নতুন জুতা থেকে ফোসকা পড়লে যা করবেন

নতুন জুতা থেকে ফোসকা পড়লে যা করবেন

ফোসকা কমাতে মধু খুব ভালো কাজ করে। ফোসকার জায়গায় দিনে তিনবার অল্প করে মধু লাগিয়ে দেখুন। এতে ফোসকা দ্রুত শুকিয়ে যাবে।

অনেক সময় নতুন জুতা পায়ের সঙ্গে মানানসই হয় না। ফলে সেটা পরে হাঁটাচলা করলে কিছুক্ষণের মধ্যে গোড়ালির পেছন দিকে, বুড়ো আঙুলের পাশে অথবা পায়ের যেকোনো দিকে ফোসকা পড়ে। একবার ফোসকা পড়লে পরবর্তী কয়েক দিন কোনো জুতাই পরা যায় না।

ফোসকা যদি পড়েই যায়, তাহলে ঘরোয়া উপায়ে সমাধান মিলতে পারে। চলুন জেনে নেওয়া যাক।

নতুন জুতা কেনার পর

জুতার চামড়ার যে জায়গাগুলো খুব শক্ত, পায়ে ঘষা লেগে ফোসকা পড়তে পারে, সেখানে ভ্যাসলিন লাগিয়ে রাখুন। এতে জুতার ওই জায়গাগুলো কিছুটা নরম হয়ে যাবে। কমবে ফোসকা পড়ার ঝুঁকিও।

ভ্যাসলিনের পরিবর্তে ব্যবহার করতে পারেন সরিষা অথবা নারিকেল তেল। এগুলোও জুতার চামড়া নরম করবে।

চাইলে জুতার শক্ত জায়গাগুলোতে পাতলা করে কাটা ফোম টেপ দিয়ে লাগিয়ে দিতে পারেন। এতেও পা আরাম পাবে।

তারপরও ফোসকা পড়লে

ফোসকা কমাতে মধু খুব ভালো কাজ করে। ফোসকার জায়গায় দিনে তিনবার অল্প করে মধু লাগিয়ে দেখুন। এতে ফোসকা দ্রুত শুকিয়ে যাবে।

ব্যবহার করতে পারেন অ্যালোভেরা জেলও। ফোসকার ওপরে আলতো করে অ্যালোভেরা জেল লাগান। দিনে দুইবার লাগালেই চলবে। উপকার পাবেন।

ফোসকা যেন না ফাটে, সেদিকে লক্ষ রাখুন। ফেটে গেলে ক্ষতস্থানে অ্যান্টিসেপ্টিক ক্রিম ব্যবহার করুন।

আরও পড়ুন:
ভিটামিন ডি পাবেন যেভাবে
রাগ বশ করবেন যেভাবে
শসার উপকারিতা জেনে নিন
চশমার যত্ন কীভাবে
দাঁত দিয়ে নখ কাটা থামাবেন যেভাবে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মাসে ৯০ টাকায় স্বাস্থ্যসেবা

মাসে ৯০ টাকায় স্বাস্থ্যসেবা

রাজধানীর আজিমপুরে স্যার সলিমুল্লাহ এতিমখানায় স্বাস্থ্যসেবার বিশেষ চুক্তিতে সই করেন সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রতিষ্ঠান) মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম চৌধুরী। ছবি: সংগৃহীত

চুক্তির শর্ত অনুযায়ী, এতিমখানার শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কেউ অসুস্থ হলে হাসপাতালে ভর্তির পর যে কোনো রোগের জন্য বছরে তিনবার ১০ হাজার টাকা করে বিল পরিশোধের সুযোগ পাবেন। দেশের ১৬০টিরও বেশি হাসপাতালে তারা চিকিৎসা সেবা নিতে পারবেন। ৬৫ শতাংশ ছাড়ে ৮ হাজার টাকার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে পারবেন। একজন ডাক্তার ও একজন প্যারামেডিক্যাল নার্স মাসে দুইদিন এতিমখানায় চিকিৎসা সেবা দেবেন।

স্যার সলিমুল্লাহ মুসলিম এতিমখানার শিক্ষার্থীরা সারা বছর স্বাস্থ্যসেবা পাবে মাসিক ৯০ টাকায়। ‘স্মার্ট করপোরেট ক্লিনিক’ নামে একটি প্রকল্পের আওতায় সমাজসেবা অধিদপ্তর এ বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে।

রাজধানীর আজিমপুরে স্যার সলিমুল্লাহ এতিমখানায় এ নিয়ে চুক্তি সই করেন এতিমখানার প্রশাসক ও সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রতিষ্ঠান) মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম চৌধুরী।

এতিমখানা সংশ্লিষ্টরা জানান, চুক্তির ফলে এতিম শিক্ষার্থীরা স্মার্ট করপোরেট ক্লিনিকের মাধ্যমে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সব ধরনের সুবিধা পাবে। মাসিক ৯০ টাকার বিনিময়ে এতিমদের পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানের সব কর্মকর্তা-কর্মচারী বছরব্যাপী স্বাস্থ্য সুরক্ষার নিশ্চয়তা পাবেন।

চুক্তির শর্ত অনুযায়ী, এতিমখানার শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কেউ অসুস্থ হলে হাসপাতালে ভর্তির পর যে কোনো রোগের জন্য বছরে তিনবার ১০ হাজার টাকা করে বিল পরিশোধের সুযোগ পাবেন। দেশের ১৬০টিরও বেশি হাসপাতালে তারা চিকিৎসা সেবা নিতে পারবেন। ৬৫ শতাংশ ছাড়ে ৮ হাজার টাকার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে পারবেন। একজন ডাক্তার ও একজন প্যারামেডিক্যাল নার্স মাসে দুই দিন এতিমখানায় চিকিৎসা সেবা দেবেন।

