× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

জীবনযাপন
Lack of understanding is increasing in loose family life
hear-news
player
print-icon
আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস

শিথিল সংসারজীবনে বাড়ছে বোঝাপড়ার অভাব

শিথিল-সংসারজীবনে-বাড়ছে-বোঝাপড়ার-অভাব
স্বামী-স্ত্রীর বোঝাপড়ার অভাবে অনেক সংসারে ভালোবাসার বন্ধন শিথিল হচ্ছে।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালের তুলনায় ২০১৯ সালে বিয়েবিচ্ছেদ বেড়েছে ১৭ শতাংশ। ২০২০ সালে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটিতে ১২ হাজার ৫১৩টি ডিভোর্সের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ৮ হাজার ৪৮১টি আবেদন করেছিলেন নারী, বাকি ৪ হাজার ৩২টি বিচ্ছেদ চেয়েছিলেন পুরুষ।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে যে প্রেমের শুরু, তার বয়স দশক পেরিয়ে গেলেও সম্পর্কের উষ্ণতা মরেনি। এরপর আনুষ্ঠানিকভাবে সংসারজীবনে প্রবেশ। সেই শুরুটাও ছিল দারুণ। তবে ধীরে ধীরে আসে ভাটার টান। সংসারের নানা খুঁটিনাটি নিয়ে শুরু হয় টানাপড়েন। ভুল-বোঝাবুঝি শুরু হলে, বাড়তে থাকে মানসিক দূরত্ব।

এভাবেই ১১ বছর ধরে বিবর্ণ সংসার টেনে নিয়ে যাচ্ছেন ফজল-মিশু দম্পতি (ছদ্মনাম)। সংসারজীবনে সন্তানহীনতা আরও জটিল করেছে পরিস্থিতি। এক পর্যায়ে জীবিকার প্রয়োজনকে সামনে এনে দুজনের ঠিকানা হয় দুটি আলাদা জেলায়। দূরত্ব প্রায় সাড়ে ৩০০ কিলোমিটার।

এখন লোক দেখানো কাগুজে সম্পর্কই শুধু টিকে আছে। তবে সামাজিক বাস্তবতা মেনে এ নিয়ে প্রকাশ্যে কথাও তুলতে চান না তারা।

মিশু নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এসব নিয়ে কীভাবে কথা বলি? বলতে পারি না বলেই তো সংসার টিকে আছে এখনও।’

দুজন মানুষের মতের অমিল হলে বা বনিবনা না হলে বিয়েবিচ্ছেদের সুযোগ আছে। এ প্রসঙ্গে মিশু বলেন, ‘বাবা-মা, সমাজ সবকিছু মিলিয়ে বের হতে চাইলেও পারছি না। মাঝে মাঝে কষ্ট হয়। প্রচণ্ড ভেঙে পড়ি। আবার মানিয়ে নিই। এভাবেই চলছে।’

রিয়ার (ছদ্মনাম) গল্পটা ভিন্ন। ভালোবেসে এক প্রকৌশলীকে বিয়ে করেছিলেন তিনি। ভ্রমণপ্রিয় বরের সঙ্গে সুন্দর সময় কাটছিল। তবে বিয়ের বছর না পেরোতেই রিয়া আবিষ্কার করেন তার বর যৌনতায় আগ্রহ হারাচ্ছেন। শারীরিক দূরত্ব ধাপে ধাপে বাড়াতে থাকে মানসিক দূরত্ব।

এর মধ্যেই রিয়া জড়ান নতুন সম্পর্কে। সেই সম্পর্ক তাকে কিছুটা হলেও ছন্দে ফেরায়। এর মধ্যেই আবিষ্কার করেন তার বরও ফিরতে শুরু করেছেন পুরোনো রূপে।

বাইরের অধ্যায়টি বন্ধ করে আবারও সংসারে পূর্ণ মনোনিবেশ করেন রিয়া। সবকিছুই ছিল প্রাণবন্ত। রিয়া টের পেলেন, মা হতে যাচ্ছেন তিনি। তবে সন্তান পৃথিবীতে আসার পর আকস্মিকভাবে ডিভোর্সের খবর পেলেন তিনি। আকাশ ভেঙে পড়ে রিয়ার মাথায়।

ফিরে গেলেন বাবার বাড়িতে। সেখানে থেকে ‘সিঙ্গেল মাদার’ হিসেবে সন্তানকে বড় করার লড়াই করছেন রিয়া। এখন অবশ্য ঘুরে দাঁড়িয়েছেন। একটি প্রতিষ্ঠানে ভালো চাকরি করছেন। নিজেকে আর বাবা-মার বোঝা বলেও মনে হচ্ছে না তার।

সম্পর্কের টানাপড়েন শুরুর কারণ হিসেবে রিয়া বলেন, ‘প্রেমের সময় দুজন মানুষ নিজের সর্বোচ্চ ভালো দিকটা একে অন্যের সামনে আনে। তবে কাছাকাছি থাকতে গেলে একে অপরের বাজে অভ্যাসগুলো বেরিয়ে আসে। ফলে তৈরি হয় পারস্পরিক অনীহা। সেগুলো ধীরে ধীরে বড় হতে থাকে। যোগ হতে থাকে আরও নানা কিছু।’

