× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

জীবনযাপন
Today is cat day
hear-news
player
google_news print-icon

তুলতুলে বিড়ালকে বাড়তি ভালোবাসার দিন আজ

তুলতুলে-বিড়ালকে-বাড়তি-ভালোবাসার-দিন-আজ-
আন্তর্জাতিক বিড়াল দিবসে বিড়াল বাড়তি আদরযত্ন চাইতেই পারে। তবে বছরের বাকি দিনও যে ওদের নয়, সেটা ভাবার কোনো কারণ নেই। আপনি না চাইলেও পোষা বিড়াল ঠিকই জানে কোন কৌশলে আপনার মনোযোগ কেড়ে নিতে হয়। 

ঘরে পোষ মানানো কিংবা অনাহূত যে ধরনের বিড়ালই হোক, আজ তাদের একটু আলাদা রকমের যত্নআত্তি নিন। একটু বিশেষ খেয়াল রাখুন ওদের সুবিধা-অসুবিধার দিকে। কারণ আজ ৮ আগস্ট, আন্তর্জাতিক বিড়াল দিবস।

গ্রহের যেসব প্রাণী দীর্ঘকাল ধরে মানুষের নিবিড় সান্নিধ্য পেয়ে আসছে, তাদের একেবারেই সামনের সারিতে আছে বিড়াল। তুলতুলে, অনুসন্ধিৎসু, আদুরে আর মুডি এই প্রাণীকে ভালোবাসেন না এমন মানুষ আছে খুবই কম।

আজকের দিনে বিড়ালকে বাড়তি খুশি করতে চাইলে এখনই ছুটতে পারেন পেট শপে। বিদ্যুৎ সংকটে রাত ৮টায় দোকান বন্ধ হওয়ার আগেই কিনে আনতে পারেন তুলতুলে বিছানা বা দারুণ কোনো খেলনা। সঙ্গে বিড়ালের পছন্দের খাবার।

ধারণা করা হয়, বিশ্বে নানা প্রজাতির প্রায় ৫০ লাখ বিড়াল আছে। মাংসাশী এই তুলতুলে প্রাণীকে ভালোবেসে ঘরে জায়গা দিয়েছে সারা দুনিয়ার মানুষ, যদিও এগুলোর আদি বাস আফ্রিকায়।

বিড়াল সম্পর্কে প্রথম ঐতিহাসিক রেকর্ড প্রাচীন মিসরীয় সভ্যতার সংস্কৃতিতে পাওয়া যায়। মিসরীয়রা বিড়ালকে দেবতা মানত, পূজা করত।

মাফডেট নামে এক বিড়াল দেবতাকে সে সময়কার মিসরীয়রা সাপ, বিচ্ছু এবং খারাপ কিছুর বিরুদ্ধে রক্ষক হিসেবে মনে করত।

তুলতুলে বিড়ালকে বাড়তি ভালোবাসার দিন আজ
মাফডেট নামে এই বিড়াল দেবতাকে মিশরীয়রা এক সময় পূজা করত। ছবি: সংগৃহীত

মিসরীয় রাজবংশের পতন হলেও বিড়াল ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে বিশ্বব্যাপী। গ্রিক এবং রোমানরা কীটপতঙ্গ থেকে রক্ষা পেতে পুষত বিড়াল। প্রাচ্যে মূলত ধনী ব্যক্তিরা বাড়িতে বিড়াল রাখতেন।

মধ্যযুগে বিড়াল নিয়ে নানা কুসংস্কার ছড়িয়ে পড়ে ইউরোপে। ১৩৪৮ সালে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া ব্ল্যাক ডেথের বাহক হিসেবে বিবেচনা করা হতো বিড়ালকে। এ কারণেই সেই যুগে বিড়াল হত্যা অনেক বেড়ে যায়। তবে ১৬০০ দশকের পর বদলাতে থাকে দৃষ্টিভঙ্গি।

আমেরিকায় পোকামাকড় এবং রোগ নিয়ন্ত্রণের জন্য ঔপনিবেশিক জাহাজে বিড়ালের দেখা মিলত। আধুনিক সমাজে এখন বিড়াল পোষা রীতিমতো শখে পরিণত হয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর এনিমেল ওয়েলফেয়ার নামে একটি সংগঠন ২০০২ সাল থেকে আগস্টের প্রথম সোমবার অর্থাৎ আজকের দিনটিতে বিড়ালদের ছুটিও ঘোষণা করেছে।

আন্তর্জাতিক বিড়াল দিবসে তাই বিড়াল বাড়তি আদরযত্ন চাইতেই পারে। তবে বছরের বাকি দিনও যে ওদের নয়, সেটা ভাবার কোনো কারণ নেই। আপনি না চাইলেও পোষা বিড়াল ঠিকই জানে কোন কৌশলে আপনার মনোযোগ কেড়ে নিতে হয়।

আরও পড়ুন:
সানসেটে আটকা পড়া বিড়াল উদ্ধার যেভাবে
বিড়াল বাঁচাতে এলো ফায়ার সার্ভিস
মুরগি চুরির অপরাধে আটক, পরে মুক্তি
লাউয়াছড়ায় মা হারা তিন বনবিড়াল শাবকের মৃত্যু
তিন যুবক বাঁচালেন বিরল বনবিড়ালের ৫ ছানা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
Durga is returning from her fathers house to her husbands house

বাবার বাড়ি থেকে স্বামীর ঘরে ফিরলেন দুর্গা

বাবার বাড়ি থেকে স্বামীর ঘরে ফিরলেন দুর্গা বুধবার বিকেলে রাজধানীর বসিলায় বুড়িগঙ্গা নদীতে প্রতিমা বিসর্জন দেয়া হয়। ছবি: নিউজবাংলা
সকালে দশমী বিহিত পূজা শেষে দর্পণ বিসর্জন দেয়া হয়। এরপর শুরু হয় বিজয়া দশমীর শোভাযাত্রা। এই আয়োজন শেষে বিসর্জন দিতে ঢাকা মহানগরের পূজা মণ্ডপগুলোর প্রতিমাবাহী গাড়িগুলো জড়ো হয় বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে।

লাখো-কোটি ভক্তকে বিচ্ছেদের কষ্টে ভাসিয়ে কৈলাসে স্বামীর ঘরে ফিরে গেলেন দেবী দুর্গা। শেষ হলো মর্ত্যে বাবার বাড়িতে সন্তানদের নিয়ে বার্ষিক অবকাশ। ভক্তদের সঙ্গে বিচ্ছেদের বিজয়া দশমীতে তাই বেজেছে বিষণ্ণতার সুর ৷

একে একে ষষ্ঠী, সপ্তমী, অষ্টমী আর নবমী তিথি পার করে বিজয়ার শেষ দিনে বুধবার বিকেলে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে সব মণ্ডপে দেবীকে বিদায় জানান ভক্ত-পুণ্যার্থীরা। মণ্ডপে মণ্ডপে চলে নারীদের সিঁদুরের খেলা।

রাজধানীর মণ্ডপগুলোতে সকালে দশমী বিহিত পূজা শেষে দর্পণ বিসর্জন দেয়া হয়। এরপর শুরু হয় বিজয়া দশমীর শোভাযাত্রা। এই আয়োজন শেষে বুড়িগঙ্গা নদীর বিভিন্ন প্রান্তে বিসর্জন দিতে ঢাকা মহানগরে পূজা মণ্ডপগুলোর প্রতিমাবাহী গাড়ি জড়ো হয় নদী তীরে।

