× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

জীবনযাপন
K Craft brings office wear
hear-news
player
google_news print-icon

কে ক্র্যাফট এনেছে অফিস উপযোগী পোশাক

কে-ক্র্যাফট-এনেছে-অফিস-উপযোগী-পোশাক
সুনিপুণ দক্ষতা ও সর্বোচ্চ মান নিয়ন্ত্রণ করে তৈরি এই পোশাকগুলো গ্রহণযোগ্য লুক পেতে সাহায্য করবে।

কে ক্র্যাফট নিয়ে এসেছে অফিস উপযোগী পোশাকের নতুন কালেকশন। এর মধ্যে ছেলেদের জন্য রয়েছে ২৫টিরও বেশি ডিজাইনের স্ট্রাইপ, চেক এবং মার্জিত রঙের ফর্মাল শার্ট।

মেয়েদের জন্য আছে ১০০টিরও বেশি ট্রেন্ডি কুর্তি, সালোয়ার কামিজ ও শাড়ি। এসব পোশাক তৈরিতে ব্যবহার করা হয়েছে আরামদায়ক এবং উৎকৃষ্ট মানের কাপড়। সুনিপুণ দক্ষতা ও সর্বোচ্চ মান নিয়ন্ত্রণ করে তৈরি এই পোশাকগুলো গ্রহণযোগ্য লুক পেতে সাহায্য করবে।

কে ক্র্যাফট এনেছে অফিস উপযোগী পোশাক

অফিস, মিটিং বা প্রেজেন্টেশনে উপস্থিত হওয়ার জন্য মানানসই পোশাক নির্বাচনে সবাই সচেতন থাকেন। সঙ্গে আবহাওয়া উপযোগী পোশাক নির্বাচনের দিকেও মনোযোগী হতে হয়।

কে ক্র্যাফট এনেছে অফিস উপযোগী পোশাক

এসব চাহিদা পূরণ করতে কে ক্র্যাফটের ফর্মাল পোশাকগুলো অসাধারণ। এসব পোশাকে যে কেউ দিনভর থাকবে রিলাক্সড। বাড়িয়ে দেবে আত্মবিশ্বাস।

কে ক্র্যাফটের সব শো-রুম ছাড়াও অনলাইন শপে পাওয়া যাবে পোশাকগুলো।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
Stylish clothes by K Craft in winter

শীতে কে-ক্র্যাফটের স্টাইলিশ পোশাক

শীতে কে-ক্র্যাফটের স্টাইলিশ পোশাক ছবি: কে ক্রাফট
মেয়েদের ভিন্ন স্টাইলের ব্লেজার, ওপেন ফ্রন্ট ওভার কোট, জ্যাকেট, রিভারসেবল জ্যাকেট, ফুল লেংথ কটি, যা মিলিয়ে পরতে পারেন জিন্স বা পছন্দের স্টাইলের প্যান্টের সঙ্গে। রয়েছে ছেলেদের জন্য ফুল স্লিভ শার্ট, পলো, সোয়েট শার্ট, ক্যাজুয়াল শার্ট, কটিসহ অন্যান্য শীতের পোশাক।

বাতাসে শীতের হিম হিম পরশ। এ সময় চাই মানানসই পোশাক। শীতে উষ্ণতার পাশাপাশি থাকতে হবে অভিজাত ও স্টাইলিশ লুক। কে-ক্র্যাফটের ভিন্নধর্মী চমৎকার সব স্টাইলিশ পোশাক হতে পারে আপনার এ সময়ের সঙ্গী।

মেয়েদের ভিন্ন স্টাইলের ব্লেজার, ওপেন ফ্রন্ট ওভার কোট, জ্যাকেট, রিভারসেবল জ্যাকেট, ফুল লেংথ কটি, যা মিলিয়ে পরতে পারেন জিন্স বা পছন্দের স্টাইলের প্যান্টের সঙ্গে।

রয়েছে ছেলেদের জন্য ফুল স্লিভ শার্ট, পলো, সোয়েট শার্ট, ক্যাজুয়াল শার্ট, কটিসহ অন্যান্য আরও শীতের পোশাক। এরই সঙ্গে ছেলে-মেয়ে উভয়ের জন্যই রয়েছে শীতের উপযোগী ক্যাজুয়াল পোশাক ও এক্সেসরিজ।

