× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

জীবনযাপন
The main congregation of Eid wishes prosperity to the country and the nation
hear-news
player

জাতীয় ঈদগাহের মোনাজাতে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনা

জাতীয়-ঈদগাহের-মোনাজাতে-দেশ-ও-জাতির-সমৃদ্ধি-কামনা- জাতীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজের প্রধান জামাতে অংশ নেন মুসল্লিরা। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা
মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে হাইকোর্টের পাশে অবস্থিত জাতীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজের প্রধান জামাত শুরু হয়। মুসল্লিদের কাতার পৌঁছে যায় এই ঈদগাহ থেকে কদম ফোয়ারা, মৎস্য ভবন ও প্রেস ক্লাব পর্যন্ত।

দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনায় মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে ঈদের নামাজের প্রধান জামাত।

করোনাভাইরাস মহামারিতে দুই বছর বন্ধ থাকার পর এবার উদযাপনের উৎসব হয়ে ফিরল ঈদুল ফিতর; অনুষ্ঠিত হলো ঈদের প্রধান জামাতও।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে হাইকোর্টের পাশে অবস্থিত জাতীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজের প্রধান জামাত শুরু হয়। মুসল্লিদের কাতার পৌঁছে যায় এই ঈদগাহ থেকে কদম ফোয়ারা, মৎস্য ভবন ও প্রেস ক্লাব পর্যন্ত।

নামাজ শেষে কোলাকুলিতে ব্যস্ত হয়ে ওঠেন মুসল্লিরা। একে অপরের সঙ্গে মেলাতে থাকেন হাত। এর আগে থেকেই দলে দলে সেখানে ভিড় করতে থাকেন মানুষ।

প্রধান বিচারপতি, মন্ত্রী, এমপি, বিচারপতি, রাজনৈতিক ব্যক্তি ও কূটনৈতিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা জাতীয় ঈদগাহে ঈদ জামাতে অংশ নেন।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আয়োজনে জাতীয় ঈদগাহে প্রধান জামাতে লাখো মুসল্লি নামাজ আদায় করেন। পাশাপাশি নারীদের জন্য পৃথক নামাজের ব্যবস্থা ছিল।

করোনায় বিভিন্ন বিধিনিষেধে দুই বছর ঈদগাহে নামাজ আদায় বন্ধ ছিল। উন্মুক্ত স্থানে জনসমাগম না করার নির্দেশনা থাকায় এখানে জামাত আদায় হয়নি। সে বছরগুলোতে মসজিদে সময় ভাগ করে একাধিক ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এবার মহামারির সে শঙ্কা কাটিয়ে ঈদগাহ ময়দানে জামাতের সঙ্গে ঈদের নামাজ আদায় করলেন মুসল্লিরা।

দুই বছর পর রাজধানীর ঈদগাহগুলোতে আবার আয়োজন করা হলো ঈদের জামাতের। সব মিলিয়ে রাজধানীতে ১ হাজার ৪৬৮টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবার।

আরও পড়ুন:
২ বছর পর ফিরল উৎসবমুখর ঈদ
বায়তুল মোকাররমে ঈদের ৫ জামাত
চাঁদরাতেও বেচাকেনায় জমজমাট রাজধানী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
Banks open on Saturday in the interest of Hajj pilgrims

হজযাত্রীদের স্বার্থে শনিবার ব্যাংক খোলা

হজযাত্রীদের স্বার্থে শনিবার ব্যাংক খোলা হজ কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক শনিবার খোলা থাকবে। ফাইল ছবি
‘শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন পূর্ণ দিবস হজ কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের শাখা বা উপশাখা খোলা রাখতে হবে।‘

হজ ব্যবস্থাপনার সুবিধার্থে আগামী শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন ব্যাংক খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এদিন হজ কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের শাখা-উপশাখা খোলা থাকবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের অফ সাইট সুপারভিশন বিভাগ থেকে মঙ্গলবার এ-সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ‘শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন পূর্ণ দিবস হজ কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের শাখা বা উপশাখা খোলা রাখতে হবে।‘

এ বিষয়ে ব্যাংকগুলোকে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১-এর ৪৫ ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ নির্দেশ জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

আরও পড়ুন:
৩১ মে হজ ফ্লাইট শুরুতে অনিশ্চয়তা
হজযাত্রীদের জন্য একগুচ্ছ নতুন নির্দেশনা
সহজের প্রকৌশলী যেভাবে টিকিট কালোবাজারিতে
হজ ফ্লাইট ৩১ মে থেকে
হজ ব্যবস্থাপনায় দুই কমিটি