বাবার বাড়ি থেকে স্বামীর ঘরে ফিরলেন দুর্গা
বুধবার বিকেলে রাজধানীতে প্রতিমা বিসর্জনের শোভাযাত্রায় ভক্তরা। ছবি: নিউজবাংলা

বিকেল সাড়ে ৩টায় ওয়ারীর টিপু সুলতান রোড থেকে শ্রীশ্রী রাধা গোবিন্দ জিউ বিগ্রহ মন্দির থেকে প্রথম প্রতিমা বির্সজনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে বির্সজন শুরু হয়।

এরপর একে একে আসে ধানমন্ডি সার্বজনীন পূজা উদযাপন কমিটি, টিকাটুলির সেন্ট্রাল উইমেন্স কলেজ থেকে ইয়াংস্টার পূজা কমিটি ও হাজারীবাগ সিটি কলোনি মন্দিরের প্রতিমা।

প্রতিমা নিয়ে আসা সারি সারি ট্রাক থেকে পর্যায়ক্রমে সেগুলো নৌকায় করে বুড়িগঙ্গা নদীতে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখানে দেয়া হয় বিসর্জন।

ভক্তরা বিষাদ ভুলে হাসিমুখে দেবী মাকে বিদায় জানাতে উৎসবে মেতে ওঠেন। বিসর্জনের আগ পর্যন্ত তারা একে-অন্যকে সিঁদুরে রাঙান, ঢাক ঢোলের তালে নাচ-গান করেন। একই সঙ্গে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন, সারাটা বছর যেন এমন আনন্দে কেটে যায়।

স্বামীবাগ থেকে এসেছেন ননী গোপাল সরকার ও তার স্ত্রী পুষ্প রানী সরকার। তারা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা এসেছি মাকে বির্সজন দিতে। আজ মাকে বির্সজন দিলাম, যাতে মা আগামী বছর আবার আসে আমাদের জন্য সুখ-সমৃদ্ধি নিয়ে।’

বাবার বাড়ি থেকে স্বামীর ঘরে ফিরলেন দুর্গা
বিজয়া দশমীতে রাজধানীর এক পূজা মণ্ডপে ভক্ত-পুণ্যার্থীরা মাতেন সিঁদুর খেলায়। ছবি: নিউজবাংলা

বিকেল ৩টায় রাজধানীর মোহাম্মাদপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, কড়া পুলিশ পাহারায় একাধিক প্রতিমাবাহী গাড়িগুলো বসিলা অভিমুখে এগিয়ে যাচ্ছে। আর ভক্তরা ঢাক-ঢোল ও বাঁশি বাজিয়ে নেচে-গেয়ে দেবীকে বিদায় জানাচ্ছেন। সড়কের দুই পাশে পথচারীরা দাঁড়িয়ে এই আনন্দ আয়োজনের শেষ মুহূর্তের দৃশ্য উপভোগ করছেন। বসিলায় বুড়িগঙ্গা নদীতে প্রতিমা বিসর্জন দেয়া হয় বিকেল ৪টা ১৫ মিনিটে।

এদিকে নদী প্রান্তে এসে দেখা যায় হাজারও মানুষের ভিড়। শেষবারের মতো দেবী দুর্গাকে দেখতে ভিড় জমিয়েছেন অনেকে।

রায়েরবাজার শেরেবাংলা রোডের কালী মন্দির থেকে প্রতিমা নিয়ে এসেছেন প্রদীপ মণ্ডল ও অন্যরা। এই ভক্ত নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মায়ের কাছে চেয়েছি তিনি আমাদের সকলের মঙ্গল করুন। সুখে-শান্তিতে রাখুন। সকলের মঙ্গল হোক- এটাই কামনা করি৷’

প্রতিমা বিসর্জনকে কেন্দ্র করে সদরঘাটসহ বুড়িগঙ্গার বিভিন্ন অংশে ছিল কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা। এ বিষয়ে কোতোয়ালি থানার ওসি মিজানুর রহমান নিউজবাংলাক বলেন, ‘সুষ্ঠুভাবে প্রতিমা বিসর্জনের জন্য আমরা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছি। আশা করি প্রতিমা বিসর্জনে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটবে না।

‘প্রতিমা বির্সজন দিতে গিয়ে যাতে কোনোরকম দুর্ঘটনা না ঘটে সে জন্য আমরা বৃদ্ধ, শিশু ও মহিলাদের নৌকায় উঠতে দিচ্ছি না। এখানে পূজা উদযাপন কমিটি আছে। তারা যাদের সিলেক্ট করছে তারাই কেবল নৌকায় উঠে প্রতিমা বির্সজন দিতে পারছে।’

বাবার বাড়ি থেকে স্বামীর ঘরে ফিরলেন দুর্গা
রাজধানীতে বিজয়া দশমীর দিনে প্রতিমা বিসর্জনের আয়োজনেও ছিল কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা। ছবি: নিউজবাংলা

এ ছাড়া প্রতিমা বিসর্জনের সময় কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে তাৎক্ষণিক উদ্ধার তৎপরতার জন্য ছিল নৌ-পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের উপস্থিতি।

প্রতিমা বির্সজনের সময় বুড়িগঙ্গা নদীতে বাংলাদেশ নৌ-পুলিশের জলযান নিয়ে টহল দিতে দেখা গেছে। এ সময় তারা বেশ কয়েকটি স্পিড বোট দিয়ে প্রতিমা বির্সজনের ঘাটসহ আশপাশ এলাকা টহল দেয়। নদীপথে প্রতিমা নিয়ে যাওয়া প্রতিটা নৌকার সঙ্গে ছিল নৌ-পুলিশের স্পিড বোট।

মহানগর সার্বজনীন পূজা উদযাপন কমিটির সহ-সমাজ কল্যাণ সম্পাদক বিপুল ঘোষ শংকর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রতিমা বির্সজন উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী যে নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিয়েছে তাতে আমরা খুশি। সব মিলে ৯০টি মন্দির থেকে এখানে প্রতিমা নিয়ে আসা হচ্ছে বির্সজনের জন্য। আমরা আমাদের কমিটির মাধ্যমে এই বির্সজন প্রক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

শারদীয় দুর্গোৎসবের সমাপ্তি ঘটে বিজয়া দশমীর মাধ্যমে। তাই তো ‘দশমী’ কথাটির মধ্যে রয়েছে আবেগ, বিচ্ছেদের কষ্ট। শনিবার ষষ্ঠীতে দেবী দুর্গা কৈলাস ছেড়ে সপরিবারে এসেছিলেন মর্ত্যে। দশমী তিথিতে দেবী ফিরছেন কৈলাসে।

ঢাকাসহ সারা দেশে আজই দেবী দুর্গার প্রতিমা বিসর্জন দেয়া হবে। এর মধ্য দিয়ে শুরু হবে এক বছরের অপেক্ষা- যেদিন দেবী আবার স্বামীর ঘর থেকে নেমে আসবেন মর্ত্যে, ভক্তদের মাঝে।

বাবার বাড়ি থেকে স্বামীর ঘরে ফিরলেন দুর্গা
রাজধানীর বসিলায় বুড়িগঙ্গা নদীতে প্রতিমা বিসর্জন দিচ্ছেন ভক্তরা। ছবি: নিউজবাংলা

পৌরাণিক শাস্ত্র অনুযায়ী, টানা যুদ্ধ করে দশম দিনে দেবী দুর্গা বধ করেছিলেন মহিষাসুরকে। এ জন্য একে বিজয়া দশমী বলা হয়ে থাকে।

