× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

জীবনযাপন
Which is the biggest Eid congregation in the country
hear-news
player
print-icon

দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত কোনটি

দেশের-সবচেয়ে-বড়-ঈদের-জামাত-কোনটি সংগৃহীত ছবি
কিশোরগঞ্জ আর দিনাজপুর- দুই জেলার মানুষদের মধ্যে ২০১৯ সাল থেকে এক ধরনের প্রতিযোগিতা দেখা যাচ্ছে। সেটি হলো কোথায় ঈদের জামাত কত বড়। কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় প্রায় ২০০ বছর ধরে বিরাট জমায়েত হয়ে আসছে। সেটিকে টেক্কা দিয়ে ২০১৭ সাল থেকে প্রস্তুত করা হয় দিনাজপুরের বিশাল ময়দান গোর-এ শহীদ।

ঈদের জামাতের ক্ষেত্রে কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ার বিশাল জমায়েত যে দেশের সবচেয়ে বড়, এ নিয়ে কোনো প্রশ্ন ছিল না কখনও। তবে কয়েক বছর ধরে দিনাজপুরের গোর-এ শহীদ বড় ময়দানে ২০১৭ সাল থেকে জামাতের আয়োজন করার পর থেকে প্রশ্নটা উঠতে শুরু করে, কোন মাঠে জমায়েতটি সবচেয়ে বড়।

২০১৯ সালে দিনাজপুরের ঈদ জামাত আয়োজনের দায়িত্বে থাকা কমিটি দাবি করে, সে বছর সবচেয়ে বড় জমায়েত হয়েছে গোর-এ শহীদে। এবার সেখানে ছয় লাখ মানুষ নামাজ পড়বে বলে আশা করছেন তারা।

তবে শোলাকিয়ার জামাতসংশ্লিষ্টরা এখনও সবচেয়ে বড় জামাতের দাবি ছাড়ছেন না। তারা বলছেন, শোলাকিয়ার জামাত কেবল বিশাল ময়দানে নয়, ময়দান ছাড়িয়ে আশপাশের কয়েক কিলোমিটার সড়ক এবং ফাঁকা জায়গা, স্কুলের মাঠেও ছড়িয়ে যায়। সব মিলিয়ে গোর-এ শহীদের চেয়ে বেশি মানুষ থাকে এখানে।

শোলাকিয়া ময়দানের নামকরণ হয়েছে ব্রিটিশ আমলে এখন থেকে প্রায় ২০০ বছর আগে ঈদ জামাতকে কেন্দ্র করে। বলা হয়, ওই বছর জামাতে সোয়া লাখ মানুষের জমায়েত হয়েছিল। সেই বিষয়টি ছড়িয়ে যাওয়ার পর বছর বছর মুসল্লির সংখ্যা আরও বেড়েছে।
এই জামাতকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ রেলওয়ে বিশেষ ট্রেনের আয়োজনও করে। আর এমনকি ঈদের আগে থেকেও উত্তরবঙ্গ থেকে মানুষ এসে তাঁবু খাটিয়ে ময়দানে অবস্থান করতে দেখা গেছে। পরিচিত, স্বজনদের বাড়িতেও জামাতকে কেন্দ্র করে অতিথি আসার ঘটনাও এক নিয়মিত চিত্র ছিল।

কিশোরগঞ্জ শহর থেকে পূর্ব দিকে কিলোমিটার দুয়েক দূরে এই শোলাকিয়া ময়দানের অবস্থান। সেখানে বিশাল ময়দান ছাড়াও পাশে ফাঁকা জায়গা, যা গরুর হাট হিসেবে ব্যবহার হয় সেটি ও পাশে একটি স্কুলের বিশাল মাঠ এবং কিলোমিটার দুয়েক সড়কেও হয় এই জামাত।

১৯৫তম ঈদের জামাতের জন্য এবার সেখানে চলছে প্রস্তুতি। বিশাল এই জামাত মূলত হয় ঈদুল ফিতরে। ঈদুল আজহার জমায়েত হয় তুলনামূলক অনেক ছোট।

করোনার জন্য দুই বছর বন্ধ থাকার পর এবার জামাতে আরও বেশি জমায়েতের আশা করছে ঈদগাহ কমিটি।

তবে এই ময়দানের জামাতকে টেক্কা দিতে ২০১৭ সাল থেকে দিনাজপুরে শুরু হয় চেষ্টা। তৈরি করা হয় বড় একটি মিনার। সেবারই হয় বড় আকারের প্রথম জামাত। এর আগের বছরগুলোয় জামাত হলেও সেগুলো হতো ছোট আকারের।

শহরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের পাশে এ ময়দানটি সেনাবাহিনীর। তবে এখানে সাধারণ জনগণ খেলাধুলার পাশাপাশি বিভিন্ন রাজনৈতিক বা সামাজিক-সাংস্কৃতিক কর্মসূচি পালন করতে পারে।

আর ২০১৯ সালে এসে ছয় লাখ মানুষের জমায়েত করার ঘোষণা দিয়ে চলতে থাকে প্রস্তুতি। সে বছর জামাত শেষে বলা হয়, তারা যত মানুষকে জড়ো করবেন ভেবেছিলেন, মুসল্লি এসেছে তার চেয়ে বেশি। ফলে এটিই দেশের বৃহত্তম জামাত।

এরপর ২০২০ ও ২০২১ সালে করোনার কারণে ময়দানে জামাতে ছিল নিষেধাজ্ঞা। ভাইরাসটির তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার পর চলতি বছর আবার দেশের বৃহত্তম জামাত আয়োজনের প্রস্তুতির কথা জানিয়ে প্রচার চলছে।

শোলাকিয়া ময়দানের ধারণক্ষমতা কত
শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠ মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুস সালাম গোলাপ নিউজবাংলাকে বলেন, ময়দানে ২৬৫টি সারি হয়। প্রতিটি সারিতে প্রায় ৫০০ করে মুসল্লি দাঁড়াতে পারেন। সব মিলিয়ে শুধু মাঠের ভেতরেই প্রায় ১ লাখ ৩২ হাজার ৫০০ মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারেন।

তিনি বলেন, ‘এ ছাড়া মাঠের আশপাশের বিভিন্ন খালি জায়গায় মুসল্লিরা নামাজ আদায় করেন। মাঠের সমপরিমাণ মুসল্লি নামাজ আদায় করেন মাঠের পাশের সড়ক ও খোলা জায়গায়।

‘মাঠের পাশ দিয়ে যে রাস্তা রয়েছে, সে রাস্তায়ও প্রায় এক থেকে দেড় কিলোমিটার পর্যন্ত জামাত ছড়িয়ে যায়। সব মিলিয়ে এই ময়দানে প্রায় তিন লাখ মুসল্লি নামাজ আদায় করে থাকেন।’

দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত কোনটি
শোলাকিয়ায় ঈদ জামাত। ফাইল ছবি

দুই বছর করোনার কারণে জামাত না হওয়ায় এবার মুসল্লিদের আগ্রহ আরও বেশি থাকবে বলেও মনে করেন তিনি। ধারণা করছেন, এবার মুসুল্লির পরিমাণ বেড়ে চার লাখ হতে পারে।

