× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

জীবনযাপন
Climate is affecting sex life
google_news print-icon

যৌন জীবনে প্রভাব ফেলছে জলবায়ু

জলবায়ু
জলবায়ু পরিবর্তনে প্রভাব পড়ছে যৌন সম্পর্কে। ছবি: সংগৃহীত
জলবায়ু সংকট নিয়ে উদ্বেগ জনগণের সম্পর্ক এবং যৌন জীবনকে প্রভাবিত করছে। কেউ কেউ সন্তানধারণের পরিবেশগত খরচ নিয়ে উদ্বিগ্ন; অন্যরা কনডম দিয়ে সমুদ্রকে দূষিত করার জন্য দোষী বোধ করেন।

পৃথিবী যত উত্তপ্ত হচ্ছে, ততই ঠান্ডা হয়ে যাচ্ছে বিছানা। পরিবেশ নিয়ে উদ্বেগ মানুষের খাদ্য, কেনাকাটা বা ভ্রমণকে যেমন প্রভাবিত করছে, তেমনি তা প্রভাব ফেলছে তার রোমান্টিক এবং যৌন সম্পর্কেও

যুক্তরাষ্ট্রে ২০১৯ সালে চালানো একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, ১৮ থেকে ২৯ বছর বয়সীদের প্রায় ৩৮ শতাংশ বিশ্বাস করেন, সন্তান নেয়ার ক্ষেত্রে জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়টিকে গুরুত্ব দেয়া উচিত।

আগের বছর অন্য একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের ২০ থেকে ৪৫ বছর বয়সী নারী-পুরুষের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ তাদের কম সন্তান নেয়ার সিদ্ধান্তের পেছনে জলবায়ু পরিবর্তনকে দায়ী করেছেন।

সেক্স থেরাপি অ্যাপ ব্লুহার্টের লরা ভোয়েলস বলছেন, ‘আমার বেশ কিছু ক্লায়েন্ট আছে, যাদের জন্য পরিবেশগত উদ্বেগ একটি সমস্যা। এটি তাদের সম্পর্কের বিভিন্ন দিককে প্রভাবিত করেছে।

‘বিশেষ করে তারা কার সঙ্গে ডেট করবে (সেই ব্যক্তি কি পরিবেশ সম্পর্কে সচেতন?), তারা কোথায় ডেটিং করবে (রেস্তোরাঁটি কি টেকসই উপাদান ব্যবহার করে?), কীভাবে তারা সঙ্গম করে (সবচেয়ে পরিবেশবান্ধব গর্ভনিরোধক কোনটা?) এবং কীভাবে তাদের সন্তান হবে (তাদের কি দত্তক নেয়া উচিত?) এসব বিষয়ে দারুণ প্রভাব ফেলে পরিবেশ নিয়ে এই উদ্বেগ।’

ফিলিপাইনের ম্যানিলার বাসিন্দা ক্যারি নাকপিলের বয়স ২৬। তিনি সাসটেইনিবিলিটি এবং পরিবেশবিষয়ক একটি পডকাস্ট চালান। এই উদ্বেগগুলো ভীষণভাবে তিনি অনুভব করেন।

নাকপিল সন্তান নিতে চান। পাশাপাশি বিশ্বকে জলবায়ু সংকট থেকে রক্ষা করতেও চান। যদিও তিনি জানেন, এই দুটো একসঙ্গে পাওয়া কঠিন।

একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, উন্নত কোনো দেশে একটি সন্তান নেয়া মানেই বছরে প্রায় ৫৮.৬ টন অতিরিক্ত কার্বন-ডাই-অক্সাইড উৎপাদন। পুনরুৎপাদনের চেয়ে পৃথিবীর নবায়নযোগ্য সম্পদের বেশির ভাগই মানুষ ইতোমধ্যে ব্যবহার করছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধি কেবল এই ব্যয়কে আরও বাড়াবে

লরা ভোয়েলস বলছেন, ‘পরিবেশগত প্রভাবের কারণে বা তাদের সন্তানরা জলবায়ু সংকটের প্রতিক্রিয়ার মুখোমুখি হতে পারে এমন আশঙ্কা থেকে অনেকে সন্তান না নেয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। গর্ভবতী হয়ে পড়ার চিন্তায় দম্পতিরা ভীত থাকেন। আর এ উদ্বেগের কারণে তারা সঙ্গমের মুহূর্তকে পুরোপুরি উপভোগ করতে পারছেন না।’

বিশ্বে কার্বন নিঃসরণের মাত্রা বাড়ানোর চেয়ে অনেকেই ভিন্ন পন্থার সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেন। তবে ভোয়েলস বলছেন, কারও কারও জন্য কনট্রাসেপটিভ বা গর্ভনিরোধকগুলো পরিবেশ উদ্বেগের কারণ হতে পারে।

জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিলের হিসাবে প্রতি বছর প্রায় ১০ বিলিয়ন ল্যাটেক্স কনডম উৎপাদন হয়। ব্যবহারের পর যেগুলোর বেশির ভাগই ফেলে দেয়া হয় বিভিন্ন স্থানে। এই কনডম পুনর্ব্যবহার করা যায় না। কিছু প্রতিষ্ঠান পরিবেশবান্ধব কনডম উৎপাদনের দাবি করলেও সেগুলো সচরাচর পাওয়া যায় না।

কনডমের বিকল্প অন্যান্য গর্ভনিরোধক পদ্ধতি যেমন জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল ও ভ্যাসেকটমি রয়েছে। তবে এগুলো সংক্রামক রোগ থেকে রক্ষা করে না। তাই কেবল ‘প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সম্পর্কে’ থাকা দম্পতিদের জন্য এগুলো ভালো বিকল্প হতে পারে। তবে অন্যদের ক্ষেত্রে (বহুগামী) এটা সেরা বিকল্প নাও হতে পারে।

ভোয়েলস তাই জোর গলায় বলেছেন, ‘কনডম ব্যবহারের অপরাধবোধ এড়াতে মানুষের যৌন স্বাস্থ্যের ঝুঁকি নেয়া একেবারেই উচিত নয়।

‘ধরুন আপনি পরিবেশবান্ধব গর্ভনিরোধক পাচ্ছেন না, কিন্তু জীবনের অন্যান্য ক্ষেত্রে পরিবেশবিষয়ক সচেতনতা মেনে চলছেন। তাহলে নিশ্চিত থাকুন, আপনি আপনার সাধ্যের সবটুকুই ইতোমধ্যে করেছেন।

‘এটা খারাপ না, কারণ এর বিকল্প হলো একটি সন্তানধারণ, যা পরিবেশের জন্য একটি কনডমের চেয়ে অনেক বেশি ক্ষতিকর।’

অনেকে কোন ধরনের গর্ভনিরোধক ব্যবহার করবেন সেটা নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকেন। এই অনুভূতি যৌনতায় আগ্রহ কমিয়ে দেয়ার অন্যতম কারণ।

ভোয়েলস বলেন, ‘আপনি যদি উদ্বিগ্ন থাকেন তবে অন্য কিছুতে মনোযোগ দেয়া খুব কঠিন। আপনার উদ্বেগের শারীরিক লক্ষণগুলো যদি অনুভব করেন, তবে যৌন অভিজ্ঞতা উপভোগ করা বা যৌনতা নিয়ে চিন্তা করার অবস্থায় থাকবেন না আপনি।’

এমন কিছু মানুষ আছে যাদের কাছে যৌনতা একটি চমৎকার স্ট্রেস রিলিভার এবং উদ্বেগ মোকাবিলার পদ্ধতি। তাদের ক্ষেত্রে ইকো-অ্যাংজাইটি বা পরিবেশ নিয়ে উদ্বেগ যৌনতা বাড়াতে পারে।

ভোয়েলস বিষয়টি ব্যাখ্যা করেছেন। তিনি বলেন, “এ ধারণা ‘প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সম্পর্কে’ থাকাদের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে ‘সত্য’ হতে পারে। তাদের গর্ভবতী হওয়া বা কনডম ব্যবহারের বিষয়ে চিন্তা করতে হয় না।”

তবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সম্পর্কগুলোও পরিবেশগত উদ্বেগের নাগালের বাইরে নয়। ভোয়েলস বলেন, ‘ইকো-উদ্বেগ আপনার এবং আপনার সঙ্গীর মধ্যে সম্পর্ককেও প্রভাবিত করতে পারে। যদি আপনার মধ্যে একজন জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপে বেশি মনোযোগী হন আর অন্যজন ততটা নন, তবে তা সম্পর্কের মধ্যে বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে।’

ফিরে যাই নকপিলের ঘটনায়। তিনি চার বছর ধরে তার ছেলে বন্ধুর সঙ্গে থাকছেন। নকপিল বলেন, ‘দুজন মানুষকে একত্রিত করার বিষয়টি বেশ জটিল। তবে যুগল হিসেবে যখন আপনারা একটি সবুজ ভবিষ্যতের দিকে এগোবেন, তখন বিষয়টি আরও জটিল হয়ে ওঠে।’

এ ধরনের যুগলদের জন্য কিছু পরামর্শ দিয়েছেন সেক্স থেরাপিস্ট ভোয়েলস। তার পরামর্শ, কোন বিষয়টিকে তারা অগ্রাধিকার দেবে, সে বিষয়ে তাদের খোলামেলা আলোচনা করা উচিত। একে-অপরের দৃষ্টিভঙ্গি বোঝার চেষ্টা করতে হবে। মতের কিছু অমিল থাকতেই পারে। এগুলোকে মেনে নিতে হবে। তারপর সিদ্ধান্ত নিতে হবে, এ অমিলগুলোকে কীভাবে সহজ করা যায়।