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালের তুলনায় ২০১৯ সালে বিয়েবিচ্ছেদ বেড়েছে ১৭ শতাংশ।

২০২০ সালে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটিতে ১২ হাজার ৫১৩টি ডিভোর্সের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ৮ হাজার ৪৮১টি আবেদন করেছিলেন নারী, বাকি ৪ হাজার ৩২টি বিচ্ছেদ চেয়েছিলেন পুরুষ।

এসব আবেদনে পুরুষরা কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন স্ত্রীর সন্দেহপ্রবণতা, সংসারের প্রতি উদাসীনতা, বদমেজাজ, সন্তান না হওয়ার মতো কারণ। বিপরীতে নারীরা দেখিয়েছেন বিয়েবহির্ভূত প্রেম, যৌতুকের জন্য নির্যাতন, মাদকাসক্তির মতো বিষয়গুলোকে।

পরিবার ভেঙে পড়ার পেছনে অনেকগুলো কারণ রয়েছে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মাহফুজা খানম।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘অন্যতম কারণ গ্লোবালাইজেশন। এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে বাইরের সংস্কৃতি আমাদের মধ্যে অনেকখানি ঢুকে পড়েছে। এটার সঙ্গে এখন আমরা সবাই কমবেশি পরিচিত। এটার একটা এফেক্ট তো সমাজে পড়েছেই।’

বর্তমান সময়ে নারীদের মধ্যে আত্মনির্ভরশীলতা বেড়ে গেছে বলেও জানান এই অধ্যাপক। তিনি বলেন, ‘আগে বেশির ভাগ মেয়েই স্বামীর ওপর নির্ভরশীল থাকতেন, বিশেষ করে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে। ফলে তারা অনেক কিছু মুখ বুজে সহ্য করতেন। এখন যেহেতু তারা সেলফ ডিপেনডেন্ট হয়ে গেছেন, তাই সবকিছু সেভাবে আর সহ্য করছেন না। অর্থাৎ সামাজিক যে ভ্যালুজের মধ্যে আমরা বড় হয়েছি, তার একটা পরির্বতন দেখা যাচ্ছে।’

পরিবারগুলো সহজেই ভেঙে যাওয়ার আর একটি কারণ হিসেবে নারী-পুরুষ দুজনেরই সহনশীলতার মাত্রা কমে যাওয়াকে দায়ী করেছেন তিনি।

মাহফুজা খানম বলেন, ‘টলারেন্স লেভেল কমে যাওয়ার কারণে একটুতেই কোনো কিছু মানতে না পারার প্রবণতা বেড়ে গেছে। অ্যাডজাস্টমেন্ট পাওয়ার এখন আমরা সেভাবে ব্যবহার করছি না।’

বাংলাদেশের সমাজব্যবস্থা এখনও পুরুষশাসিত বলেও মনে করেন তিনি। বলেন, ‘এর মধ্য দিয়েই আমাদের ছেলেরা বড় হয়েছে বা হচ্ছে। কিন্তু মেয়েদের রোলেও যে একটা পরির্বতন এসেছে তা আমরা (ছেলেরা) মানতে পারছি না বা মেনে নিচ্ছি না।

‘আর এখনকার সমাজব্যবস্থায় পরিবারগুলো ক্রমেই ছোট হয়ে গেছে। এতে বাবা-মা, ছেলে ও মেয়ে উভয়কেই ইক্যুয়াল ট্রিটমেন্ট দিচ্ছে। এতে পরিবার থেকে সে সমান সুযোগ-সুবিধা পেয়ে তারা বড় হচ্ছে। কিন্তু বৈবাহিক জীবনে এসে সে যখন বিপরীত একটা পরিস্থিতির মুখোমুখি হচ্ছে, আর তখনই বিপত্তি ঘটছে।’

মুক্তবাজার অর্থনীতি বা পুঁজিবাদকে পরিবার ভাঙনের অন্যতম কারণ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এম আনোয়ার হোসেন।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘একটা সংসারে নানা কিছুর প্রয়োজন হয়। বিশেষত ভোগবাদী পণ্য। এ পণ্য যতটা দরকার, সে অনুযায়ী মানুষের আয় বাড়েনি। টানাপড়েনের এইটা একটা বড় কারণ। ওয়েস্টার্ন মিডিয়া আসার পর মানুষের ভোগবাদী চিন্তাভাবনা বেড়েছে। ফলে আকাশ পর্যন্ত মানুষের প্রত্যাশা বেড়েছে। ফলে চাহিদা পূরণ না হলে টানাপড়েন শুরু হয়।’

স্বামী-স্ত্রীর ভেতরে সাংস্কৃতিক দূরত্বও সংসারজীবনে জটিলতা তৈরি করে বলে মনে করেন এই অধ্যাপক।

তিনি বলেন, ‘রান্নাবান্না করা, বাচ্চাদের লালনপালন, ঘরের প্রবীণ সদস্যদের দেখাশোনা, কাপড়চোপড় পরিষ্কার এগুলো পরিবার বা সংসারের বেসিক দায়িত্ব। যা পরিবারে অনেক ধরনের বিশৃঙ্খলা তৈরি করে।’

