× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

জীবনযাপন
Lal Jagannath University at Krishnachura
hear-news
player
print-icon

কৃষ্ণচূড়ায় লাল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

কৃষ্ণচূড়ায়-লাল-জগন্নাথ-বিশ্ববিদ্যালয়
কৃষ্ণচূড়ার রক্তিম আভায় সেজেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। ছবি: নিউজবাংলা
কৃষ্ণচূড়ার বৈজ্ঞানিক নাম ডেলোনিক্স রেজিয়া।এটি Caesalpiniaceae (সিসালপিনিয়েসি) গোত্রের অন্তর্গত একটি উদ্ভিদ। এর আদি নিবাস আফ্রিকার মাদাগাস্কার। ১৮২৪ সালে সেখান থেকে প্রথম মুরিটাস, পরে ইংল্যান্ড এবং শেষ পর্যন্ত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বিস্তার ঘটে। এখন জন্মে আমেরিকা, ক্যারিবিয়ান অঞ্চল, হংকং, তাইওয়ান, দক্ষিণ চীন, ভারতসহ বিশ্বের বহু দেশে।

গ্রীষ্মের তপ্ত রোদে কৃষ্ণচূড়ার লাল রঙের আভায় পুরান ঢাকার এক টুকরো সবুজের প্রাণকেন্দ্র জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) সেজেছে বর্ণিল সাজে। গ্রীষ্মের নিষ্প্রাণ রুক্ষতা ছাপিয়ে ক্যাম্পাসের কৃষ্ণচূড়া মেলে ধরেছে তার রূপ।

সবুজ পাতার ফাঁকে উজ্জ্বল লাল রঙের কৃষ্ণচূড়ার অপূর্ব বাহারি দৃশ্য চোখ জুড়ায়। এ যেন ফুল-পাতা দিয়ে গড়া প্রকৃতির এক স্বর্গরাজ্য। যা ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ফটক, সমাজকর্ম ও সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সামনে, ভাষা শহীদ রফিক ভবনের পাশে, শান্ত চত্বর, ক্যাফেটেরিয়ার সামনে, মুক্তমঞ্চের আশেপাশে, সায়েন্স ফ্যাকাল্টির পুরোটা জুড়ে ও একাডেমিক ভবনের পেছনেসহ ক্যাম্পাসের বিভিন্ন জায়গায় কৃষ্ণচূড়া গাছের রাঙা ফুল প্রকৃতির সব রঙকে ম্লান করে দিয়েছে।

ক্যাম্পাসের বিজ্ঞান অনুষদ চত্বর, প্রশাসনিক ভবনের পাশে ডালপালা ছড়ানো বিশাল আকৃতির কৃষ্ণচূড়াগুলো সৃষ্টি করেছে রক্তিম বর্ণের এক মোহনীয়তা।

সকালে গাছের নিচে কৃষ্ণচূড়ার ঝরে পড়া রক্তলাল পাপড়ি তৈরি করে এক পুষ্প শয্যা। সকাল থেকে সন্ধ্যা এসব গাছের নিচেই আড্ডায় মাতেন শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের এস্টেট অফিস সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের কৃষ্ণচূড়া গাছগুলোর অধিকাংশই কলেজ থাকা অবস্থায় রোপণ করা। এ ছাড়া একাডেমিক ভবন ও দ্বিতীয় ফটকের গাছগুলো ২০০৮ সালের পর লাগানো হয়েছে। অন্য গাছগুলো কখনো শিক্ষার্থীরা আবার কখনো বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে বিভিন্ন জায়গায় লাগানো হয়েছে। ২০১৭ সালের ১৭ মে দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্ত চত্বরে বেড়ে ওঠা ক্যাম্পাসের লাল সুন্দরী খ্যাত ঐতিহ্যবাহী শতবর্ষী কৃষ্ণচূড়া গাছটি কোনো ঝড়-বৃষ্টি ছাড়াই হঠাৎ উপড়ে পড়ে যায়।

কৃষ্ণচূড়া গাছ পত্রপল্লব এবং আগুনলাল ফুলের জন্য বিখ্যাত। এটি উচ্চতায় সাধারণত ১২-১৪ মিটার হয়। তবে শাখা-পল্লবে চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। কৃষ্ণচূড়ার ফুলগুলো বড় ৭ থেকে ৮টি পাপড়িযুক্ত। ফুলের ভেতরের অংশ হালকা হলুদ ও রক্তিম হয়ে থাকে। পাপড়িগুলো প্রায় আট সেন্টিমিটারের মত লম্বা হতে পারে। এর প্রতিটি পাতা ৩০-৫০ সেন্টিমিটার লম্বা এবং ২০-৪০টি উপপত্র বিশিষ্ট।

কৃষ্ণচূড়ায় লাল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে কৃষ্ণচূড়া ফুল ফোটে এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত। কুঁড়ি আসার কিছুদিনের মধ্যে পুরো গাছ ভরে যায় ফুলে ফুলে।

কৃষ্ণচূড়ার বৈজ্ঞানিক নাম ডেলোনিক্স রেজিয়া। এটি Caesalpiniaceae (সিসালপিনিয়েসি) গোত্রের অন্তর্গত একটি উদ্ভিদ। এর আদি নিবাস আফ্রিকার মাদাগাস্কার। ১৮২৪ সালে সেখান থেকে প্রথম মুরিটাস, পরে ইংল্যান্ড এবং শেষ পর্যন্ত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বিস্তার ঘটে। এখন জন্মে আমেরিকা, ক্যারিবিয়ান অঞ্চল, হংকং, তাইওয়ান, দক্ষিণ চীন, ভারতসহ বিশ্বের বহু দেশে।

ধারণা করা হয়, কৃষ্ণচূড়া ভারত উপমহাদেশে এসেছে তিন থেকে চার শ বছর আগে। বহুকাল ধরে আছে বাংলাদেশে। তবে ফুলের নাম কী করে কৃষ্ণচূড়া হলো সে সম্পর্কে নিশ্চিত করে কিছু জানা যায় না।

কৃষ্ণচূড়া গাছের আরেক নাম গুলমোহর। যদিও তা কম লোকই জানেন, কিন্তু কৃষ্ণচূড়াকে চেনেন না এমন লোক খোঁজে পাওয়া দায়।

কৃষ্ণচূড়াকে সাধারণত আমরা লাল রঙেই দেখতে অভ্যস্ত হলেও উদ্ভিদ বিজ্ঞানীরা বলছেন, কৃষ্ণচূড়া লাল, হলুদ ও সাদা রঙেরও হয়। আমাদের দেশে লাল ও হলুদ রঙের ফুল দেখা গেলেও সাদা রঙের কৃষ্ণচূড়া দেখা যায় না।

পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মিথিলা দেবনাথ ঝিলিক বলেন, ‘কৃষ্ণচূড়া আমাদের ক্যাম্পাসের পরিবেশ লাল রঙে রাঙিয়েছে। মনে হচ্ছে যেন লাল টুকটুকে বউ, এই লালের মাঝে ইচ্ছে করে হারিয়ে যেতে। গ্রীষ্মের এই খরতাপে শান্তির পরশ বুলিয়ে দেয় কৃষ্ণচূড়া গাছগুলো।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেক শিক্ষার্থী মেহরাব হোসেন অপি বলেন, ‘ঈদের ছুটি কাটিয়ে এসে কৃষ্ণচূড়ায় পরিপূর্ণ লাল টুকটুকে ক্যাম্পাস দেখে মনে হচ্ছে যেন ঈদের শেষে আবার কোথাও ঘুরতে এসেছি। এমন সুন্দর দৃশ্য দেখে নিজের সবুজে ঘেরা গ্রাম ছেড়ে আসার জন্য যে মন খারাপ লাগছিল তাও যেন ভুলে গেছি।’

সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী সাঈমা আক্তার বলেন, ‘আমার পছন্দের ফুলগুলোর তালিকায় প্রথমেই স্থান পায় কৃষ্ণচূড়া। এর রক্ত বর্ণ রূপ, সৌন্দর্য আমাকে মুগ্ধ করেছে বার বার’

কৃষ্ণচূড়ার বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘গাছটি খুবই নরম। এটি আমাদের দেশীয় কোনো গাছ না। এরা ঝড়-ঝাপটায় টিকে থাকতে পারে না। কৃষ্ণচূড়া ফুল ফোটার ব্যাপ্তিকাল ভিন্ন। রাতের নিরবিচ্ছিন্ন একটা দৈর্ঘ্য ব্যতীত কৃষ্ণচূড়া ফুল ফুটতে পারে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘ক্যাম্পাসের বড় গাছটি হেলে আছে ঝুঁকিপূর্ণভাবে। যেকোনো সময় সেটি পড়ে যেতে পারে।’

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও শিক্ষক সমিতির সদস্য ড. এ এম এম গোলাম আদম জানান, কৃষ্ণচূড়া উদ্ভিদের আদিনিবাস মাদাগাস্কার হলেও ভারত, নেপাল, মিয়ানমার, পাকিস্তানসহ অনেক দেশেই এর বিস্তৃতি। এই উদ্ভিদের লাল, কমলা, হলুদ ফুল এবং উজ্জ্বল সবুজ পাতা রয়েছে। এই বিভিন্ন রং মূলত ক্লোরোফিল, কারোটেনোয়েডস ও অ্যানথোসাইনিন নামক রঞ্জক পদার্থের উপস্থিতির কারণেই হয়ে থাকে।’

উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বৃক্ষরোপণ কমিটির সদস্য বিভাস কুমার সরকার বলেন, ‘বাংলাদেশে গ্রীষ্মকালে (এপ্রিল-জুন) এই ফুল বেশি দেখা যায়। সৌন্দর্যবর্ধন ছাড়াও এই গাছ উষ্ণ আবহাওয়ায় ছায়া দিতে উপযুক্ত। ক্যাম্পাসকে আরও সুন্দর করতে কৃষ্ণচূড়া লাগোনো যেতে পারে।’

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র ট্যাক্সোনমিক ও উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. নাহিদ সুলতানা বলেন, ‘আমাদের দেশে পত্র ঝরা এই কৃষ্ণচূড়া উদ্ভিদটির পাতা শীতকালে ঝরে যায় আর বসন্তকালে ফুল ফোটে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কৃষ্ণচূড়ার ফুল ফোটার সময় ভিন্ন। অপরূপ সৌন্দর্য ছাড়াও এর পাতা, মূলের বাকল ও ফুল ভেষজ গুণাগুণ সম্পন্ন যা জ্বর ও খুশকি নিরাময়ের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।’

আরও পড়ুন:
জবির নতুন ছাত্রী হলে মেয়াদহীন অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র
জবিতে প্রদীপ জ্বেলে কালরাত স্মরণ
শব্দদূষণ রোধে জবির একদল শিক্ষার্থী
জবিতে ছাত্রজোটের ওপর ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ
জবিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকীতে নানা আয়োজন

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
There are many reasons behind the suspension of the Jagannath Committee of Chhatra League

ছাত্রলীগের জগন্নাথ কমিটি স্থগিতের নেপথ্যে কারণ বহু

ছাত্রলীগের জগন্নাথ কমিটি স্থগিতের নেপথ্যে কারণ বহু বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহিম ফরাজী ও সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন। ছবি: নিউজবাংলা
বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের এক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিউজবাংলাকে বলেছেন ‘নেতা হয়ে নষ্টামি করার কারণে কমিটি স্থগিত হয়েছে। এ ছাড়া পদে থাকা আরও দুইজন নেতা বলেছেন, রাষ্ট্রপতির ছেলের গাড়ির ড্রাইভারকে মারার অপরাধে এবং ইসলামপুরে কয়েকদিন আগে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এক বিচারে গিয়ে সিদ্ধান্ত না মানায় এক ব্যবসায়ীকে নাকি তুলে নিয়ে এসেছিলেন।’

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিতের সিদ্ধান্ত জানিয়ে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিজ্ঞপ্তিতে কোনো কারণ উল্লেখ নেই। তাহলে কেন এই সিদ্ধান্ত?

তাৎক্ষণিকভাবে চাউর হয়, সংগঠনের নেতারা জানালেন, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ছেলে রিয়াদ আহমেদ তুষারের ব্যক্তিগত গাড়িচালককে মারধরের ঘটনাই এই সিদ্ধান্ত নেয়ার কারণ। সংগঠনের নেতারা জানালেন, এটি প্রধান কারণ বটে, তবে একমাত্র কারণ নয়। এর সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের চাঁদাবাজির বিষয়ও আছে।

শুক্রবার ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের এক জরুরি সিদ্ধান্ত মোতাবেক জানানো যাচ্ছে যে, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সকল সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত করা হলো।’

বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্রলীগের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সকল সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিতর কোনো কারণ বর্ণনা করা হয়নি। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে একাধিকবার ফোন করেও যোগাযোগ করা যায়নি।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির বেশ কয়েকজন নেতা জানান, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের ছেলের গাড়ি চালককে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের লোকজনই মারধর করেছে। তাই আপাতত কমিটির কার্যক্রম স্থগিত রাখা হয়েছে।

গত রোববার ওয়ারীতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম হলের কাছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের এক শিক্ষার্থী রাষ্ট্রপতির ছেলের গাড়িচালককে মারধর করেন বলে অভিযোগ উঠে। সোমবার সন্ধ্যায় ওয়ারী থানায় কয়েকজনকে অজ্ঞাত করে মামলা করেন ভুক্তভোগী চালক নজরুল ইসলাম।