সাংবাদিক সাইফউদ্দীন আহমেদ লেনিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ঈদগাহ মাঠ ছাড়াও আশপাশের বাড়িঘর, ফাঁকা জায়গা এবং মাঠের পাশের সড়কেও প্রায় দেড় থেকে দুই কিলোমিটার পর্যন্ত ঈদের জামাত ছড়িয়ে যায়। আকাশের অবস্থা ভালো থাকলে এবার মুসল্লির সংখ্যা আরও বাড়বে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে খবর পাই অনেক জায়গায় নতুন নতুন ঈদগাহ গড়ে উঠেছে, সেখানে শোলাকিয়া ঈদগাহের সঙ্গে তুলনা করার জন্য বা শোলাকিয়া ঈদগাহকে পেছনে ফেলার জন্য প্রতিযোগিতামূলকভাবে বিভিন্ন উপজেলায় বাস পাঠিয়ে লোকজন জড়ো করে থাকেন। কিন্তু শোলাকিয়ার ক্ষেত্রে এমনটা হয় না।

‘এখানে মুসল্লিরা নিজেদের আগ্রহ থেকেই আসেন। ঈদের দু-তিন আগে থেকেই অনেক দূরদূরান্ত থেকে মুসল্লিরা আসেন। তাদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থাও ঈদগাহ কমিটি করে থাকে।’

ঢাকা গুলশান-২ থেকে মাঠে ঘুরতে এসেছেন সুমন মিয়া। তিনি বলেন, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠের গল্প শুনে আসছি। বিভিন্ন টেলিভিশনেও এই মাঠের জামাত দেখেছি। কিন্তু বাস্তবে দেখার সুযোগ হয়নি। এবার এই মাঠে জামাত আদায় করার নিয়ত করেছি। তাই ভাবলাম ঈদের আগে একবার মাঠটি দেখে আসি।’

ঢাকার ভাটারা থেকে মাঠ দেখতে এসেছেন মেহেদী হাসান। সঙ্গে নিয়ে এসেছেন বন্ধুকে। ঈদের আগে ফাঁকা মাঠটি দেখতে এসেছেন তারা।

গোর-এ শহীদে কত মানুষ ধরতে পারে?

দিনাজপুরের এ ময়দানটি আনুমানিক ২২ একর জমিতে। এবার মূল মাঠে দুই শতাধিক কাতার হবে বলে জানিয়েছে আয়োজক কমিটি। প্রতিটি কাতারে ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৩০০ জন মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন। এই হিসাবে ময়দানে ২ লাখ ৪০ হাজার থেকে ২ লাখ ৬০ হাজার মানুষ ধরে।

এই ময়দানে জামাতের উদ্যোক্তাদের একজন স্থানীয় সংসদ সদস্য জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বড় ময়দানের পাশে আরেকটি মাঠ রয়েছে। সেই মাঠেও মুসল্লিরা নামাজ আদায় করবেন। মাঠ দুটি ভর্তি হয়ে গেলে রাস্তায়ও নামাজ পড়তে পারবেন মুসল্লিরা। আমরা আশা করছি, এই জামাতে গোটা দেশের প্রায় লক্ষাধিক মুসল্লি শরিক হবে।’

দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত কোনটি
দিনাজপুর গোর-এ শহীদ বড় ময়দানে ঈদের জামাত। ফাইল ছবি

২০১৭ সালে সেখানে ঈদগাহ মিনারের নির্মাণকাজ শুরু করা হয়। ৫২ গম্বুজের ঈদগাহ মিনার তৈরিতে খরচ হয়েছে ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা।

এই গম্বুজের দুই ধারে ৬০ ফুট করে দুটি মিনার, মাঝের দুটি মিনার ৫০ ফুট করে। ঈদগাহ মাঠের মিনারের প্রথম গম্বুজ অর্থাৎ মেহেরাব (যেখানে ইমাম দাঁড়াবেন) তার উচ্চতা ৪৭ ফিট। এর সঙ্গে রয়েছে আরও ৪৯টি গম্বুজ। এ ছাড়া ৫১৬ ফুট লম্বায় ৩২টি আর্চ নির্মাণ করা হয়েছে।

প্রতিটি গম্বুজ ও মিনারে রয়েছে বৈদ্যুতিক লাইটিং। রাত হলে ঈদগাহ মিনার আলোকিত হয়ে ওঠে।

দুই ময়দানই প্রস্তুত

শোলাকিয়া ও আশপাশে মাঠ প্রস্তুতের কাজ প্রায় শেষ। কিশোরগঞ্জ পৌরসভার কনজারভেন্সি ইন্সপেক্টর আশরাফুল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ১০ রমজান থেকেই এই মাঠ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ শুরু করছি। প্রতিদিন ৫০ জন পরিচ্ছন্নতাকর্মী এখানে কাজ করেছেন। কেউ দাগ কেটেছেন, কেউ দেয়াল ঘষামাজার কাজ করেছেন। কেউ ময়লা অপসারণ করেছেন, কেউ করেছেন রঙের কাজ। মাঠের সব কাজ শেষ হয়েছে।’

দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত কোনটি
ঈদ জামাতের জন্য প্রস্তুত শোলাকিয়া মাঠ। ছবি: নিউজবাংলা

শ্রমিকদের তত্ত্বাবধায়ক হোসেন আলী বলেন, শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠ পরিষ্কারের কাজ করছি। অনেক দূর থেকে মুসল্লিরা এখানে নামাজ পড়তে আসেন। তারা এসে যেন মাঠটি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন দেখেন, এ জন্য আমরা কাজ করেছি।’

শ্রমিক কাঞ্চন মিয়া বলেন, ‘এই মাঠে নামাজ পড়তে আসেন তারা নিজেদের জন্যও দোয়া করেন, পাশাপাশি আমাদের জন্যও দোয়া করেন। তাই মাঠে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ করতে আমাদের ভালো লাগে।’

গোর-এ শহীদও প্রস্তুত পুরোপুরি

সকাল ৯টায় এই জামাতের জন্য এরই মধ্যে মাঠের গর্তগুলো বালু দিয়ে ভরাট করা হয়েছে। মাঠ সমান করার জন্য চালানো হচ্ছে রোলার।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণের কাজও প্রায় শেষ। মাঠের দক্ষিণ অংশে নামাজ পড়ার জন্য আগত মুসল্লিদের যানবাহন রাখার স্থান তৈরি করা হচ্ছে। মাঠে মুসল্লিদের প্রবেশের জন্য তৈরি করা হচ্ছে তোরণ।
মুসল্লিদের অজুখানা ও ভ্রাম্যমাণ টয়লেটের কাজ শেষের দিকে। নামাজের দাঁড়ানোর জন্য কাতারের লাইনের দাগও টানার কাজ চলছে। মাইক বসানোর কাজও চলছে।


বিশাল আয়োজনে নিরাপত্তায় কড়াকড়ি

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ নিউজবাংলাকে জানান, শোলাকিয়ায় মানুষ ঢুকবে ২৮টি প্রবেশপথে। হ্যান্ড মেটাল ডিটেক্টর নিয়ে নিরাপত্তাকর্মীরা মুসল্লিদের দেহ তল্লাশি করে ঢোকার ব্যবস্থা করবেন।

