার দূরে মদিনা শহরের উদ্দেশে রওনা দেবেন এবং মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর কবর জিয়ারত করবেন।

নবীজির কবরের পবিত্র কক্ষটি নবীর মসজিদের অংশ, ইসলামের তিনটি পবিত্রতম স্থানগুলোর মধ্যে একটি। অন্য দুটি হচ্ছে- মক্কার গ্র্যান্ড মসজিদ ও জেরুজালেমের আল আকসা মসজিদ।

শারীরিক ও আর্থিকভাবে সামর্থ্য থাকলে প্রত্যেক মুসলমানের জীবনে একবার হজ করা বাধ্যতামূলক (ফরজ)। অনেক ধনী মুসলমান একাধিকবারও হজ করে থাকেন।

সৌদি হজ কর্তৃপক্ষের মতে, ২০২৪ সালে ২২টি দেশের ১৬ লাখেরও বেশি হাজি এবং প্রায় ২ লাখ ২২ হাজার সৌদি নাগরিকসহ ১৮ লাখ ৩ হাজারেরও বেশি মুসলমান হজ পালন করেছেন।

২০২৪ সালে বিধ্বংসী হামাস- ইসরায়েল যুদ্ধের পটভূমিতে হজের কার্যক্রম শুরু হয়। হামাস ও ইসরায়েলের এই যুদ্ধটি মধ্যপ্রাচ্যকে আঞ্চলিক সংঘাতের দ্বারপ্রান্তে ঠেলে দিয়েছে।

ফিলিস্তিনি উপত্যকায় যুদ্ধ এবং নিজ দেশে এক দশক ধরে চলা সংঘাতের কথা উল্লেখ করে ইয়েমেনের হাজি আল-মেহরাবি বলেন, ‘আমি প্রথমে গাজা ও পরে ইয়েমেনের জন্য প্রার্থনা করেছি।’

আরও পড়ুন:
শয়তানকে পাথর ছোড়ার মধ্য দিয়ে হজের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন
হজের চূড়ান্ত পর্বে আরাফাতে ফিলিস্তিনিদের জন্য প্রার্থনা

মন্তব্য

জীবনযাপন
1 04 08 918 animals were sacrificed on Eid ul Azha this year

ঈদুল আজহায় এবার ১,০৪,০৮,৯১৮টি পশু কোরবানি হয়েছে

ঈদুল আজহায় এবার ১,০৪,০৮,৯১৮টি পশু কোরবানি হয়েছে হাটে তোলার জন্য রাজধানীতে আনা হচ্ছে কোরবানির পশু। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস
এ বছর ঈদুল আজহায় সারাদেশে কোরবানিযোগ্য গবাদিপশুর সংখ্যা ছিল ১ কোটি ২৯ লাখ ৮০ হাজার ৩৬৭টি। সে হিসাবে ২৫ লাখ ৭১ হাজার ৪৪৯টি পশু উদ্বৃত্ত থেকে গেছে।

চলতি বছর পবিত্র ঈদুল আজহায় সারাদেশে মোট এক কোটি চার লাখ আট হাজার ৯১৮টি গবাদিপশু কোরবানি হয়েছে। গত বছর সারাদেশে কোরবানিকৃত গবাদিপশুর সংখ্যা ছিল এক কোটি ৪১ হাজার ৮১২টি। তার আগের বছর ২০২২ সালে এই সংখ্যা ছিল ৯৯ লাখ ৫০ হাজার ৭৬৩টি। গত বছরের তুলনায় এবার তিন লাখ ৬৭ হাজার ১০৬টি গবাদিপশু বেশি কোরবানি হয়েছে।

এবার সবচেয়ে বেশি পশু কোরবানি হয়েছে ঢাকা বিভাগে এবং সবচেয়ে কম ময়মনসিংহ বিভাগে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ বিভাগ থেকে মঙ্গলবার পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, মাঠ পর্যায় থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী এবার ঢাকা বিভাগে ২৫ লাখ ২৯ হাজার ১৮২, চট্টগ্রাম বিভাগে ২০ লাখ ৫৭ হাজার ৫২০, রাজশাহী বিভাগে ২৪ লাখ ২৬ হাজার ১১১, খুলনা বিভাগে ১০ লাখ ৮ হাজার ৮৫৫, বরিশাল বিভাগে ৪ লাখ ২৮ হাজার ৪৩৮, সিলেট বিভাগে ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৭৪২, রংপুর বিভাগে ১১ লাখ ৭২ হাজার ৫৫৩ ও ময়মনসিংহ বিভাগে ৩ লাখ ৯২ হাজার ৫১৭টি গবাদিপশু কোরবানি হয়েছে।

