কিশোরী মেয়ের খোঁজে ঢাকায় রিকশা চালাচ্ছেন বাবা

কিশোরী মেয়ের খোঁজে ঢাকায় রিকশা চালাচ্ছেন বাবা

মেয়েটিকে ঢাকা আনার বিষয়ে শাহিদা ওরফে শানু নামে যে নারীর ভূমিকা ছিল, সেই নারী নিউজবাংলাকে বলেছেন, ‘শাহপরানের অনুসারী যাত্রাবাড়ীর এক দরবেশের মাধ্যমে জানতে পেরেছি, মেয়েটি দিব্যি ফুর্তিতে আছে।’

সংসারের অভাব থেকে মুক্তি দিতে মাস ছয়েক আগে ১৩ বছরের মেয়েকে রাজধানী ঢাকা পাঠিয়েছিলেন কুড়িগ্রামের এক দম্পতি। দূর সম্পর্কের এক আত্মীয় তাকে আশ্বাস দিয়েছিলেন, রাজধানীতে যার বাসায় থাকবে মেয়েটি তারা অনেক ভালো মানুষ, মেয়েটি অনেক ভালো থাকবে। কিন্তু এক মাস পর ওই বাসার মালিক মোবাইলে ফোন করে বাবা-মাকে জানান, মেয়েটি পালিয়ে গেছে, সঙ্গে চুরি করে নিয়ে গেছে ২৫ হাজার টাকাও।

কিন্তু বাড়িওয়ালার এই কথা বিশ্বাস করতে পারেনি কুড়িগ্রামের পরিবারটি। তাদের আশঙ্কা, দেখতে সুন্দর কিশোরী মেয়েটিকে পরিকল্পিতভাবে পাচার করা হয়েছে। মেয়েটির সন্ধানে কুড়িগ্রাম ও রাজধানীর একটি থানায় সাধারণ ডায়েরিও করেছেন তার বাবা। রাজধানীর একই থানায় জিডি করেছেন ওই বাসার মালিকও।

মেয়েটিকে ঢাকা আনার বিষয়ে শাহিদা ওরফে শানু নামে যে নারীর ভূমিকা ছিল, সেই নারী নিউজবাংলাকে বলেছেন, ‘শাহপরানের অনুসারী যাত্রাবাড়ীর এক দরবেশের মাধ্যমে জানতে পেরেছি, মেয়েটি দিব্যি ফুর্তিতে আছে।’

পুলিশ বলছে, তারা মেয়েটিকে খুঁজে বের করার চেষ্টায় আছেন।

মেয়ের সন্ধানে রাজধানীতে এসে নাখালপাড়ায় একটি বাসা ভাড়া করেছেন কুড়িগ্রামের ওই বাবা-মা। গত বৃহস্পতিবার ওই বাসায় তাদের সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার।

মেয়েটির বাবা জানান, তিনি এখন ঢাকায় রিকশা চালান। থানা-পুলিশ কোনো সন্ধান দিতে পারছে না। উপায় না পেয়ে রিকশা চালাতে চালাতেও মেয়েকে খুঁজছেন তিনি।

আশঙ্কা প্রকাশ করে এই বাবা বলেন, ‘পত্রিকা ও টিভি খুললেই নারী পাচারের খবর পাই, চমকে উঠি। এভাবে আমাদের মেয়েকেও কি কেউ কৌশলে পাচার করে দিয়েছে? সাংবাদিকদের মাধ্যমে আমার মেয়ের সন্ধান চাই।’

নিখোঁজ মেয়েটির বাবা-মা জানান, তাদের ঘরে চার মেয়ে, কোনো ছেলে নেই। অভাব-অনটনের কারণে মেজো মেয়েকে এলাকার দূর সম্পর্কের আত্মীয়ের পীড়াপীড়িতে রাজধানীর শেরে বাংলা নগর এলাকার এক বাসায় পাঠান গত নভেম্বরে। সেখানে কাজ করার এক মাসের মধ্যেই মেয়েটি পালিয়ে যায় বলে দাবি করেন ওই বাসার লোকজন।