নিয়মিত আয়োজন সালোয়ার-কামিজ, কুর্তি, টপস, টিউনিক, কাফটান ও শাড়ি তো থাকছেই। এসব পোশাকের কাট ও স্টিচে রয়েছে নতুনত্ব। অর্নামেন্টেশন ও প্রেজেন্টেশনেও রয়েছে বৈচিত্র্য।

বিভিন্ন রঙের প্রিন্ট ও উইভিং ডিজাইনে তৈরি করা হয়েছে শাল, যা এই শীতের জন্য বেশ উপযোগী। শুধু শীতের পোশাক বলেই নয়, ফ্যাশন অনুষঙ্গ হিসেবে পছন্দের নানা পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে পরতে শালের রয়েছে আলাদা কদর।

কে-ক্র্যাফটের ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লা, খুলনাসহ সব আউটলেট ছাড়াও অনলাইন থেকে শীতের পোশাক কিনতে পারেন বিশেষ সাশ্রয়ী মূল্যে। এ ছাড়া ফেসবুক পেজ থেকেও কেনাকাটা করার সুবিধা আছে।

আরও পড়ুন:
ঈদের পাঞ্জাবি
সোনামনিরও চাই ঈদের নতুন জামা
বাহারি পোশাকে আনন্দের ঈদ
ঈদে এলিট লাইফের ব্যতিক্রম অফার
মাতৃত্ব আর দৃঢ়তার গল্প শুনুন নাওমি ক্যাম্পবেলের কাছে

মন্তব্য

জীবনযাপন
Winter festival is going on in Rang Bangladesh

রঙ বাংলাদেশ এ চলছে ‘শীত উৎসব’

রঙ বাংলাদেশ এ চলছে ‘শীত উৎসব’ ছবি: রঙ বাংলাদেশ
শীত সংগ্রহের মূল আকর্ষণ শাল। পরা যাবে যেকোনো পোশাকের সঙ্গে। কেবল মেয়েদের নয়, ছেলেদের কালেকশনও সমান আকর্ষক। পাঞ্জাবি, কাতুয়া, ফুলহাতা ও হাফহাতা টি-শার্ট, শার্ট, কটির সঙ্গে শীত তাড়াতে থাকছে শাল।

দেশের জনপ্রিয় ফ্যাশন হাউস রঙ বাংলাদেশ-এ চলছে ‘শীত উৎসব’।

উইন্টার ট্রি’স থিমে সাজানো নকশায় নান্দনিক এবারের শীত সংগ্রহ। মূল রং হিসাবে কালো, অ্যাশ, সাদা, কফি, ব্রাউন, অলিভ, ম্যাট ভায়োলেট, ইয়েলো অকার, মেজেন্টা, নীল, পিচ, লাইট ব্রাউন ব্যবহার করা হয়েছে।

কটন, টুইল, ভিসকস, হাফসিল্ক, নীট ও লিলেন কাপড়ে পোশাকের নকশাকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে নানা ভ্যালু অ্যাডেড মিডিয়ার ব্যবহারে। এর মধ্যে রয়েছে কাটিং সুইং, প্যাচওয়ার্ক, স্ক্রীনপ্রিন্ট, ব্লকপ্রিন্ট ও হাতের কাজ ।

ট্র্যাডিশনালের পাশাপাশি ওয়েস্টার্ন পোশাকও এই সংগ্রহের বিশেষ আকর্ষণ। মেয়েদের রয়েছে শাড়ি, রেডি ব্লাউজ, পঞ্চ, লেডিস কটি, থ্রিপিস, সিঙ্গেল কামিজ, টপস্, শাল, শ্রাগ, লেডিজ কোট-প্যান্ট । এছাড়া সিঙ্গেল ওড়নাও পাওয়া যাবে নিয়মিত কালেকশনের অংশ হিসাবে।

রঙ বাংলাদেশ এ চলছে ‘শীত উৎসব’

শীত সংগ্রহের মূল আকর্ষণ শাল। পরা যাবে যেকোনো পোশাকের সঙ্গে। কেবল মেয়েদের নয়, ছেলেদের কালেকশনও সমান আকর্ষক। পাঞ্জাবি, কাতুয়া, ফুলহাতা ও হাফহাতা টি-শার্ট, শার্ট, কটির সঙ্গে শীত তাড়াতে থাকছে শাল। বড়দের পাশাপাশি শিশুদের জন্যও রয়েছে শীত পোশাক। এই সংগ্রহে রয়েছে ফুলশার্ট, টি-শার্ট, কটি, ফ্রক, থ্রিপিস ও সিঙ্গেল কামিজ।