এর মধ্যে পুরান ঢাকার রায়সাহেব বাজার মোড়ে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কর্মীদের দিয়ে চাঁদাবাজির করার ঘটনার সিসিটিভির ফুটেজ বের হয়েছে।

এটিও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিতের সিদ্ধান্তের একটি কারণ বলে জানান কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের আরেক সহসভাপতি।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘ইব্রাহীম ও আকতারকে সভাপতি-সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণার পর থেকেই পুরান ঢাকায় লুকিয়ে তারা বেপরোয়া চাঁদাবাজি শুরু করেছে। পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সিসিটিভির ফুটেজ তো সবার কাছেই আছে।’

ফুটেজে দেখা যায়, জবি ছাত্রলীগের স্থগিত কমিটির সভাপতির কর্মী সাইদুল ইসলাম সাঈদ ও সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসাইনের কর্মী মো. মাসুদ রানা পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ঢুকেছেন।

পরে প্রকাশ হয় তারা প্রতি মাসে চাঁদা দেয়ার রফাদফা করতেই সেখানে যান। আর গিয়ে হুমকি ধমকি দিয়েছেন।

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের দ্বারা নারী হেনস্তার অভিযোগও আছে। সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের এক ছাত্রীকে থাপ্পড় দেয়ার ঘটনায় ওই বিভাগেরই দুই শিক্ষার্থী খায়রুল ইসলাম ও মফিজুল্লা রনিকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

এদের মধ্যে রনি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহিম ফরাজির অনুসারী।

গত ১৯ জুন শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসাইনের কর্মী মনোবিজ্ঞান বিভাগের ১২তম ব্যাচের শিক্ষার্থী আবিদ হাসান একই বিভাগের এক ছাত্রীকে শারীরিকভাবে হেনস্থা করেন বলেও অভিযোগ উঠে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে অভিযোগ জানানো হলেও প্রশাসন এবং ওই ছাত্রীকে চাপ প্রয়োগ ও হুমকি-ধামকি দিয়ে ঘটনাটির রফাদফা করা হয়।

তিন বছর পর গত ২ জানুয়ারি ছাত্রলীগের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার কমিটি ঘোষণা করা হয়। আগামী এক বছরের জন্য ইব্রাহিম ফরাজীকে সভাপতি এবং আকতার হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়।

রাষ্ট্রপতির ছেলের গাড়িচালককে মারধরের ঘটনায় অভিযুক্ত জবি ছাত্রলীগকর্মী কৌশিক সরকার সাম্য বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেনের গ্রুপের কর্মী বলে পরিচিত।

কৌশিক ফেসবুকে নিজের পরিচয়ে শাখা ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে উল্লেখ করেছেন। ফেসবুক ওয়ালে সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেনের সঙ্গে তার ছবি ছাড়াও নিয়মিত ছাত্রলীগকেন্দ্রিক পোস্ট শেয়ার করতে দেখা যায়।

২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতেও ‘প্রেমঘটিত’ কারণে মারামারির জেরে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের আগের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়।

গত ১১ মার্চ নবীন শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ দলে ভিড়ানোকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক গ্রুপ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। মালিটোলা পার্ক, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ও টিএসসি এলাকার এ ঘটনায় প্রায় ১০ জন আহত হয়।

আড়াই লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় গত ৬ মার্চ সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে এফ আর হিমাচল পরিবহনের একটি বাস পুরান ঢাকার তাঁতিবাজার এলাকা থেকে এনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটকের সামনে আটকে রাখে আকতার হোসাইনের অনুসারী ও দর্শন বিভাগের ২০১৬-২০১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান।

পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সহযোগিতায় কোতয়ালি থানা পুলিশ বাসটি উদ্ধার করে নিয়ে যায়। ছাত্রলীগের উৎপাতে সেই এসি বাস সদরঘাট রুটে চলাচল ও বন্ধ করে দেয়া হয়।

২০১৪ সালের হল আন্দোলনের সময় সমবায় ব্যাংকের মালিকানা থে‌কে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের জ‌মি‌টি দখল ক‌রে শিক্ষার্থীরা জায়গা‌টিকে ‘টিএসসি’ হি‌সে‌বে দা‌বি ক‌রে আস‌ছে। ছাত্রলীগ নেতা কর্তৃক জায়গাটি ক‌য়েকবার বেদখল হ‌লেও সর্ব‌শেষ ২০১৭ সা‌লের শুরু‌তে আবা‌রো দখলমুক্ত ক‌রে শিক্ষার্থীরা।

এরপর স্বাভা‌বিকভাবে চল‌লেও বর্তমানে স্থগিত হওয়া ছাত্রলীগ কমিটি এটি সংস্কার করে নতুন করে চালু করে। তবে এখানে গড়ে তোলা দোকানগুলো থেকে প্রতিদিন ২০০ টাকা করে চাঁদা তোলার অভিযোগ আছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের এক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিউজবাংলাকে বলেছেন ‘নেতা হয়ে নষ্টামি করার কারণে কমিটি স্থগিত হয়েছে। এ ছাড়া পদে থাকা আরও দুইজন নেতা বলেছেন, রাষ্ট্রপতির ছেলের গাড়ির ড্রাইভারকে মারার অপরাধে এবং ইসলামপুরে কয়েকদিন আগে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এক বিচারে গিয়ে সিদ্ধান্ত না মানায় এক ব্যবসায়ীকে নাকি তুলে নিয়ে এসেছিলেন।’

এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক ইন্দ্রনীল রনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘অভ্যন্তরীণ অনেকগুলো বিষয় রয়েছে। কিছু ঘটনা ঘটেছে, যেটা না ঘটলে ভালো হতো। আমাদের মধ্যে একটু ভুল বোঝাবুঝি আছে, যাদের সঙ্গে ঘটনাগুলো ঘটেছে। আমাদের আওয়ামী লীগের যে সিনিয়র নেতৃবৃন্দ আছেন, উনাদের নির্দেশনা আসলেই পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করব।'

অভিযোগের ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি ইব্রাহিম ফরাজী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কিসের প্রমাণ আছে? কেউ অভিযোগ করেছে? নাকি আমাদের কথার রেকর্ড আছে?’

