× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

জীবনযাপন
Various doors of tourism are opening in the south
hear-news
player
print-icon

পর্যটনের নানান দুয়ার খুলছে দক্ষিণে

পর্যটনের-নানান-দুয়ার-খুলছে-দক্ষিণে
পটুয়াখালীর সোনারচর। ছবি: সংগৃহীত
বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন ও বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড সংশ্লিষ্ট বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিয়ে কাজ শুরু করেছে। দেশে পর্যটনের সামগ্রিক মানোন্নয়নে ২০২০ সালে শুরু করা ‘মাস্টার প্ল্যান’ আগামী ডিসেম্বরে শেষ হবে। এতে প্রাধান্য পাচ্ছে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের উন্নয়ন।

আছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল ‍সুন্দরবন, সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্ত দেখার মতো সুবিস্তৃত সমুদ্রসৈকত কুয়াকাটা, বিশ্ব ঐতিহ্যে ঠাঁই করে নেয়া স্থাপত্য ষাট গম্বুজ মসজিদসহ অসংখ্য পর্যটনকেন্দ্র। এর পরও এতদিন দেশের দক্ষিণাঞ্চলের দুই বিভাগ খুলনা ও বরিশালে ছিল পর্যটকখরা।

তবে পদ্মা সেতু সেই অচলাবস্থার অবসান ঘটাতে চলেছে। ঢাকা থেকে দক্ষিণের কুয়াকাটা পর্যন্ত এখন সড়কপথে এক সুতায় গাঁথা। সুদীর্ঘ যাত্রাপথ এখন অতীত।

পদ্মা সেতু চালুর কারণে পর্যটকরা এখন দক্ষিণাঞ্চলমুখী হবেন বলে আশা সংশ্লিষ্টদের। তবে তারা বলছেন, শুধু সড়কপথের উন্নয়ন নয়, দেশি-বিদেশি পর্যটক আকর্ষণে আবাসন, স্থানীয় যোগাযোগ ও মানসম্মত খাবারের ব্যবস্থাও করতে হবে। থাকতে হবে পর্যটকবান্ধব নিরাপদ পরিবেশ।

এই লক্ষ্য বাস্তবায়নে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন ও বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড সংশ্লিষ্ট বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিয়ে কাজ শুরু করেছে। দেশে পর্যটনের সামগ্রিক মানোন্নয়নে ২০২০ সালে শুরু করা ‘মাস্টার প্ল্যান’ আগামী ডিসেম্বরে শেষ হবে। এতে প্রাধান্য পাচ্ছে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের উন্নয়ন।

বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) আবু তাহের মুহাম্মদ জাবের নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা সারা দেশে ১ হাজার ১০০ ট্যুরিস্ট অ্যাট্রাকশন পয়েন্ট আইডেন্টিফাই করেছি। এর মধ্যে কিছু গুরুত্বপূর্ণ অ্যাট্রাকশন পয়েন্টের আর্কিটেকচারাল ডিজাইন আমরা করব। আমরা ইনভেস্টমেন্ট প্ল্যানও করব।

‘একই সঙ্গে আমরা একটি অ্যাকশন প্ল্যান করব, যাতে নির্ধারণ করা হবে কোনটা তাড়াতাড়ি হবে, কোনটা মধ্যমেয়াদি হবে আর কোনটা দীর্ঘমেয়াদি হবে। সেটা নির্ধারণ করে আমরা কাজ শুরু করব। এটা কমপ্লিট হওয়ার পর আমরা দেশি এবং বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে পারব।’

তিনি বলেন, ‘দক্ষিণাঞ্চলকে আমরা প্রায়োরিটি দেব, কারণ ওখানে যাওয়াটা আগে কষ্টসাধ্য ছিল। এখন সেটা সহজ হয়েছে। কুয়াকাটা, পিরোজপুরসহ বরিশালের বিভিন্ন অঞ্চলকে আমরা অগ্রাধিকার দেব। ওখানে কিছু নতুন ট্যুরিস্ট অ্যাট্রাকশন তৈরির জন্য কাজ করছি। এর মধ্যে আছে সোনাদ্বীপ, আরেকটা সোনারচর। ১০-১৫ দিন আগে আমরা দেখে এসেছি। কীভাবে এগুলো ডেভেলপ করা যায়, সেটা নিয়ে কাজ করছি।’