শীতের এই সংগ্রহগুলো করা হয়েছে মূল ব্র্যান্ড রঙ বাংলাদেশ ছাড়াও সাবব্র্যান্ড ওয়েস্টরঙ, শ্রদ্ধাঞ্জলি আর রঙ জুনিয়রের সামগ্রী। প্রতিটি পণ্য রয়েছে সবার সাধ্যের মধ্যে।

ঢাকা ও ঢাকার বাইরের সব আউটলেটেই ক্রেতারা পাবেন এই শীত উৎসবের পোশাক। শোরুমের পাশাপাশি অনলাইনেও পাওয়া যাবে।

অনলাইন প্ল্যাটফর্মে শীত উৎসব এর পণ্য ক্রয়ে ভিজিট করুন: www.rang-bd.com অথবা রঙ বাংলাদেশের ফেসবুক পেজ www.facebook.com/rangbangladesh। আছে হোম ডেলিভারির সুবিধা।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Argentina love blossomed in autorickshaw

আর্জেন্টিনাপ্রীতি ফুটে উঠল অটোরিকশায়

আর্জেন্টিনাপ্রীতি ফুটে উঠল অটোরিকশায়
ব্রাজিলের সমর্থক হলেও আর্জেন্টিনার রঙে রাঙানো অটোরিকশায় চড়েছেন স্থানীয় মমিনুর রহমার। তিনি বলেন, ‘আমি ব্রাজিলের সমর্থক হয়েও এমন ব্যতিক্রম রিকশায় চড়েছি। আমরা ভিন্ন ভিন্ন দলের সমর্থক হতেই পারি। কিন্তু সামাজিক বন্ধনে সব বিভেদ ভুলে চলতে চাই সবাই।’

আর্জেন্টাইন ফুটবল দলের ভক্ত কুড়িগ্রামের অটোচালক আশরাফুল ইসলাম। আগে বিশ্বকাপ ফুটবলের সময় বাড়িতে আর্জেন্টিনার পতাকা ওড়াতেন তিনি। গতবার নিজের বাইসাইকেলটি আর্জেন্টিনার পতাকার রঙে রাঙিয়েছিলেন। এবার আকাশি-সাদায় রাঙিয়ে তুললেন নিজের অটোরিকশা।

আশরাফুলের বাড়ি কুড়িগ্রাম পৌরসভার একতা পাড়ায়। লিওনেল মেসির খেলা দেখেন মুগ্ধ হয়ে। প্রিয় ফুটবলার আর প্রিয় দলের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশে ৫ হাজার টাকা খরচ করে অটোরিকশা রং করেছেন তিনি।

নিউজবাংলাকে আশরাফুল বলেন, ‘লোকমুখে ফুটবল তারকা দিয়াগো ম্যারাডোনার খেলার গল্প শুনে আর্জেন্টিনার প্রতি সমর্থন শুরু হয়। পরে মেসির খেলা দেখে আর্জেন্টিনার প্রতি ভালোবাসা বেড়ে যায়। এবার দলের সমর্থন দেখাতে আর আর্জেন্টিনার অন্য ভক্তদের উৎসাহিত করতে আমার অটোটা রং করেছি।’

আর্জেন্টিনাপ্রীতি ফুটে উঠল অটোরিকশায়

ব্রাজিলের সমর্থক হলেও আর্জেন্টিনার রঙে রাঙানো অটোরিকশায় চড়েছেন স্থানীয় মমিনুর রহমার।

তিনি বলেন, ‘আমি ব্রাজিলের সমর্থক হয়েও এমন ব্যতিক্রম রিকশায় চড়েছি। আমরা ভিন্ন ভিন্ন দলের সমর্থক হতেই পারি। কিন্তু সামাজিক বন্ধনে সব বিভেদ ভুলে চলতে চাই সবাই।’

আরও পড়ুন:
ইরানের বিক্ষোভে সমর্থন বিশ্বকাপ দলের ডিফেন্ডারের
বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে আর্জেন্টিনার সম্ভাব্য একাদশ
কাতার বিশ্বকাপ: ৭৫০ কোটি ডলার আয় ফিফার
স্বাগতিক হিসেবে প্রথম ম্যাচ হারের রেকর্ড কাতারের
স্বাগতিকদের হারিয়ে আসরের প্রথম জয় তুলে নিল ইকুয়েডর