ঈদগাহ ময়দানে প্রবেশ করতে হলে একজন মুসল্লিকে পুলিশের চারটি চেকপোস্ট বা পার হয়ে আসতে হবে। আর ময়দানের ভেতরে ছয়টি ওয়াচ টাওয়ার রয়েছে। তার মধ্যে দুটি ব্যবহার করবে র‌্যাব আর চারটি ব্যবহার করবে পুলিশ।

চারটি ড্রোন ক্যামেরাসহ ছয়টি ভিডিও ক্যামেরা থাকবে। মাঠে প্রবেশ ও বাহিরের পথ নামাজের আগের দিন জানিয়ে দেয়া হবে।

তিনি জানান, মাঠে ফায়ার সার্ভিস, ছয়টি অ্যাম্বুলেন্সসহ মেডিক্যাল টিম, পুলিশের কুইক রেসপন্স টিম থাকবে। পুরো ময়দান সুইপ করা হবে। বোমা শনাক্ত ও নিষ্ক্রিয়করণের একটি দল ঢাকা থেকে শোলাকিয়া মাঠে মেটাল ডিটেক্টরের সাহায্যে বিশেষ অনুসন্ধান চালাবে। মাঠের নিরাপত্তার জন্য পাঁচ প্লাটুন বিজিবি চাওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা কাজ করবেন। সাদা পোশাকে পুলিশ কাজ করবে।

ঈদগাহ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম নিউজবাংলাকে বলেন, প্রত্যেককে নামাজের বিছানা এবং মাস্ক পরে মাঠে প্রবেশ করতে হবে। নিরাপত্তার স্বার্থে মোবাইলটিও রেখে আসতে হবে।

গোর-এ শহীদের নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনা নিয়ে দিনাজপুর পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘মাঠকে ঘিরে কড়া নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতিটি মুসল্লিকে তল্লাশি করে মাঠে প্রবেশ করতে দেয়া হবে। এ জন্য মেটাল ডিটেক্টর নিয়ে মাঠে থাকবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

‘পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, এনএসআই, ডিজিএফআই , ডিএসবিসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা মোতায়েন থাকবেন। মাঠের আইনশৃঙ্খলা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে ওয়াচ টাওয়ার থেকে। শহরের বিভিন্ন স্থানে স্থাপিত সিসিটিভি ক্যামেরাগুলো সার্বক্ষণিক মনিটর করা হবে। শহরের প্রবেশের সব পথেও তল্লাশি চৌকি স্থাপনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ঈদ জামাতের জন্য প্রস্তুত তেঁতুলতলা মাঠ
দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত কোনটি
ঈদযাত্রার শেষ দিনে চাপ নেই ঘাটে
ঈদের প্রত্যাশাগুলো
রংপুরে ঈদে চাঙা ভোটের রাজনীতি

আরও পড়ুন

জীবনযাপন
This time most of the pilgrims are in Dhaka

এবার হজযাত্রী সবচেয়ে বেশি ঢাকায়

এবার হজযাত্রী সবচেয়ে বেশি ঢাকায় ফাইল ছবি
নিবন্ধন করেছেন মোট ৫৪ হাজার ৭০০ জন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যেতে নিবন্ধিত হজযাত্রীর সংখ্যা ২ হাজার ৮৪৯ এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৫১ হাজার ৮৫১ জন

এ বছর হজে যেতে সবচেয়ে বেশি নিবন্ধন হয়েছে ঢাকা জেলা থেকে। আর পার্বত্য জেলা বান্দারবান থেকে হয়েছে সবচেয়ে কম নিবন্ধন। বান্দরাবানের ৩৬ জন আর ঢাকা জেলা থেকে ১১ হাজার ১৬ জন হজে যাবেন।

২৩ মে পর্যন্ত নিবন্ধিত যাত্রীদের তালিকা থেকে এ তথ্য জানা যায়। ওই দিন পর্যন্ত মোট নিবন্ধন করেছেন মোট ৫৪ হাজার ৭০০ জন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যেতে নিবন্ধিত হজযাত্রীর সংখ্যা ২ হাজার ৮৪৯ এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৫১ হাজার ৮৫১ জন

বান্দারবান ছাড়াও এবার একশ’র নিচে হজযাত্রীর নিবন্ধন হয়েছে আরও তিন জেলায়। এর মধ্যে বরগুনায় ৯৭, খাগড়াছড়িতে ৬১ এবং রাঙামাটিতে ৪১ জন নিবন্ধন করেছেন।

ঢাকা ছাড়া এবার হাজারের উপরে হজযাত্রী নিবন্ধন করেছেন আরও ১৪ জেলায়। এর মধ্যে চট্টগ্রামে ৩ হাজার ৬০৮, কুমিল্লায় ২ হাজার ২০৭, দিনাজপুরে ১ হাজার ৩০৭, গাজীপুরে ১ হাজার ৩১৯, জামালপুরে ১ হাজার ১০২, ময়মনসিংহে ১ হাজার ৪০৪, নওগাঁয় ১ হাজার ৫৩৩, নারায়ণগঞ্জে ১ হাজার ২৬৫, পাবনায় ১ হাজার ৩৭২, রাজশাহীতে ১ হাজার ৮৮২, রংপুরে ১ হাজার ১৩৫, সিরাজগঞ্জে ১ হাজার ৬২১, বগুড়ায় ২ হাজার ২৬৩, এবং টাঙ্গাইল থেকে নিবন্ধন করেছেন ১ হাজার ৩৪৫ জন।

এ ছাড়াও এ বছর বাগেরহাটে ২০২, বরিশালে ৫৬৫, ভোলায় ৩১৭, ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় ৭১৩, চাঁদপুরে ৭১৫, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৬১৬, চুয়াডাঙ্গায় ৩১০, কক্সবাজারে ৩৪৯, ফরিদপুরে ৪৮১, ফেনীতে ৬৭৫, গাইবান্ধায় ৮১৩, গোপালগঞ্জ ২৪৮, হবিগঞ্জে ৩১৬, যশোরে ৭৯৪, ঝালকাঠিতে ১২৩, ঝিনাইদহে ৪০৯, জয়পুরহাটে ৬৬৬, খুলনায় ৭৫১, কিশোরগঞ্জে ৬২৪, কুড়িগ্রামে ৬৭৪, কুষ্টিয়ায় ৫১৯, লক্ষ্মীপুরে ৪১৪, লালমনিরহাটে ২৫৯, মাদারীপুর ৩৯৬, মাগুরায় ১৯৮, মানিকগঞ্জে ৩৭০, মৌলভিবাজারে ১২৫, মেহেরপুরে ১৫৭, মুন্সিগঞ্জে ৩৪৯, নড়াইলে ১৬৪, নরসিংদীতে ৬৮৬, নাটোরে ৮৬১, নেত্রকোনায় ৪৩৮, নীলফামারীতে ২৮৭, নোয়াখালিতে ৯৪২, পঞ্চগড়ে ২৮৯, পটুয়াখালিতে ৩৬৪, পিরোজপুরে ১৪৯, রাজবাড়ীতে ১৯৮, সাতক্ষীরায় ৫৬৭, শরীয়তপুরে ৩১২, শেরপুরে ৬৬৫, সুনামগঞ্জে ১৪৬, সিলেটে ৪৮৩ এবং ঠাকুরগাঁও থেকে নিবন্ধন করেছেন ৩৮৭।