পুরাণ অনুযায়ী, এবার দেবী মর্ত্যে এসেছেন গজে চেপে। এর অর্থ হলো সুখ ও সমৃদ্ধি বয়ে আনা।

আর দেবী মর্ত্য ছাড়ছেন নৌকায় চড়ে। এর ফলে ধরনী হবে শস্যপূর্ণ। তবে একই সঙ্গে থাকবে অতিবৃষ্টি বা বন্যা।

সারা দেশে এবার ৩২ হাজার ১৬৮টি মণ্ডপে দুর্গাপূজার আয়োজন করা হয়। গত বছরের তুলনায় এবার মণ্ডপ সংখ্যা বেড়েছে ৫০টি। এর মধ্যে ঢাকা মহানগরে ২৪১টি মণ্ডপে পূজা উদযাপন হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
ষষ্ঠীর বোধনে দুর্গাপূজা শুরু সোমবার
শারদীয় দুর্গাপূজা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি
ক্যাপসুল ও সিরিঞ্জ দিয়ে অভিনব প্রতিমা
পূজা নিয়ে অপপ্রচার মূল জনগোষ্ঠীর কাজ না: ডিএমপি কমিশনার
নিয়মে সীমাবদ্ধ দুর্গাপূজা

মন্তব্য

জীবনযাপন
At the time of Durgas journey to Kailash vermilion is played in the mandapam

দুর্গার কৈলাস যাত্রার ক্ষণে মণ্ডপে মণ্ডপে সিঁদুর খেলা

দুর্গার কৈলাস যাত্রার ক্ষণে মণ্ডপে মণ্ডপে সিঁদুর খেলা রাজধানীর একটি মণ্ডপে চলছে সিঁদুর খেলা। ছবি: নিউজবাংলা
সিদ্ধেশ্বরী কালীমন্দিরের আশপাশের হিন্দু পরিবার তখন ভিড় করেছে মন্দিরে। বিবাহিত নারীরা এ সময় দেবীকে পান ও মিষ্টি মুখ করিয়ে বিদায় জানান। এরপর একে অন্যের কপালে ও পায়ে সিঁদুর দিয়ে ও মিষ্টি খাওয়ানোর মধ্য দিয়ে পালন করেন বিজয়া দশমী। সিঁদুর খেলা বাঙালি সম্প্রদায়ের দুর্গাপূজা উদযাপনের একটি ঐতিহ্যবাহী উপাদান।

বিজয়া দশমীতে বুধবার দেবী দুর্গা মর্ত্য ছেড়ে ফিরে যাবেন কৈলাসে। সারা বছরের অপেক্ষা শেষ হবে বিসর্জনের মধ্য দিয়ে। তবে এর আগে মণ্ডপে মণ্ডপে দেবীর বিজয়া উদযাপনে শুরু হয় রমণীদের সিঁদুর খেলা। এই দৃশ্য বহু বছর ধরে চলে আসছে।

ঢাকার সিদ্ধেশ্বরী কালীমন্দিরে গিয়ে দেখা যায়, সকাল ১০টা থেকেই সিঁদুর খেলা শুরু হয়েছে। এর আগে ৯টা ৫৭ মিনিটে দেবীর দশমী বিহিত পূজা শেষ হয়, সেই সঙ্গে দেয়া হয় দর্পণ-বিসর্জন। এরপর বিকেল ৩টায় শোভাযাত্রা নিয়ে যাওয়া হবে বুড়িগঙ্গার ঘাটে। সেখানে দেয়া হবে বিসর্জন।

সিদ্ধেশ্বরী কালীমন্দিরের আশপাশের হিন্দু পরিবার তখন ভিড় করেছে মন্দিরে। বিবাহিত নারীরা এ সময় দেবীকে পান ও মিষ্টি মুখ করিয়ে বিদায় জানান। এরপর একে অন্যের কপালে ও পায়ে সিঁদুর দিয়ে ও মিষ্টি খাওয়ানোর মধ্য দিয়ে পালন করেন বিজয়া দশমী। সিঁদুর খেলা বাঙালি সম্প্রদায়ের দুর্গাপূজা উদযাপনের একটি ঐতিহ্যবাহী উপাদান।

সিদ্ধেশ্বরীসহ ঢাকা ও সারা দেশের মণ্ডপগুলোতে সকাল থেকে একই চিত্র দেখা যায়। দেবীকে বিদায় দেয়ার প্রাক্কালে চলছে সিঁদুর খেলা।

সিঁদুর খেলার বিশেষ একটি কারণ কোথাও পাওয়া যায়নি। তবে হিন্দুধর্মে বিশ্বাস করা হয়, সিঁদুর এর স্ত্রী তার সিঁদুরের শক্তি দিয়ে স্বামীকে রক্ষা করেন। সিঁদুরের লাল রং শক্তি ও ভালোবাসা বোঝায়। তাই এদিন মায়ের আশীর্বাদে চলে সিঁদুর খেলা।

অন্যদিকে এটাও বিশ্বাস করা হয় যে, টানা ৯ দিন মহিষাসুরকে যুদ্ধে হারানোর পর আজকের দিনে জয়লাভ করেন দেবী দুর্গা। তাই বিজয় উদযাপনে খেলা হয় সিঁদুর।

অনেকেই মনে করেন, দেবীকে মর্ত্য থেকে কৈলাসে স্বামী শিবের কাছে পাঠানোর সময় সিঁদুর দিয়ে বিদায় দিতে হয়। তাই এই সময় বিবাহিত নারীরা সিঁদুর খেলা করেন।

মন্দিরে সিঁদুর খেলা নিয়ে ব্যস্ত এক পুণ্যার্থী নিউজবাংলাকে বলেন, সারা বছর মায়ের জন্য অপেক্ষা করে থাকি। আর এই দিন আমাদের কাছে বিশেষ কিছু। দশমীর আগে সিঁদুর খেলা বিজয়ার তাৎপর্য ও স্মৃতিকে আরো সতেজ রাখে আমাদের মনে।

একই কথা অন্যসব পুণ্যার্থীরও। বিজয়া দশমীর প্রধান তাৎপর্য তাদের কাছে সিঁদুর খেলার মধ্যে নিহিত।

পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক চন্দ্রনাথ পোদ্দার বলেন, বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনে যেন কোনো বিশৃঙ্খলা না হয়, এ জন্য মন্দিরগুলোকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সারা দেশে স্থানীয় আয়োজন ও সুবিধামতো সময়ে প্রতিমা বিসর্জন দেওয়া হবে। তবে ঢাকা মহানগরীতে বিকেল ৩টার পর থেকে বিসর্জন শুরু হবে।

পুরাণ অনুযায়ী, এবার দেবী মর্ত্যে এসেছেন গজে চেপে। দুর্গা গজে চড়ে এলে সুখ ও সমৃদ্ধি বয়ে আনেন। আর আজ বিজয়া দশমীতে দেবী মর্ত্য ছাড়বেন নৌকায় চড়ে। নৌকায় গমনেও ধরণি হবে শস্যপূর্ণ, তবে থাকবে অতিবৃষ্টি বা বন্যা।

এবার সারা দেশে দুর্গাপূজার মণ্ডপ ৩২ হাজার ১৬৮টি। গত বছরের তুলনায় এবার মণ্ডপ বেড়েছে ৫০টি। এর মধ্যে ঢাকা মহানগরে ২৪১টি মণ্ডপে পূজা উদযাপিত হবে।