মন্তব্য

জীবনযাপন
Brazil is a car enthusiasts delight

‘ব্রাজিল’ গাড়ি নিয়ে ভক্তের উচ্ছ্বাস

‘ব্রাজিল’ গাড়ি নিয়ে ভক্তের উচ্ছ্বাস
সোহেল বলেন, ‘আমি ব্রাজিলের একনিষ্ঠ সমর্থক। অনেক সমর্থক তার প্রিয় দলের ভালোবাসায় কত কী করছে! আমিও পিছিয়ে থাকব কেন! তাই নিজের ব্যবসার কাজে ব্যবহার করা মাইক্রোটি ৩ দিন আগে ব্রাজিলের পতাকার রঙে রাঙিয়েছি।’

কুমিল্লার দেবিদ্বারের মোহাম্মদ সোহেল বালু ব্যবসায়ী। কাজের সূত্রে থাকেন আদর্শ সদর উপজেলায়। ব্রাজিল ফুটবল দলের এতটাই ভক্ত তিনি, যে এবার নিজের মাইক্রোবাসটি সেদেশের পতাকার রঙে রাঙিয়েছেন।

সেই গাড়ি নিয়ে রাস্তায় বের হলেই ফুটবলপ্রেমীরা ঘিরে ধরেন, ছবি তোলেন। এতে বেশ উচ্ছ্বসিত সোহেল।

নিউজবাংলাকে তিনি জানান, ছোটবেলায় নিজেও বেশ ফুটবল খেলেছেন। প্রিয় দল ব্রাজিল আর প্রিয় ফুটবলার রোনাল্ডো।

সোহেল বলেন, ‘আমি ব্রাজিলের একনিষ্ঠ সমর্থক। অনেক সমর্থক তার প্রিয় দলের ভালোবাসায় কত কী করছে! আমিও পিছিয়ে থাকব কেন! তাই নিজের ব্যবসার কাজে ব্যবহার করা মাইক্রোটি ৩ দিন আগে ব্রাজিলের পতাকার রঙে রাঙিয়েছি।

‘তারপর থেকে ব্যবসার কাজে যেখানে গেছি, সেখানেই ব্রাজিল ভক্তরা জড়ো হচ্ছেন। গাড়ির সঙ্গে সেলফি তুলছেন। আমাকে নিয়েও ছবি তুলছেন। আমার সঙ্গে হ্যান্ডশেক করেন।

‘রাস্তা দিয়ে গাড়ি নিয়ে যাওয়ার সময় সবাই তাকিয়ে থাকেন। বিষয়টা আমাকে আনন্দ দিচ্ছে। অন্য সব ভক্তের মতো আমারও দোয়া থাকবে, ব্রাজিল এবার বিশ্বকাপ নিবে।’

আরও পড়ুন:
ব্রাজিলের গণকের দাবি, ফাইনাল খেলবে আর্জেন্টিনা
বিশ্বকাপ খেলতে মুখিয়ে এরিকসেন
দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ শুরু
সিনেপ্লেক্সে দেখা যাবে ফিফা বিশ্বকাপ
জায়েদ খান কেন আর্জেন্টিনার সমর্থক

মন্তব্য

জীবনযাপন
I will slaughter 10 goats if Argentina wins the cup

‘আর্জেন্টিনা কাপ জিতলে ১০টা ছাগল জবাই দেব’

‘আর্জেন্টিনা কাপ জিতলে ১০টা ছাগল জবাই দেব’
চুয়াডাঙ্গা, বাগেরহাট ও সিরাজগঞ্জে শুক্রবার আর্জেন্টিনার ভক্তরা বিশাল সব পতাকা নিয়ে শোভাযাত্রা করেছেন। এর মধ্যে চুয়াডাঙ্গায় আর্জেন্টিনার ১ হাজার ফুট দীর্ঘ পতাকা নিয়ে শোভাযাত্রা করেছে ‘১৫ মেসি ভক্ত দামুড়হুদা’ নামে একটি সংগঠন। 