বিষয়টি নিয়ে নিউজবাংলা কথা বলেছে ওই বাসার মালিক আবদুল্লাহ আল হেলাল ও তার বড় ভাই জনির সঙ্গে। তারা বলছেন, মেয়েটি দ্বিতল ভবনের নিচতলার বাথরুমের ভাঙা ভেন্টিলেটরের ফাঁকা দিয়ে পালিয়ে গেছে। পালানোর পর এলাকায় মাইকিং করা হয়। পত্রিকায় নিখোঁজ সংবাদ ছাপানো হয়। তারপরও না পেয়ে থানায় জিডি করেন।

শেরেবাংলা নগর থানার এসআই আবদুল বারেক নিউজবাংলাকে জানান, মেয়েটি নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী ও শেরেবাংলা নগর থানায় একটি করে জিডি করেছেন তার বাবা-মা। আরেকটি জিডি করেছেন শেরেবাংলা নগরের ওই বাসার মালিক হেলাল। এসব জিডির সূত্র ধরে তদন্ত করা হলেও মেয়েটির সন্ধান মেলেনি।

কিশোরী মেয়ের খোঁজে ঢাকায় রিকশা চালাচ্ছেন বাবা
মেয়ের বাবার করা জিডি


তিনি আরও বলেন, ‘যে বাসা থেকে নিখোঁজ হয়েছে, সেই বাসায় গিয়েছি। প্রাথমিকভাবে মনে হয়েছে, মেয়েটি বাসার বাথরুমের ফাঁকা জায়গা দিয়ে পালিয়েছে। তারপরও বিষয়টির অধিকতর তদন্তের জন্য পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) সিআইবির (ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ব্যুরো) সহায়তা চাওয়া হয়েছে।’

নিখোঁজ মেয়েটির বাবা নিউজবাংলাকে জানান, যাত্রাবাড়িতে ‘বান্দা কাজ’ করেন এমন একজন পরিচিত নারী, যার নাম শাহিদা ওরফে শানু ও আব্দুল্লাহ আল হেলালের বড় ভাই জনির মাধ্যমে গত নভেম্বর মাসে মেয়েটি ঢাকা আসে। পরে শেরেবাংলা নগর এলাকার বাসায় পাঠানো হয়। গৃহকর্তা আবদুল্লাহ আল হেলালের বাড়িও কুড়িগ্রামে, নিজেকে কখনো ব্যাংকার, কখনো প্রকৌশলী পরিচয় দেন তিনি। তার স্ত্রীর বাড়ি কুমিল্লায়। মেয়েটির ব্যাপারে হেলালের স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে চাইলেও তিনি রাজি হননি। বলেন, ‘তিনি সরকারি কর্মকর্তা ছাড়া কারও সঙ্গে কথা বলেন না।’

এসব বিষয়ে কথা বলার জন্য সোমবার হেলালের শেরেবাংলা নগরের জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের স্টাফ কোয়ার্টারের বাসায় যান নিউজবাংলার এই প্রতিবেদক। বাসার গেটে তালা মারা দেখে মোবাইলে ফোন করা হলে হেলাল বলেন, ‘আমি ঢাকার বাইরে গাজীপুরের কাপাসিয়ায় আছি। এখানে এলজিইডি মন্ত্রণালয়ের আউটসোর্সিংয়ের কাজ করি। মেয়েটি নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে আমরাও মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছি।’

তিনি বলেন, ‘মেয়েটি পালানোর পর এলাকায় মাইকিং করেছি; থানায় জিডি করেছি। তবে খোঁজ পাইনি। মেয়েটি বাসা থেকে যখন পালিয়ে যায়, তখন আমার স্ত্রী ছিল না। অফিসে যাওয়ার আগে ভুলে ড্রয়ারের চাবি বাসায় রেখে যায়। সেই চাবি দিয়ে ড্রয়ার খুলে ২৫ হাজার টাকাও নিয়ে যায় মেয়েটি।’