আরও পড়ুন:
রাজ্যবাসীকে বিজয়ার শুভেচ্ছা মমতার
উমার বিদায়বেলা
দুর্গা আসেননি মণ্ডপে, ঝুলছে কালো পতাকা

মন্তব্য

জীবনযাপন
Soil given to forbidden women is also mixed in the Durga statue

‘নিষিদ্ধ’ নারীদের দেয়া মাটিও মিশে আছে দুর্গা প্রতিমায়

‘নিষিদ্ধ’ নারীদের দেয়া মাটিও মিশে আছে দুর্গা প্রতিমায়
পুরান ঢাকার প্রতিমা শিল্পী বলাই পাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দেবীর প্রতিমা তৈরিতে পাঁচ ধরনের মাটি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এর মধ্যে যৌনপল্লীর মাটিও রয়েছে। যেসব জায়গায় অনেক আগে যৌনকর্মীরা থাকত সেখানকার মাটি আমরা সংগ্রহ করে রাখি। প্রতিবছর প্রতিমা তৈরিতে সেগুলো ব্যবহার করি।’

বাঙালি হিন্দুদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গা পূজাকে বলা হয় সার্বজনীন। এই সার্বজনীনতা শুধু উৎসবে সবার অংশগ্রহণেই সীমিত নয়, দেবী দুর্গার প্রতিমা তৈরিতে ব্যবহৃত বিভিন্ন উপকরণও সংগৃহীত হয় নানা জায়গা থেকে।

প্রতিমা তৈরি ও পূজায় ব্যবহার করা হয় বিভিন্ন জায়গা থেকে সংগ্রহ করা মাটি। সমাজের একদম প্রান্তিক অবস্থানে থাকা এবং মূল সমাজে ‘নিষিদ্ধ’ যৌনকর্মীদের দানের মাটিও মিশে আছে প্রতিমা ও দেবী বন্দনায়।

প্রতিমা শিল্পী ও পূজা সংশ্লিষ্ট বেশ কয়েকজন নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন, চণ্ডী পুরাণের নির্দেশনা অনুসারে দেবী দুর্গার প্রতিমা বানানো ও পূজা করা হয়। সেখানে ‘বেশ্যাদ্বার’ বা যৌনপল্লীর মাটি ব্যবহারের কথা বলা হয়েছে।

পুরান ঢাকার বাংলাবাজার জমিদার বাড়ির প্রতিমা তৈরি করেছেন বলাই পাল। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দেবীর প্রতিমা তৈরিতে পাঁচ ধরনের মাটি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এর মধ্যে যৌনপল্লীর মাটিও রয়েছে।’

ঢাকার শিল্পীরা কোথা থেকে এই মাটি সংগ্রহ করেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যেসব জায়গায় অনেক আগে যৌনকর্মীরা থাকত সেখানকার মাটি আমরা সংগ্রহ করে রাখি। প্রতিবছর প্রতিমা তৈরিতে সেগুলো ব্যবহার করি।’

ঢাকায় আগে ইংলিশ রোড ও কুমারটুলি এলাকায় যৌনকর্মীরা থাকতেন উল্লেখ করে এই প্রতিমা শিল্পী বলেন, ‘আমরা সেখানকার মাটি সংগ্রহ করে রেখেছি। সেই মাটি অল্প পরিমাণে প্রতিমায় ব্যবহার করি।’

‘নিষিদ্ধ’ নারীদের দেয়া মাটিও মিশে আছে দুর্গা প্রতিমায়

ঢাকার সিদ্ধেশরী কালী মন্দিরের পুরোহিত ননী গোপাল গাঙ্গুলি অবশ্য দাবি করছেন প্রতিমায় যৌনকর্মীদের বসতির মাটি ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা নেই, তবে এই মাটি পূজার ঘট বসাতে অবশ্যই প্রয়োজন।

ননী গোপাল গাঙ্গুলি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মায়ের (দুর্গা) প্রতিমা তৈরিতে এই মাটি ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা নেই। তবে প্রতিমার সামনে ঘট বসানোর জন্য আটটি স্থানের মাটি লাগে। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বেশ্যাদ্বার মৃত্তিকা (মাটি)।

‘এই মাটি ছাড়া পূজা করার কোন অর্থ নেই। এটা বাধ্যতামূলক।’

অন্য সাতটি জায়গার মাটির বিষয়ে তথ্য দিয়ে তিনি বলেন, ‘এগুলো হলো গজদন্ত মৃত্তিকা (হাতির দাঁতে লেগে থাকা মাটি), পর্বতের মৃত্তিকা, নদীর দুই ধারের মৃত্তিকা, গঙ্গার দুই কূলের মৃত্তিকা, চৌমাথার মৃত্তিকা, রাজবাড়ির মৃত্তিকা, সাগরের নীচের মৃত্তিকা।’

তবে এসব মাটির সবগুলো বাংলাদেশে সব সময় পাওয়া যায় না বলেও জানান এই পুরোহিত।

তিনি বলেন, ‘পূজায় এখন যা ব্যবহার করা হয় তার সবই আসে ভারত থেকে। কলকাতা থেকে এগুলো নিয়ে আসা হয়। মূলত ঢাকার শাঁখারীবাজার এলাকায় পূজার সব উপকরণ বিক্রি করা হয়। সেখান থেকেই সবাই কিনে নিয়ে পূজায় ব্যবহার করেন।’

দুর্গাপূজায় এসব বিশেষ মাটি ব্যবহারের কথা চণ্ডী পুরাণ, বিষ্ণু পুরান, পুরোহিত পার্বণ, ব্রহ্মপুরাণে উল্লেখ আছে বলে জানান পুরোহিত ননীগোপাল।

বাংলাদেশ সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক চন্দ্রনাথ পোদ্দার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই শুনে এসেছি বিশেষ স্থানের (যৌনপল্লী) মাটি লাগে। এটা কমবেশি সবাই মেনে আসছে। ঢাকেশ্বরী মন্দিরেও এই নিয়ম মানা হয় বলেই আমি জানি।’

‘নিষিদ্ধ’ নারীদের দেয়া মাটিও মিশে আছে দুর্গা প্রতিমায়

তবে ঢাকেশ্বরী মন্দিরের প্রতিমা শিল্পী সুকুমার পালের দাবি, তিনি বৈষ্ণব রীতি মেনে চলেন। এই রীতিতে দুর্গা প্রতিমা তৈরিতে যৌনপল্লীর মাটি ব্যবহার বাধ্যতামূলক নয়।

ফরিদপুরের মধুখালীর পুরোহিত শংকর কুমার মুখোপাধ্যায়। তিনি বলছেন, দুর্গা প্রতিমায় যৌনকর্মীদের বসতিসহ বেশ কয়েকটি জায়গার মাটি ব্যবহারের নিয়ম রয়েছে। তবে সেই মাটি পেতে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয় বলে অনেকে অন্য পদ্ধতি অনুসরণ করেন।

শংকর কুমার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এখন সব জায়গার মাটি পাওয়া খুবই কষ্টসাধ্য। তাই আমরা শাস্ত্রমতে মন্ত্রের সাহায্যে সাধারণ এলাকার মাটিকে বিশেষ স্থানের মাটি কল্পনা করে ব্যবহার করে থাকি।’

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দুর্গা প্রতিমা গড়তেও যৌনপল্লীসহ বিভিন্ন জায়গার মাটি ব্যবহারের প্রচলনের তথ্য পাওয়া গেছে।