মন্তব্য

জীবনযাপন
Leaving 13 feet road Sobhanbagh Mosque is on 10th floor

১৩ ফুট রাস্তা ছেড়ে ১০ তলা হচ্ছে সোবহানবাগ মসজিদ

১৩ ফুট রাস্তা ছেড়ে ১০ তলা হচ্ছে সোবহানবাগ মসজিদ সোবহানবাগ জামে মসজিদ ও মাদ্রাসা কমপ্লেক্সের পুরাতন তিনতলা ভবনটি ভেঙে নতুন ১০ তলাবিশিষ্ট মসজিদ নির্মাণ করে দিচ্ছে সরকার। ছবি: নিউজবাংলা
রাস্তার জন্য ১৩ ফুট জায়গা ছেড়ে দিচ্ছে মসজিদ কর্তৃপক্ষ। এর বদলে পুরাতন তিনতলা মসজিদটি ভেঙে নতুন ১০ তলাবিশিষ্ট মসজিদ নির্মাণ করে দিচ্ছে সরকার। ইতোমধ্যে পুরাতন ভবনটি ভেঙে ফেলা হয়েছে।

রাজধানীর মিরপুর সড়ক ধরে যারা নিয়মিত চলাচল করেন, তারা পরিচিত সোবহানবাগ জামে মসজিদ ও মাদ্রাসা কমপ্লেক্সের সঙ্গে। মসজিদের একটি অংশ রাস্তার ওপরে হওয়ায় এখানে মিরপুর রোড সংকুচিত হয়ে গেছে।

বহু বছরের এ চিত্র এবার বদলে যাচ্ছে। রাস্তার জন্য ১৩ ফুট জায়গা ছেড়ে দিচ্ছে মসজিদ কর্তৃপক্ষ। এর বদলে পুরাতন তিনতলা মসজিদটি ভেঙে নতুন ১০ তলাবিশিষ্ট মসজিদ নির্মাণ করে দিচ্ছে সরকার। ইতোমধ্যে পুরাতন ভবনটি ভেঙে নতুন ভবনের কাজ শুরু করেছে গণপূর্ত অধিদপ্তর।

প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে এবং জনস্বার্থ বিবেচনায় মসজিদ কর্তৃপক্ষ এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা গেছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নতুন করে নির্মাণের জন্য সোবহানবাগ মসজিদ ও মাদ্রাসা কমপ্লেক্সের পুরাতন ভবনটি ভেঙে ফেলা হয়েছে। আগের মসজিদের আয়তনের সমপরিমাণ জায়গা নিয়ে বেষ্টনী দেয়া আছে পুরো প্রকল্প এলাকা। এর ভেতরে চলছে নতুন ভবন নির্মাণের কর্মযজ্ঞ।

১৩ ফুট রাস্তা ছেড়ে ১০ তলা হচ্ছে সোবহানবাগ মসজিদ

সোবহানবাগ মসজিদ ও মাদ্রাসা কমপ্লেক্সের নতুন অস্থায়ী তিনতলা ভবন। ছবি: নিউজবাংলা

প্রকল্প এলাকার ভেতরে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে পাইলিংয়ের জন্য বড় বড় যন্ত্র স্থাপন করা হয়েছে। নিজেদের কাজে ব্যস্ত শ্রমিকরা।

এখানে কথা হয় প্রকল্পের প্রকৌশলী মো. মহিউদ্দিনের সঙ্গে। তিনি জানান, একটি অস্থায়ী ভবন করে মসজিদ ও মাদ্রাসার কার্যক্রম স্থানান্তর করা হয়েছে গত বছরের শেষের দিকে। এরপর পুরাতন ভবনটি ভেঙে ফেলা হয়েছে। এখন সবেমাত্র ১০ তলা ভবনের পাইলিংয়ের কাজ শুরু হচ্ছে। পুরো ভবন নির্মাণে দুই বছরের মতো সময় লাগবে।

প্রকল্প এলাকা থেকে মূল সড়কের জন্য ১৩ ফুট জায়গা ছেড়ে দেয়া হচ্ছে বলে জানান মো. মহিউদ্দিন। তিনি বলেন, ‘১৩ ফুট জায়গা ছেড়ে নতুন মসজিদ করা হচ্ছে। আমরা কাজের সুবিধার্থে এখনই ১৩ ফুট জায়গা ছাড়িনি। কাজ কিছুটা গুছিয়ে তারপর রাস্তার জায়গা ছেড়ে দেয়া হবে।’