কোরবানি হওয়া গবাদিপশুর মধ্যে ৪৭ লাখ ৬৬ হাজার ৮৫৯টি গরু, ১ লাখ ১২ হাজার ৯১৮টি মহিষ, ৫০ লাখ ৫৬ হাজার ৭১৯টি ছাগল, ৪ লাখ ৭১ হাজার ১৪৯টি ভেড়া এবং ১ হাজার ২৭৩টি অন্যান্য পশু রয়েছে।

এর মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৩ লাখ ৩৭ হাজার ৯৫৪টি গরু, ৬ হাজার ৪৬৫টি মহিষ, ১০ লাখ ৯৪ হাজার ৮৭২টি ছাগল, ৮৯ হাজার ৯১টি ভেড়া ও অন্যান্য ৮০০টি পশু।

চট্টগ্রাম বিভাগে ১২ লাখ ১৭ হাজার ৭৪৭টি গরু, ৯১ হাজার ৮১০টি মহিষ, ৬ লাখ ৫২ হাজার ১৩০টি ছাগল, ৯৫ হাজার ৪৮৩টি ভেড়া ও অন্যান্য ৩৫০টি পশু কোরবানি হয়েছে।

রাজশাহী বিভাগে কোরবানি হয়েছে ৭ লাখ ২০ হাজার ৪৭২টি গরু, ৯ হাজার ৫৬৮টি মহিষ, ১৫ লাখ ৮৩ হাজার ৪৮৬টি ছাগল, ১ লাখ ১২ হাজার ৫৭৭টি ভেড়া ও অন্যান্য পশু ৮টি।

এছাড়া খুলনা বিভাগে ২ লাখ ৭৯ হাজার ৯৬৭টি গরু, ১ হাজার ৫০৬টি মহিষ, ৬ লাখ ৬৯ হাজার ৭৩৫টি ছাগল, ৫৭ হাজার ৫৫৯টি ভেড়া ও অন্যান্য ৮৮টি পশু; বরিশাল বিভাগে ২ লাখ ৮০ হাজার ৩৭৭টি গরু, ১ হাজার ১টি মহিষ, ১ লাখ ২৬ হাজার ৮৬৩টি ছাগল ও ২০ হাজার ১৯০টি ভেড়া, অন্যান্য পশু ৭টি এবং সিলেট বিভাগে ২ লাখ ১ হাজার ১৪৩টি গরু, ১ হাজার ৩৫৮টি মহিষ, ১ লাখ ৭৩ হাজার ২২৩টি ছাগল, ১৮ হাজার ১৪টি ভেড়া ও অন্যান্য পশু ৪টি। অন্যান্য বিভাগের মধ্যে রংপুরে ৫ লাখ ৩৮ হাজার ৩৯৪টি গরু, ৩০৪টি মহিষ, ৫ লাখ ৭৩ হাজার ৬১৬টি ছাগল, ৬০ হাজার ২২৮টি ভেড়া ও অন্যান্য পশু ১১টি এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ১ লাখ ৯০ হাজার ৮০৫টি গরু, ৯০৬টি মহিষ, ১ লাখ ৮২ হাজার ৭৯৪টি ছাগল ও ১৮ হাজার ৭টি ভেড়া এবং অন্যান্য পশু ৫টি কোরবানি হয়েছে।

প্রসঙ্গত, এ বছর সারাদেশে কোরবানিযোগ্য গবাদিপশুর সংখ্যা ছিল ১ কোটি ২৯ লাখ ৮০ হাজার ৩৬৭টি। সে হিসাবে ২৫ লাখ ৭১ হাজার ৪৪৯টি পশু উদ্বৃত্ত থেকে গেছে।

আরও পড়ুন:
জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল আজহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত
পবিত্র ঈদুল আজহা আজ
ডিএনসিসিতে ঈদের প্রধান জামাত মিরপুর গোলারটেক মাঠে
মাদারীপুরে ২৫ গ্রামে ঈদ উদযাপন
শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে শব্দমুখর কামার পল্লী