শুধু পদ্মা সেতুর কারণে দক্ষিণাঞ্চলে পর্যটক বাড়বে বলে মনে করছেন বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী।

তবে পর্যটন ব্যবসায়ী ও প্যাসিফিক এশিয়া ট্রাভেল অ্যাসোসিয়েশন (পাটা) বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের মহাসচিব মো. তৌফিক রহমান মনে করছেন, দক্ষিণাঞ্চলে পর্যটনকেন্দ্রিক সুশৃঙ্খল ব্যবস্থাপনাই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এতদিন মূল সমস্যাটা ছিল যাতায়াত। আরেকটা বড় সমস্যা থাকার ভালো ব্যবস্থাপনা নেই। এটা নিয়ে ভাবতে হবে। ভালো খাবারের জায়গাও নেই। ট্যুরিস্ট অ্যাট্রাকশনের জন্য এসব ক্ষেত্রেই সুশৃঙ্খল ব্যবস্থাপনা থাকতে হবে।’

পর্যটকদের আগ্রহ বাড়াতে বিনিয়োগের জন্য ব্যবসায়ীরা প্রস্তুত আছেন বলে জানান পাটা বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের মহাসচিব মো. তৌফিক রহমান।

তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি খুলনা গিয়েছিলাম। সেখানে ব্যবসায়ীসহ অন্যান্য অংশীজনের সঙ্গে কথা হয়েছে। এখন মোংলাকেন্দ্রিক ট্যুরিজম বাড়বে বলে তারা ধারণা করছেন। ঢাকা থেকে সাড়ে ৪ থেকে ৫ ঘণ্টায় মোংলা চলে যাওয়া যাবে। তবে মূল অ্যাট্রাকশন থাকবে সুন্দরবন।’

তিনি বলেন, ‘পর্যটকদের জন্য নতুন করে কোনো প্রস্তুতি নেই। মোংলা এলাকায় বর্তমানে যে ধরনের ফ্যাসিলিটি আছে, সেটা নিয়েই ব্যবসায়ীরা অপেক্ষা করছেন। পর্যটকের ফ্লো ভালো হলে অনেকেই বিনিয়োগ করবেন। ছোট-বড় ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগের জন্য প্রস্তুত আছেন।’

আরও পড়ুন:
পদ্মা সেতুতে বাইক দুর্ঘটনার রহস্য উন্মোচন
পদ্মা সেতুর নাট রেঞ্জ দিয়ে খুলে মাহদির ভিডিও: পুলিশ
পদ্মা সেতু নিয়ে ইউনূস সেন্টারের ব্যাখ্যা সত্যের অপলাপ: তথ্যমন্ত্রী
পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ: ক্ষতিপূরণ চান মোমেন
পদ্মা সেতুর নাট খোলা আরেক যুবক গ্রেপ্তার

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
Bimans Guangzhou flight starts on August 18

বিমানের গুয়াংজু ফ্লাইট শুরু বৃহস্পতিবার

বিমানের গুয়াংজু ফ্লাইট শুরু বৃহস্পতিবার বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
ওইদিন বেলা ১১টায় ঢাকা থেকে উড্ডয়ন করে বিমানের একটি ফ্লাইট স্থানীয় সময় বিকাল ৪টা ৪৫ মিনিটে গুয়াংজুতে পৌঁছাবে। একই দিন গুয়াংজু থেকে সন্ধ্যা ৭টা ৪৫ মিনিটে যাত্রা করে ফিরতি ফ্লাইট ঢাকায় পৌঁছাবে রাত সাড়ে ৯টায়।

আগামী ১৮ আগস্ট থেকে চীনের গুয়াংজু রুটে বাণিজ্যিক যাত্রীবাহী ফ্লাইট শুরু করছে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। প্রতিষ্ঠানের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়েছে, ১৮ আগস্ট স্থানীয় সময় বেলা ১১টায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়ন করে ফ্লাইট বিজি ৩৬৬ স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা ৪৫ মিনিটে গুয়াংজু বাইয়ুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবে।

ফিরতি ফ্লাইট বিজি ৩৬৭ একই দিন গুয়াংজু থেকে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টা ৪৫ মিনিটে যাত্রা করে ঢাকায় পৌঁছাবে রাত সাড়ে ৯টায়।