তিনি বলেন, ‘সিসিটিভি ফুটেজে, আমরা রুম থেকে রেব হচ্ছি সেটার ভিডিও দেখা যাচ্ছে। এমন হাজার হাজার লোক এভাবে যাওয়া আসা করে। আমরা গিয়েছিলাম জগন্নাথের এক গরিব শিক্ষার্থীর টেস্টের রিপোর্ট নিয়ে কথা বলতে। কিছু টাকা কমানো যায় কি না সেটার মানবিক অনুরোধে শুধু। এখানে কোনো চাঁদার বিষয় ভুলেও আসতে পারেনা।’

সাধারণ সম্পাদকের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তাকে ছয় কল করা হলেও রিসিভ করেননি।

আরও পড়ুন:
জবি ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত
উত্তরপত্রে ‘স্যার, মন ভালো নেই’ লেখা জবি ছাত্রকে শোকজ
গবেষণা সহযোগিতায় শেকৃবি-জবি সমঝোতা চুক্তি

মন্তব্য

জীবনযাপন
Clashes in Habiprabi Committee to investigate

হাবিপ্রবিতে সংঘর্ষ: তদন্তে কমিটি

হাবিপ্রবিতে সংঘর্ষ: তদন্তে কমিটি
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. মামুনুর রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কারা বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর করল। সিসিটিভি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় বঙ্গবন্ধুসহ প্রধানমন্ত্রী ও চার নেতার ব্যানার ছবি ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ে ট্রেজারার বিধান চন্দ্র হালদারকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর থেকে রাত পর্যন্ত দুই দফায় সংঘর্ষ ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পরে ক্যাম্পাসে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডরমেটরি-২ হলের ১৯ ব্যাচের শিক্ষার্থী আনজারুল ইসলামকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ৮-১০ জন শিক্ষার্থী মারধর করেন। পরে আহত অবস্থায় আনজারুলকে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এরপর মারধর করা শিক্ষার্থীরা শেখ রাসেল হলে আশ্রয় নেন। ঘটনা জানাজানি হলে শেখ রাসেল হলের দিকে যান ডরমেটরি-২ হলের শিক্ষার্থীরা। সেখানে উভয় হলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া শুরু হয়; একপর্যায়ে সংঘর্ষও হয়।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের থামায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

চলে যাওয়ার সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের একজন শিক্ষার্থীকে চড়থাপ্পড় মারেন ডরমেটরি-২ হলের কয়েকজন শিক্ষার্থী। এর জেরে শেখ রাসেল হল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের শিক্ষার্থীরা ডরমেটরি-২ হলে গিয়ে ভাঙচুর চালান।

কিছুক্ষণ পর একত্রিত হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে হামলা চালান ডরমেটরি-২ ও তাজউদ্দিন আহমদ হলের শিক্ষার্থীরা।

হাবিপ্রবিতে সংঘর্ষ: তদন্তে কমিটি

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, ডরমিটরি-২-এর কিছু ছাত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের কলাপসিবল গেট ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। ঢুকে তারা প্রথমেই বঙ্গবন্ধুর একটি ছবি ছিঁড়ে ফেলে। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জাতীয় চার নেতা ও হাজী মোহাম্মদ দানেশের ছবিও ভাঙচুর করেন।

পরে পুলিশ মোতায়েন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. মামুনুর রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কারা বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর করল। সিসিটিভি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
হাবিপ্রবির সেই ২১ শিক্ষার্থীর পক্ষে হাইকোর্টের রুল
হাবিপ্রবির জোড়া খুন: আওয়ামী লীগ নেতা কারাগারে
হাবিপ্রবিতে নতুন ভিসি কামরুজ্জামান
রাতের আঁধারে ক্যাম্পাস ছাড়লেন হাবিপ্রবি ভিসি

মন্তব্য

জীবনযাপন
Celebrate Dhaka University Day by cutting a 102 pound cake

১০২ পাউন্ডের কেক কেটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন

১০২ পাউন্ডের কেক কেটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন ১০২ পাউন্ডের কেক কেটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন উপাচার্য আখতারুজ্জামান। ছবি: নিউজবাংলা
অতিথিবৃন্দদের সঙ্গে নিয়ে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাতীয় পতাকা এবং বিশ্ববিদ্যালয় ও হলসমূহের পতাকা উত্তোলন ও পায়রা উড়ান উপাচার্য। এরপর সবাইকে নিয়ে ১০২ পাউন্ডের কেক কেটে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন উপাচার্য আখতারুজ্জামান।

উৎসবমুখর পরিবেশে ১০২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী শুক্রবার সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সব হল ও হোস্টেল থেকে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা শোভাযাত্রা সহকারে শারীরিক শিক্ষা কেন্দ্রের খেলার মাঠে সমবেত হন।

এরপর অতিথিবৃন্দদের সঙ্গে নিয়ে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাতীয় পতাকা এবং বিশ্ববিদ্যালয় ও হলসমূহের পতাকা উত্তোলন ও পায়রা উড়ান উপাচার্য। এরপর সবাইকে নিয়ে ১০২ পাউন্ডের কেক কেটে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন উপাচার্য আখতারুজ্জামান।

এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে বিশ্ববিদ্যালয়ের থিম সংগীত পরিবেশিত হয়।

উপাচার্যের উদ্বোধন শেষে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও অ্যালামনাইদের অংশগ্রহণে কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ থেকে এক শোভাযাত্রা বের হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেন।

শোভাযাত্রাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র মিলনায়তনে এসে শেষ হয়।

বেলা ১১টায় ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র মিলনায়তনে ‘গবেষণা ও উদ্ভাবন: ইন্ডাস্ট্রি অ্যাকাডেমিয়া সহযোগিতা’ শীর্ষক আলোচনা সভা হয়।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান সভায় সভাপতিত্ব করেন। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ।

উপাচার্য গবেষণা ও উদ্ভাবনে ইন্ডাস্ট্রি-অ্যাকাডেমিয়া সহযোগিতা বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, ‘সরকার, অ্যাকাডেমিয়া, ইন্ডাস্ট্রি ও অ্যালামনাইদের একযোগে কাজ করতে হবে।’

বিশ্বের বিভিন্ন উন্নত দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের উদাহরণ তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘সেসব দেশের অনেক খ্যাতিমান অধ্যাপক শিল্প প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে গবেষণা কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে নোবেল পুরষ্কার লাভ করেছেন।

‘ইন্ডাস্ট্রি-অ্যাকাডেমিয়া সহযোগিতা বৃদ্ধিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাইদের কার্যকর ভূমিকা পালন করতে হবে।’ শিক্ষার্থীদের প্রায়োগিক জ্ঞান বৃদ্ধি ও স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে শিল্প প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নশিপ প্রোগ্রাম চালুর জন্য উপাচার্য শিল্প মালিকদের প্রতি আহ্বান জানান।

মূল প্রবন্ধে পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ বলেন, ‘শিক্ষক-গবেষক এবং শিল্পখাতের যৌথ গবেষণা ও উদ্ভাবনী কার্যক্রম গ্রহণ করা হলে উভয়পক্ষ তথা দেশ উপকৃত হবে। প্রয়োজনীয় দক্ষতাসম্পন্ন লোকবল তৈরি এবং শিল্পখাতে নানা উৎপাদন প্রক্রিয়ার উন্নতি ও সম্প্রসারণের লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন ইতিমধ্যে একটি শিল্পখাত-অ্যাকাডেমিয়া সহযোগিতা প্ল্যাটফর্ম গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে।

