ফাইজার পাখি

ফাইজার পাখি

এত রং দেখে মনে হচ্ছে, এটা রংধনু পাখি। ও যখন উড়ে চলে, তখন আকাশে রং ছিটিয়ে যায়।

খুব সুন্দর একটা পাখি বানিয়েছে ফাইজা।

গোলাপি ঠোঁট। দেখে মনে হয় যেন লিপস্টিক দিয়েছে।

আবার গায়ের হলুদ রং দেখে মনে হয়, পাখিটার ‘আজ গায়েহলুদ’ অনুষ্ঠান ছিল।

সবাই হলুদ মেখে দিয়েছে।

আর পা দুটো দেখেছ? কী সুন্দর।

মাথায় মুকুটও আছে।

এত রং দেখে মনে হচ্ছে, এটা রংধনু পাখি।

ও যখন উড়ে চলে, তখন আকাশে রং ছিটিয়ে যায়।

তখনই আকাশে রংধনু দেখা যায়।

তোমার কী মনে হয়, লিখে জানাও।

পাখিটা বানিয়েছে ফাইজা ইসলাম।

বন্ধুরা, চাইলে তোমরাও ছবি এঁকে আমাদের কাছে পাঠাতে পারো। লিখতে পারো ছড়া, গল্প কিংবা কৌতুক। লেখার সঙ্গে অবশ্যই তোমার নাম, স্কুলের নাম, কোন ক্লাসে পড়ো এবং আব্বু বা আম্মুর ফোন নম্বর দেবে।

পাঠানোর ঠিকানা: [email protected]

আরও পড়ুন:
সন্ধ্যা এলো নেমে
বাংলার গ্রাম
ফাহমিদার রঙিন মাছ
নৌকা আর নদী
তাবিয়া গিয়েছিল শহীদ মিনারে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

যেন

যেন

আলোর জোনাক দেখতে যেন নেমে আসা তারা, মধ্যরাতের প্যাঁচা যেন মাতাপিতা-হারা।

সূর্য-থালা দেখতে যেন ঝলসে যাওয়া সোনা,
ঘাসখামারের শিশির যেন হীরে-কুচির পোনা।


রোদের শরীর দেখতে যেন হলুদমাখা শাড়ি,
কদম ফুলের পাপড়ি যেন বুড়োর খোঁচা দাড়ি।


শূন্য ঘুড়ি দেখতে যেন ধনুক আকাশ-পানে,
শোঁ শোঁ করা বাতাস যেন সারেগামা জানে।


তপ্ত গ্রীষ্ম দেখতে যেন চাতকমনের খরা,
বর্ষাকালে মেঘের যেন কলস উপুড় করা।


আলোর জোনাক দেখতে যেন নেমে আসা তারা,
মধ্যরাতের প্যাঁচা যেন মাতাপিতা-হারা।


আকাশটাকে দেখতে যেন লক্ষ তুলির ছোঁয়া,
জোছনামাখা চাঁদটা যেন গরুর দুধে ধোঁয়া।

আরও পড়ুন:
সন্ধ্যা এলো নেমে
বাংলার গ্রাম
ফাহমিদার রঙিন মাছ
নৌকা আর নদী
তাবিয়া গিয়েছিল শহীদ মিনারে

শেয়ার করুন

রঙের গ্রাম

রঙের গ্রাম

রংবেরঙের তালগাছের নিচে ছোট্ট দুটি বাড়ি। বাড়ির সামনে একটা দিঘি। দিঘির পানিতে তালগাছের ছায়া পড়েছে।

আমাদের বন্ধুরা সবাই গ্রাম ভালোবাসে।

তাই তো সবাই গ্রামের ছবি আঁকে।

আজকের ছবিটা দেখো।

খুব সুন্দর একটা গ্রাম।

রংবেরঙের তালগাছের নিচে ছোট্ট দুটি বাড়ি।

বাড়ির সামনে একটা দিঘি।

দিঘির পানিতে তালগাছের ছায়া পড়েছে।

দূরে দেখা যাচ্ছে গাছের সারি।

নীল রঙের গাছ, লাল রঙের গাছ, সবুজ রঙের গাছ...আরও অনেক রকমের রং ছড়িয়ে আছে সেখানে।

এই গ্রামটার নাম কী হতে পারে বল তো?