এতে আরও বলা হয়, মঙ্গলবার ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিংয়ের সঙ্গে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. যাহিদ হোসেন সাক্ষাৎ করেন। এ সময় ঢাকা-গুয়াংজু রুটে বিমানের যাত্রীবাহী ফ্লাইট পরিচালনার বিষয়ে উভয়ের মধ্যে আলোচনা হয়। এ ছাড়া ঢাকা থেকে চীনের আরেক বাণিজ্যিক শহর কুনমিংয়ে ফ্লাইট চালুর বিষয়েও আলোচনা হয়েছে বলে জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

আরও পড়ুন:
হজ ফ্লাইট ৫ জুন থেকেই, প্রস্তুত বিমান
হজের নিয়মিত ফ্লাইট ৫ জুন থেকে
ড্রুক এয়ারের ঢাকা-পারো ফ্লাইট শুরু ১ জুলাই
টরন্টো ফ্লাইট জুন থেকে হতে পারে
আকাশ পথে ঢাকা ছাড়ছেন ৪০ হাজার মানুষ

মন্তব্য

জীবনযাপন
Desire to travel to 193 countries Asma Ajmeri

ইচ্ছা ১৯৩টি দেশ ভ্রমণের: আসমা আজমেরী

ইচ্ছা ১৯৩টি দেশ ভ্রমণের: আসমা আজমেরী বিভিন্ন দেশে ঘুরে বেড়ান বাংলাদেশি নারী কাজী আসমা আজমেরী। ছবি: সংগৃহীত
আসমা বলেন, “তখন আমার বন্ধুর মা বলেছিল, ‘তুমি তো মেয়ে। তুমি ভ্রমণ করতে পারবে না।’ তখন আমার কথা ছিল, ‘কেন? মেয়েদের টিকিটের দাম কি বেশি ছেলেদের থেকে যে, আমি পারব না?”

২০০৭ সাল। জন্মভূমির বাইরে প্রথম দেশ হিসেবে থাইল্যান্ডে যান কাজী আসমা আজমেরী। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে গিয়েছিলেন একাই। বিশ্বভ্রমণের ইচ্ছাটা তখনও চেপে বসেনি মাথায়।

দুই বছর বিরতি দিয়ে ২০০৯ সালে আবার দেশের বাইরে যান আজমেরী। সে বছর তার গন্তব্য ছিল হিমালয়কন্যা নেপাল। সেই থেকে বিশ্বভ্রমণের নেশা পেয়ে বসে তাকে। চলতি বছরের মে পর্যন্ত ১৩০টি দেশ ঘুরেছেন তিনি।

এক দেশ থেকে আরেক দেশে যাত্রার এ গল্প নিউজবাংলাকে শুনিয়েছেন ৩৪ বছর বয়সী এ পর্যটক। এক যুগ আগে ফিরে গিয়ে তিনি বলেন, “আমি যখন নেপাল যাই, তার কিছুদিন আগে বন্ধুর মা আমাকে টিটকারি করেছিল। আমার বন্ধু ২৬টি দেশ ভ্রমণ করেছিল। আমি এক্সাইটেড হয়ে বলেছিলাম, ‘আমি বিশ্ব ভ্রমণ করতে চাই।’”

ইচ্ছা ১৯৩টি দেশ ভ্রমণের: আসমা আজমেরী

সে সময়ের স্মৃতিচারণ করে আসমা আরও বলেন, “তখন আমার বন্ধুর মা বলেছিল, ‘তুমি তো মেয়ে। তুমি ভ্রমণ করতে পারবে না।’ তখন আমার কথা ছিল, ‘কেন? মেয়েদের টিকিটের দাম কি বেশি ছেলেদের থেকে যে, আমি পারব না?”

ভ্রমণপিপাসু আসমার বেড়ে ওঠা খুলনায়। স্থায়ী বসবাসও বিভাগীয় শহরটিতে।

চলতি বছরের মে মাসে ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জের দেশ সেন্ট লুসিয়া ভ্রমণ করেন আসমা। দুই মাস বিরতি নিয়ে চলতি মাসে আবার বিশ্বভ্রমণে বেরিয়ে পড়বেন তিনি। এবার শুরুটা করবেন আফ্রিকার দক্ষিণ-পূর্ব উপকূলের ভারত মহাসাগরীয় দ্বীপরাষ্ট্র মরিশাস দিয়ে।