প্রকৌশলী মো. মহিউদ্দিন আরো জানান, নকশা অনুযায়ী ১০ তলা এই মসজিদে থাকবে অত্যাধুনিক সব সুযোগ-সুবিধা। এতে জেনারেটর, লিফট, আধুনিক সাউন্ড সিস্টেম, সোলার প্যানেল সিস্টেম, অগ্নিনির্বাপণব্যবস্থা, এয়ারকুলার, ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরাসহ আরো অনেক ব্যবস্থাপনা থাকবে। পুরো প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৫০ কোটি টাকা।

১৯৩৭ সালে প্রায় ৩৫ শতাংশ জমির ওপর সোবহানবাগ মসজিদ ও পাশে পারিবারিক কবরস্থান প্রতিষ্ঠা করেন মাওলানা মোহাম্মদ আবদুস সোবহান। ১৯৪০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি মারা গেলে আবদুস সোবহানকে এই কবরস্থানেই দাফন করা হয়। তিনতলা এই মসজিদে এক সঙ্গে ৬০০ থেকে ৭০০ মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারতেন। এখন নতুন ভবন হলে সেখানে অন্তত ৪ হাজার মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ পড়তে পারবেন।

প্রকল্পের ঠিক পাশেই মসজিদের অস্থায়ী ভবন করে দিয়েছে গণপূর্ত অধিদপ্তর। তিনতলা একটি ভবনে চলছে মসজিদ ও মাদ্রাসার কার্যক্রম। এখানে প্রায় ৭০ জন মাদ্রাসা ছাত্রের থাকা-খাওয়া-পড়াশোনার পাশাপাশি সাধারণ মুসল্লিরা নামাজ আদায় করেন।

সোবহানবাগ মসজিদ ও মাদ্রাসা কমপ্লেক্সের তত্ত্বাবধায়ক মো. আলাউদ্দীন নিউজবাংলাকে জানান, ২০১৬ সালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে মসজিদ কমিটিকে একটি চিঠি দেয়া হয়। সেখানে বলা হয়, সরকার মসজিদটিকে আরও বড় করতে চায়। তবে রাস্তার জন্য কিছুটা জায়গা ছাড়ার অনুরোধ করা হয় চিঠিতে। তখন মসজিদ কমিটির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এ নিয়ে আলোচনা শুরু হয়।

মো. আলাউদ্দীন আরো বলেন, ‘মসজিদটি ৮৩ বছর আগে নির্মিত। তখন তো মিরপুর সড়ক এত চওড়া ছিল না। আর মানুষের সংখ্যাও কম ছিল। তখন মসজিদটি তিনতলা পর্যন্ত করা হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে ধীরে ধীরে জনসংখ্যা বেড়েছে। মুসল্লিদেরও চাপ বেড়েছে। একসময় বাড়তি চাপের কারণে রাস্তায় দাঁড়িয়েই মানুষ নামাজ পড়া শুরু করে, এতে যান চলাচলে সমস্যা দেখা দেয়।

'অন্যদিকে মসজিদের ভিত্তি পুরাতন ও দুর্বল থাকায় এটি আর ওপরের দিকে বাড়ানো সম্ভবও হচ্ছিল না। সব কিছু বিবেচনা করে প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবে মসজিদ কমিটি রাজি হয়। কারণ মসজিদ তো মানুষের জন্যই, আবার রাস্তাও মানুষের জন্য। তাহলে মানুষে মানুষে অসুবিধা তৈরির দরকার কী?’

মন্তব্য

জীবনযাপন
Pilgrims must have their passports valid till January 4

হজযাত্রীদের পাসপোর্টের মেয়াদ থাকতে হবে ৪ জানুয়ারি পর্যন্ত

হজযাত্রীদের পাসপোর্টের মেয়াদ থাকতে হবে ৪ জানুয়ারি পর্যন্ত
পাসপোর্টে হজযাত্রীর জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে জন্মনিবন্ধন সনদ) সঠিকভাবে উল্লেখ রয়েছে কি না তা-ও নিশ্চিত করতে হবে।

চলতি বছর যারা হজে যাবেন তাদের পাসপোর্টের মেয়াদ আগামী বছরের ৪ জানুয়ারি পর্যন্ত থাকতে হবে। ধর্ম মন্ত্রণালয় সোমবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সৌদি সরকারের নীতি অনুযায়ী ২০২২ সালের হজযাত্রীদের পাসপোর্টের মেয়াদ ২০২৩ সালের ৪ জানুয়ারি পর্যন্ত থাকতে হবে। অন্যথায় সংশ্লিষ্টদের নতুন পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে হবে। পাসপোর্টে হজযাত্রীর জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে জন্মনিবন্ধন সনদ) সঠিকভাবে উল্লেখ রয়েছে কিনা তা-ও নিশ্চিত করতে হবে।

সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় যারা হজে যাবেন তাদের জন্য বেশ কয়েকটি নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। বলা হয়েছে, সরকারি ব্যবস্থাপনাধীন বিদ্যমান নিবন্ধিত হজযাত্রীদের নিবন্ধন পয়েন্ট বা কেন্দ্রের মাধ্যমে (পাসপোর্ট চেঞ্জ অপশন ব্যবহার করে) পাসপোর্ট পরিবর্তনের আবেদন করে তথ্য হালনাগাদ করতে হবে।

বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদেরও স্ব স্ব এজেন্সির মাধ্যমে (পাসপোর্ট চেঞ্জ অপশন ব্যবহার করে) ন্যূনতম ২০২৩ সালের ৪ জানুয়ারি মেয়াদসংবলিত পাসপোর্টের তথ্য হালনাগাদের আবেদন করতে হবে। সময়-স্বল্পতার কারণে এজেন্সিভিত্তিক হজযাত্রীর সংখ্যা নির্ধারণের সুবিধার্থে পাসপোর্টের মেয়াদ জটিলতার কারণে হজযাত্রীর প্যাকেজ স্থানান্তর বা নিবন্ধন স্থানান্তর কার্যক্রম ব্যাহত হবে না বলে বিজ্ঞপ্তিতে আশ্বস্ত করা হয়েছে।

বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীর ভিসাযুক্ত পাসপোর্টের পেছনে মোয়াল্লেম নম্বর, মক্কা বা মদিনার আবাসনের ঠিকানাসংবলিত প্রিন্টেড স্টিকার সংযুক্ত করতে হবে। প্রিন্টেড স্টিকার সংযুক্ত করা সম্ভব না হলে কমপক্ষে হাতে লেখা তথ্য সংযুক্ত করতে হবে। অন্যথায় সংশ্লিষ্ট হজযাত্রীদের জেদ্দা বা মদিনা বিমানবন্দর থেকে সৌদি কর্তৃপক্ষ নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে পারে এবং সংশ্লিষ্ট এজেন্সির হজ কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি বাতিল করে দিতে পারে।

কোভিডের কারণে দুই বছর বন্ধ থাকার পর এ বছর বাংলাদেশ থেকে প্রায় ৫৭ হাজার মুসল্লিকে হজে যাওয়ার সুযোগ দিয়েছে সৌদি সরকার। আগামী ৩১ মে হজ ফ্লাইট শুরুর কথা রয়েছে।

এ বছর সরকারি ব্যবস্থাপানায় হজে যাবেন প্রায় চার হাজার মুসল্লি। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন প্রায় ৫৩ হাজার। এবার যারা হজ করতে যাবেন তাদের পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় খরচ করতে হবে ১ লাখ টাকারও বেশি। এবার সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজের জন্য দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রথম প্যাকেজে খরচ হবে মোট ৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা। এটি ২০২০ সালের তুলনায় ১ লাখ ২ হাজার ৩৪০ টাকা বেশি। আর দ্বিতীয় প্যাকেজে খরচ হবে ৪ লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকা। এটি ২০২০ সালের তুলনায় ১ লাখ ২ হাজার ১৫০ টাকা বেশি।

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে খরচ হবে ৪ লাখ ৬৩ হাজার ৭৪৪ টাকা। হজ এজেন্সিস অফ বাংলাদেশের (হাব) ঘোষণা করা এই প্যাকেজের বাইরে কোরবানির জন্য প্রত্যেক হজযাত্রীকে ১৯ হাজার ৬৮৩ টাকা সৌদি আরবে গিয়ে সেখানকার সরকারের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা দিতে হবে।

এ বছর ঢাকা থেকে যেসব হজযাত্রী সৌদি আরবে যাবেন তাদের সৌদি প্রান্তের শতভাগ ইমিগ্রেশন ঢাকাতেই সম্পন্ন করা হবে বলে জানিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

আরও পড়ুন:
হজযাত্রীদের জন্য একগুচ্ছ নতুন নির্দেশনা
সহজের প্রকৌশলী যেভাবে টিকিট কালোবাজারিতে
হজ ফ্লাইট ৩১ মে থেকে
হজ ব্যবস্থাপনায় দুই কমিটি
হজে যেতে পারছেন না ৬৫ বছরের বেশি বয়সীরা