আমার মনে হয়, এর নাম রঙের গ্রাম।

তবে সঠিক উত্তর দিতে পারবে মুইদ।

কারণ এই চমৎকার ছবিটি সেই এঁকেছে।

মো. মুইদ আল হাসান আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ে।

বন্ধুরা, চাইলে তোমরাও ছবি এঁকে আমাদের কাছে পাঠাতে পারো। লিখতে পারো ছড়া, গল্প কিংবা কৌতুক। লেখার সঙ্গে অবশ্যই তোমার নাম, স্কুলের নাম, কোন ক্লাসে পড়ো এবং আব্বু বা আম্মুর ফোন নম্বর দেবে।

পাঠানোর ঠিকানা: [email protected]

আরও পড়ুন:
সন্ধ্যা এলো নেমে
বাংলার গ্রাম
ফাহমিদার রঙিন মাছ
নৌকা আর নদী
তাবিয়া গিয়েছিল শহীদ মিনারে

শেয়ার করুন

তেনালি রামনের গল্প

তেনালি রামনের গল্প

রাতে আহারের পর তেনালি পায়চারি করার জন্য বাগানের কাছে গেলেন। ঝোপের পেছনে খচমচ আওয়াজ শুনে বুঝতে পারলেন বাগানে চোর ঢুকেছে।

তেনালি রামকৃষ্ণ ছিলেন মহারাজা কৃষ্ণদেব রায়ের দরবারের একজন কবি এবং পরামর্শদাতা। তাকে আমরা চিনি তার অসাধারণ রসিকতা, কৌতুক-রসবোধ এবং অসামাণ্য বুদ্ধিমত্তার জন্য। আজ শুনব তার একটি মজার ঘটনা।

চোর এবং কুয়ো

একদিন মহারাজ কৃষ্ণদেব রায় জেলখানা পরিদর্শনে গেলেন। তখন দুজন সিঁধেল চোর তার কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করল। জানাল তারা দুজনেই সিঁধ কাটায় পারদর্শী এবং বিশেষজ্ঞ। অভিজ্ঞতা দিয়ে তারা রাজ্যের অন্য চোরদের ধরে দিতে মহারাজকে সাহায্য করবে।

মহারাজ দয়ালু ব্যক্তি ছিলেন। তখনই ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন। তবে এক শর্তে। বললেন, ‘আমি পরীক্ষা করে দেখব তোমরা কত বড় চোর। আমার পরামর্শদাতা তেনালি রামনের বাড়িতে চুরি করে দেখাতে হবে। যদি পারো, তবেই মুক্তি মিলবে, মিলবে চাকরি।’

চোররা রাজি হয়ে গেল।

সেই রাত্রিতেই চোর দুজন তেনালি রামনের বাড়ির কাছে গেল এবং ঝোপের আড়ালে লুকিয়ে পড়ল।

রাতে আহারের পর তেনালি পায়চারি করার জন্য বাগানের কাছে গেলেন। ঝোপের পেছনে খচমচ আওয়াজ শুনে বুঝতে পারলেন বাগানে চোর ঢুকেছে।

কিছুক্ষণ পরে ঘরে ঢুকে স্ত্রীকে চেঁচিয়ে বললেন, ‘আমাদের উচিত ধনসম্পদ আগলে রাখা। কারণ চারদিকে চুরি বেড়েছে। এখনই সাবধান না হলে পরে পস্তাতে হবে।’

আরও বললেন, ‘বাসার সব সোনাদানা ট্রাঙ্কের মধ্যে ভরে ফেলো।’

চোররা তেনালির সব কথাই শুনল। আর শুনবেই না বা কেন? তেনালি তো ওদের শোনানোর জন্য জোরে জোরে কথা বলেছেন।

কিছুক্ষণ পর তেনালি ট্রাঙ্কটিকে বাড়ির পেছনের কুয়োর কাছে নিয়ে গেলেন। তারপর সেটাকে কুয়োর মধ্যে ফেলে দিলেন।

চোররা সবই দেখল।

কাজ শেষে তেনালি আর তার স্ত্রী যখন ঘরের ভেতর ঢুকে গেলেন, তখনই চোর দুজন বেরিয়ে কুয়োর পানি তুলতে শুরু করল।