টেলিমেডিসিনের ব্যবস্থা ছাড়াও সারা বছর বিনামূল্যে চিকিৎসা পরামর্শের শর্ত রাখা হয়েছে চুক্তিতে। এ ছাড়া ১৮টি জটিল রোগের জন্য এককালীন ২৫ হাজার টাকার আর্থিক সহযোগিতা দেয়া হবে। কারও দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু হলে ১ লাখ টাকা দেয়া হবে। স্বাভাবিক মৃত্যু ও পঙ্গুত্ব বরণ করলে ৫০ হাজার টাকার কাভারেজ পাবে।

চুক্তি সই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) সৈয়দ মো. নূরুল বাসির। উপস্থিত ছিলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর হাসিবুর রহমান মানিক, স্মার্ট করপোরেট ক্লিনিকের প্রজেক্ট চিফ ও হেড অফ বিজনেস অলোক কুমার বিশ্বাস, সমাজসেবার উপপরিচালক (ঢাকা জেলা) মো. রকনুল হকসহ কর্মকর্তারা।

আরও পড়ুন:
ভিটামিন ডি পাবেন যেভাবে
রাগ বশ করবেন যেভাবে
শসার উপকারিতা জেনে নিন
চশমার যত্ন কীভাবে
দাঁত দিয়ে নখ কাটা থামাবেন যেভাবে

শেয়ার করুন

অজগর ভেবে পুষছিলেন রাসেলস ভাইপার

অজগর ভেবে পুষছিলেন রাসেলস ভাইপার

রাসেল ভাইপারটিকে অজগর ভেবে পোষার জন্য বাড়িতে আনা হয়েছিল। ছবি: নিউজবাংলা

বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত নুর ইসলামের ছেলে ইনামুল সর্দার গত ২২ অক্টোবর গাতিপাড়া সীমান্তের ১৩ ঘর এলাকায় গাছ কাটতে গিয়েছিলেন। সেখানে সাপটিকে দেখতে পান তিনি। অজগর ভেবে এটিকে পোষার জন্য বাড়ি নিয়ে আসেন ইনামুল।

যশোরের শার্শার বেনাপোল সীমান্তের বারোপাতা গ্রামের একটি বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে একটি রাসেলস ভাইপার সাপ।

বীর মুক্তিযোদ্ধা নুর ইসলাম সর্দারের বাড়ি থেকে সোমবার বিকেলে সাপটিকে উদ্ধার করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের পুটখালি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার লাভলু ইসলাম।

স্থানীয়রা জানান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত নুর ইসলামের ছেলে ইনামুল সর্দার গত ২২ অক্টোবর গাতিপাড়া সীমান্তের ১৩ ঘর এলাকায় গাছ কাটতে গিয়েছিলেন। সেখানে সাপটিকে দেখতে পান তিনি। অজগর ভেবে এটিকে পোষার জন্য বাড়ি নিয়ে আসেন ইনামুল।

ইনামুল সর্দার বলেন, ‘সাপটিকে বাড়িতে এনে ইঁদুর ও ব্যাঙ খেতে দিতাম। অনেকেই সাপটিকে কিনে নিতে চেয়েছিলেন। আমি রাজি হয়নি। খবরটি ছড়িয়ে পড়লে ২১ ব্যাটালিয়নের বিজিবি সদস্যরা সোমবার বিকেলে সাপটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়।’

২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের পুটখালি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার লাভলু ইসলাম বলেন, ‘সাপটিকে উদ্ধার করা হয়েছে। এটি অতি বিষাক্ত সাপ। সাপটিকে বনবিভাগের কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। তারাই এটিকে অবমুক্ত করবেন।’

রাসেল ভাইপার সম্পর্কে বাংলাদেশ বনবিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা জোহরা মিলা বলেন, ‘রাসেলস ভাইপার সাপটি ‘চন্দ্রবোড়া’ বা ‘উলুবোড়া’ নামেও পরিচিত। এটি ইঁদুর, ব্যাঙ ও টিকিটিকি খায়। বসতবাড়ির আশপাশে এসব বেশি থাকায় খাবারের খোঁজে রাসেল ভাইপার অনেক সময় লোকালয়ে চলে আসে। মানুষ দেখে আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে কখনও কখনও আক্রমণও করে বসে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সাধারণত পদ্মার চরাঞ্চল, নদী অববাহিকা ও বরেন্দ্র এলাকায় এই সাপের দেখা বেশি মেলে। এরা ডিম দেয়ার বদলে সরাসরি ৬-৬৩টি বাচ্চা প্রসব করে। দেখতে মোটা, লম্বায় ২ থেকে ৩ ফুট দৈর্ঘ্যের এই সাপের গায়ে ছোপ ছোপ গোলাকার কালো দাগ থাকে। এটি সম্পর্কে যার ধারণা নেই তিনি অজগর ভেবেই ভুল করবেন।’

আইইউসিএনের ২০১৫ সালের লাল তালিকা অনুযায়ী রাসেলস ভাইপার বাংলাদেশে সংকটাপন্ন প্রাণীর তালিকায় রয়েছে।

আরও পড়ুন:
ভিটামিন ডি পাবেন যেভাবে
রাগ বশ করবেন যেভাবে
শসার উপকারিতা জেনে নিন
চশমার যত্ন কীভাবে
দাঁত দিয়ে নখ কাটা থামাবেন যেভাবে