যখন সংসারে নারী-পুরুষ দুজনেই কর্মজীবী হন, সে ক্ষেত্রে এসব ছোটখাটো বিষয়গুলো সমন্বয় নিয়েও নানা টানাপড়েন তৈরি হয় বলে মনে করেন এই অধ্যাপক।

সমস্যা সমাধানে করণীয় সম্পর্কে মনোবিজ্ঞানী মাহফুজা খানম বলেন, ‘সবকিছুর পেছনে পরিবারের একটা বড় ভূমিকা থাকে। পারিবারিক বন্ধন যে গুরুত্বপূর্ণ এ বোধ সবার মধ্যে ফিরিয়ে আনতে হবে। ছেলেমেয়ে উভয়কেই পরিবারকেন্দ্রিক বন্ধনের গুরুত্বের বিষয়ে শিক্ষা দিতে হবে।’

সহনশীলতার মাত্রা বাড়ানোর ওপরও জোর দিলেন এই শিক্ষক। তিনি বলেন, ‘ছেলেদের মধ্যে ডমিনেটিং সেন্স যেটা কাজ করে, সেটা কমিয়ে ইক্যুয়াল রিলেশেনশিপে আসার চেষ্টা করতে হবে। পরিবারে ছোটবেলা থেকে এ ধরনের শিক্ষা দিতে হবে।

‘এখনকার রিলেশনশিপের ডেপথনেস খুবই কম দেখা যাচ্ছে। এ ধরনের সমস্যা মোকাবিলায় দুজনকেই ধৈর্য ধারণ করতে হবে। হঠাৎ করেই কোনো সম্পর্কে আন্ডারস্ট্যান্ডিং তৈরি হয় না। এ জন্য প্রয়োজন উভয়কে পর্যাপ্ত সময় দেয়া। এ বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে।’

সমাজে বড় ধরনের পরিবর্তন এলেও সেই পরিবর্তনের সঙ্গে যেসব সুযোগ সুবিধাগুলো তৈরি হওয়ার কথা ছিল, সেগুলো গড়ে ওঠেনি বলেও মন্তব্য করেন অধ্যাপক এম আনোয়ার হোসেন।

তিনি বলেন, ‘গ্রামের সঙ্গে শহরের চিন্তাচেতনার পার্থক্য দূর করা সম্ভব হয়নি। বিষয়গুলো বৈষয়িক, গ্লোবালাইজ ফর্মের প্রবলেম বা ইস্যুজ। যেগুলো খুব সহজে সমাধান সম্ভব না। বাংলাদেশে ডে-কেয়ার ডেভেলপ করা, প্রবীণ নিবাস তৈরি করা, সঙ্গে সঙ্গে মানুষের আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের যে সামঞ্জস্য সেগুলোকে সমন্বয় করতে হবে। এগুলো করতে পারলে ভাঙন অনেকটা কমে আসবে।’

আরও পড়ুন:
বিয়ের দাবিতে অবস্থান, তরুণীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আদালতের নির্দেশ
বিয়েতে অস্বীকৃতি, তরুণীর বাড়িতে দেয়া আগুনে ৭ মৃত্যু
মামাকে আটকে ভাগ্নেকে আলটিমেটাম সেই তরুণীর
স্বামীর সঙ্গে অভিমান, থানায় বিষপান
বিয়ের দাবিতে জামালপুরের তরুণী বরগুনায়

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
No toll from July 1 at Postagola Bridge

পয়লা জুলাই থেকে টোল নয় পোস্তগোলা ব্রিজে

পয়লা জুলাই থেকে টোল নয় পোস্তগোলা ব্রিজে বুড়িগঙ্গা নদীর ওপর নির্মিত পোস্তগোলা ব্রিজ। ছবি: সংগৃহীত
ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী মাঈনুল হাসান জানিয়েছেন, টেন্ডারের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরও পোস্তগোলা ব্রিজ থেকে টোল আদায় করা হচ্ছিল। এ কারণে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে টোল আদায় বন্ধে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়।

বুড়িগঙ্গা নদীর ওপর নির্মিত পোস্তগোলা ব্রিজে আগামী ১ জুলাই থেকে টোল নেয়া হবে না বলে হাইকোর্টকে জানিয়েছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে টোল দিতে হবে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়েতে।

প্রতিবেদনের বিষয়টি উল্লেখ করে বুধবার ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী মাঈনুল হাসান জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চে এটি উপস্থাপন করা হবে।

তিনি বলেন, টেন্ডারের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরও পোস্তগোলা ব্রিজ থেকে টোল আদায় করা হচ্ছিল। এ কারণে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে টোল আদায় বন্ধে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে সড়ক ও জনপথ বিভাগ জানিয়েছে, ১ জুলাই থেকে পোস্তগোলা ব্রিজের জন্য আলাদা করে টোল দিতে হবে না। শুধু এক্সপ্রেসওয়ে ব্যবহারের জন্য টোল দিতে হবে।

আরও পড়ুন:
উচ্চ আদালতের আদেশ না মানায় বিচারককে ভর্ৎসনা
ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানার টাকা জমা হচ্ছে কি না খতিয়ে দেখার নির্দেশ
বিয়ে ঠেকাতে হাইকোর্টে ‘ব্রিটিশ কিশোরী’
সদরঘাটে পা হারানো কবিরকে কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে রুল
জুরাইন হামলায় রিমান্ডের আদেশ কেন বেআইনি নয়: হাইকোর্ট

