× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
4 dead in heavy storms in the United States
google_news print-icon

যুক্তরাষ্ট্রে প্রবল ঝড়-বৃষ্টিতে ৪ প্রাণহানি

যুক্তরাষ্ট্রে-প্রবল-ঝড়-বৃষ্টিতে-৪-প্রাণহানি-
ঝড়-বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত একটি এলাকা। ছবি: সিএনএন
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করা ভিডিও ফুটেজে এবং বিভিন্ন ছবিতে দেখা যায়, প্রচণ্ড বাতাসে উড়ে যাওয়া জানালার কাঁচের ভাঙ্গা টুকরোয় হিউস্টনের রাস্তাগুলো ঢাকা পড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় টেক্সাস রাজ্যে ঝড় ও প্রবল বর্ষণে অন্তত ৪ জন প্রাণ হারিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাত ও শুক্রবার ভোরে তাদের মৃত্যু হয় বলে স্থানীয় কর্তৃপক্ষের বরাতে জানিয়েছে সিএনএন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করা ভিডিও ফুটেজে এবং বিভিন্ন ছবিতে দেখা যায়, প্রচণ্ড বাতাসে উড়ে যাওয়া জানালার কাঁচের ভাঙ্গা টুকরোয় হিউস্টনের রাস্তাগুলো ঢাকা পড়েছে।

জাতীয় আবহাওয়া অফিস ‘প্রচণ্ড’ বজ্রঝড় এবং সম্ভাব্য টর্নেডো সম্পর্কে সতর্ক করে দিয়েছে।

এমন দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে বহু গাছ ভেঙ্গে পড়ায় এবং বিদ্যুত লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় হিউস্টনের প্রায় ১০ লাখ গ্রাহক বিদ্যুত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

টেক্সাসের মেয়র জন হুইটমায়ার সাংবাদিকদের বলেন, দুর্যোগে অনেক মানুষ তাদের গাড়ির ভিতরে অটকা পড়ে। তবে সেখানের পরিস্থিতির ব্যাপারে বিস্তারিত আর কিছু জানা যায়নি। ঝড়বৃষ্টিতে ৪ জন মারা গেছেন।

তিনি আরও বলেন, এ সময় প্রতি ঘণ্টায় ৮০ থেকে সর্বোচ্চ ১০০ মাইল বেগে বাতাস বয়ে যায়।

হুইটমায়ার বাসিন্দাদের হিউস্টনের মধ্যাঞ্চল এড়িয়ে চলার আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, এমন দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতিতে শুক্রবার পাবলিক স্কুলগুলো বন্ধ থাকবে এবং অফিসের জন্য একেবারে অত্যাবশ্যকীয় নয় এমন কর্মীদেরও বাড়িতে থাকতে বলা হয়েছে।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Most voters consider Trumps judgment fair and transparent survey
হাশ মানি মামলা

ট্রাম্পের রায়কে সঠিক ও স্বচ্ছ মনে করছেন অধিকাংশ ভোটার: জরিপ

ট্রাম্পের রায়কে সঠিক ও স্বচ্ছ মনে করছেন অধিকাংশ ভোটার: জরিপ যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: সংগৃহীত
আদালতের বিচার প্রক্রিয়াকে স্বচ্ছ মনে করছেন কিনা- এমন প্রশ্নে রায়ের আগে অর্ধেকের বেশি ভোটারের মতামত ছিল যে ট্রাম্প দোষী। আর রায়ের পর জরিপে অংশ নেয়া অর্ধেকেরও বেশি ভোটার একইভাবে মনে করেন যে জুরি বোর্ড স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে রায়ে পৌঁছেছে ‌এবং বিচারটি ন্যায্য ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিউ ইয়র্কের ম্যানহ্যাটন আদালতের হাশ মানি মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে দেয়া রায়কে সঠিক ও স্বচ্ছ বলে মনে করছেন অধিকাংশ ভোটার।