মন্তব্য

জীবনযাপন
Eid prayers of 3 lakh worshipers at Gor e Shaheed Maidan

গোর-এ-শহীদ ময়দানে ৩ লাখ মুসল্লির ঈদের নামাজ আদায়

গোর-এ-শহীদ ময়দানে ৩ লাখ মুসল্লির ঈদের নামাজ আদায় সোমবার গোর-এ-শহীদ ময়দানে ঈদের জমায়েত হওয়া মুসল্লির একাংশ। ছবি: সংগৃহীত
জেলা শহর ও আশপাশের মানুষ যাতে জামাতে অংশ নিতে পারেন সেজন্য দুটি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে একটি পঞ্চগড় থেকে ঠাকুরগাঁও হয়ে এবং অন্যটি পাবর্তীপুর থেকে দিনাজপুর রেলস্টেশন পর্যন্ত চলাচল করে।

দিনাজপুরের ঐতিহাসিক গোর-এ-শহীদ বড় ময়দানে বিপুলসংখ্যক মুসল্লি ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেছেন।

সোমবার সকাল ৮টায় এখানে ঈদের জামাত শুরু হয়। জামাতে ইমামতি করেন মাওলানা সামসুল হক কাসেমি।

এবারের নামাজে প্রায় তিন লাখ মুসল্লি অংশ নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা।

জেলা শহর ও আশপাশের মানুষ যাতে জামাতে অংশ নিতে পারেন সেজন্য দুটি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে একটি পঞ্চগড় থেকে ঠাকুরগাঁও হয়ে এবং অন্যটি পাবর্তীপুর থেকে দিনাজপুর রেলস্টেশন পর্যন্ত চলাচল করে।

এছাড়া মুসল্লিদের নিরাপত্তায় সতর্ক ছিল প্রশাসন।

২০১৭ সাল থেকে গোর-এ-শহীদ ঈদগাহ মাঠে শোলাকিয়ার মতো বড় পরিসরে ঈদ জামাতের আয়োজন হয়ে আসছে।

আয়োজক কমিটির উপদেষ্টা জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, ‘এখানে একসঙ্গে তিন লাখ মুসল্লি ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেছেন।’

আরও পড়ুন:
এবারের ঈদ দেশবাসীর কাছে একটা কষ্টের দিন: ফখরুল
এশিয়ার দেশে দেশে ঈদ জামাতে ফিলিস্তিনিদের জন্য প্রার্থনা
কোরবানির পর ঘর ও আশপাশ পরিষ্কার রাখবেন যেভাবে
ত্যাগের মহিমায় ঈদুল আজহা উদযাপন করছে দেশবাসী
জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল আজহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত

মন্তব্য

জীবনযাপন
DM 140 after being injured while performing sacrifice in the capital

রাজধানীতে কোরবানি করতে গিয়ে আহত হয়ে ঢামেকে ১৫০

রাজধানীতে কোরবানি করতে গিয়ে আহত হয়ে ঢামেকে ১৫০ পশু কোরবানি করতে গিয়ে আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়া কয়েকজন। ছবি: সংগৃহীত
ঢামেক জরুরি বিভাগের আবাসিক সার্জন ডা. আমান বলেন, কোরবানি দিতে গিয়ে আহত হওয়া ১৫০ জন এখানে জরুরি বিভাগে চিকিৎসা নিয়েছেন। একজনের অবস্থা বেশি খারাপ হওয়ায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঈদুল আজহায় সোমবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পশু কোরবানি করতে গিয়ে ধারালো ছুরির আঘাতে আহত হয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন কমপক্ষে ১৫০ জন। তাদের মধ্যে একজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সোমবার সকাল থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চিকিৎসা নিতে ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আসেন তারা।

ঢামেক জরুরি বিভাগের (ভারপ্রাপ্ত) আবাসিক সার্জন ডা. আমান বলেন, কোরবানি দিতে গিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় আহত হওয়া ১৪০ জন ঢামেকে চিকিৎসা নিয়েছেন। শরীরের বিভিন্ন অংশ কেটে-ছিঁড়ে যাওয়া এসব রোগীর সবাইকে সেলাইয়ের পাশাপাশি প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। একজনের অবস্থা বেশি খারাপ থাকায় তাকে ভর্তি দেয়া হয়েছে।

হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, কোরবানি দিতে গিয়ে আহত হয়ে ১৫০ জন ঢামেকে চিকিৎসা নিতে এসেছিলেন। তারা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছেন। কেবল একজন হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