সারা রাত পানি তুলল তারা।

ভোরের দিকে অনেক কষ্টে তারা বাক্সটি তুলতে পারল। কিন্তু খুলে যা দেখল তাতে মাথা ঘুরে গেল। ট্রাঙ্কে সোনাদানা নেই, শুধু পাথর।

সেই সময় তেনালি তার ঘর থেকে বেরিয়ে এসে চোরদের ধন্যবাদ দিয়ে বললেন, ‘গাছগুলোকে সারা রাত পানি দেয়ার জন্য ধন্যবাদ।’

চোররা বুঝতে পারল, তেনালি তাদের বোকা বানিয়েছে।

আরও পড়ুন:
সন্ধ্যা এলো নেমে
বাংলার গ্রাম
ফাহমিদার রঙিন মাছ
নৌকা আর নদী
তাবিয়া গিয়েছিল শহীদ মিনারে

শেয়ার করুন

ছোট্ট একটা গ্রাম

ছোট্ট একটা গ্রাম

সবুজ গাছপালার ওপর দিয়ে উঁকি দিচ্ছে সূর্য। মাঝখানে সবুজ ধানের ক্ষেত।

চমৎকার গ্রামের দৃশ্য এঁকেছে আমাদের ছোট্ট বন্ধু সুমাইলা নূর করিম।

ওর ছবিতে বাংলাদেশের গ্রামের চিত্রটা ফুটে উঠেছে।

সবুজ গাছপালার ওপর দিয়ে উঁকি দিচ্ছে সূর্য।

মাঝখানে সবুজ ধানের ক্ষেত।

ক্ষেতের ওপর দিয়ে উড়ে চলেছে নাম না জানা দুটো পাখি।

গ্রামের পাশে একটা বড় নদী।

ওদিকে মাঝি ভাই নৌকা নিয়ে হাটে যাচ্ছেন।

মাছগুলো মেতে আছে খেলায়।

তবে তোমাদের মতো শিশুদের দেখা যাচ্ছে না।

ওরা সম্ভবত ঘুম থেকে উঠে পড়তে বসেছে।

বন্ধুরা, চাইলে তোমরাও ছবি এঁকে আমাদের কাছে পাঠাতে পারো। লিখতে পারো গল্প, কৌতুক কিংবা মজার ঘটনা। লেখার সঙ্গে অবশ্যই তোমার নাম, স্কুলের নাম, কোন ক্লাসে পড় এবং আব্বু বা আম্মুর ফোন নম্বর দেবে।

পাঠানোর ঠিকানা: [email protected]

আরও পড়ুন:
সন্ধ্যা এলো নেমে
বাংলার গ্রাম
ফাহমিদার রঙিন মাছ
নৌকা আর নদী
তাবিয়া গিয়েছিল শহীদ মিনারে

শেয়ার করুন

দুষ্টু ছাত্রের কৌতুক

দুষ্টু ছাত্রের কৌতুক

ছোট্ট ফাহিম দুদিন স্কুলে ক্লাস করার পর বাসায় এলে বাবা জিজ্ঞেস করলেন, ‘স্কুল কেমন লাগে?’ ফাহিম: একদম বিরক্তিকর লাগে।

শিক্ষক: খোকা, তুমি হোমওয়ার্ক করোনি কেন?
ছাত্র : স্যার, আমি তো হোস্টেলে থাকি।
শিক্ষক: তাতে কী হয়েছে?
খোকা: আপনি তো হোমওয়ার্ক করতে বলেছেন, হোস্টেলওয়ার্ক তো করতে বলেননি।


ছোট্ট ফাহিম দুদিন স্কুলে ক্লাস করার পর বাসায় এলে বাবা জিজ্ঞেস করলেন, ‘স্কুল কেমন লাগে?’
ফাহিম: একদম বিরক্তিকর লাগে।
বাবা: কেন?
ফাহিম: ওখানে স্যাররা কিছু পারে না। সব পড়া আমাদের জিজ্ঞেস করে।


শিক্ষক: পড়া না পারলে তোদের মাথার সব চুল ছিঁড়ে নেব!
ছাত্র: এতদিনে বুঝলাম, আপনার মাথায় চুল নেই কেন!