তিনি বলেন, ‘এক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনের জন্য বাস্তবতার মূল্যায়ন করে নির্দিষ্ট করণীয়সমূহ চিহ্নিত করা প্রয়োজন। এই ব্যাপারে সরকার বাস্তবতা-ভিত্তিক যথাযথ নীতিমালা ও আইন প্রণয়ন করতে পারে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রবীর কুমার সরকার অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন।

আলোচনা সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপউপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, উপউপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূঁইয়া, সিনেট সদস্য সাদ্দাম হোসেন, অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আনোয়ার-উল আলম চৌধুরী বক্তব্য দেন।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Organizational activities of JOB Chhatra League have been suspended

জবি ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত

জবি ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত মিছিলে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। ছবি: নিউজবাংলা
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের এক জরুরি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জানানো যাচ্ছে যে, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সব সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত করা হলো।’

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ‘সুপার ইউনিট’ খ্যাত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাংগঠনিক কার্যক্রম অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়েছে।

ছাত্রলীগ সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য স্বাক্ষরিত শুক্রবারের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশ দেয়া হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের এক জরুরি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জানানো যাচ্ছে যে, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সব সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত করা হলো।’

আগের কমিটি বিলুপ্তির প্রায় ৩৪ মাস পর চলতি বছরের পয়লা জানুয়ারি এক বছরের জন্য জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের ৩৫ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়।

কী কারণে কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে, সে বিষয়ে কোনো ব্যাখ্যা দেয়া হয়নি বিজ্ঞপ্তিতে, তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ছাত্রলীগের জ্যেষ্ঠ এক নেতা বলেছেন, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ছেলে রিয়াদ আহমেদ তুষারের গাড়িচালককে মারধর করেছেন জবি ছাত্রলীগের কর্মীরা। এর জেরে শাখা ছাত্রলীগের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।

কী হয়েছিল গাড়িচালকের সঙ্গে

রাষ্ট্রপতির ছেলে তুষারের গাড়িচালক নজরুল ইসলাম গত ২৬ জুন বঙ্গভবন থেকে রাষ্ট্রপ্রধানের নাতি ইসা আব্দুল্লাহকে প্রাইভেট পড়তে দিয়ে বঙ্গভবনে ফিরছিলেন। তিনি ওয়ারীর চামু ডেল্টার মোড় থেকে টিপু সুলতান রোডের মাথায় পৌঁছার পর গাড়ির হর্ন দেন। ওই সময় জবি ছাত্রলীগকর্মী কৌশিক সরকার সাম্য মোবাইলে কথা বলতে বলতে রাস্তা পার হচ্ছিলেন।

হর্ন দেয়ার পর সাম্য উত্তেজিত হয়ে গাড়ির দিকে তেড়ে আসেন এবং অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। একপর্যায়ে চালকের মুখে থুতু নিক্ষেপের পর গাড়ির পেছনে জোরে লাথি মারেন তিনি।

এমন আচরণের পর সাম্যের পরিচয় জানার চেষ্টা করলে তিনি উত্তেজিত হয়ে মোবাইল ফোনে অজ্ঞাত চার-পাঁচজনকে ডেকে আনেন। এ সময় সাম্যসহ অন্যরা নজরুলের মুখ ও পিঠে এলোপাতাড়ি আঘাত করেন এবং হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যান।

এ ঘটনায় গাড়িচালক নজরুল ইসলাম রাজধানীর ওয়ারী থানায় মামলা করেন।

মামলায় জবি ছাত্রলীগকর্মী কৌশিক সরকার সাম্যসহ অজ্ঞাত চার-পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে।

অভিযুক্ত সাম্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম আকতার হোসাইনের অনুসারী।

আরও পড়ুন:
জবিতে সাংবাদিকতার বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ
জবি রোভার-ইন-কাউন্সিলের সভাপতি জামিরুল, সাধারণ সম্পাদক আদন
গবেষণার জন্য ‘স্কাইফাইন্ডার’ সাবস্ক্রিপশন পেল জবি
উত্তরপত্রে ‘স্যার, মন ভালো নেই’ লিখে বিপাকে জবি শিক্ষার্থী
জবির ৭ শিক্ষার্থী রিমান্ডে

মন্তব্য

জীবনযাপন
After 7 years new leadership in JOB student group

৬ বছর পর জবি ছাত্রদলে নতুন নেতৃত্ব

৬ বছর পর জবি ছাত্রদলে নতুন নেতৃত্ব জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের নতুন সভাপতি আসাদুজ্জামান আসলাম ও সাধারণ সম্পাদক সুজন মোল্লা। ছবি: নিউজবাংলা
নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের ছাত্রত্বের বিষয়ে ছাত্রদল সভাপতি শ্রাবণ বলেন, ‘তারা দুজনই ইভিনিং মাস্টার্সের ছাত্র। আমাদের কাছে ডকুমেন্টস আছে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সবার সঙ্গে পরামর্শ করেই কমিটি করা হয়েছে।’

প্রায় ছয় বছর পর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিটি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল।

আসাদুজ্জামান আসলামকে সভাপতি ও সুজন মোল্লাকে সাধারণ সম্পাদক করে বৃহস্পতিবার রাতে পাঁচ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করা হয়। তারা দুজন ২০০৪-০৫ শিক্ষাবর্ষের গণিত ও অর্থনীতি বিভাগের ছাত্র।

ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ ও সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে কমিটির বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

নতুন কমিটির বাকি তিন সদস্য হলেন সিনিয়র সহসভাপতি ইব্রাহিম কবির মিঠু, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান হিমেল এবং সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুল আরেফিন।

এক বছরের জন্য এই কমিটি করা হয়েছে এবং আগামী ১৫ দিনের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেয়ারও নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সংসদ।

নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের ছাত্রত্বের বিষয়ে ছাত্রদল সভাপতি শ্রাবণ বলেন, ‘তারা দুজনই ইভিনিং মাস্টার্সের ছাত্র। আমাদের কাছে ডকুমেন্টস আছে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সবার সঙ্গে পরামর্শ করেই কমিটি করা হয়েছে।

‘কারা বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকতে চায় আর কারা কেন্দ্রে থাকতে চায় তাদের সবার কাছ থেকে সিভি আহ্বান করা হয়েছিল। সবার মতামতের ভিত্তিতেই কমিটি করা। ত্যাগ, পরিশ্রম, নেতৃত্বের ক্যাপাসিটি দেখে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।’

শ্রাবণ আরও বলেন, ‘প্রায় ১৬-১৮ বছর ধরে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয় না। আমাদের তিনজন নেতা-কর্মী গুম হয়েছে। শত শত নেতা-কর্মী নির্যাতিত হয়েছে, মৃত্যুবরণ করেছে। এখনও হাবীব নামের একজন চিকিৎসাধীন।