এই যে একের পর এক দেশ ঘুরে বেড়াচ্ছেন, তাতে খরচ হয় অনেক টাকা। এর জোগান কীভাবে হয়, তা জানতে চাওয়া হয় আসমার কাছে।

জবাবে আবার স্মৃতি রোমন্থন করে এ পর্যটক জানান, প্রথম দেশ ভ্রমণের সময় মা তাকে সোনার গয়না বেচে টাকা দিয়েছিলেন। এখন চাকরির বেতনের টাকা জমিয়েই ছুটে চলেন এপাড়-ওপাড়।

ইচ্ছা ১৯৩টি দেশ ভ্রমণের: আসমা আজমেরী

প্রতি দুই বছরে ছয় মাস ভ্রমণ করেন আসমা। বাকি সময়টাতে সে ভ্রমণের টাকা জোগাতে করেন চাকরি।

তিনি বলেন, ‘আমি নিউজল্যান্ডে রেডক্রিসেন্টে চাকরি করতাম। এখন অস্ট্রেলিয়ান একটা কোম্পানিতে আছি। ওখানে এইচআর ও ফাইন্যান্সের দেখাশোনা করছি। অনলাইনে কাজ করছি মে মাস থেকে।

‘এটা একটা অস্ট্রেলিয়ান ইন্টারনাশন্যাল কোম্পানি। সোর্স অফ ইনকামটা হলো প্রত্যেক দুই বছরে দেড় বছর চাকরি করি আর ছয় মাসের জন্য আমি বিশ্বভ্রমণ শুরু করি। এইভাবেই আমি করে আসছি আজ পর্যন্ত।’

ইচ্ছা ১৯৩টি দেশ ভ্রমণের: আসমা আজমেরী

আগামী দুই বছরে বিশ্বের আরও ৬৩ দেশ ভ্রমণের ইচ্ছা আসমার। তিনি বলেন, ‘আমার ইচ্ছা আছে বিশ্বের ১৯৩টি দেশ ঘুরে দেখার। সেটা পূরণ করতে আরও ৬৩টি দেশ বাকি। আগামী দুই বছরে সেসব দেশে যাওয়ার ইচ্ছা।’

ভ্রমণের পাশাপাশি বাংলাদেশের পাসপোর্টকে বিশ্ব পরিসরে পরিচিত করাচ্ছেন বলেও জানান আসমা। এরই মধ্যে তিনি আখ্যা পেয়েছেন ‘গ্রিন পাসপোর্ট গার্ল’ হিসেবে।

ইচ্ছা ১৯৩টি দেশ ভ্রমণের: আসমা আজমেরী

‘বাংলাদেশি মানুষ যে বিশ্ব ভ্রমণ করতে পারে, আমরা যে বাংলাদেশি পাসপোর্ট পরিবর্তন না করেও কিছু করতে পারি, এটা আমি দেখাতে চেয়েছি’, বলেন আসমা।

আরও পড়ুন:
২০ বছর পর বাড়ি খুঁজে পেলেন আসমা

মন্তব্য

জীবনযাপন
After the launch of Padma Bridge the skies of Barisal are hibernating

পদ্মা সেতু চালুর পর শীতনিদ্রায় বরিশালের আকাশপথ

পদ্মা সেতু চালুর পর শীতনিদ্রায় বরিশালের আকাশপথ প্রতীকী ছবি
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এভাবে যাত্রী কমতে থাকলে উপযোগিতা হারাতে পারে ৩৪ বছরের পুরাতন বিমানবন্দরটি। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) ও দেশি এয়ারলাইনসগুলো বলছে, এ সংকট সাময়িক। তাদের আশা, শীত মৌসুমে কুয়াকাটা সমুদ্রসৈকতকে কেন্দ্র করে জমে উঠতে পারে ফ্লাইট চলাচল।  

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর থেকে যাত্রী কমছে বরিশালের আকাশপথে। এরই মধ্যে বেসরকারি এয়ারলাইনস নভো এয়ার এ রুটে ফ্লাইট স্থগিত করেছে। ফ্লাইট কমিয়েছে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এভাবে চলতে থাকলে উপযোগিতা হারাতে পারে ৩৪ বছরের পুরাতন বিমানবন্দরটি। অবশ্য বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) ও দেশি এয়ারলাইনসগুলো বলছে, এ সংকট সাময়িক। তাদের আশা, আগামী শীত মৌসুমে কুয়াকাটা সমুদ্রসৈকতকে কেন্দ্র করে জমে উঠবে ফ্লাইট চলাচল।