কৌতুকগুলো পাঠিয়েছে আমাদের বন্ধু জিনিয়া মিতু।

মিতু পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ে।

বন্ধুরা, চাইলে তোমরাও আমাদের কাছে কৌতুক পাঠাতে পারো। লিখতে পারো ছড়া, গল্প কিংবা কৌতুক। আঁকতে পারো ছবি। লেখার সঙ্গে অবশ্যই তোমার নাম, স্কুলের নাম, কোন ক্লাসে পড়ো এবং আব্বু বা আম্মুর ফোন নম্বর দেবে।

পাঠানোর ঠিকানা: [email protected]

আরও পড়ুন:
সন্ধ্যা এলো নেমে
বাংলার গ্রাম
ফাহমিদার রঙিন মাছ
নৌকা আর নদী
তাবিয়া গিয়েছিল শহীদ মিনারে

শেয়ার করুন

পথ দেখাও

পথ দেখাও

কোন পথে গেলে মা তার ছানাদের পাবে, সেটা দেখিয়ে দাও।

দুষ্টু ছানাগুলো মায়ের চোখ ফাঁকি দিয়ে কখন যে বাইরে গিয়েছে, মা বুঝতেই পারেনি।

ছানা দুটো এখন লেকের পানিতে সাঁতার কাটছে।

ওদিকে মা হাঁসটা খুঁজে খুঁজে হয়রান।

কোথাও পাওয়া যাচ্ছে না ছানাদের।

তোমরা ওদের মাকে একটু সাহায্য করো তো।

কোন পথে গেলে মা তার ছানাদের পাবে, সেটা দেখিয়ে দাও।

আর পথ যদি খুঁজে না পাও, তাহলেও সমস্যা নেই।

নিচের ছবিতে পথ দেখানো আছে।

তাহলে চলো, পথ দেখানো শুরু করা যাক।

পথ দেখাও

আরও পড়ুন:
সন্ধ্যা এলো নেমে
বাংলার গ্রাম
ফাহমিদার রঙিন মাছ
নৌকা আর নদী
তাবিয়া গিয়েছিল শহীদ মিনারে

শেয়ার করুন

টেরি চাচ্চুর পাখি

টেরি চাচ্চুর পাখি

কিছুদিন আগে তিনি বেলুন দিয়ে পশুপাখি বানিয়েছিলেন। সম্প্রতি তিনি কাঠের টুকরা দিয়ে পাখি বানিয়েছেন।

স্কটল্যান্ডে এক আর্টিস্ট চাচ্চু আছেন।

তার নাম টেরি জেমস কুক।

তিনি হাতের কাছে যা-ই পান, তাই দিয়ে ফুল, পাখি, প্রজাপতিসহ এটা-সেটা বানিয়ে ফেলেন।

কিছুদিন আগে তিনি বেলুন দিয়ে পশুপাখি বানিয়েছিলেন।

সম্প্রতি তিনি কাঠের টুকরা দিয়ে পাখি বানিয়েছেন।

টুকরাগুলো তিনি রাস্তা থেকে কুড়িয়ে এনেছিলেন।

প্রথমে সেগুলোকে ধুয়ে শুকিয়ে নিয়েছেন।

তারপর কেটে প্রয়োজনীয় আকার দিয়ে রং করেছেন।

রং করার পর আবার শুকানো হয়েছে।

সবশেষে আঠা দিয়ে একটার সাথে আরেকটা কাঠকে জোড়া লাগিয়ে বানিয়েছেন পাখি।

কাজগুলো করতে তার বেশ কয়েক দিন সময় লেগেছে।

চলো তাহলে, টেরি চাচ্চুর পাখিগুলো দেখে নিই।

টেরি চাচ্চুর পাখি

টেরি চাচ্চুর পাখি

টেরি চাচ্চুর পাখি

টেরি চাচ্চুর পাখি

আরও পড়ুন:
সন্ধ্যা এলো নেমে
বাংলার গ্রাম
ফাহমিদার রঙিন মাছ
নৌকা আর নদী
তাবিয়া গিয়েছিল শহীদ মিনারে

শেয়ার করুন