এর কারণ হিসেবে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম নিউজ এইটিন বাংলার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘সমাজ যাঁদের দূরে ঠেলে দিয়েছে, অবজ্ঞা আর বঞ্চনার পাহাড় জমে উঠেছে যাঁদের দেওয়াল বেয়ে, ঘৃণা আর নোংরা দৃষ্টি ছাড়া যাঁদের ভাগ্যে আর কিছুই জোটেনি, তাঁদের ঘরের মাটিই আবার দেবীমূর্তির অপরিহার্য অঙ্গ৷

‘কিন্তু কেন? বলা হয়, পুরুষ মানুষ পতিতালয়ে গিয়ে যখন বারাঙ্গনার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হয়, তখন তিনি জীবনে সঞ্চিত সমস্ত পুণ্য সেখানেই ফেলে আসেন৷ আর সংগ্রহ করেন ঘড়া ভর্তি পাপ৷’

‘নিষিদ্ধ’ নারীদের দেয়া মাটিও মিশে আছে দুর্গা প্রতিমায়

প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘চিরাচরিতভাবে মানুষ বিশ্বাস করেন যে, মানুষের মধ্যে যে কামনা, বাসনা, লালসার বাস... পতিতারা তা নিজেদের মধ্যে নিয়ে নেন। তাঁরা নিজেদের অশুদ্ধ, অপবিত্র করে সমাজকে শুদ্ধ রাখতে চান। পবিত্র রাখতে চান। ফলে হাজার হাজার পুরুষের পুণ্যে বেশ্যাদ্বারের মাটি হয়ে ওঠে পবিত্র৷

‘সে কারণেই এই মাটি দিয়ে গড়তে হয় দেবী মূর্তি৷ এই আচার থেকে বোঝানো হয় যে, নারী মায়ের জাতি। নারীর ঔরসেই পুরুষের জন্ম। নারীকে পতিতা বানায় পুরুষরাই। তাই ঐ পুরুষরাই অপবিত্র। মায়ের প্রতিমা তৈরীতে পতিতালয়ের মাটি দিতে হয় অর্থাৎ যাঁরা এই পরিস্থিতির শিকার তাঁদের সম্মান করতে হবে। নারী কখনও অপবিত্র হতে পারে না, এই ধারণাটিই লুকিয়ে থাকে এই রীতির আড়ালে৷’

দুর্গাপূজা উপলক্ষে #thesecondquestion হ্যাশট্যাগে পশ্চিমবাংলার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। এতে দেখা যায়, যৌনকর্মীদের কাছ থেকে প্রতিবছর মাটি সংগ্রহ করে দুর্গা প্রতিমা গড়েন শিল্পী, তবে পূজার উৎসবে সেই যৌনকর্মীদের কোনো অংশগ্রহণ থাকে না।

ভিডিওতে এবারের পূজায় এক যৌনকর্মীর পরিবারকে অংশ নিতে প্রতিমা শিল্পীর আমন্ত্রণ জানানোর দৃশ্য রয়েছে। পূজার সার্বজনীনতাকে সবার মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে এই ভিডিওতে।

টাইমস অফ ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কলকাতার যৌনকর্মীরা প্রতিবছর দেবী দুর্গার প্রতিমা তৈরিতে মাটি দান করলেও পূজার উৎসবে এখনও তারা ‘নিষিদ্ধ’।

কলকাতার এক যৌনকর্মীর মেয়ে টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে বলেন, ‘আমি পঞ্চম শ্রেণিকে পড়ার সময় পর্যন্ত আমার মা যৌনপেশায় জড়িত ছিলেন। আমি দেখতাম যৌনকর্মীরা প্রতিমা গড়ার মাটি দান করার সময়ে পুরোহিতের কাছ থেকে কিছু মিষ্টি অথবা টাকা পেতেন। তবে তাদের কখনোই পূজার উৎসবে নিমন্ত্রণ করা হতো না।’

সার্বজনীন দুর্গোৎসব থেকে দূরে সরিয়ে রাখার প্রতিবাদে কলকাতার যৌনকর্মীদের মাঝে প্রতিমার মাটির জোগান দেয়ার অনাগ্রহ বাড়ছে বলেও প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে।

পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষাবিদ, পুরাণ বিশেষজ্ঞ ও ইতিহাসবিদ নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ি দাবি করছেন, দুর্গা প্রতিমায় যৌনকর্মীদের দান করা মাটি ব্যবহারের বিষয়ে ধর্মগ্রন্থে কিছু বলা নেই। বিশেষ প্রেক্ষাপটে এই চল অনেক পরে তৈরি করা হয়েছে।

‘নিষিদ্ধ’ নারীদের দেয়া মাটিও মিশে আছে দুর্গা প্রতিমায়

নৃসিংপ্রসাদ বলছেন, ‘জমিদারবাড়ির লোকেরা যখন পুজো শুরু করেন, তখন তাঁরাই তৈরি করেছেন। পুরানে এ রকম কোথাও নেই যে, যৌনপল্লির মাটি দিয়েই দুর্গাপুজো হবে।’

নৃসিংহপ্রসাদের কথায়, 'দুর্গাপুজো যেহেতু মহোৎসব, তাই ওই সময় সমাজে জাতিভেদ, অন্তজ শ্রেণি ইত্যাদি মনে রাখা হয় না। এটা হল সবচেয়ে বড় যুক্তি। যেমন, সমাজে নানা অস্পৃশ্যতা রয়েছে, ব্রাহ্মণ নিম্নজাতিকে ছোঁবে না, আবার ডোম যে মাদুর তৈরি করত, তার উপর পেতেই লোকে বসেছে। সে রকমই যৌনপল্লি থেকে মাটি এই কারণেই নিয়ে এসো, যাতে আমরা যৌনকর্মীদের ঘৃণা না করি। তাঁরাও তো সমাজের একপ্রকার উপকার করছেন।

‘চণ্ডীর মধ্যে একটা শ্লোক আছে, স্ত্রেয়ঃ সমৎসা সকলা জগৎসু। অর্থাৎ সব স্ত্রী-ই আমি, অন্য কেউ নেই। দেবী বলছেন, এই যে ব্রাহ্মবাদী ভক্তি, ব্যপ্তি, সর্বত্র তিনি-ই আছেন। তাই যৌনপল্লীর মাটি মিশিয়ে নেওয়া হয় দুর্গাপ্রতিমা তৈরির মাটির সঙ্গে।’

আরও পড়ুন:
অসুরের বদলে গান্ধী বধ, প্রতিমা ঘিরে বিতর্ক
কুমারী পূজার উৎসবমুখর আয়োজন
পূজামণ্ডপের পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিতে মেয়রের নির্দেশ
দিনাজপুরে এবার কর্কশিটের দুর্গা
গুগল বদলে দিচ্ছে দুর্গার রূপ

মন্তব্য

জীবনযাপন
Festive arrangement of Kumari Puja

কুমারী পূজার উৎসবমুখর আয়োজন

কুমারী পূজার উৎসবমুখর আয়োজন রাজধানীর একটি মন্দিরে চলছে কুমারী পূজা। ছবি: নিউজবাংলা
গতবার করোনা পরিস্থিতির কারণে জনসমাগম এড়াতে রাজধানী ঢাকার কোনো মন্দিরেই এ পূজার আয়োজন হয়নি। তবে এবার ফিরেছে আয়োজনের সেই ঐতিহ্য।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজার মহাঅষ্টমী আজ। আর এই দিনের অন্যতম আকর্ষণ কুমারী পূজা। গতবার করোনা পরিস্থিতির কারণে জনসমাগম এড়াতে রাজধানী ঢাকার কোনো মন্দিরেই এ পূজার আয়োজন হয়নি। তবে এবার ফিরেছে আয়োজনের সেই ঐতিহ্য।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকায় কুমারী পূজার সব আয়োজনের প্রস্তুতি আগেই নেয়া হয় বলে রোববার সন্ধ্যায় নিউজবাংলাকে জানান রামকৃষ্ণ মঠ ও রামকৃষ্ণ মিশন, ঢাকার অধ্যক্ষ পূর্ণাত্মা নন্দ মহারাজ।