বেসরকারি এয়ারলাইনসগুলো বলছে, এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত গরম আর রোদের দাপট থাকায় এ সময়টিকে পর্যটনের জন্য অনুপযুক্ত মনে করা হয়। যেহেতু এ সময়ে পর্যটকদের আনাগোনা কম থাকে, তাই স্বাভাবিকভাবে এয়ারলাইনসগুলোতে যাত্রীর চাপ‌ও কমে আসে।

তার ওপর গত এক বছরে উড়োজাহাজের জ্বালানি জেট ফুয়েল বা এভিয়েশন ফুয়েলের দাম বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। এর প্রভাব পড়েছে ভাড়ায়। অতিরিক্ত খরচের কারণে আগে যারা সময় বাঁচাতে আকাশপথ বেছে নিতেন, তাদের অনেকে অন্য মাধ্যমগুলোতে ফিরে যাচ্ছেন। এতে আকাশপথে যাত্রীর সংখ্যায় প্রতি বছর যে প্রবৃদ্ধি হতো, তা হোঁচট খেয়েছে।

অন্যদিকে পদ্মা সেতু চালু হওয়ার কারণে সড়কপথে ভ্রমণ ও সেতু দেখার জন্য মানুষের বাড়তি আগ্রহ জন্মেছে। এই কারণে বরিশাল বিমানবন্দর ব্যবহার করা যাত্রী কমে গেছে।

আকাশ থেকে শস্যক্ষেতে কীটনাশক ছিটাতে ১৯৬৩ সালে বরিশালের বাবুগঞ্জের রহমতপুর ইউনিয়নে নির্মাণ করা হয় প্রায় ২ হাজার ফুটের রানওয়ে। সে সময় এটিকে প্ল্যান্ট প্রোটেকশন বন্দর হিসেবে ব্যবহার করা হতো।

১৯৮৫ সালে এই রানওয়েটিকে বিমানবন্দরে রূপ দেয়া হয়, তবে সে সময় এখানে বাণিজ্যিক উড়োজাহাজ চলাচল শুরু হয়নি। ১৯৯৫ সালের ১৭ জুলাই বেসরকারি এয়ারলাইনস অ্যারো বেঙ্গলের ঢাকা-বরিশাল রুটে প্রথম ফ্লাইট পরিচালনার মাধ্যমে বিমানবন্দরটির বাণিজ্যিক যাত্রা শুরু হয়। ওই বছরেরই নভেম্বর মাসে বিমানবন্দরটিতে ফ্লাইট চালু করে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস।

শুরু থেকেই এ পথে যাত্রীর খরা ছিল। ২০০৬ সালে যাত্রীর অভাবে বিমানবন্দরটিতে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ৯ বছর পর ২০১৫ সালের ৯ এপ্রিল আবার এই বিমানবন্দরে ফ্লাইট শুরু হয়।

১৬০ দশমিক ৫ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত বিমানবন্দরটির রানওয়ের দৈর্ঘ্য ৬ হাজার ফুট; প্রস্থ ১০০ ফুট।

বেসরকারি এয়ারলাইনস ইউএস-বাংলার জনসংযোগ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক কামরুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এখনও আমরা বরিশালে দিনে একটি করে ফ্লাইট চালাচ্ছি, তবে যাত্রীর সংখ্যা আগের চেয়ে অনেক কম। এর একটি কারণ এখন পর্যটনের জন্য অফ সিজন। আর তার ওপর পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় সড়কপথে ভ্রমণে মানুষের বাড়তি আগ্রহ আছে, তবে দীর্ঘ মেয়াদে আমি মনে করি না যে সড়কপথ ও আকাশপথ একে অন্যের প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারে।

‘এখন হয়তো পদ্মা সেতু দেখার বিষয়ে অনেকের বাড়তি আগ্রহ রয়েছে, আকাশপথের যাত্রী কিন্তু ভিন্ন। এ কারণে ৩-৪ ঘণ্টার দূরত্বের একটি পথ কখনও ২৫-৩০ মিনিটের যাত্রার সঙ্গে তুলনীয় হতে পারে না।’