মন্তব্য

জীবনযাপন
Gathering of devotees at Rajban Bihar to celebrate Buddha Purnima

বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপনে রাজবন বিহারে পুণ্যার্থীদের সমাগম

বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপনে রাজবন বিহারে পুণ্যার্থীদের সমাগম বুদ্ধপূর্ণিমা উপলক্ষে নানা এলাকা থেকে হাজারও পুণ্যার্থী আসেন রাজবন বিহারে। ছবি: নিউজবাংলা
বুদ্ধপূর্ণিমা উপলক্ষে নানা এলাকা থেকে রাজবন বিহারে আসেন হাজারও পুণ্যার্থী। বুদ্ধের মাথায় পানি ঢেলে তারা সাধনানন্দ মহাস্থবির বনভান্তের পায়ে শ্রদ্ধা জানান।

রাঙ্গামাটিতে নানা আয়োজনে উদযাপিত হচ্ছে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব বুদ্ধপূর্ণিমা।

বেলুন ও ফেস্টুন উড়িয়ে সকালে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা ও রাজবন বিহারের আবাসিক প্রধান ভিক্ষু ভদন্ত শ্রীমৎ প্রজ্ঞালংকার মহাস্থবির।

এরপর জেলা শিল্পকলা অ্যাকাডেমি থেকে রাজবন বিহার পর্যন্ত গৌতম বুদ্ধের ধাতু প্রদক্ষিণ করে মঙ্গল শোভাযাত্রা হয়। শোভাযাত্রা শেষে রাজবন বিহারে ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা পালন করা হয়।

প্রজ্ঞালংকার মহাস্থবির বিশ্বে শান্তি ও মঙ্গল প্রার্থনায় মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্বালন করেন। ধর্মীয় সংগীত পরিবেশনার মাধ্যমে শুরু হয় পঞ্চশীল প্রার্থনা, বুদ্ধমূর্তিদান, সংঘদান, অষ্টপরিষ্কারদান, হাজার বাতিদান, টাকা দান, ফানুসবাতি উৎসর্গ ও দান।

বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপনে রাজবন বিহারে পুণ্যার্থীদের সমাগম

বুদ্ধপূর্ণিমা উপলক্ষে নানা এলাকা থেকে রাজবন বিহারে আসেন হাজারও পুণ্যার্থী। বুদ্ধের মাথায় পানি ঢেলে তারা সাধনানন্দ মহাস্থবির বনভান্তের পায়ে শ্রদ্ধা জানান।

জল্পনা চাকমা নামের এক পুণ্যার্থী বলেন, ‘বুদ্ধের তিন স্মৃতিবিজড়িত এই দিন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সে কারণে পরিবার ও নিজের মঙ্গল প্রার্থনার উদ্দেশ্যে বিহারে এসেছি।’

গৌতম বুদ্ধের জন্ম, বোধিলাভ ও মহাপরিনির্বাণ উপলক্ষে প্রতি বছর বৈশাখী পূর্ণিমা তিথি উদযাপন করেন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা। রোববার সারা দেশে বুদ্ধপূর্ণিমার উৎসব হলেও রাজবন বিহারে হচ্ছে এক দিন পর।

রাজবন বিহারের বয়োজ্যেষ্ঠ কয়েকজন ভিক্ষু জানান, রোববার দুপুর ১২টা থেকে সোমবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত থাকে বৈশাখী পূর্ণিমা তিথি। রোববার বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপন করলে তা বৈশাখী পূর্ণিমা তিথিতে পড়ে না। তাই সোমবার সব আয়োজন করা হয়েছে।

এই আয়োজনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন নিখিল কুমার চাকমা ও রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য দেন বিহার পরিচালনা কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান ও পঞ্চশীল পাঠ করেন কমিটির সাধারণ সম্পাদক অমীয় খীসা।

আরও পড়ুন:
সাড়ম্বরে পালিত বুদ্ধপূর্ণিমা
বুদ্ধপূর্ণিমা আজ
বুদ্ধপূর্ণিমায় করোনা মুক্তির প্রার্থনা