সোমবার রামকৃষ্ণ মিশনে বেলা ১১টায় কুমারী পূজা শুরু হয়। সাধারণত রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশন থেকে প্রতিবছর কুমারী পূজার বড় আয়োজন করা হয়। এবারও আয়োজন তেমনই। কুমারী বালিকার মধ্যে বিশুদ্ধ নারীর রূপ কল্পনা করে তাকে দেবী জ্ঞানে পূজা করবেন ভক্তরা। এর মাধ্যমে নারীদের প্রতি সম্মান জানানো হয় বলে জানান ভক্তরা।

কুমারী পূজার উৎসবমুখর আয়োজন

মহাঅষ্টমীতে সকাল ৯টা ৫৭ মিনিটের মধ্যে দেবীর মহাঅষ্টমী কল্পারম্ভ ও বিহিত পূজা শেষ হয়। এরপর বিকেল ৪টা ৫ মিনিটে শুরু হবে সন্ধিপূজা, শেষ হবে ৪টা ৫৩ মিনিটে। রোববার মহাসপ্তমীর সকালে মণ্ডপে মণ্ডপে ত্রিনয়নী দেবী দুর্গার চক্ষুদান করা হয়।

পুরাণ মতে, মহাস্নান শেষে অষ্টমী পূজা করা হয়। মহাঅষ্টমীর সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ আকর্ষণ হলো ‘কুমারী পূজা। যেখানে একজন কুমারীকে দেবী দুর্গারূপে আরাধনা করা হয়। যেসব বালিকারা বয়ঃসন্ধিতে পৌঁছায়নি এদিন সকালে তাদের দেবীরূপে পূজা করা হয়। ১৬টি উপকরণ দিয়ে পূজার সূত্রপাত হয়।
শনিবার মহাঅষ্টমীর দেবীর আগমনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় দুর্গাপূজা। বুধবার বিজয়া দশমীর মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের পূজা। দুর্গাপূজার এ উৎসবে প্রতি বছরই থাকে নানা আয়োজন।

পুরাণ অনুযায়ী, এবার দেবী মর্ত্যে এসেছেন গজে চেপে। দুর্গা গজে চড়ে এলে সুখ ও সমৃদ্ধি বয়ে আনেন। আর ৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে দেবী মর্ত্য ছাড়বেন নৌকায় চড়ে। নৌকায় গমনেও ধরণী হবে শস্যপূর্ণ, তবে থাকবে অতিবৃষ্টি বা বন্যা।

পঞ্জিকা অনুযায়ী, শনিবার মহাঅষ্টমীতে সকালে দুর্গা দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ এবং ষষ্ঠীবিহিত পূজা, সন্ধ্যায় দেবীর বোধন। রোববার মহাসপ্তমীবিহিত পূজা, সোমবার মহাঅষ্টমীবিহিত পূজা, মঙ্গলবার মহানবমীবিহিত পূজা এবং বুধবার দশমীবিহিত পূজা সমাপন এবং প্রতিমা বিসর্জন।

রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে এবার ৩২ হাজার ১৬৮টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। গত বছরের তুলনায় এবার মণ্ডপ বেড়েছে ৫০টি। এর মধ্যে ঢাকা মহানগরে ২৪১টি মণ্ডপে পূজা উদযাপন করা হবে।

আরও পড়ুন:
পূজামণ্ডপের পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিতে মেয়রের নির্দেশ
দিনাজপুরে এবার কর্কশিটের দুর্গা
গুগল বদলে দিচ্ছে দুর্গার রূপ

মন্তব্য

জীবনযাপন
Today is Mahasaptami

আজ মহাসপ্তমী

আজ মহাসপ্তমী রাজধানীর একটি মন্দিরে চলছে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা। ছবি: নিউজবাংলা
রোববার পুরান ঢাকার শাখারীবাজারের সবগুলো পূজামণ্ডপে সকাল থেকেই শুরু হয় পূজার কার্যক্রম। এদিন থেকেই মূলত মন্দির গুলোতে ভিড় করতে থাকেন ভক্তরা। শাস্ত্র মতে, মহাসপ্তমীতে মহাপূজা হয়। এই তিথিতে খুব সকালে একটি কলা গাছ গঙ্গার জলে স্নান করিয়ে, এটিকে নববধূর মতো নতুন শাড়ি পরানো হয়।

আজ দুর্গাপূজার মহাসপ্তমী। নবরাত্রির সপ্তম তিথি। ষষ্ঠীতে দেবীর মুখ উন্মোচন ও বোধন প্রক্রিয়া অতিক্রান্ত করে পজার দিনক্ষণ পড়ল মহাসপ্তমীতে। এই দিনে দেবী দুর্গার সবচেয়ে ভয়ানক রূপ, কালরাত্রি রূপের পুজো করা হয়। অশুভ শক্তির বিনাশ ঘটিয়ে শুভ শক্তির প্রতিষ্ঠা করেন দেবী কালরাত্রি।

রোববার পুরান ঢাকার শাখারীবাজারের সবগুলো পূজামণ্ডপে সকাল থেকেই শুরু হয় পূজার কার্যক্রম। এদিন থেকেই মূলত মন্দির গুলোতে ভিড় করতে থাকেন ভক্তরা। শাস্ত্র মতে, মহাসপ্তমীতে মহাপূজা হয়। এই তিথিতে খুব সকালে একটি কলা গাছ গঙ্গার জলে স্নান করিয়ে, এটিকে নববধূর মতো নতুন শাড়ি পরানো হয়।

এর আগে শনিবার উলুধ্বনি, শঙ্খ, ঘণ্টা আর ঢাকঢোলের বাজনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় ষষ্ঠীপূজা। এর মধ্যদিয়ে শুরু হয় বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা। রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরী মন্দিরে দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ষষ্ঠীর দিনের পূজা।

সিদ্ধেশ্বরী ছাড়াও ঢাকা ও সারা দেশের সব মন্দিরের প্রায় কাছাকাছি সময়ে শুরু হয় সপ্তমীর আয়োজন। এ সময় ঢাকঢোলের বাজনা, কাঁসা, শঙ্খের আওয়াজ এবং ভক্তদের উলুধ্বনির মাধ্যমে দুর্গার আরাধনা করা হয়।

প্রতিবারের মতো এবারও প্রস্তুত করা হয়েছে মহামায়া দেবী দুর্গাসহ লক্ষ্মী, সরস্বতী, কার্তিক, গণেশসহ বিভিন্ন দেব-দেবীর প্রতিমা। সন্ধ্যায় ভক্ত ও দর্শনার্থীদের জন্য বাহারি সব রং দিয়ে সাজানো হয়েছে এসব প্রতিমা। রং-বেরঙের আলোকসজ্জা আর নানা রঙের ডিজাইনের কাঠামো দিয়ে সাজানো হয়েছে পুরো পূজাঙ্গন।