শেয়ার করুন

ওপেন পোরস থেকে মুক্তির উপায়

ওপেন পোরস থেকে মুক্তির উপায়

কলা খেয়ে খোসাটা ফেলে দেবেন না। তা ভালো করে ধুয়ে নিয়ে মুখে ঘষুন আলতো হাতে। তার পর পানির ঝাপ্টা দিয়ে ধুয়ে নিন এবং ক্রিম লাগান।

আমাদের ত্বকের ওপরের অংশে ছোট ছোট ছিদ্র থাকে। ইংরেজিতে সেগুলোকে 'পোরস' বলে।

সাধারণভাবে এগুলো চোখে পড়ে না। তবে যাদের ত্বক অতিরিক্ত তৈলাক্ত এবং প্রচুর সিবাম উৎপন্ন হয়, তাদের পোরস বাইরে থেকে দেখা যায়।

তাছাড়া খাওয়াদাওয়া যদি ঠিকঠাক না হয়, তা হলে সমস্যা বাড়ে। ত্বক আরও বেশি করে সিবাম তৈরি করতে আরম্ভ করে, পোর ক্রমেই বড় হয়।

বাড়তি সিবাম আর ধুলাময়লা জমে তৈরি হয় ব্ল্যাকহেডস। বাড়ে ব্রণ, ফুসকুড়ির মতো সমস্যাও। এভাবে বেশি দিন চললে ত্বক আলগা হতে আরম্ভ করে। বয়সের ছাপ তাড়াতাড়ি পড়ে।

চলুন, জেনে নিন এই সমস্যার সমাধান কীভাবে মিলবে।

অ্যালোভেরা জেল

দিনে দুই বেলা তাজা অ্যালোভেরার পেস্ট দিয়ে মুখে ম্যাসাজ করুন। লাগিয়ে রেখে দিন মিনিট দশেক। তাতে ত্বক আর্দ্র থাকার পাশাপাশি পোরসের আকারও ছোট থাকবে। দশ মিনিট পর আপনি যখন মাস্ক পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলবেন, তখন সরে যাবে সব ময়লার পরত।

অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার

সম পরিমাণ অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার আর ফিল্টার করা পানির মিশ্রণ তুলায় করে লাগিয়ে নিন মুখে। তারপর স্বাভাবিকভাবে শুকাতে দিন। নিয়মিত টোনার হিসেবে এটি ব্যবহার করলে ত্বকের পোরস ক্রমেই ছোট হতে আরম্ভ করবে।

ডিমের সাদা অংশের মাস্ক

ডিমের সাদা অংশ, ওটমিলের গুঁড়া, আর সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে মাস্ক তৈরি করে নিন। তারপর তা মুখে লাগিয়ে অপেক্ষা করুন মিনিট দশেক। শুকিয়ে গেলে মাস্ক তুলে নিন চক্রাকারে হাত ঘুরিয়ে। তার পর লাগান ময়েশ্চারাইজার। ক্রমেই ত্বকের টানটান ভাব ফিরে আসবে।

ওপেন পোরস থেকে মুক্তির উপায়

বেসন, হলুদ আর দইয়ের প্যাক

সবটা মিশিয়ে প্যাক হিসেবে লাগান। শুকিয়ে গেলে তুলে ফেলুন। কিছুদিনের মধ্যে পোরস ছোট হওয়ার পাশাপাশি ত্বকের হারানো উজ্জ্বলতাও ফিরে আসবে।

কলার খোসা

কলা খেয়ে খোসাটা ফেলে দেবেন না। তা ভালো করে ধুয়ে নিয়ে মুখে ঘষুন আলতো হাতে। তারপর পানির ঝাপ্টা দিয়ে ধুয়ে নিন এবং ক্রিম লাগান। এক দিন পরপর এই পদ্ধতি ট্রাই করলে ত্বকের সমস্যা কমবে, ব্রণ হবে না, ছোট হবে পোরস।

আরও পড়ুন:
ভিটামিন ডি পাবেন যেভাবে
রাগ বশ করবেন যেভাবে
শসার উপকারিতা জেনে নিন
চশমার যত্ন কীভাবে
দাঁত দিয়ে নখ কাটা থামাবেন যেভাবে

শেয়ার করুন

জ্ঞাতবাসে দিবারাত্রি

জ্ঞাতবাসে দিবারাত্রি

সকালে নাশতার পর সারা দিন কিছু খাওয়া হয়নি। সন্ধ্যায় তেঁতুলিয়া বাজারে পেটচুক্তি খাই। রেস্ট হাউসে ফিরে ফ্রেশ হয়ে ছাদে উঠে তুমুল আড্ডা, গান, হাসাহাসি, আনন্দের ফোয়ারা। রাত আরও গভীর হলে মহানন্দার হাতছানিতে সম্মোহিতের মতো সাড়া দিই। আরামে আমি ঘুমিয়ে পড়েছিলাম নদীর পাড়ে, পোলাপান ডেকে তুললে ফিরে আসি বিশ্রামঘরে।

সবাই আমরা (ব্লেস, অর্পণ, অঞ্চিত, অমিত, বৃষ্টি আর আমি) পৌঁছে গেছি কমলাপুর রেলস্টেশনে। ট্রেন ছাড়ার কথা রাত পৌনে ১১টায়। যেকোনো সময় প্ল্যাটফর্মে ট্রেন এসে পড়তে পারে। সময় ঘনিয়ে আসছে অথচ প্রিমার দেখা এখনও নেই। আমরা অস্থির অপেক্ষায়। অন্যদিকে প্রিমা রাইড শেয়ারের মোটরবাইকে অলিগলি, চিপাচাপার ফাঁক গলে প্রাণান্ত চেষ্টায় আসছে। বৃহস্পতিবারের যানজটও একটা ব্যাপার মনে হয়। যারপরনাই প্রিমা এলেও ট্রেন এলো ১১টা ৫০-এ, ছাড়ল ১২টা ২০-এ। পঞ্চগড় এক্সপ্রেস।