মন্তব্য

জীবনযাপন
Conditions are being relaxed to get corporate tax benefits

করপোরেট করের সুবিধা পেতে শর্ত শিথিল হচ্ছে

করপোরেট করের সুবিধা পেতে শর্ত শিথিল হচ্ছে জাতীয় সংসদে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ছবি: সংসদ টিভি
বুধবার অর্থমন্ত্রী সংসদে বাজেট বিষয়ে সংশোধনী প্রস্তাব উপস্থাপন করবেন। যেসব সংশোধনী আনা হচ্ছে, সেগুলো মূলত আয়কর, মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট এবং আমদানি শুল্কসংক্রান্ত। পাচার করা অর্থ ফেরত আনার সুযোগ প্রত্যাহার করা হচ্ছে না।

বিদেশ থেকে পাচারের টাকা ফেরত আনা ও করপোরেট কর হ্রাসের সুবিধা পেতে শর্ত শিথিলসহ কিছু সংশোধনী এনে প্রস্তাবিত অর্থবিল পাস হচ্ছে।

বুধবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জাতীয় সংসদে বাজেট বিষয়ে এসব সংশোধনী প্রস্তাব উপস্থাপন করবেন এবং পরে তা কণ্ঠভোটে পাস হবে। সংসদ নেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২২-২৩ প্রস্তাবিত অর্থবছরের বাজেটের ওপর সমাপনী বক্তব্য রাখবেন।

যেসব সংশোধনী আনা হচ্ছে, সেগুলো মূলত আয়কর, মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট এবং আমদানি শুল্কসংক্রান্ত। গত ৯ জুন নতুন অর্থবছরের জন্য যে বাজেট ঘোষণা করেছিলেন অর্থমন্ত্রী, তাতে রাজস্ব আহরণ বাড়াতে বিভিন্ন খাতে করহার বৃদ্ধি, করারোপসহ নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়।

এরই মধ্যে দেশের ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্ট মহল কিছু ক্ষেত্রে এসব কর প্রস্তাবের বিরোধিতা করেন এবং তা প্রত্যাহারের দাবি জানান। তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিবারের মতো এবারও প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনা হচ্ছে।

অর্থবিল পাসের পরের দিন অর্থাৎ ৩০ জুন পাস হবে প্রস্তাবিত বাজেট, যা ১ জুলাই থেকে কার্যকর হবে।

আগের দুই বছরের ধারাবাহিকতায় এবারের বাজেটে শেয়ারবাজারে লিস্টেড এবং নন-লিস্টেড উভয় ধরনের কোম্পানির ক্ষেত্রে বর্তমানের চেয়ে করপোরেট করহার আড়াই শতাংশ কমানোর প্রস্তাব করা হয়। তবে এই সুবিধা পেতে কঠিন শর্ত জুড়ে দেন অর্থমন্ত্রী।

অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতায় বলা হয়, কোনো কোম্পানিকে এই সুবিধা পেতে হলে তাকে অব্যশই বছরে ১২ লাখ টাকার বেশি লেনদেন ব্যাংকিং চ্যানেলে করতে হবে। তা না হলে আগের রেটে কর পরিশোধ করতে হবে। কোম্পানি ছোট হোক বা বড়, সবার ক্ষেত্রে একই শর্ত প্রযোজ্য।

মূলত অর্থিক খাতে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে সব লেনদেনকে ব্যাংকিং চ্যানেলের আওতায় নিয়ে আসার এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। তবে এ শর্তের বিরোধিতা করে ব্যবসায়ীরা বলেছেন, এর মাধ্যমে ‘ক্যাশলেস লেনদেন’ (নগদ মুদ্রাবিহীন লেনদেন) চালু করতে যাচ্ছে সরকার, যা বাংলাদেশের বাস্তবতার আলোকে সম্ভব নয়। বাজেটের এ উদ্যোগ কার্যকর হলে দেশে ব্যবসা-বাণিজ্য করা কঠিন হবে।

অর্থ মন্ত্রণালয় ও এনবিআরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এটি বাতিল হচ্ছে না। বরং ব্যবসায়ীদের সুবিধার্থে শর্ত শিথিল করে এখানে কিছুটা ছাড় দেয়া হচ্ছে। কোম্পানির লেনদেন ১২ লাখ টাকার পরিবর্তে ৩৬ লাখ টাকায় উন্নীত করা হচ্ছে। অর্থাৎ কোনো কোম্পানি বছরে ৩৬ লাখ টাকা পর্যন্ত লেনদেন ব্যাংকের বাইরে করতে পারবে। এর বেশি লেনদেন করতে হলে অব্যশই ব্যাংকের মাধ্যমে করতে হবে।

যেসব কোম্পানি কম হারে করপোরেট কর দিতে চাইবে, তাদের অবশ্যই এই শর্ত মানতে হবে।

অস্থাবর সম্পত্তি আনতে চাইলে শতাংশ কর

প্রস্তাবিত বাজেটে বিদেশ থেকে নগদ টাকাসহ স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি আনার ক্ষেত্রে নির্ধারিত কর দিয়ে বৈধ করার ঘোষণা দেয়া হয়।