নকপিল জানিয়েছেন, তিনি এবং তার প্রেমিক একটি মধ্যম অবস্থান খুঁজে পেতে সক্ষম হয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘বিষয়টা এমন না যে আমরা সব সময় সবুজে থাকব। এটা আদর্শবাদী, তবে (আমার বয়ফ্রেন্ড) আমাকে বাস্তববাদী রাখে। এটা চমৎকার যে একটি মধ্যম অবস্থান থেকে চিন্তা করি, যেখান থেকে দুজনের দৃষ্টিভঙ্গি বিবেচনা করে অনেক বিষয়ে ছাড় দিয়ে থাকি।’

নকপিল স্বীকার করেছেন, দৈনন্দিন জীবন এবং সম্পর্কের বাস্তবতার সঙ্গে পরিবেশের যত্নের ভারসাম্য বজায় রাখা কঠিন হতে পারে, তবে তিনি এটি বজায় রাখতে আগ্রহী।

‘এই মুহূর্তে জানি না কীভাবে (আমার পরিবেশের বিষয়ে চেতনা) বন্ধ করতে হবে বা আমি কি তা সত্যি চাই?’

আরও পড়ুন:
‘জলবায়ুজনিত ক্ষতি কমাতে ন্যাপ জরুরি’
অ্যালবেট্রস দম্পতিদের বিচ্ছেদ কেন বাড়ছে
বৈশ্বিক উষ্ণতা বাদ দিয়েই গ্লাসগো চুক্তি সই
একমত না হওয়ায় বাড়তি সময়ে জলবায়ু সম্মেলন
‘জলবায়ু অভিযোজনে প্রয়োজন প্রতিশ্রুত বরাদ্দ’

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
Foreign Minister calls for UN refugee definition of climate change displaced

জলবায়ু পরিবর্তনে স্থানচ্যুতদের জাতিসংঘের ‘অভিবাসী’ সংজ্ঞাভুক্ত করার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

জলবায়ু পরিবর্তনে স্থানচ্যুতদের জাতিসংঘের ‘অভিবাসী’ সংজ্ঞাভুক্ত করার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর তুরস্কে শনিবার ‘আনতালিয়া ডিপ্লোম্যাটিক ফোরাম-২০২৪’ এর ‘বিল্ডিং এশিয়া-প্যাসিফিক রিজিওনাল আর্কিটেকচারস: দ্য চ্যালেঞ্জ অফ আনম্যাচিং ইন্টারেস্টস’ শীর্ষক প্রথম প্যানেল আলোচনায় অংশ নেন ড. হাছান মাহমুদ। ছবি: সংগৃহীত
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘অনেক বিশ্বনেতাসহ সবার কাছেই আজ এটি স্পষ্ট যে, কোনো দেশের স্থানীয় সমস্যাও বিশ্বব্যাপী প্রভাব ফেলে। তবু ধনী দেশগুলো, যারা বিশ্ব উষ্ণায়নের জন্য প্রধানত দায়ী, তারা এ সমস্যা মোকাবেলা ও আমাদের পরিবেশ রক্ষায় খুব কমই করছে।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাতের কারণে মানুষের স্থানান্তর এখন প্রকট বাস্তবতা। বাংলাদেশ অবিলম্বে ‘জলবায়ু অভিবাসী’ ও ‘শরণার্থী’র সংজ্ঞা পরিবর্তন করে জাতিসংঘের অভিবাসী ও শরণার্থীদের সংজ্ঞার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ করার আহ্বান জানাচ্ছে।

তুরস্কের পর্যটন নগরী আনতালিয়ায় শনিবার ‘আনতালিয়া ডিপ্লোম্যাটিক ফোরাম-২০২৪’ এর ‘বিল্ডিং এশিয়া-প্যাসিফিক রিজিওনাল আর্কিটেকচারস: দ্য চ্যালেঞ্জ অফ আনম্যাচিং ইন্টারেস্টস’ শীর্ষক প্রথম প্যানেল আলোচনায় বক্তব্যে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি এই আহ্বান জানান তিনি।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে শনিবার এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আন্তুর্জাতিক বিষয়ক বিশেষজ্ঞ লরেন্স অ্যান্ডারসনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী, শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, ভিয়েতনামের পররাষ্ট্র উপমন্ত্রী প্রমুখ আলোচনায় অংশ নেন।