মন্তব্য

জীবনযাপন
Buddha Purnima was solemnly celebrated

সাড়ম্বরে পালিত বুদ্ধপূর্ণিমা

সাড়ম্বরে পালিত বুদ্ধপূর্ণিমা ‘জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক’ এই অহিংস বাণীর প্রচারক গৌতম বুদ্ধের আবির্ভাব, বোধিপ্রাপ্তি আর নির্বাণলাভের দিনটিকে বুদ্ধ পূর্ণিমা হিসেবে পালন করেন ভক্তরা। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা
রোববার রাজধানীর অন্যান্য বৌদ্ধ মন্দিরের মতো মেরুল বাড্ডার আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ মন্দিরেও ছিল নানারকম আয়োজন। পরিবার-পরিজন নিয়ে বৌদ্ধ বিহারে এসে আনন্দ প্রকাশ করেন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা।

করোনায় দুই বছর কিছুটা অনাড়ম্বরভাবে পালিত হলেও এবার সাড়ম্বরেই পালিত হলো বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বুদ্ধপূর্ণিমা।

রোববার রাজধানীর অন্যান্য বৌদ্ধ মন্দিরের মতো মেরুল বাড্ডার আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ মন্দিরেও ছিল নানারকম আয়োজন। পরিবার-পরিজন নিয়ে বৌদ্ধ বিহারে এসে আনন্দ প্রকাশ করেন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা।

এতে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান এমপি।

তিনি বলেন, ‘একটি সুন্দর ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে হলে সকল ধর্মের শান্তিপূর্ণ বসবাসের বিকল্প নেই। সেই লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সকল পদক্ষেপ বাস্তবায়নে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।’

ফরিদুল হক খান বলেন, ‘বৌদ্ধ ধর্ম শান্তির ধর্ম। সব ধর্মেই বলা আছে শান্তি ও সম্পৃতির কথা। আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানও একটি ধর্ম নিরপেক্ষ শান্তি-সমৃদ্ধির বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা দেশে সকল বৌদ্ধমন্দিরের অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য সরকারি সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন। দেশের বাইরেও বৌদ্ধমন্দিরে প্রধানমন্ত্রী সহায়তা প্রদান করেছেন।’

বৌদ্ধ ভিক্ষু সুনিন্দ মিত্র বলেন, ‘মনের শুদ্ধি লাভ করাটাই আজকের দিনের প্রার্থনা। জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক– গৌতম বুদ্ধের এই বাণী মাথায় রেখে বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠা করাই একমাত্র লক্ষ্য।’

অনুষ্ঠানে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধবিহারের অধ্যক্ষ ভদন্ত ধর্মমিত্র মহাথেরর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ও আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস ও শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রদূত সুদর্শন দীপাল সুরেশ সিনিভিরন্তে। বোদ্ধ ধর্মের ভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
রাজবন বিহারে বুদ্ধপূর্ণিমা ১ দিন পর কেন?
বুদ্ধপূর্ণিমা আজ
বুদ্ধপূর্ণিমায় করোনা মুক্তির প্রার্থনা

মন্তব্য

জীবনযাপন
Why Buddhapurnima one day after Rajban Bihar?

রাজবন বিহারে বুদ্ধপূর্ণিমা ১ দিন পর কেন?

রাজবন বিহারে বুদ্ধপূর্ণিমা ১ দিন পর কেন? বাংলাদেশে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের সবচেয়ে পবিত্র তীর্থস্থান হিসেবে খ্যাত রাজবন বিহার।
সোমবার সকাল ৭টায় রাঙ্গামাটি জেলা শিল্পকলা একাডেমি থেকে রাজবন বিহার পর্যন্ত ত্রিপিটিক প্রদক্ষিণ করে আনন্দ শোভাযাত্রা করা হবে। সকাল ৯টায় ভিক্ষু সংঘ মঞ্চে আগমনের মধ্য দিয়ে শুরু হবে বুদ্ধপূর্ণিমার নানা আনুষ্ঠানিকতা।

বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিন বৈশাখী পূর্ণিমা। গৌতম বুদ্ধের ত্রি-স্মৃতিবিজড়িত বৈশাখী পূর্ণিমা উপলক্ষে রোববার বাংলাদেশের বিভিন্ন বৌদ্ধ বিহারে পালিত হয়েছে বুদ্ধপূর্ণিমা।

এর মধ্যে রাঙ্গামাটির নানিয়াচরের রত্নাংকুর বন বিহার, কাপ্তাই চিৎ মরম বৌদ্ধ বিহার, মৈত্রী বন বিহার, চট্টগ্রামের বিভিন্ন বৌদ্ধ বিহারে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিনটিকে উদযাপন করা হয়েছে।

কিন্তু সব বিহারে রোববার বুদ্ধপূর্ণিমা পালিত হলেও দেশে বৌদ্ধদের সবচেয়ে পবিত্র তীর্থস্থান হিসেবে খ্যাত রাঙ্গামাটির রাজবন বিহারে সোমবার পালিত হচ্ছে দিনটি। কিন্তু কেন?