আরও পড়ুন:
কোরবানির পর ঘর ও আশপাশ পরিষ্কার রাখবেন যেভাবে
শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে শব্দমুখর কামার পল্লী
অধিক মজুরির আশায় ঢাকায় ছুটছেন মেহেরপুরের কসাইরা

মন্তব্য

জীবনযাপন
This Eid is a difficult day for the countrymen Fakhrul

এবারের ঈদ দেশবাসীর কাছে একটা কষ্টের দিন: ফখরুল

এবারের ঈদ দেশবাসীর কাছে একটা কষ্টের দিন: ফখরুল বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম। ফাইল ছবি
বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ঈদুল আজহা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আজকে দেশে দুর্নীতির ব্যাধি ছড়িয়ে পড়েছে। প্রত্যাশা, ঈদুল আজহার ত্যাগের মাধ‌্যমে যারা দুর্নীতিতে নিমজ্জিত আছেন তারা তা ত্যাগ করবেন। একইসঙ্গে মানুষের কল্যাণে তারা কাজ করবেন।’

ঈদুল আজহা এবার দেশের মানুষের কাছে একটা কষ্টের দিন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার সকালে পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ আদায়ের পর দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানি‌য়ে তিনি এ কথা বলেন।

ঠাকুরগাঁও শহরের কালিবাড়ী তাঁ‌তিপাড়া এলাকায় পৈতৃক বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ঈদুল আজহা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আজকে দেশে দুর্নীতির ব্যাধি ছড়িয়ে পড়েছে। প্রত্যাশা, ঈদুল আজহার ত্যাগের মাধ‌্যমে যারা দুর্নীতিতে নিমজ্জিত আছেন তারা তা ত্যাগ করবেন। একইসঙ্গে মানুষের কল্যাণে তারা কাজ করবেন।’

ফখরুল বলেন, এবার ঈদ বাংলাদেশের মানুষের কাছে একটা কষ্টের দিন। কারণ যারা পশু কোরবানি করেন তারাও একটা বড় মূল্যস্ফীতিতে আক্রান্ত হয়েছেন।

‘সাধারণ মানুষ কোরবানি দিতে পারেন না। তাদের অনেকে বিভিন্নভাবে কোরবানির গোশত সংগ্রহ করেন। তাদের পক্ষে তা রান্না করাও কঠিন হয়ে দাঁড়ি‌য়ে‌ছে। কারণ রান্নার সব মসলা ও অন‌্যান‌্য উপকরণ সংগ্রহ করা কঠিন।’

তিনি বলেন, ‘আজকে দ্রব্যমূল্য যেভাবে বেড়েছে সাধারণ মানুষের জীবন একেবারে অতিষ্ঠ হয়ে গেছে। মানুষ ঈদ আনন্দ উপভোগ করার সুযোগ পা‌চ্ছেন না।’

বিএনপি সেন্টমার্টিন নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে- আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্ত‌ব্য প্রসঙ্গে বিএন‌পি মহাস‌চিব বলেন, ‘যারা রাজনীতি করছেন, ক্ষমতায় আছেন যদি সত্যকে উপলব্ধি না করেন, তারা যদি দেশের সমস্যা, গণমানুষের যে আকাঙ্ক্ষা বুঝতে না পারেন, তাহলে তারা কিভাবে শাসক হবেন? দেড় যুগ ধরে দখলদার আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের সব আকাঙ্ক্ষাকে পদদলিত করেছে।’

আরও পড়ুন:
এশিয়ার দেশে দেশে ঈদ জামাতে ফিলিস্তিনিদের জন্য প্রার্থনা
কোরবানির পর ঘর ও আশপাশ পরিষ্কার রাখবেন যেভাবে
ত্যাগের মহিমায় ঈদুল আজহা উদযাপন করছে দেশবাসী
জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল আজহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত
ঈদুল আজহায় জিয়ার কবরে শ্রদ্ধা জানাবে বিএনপি

মন্তব্য

জীবনযাপন
Prayers for Palestinians in Eid congregations in Asian countries

এশিয়ার দেশে দেশে ঈদ জামাতে ফিলিস্তিনিদের জন্য প্রার্থনা

এশিয়ার দেশে দেশে ঈদ জামাতে ফিলিস্তিনিদের জন্য প্রার্থনা ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায় একটি সড়কে ঈদুল আজহার নামাজে অংশ নিতে মুসল্লিদের অবস্থান। ছবি: সংগৃহীত
ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় মুসল্লিরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ঈদের নামাজে অংশ নেন। ঈদের জামাতের আগে বক্তব্যে ইমামগণ গাজা ও রাফায় যুদ্ধবিধ্বস্ত ফিলিস্তিনি মুসলিমদের কল্যাণ কামনায় সবাইকে প্রার্থনার আহ্বান জানান।