বাজেট ঘোষণার পর দেশজুড়ে এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা ওঠে।

জানা যায়, সরকার তার অবস্থান থেকে সরেনি। তবে শর্ত কিছু শিথিল করে এ ক্ষেত্রে কিছুটা সংশোধনী আনা হচ্ছে।

বাজেটে বলা হয়, বিদেশে অবস্থিত কেউ যদি অস্থাবর সম্পত্তি বৈধ ঘোষণা করতে চান, তা হলে ১০ শতাংশ কর দিলে কোনো প্রশ্ন করা হবে না।

সূত্র জানায়, এখানে করের হার ১০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৭ শতাংশ করা হচ্ছে।

অন্য দুটি– নগদ টাকা এবং স্থাবর সম্পত্তির ক্ষেত্রে শর্ত একই রাখা হচ্ছে।

কিছু পণ্যের কর প্রস্তাবে সংশোধনী

ব্যবসায়ীর দাবির মুখে ল্যাপটপ কম্পিউটার, স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত মোবাইল হ্যান্ডসেটসহ কিছু পণ্যের করহার তুলে দেয়া হতে পারে।

বাজেট ঘোষণায় কম্পিউটার-ল্যাপটপ আমদানিতে ১৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করা হয়। সংশোধনীতে এই পণ্যটির ওপর থেকে ভ্যাট প্রত্যাহার হতে পারে।

স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত মোবাইল হ্যান্ডসেট বিক্রি পর্যায়ে ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়। স্থানীয় শিল্পের বিকাশের ধারা অব্যাহত রাখতে মোবাইল সেটের ওপর থেকে এই কর প্রত্যাহার হতে পারে।

কম্পিউটার প্রিন্টার আমদানিতে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হলেও তা প্রত্যাহার হতে পারে।

আরও পড়ুন:
মোবাইলে ভ্যাট বাড়ানোয় এফআইসিসিআইয়ের উদ্বেগ
‘ধ্যানের ওপর ভ্যাট’ প্রত্যাহারের প্রস্তাব সংসদে
ব্যবসা সহজ নাকি কঠিন হলো
সরকারি কর্মকর্তাদের জবাবদিহি নিশ্চিতে আলাদা কর্তৃপক্ষ গঠনের প্রস্তাব

মন্তব্য

জীবনযাপন
Admission time to National University increased

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সময় বাড়ল

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সময় বাড়ল
বন্যার্ত শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনায় রেখে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) ভর্তি কার্যক্রমে প্রথম মেধা তালিকায় স্থানপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের আবেদন ফরম পূরণের সময় ৬ জুলাই বিকাল ৪টা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষে ভর্তির সময় বাড়ানো হয়েছে। বন্যার্ত শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে এ সময়সীমা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক-পূর্ব শিক্ষা বিষয়ক স্কুলের ডিন (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. মো. নাসির উদ্দিনের সই করা বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা যায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বন্যার্ত শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনায় রেখে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) ভর্তি কার্যক্রমে প্রথম মেধা তালিকায় স্থানপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের আবেদন ফরম পূরণের সময় ৬ জুলাই বিকাল ৪টা পর্যন্ত বাড়ানো হলো।

প্রথম মেধা তালিকায় স্থানপ্রাপ্ত ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে কোনো শিক্ষা কার্যক্রমে ভর্তি হয়ে থাকলে তাকে অবশ্যই ৫ জুলাইয়ের মধ্যে পূর্ববর্তী শিক্ষাবর্ষের ভর্তি বাতিল করে অনলাইনে চূড়ান্ত ভর্তি ফরম পূরণ করতে হবে। অন্যথায় দ্বৈত ভর্তির কারণে শিক্ষার্থীর ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি ও রেজিস্ট্রেশন বাতিল বলে গণ্য হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, প্রথম মেধা তালিকায় স্থানপ্রাপ্ত কোনো শিক্ষার্থী তার বিষয় পরিবর্তন করতে ইচ্ছুক হলে, তাকে চূড়ান্ত ভর্তি ফরমে বিষয় পরিবর্তনের নির্দিষ্ট ঘরে এবং অপশন সিলেক্ট করতে হবে। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের বিষয় পছন্দক্রম অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট কলেজে বিষয়ভিত্তিক শূন্য আসনে মেধার ভিত্তিতে বিষয় পরিবর্তন করা হবে। এ শিক্ষাবর্ষে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের ক্লাস শুরু হবে ২০ জুলাই।

আরও পড়ুন:
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের ভর্তির আবেদন শুরু ২২ মে
ডিগ্রি প্রথম বর্ষের ফল প্রকাশ
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকে ভর্তি আবেদন শুরু ২২ মে
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক প্রথম বর্ষের ফল প্রকাশ
‘জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে সেশনজট শূন্যে নামিয়ে আনা হবে’

মন্তব্য

জীবনযাপন
In EVM 8 teams yes 3 teams not

ইভিএমে ৭ দলের ‘হ্যাঁ’, ৩ দলের ‘না’