‘এত বড় সংগঠন। কিছু লোক তো অখুশি হবেই। আমাদের প্রতিটি সেশনে চার থেকে পাঁচজন যোগ্য লোক থাকে কিন্তু প্রেসিডেন্ট-সেক্রেটারি তো হবে দুজন। এই সেশনে আরও দুজন কোয়ালিফাইড ছিলেন। তারা বন্ধুদের আন্ডারে থাকতে চায় না, কেন্দ্রে চলে আসতে চায়। সে জন্য আমরা লিস্ট থেকে তাদের দুজনকে বাদ দিয়েছি।’

‘ছাত্রদলের নেতৃত্বে যোগ্যরাই আসে, যোগ্যরাই বাদ যায়’, বলেন শ্রাবণ।

এ বিষয়ে আসলাম জানান, তিনি ইংরেজি লিটারেচার বিভাগের প্রফেশনাল কোর্সে অধ্যয়নরত।

সুজন জানান, ২০১৭ সালে তিনি ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে ইভিনিং কোর্সে ভর্তি হন। এরপর ইভিনিং কোর্স বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পরীক্ষাও স্থগিত হয়ে যায়। পরে বিভিন্ন বিভাগে ইভিনিংয়ের পরিবর্তে প্রফেশনাল কোর্স চালু হলেও এই বিভাগে এখনও ক্লাস, পরীক্ষা শুরু হয়নি।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদলের সর্বশেষ কমিটি ঘোষণা করা হয় ২০১৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি। গত কমিটির সভাপতি ছিলেন রফিকুল ইসলাম রফিক ও সাধারণ সম্পাদক আসিফ রহমান বিপ্লব।

২০২১ সালের ১৫ অক্টোবর এই কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়।

আরও পড়ুন:
শিক্ষার্থীদের ৫০ লাখ টাকা বৃত্তি দিল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়
জবিতে খাবারের দাম কমানো ও অঙ্কনের মৃত্যু রহস্য উদ্ঘাটনের দাবি
আঞ্চলিক সিন্ডিকেটে আটকা জবি ছাত্রদলের কমিটি
ডিএসসিসির খোঁড়াখুঁড়িতে ভাঙল জবির প্রাচীর, সংস্কারে নেই উদ্যোগ
‘ক্ষমা না চেয়েই’ পরীক্ষার্থীদের ফুল দিতে ঢাবিতে ছাত্রদল

মন্তব্য

জীবনযাপন
Why is Dhaka University at the bottom of the world list?

বিশ্ব তালিকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তলানিতে কেন?

বিশ্ব তালিকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তলানিতে কেন? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লোগো ও কার্জন হল। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
যেসব সূচকের ওপর ভিত্তি করে র‌্যাংকিং করা হয়, সেগুলোতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান তলানিতে। শিক্ষাবিদদের মতে, গবেষণা ক্ষেত্রে সবচেয়ে পিছিয়ে আছে এ বিশ্ববিদ্যালয়। এখানকার গবেষণার মান নিচের দিকে। এ ছাড়া শিক্ষক অনুপাতে শিক্ষার্থী অনেক বেশি।

শতবর্ষ পুরোনো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ ভূখণ্ডের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় এবং এখনও এটি উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে দেশের শিক্ষার্থীদের কাছে সবচেয়ে আকর্ষণীয় বিদ্যাপীঠ। অথচ বিশ্বজুড়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মানের তালিকায় এ বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান অত্যন্ত করুণ। কোনোটিতে একেবারে তলানিতে; কোনো তালিকায় স্থানই নেই।

বিশ্বজুড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের মান নিয়ে প্রতি বছর র‌্যাংকিং প্রকাশ করে বেশ কয়েকটি সংস্থা। এর মধ্যে সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য হিসেবে ধরা হয় যুক্তরাজ্যভিত্তিক শিক্ষা ও গবেষণা সংস্থা কোয়াকোয়ারেলি সায়মন্ডসের (কিউএস) র‌্যাংকিংকে। গত পাঁচ বছরের মতো এবারও এ তালিকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান একেবারে পেছনের সারিতে; ৮০১ থেকে হাজারের ঘরে।

র‌্যাংকিংয়ের শুরু যেভাবে

বিশ্ববিদ্যালয়ের র‌্যাংকিংয়ের ধারণাটি ২০০৩ সালে প্রথম প্রকাশ করেন যুক্তরাজ্যের সিআইবি নেতা রিচার্ড ল্যাম্বার্ট। তিনি ‘দ্য ল্যাম্বার্ট রিভিউ অফ বিজনেস ইউনিভার্সিটি কোলাবোরেশন’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে এ ধারণাটি প্রথম উপস্থাপন করেন। এরপর থেকে বেশ কয়েকটি সংস্থা বিশ্ববিদ্যালয়ের র‌্যাংকিং প্রকাশ শুরু করে। এগুলোর মধ্যে যুক্তরাজ্যের টাইমস হায়ার এডুকেশন (টিএইচই), কিউএস এবং চীন থেকে প্রকাশিত অ্যাকাডেমিক র‌্যাংকিং অফ ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটিজ অন্যতম।

২০০৪ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত টিএইচই এবং কিউএস একত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের র‌্যাংকিং প্রকাশ করে, তবে ২০১০ সাল থেকে কিউএস এবং টিএইচই আলাদাভাবে র‌্যাংকিং প্রকাশ করছে।

সর্বশেষ প্রতিবেদনে যা আছে

কিউএস গত ৮ জুন সর্বশেষ র‌্যাংকিং প্রকাশ করে। ‘কিউএস ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং ২০২৩’ শীর্ষক প্রতিবেদনে ১৪ শতাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা প্রকাশ করা হয়।

সেই তালিকায় বিশ্বসেরা ৫০০ বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় স্থান নেই বাংলাদেশের কোনো উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের। এই র‍্যাংকিংয়ে সেরা পাঁচ শর নিচে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সুনির্দিষ্ট অবস্থান প্রকাশ করা হয় না। ফলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান সুনির্দিষ্টভাবে কত নম্বরে, তা উল্লেখ করেনি কিউএস।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান ৮০১ থেকে হাজারের ঘরে ফেলা হয়েছে। এর অর্থ হচ্ছে র‍্যাংকিংয়ের সেরা ১ হাজারের শেষ ২০০তে অবস্থান করছে এ বিশ্ববিদ্যালয়।

এর আগে কিউএসের ২০১৯, ২০২০ ও ২০২১ সালের র‍্যাংকিংয়েও ঢাবির অবস্থান ছিল ৮০১ থেকে হাজারের মধ্যে। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ থেকে শুধু ঢাবি (৭০১-৭৫০তম) এই র‍্যাংকিংয়ে স্থান পায়।