ৱইসরায়েলি আগ্রাসনে মানবেতর জীবনযাপন করা ফিলিস্তিনের গাজা ভূখণ্ডের বাসিন্দাদের কল্যাণ কামনা ও তাদের জন্য ত্রাণ হিসেবে খাবার পাঠানোর মাধ্যমে সোমবার এশিয়ার দেশে দেশে মুসলমানরা ত্যাগের উৎসব ঈদুল আজহা পালন করছেন।

নবী হজরত ইব্রাহীম (আ.)-এর বিশ্বাস ধারণ করে ঈদুল আজহার নামাজ এবং গবাদি পশু জবাই ও গরিবদের মাঝে মাংস বিতরণের মাধ্যমে সারা বিশ্বের মুসলিমরা দিনটি পালন করছেন। এটি এমন একটি কল্যাণকর উৎসব, যেদিন সামর্থ্যবান মুসলমানরা পশু কিনে সৃষ্টিকর্তার উদ্দেশে উৎসর্গ করেন। আর জবাই করা পশুর মাংসের দুই-তৃতীয়াংশ দরিদ্রদের মাঝে বণ্টন করে থাকেন। সৌদি আরবে হজযাত্রার চূড়ান্ত অনুষ্ঠানের সঙ্গে এই দিনটি মিলে যায়।

ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ভারত ও বাংলাদেশসহ এশিয়ার বেশিরভাগ অঞ্চলে সোমবার ঈদুল আজহা উদযাপিত হচ্ছে। তবে সৌদি আরব, লিবিয়া, মিসর, ইয়েমেনসহ বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তের মুসলমানরা একদিন আগে (রোববার) ঈদ উৎসব পালন করেছেন।

সোমবার ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় মুসল্লিরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ঈদের নামাজে অংশ নেন। ঈদের জামাতের আগে বক্তব্যে ইমামগণ গাজা ও রাফায় যুদ্ধবিধ্বস্ত ফিলিস্তিনি মুসলিমদের কল্যাণ কামনায় সবাইকে প্রার্থনার আহ্বান জানান।

দক্ষিণ জাকার্তার একটি ঈদগাহ ময়দানে ঈদের নামাজ পড়ার পর আদি প্রাসেত্য নামের একজন বলেন, ‘ফিলিস্তিনে কষ্টপীড়িত ভাই ও বোনদের প্রতি আমার প্রার্থনা ও সমবেদনা রয়েছে। দাতব্য সংস্থার মাধ্যমে এখন সেখানে সাহায্য পাঠানোর অনেক উপায় আছে।’

বেরলিনা ইয়ুস্তিজা নামের আরেকজন বলেন, ‘আল্লাহ যুদ্ধবিধ্বস্তদের শক্তি দিন। যারা আত্মীয়দের ছেড়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন, তারা যেন শান্তিতে বসবাস করতে পারেন।’

এদিন ঈদুল আজহা উদযাপন করছেন ভারতের মুসলমানরাও। দেশটির মোট জনসংখ্যার ১৪ শতাংশ মুসলিম।

ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লির ঐতিহাসিক জামে মসজিদে ঈদের জামাতে অংশগ্রহণ করেন হাজার হাজার মুসল্লি। সকাল থেকেই মসজিদ প্রাঙ্গণ লোকারণ্য হয়ে যায়। এসময় তারা একে অপরের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন এবং নামাজ শেষে কোলাকুলি করেন।

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ ১৭ কোটি জনসংখ্যার দেশ বাংলাদেশেও ত্যাগের মহিমায় ঈদুল আজহা উদযাপিত হচ্ছে। যুদ্ধ-বিগ্রহ বন্ধ হয়ে একটি শান্তিপূর্ণ বিশ্বের প্রত্যাশায় দেশের মুসলমানরা ঈদের নাজাম আদায় করেছেন।

ঈদের জামাতগুলোতে নিপীড়নের শিকার ফিলিস্তিনি জনগণের দুর্ভোগ লাঘবে মহান আল্লাহর দরবারে প্রার্থনা করা হয়।