প্রথমে ৩১ মে থেকে হজ ফ্লাইট শুরুর কথা থাকলেও সৌদি কর্তৃপক্ষের প্রস্তুতি শেষ না হওয়া ঢাকা থেকে হজের প্রথম ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে আগামী ৫ জুন থেকে। হজ যাত্রীদের নিবন্ধন প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে মঙ্গলবার।

স্বাভাবিক সময়ে প্রতি বছর সারা বিশ্বের ২০ থেকে ২৫ লাখ মুসল্লি পবিত্র হজ পালনের সুযোগ পেয়ে থাকেন। কিন্তু করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে গত দুই বছর সৌদি আরবের বাইরের কেউ হজ করার সুযোগ পাননি। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় সৌদি সরকার এবার সারা বিশ্বের ১০ লাখ মানুষকে হজ পালনের অনুমতি দিচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে এ বছর সাড়ে ৫৭ হাজার মুসল্লি হজব্রত পালনে সৌদি আরবে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন ৪ হাজার মুসল্লি। বাকিরা যাবেন বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়।

এবার সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের জন্য দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ প্যাকেজটি হলো ৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা। সর্বনিম্নটি ৪ লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকার।

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালনে জনপ্রতি ন্যূনতম খরচ ৪ লাখ ৬৩ হাজার ৭৪৪ টাকা নির্ধারণ করেছে হজ এজেন্সিস অফ বাংলাদেশ (হাব)।

এবার হজ হতে পারে ৮ জুলাই (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে)। সৌদি আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী ৫৭ হাজার হজযাত্রীর অর্ধেক বহন করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। বাকি অর্ধেক করবে সৌদি রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইনস ও ফ্লাই নাস।


রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান এ বছর ৭৫টি ডেডিকেটেড ফ্লাইটের মাধ্যমে ৩১ হাজার যাত্রী বহন করবে। যাত্রী পরিবহনে গত বছরগুলোর মতোই বহরে থাকা বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ ব্যবহার করা হবে।

আরও পড়ুন:
হজ ফ্লাইট ৫ জুন থেকেই, প্রস্তুত বিমান
৫ জুন হজ ফ্লাইট শুরু করতে চিঠি
দুই বছর পর রং চড়ছে আশকোনার হজক্যাম্পে

মন্তব্য

জীবনযাপন
Hajj flight is ready from 5th June

হজ ফ্লাইট ৫ জুন থেকেই, প্রস্তুত বিমান

হজ ফ্লাইট ৫ জুন থেকেই, প্রস্তুত বিমান
ফরিদুল হক খান বলেন, ‘আগামী ৫ জুন থেকে ফ্লাইট শুরু করতে আমরা বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয়ে পত্র দিয়েছি। ৩১ মের স্লট স্থানান্তর করে ৫ জুনে স্থানান্তর করা হয়েছে।’

হজ ফ্লাইট ৩১ মে উদ্বোধনের কথা থাকলেও তা থেকে সরে গিয়ে ৫ জুন প্রথম এবং সেদিন থেকেই নিয়মিত ফ্লাইটের কথা জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান।

সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে মঙ্গলবার তিনি এ কথা জানান।

তিনি বলেন, ‘আগামী ৫ জুন থেকে ফ্লাইট শুরু করতে আমরা বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয়ে পত্র দিয়েছি। ৩১ মের স্লট স্থানান্তর করে ৫ জুনে স্থানান্তর করা হয়েছে।’

গতকাল সোমবারও তিনি বলেছিলেন, ৩১ মে থেকে তারা হজের ফ্লাইট শুরু করবেন। সেদিন উদ্বোধনী একটা ফ্লাইট যাবে, তারপর নিয়মিত ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে ৫ জুন থেকে।

বিষয়টি সবিস্তারে তুলে ধরে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেন, ‘রুট টু মক্কা ইনিশিয়েটিভের আওতায় ২০২২ সালের পবিত্র হজে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সৌদি আরবগামী শতভাগ হজযাত্রীর সৌদি আরবের ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন হওয়ার সিদ্ধান্ত রয়েছে। এ বিষয়ে সৌদি কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ৩১ মে প্রথম হজ ফ্লাইট পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল। এ লক্ষ্যে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে।

‘কিন্তু গতকাল রুট টু মক্কা ইনিশিয়েটিভ বাস্তবায়নকারী সৌদি কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধি ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ে এসে জানান যে রুট টু মক্কা ইনিশিয়েটিভের জন্য ৪০ জনের সৌদি টিম আগামী ২ জুনের আগে ঢাকায় এসে পৌঁছাতে পারবে না। প্রি-এরাইভাল ইমিগ্রেশন কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় ডিভাইস বা যন্ত্রপাতি এখনো ঢাকায় এসে পৌঁছেনি। এসব ডিভাইস বা যন্ত্রপাতি সৌদি টিমের সঙ্গে ঢাকায় আসবে। এগুলো শাহজালালে ইনস্টল করতে কিছু সময় লাগবে। আগের সিদ্ধান্ত অনুসারে ৩১ মের প্রথম হজ ফ্লাইট শুরু করা হলে বাংলাদেশের হজযাত্রীদের প্রি-এরাইভাল ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন করা সম্ভব হবে না।’

তিনি বলেন, ‘সৌদি বাংলাদেশ দ্বিপক্ষীয় হজচুক্তি অনুসারে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে হজে গমনকারী বাংলাদেশের সব হজযাত্রী ডেডিকেটেড হজ ফ্লাইটে সৌদি আরব গমন করবেন এবং একই সঙ্গে ঢাকায় তাদের প্রি-এরাইভাল ইমিগ্রেশন সম্পন্ন করা হবে।

‘এ অবস্থায় ৩১ তারিখের পরিবর্তে আগামী ৫ জুন থেকে হজ ফ্লাইট শুরু করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বেসরকারি বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়কে ইতোমধ্যে চিঠির মাধ্যমে অনুরোধ করা হয়েছে।’

প্রস্তুত বিমান

৫ জুন থেকে হজ ফ্লাইট শুরু করতে নিজেদের প্রস্তুতির কথাও জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান চলাচল প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী।

মঙ্গলবার তিনি বলেন, ‘৫ জুন হজ ফ্লাইট চালু হলেও আমরা প্রস্তুত। আমাদের প্রস্তুতি আছে। যদি ৫ তারিখ থেকে হয় করতে পারব। ৩১ মের জন্যও আমরা প্রস্তুত আছি। আমাদের এন্ড থেকে আমরা প্রস্তুত।’

স্বাভাবিক সময়ে প্রতি বছর সারা বিশ্বের ২০ থেকে ২৫ লাখ মুসল্লি পবিত্র হজ পালনের সুযোগ পেয়ে থাকেন। কিন্তু করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে গত দুই বছর সৌদি আরবের বাইরের কেউ হজ করার সুযোগ পাননি। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় সৌদি সরকার এবার সারা বিশ্বের ১০ লাখ মানুষকে হজ পালনের অনুমতি দিচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে এ বছর সাড়ে ৫৭ হাজার মুসল্লি হজব্রত পালনে সৌদি আরবে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন ৪ হাজার মুসল্লি। বাকিরা যাবেন বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়।