আমরা যাচ্ছি সর্ব-উত্তরের জেলায়। কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখতে পেলে দেখব, না হলে নাই। ঢাকায় থেকে শরীর ও মনে যে ক্লেদ জমেছে, তা ঝেরে ফেলতে চাই। এই তো কয়েক সপ্তাহ আগেই নাপিত্তাছড়া ট্রেইলে ট্রেকিং করলাম। মনে হয় এক যুগ পর আরামের ভ্রমণ দিতে চলছি আমি। রাতভর বিচিত্র সব ঘটনা ঘটল।

ট্রেনে উঠে অমিতের কুম্ভকর্ণের ঘুম। বিমানবন্দর স্টেশন থেকে আবু নামে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন এক কিশোর উঠল। সেকি কাণ্ডকীর্তি তার। সবার সঙ্গেই তার কুশল বিনিময় করতে হবে। সঙ্গে থাকা খাবার ভাগ করে খাবে। তার বোচকার বিভিন্ন জিনিস একাধিক সিটের নিচে রাখতে হবে, আরও কত কী!

আর ট্রেনের সিটের কথা নাই বলি। কোনোটা লক্কড়ঝক্কড়, কোনোটা পিছে হেলানো যায় না। কোনোটা একবার হেলে গেলে সোজা হয় না। সিটের ওপরের ফ্যানগুলো ধুলাজমা, ঘোরে তো ঘোরে না। টয়লেট একটা ভালো তো দুইটা খারাপ। পানি নেই। সিটের পাশের জানালা খোলে না, খুললে বন্ধ হয় না। আসলেই রেল খাত খুব অবহেলিত এ দেশে।

যমুনা নদী! বর্ষা শেষের মৌসুম হলেও অকালেই বুড়িয়ে যাওয়া খটখটে কলেবর তার। মানুষ এমন এক প্রাণী, যে প্রকৃতির ক্ষতি বৈ ভালো কিছু করে না। এই প্রাণীর ক্রমশ যান্ত্রিক আর প্রকৃতি-দূরবর্তী আচরণ এর জন্য দায়ী।

এসব ভাবতে ভাবতে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায়। বাইপাসের অন্তর্বর্তী সময় পার হয়ে ট্রেন ছাড়ার সময় এক কিশোর বাইরে থেকে লাফ দিয়ে জানালা দিয়ে যাত্রীদের মোবাইল ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টায় তৃতীয়বার ও তৃতীয় যাত্রীর বেলায় সফল হলো। শুরু থেকেই সব যাত্রী উচ্চবাচ্য করলেও ট্রেনে থাকা পুলিশ সদস্যদের এমন ভাব, যেন কিছুই হয়নি।

জ্ঞাতবাসে দিবারাত্রি

প্রায় ভোর। বাকি সব ঘুমে। আমরা এখন নাটোর স্টেশনে। কৃষ্ণপক্ষের হলদে বাঁকা চাঁদ ডুবি ডুবি করছে। সকাল পর্যন্ত দরজায় দাঁড়িয়ে কয়েকজন গল্পের ঝাঁপি খুলে বসলাম। বিষয়? ভ্রমণ, প্রকৃতি, রাষ্ট্র, সমাজ, উন্নয়ন- এসব আর কি। পথ আরও বাকি, তাই ঘুমানোর চেষ্টা করলাম। বেড়ানোর সময় সঞ্চিত শক্তিই ভরসা, তবে মনের জোর শয়ে শয়ে।

সকাল ১০টা ২০। বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম স্টেশন, পঞ্চগড়। স্টেশনের কাউন্টারে ফিরতি টিকিট কাটার ব্যর্থ চেষ্টা করলাম। পরে শুনলাম চাহিদা ও সিন্ডিকেটের কার‍ণে এ হাল। দেরি না করে একটা ভ্যান নিয়ে শহরের মৌচাক হোটেল ও রেস্তোরাঁয় নাশতার অর্ডার দিয়ে আমি আনিস ভাইয়ের সঙ্গে দেখা করতে গেলাম বাইরে। আনিস ভাই তেঁতুলিয়ায় তার বন্ধু কাজী মোকসেদের গেস্ট হাউস স্বপ্নতে আমাদের থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন। তেঁতুলিয়া ডাকবাংলোতে জায়গা হয়নি, আগে থেকেই ভিআইপিদের বুকিং।

যাই হোক, আমাকে দেখে আনিস ভাই অবাক। শুধালেন, ‘আপনি এখানে কেন? মজুমদার জুয়েল ভাই কই?’