ড. হাছান বলেন, ‘অনেক ছোট ও দ্বীপ রাষ্ট্রের মতো বাংলাদেশও জলবায়ু পরিবর্তন ও বৈশ্বিক উষ্ণায়নের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর একটিতে পরিণত হয়েছে। পাশাপাশি তিন দশক ধরে বিশেষত গ্রিনহাউস গ্যাসের ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধির কারণে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির ফলে বাংলাদেশের পুরো উপকূলীয় এলাকা প্লাবিত হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে। এসব ঘটনা প্রতিনিয়ত বাংলাদেশসহ বিশ্বের অনেক জায়গায় জলবায়ু অভিবাসনের বৃদ্ধি ঘটাচ্ছে।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, পরিবেশ বিজ্ঞানীরা বহু বছর ধরে জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাতের বিষয়ে আলোকপাত করে আসছেন। এখন অনেক বিশ্বনেতাসহ সবার কাছেই এটি স্পষ্ট যে, কোনো দেশের স্থানীয় সমস্যাও বিশ্বব্যাপী প্রভাব ফেলে। তবুও ধনী দেশগুলো, যারা বিশ্ব উষ্ণায়নের জন্য প্রধানত দায়ী, তারা এ সমস্যা মোকাবেলা করতে এবং আমাদের পরিবেশ রক্ষার জন্য খুব কমই করছে।’

সুইস পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক

এদিন সাইডলাইনে সুইজারল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইগন্যাসিও ক্যাসিসের সঙ্গে বৈঠক করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। দ্বিপাক্ষিক বিভিন্ন ক্ষেত্রসহ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ও জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা করেন তারা।

তুরস্কে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম আমানুল হক, মন্ত্রীর একান্ত সচিব আরিফ নাজমুল হাসান, সুইজারল্যান্ডের আন্তুর্জাতিক নিরাপত্তা বিষয়ক পরিচালক রাষ্ট্রদূত গ্যাব্রিয়েল লুশিংগার ও সুইস পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ব্যক্তিগত উপদেষ্টা সেড্রিক স্টাকি বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
বাজারে কারসাজির বিরুদ্ধে ইশতেহার অনুযায়ী ব্যবস্থা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
আশা করব মিয়ানমার সীমান্তে আগের পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে না
বিএনপি রোজা রমজান ঈদ কোনোটাই মানে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
রোহিঙ্গাদের ফেরানোর চেষ্টা অব্যাহত আছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
গাজায় মানবিক সহায়তা পৌঁছে দেয়ার মিশরকে ধন্যবাদ জানাল বাংলাদেশ

মন্তব্য

জীবনযাপন
Unhealthy air quality in Dhaka during the holidays ranks fifth

ছুটির দিনে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস, নিম্ন মানে পঞ্চম

ছুটির দিনে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস, নিম্ন মানে পঞ্চম স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়াতে বাইরে বের হলে মাস্ক ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে আইকিউএয়ার। ফাইল ছবি
এ সময় স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়াতে আইকিউএয়ার ৪টি পরামর্শ দিয়েছে। এক, বাড়ির বাইরে গিয়ে শরীরচর্চা না করা; দুই, বাসা-বাড়ির জানালা বন্ধ রাখা যেন দূষিত বায়ু ঘরে প্রবেশ করতে না পারে; তিন, বাইরে বের হলে মাস্ক ব্যবহার করা এবং চার, ঘরে এয়ার পিউরিফায়ার ব্যবহার করা।

বিশ্বের দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় ছুটির দিন শনিবার সকালে ঢাকার অবস্থান পঞ্চম।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বাতাসের মানবিষয়ক প্রযুক্তি কোম্পানিটির র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টা ৩৫ মিনিটে এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স (একিউআই) স্কোর ১৬৭ নিয়ে রাজধানীর বাতাসের মান ‘অস্বাস্থ্যকর’ অবস্থায় রয়েছে।

একই সময়ে যথাক্রমে ২০১ ও ১৯৫ স্কোর নিয়ে তালিকায় প্রথম ও দ্বিতীয় স্থানে ছিল ভারতের কলকাতা ও নেপালের কাঠমান্ডু।

আইকিউএয়ার জানিয়েছে, আজ সকালের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে মানবস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ১৭ দশমিক ৫ গুণ বেশি।

এ সময় স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়াতে আইকিউএয়ার ৪টি পরামর্শ দিয়েছে। এক, বাড়ির বাইরে গিয়ে শরীরচর্চা না করা; দুই, বাসা-বাড়ির জানালা বন্ধ রাখা যেন দূষিত বায়ু ঘরে প্রবেশ করতে না পারে; তিন, বাইরে বের হলে মাস্ক ব্যবহার করা এবং চার, ঘরে এয়ার পিউরিফায়ার ব্যবহার করা।

নির্দিষ্ট স্কোরের ভিত্তিতে কোনো শহরের বাতাসের ক্যাটাগরি নির্ধারণের পাশাপাশি সেটি জনস্বাস্থ্যের জন্য ভালো নাকি ক্ষতিকর, তা জানায় আইকিউএয়ার।

কোম্পানিটি শূন্য থেকে ৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘ভালো’ ক্যাটাগরিতে রাখে। অর্থাৎ এ ক্যাটাগরিতে থাকা শহরের বাতাস জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয়।

৫১ থেকে ১০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘মধ্যম মানের বা সহনীয়’ হিসেবে বিবেচনা করে কোম্পানিটি।

আইকিউএয়ারের র‌্যাঙ্কিংয়ে ১০১ থেকে ১৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরিতে ধরা হয়।