তিনি বলেন, ‘এক্সপ্রেসওয়ে ব্যবহার করে পদ্মা সেতু পাড়ি দিতে তিন দফা টোল দিতে হয়। তাতে অর্থের যে খুব বেশি সাশ্রয় হচ্ছে, তাও না। এখন হয়তো সাময়িক একটি পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, তবে এটা দীর্ঘ মেয়াদে খুব বেশি প্রভাব ফেলবে না।

‘আগামী পর্যটন মৌসুমে কুয়াকাটা সমুদ্রসৈকতের প্রতি মানুষের একটি আগ্রহ তৈরি হবে বলে মনে হচ্ছে। এতে করে ঢাকার বাইরে থেকে যারা এখানে যেতে চাইবেন, তাদের একটি বড় অংশই আকাশপথ ব্যবহার করবেন বলে মনে হচ্ছে।’

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) মনে করছে, বিমানবন্দরকেন্দ্রিক অবকাঠামোর উন্নয়ন হলে বাড়বে যাত্রী।

বেবিচক চেয়ারম্যান এম মফিদুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পদ্মা সেতু নিয়ে আমরা গর্বিত। এর একটা সুফল পাওয়া গেছে যে, অনেক যাত্রী এখন বাই রোডে যাওয়া-আসা করছে, কিন্তু এটা সাময়িক।

‘যখন সময়ের বিষয়টি প্রাধান্য পাবে, তখন কিন্তু আবার এয়ারলাইনসগুলোর যাত্রীসংখ্যা বাড়বে। এখন হয়তো কৌতূহলের কারণে অনেকে সড়কপথ ব্যবহার করছে, কিন্তু যখন সেবার বিষয়টি আসবে, তখন আশা করি বিমানবন্দরগুলো সচল থাকবে এবং যাত্রী সংখ্যাও বাড়বে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা কোভিডের সময়েও দেখেছি, আমাদের যাত্রীরা আকাশপথেই বেশি আস্থা রাখছেন। হয়তো কোনো একটি বিমানবন্দরে কমলেও অন্য বিমানবন্দরগুলোতে যাত্রী বাড়ছে। বিমানবন্দরকেন্দ্রিক রাস্তাঘাট ও অবকাঠামোগুলো যদি আরও তৈরি হয়, তাহলে আকাশপথে চলাচল আরও বাড়বে।

‘যেমন: নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকায় এসে বিমানে ওঠার চেয়ে অনেকেই রাস্তার ঝক্কি কমাতে সেখান থেকেই বাসে করে চট্টগ্রাম চলে যান। শুধু বিমানবন্দর না, বিমানবন্দরকেন্দ্রিক যে ব্যবস্থাপনা, এগুলো যদি আরও ভালো করা যায়, তাহলে ভবিষ্যতে বিমান চলাচল আরও বাড়বে।’

আরও পড়ুন:
পদ্মা সেতু চালুর পর মোংলা দিয়ে পোশাক রপ্তানি শুরু
পদ্মা সেতুর প্রভাবে যাত্রী কম আকাশপথেও
পদ্মা সেতুর প্রভাবে বন্ধ গ্রিন লাইন
৯৯৯ টাকায় পদ্মা সেতু ঘুরতে সরকারের প্যাকেজ
মমতাকে পদ্মা সেতু পরিদর্শনের আমন্ত্রণ শেখ হাসিনার

মন্তব্য

জীবনযাপন
Hotel free with two tickets to Bangkok

ব্যাংককের দুই টিকিটে হোটেল ফ্রি

ব্যাংককের দুই টিকিটে হোটেল ফ্রি
অফারে অন্তর্ভুক্ত হোটেলগুলোর মধ্যে রয়েছে ব্যাংককের হোটেল ম্যানহাটন সুকুমভিত, অ্যাম্বাসেডর হোটেল ও গ্র্যান্ড প্রেসিডেন্ট হোটেল। এই অফার ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত বহাল থাকবে

ব্যাংকক যেতে টিকিট কিনলে দুই রাত বিনা মূল্যে হোটেলে থাকার অফার ঘোষণা করেছে বেসরকারি ইউএস বাংলা এয়ারলাইনস। প্রতিষ্ঠানটির এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়েছে, ইউএস বাংলা আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে সপ্তাহে পাঁচ দিন ঢাকা-ব্যাংকক-ঢাকা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করতে যাচ্ছে। যাত্রা শুরুর প্রথম দিন থেকে বাংলাদেশি পর্যটকরা দুটি টিকিট কিনলেই দুই রাত ফ্রি হোটেলে থাকার সুযোগ পাবেন।