বিশ্বকাপ ফুটবল শুরু হবে আগামি রোববার। এ নিয়ে দেশজুড়ে ফুটবলপ্রেমীদের উত্তেজনা এখন তুঙ্গে। প্রিয় দলের পতাকা কত বড় বানানো যায়- তা নিয়ে ভক্তরা যেন প্রতিযোগিতায় নেমেছেন।

চুয়াডাঙ্গা, বাগেরহাট ও সিরাজগঞ্জে শুক্রবার আর্জেন্টিনার ভক্তরা বিশাল সব পতাকা নিয়ে শোভাযাত্রা করেছেন।

এর মধ্যে চুয়াডাঙ্গায় আর্জেন্টিনার ১ হাজার ফুট দীর্ঘ পতাকা নিয়ে শোভাযাত্রা করেছে ‘১৫ মেসি ভক্ত দামুড়হুদা’ নামে একটি সংগঠন।

সংগঠনে মুখপাত্র শুভ দাস বলেন, ‘আর্জেন্টিনা আমার প্রিয় দল। মেসি আমার প্রিয় খেলোয়াড়। প্রিয় দলকে ভালোবেসে সংগঠনের পক্ষ থেকে ১ হাজার ফুট দীর্ঘ এই পতাকা বানান হয়েছে।

‘আগামি ২২ নভেম্বর আর্জেন্টিনার খেলা। আমাদের শোভাযাত্রা সেদিন পর্যন্ত চলবে। আর্জেন্টিনা এবার কাপ জিতলে আমরা ১০টা ছাগল জবাই দিয়ে খাওয়া-দাওয়া করব।’

দামুড়হুদা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে শুক্রবার বিকেলে তাদের সঙ্গে যোগ দেন চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া থেকে আসা কয়েকশ আর্জেন্টাইন ভক্ত। স্টেডিয়াম থেকে তারা শোভাযাত্রা শুরু করে শহর ঘুরে হই-হুল্লোড় করে তারা।

বাগেরহাট শহরে এদিন বিকেলে রেলরোড থেকে আর্জেন্টিনার ভক্তরা ২০০ ফুট লম্বা পতাকা নিয়ে শোভাযাত্রা বের করে। তাদের ঢাক-ঢোলের তালে মুখর হয়ে ওঠে গোটা এলাকা। শহরের প্রধান সব সড়ক প্রদক্ষিণ করেন এই ভক্তরা।

‘আর্জেন্টিনা কাপ জিতলে ১০টা ছাগল জবাই দেব’

শোভাযাত্রার আয়োজক তরুণ ব্যবসায়ী রাজু আহমেদ বলেন, ‘আগামী ২২ তারিখ আর্জেন্টিনার খেলা। প্রিয় দলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে আমরা শোভাযাত্রা বের করেছি। যেহেতু এবার মেসির শেষ বিশ্বকাপ, তাই এ বিশ্বকাপটি খুব স্পেশাল।

‘এ বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা নিজ যোগ্যতার পরিচয় দিয়ে বিশ্বকাপে চ্যম্পিয়ন হবে বলে আমি আশা করছি। আশা করছি ফাইনালে আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল খেলবে।’

বাদ্যের তালে তালে সিরাজগঞ্জ শহরেও হয়ে গেছে আর্জেন্টাইন ভক্তদের শোভাযাত্রা। কারও হাতে দেশটির পতাকা, কেউ পরে ছিলেন জার্সি, কেউ পরেছেন মুখোশ।

‘আর্জেন্টিনা কাপ জিতলে ১০টা ছাগল জবাই দেব’

শোভাযাত্রায় অংশ নেয়া একরামুর হক বলেন, ‘আমরা আর্জেন্টিনার ফ্যান। সমর্থকদের অনুপ্রেরণা দিতেই এমন আয়োজন।’

আরও পড়ুন:
কাতার বিশ্বকাপ: খোলামেলা পোশাক পরলেই হতে পারে জেল
বিশ্বকাপ শেষ মানে, নিকো গনসালেসের
‘বিশ্বকাপ জিতবে ব্রাজিল’
খেলা নিয়ে রাজনীতি নয়: ম্যাখোঁ
৬০ ফুট পতাকা নিয়ে আর্জেন্টিনা ভক্তদের শোভাযাত্রা