১৫১ থেকে ২০০ স্কোরে থাকা শহরের বাতাসকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরির বিবেচনা করা হয়।

র‌্যাঙ্কিংয়ে ২০১ থেকে ৩০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ধরা হয়।

তিন শর বেশি স্কোর পাওয়া শহরের বাতাসকে ‘বিপজ্জনক’ হিসেবে বিবেচনা করে আইকিউএয়ার।

আজ সকাল ১০টা ৩৫ মিনিটে ঢাকার বাতাসের স্কোর ছিল ১৬৭। এর মানে হলো ওই সময়টাতে ‘অস্বাস্থ্যকর’ বাতাসের মধ্যে বসবাস করতে হয় রাজধানীবাসীকে।

আরও পড়ুন:
তালিকায় উন্নতি, তবু অস্বাস্থ্যকর ঢাকার বাতাস
ঢাকার বাতাস অস্বাস্থ্যকর, নিম্ন মানে পঞ্চম
আজও ঢাকার বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’
অস্বাস্থ্যকর বাতাসের চক্রে ঢাকা
ঢাকার বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’, নিম্ন মানে চতুর্থ

মন্তব্য

জীবনযাপন
Dhakas air will top dangerous lows on the last working day of the week

সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে ঢাকার বাতাস ‘বিপজ্জনক’, নিম্ন মানে শীর্ষে

সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে ঢাকার বাতাস ‘বিপজ্জনক’, নিম্ন মানে শীর্ষে রাজধানীতে ধুলায় আচ্ছন্ন সড়ক ধরে গন্তব্যে যাচ্ছেন যাত্রীরা। ছবি: গ্রিন ল্যাব
আইকিউ এয়ারের ডেটা অনুযায়ী, সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে সকাল পৌনে ১০টার দিকে ঢাকার বাতাসে অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ৫৭ দশমিক ৩ গুণ বেশি।

বাতাসের নিম্ন মানের দিক থেকে আইকিউ এয়ারের তালিকায় ফের শীর্ষে উঠে এসেছে ঢাকা।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বাতাসের মানবিষয়ক প্রযুক্তি কোম্পানিটির র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা ৪৩ মিনিটে ৩৩৭ স্কোর নিয়ে বায়ুর নিম্ন মানে ১১১টি শহরের মধ্যে প্রথম অবস্থানে ছিল ঢাকা।

একই সময়ে বাতাসের নিম্ন মানে দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ ছিল ভারতের কলকাতা, পাকিস্তানের লাহোর ও ভারতের মুম্বাই।

সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে ঢাকার বাতাস ‘বিপজ্জনক’, নিম্ন মানে শীর্ষে

আইকিউ এয়ারের ডেটা অনুযায়ী, সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে সকাল পৌনে ১০টার দিকে ঢাকার বাতাসে অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ৫৭ দশমিক ৩ গুণ বেশি।

নির্দিষ্ট স্কোরের ভিত্তিতে কোনো শহরের বাতাসের ক্যাটাগরি নির্ধারণের পাশাপাশি সেটি জনস্বাস্থ্যের জন্য ভালো নাকি ক্ষতিকর, তা জানায় আইকিউএয়ার।

কোম্পানিটি শূন্য থেকে ৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘ভালো’ ক্যাটাগরিতে রাখে। অর্থাৎ এ ক্যাটাগরিতে থাকা শহরের বাতাস জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয়।

৫১ থেকে ১০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘মধ্যম মানের বা সহনীয়’ হিসেবে বিবেচনা করে কোম্পানিটি।

আইকিউ এয়ারের র‌্যাঙ্কিংয়ে ১০১ থেকে ১৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরিতে ধরা হয়।

১৫১ থেকে ২০০ স্কোরে থাকা শহরের বাতাসকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরির বিবেচনা করা হয়।

র‌্যাঙ্কিংয়ে ২০১ থেকে ৩০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ধরা হয়।

তিন শর বেশি স্কোর পাওয়া শহরের বাতাসকে ‘বিপজ্জনক’ হিসেবে বিবেচনা করে আইকিউএয়ার।

আজ দিনের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসের স্কোর ছিল ৩৩৭। এর মানে হলো ওই সময়টাতে ‘বিপজ্জনক’ বাতাসের মধ্যে বসবাস করতে হয় রাজধানীবাসীকে।

আরও পড়ুন:
ঢাকার বাতাস অস্বাস্থ্যকর, নিম্ন মানে পঞ্চম
আজও ঢাকার বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’
অস্বাস্থ্যকর বাতাসের চক্রে ঢাকা
ঢাকার বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’, নিম্ন মানে চতুর্থ
ছুটির দিনে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস

মন্তব্য

জীবনযাপন
Dhakas air is unhealthy in the low mean third

ঢাকার বাতাস অস্বাস্থ্যকর, নিম্ন মানে তৃতীয়

ঢাকার বাতাস অস্বাস্থ্যকর, নিম্ন মানে তৃতীয় দূষিত বাতাসে ঢাকার বাসিন্দাদের চলাচল। ফাইল ছবি
আইকিউ এয়ারের ডেটা অনুযায়ী, মঙ্গলবারের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে মানবস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ১৮ দশমিক ৪ গুণ বেশি।

বাতাসের নিম্ন মানের দিক থেকে আইকিউ এয়ারের তালিকায় নিয়মিত ওপরে থাকা ঢাকা শীর্ষে না থাকলেও রয়েছে প্রথম তিনে।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বাতাসের মানবিষয়ক প্রযুক্তি কোম্পানিটির র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার বেলা ১১টা ৪৬ মিনিটে ১৭০ স্কোর নিয়ে বায়ুর নিম্ন মানে ১০০টি শহরের মধ্যে তৃতীয় অবস্থানে ছিল ঢাকা।

ঢাকার বাতাস অস্বাস্থ্যকর, নিম্ন মানে তৃতীয়

একই সময়ে বাতাসের নিম্ন মানে প্রথম ও দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল নেপালের কাঠমান্ডু ও ভারতের কলকাতা।

আইকিউ এয়ারের ডেটা অনুযায়ী, মঙ্গলবারের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে মানবস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ১৮ দশমিক ৪ গুণ বেশি।

নির্দিষ্ট স্কোরের ভিত্তিতে কোনো শহরের বাতাসের ক্যাটাগরি নির্ধারণের পাশাপাশি সেটি জনস্বাস্থ্যের জন্য ভালো নাকি ক্ষতিকর, তা জানায় আইকিউএয়ার।

কোম্পানিটি শূন্য থেকে ৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘ভালো’ ক্যাটাগরিতে রাখে। অর্থাৎ এ ক্যাটাগরিতে থাকা শহরের বাতাস জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয়।

৫১ থেকে ১০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘মধ্যম মানের বা সহনীয়’ হিসেবে বিবেচনা করে কোম্পানিটি।

আইকিউ এয়ারের র‌্যাঙ্কিংয়ে ১০১ থেকে ১৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরিতে ধরা হয়।

১৫১ থেকে ২০০ স্কোরে থাকা শহরের বাতাসকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরির বিবেচনা করা হয়।

র‌্যাঙ্কিংয়ে ২০১ থেকে ৩০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ধরা হয়।

তিন শর বেশি স্কোর পাওয়া শহরের বাতাসকে ‘বিপজ্জনক’ হিসেবে বিবেচনা করে আইকিউএয়ার।

আজ দিনের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসের স্কোর ছিল ১৭০। এর মানে হলো ওই সময়টাতে ‘অস্বাস্থ্যকর’ বাতাসের মধ্যে বসবাস করতে হয় রাজধানীবাসীকে।

আরও পড়ুন:
আজও ঢাকার বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’
অস্বাস্থ্যকর বাতাসের চক্রে ঢাকা
ঢাকার বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’, নিম্ন মানে চতুর্থ
ছুটির দিনে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস
‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ বাতাস নিয়ে তালিকায় তৃতীয় ঢাকা

মন্তব্য

জীবনযাপন
Air in Dhaka is unhealthy low mean ninth

ঢাকার বাতাস অস্বাস্থ্যকর, নিম্ন মানে নবম

ঢাকার বাতাস অস্বাস্থ্যকর, নিম্ন মানে নবম রাজধানীতে ধুলায় আচ্ছন্ন সড়ক ধরে গন্তব্যে যাচ্ছেন যাত্রীরা। ছবি: গ্রিন ল্যাব
আইকিউ এয়ারের ডেটা অনুযায়ী, সোমবার সকাল ১০টায় ঢাকার বাতাসে মানবস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ১৩ দশমিক ৪ গুণ বেশি।

বাতাসের নিম্ন মানের দিক থেকে আইকিউ এয়ারের তালিকায় নিয়মিত ওপরে থাকা ঢাকা শীর্ষে না থাকলেও রয়েছে প্রথম দশে।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বাতাসের মানবিষয়ক প্রযুক্তি কোম্পানিটির র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ সময় শনিবার সকাল ১০টায় ১৫৭ স্কোর নিয়ে বায়ুর নিম্ন মানে ১০০টি শহরের মধ্যে নবম অবস্থানে ছিল ঢাকা।

একই সময়ে বাতাসের নিম্ন মানে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে ছিল পাকিস্তানের লাহোর, ভারতের দিল্লি ও মুম্বাই।

আইকিউ এয়ারের ডেটা অনুযায়ী, সোমবারের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে মানবস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ১৩ দশমিক ৪ গুণ বেশি।

নির্দিষ্ট স্কোরের ভিত্তিতে কোনো শহরের বাতাসের ক্যাটাগরি নির্ধারণের পাশাপাশি সেটি জনস্বাস্থ্যের জন্য ভালো নাকি ক্ষতিকর, তা জানায় আইকিউএয়ার।