সিদ্ধেশ্বরী মন্দির, গুলশান-বনানী সর্বজনীন পূজা ও পুরান ঢাকার সব মন্দিরগুলোতে সন্ধ্যারতি, ধূনচী নাচসহ পূজার পাঁচ দিনই থাকছে নানা আনুষ্ঠানিকতা। এ ছাড়া রামকৃষ্ণ মিশন, মিরপুর কেন্দ্রীয় মন্দির, শাঁখারীবাজার, রমনা কালীমন্দির।

পুরাণ অনুযায়ী, এবার দেবী মর্ত্যে এসেছেন গজে চেপে। দুর্গা গজে চড়ে এলে সুখ ও সমৃদ্ধি বয়ে আনেন। আর ৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে দেবী মর্ত্য ছাড়বেন নৌকায় চড়ে। নৌকায় গমনেও ধরনী হবে শস্যপূর্ণ তবে থাকবে অতিবৃষ্টি বা বন্যা।

পঞ্জিকা অনুযায়ী, শনিবার মহাষষ্ঠীতে সকালে দুর্গা দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ এবং ষষ্ঠীবিহিত পূজা, সন্ধ্যায় দেবীর বোধন। রোববার মহাসপ্তমীবিহিত পূজা, সোমবার মহাষ্টমীবিহিত পূজা, মঙ্গলবার মহানবমীবিহিত পূজা এবং বুধবার দশমীবিহিত পূজা সমাপন এবং প্রতিমা বিসর্জন।

আরও পড়ুন:
ঢাকঢোলের তালে শুরু দুর্গার বন্দনা
বসল ‘৫ শতাব্দীর’ ঢাকের হাট
শেষ মুহূর্তে তুলির আঁচড় দিতে ব্যস্ত প্রতিমা শিল্পীরা
আলোয় আলোয় ঝলমলিয়ে বরিশাল নগর

মন্তব্য

জীবনযাপন
Durga bandana begins with the beat of dhak dhol

ঢাকঢোলের তালে শুরু দুর্গার বন্দনা

ঢাকঢোলের তালে শুরু দুর্গার বন্দনা শুরু হলো পূজার আনুষ্ঠানিকতা। ছবি: নিউজবাংলা
শনিবার সকাল ৮টার দিকে রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরী মন্দিরে দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ষষ্ঠীর দিনের পূজা। সিদ্ধেশ্বরী ছাড়াও ঢাকা ও সারা দেশের সব মন্দিরের প্রায় কাছাকাছি সময়ে শুরু হয়েছে ষষ্ঠী পূজার আয়োজন।

উলুধ্বনি, শঙ্খ, ঘণ্টা আর ঢাকঢোলের বাজনার মধ্য দিয়ে শুরু হলো ষষ্ঠীপূজা। শুরু হলো বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা।

শনিবার সকাল ৮টার দিকে রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরী মন্দিরে দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ষষ্ঠীর দিনের পূজা। সিদ্ধেশ্বরী ছাড়াও ঢাকা ও সারা দেশের সব মন্দিরের প্রায় কাছাকাছি সময়ে শুরু হয়েছে ষষ্ঠীপূজার আয়োজন।

এ সময় ঢাকঢোলের বাজনা, কাঁসা, শঙ্খের আওয়াজ এবং ভক্তদের উলুধ্বনিতে দেবী দুর্গাকে পৃথিবীতে স্বাগত জানানো হয়। সন্ধ্যায় হবে দেবীর বোধন, আমন্ত্রণ ও অধিবাস। বোধন অর্থ জাগ্রত করা। মর্ত্যে দুর্গার আবাহনের জন্য বোধনের রীতি প্রচলিত রয়েছে।

এ দিন কল্পারম্ভ দিয়ে শুরু হয় দুর্গার বোধন। ষষ্ঠীর সকালেই এই প্রক্রিয়া শুরু হয়ে যায়। তার পর দেবীর সামনে প্রার্থনা করা হয় যে, ষষ্ঠী থেকে দশমী পর্যন্ত গোটা পূজা পর্বে যেন কোনো বিঘ্ন না ঘটে।

শ্বশুরবাড়ি কৈলাস থেকে কন্যারূপে দেবী দুর্গা বাপের বাড়ি বেড়াতে মর্ত্যলোকে এসেছেন। আর এর মাধ্যমেই শুরু হলো দুর্গাপূজার মূল আয়োজন।

ঢাকঢোলের তালে শুরু দুর্গার বন্দনা

মহানগরের সব মন্দিরের মণ্ডপ শনিবার সন্ধ্যায় উন্মুক্ত করা হবে বলে জানান আয়োজক কমিটি।

ষষ্ঠীপূজা উপলক্ষে সিদ্ধেশ্বরী মন্দিরে সকাল থেকেই মানুষের ঢল নামে। এ সময় উৎসব-আনন্দে মেতে ওঠে শিশু, কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণীসহ সব বয়সী মানুষ। মন্দিরের প্রবেশ পথে নারী ও পুরুষের জন্য রয়েছে আলাদা লাইন।

ষষ্ঠীর সকালে সিদ্ধেশ্বরী মন্দিরে পূজা দিতে আসা মৌসুমি রায় বলেন, ‘হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজা। ষষ্ঠীপূজার সকালে মন্দিরে না এলে পূজার আনন্দ অনুভব করা যায় না।’

একই কথা বললেন রঘুনাথ পাল, ‘দুর্গাপূজায় সবচেয়ে বেশি আনন্দ হয় ষষ্ঠীপূজায়। কেননা এই দিনেই দেবী দুর্গা পৃথিবীতে আসেন। তাই তো পূজার প্রথম দিনেই মন্দির আর দেবী দর্শনে চলে আসি।

কেমন হচ্ছে মহানগরের পূজা

পূজা উপলক্ষে নতুন রূপে সেজে উঠেছে ঢাকেশ্বরী মন্দিরসহ রাজধানীর অন্যসব মন্দির। ঢাকা মহানগরের মধ্যে ভক্ত ও দর্শনার্থীদের প্রধান আকর্ষণ থাকে এই মন্দির। সেই সঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের মন্দিরেও দুর্গাপূজায় থাকছে বিশেষ আয়োজন। ঐতিহ্যবাহী বনানী মাঠে আয়োজিত দুর্গা মণ্ডপে সাজানো হয়েছে আরও সুন্দর রূপে।

প্রতিবারের মতো এবারও প্রস্তুত করা হয়েছে মহামায়া দেবী দুর্গাসহ লক্ষ্মী, সরস্বতী, কার্তিক, গণেশসহ বিভিন্ন দেব-দেবীর প্রতিমা। সন্ধ্যায় ভক্ত ও দর্শনার্থীদের জন্য বাহারি সব রং দিয়ে সাজানো হয়েছে এসব প্রতিমা। রং- বেরঙের আলোকসজ্জা আর নানা রঙের ডিজাইনের কাঠামো দিয়ে সাজানো হয়েছে পুরো পূজাঙ্গন।

সিদ্ধেশ্বরী মন্দির, গুলশান-বনানী সর্বজনীন পূজা ও পুরান ঢাকার সব মন্দিরগুলোতে সন্ধ্যারতি, ধূনচী নাচসহ পূজার পাঁচ দিনই থাকছে নানা আনুষ্ঠানিকতা। এ ছাড়া রামকৃষ্ণ মিশন, মিরপুর কেন্দ্রীয় মন্দির, শাঁখারীবাজার, রমনা কালীমন্দির।