মন্তব্য

জীবনযাপন
7 km flag of German fan thanks to Kabiraji medicine

কবিরাজি ওষুধের গুণে ৭ কিলোমিটার পতাকা জার্মান ভক্তের

কবিরাজি ওষুধের গুণে ৭ কিলোমিটার পতাকা জার্মান ভক্তের
নিউজবাংলাকে আমজাদ জানান, ১০ দিন ধরে পতাকাটি বানাচ্ছেন। তবে পুরোটা নতুন নয়। ২০১৮ সালে বানানো সাড়ে ৫ কিলোমিটার দীর্ঘ জার্মান পতাকার সঙ্গে নতুন করে তিনি জুড়ে দিয়েছেন ২ কিলোমিটার অংশ। 

মাগুরা পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডে থাকেন আমজাদ হোসেন। এলাকায় তিনি পতাকা আমজাদ নামে পরিচিত। কারণ, ২০১৪ সাল থেকে প্রতি বিশ্বকাপ ফুটবলের সময় প্রিয় দল জার্মানির বিশাল সব পতাকা বানিয়ে আসছেন তিনি।

এবার তিনি সাড়ে ৭ কিলোমিটার দীর্ঘ পতাকা বানিয়েছেন বলে দাবি করেছেন। তবে সেটি এখনও প্রকাশ্যে আনেননি তিনি। জানালেন, আগামী শুক্রবার সেটি স্থানীয় স্কুল মাঠে প্রদর্শন করবেন।

জার্মানির পতাকা তৈরির পেছনে এতটা টান কেন? জানতে কথা হয় ঘোড়ামারা গ্রামের আমজাদের সঙ্গে।

নিউজবাংলাকে তিনি জানান, ১০ দিন ধরে পতাকাটি বানাচ্ছেন। তবে পুরোটা নতুন নয়। ২০১৮ সালে বানানো সাড়ে ৫ কিলোমিটার দীর্ঘ জার্মান পতাকার সঙ্গে নতুন করে তিনি জুড়ে দিয়েছেন ২ কিলোমিটার অংশ।

আমজাদ বলেন, ‘২০০২ থেকে ২০০৪ দুই বছর পিত্তথলিতে পাথর নিয়ে খুব অসুস্থ ছিলাম। এরপর জামার্নি একটি কবিরাজি ওষুধ খেয়ে ৩ মাস পর সুস্থ হয়ে যাই। এই ওষুধ দিয়েছিলেন এলাকার মনোরঞ্জন কবিরাজ।

‘জার্মান ফুটবল দল আগে থেকেই সমর্থন করতাম। তবে ওই জার্মানির ওষুধ খেয়ে সুস্থ হওয়ার পর মূলত জার্মান ফুটবল দলের অন্ধভক্ত হয়ে গেছি।’

তিনি বলেন, ‘তখন দেশের নানা প্রান্ত থেকে মানুষ দেখতে আসত পতাকা। আমার ভাল লাগত। পতাকা বানাতে জমিও বিক্রি করেছি।’

আমজাদ জানান, এবারের ২ কিলোমিটার পতাকা বানাতে প্রায় ২০০ গজ কাপড় লেগেছে। মজুরিসহ খরচ পড়েছে প্রায় ১ লাখ টাকা। এবার আর জমি বিক্রি করতে হয়নি। তার প্রবাসী ছেলে পতাকা বানাতে টাকা পাঠিয়েছেন।

এই পতাকা জার্মান দূতাবাসে পাঠাবেন বলে জানিয়েছেন আমজাদ।

মন্তব্য

জীবনযাপন
The rare love of Brahmanbaria youth for South Korea

দ.কোরিয়ার প্রতি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার যুবকের বিরল ভালোবাসা

দ.কোরিয়ার প্রতি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার যুবকের বিরল ভালোবাসা
বাঞ্ছারামপুরের দড়িকান্দি ইউনিয়নের খল্লা গ্রামের পশ্চিম পাড়ায় নিজ বাড়ি থেকে শ্বশুরবাড়ি পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার রাস্তার ধারে দক্ষিণ কোরিয়ার পতাকা লাগিয়েছেন মিন্টু ও তার স্ত্রী সাবিনা বেগম।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরের আবু কাউসার মিন্টু ১৫ বছর কাটিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ায়। সেখানে থাকা অবস্থায় খেলা দেখতে দেখতে দক্ষিণ কোরিয়ার ফুটবল দলের ভক্ত হয়ে যান তিনি।