ইভিএমে ৭ দলের ‘হ্যাঁ’, ৩ দলের ‘না’
যেসব দলগুলো ইভিএমের পক্ষে, তারা হলো ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, বিকল্প ধারা, তরিকত ফেডারেশন, সাম্যবাদী দল-এমএল, গণতন্ত্রী পার্টি ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ। অন্যদিকে ইভিমের বিপক্ষে বলেছে গণফোরাম, বাংলাদেশ ন্যাপ ও বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএম ব্যবহার নিয়ে নিবন্ধিত দলগুলোর সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের সংলাপের তৃতীয় পর্বে অংশ নেয়া ১০টি দলের মধ্যে সাতটি ‘হ্যাঁ’ এবং তিনটি ‘না’ বলেছে।

কোনো কোনো দল ৩০০ আসনেই ইভিএমের ব্যবহারের পক্ষে বলেছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের সঙ্গে ইসির ইভিএম যাচাইয়ের মতবিনিময় সভায় দলগুলোর এমন অবস্থান উঠে আসে৷

ইভিএম সংক্রান্ত তৃতীয় দফায় ১৩ টি রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। প্রথম দফায় অনুপস্থিত দল গণফোরাম সময় চাওয়ায় তাদের আজ আবার সভায় উপস্থিত থাকার সুযোগ দেয় ইসি।

এই ১৪ টি দলের মধ্যে ১০ টি এ সভায় অংশ নেয়। তবে এলডিপি, সিপিবি, বিপ্লবী ওয়াকার্স পার্টি, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ আলোচনায় আসেনি।

যেসব দলগুলো ইভিএমের পক্ষে, তারা হলো ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, বিকল্প ধারা, তরিকত ফেডারেশন, সাম্যবাদী দল-এমএল, গণতন্ত্রী পার্টি ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ।

অন্যদিকে ইভিমের বিপক্ষে বলেছে গণফোরাম, বাংলাদেশ ন্যাপ ও বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট।

যারা বিপক্ষে তারা কী বলছেন

গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য সুরাইয়া বেগম বলেন, ‘ইভিএমের মাধ্যমে খুব সহজেই জালিয়াতি করার অনেক ম্যাকানিজম রয়েছে। ই ভোটিং পদ্ধতিতে প্রোগামিং পরিবর্তন করে জালিয়াতি করার সুযোগ থেকেই যায়।’

ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভূইয়া বলেন, ‘ইভিএমে জনগণের কোনো আস্থা নেই৷ রাজনৈতিক দলগুলো মনে করে এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভোট চুরির যন্ত্র। অনেক দেশ ইভিএম থেকে সরে এসেছে।’

সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের সভা প্রধান আবু লায়েন্স মুন্না বলেন, ‘দেশের আশি শতাংশ ভোটার গ্রামে বাস করে। তাদের উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করার অভিজ্ঞতা নেই বললেই চলে।’

ইভিএমের পক্ষে যারা

ইভিএমের পক্ষে, তবে আগামী জাতীয় নির্বাচনে ব্যবহার না করে ক্ষেত্র প্রস্তুতের পক্ষে জাসদের স্থায়ী কমিটির সদস্য মোশারফ হোসেন।

তিনি বলেন, ‘ইভিএম পরিচিত করানো নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব। এই মুহূর্তে তড়িঘড়ি করে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএমে ভোট করা ঠিক হবে না। স্থানীয় নির্বাচনসহ পেশাজীবীদের ভোটে ইভিএম পরিচিত করা হোক।’

গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিন শ আসনেই ইভিএমে ভোট করার মত। তিনি বলেন, ‘মেশিন যদি ঠিকঠাক থাকে, ভালো সার্ভিস দেবে।’

বিকল্প ধারার মহাসচিব আব্দুল মান্নান বলেন, ‘আমরা অবশ্যই ইভিএম চাই। তবে প্রশ্ন হলো এই প্রযুক্তিতে ভোটাররা ভোট দিতে পারবে কি না? সবগুলো বুথে ইভিএম ব্যবহারের সক্ষমতা আছে কি না।’

ইভিএমকে উন্নত প্রযুক্তি বলে মনে করেন ওয়াকার্স পার্টি সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা। তিনি বলেন, ‘ইভিএম ব্যবহারে আমাদের কোনো আপত্তি নাই। তবে জাতীয় নির্বাচনের আগে ইভিএম ব্যবহারের আগে স্থানীয় নির্বাচনে ভোট করলে গ্রহনযোগ্যতা বাড়বে।’

তরিকত ফেডারেশনের মহাসচিব রেজাউল হক চাদপুরী বলেন, ‘সবাই যেহেতু ইভিএম বিষয়ে একমত না। এ জন্য কমপক্ষে ১৫০ আসনে ইভিএম ব্যবহার করা যেতে পারে।’

তবে আগামী জাতীয় নির্বাচনে তিন শ আসনেই ইভিএম চায় আওয়ামী লীগ। দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আজকে যে রাজনৈতিক দলগুলো এখানে এসেছে, আমার মনে হয় অধিকাংশই ইভিএমের পক্ষে বলেছে। আমরা সবার কথা শুনেছি। ইভিএম নিয়ে বিরুদ্ধেও বলেছেন দুয়েকজন। এটাই তো গণতন্ত্র। বিউটি অব ডেমোক্রেসি। বিরুদ্ধে তো বলবেনই। ভিন্নমত থাকতেই পারে। সেটা তো কোনো অসুবিধা নেই।’