এবার সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের জন্য দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ প্যাকেজটি হলো ৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা। সর্বনিম্নটি ৪ লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকার।

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালনে জনপ্রতি ন্যূনতম খরচ ৪ লাখ ৬৩ হাজার ৭৪৪ টাকা নির্ধারণ করেছে হজ এজেন্সিস অফ বাংলাদেশ (হাব)।

এবার হজ হতে পারে ৮ জুলাই (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে)। সৌদি আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী ৫৭ হাজার হজযাত্রীর অর্ধেক বহন করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। বাকি অর্ধেক করবে সৌদি রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইনস ও ফ্লাই নাস।

রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান এ বছর ৭৫টি ডেডিকেটেড ফ্লাইটের মাধ্যমে ৩১ হাজার যাত্রী বহন করবে। যাত্রী পরিবহনে বিগত বছরগুলোর মতোই বহরে থাকা বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ ব্যবহার করা হবে।

আরও পড়ুন:
লক্ষ্য এবারও মৌসুমের প্রথম হজ ফ্লাইট পরিচালনা
হাজিদের সেবায় সৌদি যাচ্ছেন ৫৩২ কর্মকর্তা
ড্রুক এয়ারের ঢাকা-পারো ফ্লাইট শুরু ১ জুলাই
হজ কারিগরি দল গঠন
হজ নিবন্ধনের সময় বাড়ল

মন্তব্য

জীবনযাপন
Letter to start Hajj flight on 5th June

৫ জুন হজ ফ্লাইট শুরু করতে চিঠি

৫ জুন হজ ফ্লাইট শুরু করতে চিঠি ফাইল ছবি
প্রায় দুই বছর পর এবার বাংলাদেশ থেকে সৌদি আরবে হজ পালনের সুযোগ পাচ্ছেন মুসল্লিরা। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় সৌদি সরকার এবার সারা বিশ্বের ১০ লাখ মানুষকে হজ পালনের অনুমতি দিচ্ছে।

সৌদি কর্তৃপক্ষ প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে পারেনি জানিয়ে আগামী ৫ জুন থেকে চলতি মৌসুমের হজ ফ্লাইট শুরু করতে বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

সোমবার বিমান সচিবের কাছে এই চিঠি পাঠানো হয়।

এতে বলা হয়েছে, ‘রুট টু মক্কা ইনিশিয়েটিভ’র আওতায় এবারের হজে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সৌদি আরবগামী শতভাগ হজযাত্রীর সৌদি আরবের ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন হওয়ার কথা।

কিন্তু সোমবার রুট টু মক্কা ইনিশিয়েটিভ বাস্তবায়নকারী সৌদি কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধি ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে এসে জানায়, ৪০ জনের সৌদি টিম ঢাকায় আগামী ২ জুনের আগে পৌঁছাতে পারবে না।

চিঠিতে বলা হয়, প্রি-অ্যারাইভাল ইমিগ্রেশন কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় ডিভাইস/যন্ত্রপাতি এখনও ঢাকায় এসে পৌঁছায়নি। এ সব ডিভাইস/যন্ত্রপাতি সৌদি টিমের সঙ্গে ঢাকায় আসবে। এগুলো হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইনস্টল করতে হবে। এতে কিছু সময় লাগবে।

এতে বলা হয়, ফলে আগামী ৫ তারিখের আগে তাদের পক্ষে ঢাকা থেকে হজযাত্রীদের প্রি-অ্যারাইভাল ইমিগ্রেশন সম্পন্ন করা সম্ভব হবে না। এ কারণে ৩১ মের পরিবর্তে আগামী ৫ জুন থেকে হজ ফ্লাইট শুরু করা প্রয়োজন।

প্রায় দুই বছর পর এবার বাংলাদেশ থেকে সৌদি আরবে হজ পালনের সুযোগ পাচ্ছেন মুসল্লিরা। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় সৌদি সরকার এবার সারা বিশ্বের ১০ লাখ মানুষকে হজ পালনের অনুমতি দিচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে এ বছর সাড়ে ৫৭ হাজার মুসল্লি হজ পালনে সৌদি আরবে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন ৪ হাজার মুসল্লি। বাকিরা যাবেন বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়।

এবার সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের জন্য দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ প্যাকেজটি হলো ৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা। সর্বনিম্নটি ৪ লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকার।

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালনে জনপ্রতি ন্যূনতম খরচ ৪ লাখ ৬৩ হাজার ৭৪৪ টাকা নির্ধারণ করেছে হজ এজেন্সিস অফ বাংলাদেশ (হাব)।

এবার হজ হতে পারে ৮ জুলাই (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে)। সৌদি আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী ৫৭ হাজার হজযাত্রীর অর্ধেক বহন করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। বাকি অর্ধেক করবে সৌদি রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইনস ও ফ্লাই নাস।

রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান এ বছর ৭৫টি ডেডিকেটেড ফ্লাইটের মাধ্যমে ৩১ হাজার যাত্রী বহন করবে। যাত্রী পরিবহনে বগত বছরগুলোর মতই বহরে থাকা বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ ব্যবহার করা হবে।

আরও পড়ুন:
দুই বছর পর রং চড়ছে আশকোনার হজক্যাম্পে
হজের নিয়মিত ফ্লাইট ৫ জুন থেকে
ডেডিকেটেড ফ্লাইটে হজযাত্রী পরিবহনের নির্দেশ

মন্তব্য

জীবনযাপন
After two years the Hajj camp in Ashkona is in full swing

দুই বছর পর রং চড়ছে আশকোনার হজক্যাম্পে

দুই বছর পর রং চড়ছে আশকোনার হজক্যাম্পে রোববার দুপুরে রাজধানীর আশকোনার হজক্যাম্পে গিয়ে দেখা যায়, ভেতরে ধোয়া-মোছার কাজ করছেন শ্রমিকরা। ছবি: নিউজবাংলা
৩১ মে থেকে হজযাত্রা শুরু হবে। তাই ঢাকার হজক্যাম্পে এখন ব্যাপক প্রস্তুতি। রোববার দুপুরে হজ ক্যাম্পে গিয়ে দেখা যায়, ভেতরে ধোয়া-মোছার কাজ করছেন শ্রমিকরা। কেউ কেউ রং করছেন দেয়ালে। কেউবা বাথরুম ঠিক করছেন। কয়েকজনকে দেখা যায় দেয়ালে প্লাস্টার করতে।

করোনা মহামারির কারণে গত দুই বছর হজযাত্রা বন্ধ ছিল। তাই কোনো ব্যস্ততা ছিল না রাজধানীর আশকোনার হজক্যাম্পে। তবে এবার পরিস্থিতি ভিন্ন। এবার বাংলাদেশ থেকে ৫৭ হাজারের বেশি মানুষ অংশ নিচ্ছেন হজযাত্রায়।

আর কয়েক দিন পরই শুরু হবে হজ ফ্লাইট। তাই ধুয়ে-মুছে সাফসুতরো করার কাজ চলছে হজক্যাম্পে।