দিনটি উদযাপনে আল্লাহর উদ্দেশে সারা দেশে লাখ লাখ গবাদি পশু কোরবানি দেয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
কোরবানির পর ঘর ও আশপাশ পরিষ্কার রাখবেন যেভাবে
ত্যাগের মহিমায় ঈদুল আজহা উদযাপন করছে দেশবাসী
জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল আজহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত

মন্তব্য

জীবনযাপন
Presidents call to stand by the underprivileged including Palestine

ফিলিস্তিনসহ সুবিধাবঞ্চিতদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান রাষ্ট্রপতির

ফিলিস্তিনসহ সুবিধাবঞ্চিতদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান রাষ্ট্রপতির রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। ছবি: সংগৃহীত
রাষ্ট্রপতি দেশের বিত্তবান ও সচ্ছল ব্যক্তিদের উদ্দেশ করে বলেন, ‘কেউ যাতে ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত না হয় সে লক্ষ্যে সমাজের দারিদ্র‍্যপীড়িত ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের পাশে দাঁড়ান।’

সমাজের বিত্তশালীকে ফিলিস্তিনসহ দেশের দারিদ্র্যপীড়িত ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন।

রাষ্ট্রপতি দেশের বিত্তবান ও সচ্ছল ব্যক্তিদের উদ্দেশ করে বলেন, ‘কেউ যাতে ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত না হয় সে লক্ষ্যে সমাজের দারিদ্র‍্যপীড়িত ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের পাশে দাঁড়ান।’

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে সোমবার বঙ্গভবনের ক্রিডেনশিয়াল হলে দেয়া এক শুভেচ্ছা ভাষণে রাষ্ট্রপ্রধান ধনী-গরিব নির্বিশেষে দেশের সবাইকে একসঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগের আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, ‘ফিলিস্তিনের গাজাসহ বিশ্বের অনেক স্থানে মানুষ অনাহার-অর্ধাহারে, বিনা চিকিৎসায় ও স্বজনহারা বেদনায় চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। তাদের কথাও আমাদের ভাবতে হবে।

‘সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড় রিমেলের আঘাতে উপকূলীয় অঞ্চলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অনেকেরই ইচ্ছা থাকলেও কোরবানি করতে পারছে না। ঘূর্ণিঝড়ে সহায়-সম্বল হারিয়ে তারা মানবেতর জীবনযাপন করছে। তাদের দুঃখ-কষ্ট লাঘবে এবং ঈদের খুশিতে তারাও যাতে শরিক হতে পারে সে চেষ্টা চালাতে হবে।

মুসলমানদের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা উপলক্ষে তিনি দেশ-বিদেশে বসবাসরত সব বাংলাদেশিকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানান রাষ্ট্রপতি।

তিনি বলেন, ‘ঈদুল আজহা মানুষের মধ্যে আত্মদান ও আত্মত্যাগের মানসিকতা সঞ্চারিত করে এবং সহিষ্ণুতার শিক্ষা দেয়।

‘আসুন, হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে সবার মাঝে ঈদের আনন্দ ছড়িয়ে দেই। পশু কোরবানির সঙ্গে সঙ্গে যাতে আমরা অন্তরের কলুষতা, হিংসা-বিদ্বেষ পরিহার করতে পারি- মহান আল্লাহর দরবারে এ প্রার্থনা করছি।’

মশা-মাছি ও বিভিন্ন রোগের প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে কোরবানির পর বাড়ির আশপাশের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখতে সবাইকে দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখারও তাগিদ দেন রাষ্ট্রপতি।

তিনি কোরবানির বর্জ্য সময়মতো সরিয়ে নিতে সিটি করপোরেশনকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করতে সবার প্রতি অনুরোধ জানান।

এর আগে রাষ্ট্রপতি ও তার স্ত্রী ড. রেবেকা সুলতানা ঈদুল আজহা উপলক্ষে বঙ্গভবনে সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

রাষ্ট্রপতি মন্ত্রিসভার সদস্য, সিনিয়র রাজনীতিবিদ, কূটনীতিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিচারক, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, কবি, লেখক, শিক্ষক এবং বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তাসহ সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

আরও পড়ুন:
দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন রাষ্ট্রপতি
চার দিনের সফরে পাবনায় রাষ্ট্রপতি

মন্তব্য

p
উপরে