জ্ঞাতবাসে দিবারাত্রি

এ কথা শুনে আমিও অবাক হয়ে হাসলাম কিছুক্ষণ। আনিস ভাই ভেবেছিলেন, তার সাবেক সহকর্মী মজুমদার জুয়েল ভাইয়ের যাবার কথা পঞ্চগড়ে। নাশতা চা-পর্ব সেরে চৌরাস্তার মোড় থেকে তেঁতুলিয়াগামী বাসে ওঠার আগে আমার বর্তমান সহকর্মী লুৎফর ভাইয়ের সঙ্গে দেখা হলো। ঘণ্টাখানেকেরও কম সময়ে তেঁতুলিয়ার বিখ্যাত তেঁতুলগাছের (যার নামে তেঁতুলিয়া নামকরণ) সামনে নামলাম। মোকসেদ ভাইয়ের পাঠানো ভ্যানচালক শহীদুল আমাদের নিয়ে গেল স্বপ্নতে। কোনো রকমে ফ্রেশ হয়েই ছুট।

ডাকবাংলোতে ঢোকার মুখে গিটার হাতে একটা ব্যাঙের ভাস্কর্য, অর্পণ বলছিল এটা নাকি স্বপ্নীল (স্বপ্নীল গিটার বাজিয়ে গান করে, ভাল গায়, এবার সে আসতে পারেনি)। ভেতরে সম্মানিত পর্যটকরা পদধূলি দিচ্ছেন। দ্রুত পা চালিয়ে মহানন্দায় নামলাম। ওপাশে ভারত, কাঁটাতার আর বিএসএফের সতর্ক পাহারা স্পষ্টত দৃশ্যমান। আমরা দেখলাম আর ভাবলাম এই আন্ত নদী নিয়ন্ত্রণের জটিল রাজনীতির ব্যাপার-স্যাপার, নদীদূষণ, যথেচ্ছাচারী অথচ পেট-সংসার চালানো পাথরজীবীদের।

এই যখন অবস্থা ততক্ষণে বিকেল, আলোকচিত্রী অমিতের ক্যামেরার চোখও খুলছে আর বন্ধ হচ্ছে। ওদিকে কবির আকন্দ ভাই কল দিচ্ছিলেন বারবার। আমার ক্যাম্পাসের (জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়) বড় ভাই। তিনি কাজী অ্যান্ড কাজী টি এস্টেটের সহকারী ব্যবস্থাপক। ওনাদের প্রতিষ্ঠানের অবকাশ যাপন কেন্দ্র আনন্দধারায় যেন বেড়িয়ে যাই।

এবার সারথি অটোচালক সোহেল। সে সব চেনে। বাপ-দাদার বাড়ি ফরিদপুরে ছিল। পরে এখানে এসে বসতি করে। আনন্দধারা বৈচিত্র্যময়! হরেক জাতি-প্রজাতির পাখপাখালি। বিভিন্ন উপমহাদেশের নিজস্ব ধাঁচের একেকটা বাড়ি। নালার ওপর দিয়ে সেতু। নালার কিনারা ধরে পাকা বাঁধাই (পানিপ্রবাহ কি ক্ষতিগ্রস্ত হলো?)। এই কেন্দ্রে সহজে থাকা যায় না। সম্ভব তবে বেশ ওপর মহলের তদবির লাগে। শুধু দেখতে চাইলেও ভেতরের উচ্চপদস্থ কারও পরিচিত হতে হয়। ফেরার সময় মহানন্দার পাড়ে কাশফুলের সমাহার দেখে অমিত ভাবছিল, পরদিন সকালে ছবি তুলবে, তোলা হয়নি পরে অবশ্য।

সকালে নাশতার পর সারা দিন কিছু খাওয়া হয়নি। সন্ধ্যা সন্ধ্যায় তেঁতুলিয়া বাজারে পেটচুক্তি খাই। রেস্ট হাউসে ফিরে ফ্রেশ হয়ে ছাদে উঠে তুমুল আড্ডা, গান, হাসাহাসি, আনন্দের ফোয়ারা। রাত আরও গভীর হলে মহানন্দার হাতছানিতে সম্মোহিতের মতো সাড়া দিই। আরামে আমি ঘুমিয়ে পড়েছিলাম নদীর পাড়ে, পোলাপান ডেকে তুললে ফিরে আসি বিশ্রামঘরে।

বেলা করে ঘুম ভেঙে সবার মাথা খারাপ। দ্রুত পরিষ্কার হয়ে নাশতা সেরে সোহেলের অটোতে চড়ে প্রথমে শিশুস্বর্গ বিদ্যানিকেতন। স্কুলটি প্লেগ্রুপ থেকে ক্লাস এইট পর্যন্ত। কবির ভাই দেখাশোনা করেন। তার বন্ধুর মায়ের নামে এই প্রতিষ্ঠান। ভিন্ন ধাঁচের অবকাঠামোতে তৈরি, ‘ফুলের বাগানে শিশুরাই ফুল’ স্লোগানসমেত স্কুলটার শিশু শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আমরা কিছুক্ষণ সময় কাটাই। তারাও আনন্দিত। করোনায় শিক্ষাজীবনের বেশ ক্ষতি হয়ে গেল!

জ্ঞাতবাসে দিবারাত্রি

এবার গন্তব্য বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর। পর্যটকদের ভিড়, কেউই শূন্য বিন্দুতে যেতে পারছেন না। জেলা পুলিশ সুপার এসেছেন, কী সব করছেন। সময়টা কাজে লাগিয়ে আমরা পাশেই কাঁচা রাস্তা ধরে মহানন্দার পাড়ে শতবর্ষী বটগাছ দেখতে যাই। বিশাল দেহের বিশাল সব অঙ্গপ্রত্যঙ্গ মেলে শতবর্ষব্যাপী গাছ আগলে রেখেছে সময়, প্রাণিকূল। গাছেরও কি সীমানা হয়? হয়তো। অন্য প্রাণীদেরও হয়, কিন্তু মানুষের মতো প্যাঁচালো হয় না। বুদ্ধির গোড়ায় ধোঁয়া দিয়ে চলে আসি শূন্য বিন্দুর কাছে। এবার যাওয়া যাবে। ভিসা ছাড়া দাগের ওপাশে অর্থাৎ ভারতে যতটুক যাওয়া যায়, ততটুক গিয়েও কী বিপুল উচ্ছলতা মানুষের!