এই অফার ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত বহাল থাকবে বলে জানানো হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। অফারে অন্তর্ভুক্ত হোটেলগুলোর মধ্যে রয়েছে ব্যাংককের হোটেল ম্যানহাটন সুকুমভিত, অ্যাম্বাসেডর হোটেল ও গ্র্যান্ড প্রেসিডেন্ট হোটেল। আকর্ষণীয় এ অফারটি ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের যেকোনো নিজস্ব সেলস্ কাউন্টার থেকে সংগ্রহ করা যাবে।

এই প্যাকেজের জন্য জনপ্রতি ন্যূনতম খরচ ধরা হয়েছে ৩৮ হাজার টাকা। অফারটি প্রাপ্তবয়স্ক দুইজন পর্যটকের জন্য প্রযোজ্য হবে। প্যাকেজের সাথে বুফে ব্রেকফাস্ট অন্তর্ভুক্ত। শর্তসাপেক্ষে প্যাকেজে অতিরিক্ত রাত ও শিশুদের অন্তর্ভুক্ত করার সুযোগও রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
এ মাসেই ঢাকা-মালে সরাসরি ফ্লাইট, নতুন বছরে কলম্বো
মালেতে ইউএস বাংলার ফ্লাইট নভেম্বর থেকে
টিকিট বেচে ২১ যাত্রীকে বিপাকে ফেলল ইউএস-বাংলা
ইউএস-বাংলার মাস্কাট ফ্লাইট স্থগিত
এবার ৪ আন্তর্জাতিক রুটে ইউএস-বাংলার বিশেষ ফ্লাইট

মন্তব্য

জীবনযাপন
Bengali Food Fest started at Golden Tulip The Grandmark Hotel

গোল্ডেন টিউলিপ দ্য গ্র্যান্ডমার্ক হোটেলে বাংলা ফুড ফেস্ট শুরু

গোল্ডেন টিউলিপ দ্য গ্র্যান্ডমার্ক হোটেলে বাংলা ফুড ফেস্ট শুরু
শুধু খাবারের উৎসবই শেষ নয়, আরও আছে ঐতিহ্যবাহী বাংলা গান, বায়োস্কোপ বুথ, কাব্যিক বইয়ের বুথ, ফ্রি মেহেদি বুথ, ফটো বুথ, শিশুদের জন্য চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও লটারি।

রাজধানীর গোল্ডেন টিউলিপ দ্য গ্র্যান্ডমার্ক হোটেলে বাংলা ফুড ফেস্ট শুরু হয়েছে। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন অভিনেতা নীরব, আসিফ, অভিনেত্রী দীঘি ও গায়ক রাফাত।

এক সপ্তাহব্যাপী এই বাংলা খাবারের উৎসবে থাকছে মজাদার সব বাংলা খাবারের সমাহার। মরিচ বাটা, ভুনা হাঁসের গোস্ত, ঢাকাইয়া খাসির পায়া, চেপা শুঁটকির লোরা, কলার মোচা ভর্তা, পিঁয়াজ লাল মরিচ ও রসুনের চাটনি, নারিকেল দুধে ভেজা চিতই পিঠা, তন্দুরি শিকানদারি রানের মতো আরও অনেক মুখরোচক ও লোভনীয় খাবার।

শুধু খাবারের উৎসবই শেষ নয়, আরও আছে ঐতিহ্যবাহী বাংলা গান, বায়োস্কোপ বুথ, কাব্যিক বইয়ের বুথ, ফ্রি মেহেদি বুথ, ফটো বুথ, শিশুদের জন্য চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও লটারি। এই আয়োজন প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিট থেকে রাত ১০টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত থাকবে।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Burnt ashes Italian billionaires pleasure

পুড়ে ছাই ইতালিয়ান ধনকুবেরের প্রমোদতরী

পুড়ে ছাই ইতালিয়ান ধনকুবেরের প্রমোদতরী
আগুনের কারণে সৃষ্ট কালো ধোঁয়া প্রতিবেশী দ্বীপ ইবিজা থেকেও দেখা গেছে। আগুনের কারণ জানা যায়নি এখনও।