৩০০ আসনে নির্বাচন করতে ইসি সক্ষম কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দ্যাট ইজ দ্যা ডিসিশন অব ইলেকশন কমিশন। এটা তাদের এখতিয়ার।’

আরও পড়ুন:
ইভিএম যাচাইয়ে ইসির আমন্ত্রণে বিএনপির ‘না’
ইভিএমের প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন ২ হাজারের বেশি কর্মকর্তা
নৌকার প্রার্থীর হুমকিতে এবার ভোট স্থগিত, মামলার নির্দেশ
অন্য প্রার্থীর এজেন্টকে হত্যার হুমকি নৌকার মুজিবুলের
তোমার ভোট আমি মারব: নৌকার মুজিবুলের আরেক ‘বোমা’

মন্তব্য

জীবনযাপন
Around 8 lakh students were affected by the floods

বন্যার কবলে পৌনে ৬ লাখ শিক্ষার্থী

বন্যার কবলে পৌনে ৬ লাখ শিক্ষার্থী বন্যার পানিতে নিমজ্জিত সিলেটের এক স্কুল ভবন। ছবি: নিউজবাংলা
মাউশির প্রতিবেদনের তথ্যমতে, দেশের ১৮টি জেলার ৮৫টি উপজেলার মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের ১ হাজার ১২২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল-কলেজ) পাঁচ লাখ ৭৫ হাজার ৮৪৪ জন শিক্ষার্থী বন্যার কবলে পড়েছে।

দেশের ১৮ জেলার ৮৫টি উপজেলায় এক হাজার ১২২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল-কলেজ) পাঁচ লাখ ৭৫ হাজার ৮৪৪ জন শিক্ষার্থী বন্যার কবলে পড়েছে।

মঙ্গলবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মনিটরিং অ্যান্ড ইভ্যালুয়েশন উইং থেকে এ তথ্য জানা যায়।

মাউশির প্রতিবেদনের তথ্যমতে, দেশের ১৮টি জেলার ৮৫টি উপজেলার মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের ১ হাজার ১২২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল-কলেজ) পাঁচ লাখ ৭৫ হাজার ৮৪৪ জন শিক্ষার্থী বন্যার কবলে পড়েছে। তবে বরিশাল, খুলনা ও চট্টগ্রামের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্যার কবলে পড়েনি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বন্যাকবলিত উপজেলাগুলোর ১২৩ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে পাঠদান সম্ভব হচ্ছে। আংশিকভাবে পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে ১০৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। আর ৮৮৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এখনও পাঠদান সম্ভব নয়। বন্যাকবলিত এলাকার ৬৫৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে আশ্রয়কেন্দ্র করা হয়েছে।

সিলেটসহ সারা দেশের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অবনতির পর ২২ জুন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মনিটরিং অ্যান্ড ইভ্যালুয়েশন উইং থেকে সব আঞ্চলিক পরিচালক ও উপ-পরিচালককে তথ্য পাঠানোর অফিস আদেশ জারি করা হয়।

এতে বলা হয়, বর্তমানে অতিবৃষ্টির কারণে উজান থেকে পানি নেমে আসায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বন্যার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। এ অবস্থায় মাউশির আওতাধীন জেলা/উপজেলায় কতগুলো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্যাকবলিত এবং কতসংখ্যক শিক্ষার্থী বন্যাকবলিত রয়েছে তার তথ্য সংযুক্ত ছক অনুযায়ী মনিটরিং অ্যান্ড ইভালুয়েশন উইংয়ের ই-মেইলে ([email protected]) পাঠানোর অনুরোধ করা হলো।

আরও পড়ুন:
প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলির পাইলটিং শুরু বুধবার
আসামের বন্যাদুর্গতদের জন্য ২৫ লাখ রুপি দিলেন আমির খান
পানি নামার আগেই আবার বাড়ছে সুনামগঞ্জে
বন্যাদুর্গত এলাকায় কাটা রাস্তায় সেতু বা কালভার্ট নির্মাণের নির্দেশ
শিক্ষার্থীদের ৫০ লাখ টাকা বৃত্তি দিল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

মন্তব্য

জীবনযাপন
Shoe garland to teacher National University Investigation Committee

শিক্ষককে জুতার মালা: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তদন্ত কমিটি

শিক্ষককে জুতার মালা: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তদন্ত কমিটি
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক (জনসংযোগ দপ্তর) মো. আতাউর রহমান জানান, ২৬ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের ২২৮তম সিন্ডিকেট সভায় স্বপন কুমার বিশ্বাসকে লাঞ্ছিত করার ঘটনা আলোচনা হয় এবং নিন্দা প্রকাশ করা হয়। ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান।

নড়াইলে পুলিশের সামনে শিক্ষকের গলায় জুতার মালা দিয়ে অপদস্ত করার ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। সরেজমিন তথ্যানুসন্ধান করে কমিটিকে ৭ কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক (জনসংযোগ দফতর) মো. আতাউর রহমান এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘২৬ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের ২২৮তম সিন্ডিকেট সভায় স্বপন কুমার বিশ্বাসকে লাঞ্ছিত করার ঘটনা আলোচনা হয় এবং নিন্দা প্রকাশ করা হয়। একই সঙ্গে এ ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান। কমিটিকে ৭ কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