আমরা ফিরি। যাচ্ছি কবির ভাইয়ের দায়িত্বের আওতাধীন চা-বাগান দেখতে, যা নাকি ভারতে পড়েছে। বাগান দেখার আগে কবির ভাই আমাদের লেমন গ্রাস টি দিয়ে আপ্যায়ন করেন।

উদরপূর্তি সেরে আরেক দফা ডাকবাংলোর কাছে মায়াময়ী মহানন্দার পাড়ে। একটু পরই দলের ৪ জন চলে যাবে ঢাকায়। চলেও যায়। আমরা বাকিরা সোহেলকে নিয়ে আবারও মহানন্দার পাড়ে, তবে এবার পুরোনো বাজারের কাছে। ভারতের কাঁটাতারের ওপর স্থাপিত আলোতে দৃষ্টি ঘোলা হয়। আমরা পরিত্যক্ত ভাঙা এবং অনেক পুরোনো একটি মন্দির ঘুরে দেখি। সেখানে যাবার সময় স্থানীয় এক মধ্যবয়স্কা বলছিলেন যে, রাত করে মেয়েদের ওই মন্দিরে যেতে বারণ। আমরা শুনিনি। শুনব কেন?

রাতে খেয়ে রেস্ট হাউসে ফিরে এসে বিশ্রাম নিতে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ি সবাই। কথা ছিল আরেকবার মহানন্দার পাড়ে যাব, হলো না। সকালে তুমুল বৃষ্টি। তাকে সঙ্গী করেই পঞ্চগড় শহরে যাই। ঢাকাগামী বাসের টিকিট কেটে, সুজানাদির বাড়িতে ব্যাগ রেখে, পাগলুতে (তেলচালিত ত্রিচক্রযান) চড়ে যাই বড়শশী, গন্তব্য বোদেশ্বরী মহাপীঠ মন্দির। এই মন্দিরও অনেক আগের।

জ্ঞাতবাসে দিবারাত্রি

মোট ৫১টি মহাপীঠের মধ্যে বাংলাদেশে রয়েছে ৮টি। তার মধ্যে একটি এই বোদেশ্বরী। আরেকটি আমি সীতাকুণ্ডের চন্দ্রনাথে দেখেছি। মহাপীঠের বর্ণনা পাঠক আপনারা গুগল থেকেই জানতে পারবেন। পীঠের মূল মন্দিরটা পার্বতীর (দুর্গা), সাথে পরে নতুন করে আরও দুটি মন্দির (শিব ও বিষ্ণুর) হয়েছে। সেগুলোর গায়ে মন্দিরগুলোর উন্নয়নে অর্থদাতাদের নাম উল্লেখ করা। সীতাকুণ্ডেও দেখেছি সিঁড়িগুলোতে দাতাদের নাম।

বেশ জায়গা নিয়ে গাছপালা ও পুকুরসমেত এই বোদেশ্বরী মন্দির। দেখভালে পূজারি ও ভক্তরা থাকেন প্রাঙ্গণে। রয়েছে মন্দিরভিত্তিক শিশু ও বয়স্ক শিক্ষা কার্যক্রম কেন্দ্র। দেখলাম পাশেই নতুন প্রতিমা রাঙানো হচ্ছে। ক’দিন বাদেই দুর্গাপূজা। মানুষ মেতে উঠবে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যতা আর উৎসবে। একই সঙ্গে সাম্প্রদায়িক বিষফোঁড়ার আতঙ্ক তো রয়েছেই। আমরা বের হয়ে আসি। ফিরতি পথে ঐতিহ্যবাহী কাজলদিঘিতে থামি। স্থানীয়রা জানান, তারা এটা ছুঁতেই পারেন না, সরকারি নিলামে প্রভাবশালীরা মাছচাষ করেন।

পঞ্চগড় শহরে ফিরে লো ব্লাড প্রেসারে প্রিমা অজ্ঞান হয়ে পড়ে। তাকে সুজানাদির বাড়িতে নিয়ে গেলে বাড়ির লোকজন যত্নআত্তি বাসের সময় এসে যায়। রাত ৮টায় বাস ছাড়ে। যানজট ঠেলে ঢাকায় পৌঁছাই ১৪ ঘণ্টা পর। ফেরার সময় মনটা বেশ খারাপ হয়। আমার এখনও কোথাও বেড়াতে গেলে ফেরার সময় মন খারাপ হয়।

আরও পড়ুন:
ভিটামিন ডি পাবেন যেভাবে
রাগ বশ করবেন যেভাবে
শসার উপকারিতা জেনে নিন
চশমার যত্ন কীভাবে
দাঁত দিয়ে নখ কাটা থামাবেন যেভাবে

শেয়ার করুন

সাধারণ সিগারেটের চেয়ে বেশি ক্ষতিকর মেন্থল সিগারেট

সাধারণ সিগারেটের চেয়ে বেশি ক্ষতিকর মেন্থল সিগারেট

এ ধরনের সিগারেটগুলো নানা ফ্লেভারের হয়ে থাকে। নিঃশ্বাসের সঙ্গে সুগন্ধ বের হয়। সে কারণে লম্বা লম্বা টান দেয়ার প্রবণতাও বাড়ে। এতে ফুসফুস বেশি মাত্রায় নিকোটিন গ্রহণ করায় দ্রুত রক্তচাপ বেড়ে যায়।