পুরান অনুযায়ী, এবার দেবী মর্ত্যে এসেছেন গজে চেপে। পুরাণ অনুযায়ী, দুর্গা গজে চড়ে এলে সুখ ও সমৃদ্ধি বয়ে আনেন। আর ৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে দেবী মর্ত্য ছাড়বেন নৌকায় চড়ে। নৌকায় গমনেও ধরনী হবে শস্যপূর্ণ তবে থাকবে অতিবৃষ্টি বা বন্যা।

পঞ্জিকা অনুযায়ী, শনিবার মহাষষ্ঠীতে সকালে দুর্গা দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ এবং ষষ্ঠীবিহিত পূজা, সন্ধ্যায় দেবীর বোধন। রোববার মহাসপ্তমীবিহিত পূজা, সোমবার মহাষ্টমীবিহিত পূজা, মঙ্গলবার মহানবমীবিহিত পূজা এবং বুধবার দশমীবিহিত পূজা সমাপন এবং প্রতিমা বিসর্জন।

আরও পড়ুন:
বসল ‘৫ শতাব্দীর’ ঢাকের হাট
শেষ মুহূর্তে তুলির আঁচড় দিতে ব্যস্ত প্রতিমা শিল্পীরা
আলোয় আলোয় ঝলমলিয়ে বরিশাল নগর

মন্তব্য

জীবনযাপন
Both of Ramnaths rescue cycle journey

রামনাথের ‘দুইন্যা’ উদ্ধারে সাইকেলযাত্রা

রামনাথের ‘দুইন্যা’ উদ্ধারে সাইকেলযাত্রা
কথা সাহিত্যিক ও নাট্যকার রুমা মোদক বলেন, “শেষবার বিশ্ব ভ্রমণ শেষে রামনাথ বানিয়াচং এসে বলেছিল- যতই ঘুরি না কেন- ‘বাইন্নাচুং আমার দুইন্যা’। কিন্তু আজ তার দুইন্যাই বেদখল। রামনাথের দুইন্যাকে ফিরিয়ে দিতেই আমাদের আজকের শোভাযাত্রা।”

বাইসাইকেলে কয়েকবার বিশ্বভ্রমণকারী ও ভ্রমণ কাহিনির লেখক রামনাথ বিশ্বাসের বাড়ি পুনরুদ্ধার ও সংরক্ষণের দাবিতে পর্যটন দিবসে সাইকেলযাত্রা করেছেন সাইক্লিস্ট ও সাংস্কৃতিক কর্মীরা।

মঙ্গলবার সকালে ঢাকা, সিলেট, চট্টগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসেছেন কয়েকশ সাইক্লিস্ট।

তারা সাইকেল শোভাযাত্রা নিয়ে হবিগঞ্জের বানিয়াচং বিদ্যাভূষণপাড়ায় রামনাথের বাড়ি পর্যন্ত গিয়েছেন। সেখানে রামনাথের বসতভিটা পরিদর্শন শেষে বানিয়াচং শহীদ মিনারে সমাবেশ করেন। তারা ওই বসতভিটায় বিশেষায়িত পাঠাগার ও সাইকেল মিউজিয়ামের দাবি জানান।

ঢাকার মিরপুর থেকে শোভাযাত্রায় অংশ নিয়েছেন মো. আজিজুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘বাইসাইকেল দিয়েও যে বিশ্ব ভ্রমণ করা যায় সেটি দেখিয়েছিলেন রামনাথ বিশ্বাস। তিনি আমাদের অনুপ্রেরণার নাম। অথচ তার বসতভিটা আজ বেদখল। এই বসতভিটা উদ্ধার ও সংরক্ষণের দাবিতে আজকে ঢাকা থেকে আমি এসেছি।’

সাইক্লিস্ট আল্লামা দিদার বলেন, ‘রামনাথ একজন বিখ্যাত ভূপর্যটক। তিনি শুধু বিশ্ব ভ্রমণ করেননি, ৩০টির বেশি বইও লিখেছেন। যখন শুনেছি বিখ্যাত এই ব্যক্তির পৈত্রিক ভিটা উদ্ধারের দাবিতে সাইকেল শোভাযাত্রা হচ্ছে, তখনই আমি ঢাকা থেকে ছুটে আসছি।’

কথা সাহিত্যিক ও নাট্যকার রুমা মোদক বলেন, “শেষবার বিশ্ব ভ্রমণ শেষে রামনাথ বানিয়াচং এসে বলেছিল- যতই ঘুরি না কেন- ‘বাইন্নাচুং আমার দুইন্যা’। কিন্তু আজ তার দুইন্যাই বেদখল। রামনাথের দুইন্যাকে ফিরিয়ে দিতেই আমাদের আজকের শোভাযাত্রা।”

ভূপর্যটক রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা পুনরুদ্ধার ও সংরক্ষণ কমিটির আহবায়ক ও বাংলাদেশ ট্রাভেল রাইটার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল বলেন, ‘আমরা চাই রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা পুনরুদ্ধার করে এখানে একটি বিশেষায়িত পাঠাগার ও সাইকেল মিউজিয়াম তৈরি করা হোক।

‘এছাড়া তার যে বইগুলো আছে সেগুলো আবার মুদ্রণ করে আগামী প্রজন্মকে জানার সুযোগ করে দেয়া হোক।’

১৮৯৪ সালের ১৩ জানুয়ারি হবিগঞ্জের বানিয়াচং গ্রামের বিদ্যাভুষণপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন রামনাথ। ১৯৪৭ সালে দেশভাগের পর স্থায়ীভাবে কলকাতা চলে যান। ১৯৫৫ সালে ১ নভেম্বর সেখানেই তিনি মারা যান। দীর্ঘদিন তার বানিয়াচংয়ের বাড়িটি পরিত্যক্ত ছিল। আশির দশকে ৪ একর ৪৮ শতাংশ বাড়িটি দখলে নেন আব্দুল ওয়াহেদ মিয়া নামে এক প্রভাবশালী। এরপর থেকে বাড়িটি তার দখলেই রয়েছে।

বাড়িটির দখলদার আব্দুল ওয়াহেদ স্থানীয় ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। তার বড় ভাই আবু ছালেক আলবদর বাহিনীর সদস্য হওয়ায় গত ১৫ সেপ্টেম্বর উপজেলা আওয়ামী লীগ তাকে সভাপতি পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছে।

তবে বাড়ি দখলের বিষয়ে আব্দুল ওয়াহেদ মিয়া বলেন, ‘এই বাড়ি রামনাথ বিশ্বাসের বা তিনি এই বাড়িতে থাকতেন বলে আমাদের জানা নেই। আমরা মোহিনী বিশ্বাস নামে এক ব্যক্তির কাছ থেকে বাড়িটি কিনেছি এবং যাবতীয় কাগজপত্রও আছে।’

বানিয়াচং উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ইশরাত জাহান উর্মি বলেন, ‘উপজেলা প্রশাসনের দাবি, ইতোমধ্যে তারা বাড়িটির কাগজপত্র পর্যালোচনা করছেন। কাগজপত্র পর্যালোচনা শেষেই পরবর্তী কার্যক্রম শুরু হবে। যদি এটি রামনাথের বাড়ি হয়, তাহলে সেটি পুনরুদ্ধার করা হবে।’

আরও পড়ুন:
রামনাথের বাড়ি দখলে নেয়া আ.লীগ নেতা ওয়াহেদ হারালেন পদ

মন্তব্য

p
উপরে