রোববার দুপুরে হজক্যাম্পে গিয়ে দেখা যায়, ভেতরে ধোয়া-মোছার কাজ করছেন শ্রমিকরা। কেউ কেউ রং করছেন দেয়ালে। কেউবা বাথরুম ঠিক করছেন। কয়েকজনকে দেখা যায় দেয়ালে প্লাস্টার করতে।

সেখানে কাজ করা শ্রমিক আব্দুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘১২ থেকে ১৪ দিন ধরে এখানে সব ধরনের স্যানিটারির কাজ করছি। এই কাজ করছেন ৬০ জনের বেশি শ্রমিক। দুই দলে ভাগ হয়ে কাজ করছি। দুই-এক দিনের মধ্যেই কাজ শেষ হবে আমাদের। ক্যাম্পের ভেতরে সব রুম, বাথরুম থেকে শুরু করে পুরা হজক্যাম্প পরিপাটি করা হচ্ছে।’

দুই বছর পর রং চড়ছে আশকোনার হজক্যাম্পে

রাজধানীর আশকোনার হজ ক্যাম্প। ছবি: নিউজবাংলা

হজযাত্রীদের সেবা দিতে সৌদি আরব যাচ্ছেন ৫৩২ কর্মকর্তা-কর্মচারী। স্বাভাবিক সময়ে প্রতি বছর ২০ থেকে ২৫ লাখ মুসল্লি পবিত্র হজ পালনের সুযোগ পেয়ে থাকেন। কিন্তু করোনা মহামারির কারণে গত দুই বছর সৌদি আরবের বাইরের কেউ হজ করার সুযোগ পাননি। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় সৌদি সরকার এবার সারা বিশ্বের ১০ লাখ মানুষকে হজ পালনের অনুমতি দিচ্ছে।

এবার সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের জন্য দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ প্যাকেজটি হলো ৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা। আর সর্বনিম্নটি হলো ৪ লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকা।

প্রথম হজ ফ্লাইট ৩১ মে ঢাকা ছেড়ে যাওয়ার কথা। শুরুর ফ্লাইটে ৪১৯ জন হজযাত্রী সৌদি আরবে যাওয়ার কথা রয়েছে।

হজের সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে যুগ্ম সচিব ও হজ অফিস ঢাকার পরিচালক মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘এ বছর ৫৩ হাজার ৫৮৫ জন হজযাত্রী বেসরকারিভাবে এবং ৪ হাজার সরকারিভাবে হজে যাচ্ছেন। আমাদের সময় যেহেতু অল্প, তাই অনেক চ্যালেঞ্জ আছে। সেই চ্যালেঞ্জগুলোকে পাশে রেখেই কাজগুলো আমাদের করতে হচ্ছে। আশা করছি সময়মতো সব কিছু আমরা শেষ করতে পারব। এরই মধ্যে নিবন্ধিত হজযাত্রীর সংখ্যাও প্রায় সব পেয়ে গেছি।’

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীরা জুন মাসের ১০ তারিখ থেকে যাবেন। এর আগের কয়েক দিনে সরকারি ব্যবস্থাপনার হজ যাত্রীরা যাবেন বলে জানান সাইফুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘হজক্যাম্পকে আগের থেকে অনেক পরিপাটি করা হয়েছে। আমাদের মসজিদে এসি ছিল না। ডরমেটরিতে এসি ছিল না। গরমের কথা বিবেচনা করে আমরা চিন্তা করছি এসি না থাকলে সম্মানিত হজযাত্রীরা কষ্ট পাবেন। এ জন্য আমরা সব ব্যবস্থা করেছি।

দুই বছর পর রং চড়ছে আশকোনার হজক্যাম্পে

করোনা মহামারির কারণে গত দুই বছর হজযাত্রা বন্ধ থাকার পর এবার বাংলাদেশ থেকে ৫৭ হাজারের বেশি মানুষ অংশ নিচ্ছেন হজযাত্রায়। তাই রাজধানীর আশকোনা হজক্যাম্পে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি। হজক্যাম্পের ভেতরে ধোয়া-মোছার কাজ করছেন শ্রমিকরা। ছবি: নিউজবাংলা

‘বাংলাদেশ বিমানের হজযাত্রীরা শুধু এখানে বোডিং কার্ড নিতেন এবং ইমিগ্রেশন হতো। এখন সৌদি এয়ারলাইনসের যাত্রীরাও এখানে আসবেন। এখানে চেকিং হবে। তারা বোর্ডিং কার্ড নেবেন এবং ইমিগ্রেশন হবে। সে জন্য এখানে যা যা করা দরকার, স্থাপনা করা দরকার সব করেছি। চট্টগ্রাম ও সিলেট বাদে আমাদের এখান থেকে যত যাত্রী ফ্লাই করবেন, সবাইকে আমরা ইনস্টিটিউটের আওতায় আনতে পারব। তিনটি এয়ারলাইনসেই এখান থেকে হজযাত্রীদের চেকিং, ইমিগ্রেশন হবে।’

হজযাত্রীরা ঢাকার হজক্যাম্পে কবে থেকে আসা শুরু করবেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘৩১ মে ফ্লাইট শুরু হওয়ায় ঢাকার বাইরের যাত্রীদের তিন দিন আগে আসার জন্য আমরা অনুরোধ করব। ঢাকার হাজিদের আমরা বলে থাকি ফ্লাইট ছাড়ার সাত-আট ঘণ্টা আগে এলেই চলবে। আশা করছি হজযাত্রীরা ২৮ মে বিকেলে অথবা ২৯ মে সকাল থেকে আসা শুরু করবেন। তাদের থাকার জন্য সকল ধরণের প্রস্তুতি আমাদের আছে। আমাদের এখানে দুটা ক্যান্টিন আছে। সেখানে তারা নিজ ব্যবস্থাপনায় খাবেন।’

এবার হজ হতে পারে ৮ জুলাই (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে)। সৌদি আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী ৫৭ হাজার হজযাত্রীর অর্ধেক পরিবহন করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। বাকি অর্ধেক বহন করবে সৌদি রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইনস ও ফ্লাই নাস।

রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান এ বছর ৭৫টি ডেডিকেটেড ফ্লাইটের মাধ্যমে ৩১ হাজার যাত্রী বহন করবে। যাত্রী পরিবহনে বিগত বছরগুলোর মতোই বহরে থাকা বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ ব্যবহার করা হবে।

আরও পড়ুন:
হজযাত্রীদের প্যাকেজ নির্বাচনের সময় বাড়ল
হজ নিবন্ধনের সময় বাড়ল
দরপত্রে ‘কারসাজি করে’ ট্রেনের টিকিট ব্যবস্থাপনায় সহজ
হজযাত্রীদের স্বার্থে শনিবার ব্যাংক খোলা
হজযাত্রীদের পাসপোর্টের মেয়াদ থাকতে হবে ৪ জানুয়ারি পর্যন্ত

মন্তব্য

জীবনযাপন
Regular Hajj flights from 5 June

হজের নিয়মিত ফ্লাইট ৫ জুন থেকে

হজের নিয়মিত ফ্লাইট ৫ জুন থেকে
ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেন, ‘আজকে (সোমবার) সৌদি সরকারের কর্মকর্তারা আমাদের এখানে এসেছিলেন। আমাদের একটি মিটিং হয়েছে। আমরাও একটি মিটিং করব, এরপর আমরা সিদ্ধান্ত নেব।’