যেভাবে র‌্যাংকিং করা হয়

কিউএস বিশ্ববিদ্যালয়ের র‍্যাংকিং নির্ণয়ে ছয়টি সূচকের মাধ্যমে সামগ্রিক মান নিরূপণ করে থাকে। এসব সূচক হলো শিক্ষক/গবেষকদের খ্যাতি বা অ্যাকাডেমিক খ্যাতি, নিয়োগকর্তা/নিয়োগের খ্যাতি বা চাকরির বাজারে সুনাম, শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত, শিক্ষকপ্রতি গবেষণা উদ্ধৃতি সংখ্যা, আন্তর্জাতিক শিক্ষক অনুপাত এবং আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী অনুপাত।

ঢাবি তলানিতে কেন

যেসব সূচকের ওপর ভিত্তি করে র‌্যাংকিং করা হয় সেগুলোতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান তলানিতে বলে মনে করেন শিক্ষাবিদরা। তাদের মতে, গবেষণা ক্ষেত্রে সবচেয়ে পিছিয়ে আছে এ বিশ্ববিদ্যালয়। এখানকার গবেষণার মান নিচের দিকে। এ ছাড়া শিক্ষক অনুপাতে শিক্ষার্থী অনেক বেশি। এ কারণেই র‌্যাংকিংয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এ দশা।

জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান মামুন বলেন, ‘র‌্যাংকিংয়ে যেসব বিষয় দেখা হয়, যেমন: বিশ্ববিদ্যালয়ের বাজেট, শিক্ষক নিয়োগ পদ্ধতি, শিক্ষকের মান, গবেষণায় বরাদ্দ, ছাত্ররা কেমন পরিবেশে থাকে, ইত্যাদি বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান কোথায়? যে অবস্থানে আমরা আছি তা-ই তো মিরাকল।’

র‌্যাংকিংয়ে যাওয়ার জন্য যে মানদণ্ডগুলো পূরণ করা দরকার, তার সামর্থ্য ও যোগ্যতা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নেই বলে মনে করেন এই অধ্যাপক।

গবেষণায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পিছিয়ে থাকার কারণ উল্লেখ করে এ অধ্যাপক বলেন, ‘বাজেটে গবেষণায় বরাদ্দ বাড়াতে হবে, তবে এটাও ঠিক, শুধু বাজেট বাড়ালেই এ অবস্থার পরিবর্তন হবে না। কারণ গবেষণা করার মতো শিক্ষক আগে নিয়োগ দিতে হবে। এটাই তো এখানে হচ্ছে না।

‘একজন শিক্ষক যদি তিন-চার জায়গায় পার্ট টাইম ক্লাস নেন, তাহলে গবেষণা করবেন কীভাবে? অন্য সমস্যাগুলো সমাধান করা সহজ, কিন্তু মানসম্মত গবেষণা চাইলেই সম্ভব না।’

একই ধরনের মত দিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক এম ওহিদুজ্জামান।

তিনি বলেন, ‘র‌্যাংকিংয়ের জন্য যে সূচকগুলো আছে, তার মধ্যে একটা হলো শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অনুপাত। আমাদের শিক্ষক-ছাত্রের অনুপাত বেশি। আমাদের অনেক বিভাগে ১৫০ থেকে ২০০ জন শিক্ষার্থী আছে। এখানে তো লেখাপড়া সম্ভব না। শিক্ষার্থী থাকবে ৫০ জন। এটি স্ট্যান্ডার্ড, কিন্তু আমরা সেটি করতে পারছি না বা করি না।’

গবেষণা কম হওয়াও র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে যাওয়ার কারণ বলে মনে করেন ওহিদুজ্জামান। তিনি বলেন, ‘আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা কম হচ্ছে, এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই। এ ছাড়া ডিজিটাল ইনডেক্স থাকা, প্রকাশনাগুলোকে ডিজিটালাইজড করার দিকেও আমাদের নজর দিতে হবে। অর্থাৎ আমরা যে কাজগুলো করছি, সেগুলোকে সিস্টেমে আনা যেন সেগুলো সবাই দেখতে পারে আর সাইটেশন করতে পারে।’

জার্নালের মান এবং ডিগ্রির মান বৃদ্ধি করা উচিত বলেও মনে করেন এ অধ্যাপক। তিনি বলেন, ‘ডিগ্রির মান নির্ণয়ের জন্য একটা নীতিমালা প্রয়োজন। কিশোরগঞ্জ বা মানিকগঞ্জের সংস্কৃতির ইতিহাস নিয়ে যদি পিএইচডি হয়, তাহলে এর থেকে আপনি কী পাবেন? প্রবন্ধ লেখা আর পিএইচডি ডিগ্রি থিসিস পেপার তো এক না। এগুলোই আমাদের বড় সমস্যা। এ জন্যই আমরা বারবার র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে পড়ছি।’

তিনি আরও বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যদি বলা হয় প্রমোশনের জন্য ১৮টা ডিগ্রি লাগবে, তাহলে একজন বছরে ১৬টা করবে। যে নোবেল পুরস্কার পায়, সে তো একটার ওপর গবেষণা করে নোবেল পায়। আমাদের ডিগ্রিগুলো এখন ‘ডিগ্রি ফর প্রমোশন’ হয়ে গেছে। ডিগ্রি ফর প্রমোশন যদি আমরা দিই, তাহলে সেই মানের গবেষণা হবে না। এগুলোর দিকে নজর দেয়া দরকার।”

মানসম্মত গবেষণা না হওয়ার পেছনে ব্যবস্থাকে দায়ী করে তিনি বলেন, ‘পদোন্নতি পেতে কোনো কোনো পদে পাঁচটি গবেষণা থাকতে হয়, কিন্তু ভালো জার্নালে মানসম্মত নিবন্ধ প্রকাশ করতে সময় প্রয়োজন। তাই এ ক্ষেত্রে শিক্ষকরা অনেক সময় তাড়াহুড়ো করে। এসব ক্ষেত্রে ছাড় দিতে হবে। না হলে কখনোই আপনি মানসম্মত গবেষণা পাবেন না।’

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক নজরুল ইসলাম মনে করেন, বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ে যেসব ক্রাইটেরিয়া পূরণ করতে হয়, তা থেকে অনেক পিছিয়ে আছে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো।

তিনি বলেন, ‘মোট ছয়টি সূচকের ওপর ভিত্তি করে র‌্যাংকিং করা হয়। এই সূচকগুলোতে আমরা অনেক পিছিয়ে আছি। উদাহরণ হিসেবে বলা হয়, অ্যাকাডেমিক খ্যাতি, গবেষণা ও আন্তর্জাতিক শিক্ষক অনুপাতে এগুলোয় আমরা অনেক পিছিয়ে আছি।’

বিশ্ববিদ্যালয়ে মানসম্মত গবেষণা হচ্ছে না বলে মনে করেন নজরুল। তিনি বলেন, ‘আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় মানসম্মত গবেষণা হচ্ছে না। এর জন্য বাজেট, বিশ্ববিদ্যালয় পরিবেশ, নিজের আগ্রহের মতো বিষয়গুলো জড়িত।’