মাত্র এক মাস আগেই ১ কোটি ৯০ লাখ টাকা দিয়ে বিলাসবহুল একটি প্রমোদতরী কিনেছিলেন ইতালিয়ান ধনকুবের পাওলো স্কুডিয়ারি। ভূমধ্যসাগরীয় দ্বীপ ফরমেন্তেরার পশ্চিম উপকূলে ক্যালা সাওনায় এটি ভাসছিল। বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে আগুন ধরে যায় প্রমোদতরীতে।

আরিয়া এসএফটি নামে প্রমোদতরীর আয়তন ১৫০ ফুট। আগুন লাগার সময় এটিতে ৯ যাত্রী এবং সাতজন ক্রু ছিলেন। স্প্যানিশ দুটি উপকূলরক্ষী জাহাজ তাদের অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করেছে। তবে এটা স্পষ্ট নয় তাদের মধ্যে প্রমোদতরীর মালিক স্কুডিয়ারি ছিলেন কি না।

আগুনের কারণে সৃষ্ট কালো ধোঁয়া প্রতিবেশী দ্বীপ ইবিজা থেকেও দেখা গেছে। আগুনের কারণ জানা যায়নি এখনও।

ইতালির নেপলসে জন্ম শিল্পপতি স্কুডিয়ারির। গাড়ির অভ্যন্তরীণ উপাদান প্রযোজক গ্রুপো অ্যাডলারের চেয়ারম্যান তিনি, যার আনুমানিক মূল্য ৪০০ মিলিয়ন ডলারের বেশি। ১৯৫৬ সালে তার বাবা অ্যাচিল এটি প্রতিষ্ঠা করেন।

পুড়ে ছাই ইতালিয়ান ধনকুবেরের প্রমোদতরী
পাওলো স্কুডিয়ারি। ফাইল ছবি

এ ছাড়া ট্যুরিজম এবং বেশ কিছু নামকরা রেস্তোরাঁর মালিক ৬২ বছর বয়সী পাওলো স্কুডিয়ারি।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Cabinet approves proposal for visa free entry and exit of diplomats in Serbia

সার্বিয়ায় কূটনীতিকদের ভিসা ছাড়া যাওয়া-আসার প্রস্তাবে মন্ত্রিসভার সায়

সার্বিয়ায় কূটনীতিকদের ভিসা ছাড়া যাওয়া-আসার প্রস্তাবে মন্ত্রিসভার সায় মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত
মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা অনেক দেশের সঙ্গে এ রকম চুক্তি করছি। সার্বিয়ার সঙ্গে আমাদের একটা চুক্তি হলো কূটনৈতিক বা অফিশিয়াল পাসপোর্ট যাদের থাকবে, তাদের পারস্পরিক যোগাযোগ ও যাতায়াতের ক্ষেত্রে ভিসা নিতে হবে না।’

কূটনীতিক ও অফিশিয়াল পাসপোর্টধারীদের জন্য সার্বিয়ায় ভিসামুক্ত যাওয়া-আসা নিশ্চিত করতে দেশটির সঙ্গে ভিসা অব্যাহতি সংক্রান্ত চুক্তি অনুসমর্থনের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সচিবালয়ে বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। এতে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দেন সরকারপ্রধান।

পরে সচিবালয়ে বৈঠকের বিস্তারিত সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘আমরা অনেক দেশের সঙ্গে এ রকম চুক্তি করছি। সার্বিয়ার সঙ্গে আমাদের একটা চুক্তি হলো কূটনৈতিক বা অফিশিয়াল পাসপোর্ট যাদের থাকবে, তাদের পারস্পরিক যোগাযোগ ও যাতায়াতের ক্ষেত্রে ভিসা নিতে হবে না।’

এ চুক্তি সই হলে সার্বিয়া যেতে বাংলাদেশি কূটনৈতিক ও অফিশিয়াল পাসপোর্টধারীদের ভিসা লাগবে না। একই নিয়ম সার্বিয়ার কূটনীতিক ও অফিশিয়াল পাসপোর্টধারীদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে।

আরও পড়ুন:
শিলিগুড়িতে বাংলাদেশ ভিসা সেন্টার চালু, কমবে খরচ
কলকাতায় বাংলাদেশের নতুন ভিসা সেন্টার, ফি ৮২৫ টাকা
ভিসা বাতিলের তথ্য অসত্য: জেনারেল আজিজ
ভারতের ট্যুরিস্ট ভিসা চালু ১৫ নভেম্বর
লকডাউনে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ভারতীয় ভিসা সেন্টার

মন্তব্য

p
উপরে