চলতি মৌসুমের হজ ফ্লাইট ৩১ মে উদ্বোধন হলেও নিয়মিত ফ্লাইট শুরু হচ্ছে আরও দেরিতে। তাই অপেক্ষা করতে হবে হজ যাত্রীদের। ৫ জুন থেকে নিয়মিত হজ ফ্লাইট শুরু হতে পারে বলে জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান।

অবশ্য সূচি চূড়ান্ত না হলেও আগামীকাল মঙ্গলবার তা চূড়ান্ত হবে বলে জানান তিনি।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আজকে (সোমবার) সৌদি সরকারের কর্মকর্তারা আমাদের এখানে এসেছিলেন। আমাদের একটি মিটিং হয়েছে। আমরাও একটি মিটিং করব, এরপর আমরা সিদ্ধান্ত নেব।

‘৫ জুন থেকে ফ্লাইট হবেই। আমাদের একটি বিষয় ঠিক করা আছে যে, ৩১ মে প্রথম ফ্লাইট করব; আর ৫ জুন থেকে বাকি ফ্লাইটগুলো শুরু করব।’

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারাও বলছেন, চূড়ান্ত ফ্লাইট শুরু হতে পারে ৫ জুন থেকে।

প্রায় দুই বছর পর এবার বাংলাদেশ থেকে সৌদি আরবে হজ পালনের সুযোগ পাচ্ছেন মুসল্লিরা। এবার হজ মৌসুমে সৌদি আরবে হজযাত্রীদের নিয়ে হাজির হওয়া প্রথম ফ্লাইট হতে চায় বাংলাদেশ। সে লক্ষ্য নিয়ে এগোনোর কথা জানায় ধর্ম মন্ত্রণালয়।

২০১৫ সালে মৌসুমের প্রথম হজ ফ্লাইট পরিচালনা করে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস।

এরই মধ্যে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের প্রস্তাবিত হজ সূচিতে অনুমোদনও দিয়েছে সৌদি সরকার।

উদ্বোধনী ফ্লাইটের পর আরও কিছু সময় চূড়ান্ত ফ্লাইটের জন্য অপেক্ষা করতে হতে পারে এমন ধারণা দিয়েছে বিমান কর্তৃপক্ষও।

বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু সালেহ মোস্তফা কামাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ৩১ মের উদ্বোধনী ফ্লাইটের জন্য প্রস্তুত আছি। তারপরও যেভাবে ধর্ম মন্ত্রণালয় আমাদের বলেছে যে, গ্যাপ দিয়ে মনে হয় বাকিগুলো করতে পারবে, আমরা সেভাবেই ঠিক রেখেছি। আমাদের দিক থেকে প্রস্তুত আছি।

‘আমরা যেভাবে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের কাছে ফ্লাইট চেয়েছি বা বলেছি, সেভাবেই অনুমোদন পাওয়া গেছে। আমরা অনুমোদিত সিডিউল পেয়েছি, আমরা আমাদের দিক থেকে প্রস্তুত আছি।’

স্বাভাবিক সময়ে প্রতি বছর সারা বিশ্বের ২০ থেকে ২৫ লাখ মুসল্লি পবিত্র হজ পালনের সুযোগ পেয়ে থাকেন। কিন্তু করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে গত দুই বছর সৌদি আরবের বাইরের কেউ হজ করার সুযোগ পাননি। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় সৌদি সরকার এবার সারা বিশ্বের ১০ লাখ মানুষকে হজ পালনের অনুমতি দিচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে এ বছর সাড়ে ৫৭ হাজার মুসল্লি হজব্রত পালনে সৌদি আরবে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন ৪ হাজার মুসল্লি। বাকিরা যাবেন বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়।

এবার সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের জন্য দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ প্যাকেজটি হলো ৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা। সর্বনিম্নটি ৪ লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকার।

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালনে জনপ্রতি ন্যূনতম খরচ ৪ লাখ ৬৩ হাজার ৭৪৪ টাকা নির্ধারণ করেছে হজ এজেন্সিস অফ বাংলাদেশ (হাব)।

এবার হজ হতে পারে ৮ জুলাই (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে)। সৌদি আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী ৫৭ হাজার হজযাত্রীর অর্ধেক বহন করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। বাকি অর্ধেক করবে সৌদি রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইনস ও ফ্লাই নাস।

রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান এ বছর ৭৫টি ডেডিকেটেড ফ্লাইটের মাধ্যমে ৩১ হাজার যাত্রী বহন করবে। যাত্রী পরিবহনে বিগত বছরগুলোর মতোই বহরে থাকা বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ ব্যবহার করা হবে।

আরও পড়ুন:
ডেডিকেটেড ফ্লাইটে হজযাত্রী পরিবহনের নির্দেশ
হজযাত্রীদের প্যাকেজ নির্বাচনের সময় বাড়ল
লক্ষ্য এবারও মৌসুমের প্রথম হজ ফ্লাইট পরিচালনা
হাজিদের সেবায় সৌদি যাচ্ছেন ৫৩২ কর্মকর্তা
ড্রুক এয়ারের ঢাকা-পারো ফ্লাইট শুরু ১ জুলাই

মন্তব্য

জীবনযাপন
The Muslim MLA played the chewed sweets of the Dalit priest

দলিত পুরোহিতের চিবানো মিষ্টি খেলেন মুসলিম বিধায়ক

দলিত পুরোহিতের চিবানো মিষ্টি খেলেন মুসলিম বিধায়ক বিধানসভার সদস্য জামির আহমেদের অনুরোধে নিজের চিবানো মিষ্টি এমএলএ-র মুখে পুড়ে দেন দলিত পুরোহিত। ছবি: এনডিটিভি
ভারতে হিন্দু-মুসলিমসহ বিভিন্ন ধর্মীয় ইস্যুগুলোকে উসকে দিয়ে ফায়দা আদায় করা রাজনীতিকদের উদ্দেশ করে বিধায়ক জামির আহমেদ খান বলেন, ‘বিভিন্ন ধর্মীয় উগ্রবাদী দল ভারতের মাটিতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের অপচেষ্টা চালাচ্ছে।’

সম্প্রীতি আর ভ্রাতৃত্বের বার্তা দিতে এবার দলিত পুরোহিতের চিবানো মিষ্টি হাসিমুখে খেয়ে নিলেন ভারতের এক মুসলিম রাজনীতিবিদ।

বেঙ্গালুরুর চামরাজপেট আসনের বিধায়ক (এমএলএ) জামির আহমেদ খান রোববার দলিত সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উৎসব আম্বেদকর জয়ন্তী এবং মুসলমানদের ঈদে মিলন উপলক্ষে একটি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন।

সেখানে বক্তব্য দেয়ার মাঝে একটি মিষ্টি তিনি তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা পুরোহিতকে খাইয়ে দেন। এরপর পুরোহিতকে চিবানো মিষ্টি মুখ থেকে বের করে তার মুখে দেয়ার অনুরোধ করেন এমএলএ নিজেই।