কর্তৃপক্ষ যা বলছে

র‌্যাংকিংয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান এত নিচে কেন জানতে চাইলে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো আখতারুজ্জামান বলেন, ‘কারা কী র‌্যাংকিং করল, এগুলো এখন একেবারেই দেখি না। কারণ র‌্যাংকিংয়ের জন্য কতগুলো মৌলিক প্যারামিটার আছে, সেই প্যারামিটারগুলো অ্যাড্রেস করার আগে র‌্যাংকিং বিষয়টা ভাবা উচিত নয়। এগুলোর উন্নয়ন না ঘটিয়ে র‌্যাংকিংয়ের বিষয়ে আমরা অ্যাটেনশন দেব না।’

আরও পড়ুন:
ঢাবি শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে হলছাড়া করার অভিযোগ
‘বাংলাদেশ জিন্দাবাদ’ স্লোগান দেয়া নিয়ে ঢাবি সিনেটে হট্টগোল
ঢাবির ৯২২ কোটি টাকার বাজেট পাস
মহানবীকে কটূক্তির প্রতিবাদে ঢাবিতে ‘নাত’ পাঠ
ঢাবিতে নারী হেনস্তার বিচার চায় ছাত্র ইউনিয়ন

মন্তব্য

জীবনযাপন
Attempt to embezzle student development fees DU officer demoted

শিক্ষার্থীদের উন্নয়ন ফি আত্মসাতের চেষ্টা: ঢাবি কর্মকর্তার পদাবনতি

শিক্ষার্থীদের উন্নয়ন ফি আত্মসাতের চেষ্টা: ঢাবি কর্মকর্তার পদাবনতি
সাধারণত প্রতি সেমিস্টারে ভর্তির সময় শিক্ষার্থীরা বিভাগের উন্নয়ন ফি নামে একটা ফি দেয়। এই কর্মকর্তা সেই টাকা (২ লাখ ১৫ হাজার টাকা) বিভাগের ব্যাংকে জমা না দিয়ে নিজের কাছে রেখে দেন।

প্রতি সেমিস্টারে শিক্ষার্থীদের দেয়া উন্নয়ন ফির টাকা বিভাগের অ্যাকাউন্টে জমা না দিয়ে নিজের কাছে রেখে দেয়ার ঘটনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ইংরেজি বিভাগের এক কর্মকর্তাকে পদাবনতি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট।

সভায় উপস্থিত সিন্ডিকেট সদস্য অনুজীব বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. মিজানুর রহমান নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে বুধবার রাতে সিন্ডিকেট সভা হয়। উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান সভার সভাপতিত্ব করেন।

পদাবনতি পাওয়া কর্মকর্তার নাম মাহবুব আলম। তিনি ইংরেজি বিভাগের প্রধান সহকারী। এখন থেকে তিনি সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিকের দায়িত্ব পালন করবেন।

অধ্যাপক ড. মো. মিজানুর রহমান জানান, সাধারণত প্রতি সেমিস্টারে ভর্তির সময় শিক্ষার্থীরা বিভাগের উন্নয়ন ফি নামে একটা ফি দেয়। এই কর্মকর্তা সেই টাকা (২ লাখ ১৫ হাজার টাকা) বিভাগের ব্যাংকে জমা না দিয়ে নিজের কাছে রেখে দেন।

দীর্ঘদিন পর বিষয়টি জানাজানি হলে বিভাগ তদন্ত শুরু করে। এরপর তিনি সেই টাকা ব্যাংকে জমা দিয়ে চিঠি দিয়ে বিভাগের কাছে ক্ষমা চেয়েছে। নজরে না এলে হয়তো তিনি নিজের কাছে রেখে দিতেন।

অধ্যাপক মিজান বলেন, ‘যেহেতু এটা একটা ফাইন্যান্সিয়াল অফেন্স, তাই বিভাগ এটি সিন্ডিকেটের নজরে এনেছে। আর সিন্ডিকেট তাকে শাস্তি দিয়েছে।’

জানা যায়, এই শাস্তি ছাড়াও সিন্ডিকেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সমাপনী অনুষ্ঠানের জন্য প্রণয়ন করা নয়টি নীতিমালা পাস করেছে।

এর আগে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে র‌্যাগ ডে অনুষ্ঠানকে নিষিদ্ধ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল। পরে এই সংক্রান্ত নীতিমালা প্রণয়নের জন্য উপউপাচার্যকে (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি নয়টি নীতিমালা প্রণয়ন করেন। আজ সিন্ডিকেট সভায় সেসব নীতিমালা উপস্থাপন করা হলে সিন্ডিকেট এসব নীতিমালা পাস করেন।

এ বিষয়ে অন্য এক সিন্ডিকেট সদস্য মৃত্তিকা পানি ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. হারুনর রশীদ বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা র‌্যাগ ডে নামে যে অনুষ্ঠান উদযাপন করে এটির নাম এখন থেকে শিক্ষা সমাপনী অনুষ্ঠান। এই অনুষ্ঠান এখন থেকে কিছু নীতিমালার মধ্যে থেকে করতে হবে। নীতিমালাগুলো হলো, ক্লাস চলাকালে উচ্চস্বরে বাদ্য-বাজনা পরিহার করতে হবে অর্থাৎ কাউকে ডিস্ট্রার্ব করা যাবে না।’

সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় চেয়ারম্যান/ইনস্টিটিউটের পরিচালক ও ছাত্র উপদেষ্টা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সভা করে অনুষ্ঠানসূচি চূড়ান্ত করা, স্ব-স্ব বিভাগ/ইনস্টিটিউটের ভবন চত্বরে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান করা; ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) সমবেত হয়ে পথচারীদের চলাচল স্বাভাবিক রাখা, বিভাগের/ইনস্টিটিউটের সংশ্লিষ্টতায় দুপুরে অথবা রাতে আপ্যায়নের ব্যবস্থা করা, উৎসবের দিন রাত ১০টার মধ্যে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষ করা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয় এমন কাজ থেকে বিরত থাকা এসবও নীতিমালার আওতাধীন।

আরও পড়ুন:
স্বল্পমূল্যে ইট বিক্রির নামে ৪ কোটি টাকা ‘আত্মসাৎ’
২৯৫ ভুয়া প্রকল্পে সোয়া ২ কোটি টাকা আত্মসাৎ, দুদকের মামলা
ডাক বিভাগের ২৬ লাখ টাকা আত্মসাতে ৩ কর্মকর্তার কারাদণ্ড
ফার্স্টলিড সিকিউরিটিজ থেকে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ
চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের সাবেক পরিচালকের ৪ বছর কারাদণ্ড

মন্তব্য

p
উপরে