কোম্পানিটি শূন্য থেকে ৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘ভালো’ ক্যাটাগরিতে রাখে। অর্থাৎ এ ক্যাটাগরিতে থাকা শহরের বাতাস জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয়।

৫১ থেকে ১০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘মধ্যম মানের বা সহনীয়’ হিসেবে বিবেচনা করে কোম্পানিটি।

আইকিউ এয়ারের র‌্যাঙ্কিংয়ে ১০১ থেকে ১৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরিতে ধরা হয়।

১৫১ থেকে ২০০ স্কোরে থাকা শহরের বাতাসকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরির বিবেচনা করা হয়।

র‌্যাঙ্কিংয়ে ২০১ থেকে ৩০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ধরা হয়।

তিন শর বেশি স্কোর পাওয়া শহরের বাতাসকে ‘বিপজ্জনক’ হিসেবে বিবেচনা করে আইকিউএয়ার।

আজ দিনের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসের স্কোর ছিল ১৫৭। এর মানে হলো ওই সময়টাতে ‘অস্বাস্থ্যকর’ বাতাসের মধ্যে বসবাস করতে হয় রাজধানীবাসীকে।

আরও পড়ুন:
অস্বাস্থ্যকর বাতাসের চক্রে ঢাকা
ঢাকার বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’, নিম্ন মানে চতুর্থ
ছুটির দিনে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস
বায়ুদূষণে বদলাচ্ছে ফুলের গন্ধ
‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ বাতাস নিয়ে তালিকায় তৃতীয় ঢাকা

মন্তব্য

জীবনযাপন
The body of the Irrawaddy dolphin washed up on the beach

সৈকতে ভেসে এল ইরাবতী ডলফিনের মরদেহ

সৈকতে ভেসে এল ইরাবতী ডলফিনের মরদেহ ছবি: নিউজবাংলা
ডলফিনের পাশাপাশি টেকনাফের হাজমপাড়া ও কক্সবাজারের দরিয়ানগর সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসে চারটি মৃত মা কাছিম। কাছিমগুলো অলিভ রিডলি প্রজাতির।

কক্সবাজারের হিমছড়ি সমুদ্র সৈকতে ভেসে এসেছে একটি মৃত ইরাবতী ডলফিন। ডলফিনটি ৬ ফিট লম্বা ও প্রায় ১২০ কেজি ওজনের।

রোববার সকালে ইরাবতী ডলফিনটির সঙ্গে অন্য সৈকতে ভেসে আসে আরও ৪টি মৃত মা কচ্ছপ।

বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইন্সটিটিউটের (বোরি) জ্যেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের হিমছড়ি বিচে ৬ ফুট লম্বা, প্রায় ১২০ কেজি ওজনের একটি মৃত ইরাবতী ডলফিন ভেসে এসেছে। ডলফিনটির শরীরে তেমন কোনো আঘাতের চিহ্ন না থাকলেও পেছনের পাখনায় সামান্য আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে।’

বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইন্সটিটিউট মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধানের চেষ্টা করছে জানিয়ে এই বিজ্ঞানী বলেন, ‘মৃত ডলফিনটি সম্পর্কে বন বিভাগকে খবর দেয়া হয়েছে। তাদের জিম্মায় এটাকে পুঁতে ফেলা হবে।’

এছাড়া ডলফিনের পাশাপাশি টেকনাফের হাজমপাড়া ও কক্সবাজারের দরিয়ানগর সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসে চারটি মৃত মা কাছিম। কাছিমগুলো অলিভ রিডলি প্রজাতির।

এর আগে, গত ১৬ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের কক্সবাজার শহর থেকে ১৮ কিলোমিটার দক্ষিণে সোনারপাড়া সৈকতে ও ২৬ কিমি দক্ষিণে পাটুয়ারটেক সৈকতে মৃত দুটি ডলফিন ভেসে আসে। ১৭ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার শহর থেকে ৮ কিলোমিটার দক্ষিণে হিমছড়ি সৈকতে একটি ডলফিন ও তার আগেরদিন শহরের সুগন্ধা পয়েন্ট সৈকতে একটি পরপইসের মরদেহ ভেসে এসেছিল।

২০১২ সালের বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনে স্তন্যপায়ী ডলফিন, পরপইস ও সামুদ্রিক কচ্ছপ সংরক্ষিত প্রজাতি হিসেবে তালিকাভুক্ত। এগুলো শিকার করা, খাওয়া, অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ পরিবহন ও ক্রয়-বিক্রয় করা দণ্ডনীয় অপরাধ।

চলতি মৌসুমে কক্সবাজার শহর, রামু, উখিয়া, টেকনাফ, সেন্টমার্টিন ও সোনাদিয়া সৈকতে অন্তত ৮৫টি মরা সামুদ্রিক কচ্ছপ ভেসে আসে বলে জানান সমুদ্রবিজ্ঞানীরা।