এতে পুরোহিত কিছুটা ঘাবড়ে গেলেও দেশটির পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ বিধানসভার সদস্যের অনুরোধে নিজের চিবানো মিষ্টি পুড়ে দেন এমএলএ-র মুখে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভ্রাতৃত্বের বন্ধন তুলে ধরতে বিধায়কের এমন দৃষ্টান্তমূলক সম্প্রীতির ভিডিও এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে।

ভারতে হিন্দু-মুসলিমসহ বিভিন্ন ধর্মীয় ইস্যুগুলোকে উসকে দিয়ে ফায়দা আদায় করা রাজনীতিকদের উদ্দেশ করে বিধায়ক জামির আহমেদ খান বলেন, ‘বিভিন্ন ধর্মীয় উগ্রবাদী দল ভারতের মাটিতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের অপচেষ্টা চালাচ্ছে।’

চারবারের বিধায়ক জামির খান এর আগে খাদ্য ও নাগরিক অধিকার, ভোক্তা অধিকার এবং সংখ্যালঘুদের কল্যাণবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

আরও পড়ুন:
ধর্মান্ধতার অন্ধকার ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ
সামাজিক সম্প্রীতি কমায় ধর্মান্ধরা সুযোগ নিচ্ছে

মন্তব্য

জীবনযাপন
Instructions for transporting pilgrims on dedicated flights

ডেডিকেটেড ফ্লাইটে হজযাত্রী পরিবহনের নির্দেশ

ডেডিকেটেড ফ্লাইটে হজযাত্রী পরিবহনের নির্দেশ ডেডিকেটেড ফ্লাইটের মাধ্যমে হজযাত্রী পরিবহনে বিমানকে নির্দেশ দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। ফাইল ছবি
সভায় বিমানকে ফ্লাইট বিপর্যয় ঠেকাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। । পাশাপাশি হজযাত্রী পরিবহনে সম্ভাব্য সব ফ্লাইট ডেডিকেটেড হতে হবে বলে নির্দেশ দেয়া হয়।

চলতি বছরের হজযাত্রা ঝামেলাহীন করতে ডেডিকেটেড ফ্লাইটের মাধ্যমে হজযাত্রী পরিবহনে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসকে নির্দেশ দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

সম্প্রতি হজ ব্যবস্থাপনাসংক্রান্ত পর্যালোচনায় এক সভা থেকে এ নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব আহমদ কায়কাউস।

এটি ছাড়াও সভায় আরও আটটি সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিবসহ হজসংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও হজ এজেন্সিগুলোর সংগঠন হাবকে সিদ্ধান্তগুলো জানিয়ে দেয়া হয়েছে।

সভায় বিমানকে ফ্লাইট বিপর্যয় ঠেকাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেয়া হয়। পাশাপাশি হজযাত্রী পরিবহনে সম্ভাব্য সব ফ্লাইট ডেডিকেটেড হতে হবে বলে নির্দেশ দেয়া হয়।

হজযাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে সব এয়ারলাইনসকে রুট-টু-মক্কা ইনিশিয়েটিভের বাধ্যবাধকতা অনুসরণ করতে বলা হয়েছে।

সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, হজযাত্রীদের সব ইমিগ্রেশন হজ ক্যাম্পেই করতে হবে। এ লক্ষ্যে হজ ক্যাম্পে প্রয়োজনীয়সংখ্যক বুথ নিশ্চিত করতে হবে। বিশেষ প্রয়োজনে ব্যবহারের জন্য অতিরিক্ত হিসেবে বিমানবন্দরে দুটি বুথ স্থাপন করতে হবে।

সভায় আরও সিদ্ধান্ত হয়, সুষ্ঠুভাবে ইমিগ্রেশন সম্পন্নের জন্য ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে হজযাত্রীদের প্রয়োজনীয় ব্যক্তিগত তথ্য ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের কাছে অগ্রিম সরবরাহ করতে হবে। হজযাত্রীদের আরটি-পিসিআর সুষ্ঠুভাবে সম্পন্নের জন্য ডেডিকেটেড হাসপাতাল নির্ধারণসহ ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, হজযাত্রীদের কোভিড-১৯ টিকা নেয়া সংক্রান্ত সুরক্ষা অ্যাপে থাকা তথ্যপ্রাপ্তি হজ ব্যবস্থাপনার সঙ্গে সম্পৃক্ত যথাযথ বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে সহজলভ্য করার লক্ষ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করবে।

সিদ্ধান্তের মধ্যে আরও রয়েছে, হজযাত্রীদের যাতে কোনো কষ্ট না হয় সে লক্ষ্যে হজ ক্যাম্পে সব সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানকে সার্বক্ষণিক সেবাদান কার্যক্রম নিশ্চিত করতে হবে। এয়ারপোর্ট থেকে হজ ক্যাম্পে যাতায়াতের রাস্তা সচল ও বাধাহীন রাখতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এবং সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

২০২২ সালের হজ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগ বা সংস্থা কর্তৃক নিজ নিজ দায়িত্ব যথাযথভাবে প্রতিপালন করতে হবে।

সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী ৩১ মে থেকে শুরু হচ্ছে এ বছরের হজ ফ্লাইট। স্বাভাবিক সময়ে প্রতি বছর সারা বিশ্বের ২০ থেকে ২৫ লাখ মুসল্লি পবিত্র হজ পালনের সুযোগ পেয়ে থাকেন। কিন্তু করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে গত দুই বছর সৌদি আরবের বাইরের কেউ হজ করার সুযোগ পাননি। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় সৌদি সরকার এবার সারা বিশ্বের ১০ লাখ মানুষকে হজ পালনের অনুমতি দিচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে এ বছর সাড়ে ৫৭ হাজার মুসল্লি হজব্রত পালনে সৌদি আরবে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন ৪ হাজার মুসল্লি। বাকিরা যাবেন বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়।

এবার সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের জন্য দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ প্যাকেজটি হলো ৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা। সর্বনিম্নটি হলো ৪ লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকা। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালনে জনপ্রতি ন্যূনতম খরচ ৪ লাখ ৬৩ হাজার ৭৪৪ টাকা নির্ধারণ করেছে হজ এজেন্সিস অব বাংলাদেশ (হাব)।

এবার হজ হতে পারে ৮ জুলাই (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে)। সৌদি আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী ৫৭ হাজার হজযাত্রীর অর্ধেক করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। বাকি অর্ধেক বহন করবে সৌদি রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইনস ও ফ্লাই নাস।

রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান এ বছর ৭৫টি ডেডিকেটেড ফ্লাইটের মাধ্যমে ৩১ হাজার যাত্রী বহন করবে। যাত্রী পরিবহনে বিগত বছরগুলোর মতোই বহরে থাকা বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ ব্যবহার করা হবে।

আরও পড়ুন:
হজযাত্রীদের প্যাকেজ নির্বাচনের সময় বাড়ল
লক্ষ্য এবারও মৌসুমের প্রথম হজ ফ্লাইট পরিচালনা
হাজিদের সেবায় সৌদি যাচ্ছেন ৫৩২ কর্মকর্তা
হজ কারিগরি দল গঠন

মন্তব্য

p
উপরে