রাজবন বিহারের বয়োজ্যেষ্ঠ কয়েক ভিক্ষু জানান, রোববার দুপুর ১২টা থেকে সোমবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত থাকে বৈশাখী পূর্ণিমা তিথি। এ কারণে রোববার বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপন করলে তা বৈশাখী পূর্ণিমা তিথিতে পড়ে না। এ জন্যই সোমবার রাজবন বিহারে পালিত হতে যাচ্ছে বুদ্ধপূর্ণিমা।

রোববার রাজবন বিহার পরিচালনা কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান বলেন, ‘অনেকে জানেন, আজ যদি বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপন করা হয় তাহলে তিথিতে অনুষ্ঠানটি পড়ে না। ফলে অনুষ্ঠানটি করলেও তেমন মাহাত্ম্য থাকবে না। তাই আগামীকাল বুদ্ধপূর্ণিমা অনুষ্ঠানটি পালিত হবে।’

সারা দেশে যখন বুদ্ধপূর্ণিমা পালিত হচ্ছে, রাজবন বিহার তখন পরের দিন দিবসটি উদযাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। নানা রঙের আলোয় সাজানো হচ্ছে পুরো বিহার।

সোমবার সকাল ৭টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি থেকে রাজবন বিহার পর্যন্ত ত্রিপিটিক প্রদক্ষিণ করে আনন্দ শোভাযাত্রা করা হবে। সকাল ৯টায় ভিক্ষু সংঘ মঞ্চে আগমনের মধ্য দিয়ে শুরু হবে বুদ্ধপূর্ণিমার নানা আনুষ্ঠানিকতা।

রোববার রাজবন বিহারে গিয়ে আশাহত পুণ্যার্থী সুমন চাকমা বলেন, ‘সকালে এসে জানতে পারলাম, তিথি অনুসারে রাজবন বিহারে বুদ্ধপূর্ণিমা পালিত হবে। যার কারণে সকালে এসেও বুদ্ধকে শুধু বন্দনা করে বাড়িতে ফিরে এসেছি।’

আরও পড়ুন:
বুদ্ধপূর্ণিমা আজ
বুদ্ধপূর্ণিমায় করোনা মুক্তির প্রার্থনা

মন্তব্য

জীবনযাপন
Madrasa students have increased in Corona

করোনায় বেড়েছে মাদ্রাসাশিক্ষার্থী

করোনায় বেড়েছে মাদ্রাসাশিক্ষার্থী করোনার মধ্যে গত এক বছরে আলিয়া মাদ্রাসায় শিক্ষার্থী বেড়েছে ১ লাখ ৩ হাজার ৮১৩ জন। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা
করোনার কারণে দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকা এবং অনেক অভিভাবকের আর্থিক অনটনের কারণে মাদ্রাসায় শিক্ষার্থী বাড়ছে বলে মনে করেন শিক্ষাবিদরা।

করোনাকালে দুই দফায় দুই বছরের বেশি সময় ধরে বন্ধ ছিল দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এ সময় দেশের মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীসংখ্যা কমেছে, অপরদিকে মাদ্রাসায় বেড়েছে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা।

বাংলাদেশ শিক্ষাতথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরোর (ব্যানবেইস) ২০২১ সালের খসড়া প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়, যা আনুষ্ঠানিকভাবে চলতি মাসে প্রকাশের কথা রয়েছে।

করোনার তৃতীয় ঢেউয়ে দ্বিতীয় দফায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সশরীরে ক্লাস বন্ধ করা হয় গত ২১ জানুয়ারি। সে দফায় শিক্ষাঙ্গনে সশরীরে ক্লাস বন্ধ থাকে এক মাস। ২২ ফেব্রুয়ারি ষষ্ঠ থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত শিক্ষাঙ্গনগুলো আবার প্রাণচঞ্চল হয়ে ওঠে।

গত ২ মার্চ শুরু হয় প্রাথমিকে সশরীরে ক্লাস। টানা দুই বছর বন্ধের পর গত ১৫ মার্চ প্রাক-প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের সশরীরে ক্লাস শুরু হয়।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব শুরুর পর দুই দফায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হয়। প্রথম দফায় প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর গত বছরের ১২ সেপ্টেম্বর থেকে ধীরে ধীরে খুলতে শুরু করে শিক্ষাঙ্গনের দুয়ার।