যেকোনো ধূমপানই স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। সিগারেট, বিড়ি, হুক্কা বা এ ধরনের কোনো কিছু একবার গ্রহণ করলেও তা ফুসফুসসহ বিভিন্ন অঙ্গের অসুস্থতার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তবে সাধারণ সিগারেটের চেয়ে মেন্থল সিগারেট বহুগুণ বেশি ক্ষতিকারক। সেন্টার্স ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন নামের একটি আমেরিকান সংস্থার এক গবেষণামতে, অন্যসব সাধারণ সিগারেট একজন মানুষের যে ক্ষতি করে, মেন্থল সিগারেট শরীরে এর চেয়ে অনেক বেশি ক্ষতি করে।

মেন্থল সিগারেট কেন বেশি ক্ষতিকারক

মেন্থলজাতীয় সিগারেটের ফিল্টারে এক ধরনের রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়। ধোঁয়ার সঙ্গে মুখ, গলা এবং ফুসফুসের সংস্পর্শে এলে শীতল অনুভূত হয়। মূলত এটিই সমস্ত সমস্যার কারণ। দেখা যায়, এটি ভিন্নধর্মী বলে কম বয়সীরা সিগারেটে অধিক আগ্রহী হয়ে পড়ে। ফলে বাড়ে ধূমপায়ীর সংখ্যা।

এ ছাড়া এ ধরনের সিগারেটে থাকা মেন্থলের প্রভাবে ঠান্ডাভাব অনুভূত হয় বলে ধূমপায়ীদের মধ্যে ধোঁয়া ভিতরে ধরে রাখার প্রবণতা বাড়ে। কারণ এতে এক ধরনের আরাম পাওয়া যায়। ধোঁয়া বেশিক্ষণ ভিতরে ধরে রাখলে শরীর অধিক মাত্রায় নিকোটিন গ্রহণ করে। এতে মানুষ দ্রুত ধূমপানজনিত অসুখগুলোতে আক্রান্ত হয়।

এ ছাড়া দেখা যায়, এ ধরনের সিগারেটগুলো নানা ফ্লেভারের হয়ে থাকে। নিঃশ্বাসের সঙ্গে সুগন্ধ বের হয়। সে কারণে লম্বা লম্বা টান দেয়ার প্রবণতাও বাড়ে। এতে ফুসফুস বেশি মাত্রায় নিকোটিন গ্রহণ করায় দ্রুত রক্তচাপ বেড়ে যায়।

গবেষণা বলে, যারা যত লম্বা টান দেয়, তাদের সিগারেটে আসক্তিও সে হারে বৃদ্ধি পায়। ফলে ধূমপান ত্যাগ করা কঠিন হয়ে পড়ে।

চিকিৎসকদের দাবি, মেন্থল সিগারেট সাধারণ সিগারেটের তুলনায় শুধু রক্তচাপ বা হৃদরোগের আশঙ্কাই বাড়ায় না, পাশাপাশি ফুসফুস এবং ব্লাড ক্যানসারের মতো অসুখেরও কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

সূত্র: মিড এন্ডারসন সেন্টার

আরও পড়ুন:
ভিটামিন ডি পাবেন যেভাবে
রাগ বশ করবেন যেভাবে
শসার উপকারিতা জেনে নিন
চশমার যত্ন কীভাবে
দাঁত দিয়ে নখ কাটা থামাবেন যেভাবে

শেয়ার করুন

হার্ট অ্যাটাকের কারণ

হার্ট অ্যাটাকের কারণ

কাওয়াসাকি রোগ থেকে থ্রম্বোসিসের সমস্যা হলে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে। এ ক্ষেত্রে ২৫ থেকে ৩০ বছর বয়সীরাও ঝুঁকিতে থাকেন। 

আজকাল বহু মানুষ হৃদরোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি হচ্ছে হার্ট অ্যাটাক। বিশেষ করে ৪০ বছরের ওপর যারা আছেন তাদের ক্ষেত্রে এ ঝুঁকি যেন সবচেয়ে বেশি। বিশেষজ্ঞদের মতে হার্ট অ্যাটাকের কিছু বিশেষ কারণ রয়েছে। চলুন জেনে নেয়া যাক কারণগুলো।

১. অনেকেরই জন্মগতভাবে শরীরের বিভিন্ন শিরা বা ধমনির মাপ ছোট হয়ে থাকে। সেসব মানুষ যখন অতিরিক্ত শারীরিক কসরত করে, তখন তাদের হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

২. কাওয়াসাকি রোগ থেকে থ্রম্বোসিসের সমস্যা হলে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে। এ ক্ষেত্রে ২৫ থেকে ৩০ বছর বয়সীরাও ঝুঁকিতে থাকেন।

৩. অতিরিক্ত ধূমপান সিগারেট, গাঁজা বা হুক্কার নেশা করলে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ার মতো সমস্যা তৈরি হয়। এর ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি বেড়ে যায়।

৪. লিপিড মেটাবলিজমের সমস্যা থাকলে কম বয়সেই হৃদরোগে আক্রান্ত হতে পারে। এটি হৃদরোগের অন্যতম কারণ বলে বিবেচিত।

৫. কোনো কারণে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হলেও হার্ট অ্যাটাক হতে পারে।

৬. অতিরিক্ত ফাস্টফুড, তৈলাক্ত বা দুগ্ধজাত খাবার খেলে হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কা বাড়ে।

৭. অ্যালকোহলে আসক্ত এবং ডায়বেটিস আক্রান্ত মানুষেরও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বেশি।

এ ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ হলো, কম বয়সে আচমকা বুকে সামান্য ব্যথা অনুভব করলে, তা এড়িয়ে না গিয়ে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। এ ক্ষেত্রে চিকিৎসার সুযোগ আগে থেকেই পাওয়া যায়। ক্রান্তীয় পরিবেশে যেহেতু কোলেস্টেরল আর ডায়াবেটিসের প্রবণতা বেশি, সে ক্ষেত্রে আগাম সতর্কতা প্রয়োজন।