‘জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কেউ দোষী চিহ্নিত হলে তার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ফেসবুকে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) বহিষ্কৃত মুখপাত্র নূপুর শর্মার সমর্থনে কলেজের এক হিন্দু শিক্ষার্থীর পোস্ট দেয়াকে কেন্দ্র করে গত ১৮ জুন দিনভর বিক্ষোভ, সহিংসতা চলে নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজ ক্যাম্পাসে। গুজব ছড়িয়ে দেয়া হয় ওই শিক্ষার্থীর পক্ষ নিয়েছেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস।

এরপর পুলিশ পাহারায় বিকেল ৪টার দিকে স্বপন কুমার বিশ্বাসকে ক্যাম্পাসের বাইরে নিয়ে যাওয়ার সময় তাকে দাঁড় করিয়ে গলায় জুতার মালা পরিয়ে দেয় একদল ব্যক্তি। শিক্ষক স্বপন কুমার হাত উঁচিয়ে ক্ষমা চাইতে থাকেন। পরে তাকে তুলে নেয়া হয় পুলিশের গাড়িতে।

মোবাইল ফোনে ধারণ করা এ ঘটনার ভিডিও ফুটেজ ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। পুলিশের সামনে শিক্ষকের এমন অপদস্ত হওয়ার ঘটনায় তৈরি হয়েছে তীব্র ক্ষোভ।

ফেসবুকে ভাইরাল ভিডিওতে শিক্ষক স্বপন কুমারের গলায় জুতার মালা পরানোর সময় আশপাশে পুলিশের উপস্থিতি দেখা গেলেও তারা এখন দাবি করছে, এমন কোনো ঘটনা তাদের চোখে পড়েনি। ঘটনার ৯ দিনের মাথায় এ ব্যাপারে মামলা করেছে পুলিশ। স্বপন কুমারকে জুতার মালা পরানোয় সরাসরি জড়িত তিনজনকে গ্রেপ্তারের তথ্যও জানিয়েছে পুলিশ।

মন্তব্য

জীবনযাপন
Recommendation to increase the allocation in the budget for the wash sector

বাজেটে ওয়াশ খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর সুপারিশ

বাজেটে ওয়াশ খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর সুপারিশ বাজেটে ওয়াশ খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর সুপারিশ করেছেন পরিবেশবাদীরা। ছবি: নিউজবাংলা
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বাজেট বরাদ্দ কম হলে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য আসন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা কঠিন হয়ে পড়বে। যদিও ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেটে আঞ্চলিক বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রে কিছু ইতিবাচক প্রবণতা দেখা গেছে।

প্রস্তাবিত বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন, পরিবেশ ও সক্ষমতা তৈরিসহ ওয়াশ খাতে বরাদ্দ বাড়াতে সুপারিশ করেছেন পরিবেশবাদীরা। ওয়াশ খাতে বরাদ্দ না বাড়ালে ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের কাজ ধীরগতিতে হবে বলে মনে করছেন তারা।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে পরিবেশবাদী সংগঠনের নেতারা এ বিষয়ে যুক্তি তুলে ধরেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বাজেট বরাদ্দ কম হলে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য আসন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা কঠিন হয়ে পড়বে। যদিও ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেটে আঞ্চলিক বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রে কিছু ইতিবাচক প্রবণতা দেখা গেছে।

বাজেটে হাওর এবং পার্বত্য এলাকায় বরাদ্দ কিছুটা বেড়েছে, তবে চর এবং উপকূলীয় এলাকায় বরাদ্দ বাড়েনি। প্রস্তাবিত বাজেটে এ বিষয়গুলো পুনর্বিবেচনার দাবি রাখে। ওয়াশ খাতের আসন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বরাদ্দ বাড়ানো এখন সময়ের দাবি।

নিরাপদ পানি ও পরিবেশ নিয়ে কাজ করা ওয়াটার এইড বাংলাদেশ, পিপিআরসি, ইউনিসেফ বাংলাদেশ, ফানসা-বিডি, এফএসএন নেটওয়ার্ক, বাংলাদেশ ওয়াটার ইনটিগ্রিটি নেটওয়ার্ক (বাউইন), স্যানিটেশন অ্যান্ড ওয়াটার ফর অল, অ্যান্ড ওয়াটার পভার্টি, এমএইচএম প্ল্যাটফর্ম এবং ওয়াশ অ্যালায়েন্স ইন্টারন্যাশনাল যৌথভাবে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

এতে উপস্থিত ছিলেন পিপিআরসির নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. হোসেন জিল্লুর রহমান, ওয়াটার এইডের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর হোসেন ইশরাত আদিবসহ ওয়াশ নেটওয়ার্কের প্রতিনিধিরা।

আরও পড়ুন:
গণশৌচাগারের জন্য বাজেট আছে, জায়গা নেই
স্যানিটেশন ও হাইজিনে আরও বরাদ্দ দাবি

মন্তব্য

p
উপরে