কিন্তু কী কারণে হঠাৎ করে কক্সবাজার বঙ্গোপসাগরে ডলফিনসহ এত সংরক্ষিত প্রাণী মারা যাচ্ছে, তা বিজ্ঞানীদের কাছে এখনও পরিষ্কার নয়। তবে বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন বোরি মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. তৌহিদা রশীদ।

তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধানে ফরেনসিক নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়ার পরই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।’

প্রাণীগুলোর আবাসস্থলে কোনো বড় ধরনের সমস্যা হয়েছে কি না, তাও অনুসন্ধান করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
সৈকতে ভেসে এলো মৃত ডলফিন
সংরক্ষিত বনে আটকে ছিল ৪০ কেজির কচ্ছপ
খরা ও তীব্র গরমে ১২০ অ্যামাজন ডলফিনের মৃত্যু
প্রকৃতিতে ফিরছে বিলুপ্তপ্রায় ‘বাটাগুর বাসকা’
কুয়াকাটা সৈকতে অর্ধগলিত ডলফিন

মন্তব্য

জীবনযাপন
It means that Dhakas air is unhealthy even though it has improved

মানে উন্নতি হলেও ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস

মানে উন্নতি হলেও ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস তালিকায় নিয়মিত প্রথম দশে থাকা ঢাকা রোববার সকালে রয়েছে ২১তম অবস্থানে।। ছবি: পনির হোসেন/রয়টার্স
আইকিউএয়ার জানিয়েছে, আজ সকালের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে মানবস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ৭ দশমিক ৬ গুণ বেশি।

বাতাসের নিম্ন মানের দিক থেকে আইকিউ এয়ারের তালিকায় নিয়মিত প্রথম দশে থাকা ঢাকা রোববার সকালে রয়েছে ২১তম অবস্থানে।

বায়ুর মানের উন্নতি হলেও ‘অস্বাস্থ্যকরই’ রয়ে গেছে বাংলাদেশের রাজধানীর বাতাস।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বাতাসের মানবিষয়ক প্রযুক্তি কোম্পানিটির র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ সময় বেলা ১১টা ২৫ মিনিটে এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স (একিউআই) স্কোর ১০৭ নিয়ে রাজধানীর বাতাসের মান ‘সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ অবস্থায় রয়েছে।

একই সময়ে তালিকায় প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃয়ীয় স্থানে ছিল ভারতের দিল্লি, পাকিস্তানের লাহোর ও নেপালের কাঠমান্ডু।

এর আগে ছুটির শনিবার সকাল ৯টা ১০ মিনিটে ১৬৪ স্কোর নিয়ে বায়ুর নিম্ন মানে ১০০টি শহরের মধ্যে পঞ্চম অবস্থানে ছিল ঢাকা।

আইকিউএয়ার জানিয়েছে, আজ সকালের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে মানবস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ৭ দশমিক ৬ গুণ বেশি।

নির্দিষ্ট স্কোরের ভিত্তিতে কোনো শহরের বাতাসের ক্যাটাগরি নির্ধারণের পাশাপাশি সেটি জনস্বাস্থ্যের জন্য ভালো নাকি ক্ষতিকর, তা জানায় আইকিউএয়ার।

কোম্পানিটি শূন্য থেকে ৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘ভালো’ ক্যাটাগরিতে রাখে। অর্থাৎ এ ক্যাটাগরিতে থাকা শহরের বাতাস জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয়।

৫১ থেকে ১০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘মধ্যম মানের বা সহনীয়’ হিসেবে বিবেচনা করে কোম্পানিটি।

আইকিউএয়ারের র‌্যাঙ্কিংয়ে ১০১ থেকে ১৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরিতে ধরা হয়।

১৫১ থেকে ২০০ স্কোরে থাকা শহরের বাতাসকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরির বিবেচনা করা হয়।

র‌্যাঙ্কিংয়ে ২০১ থেকে ৩০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ধরা হয়।

তিন শর বেশি স্কোর পাওয়া শহরের বাতাসকে ‘বিপজ্জনক’ হিসেবে বিবেচনা করে আইকিউএয়ার।

আজ বেলা ১১টা ২৫ মিনিটে ঢাকার বাতাসের স্কোর ছিল ১০৭। এর মানে হলো, ওই সময়টাতে রাজধানীর বাতাস ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ ছিল।

একই সময় ১১০টি দেশের এ তালিকার সর্বনিম্ন ৮ স্কোর নিয়ে ‘ভালো’ বাতাসের শহর ছিল আলজেরিয়ার রাজধানী আলজিয়ার্স।

আরও পড়ুন:
ঢাকার বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’, নিম্ন মানে চতুর্থ
ছুটির দিনে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস
‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ বাতাস নিয়ে তালিকায় তৃতীয় ঢাকা
ছুটির দিনে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার বাতাস
‘অস্বাস্থ্যকর’ বাতাস নিয়ে তালিকায় তৃতীয় ঢাকা

মন্তব্য

p
উপরে