ব্যানবেইস থেকে জানা যায়, ২০২১ সালের খসড়া জরিপ অনুযায়ী দেশে বর্তমানে মাদ্রাসার সংখ্যা ৯ হাজার ২৯১টি। এতে শিক্ষার্থী রয়েছে ২৬ লাখ ৫৭ হাজার ২৫২ জন, যা ২০২০ সালের প্রতিবেদন অনুযায়ী ছিল ২৫ লাখ ৫৩ হাজার ৪৩৯ জন। সেই হিসাবে মাদ্রাসার শিক্ষার্থী বেড়েছে ১ লাখ ৩ হাজার ৮১৩ জন। এ পরিসংখ্যান শুধু আলিয়া মাদ্রাসার জন্য প্রযোজ্য। কারণ ব্যানবেইসের কাছে কওমি মাদ্রাসার কোনো তথ্য নেই।

খসড়া প্রতিবেদন অনুযায়ী ২০২০ সালের তুলনায় ২০২১ সালের প্রতিবেদনে মাদ্রাসার সংখ্যা কমার বিষয়টিও উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী দেশে মাদ্রাসার সংখ্যা ৯ হাজার ২৯১টি, যা ২০২০ সালে ছিল ৯ হাজার ৩০৫টি। সেই হিসাবে মাদ্রাসা কমেছে ১৪টি।

প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায়, দেশের মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে এখন মোট শিক্ষার্থী ১ কোটি ১ লাখ ৯০ হাজার ২২ জন, যা ২০২০ সালে ছিল ১ কোটি ২ লাখ ৫২ হাজারের বেশি।

জানতে চাইলে ব্যানবেইসের প্রধান পরিসংখ্যানবিদ মো. আলমগীর বলেন, ‘তথ্যগুলো এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। আশা করছি চলতি মাসেই ২০২১ সালের চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। তখন বিষয়টির বিস্তারিত বলা যাবে।’

মাদ্রাসার শিক্ষার্থী বাড়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমাদের খসড়া প্রতিবেদনে মাদ্রাসায় শিক্ষার্থী বাড়ার তথ্য পেয়েছি। যার বিস্তারিত মূল প্রতিবেদনে থাকবে।’

কওমি মাদ্রাসায় শিক্ষার্থীর তথ্য জানতে চাইলে মো. আলমগীর বলেন, ‘আমরা এবার আমাদের ডাটাবেজে কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের তথ্য অন্তর্ভুক্তির চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু কওমি মাদ্রাসাগুলোর অসহযোগিতার জন্য তা সম্ভব হয়নি।’

শিক্ষাবিদরা যা বলছেন

করোনার কারণে দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকা এবং অনেক অভিভাবকের আর্থিক অনটনের কারণে মাদ্রাসায় শিক্ষার্থী বাড়ছে বলে মনে করেন শিক্ষাবিদরা।

জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সাবেক শিক্ষক অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, ‘পুরো প্রতিবেদনটি না দেখে মন্তব্য করা সমীচীন নয়। তবে মোটাদাগে বলা যায়, করোনার কারণে অনেক পরিবারে আর্থিক দুরবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। এটাও মাদ্রাসায় শিক্ষার্থী বাড়ার অন্যতম কারণ। এছাড়া সামাজিক নানা প্রেক্ষাপট তো রয়েছেই।’

একই ধরনের মন্তব্য করলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক তাহমিনা আক্তার। তিনি বলেন, ‘মূলত দুটি কারণে অভিভাবক তার সন্তানকে মাদ্রাসায় পড়াতে আগ্রহী হয়। একটি ধর্মীয় চিন্তা, অন্যটি আর্থিক অসংগতি। করোনার ফলে অনেক অভিভাবকের আর্থিক টানাপোড়েন সৃষ্টি হয়েছে। এটাও মাদ্রাসায় শিক্ষার্থী বাড়ার অন্যতম কারণ।’

আরও পড়ুন:
আলিমের ফলে বৃত্তি পাবেন ৭৫০ শিক্ষার্থী
মাদ্রাসার বারান্দায় যুবকের মরদেহ
টাকা নিয়ে দিলেন না চাকরি, স্বজনদের নিয়োগের চেষ্টা
কুড়িগ্রামে ২ মাদ্রাসাছাত্রের খোঁজ নেই ৩ দিন

মন্তব্য

উপরে