আরও পড়ুন:
ভিটামিন ডি পাবেন যেভাবে
রাগ বশ করবেন যেভাবে
শসার উপকারিতা জেনে নিন
চশমার যত্ন কীভাবে
দাঁত দিয়ে নখ কাটা থামাবেন যেভাবে

শেয়ার করুন

আয়ু বাড়াবেন যেভাবে

আয়ু বাড়াবেন যেভাবে

দুবেলা দাঁত ব্রাশেই মুখের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত হয় না। ব্রাশ করার পরও অনেক সময় দাঁতের ফাঁকে ক্ষতিকর জীবাণু থেকে যেতে পারে, যা পেটে গেলে হৃদরোগ, ডায়াবেটিস এমনকি আর্থ্রাইটিসের মতো রোগ তৈরি করে।

কিছু অভ্যাস পরিবর্তন করলে আর কিছু অভ্যাস আয়ত্তে আনতে পারলে স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। আর স্বাস্থ্য ভালো হলে রোগব্যাধি বাসা বাঁধতে পারবে না। ফলে কমে যাবে মৃত্যুঝুঁকি।

বন্ধুত্ব

ভালো বন্ধু আশীর্বাদস্বরূপ। একজন মানুষের আশপাশে যত বেশি বন্ধু থাকবে তার জীবন তত স্বাচ্ছন্দ্যময় হয়ে উঠবে। বন্ধুরা এক ধরনের সাপোর্ট নেটওয়ার্ক তৈরি করে। ফলে কঠিন কাজও সহজ মনে হয়। এ ছাড়া বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে থাকলে মানুষের শরীরে অক্সিটোসিন নামক হরমোন তৈরি হয়, যা ব্রেন ফাংশনকে শান্ত রাখে।

দাঁড়িয়ে কাজ

সারা দিন বসে কাজ করা অস্বাস্থ্যকর। বসে থাকার সময় শরীরের ব্লাড সারকুলেশন কমে যায় এবং খুব কম ক্যালোরি ক্ষয় হয়। সুগার মেটাবলিজমও প্রায় স্থির হয়ে যায়। ফলে যেসব এনজাইম শরীরের ফ্যাটগুলো ভাঙতে সাহায্য করে তা বন্ধ থাকে। তাই একটানা বসে কাজ করা উচিত নয়। সম্ভব হলে দাঁড়িয়ে কাজ করুন। নয়তো প্রতি ঘণ্টায় কাজের ফাঁকে অন্তত ৫ থেকে ১০ মিনিট দাঁড়িয়ে থাকুন।

ফ্লস

দুবেলা দাঁত ব্রাশেই মুখের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত হয় না। ব্রাশ করার পরও অনেক সময় দাঁতের ফাঁকে ক্ষতিকর জীবাণু থেকে যেতে পারে, যা পেটে গেলে হৃদরোগ, ডায়াবেটিস এমনকি আর্থ্রাইটিসের মতো রোগ তৈরি করে। তাই নিয়মিত ফ্লসিং অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত রোগের ঝুঁকি কমায়।

সবজি খান

প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় সবজি রাখুন। রান্না করা বা কাঁচা দুই ধরনের সবজিতেই প্রচুর পরিমাণে ফ্যাইটোকেমিক্যাল আর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে। তবে রান্না করা সবজির চেয়ে কাঁচা সবজি বেশি কার্যকর। কারণ রান্নার পর খাদ্যগুণ কিছুটা কমে যায়।

ইতিবাচক চিন্তা

ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি বজায় রাখা এবং হাসি-খুশি থাকা বেশিদিন বাঁচতে সাহায্য করে। এটি ব্রেন ফাংশনকে ঠিক রাখতে সহায়ক। এ ছাড়া এতে স্মৃতিশক্তি বাড়ে। ডিপ্রেশন ও আলঝেইমারের ঝুঁকি কমে।

ওজন ও উচ্চতা

ওজন ও উচ্চতার মাঝে ব্যালেন্স রাখা জরুরি। নিজের বডি ম্যাস ইনডেক্স (বিএমআই) হিসাব করুন। যদি ২৫ থেকে ৩০-এর মধ্যে হয় তাহলে মনে করতে হবে উচ্চতা ও ওজনে ব্যালেন্স নেই। আর ৩০-এর ওপরে হওয়া মানেই স্বাস্থ্যঝুঁকি আছে। অতিরিক্ত ওজন ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, স্ট্রোক ও কোলন ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়।

ব্যায়াম

অনেকে মনে করে ব্যায়াম শুধু মোটা মানুষের জন্য। কিন্তু এটি ভুল ধারণা। সবারই প্রতিদিন অন্তত ১০ থেকে ১৫ মিনিট ব্যায়াম করা জরুরি। ওজন কমানো ছাড়াও ব্যায়ামের আরও নানা উপকারিতা আছে। এটি মুড ভালো রাখে, হরমোন ব্যাল্যান্স করে, হাড় শক্ত করে, কোলেস্টেরল লেভেল ঠিক রাখে। সর্বোপরি একজন মানুষকে পুরোপুরি ফিট রাখে।

আরও পড়ুন:
ভিটামিন ডি পাবেন যেভাবে
রাগ বশ করবেন যেভাবে
শসার উপকারিতা জেনে নিন
চশমার যত্ন কীভাবে
দাঁত দিয়ে নখ কাটা থামাবেন যেভাবে

শেয়ার করুন