মেয়েটির বাবা নিউজবাংলাকে আরও বলেন, ‘‘মেয়ের খবর নিতে থানার এসআইকে ফোন দিলেই তিনি বলেন, ‘আমি খুঁজতেছি না! না পেলে আমি কী করব?’ হেলালকে ফোন করলে তিনিও হুমকি দিয়ে বলেন, ‘যাহ। তুই থানা-পুলিশ কর। কোর্টের মাধ্যমে ফাঁসি হলে হবে।’ হেলালের বড় ভাই জনিও একই কথা বলে।’’

মেয়েটির পরিণতি নিয়ে নানা আশঙ্কার কথা বলতে গিয়ে তার বাবা আরও বলেন, ‘আমার মনে হচ্ছে, মেয়েকে ভারতে পাচার করা হয়েছে। যেহেতু ৫-৬ মাস খুঁজতেছি। মাইকিং করা হচ্ছে। জিডি করেছি। আত্মীয়-স্বজনদের মাধ্যমে ফেসবুকেও সন্ধান চেয়ে পোস্ট দিয়েছি।

‘এখন পত্রিকা ও টিভিতে দেখি মেয়েদের পাচার করা হয়, তাই আমার সন্দেহ আমার মেয়েকেও পাচার করা হয়েছে। মেয়ের খোঁজ করতেই কুড়িগ্রাম থেকে ঢাকায় এসেছি। পাঁচ মাস ধরে ঢাকায় রিকশা চালাই, আর মেয়েরে খুঁজি।’

কিশোরী মেয়ের খোঁজে ঢাকায় রিকশা চালাচ্ছেন বাবা


মেয়েটির মা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘‘ঢাকায় নেয়ার এক মাস পরই হেলাল ফোন করে বলে, ‘তোদের মেয়ে পালায়ে গেছে। ওর কাপড়-চোপড় নিয়ে গেছে।’ পরে মেয়ের খোঁজ করতে ঢাকায় আসি।’’

মেয়েটির বাবা বলেন, ‘‘মেয়ের খোঁজ করতে আমরা ডিসেম্বর মাসে একবার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মাঠের বাম পাশের কোয়ার্টারের সামনে যাই। তখন ২০-২৫ জন লোক জড়ো করেন হেলাল। তারপর বলেন, ‘তোর মেয়ে বাসা থেকে পালায়ে গেছে। সিসি ক্যামেরা দেখ।’ আমি ভয়ে বাসায় না গিয়ে তাকে সিসি ক্যামেরা দেখাতে বলি, তিনি বলেন, ‘এমপি-মন্ত্রী ছাড়া কোনো সিসি ক্যামেরা দেখা যাবে না।’’

‘দরবেশ বলেছে, মেয়েটি দিব্যি ফুর্তিতে আছে’

মেয়েটিকে ঢাকা আনতে যে নারী প্রথম যোগাযোগ করেন পরিবারটির সঙ্গে, সেই নারীর সঙ্গে সোমবার মোবাইল ফোনে কথা হয় নিউজবাংলার।

ওই নারী বলেন, ‘মেয়েটি নিখোঁজ হওয়ার পর আমিও দুশ্চিন্তার মধ্যে আছি। মেয়েটির অবস্থান জানার জন্য প্রায় এক মাস আগে শাহপরানের অনুসারী যাত্রাবাড়ীর এক দরবেশের কাছে যাই। ১০১ টাকা ফি দিয়ে মেয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মেয়েটি দিব্যি ফুর্তিতে আছে। এক বছর পর ঠিকই ফিরে আসবে। সে এখন গাজীপুরে এক ছেলের সঙ্গে আছে।’

মেয়েটি কোনো পাচার চক্রের হাতে পড়েছে কি না জানতে চাইলে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার মো. শহিদুল্লাহ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘তদন্ত চলছে। দেখা যাক।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য