সিবিএস নিউজের করা এক সমীক্ষায় এমন তথ্য উঠে এসেছে।

হাশ মানি মামলায় ডোনাল্ড ট্রাম্প দোষী কিনা- এমন প্রশ্নের ভিত্তিতে রায়ের আগে মে মাসের ১৪ থেকে ২১ তারিখ পর্যন্ত জরিপ চালায় এনবিসি। এক হাজার ৪০২ জন প্রাপ্তবয়স্ক আমেরিকানের জাতীয় প্রতিনিধিত্বমূলক নমুনার ওপর ভিত্তি করে জরিপটি চালানো হয়।

রায়ের পর ৩০ মে থেকে ১ জুন আবারও প্রথম জরিপে অংশ নেয়া এক ৪০২ জনের মধ্যে ৯৮৯ জনের কাছে আরেকটি প্রশ্নের ভিত্তিতে মতামত চাওয়া হয়।

প্রশ্নটি ছিল- আদালতের বিচার প্রক্রিয়াকে স্বচ্ছ মনে করছেন কিনা।

রায়ের আগে অর্ধেকের বেশি ভোটারের মতামত ছিল যে ট্রাম্প দোষী। আর রায়ের পর জরিপে অংশ নেয়া অর্ধেকেরও বেশি ভোটার একইভাবে মনে করেন যে জুরি বোর্ড স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে রায়ে পৌঁছেছে ‌এবং বিচারটি ন্যায্য ছিল।

নতুন জরিপে অংশ নেয়া ৫৬ শতাংশ ভোটার মনে করেন ট্রাম্পের বিচার প্রক্রিয়া স্বচ্ছ ছিল। বাকি ৪৪ শতাংশ বিপরীত মত দিয়েছেন।

জরিপে অংশ নেয়া ডেমোক্র্যাট ভোটারদের মধ্যে ৯৬ শতাংশ মনে করেন ট্রাম্পের রায় স্বচ্ছ ছিল। কিন্তু ৮২ শতাংশ রিপাবলিকান মনে করেন ট্রাম্পের বিচার প্রক্রিয়া স্বচ্ছ ছিল না।

ট্রাম্প হাশ মানি মামলায় সঠিক বিচার পেয়েছেন কিনা- এমন প্রশ্নেও ৫৭ শতাংশ সঠিক বিচারের পক্ষে মত দিয়েছেন। একইভাবে এক্ষেত্রেও ৮২ শতাংশ রিপাবলিকান মনে করেন ট্রাম্প রায়ে সঠিক বিচার পাননি।

রায়ে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার কারণে ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে উপযুক্ত কিনা- এমন প্রশ্নে ৫১ শতাংশ ভোটার মনে করেন তিনি উপযুক্ত নন। অন্যদিকে ৪০ শতাংশ মনে করেন ট্রাম্প এরপরও প্রেসিডেন্ট হিসেবে উপযুক্ত। বাকি ৮ শতাংশ এ বিষয়ে কোনো মতামত দেননি।

তবে হাশ মানি মামলায় আদালতের রায়ে সাবেক প্রেসিডেন্টের জেল হওয়া উচিত কিনা- এমন প্রশ্নে ৪৫ শতাংশের মত হলো, এটি হওয়া ঠিক নয়। বাকি ৩৮ শতাংশ ট্রাম্পকে জেলে পাঠানোর পক্ষে মত দিয়েছেন। এ প্রশ্নে নিরপেক্ষ ছিলেন ১৭ শতাংশ।

নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দলের প্রার্থী হিসেবে রায়ের পর ট্রাম্পের প্রতি রিপাবলিকানদের মনোভাব কেমন সে নিয়েও জরিপ চালানো হয়।

দোষী সাব্যস্তের পরও ৭২ শতাংশ ট্রাম্পের প্রতি অনুগত থাকার পক্ষে ভোট দিয়েছেন।

সর্বোপরি, এই জরিপের ফল দেশের বৃহৎ ভোটারদের ধারণা প্রকাশ করে না।

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এই রায়ে ডেমোক্র্যাটরা বেশিরভাগই আনন্দিত এবং স্বস্তি বোধ করলেও অনেকেই বলেছেন, নির্বাচনে এর প্রভাব নিয়ে তারা খুব বেশি আশাবাদী নন।