২০১৩ সালে দেশে ফিরে এলেও ওই দেশের প্রতি টান এতটুকু কমেনি মিন্টুর। এবার ফুটবল বিশ্বকাপ নিজ গ্রামে বসেই দেখবেন তিনি। প্রিয় দলের প্রতি ভালোবাসা দেখাতে ৪ কিলোমিটার লম্বা দক্ষিণ কোরিয়ার পতাকা বানিয়েছেন তিনি ও তার স্ত্রী। সেজন্য ৫ লাখ টাকা খরচ করেছেন বলে জানিয়েছেন মিন্টু।

বাঞ্ছারামপুরের দড়িকান্দি ইউনিয়নের খল্লা গ্রামের পশ্চিম পাড়ায় নিজ বাড়ি থেকে শ্বশুরবাড়ি পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার রাস্তার ধারে দক্ষিণ কোরিয়ার পতাকা লাগিয়েছেন মিন্টু ও তার স্ত্রী সাবিনা বেগম।

নিউজবাংলাকে মিন্টু জানান, জীবিকার তাগিদে দক্ষিণ কোরিয়ায় যান ১৯৯৮ সালে। ২০০২ সালে কোরিয়ায় হওয়া ফুটবল বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো সেখানে স্টেডিয়ামে বসে দেখেছেন। এবার নিজ গ্রামে বসে প্রিয় দলের সব খেলা দেখবেন।

দ.কোরিয়ার প্রতি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার যুবকের বিরল ভালোবাসা

তিনি বলেন, ‘আমি দেশে ফিরে ঢাকার গাজীপুরে একটি ছোটো ব্যবসা শুরু করি। তবে কোরিয়ার প্রেম আমার মনেই রয়ে গেছে। ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে ঢাকার বিমানবন্দর এলাকায় আমি ১ হাজার ফুট লম্বা কোরিয়ান পতাকা ঝুলাই। কিন্তু এতেও কেন জানি আমার মন ভরেনি। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম- ২০২২ সালের বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে সবচেয়ে বড় পতাকা টানাবো।

‘৪ কিলোমিটার লম্বা কোরিয়ার পতাকা টানানোতে আমার স্ত্রীর অনেকটাই সহযোগিতা রয়েছে। আমার স্ত্রী সাবিনা মাটির ৮টি ব্যাংকে টাকা জমিয়েছেন। সেখান থেকে পাওয়া গেছে দেড় লাখ টাকা। আর আমার একটি আম বাগান আছে। সেটি বিক্রি করে দিয়েছি। এরপর মোট ৫ লাখ টাকা খরচ করে কোরিয়ার পতাকাটি তৈরি করা হয়েছে।’

দাড়িকান্দি গ্রামের ফজলু মিয়া বলেন, ‘হের শখ আসিলো বড় পতাকা বানাইবো, বানাইছে। আমডার গেরামো এর আগে অতবড় পতাকা কেউ বানাইছে না। ৪ কিলোমিটার পতাকা বানাইয়া তো আমডার গেরামরে ভাইরাল কইরা দিসে।’

দ.কোরিয়ার প্রতি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার যুবকের বিরল ভালোবাসা

বাঞ্ছারামপুর পৌরসভার মেয়র শিব শঙ্কর দাস বলেন, ‘বিশ্বকাপ ফুটবল একটি বড় আয়োজন। বিশ্বের সব দেশের ফুটবল সমর্থকদের আবেগের একটি আয়োজন এটি।

‘দড়িকান্তি ইউনিয়নের আবু কাউসার মিন্টুর ৪ কিলোমিটার পতাকা তৈরির বিষয়টিও ঠিক তেমনই উৎসবমূখর। সমর্থন ও ভালোবাসা থেকে এই বিশাল পতাকা তৈরি। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি ছড়িয়ে পড়েছে। তাকে অভিনন্দন ও শুভ কামনা।’

আরও পড়ুন:
আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ ক্যাম্পে যোগ দিলেন মেসি
বিশ্বকাপের আগে ত্বকের চিকিৎসায় নেইমার
আর্জেন্টাইন ভক্তদের মাতাতে এবারও গাইবেন হিরো আলম
২০১৪ সালের মতোই শক্তিশালী এবারের দল: মেসি
বিশ্বকাপ শুরুর ঠিক আগে পৌঁছাবে ব্রাজিল দল

মন্তব্য

p
উপরে