অপরদিকে রিপাবলিকানরা আদালতের এই রায়ে ক্ষুব্ধ হওয়ার চেয়ে বেশি হতাশ। তবে বিশেষভাবে তারা এই রায়ে অবাক হননি।

আরও পড়ুন:
ট্রাম্পের সঙ্গে যৌন সম্পর্কের রগরগে বর্ণনা স্টর্মির
কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটিতে পুলিশি অভিযানের প্রশংসায় ট্রাম্প
আদালত অবমাননার দায়ে ট্রাম্পকে জরিমানা, কারা-সতর্কতা
ট্রাম টাওয়ারে ড্যানিয়েলসকে দেখেছেন ট্রাম্পের সাবেক সহকারী
ট্রাম্পের বিচার চলাকালে আদালতের বাইরে গায়ে আগুন যুবকের

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Washington Post Executive Editor Resigns

ওয়াশিংটন পোস্টের নির্বাহী সম্পাদকের পদত্যাগ

ওয়াশিংটন পোস্টের নির্বাহী সম্পাদকের পদত্যাগ স্যালি বাজবি। ছবি: সংগৃহীত
প্রকাশক ও সিইও উইলিয়াম লুইস জানিয়েছেন, ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের সাবেক প্রধান সম্পাদক ম্যাট মুরে স্যালির স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন, তবে স্যালি কেন পদত্যাগ করছেন সে সম্পর্কে কিছু বলেননি।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক দৈনিক পত্রিকা দ্য ওয়াশিংটন পোস্টের নির্বাহী সম্পাদক স্যালি বাজবি পদত্যাগ করেছেন।

ওয়াশিংটন পোস্টের প্রধান নির্বাহীর বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটির রোববারের প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়।

সংবাদ সংস্থা বাসস জানায়, স্যালি ২০২১ সালে ওয়াশিংটন পোস্টের নির্বাহী সম্পাদক হন। তিনি ছিলেন আমেরিকান জনপ্রিয় পত্রিকাটির গত ১৫০ বছরের ইতিহাসের প্রথম নারী সম্পাদক।

প্রকাশক ও সিইও উইলিয়াম লুইস চলতি বছরের জানুয়ারিতে দায়িত্ব নেয়ার পর এ পর্যন্ত নেয়া পদক্ষেপের মধ্যে এটিই সবচেয়ে বড়ো বলে পত্রিকাটি জানিয়েছে।

লুইস জানিয়েছেন, ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের সাবেক প্রধান সম্পাদক ম্যাট মুরে স্যালির স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন, তবে স্যালি কেন পদত্যাগ করছেন সে সম্পর্কে কিছু বলেননি।

এদিকে স্টাফের কাছে পাঠানো ইমেইলে লুইস বার্তা কক্ষে নতুন বিভাগ চালুর কথা জানিয়েছেন। এটি গতানুগতিক বার্তা, সম্পাদকীয় ও মতামত বিভাগ থেকে আলাদা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এআই ব্যবহার করে চালু করা নতুন বিভাগের দেখভাল মুরে করবেন বলেও জানান লুইস।

আরও পড়ুন:
‘প্রতিদিনের বাংলাদেশ’ পত্রিকার সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Muslim nurse fired in New York for speaking out about genocide in Gaza

গাজায় গণহত্যা নিয়ে বক্তব্য, নিউ ইয়র্কে মুসলিম নার্স বরখাস্ত

গাজায় গণহত্যা নিয়ে বক্তব্য, নিউ ইয়র্কে মুসলিম নার্স বরখাস্ত এনওয়াইইউ ল্যাঙ্গোনের ক্যাম্পাস। ছবি: ওয়াশিংটন স্কয়ার নিউজ
হাসপাতালের মুখপাত্র বলেন, ‘অনুষ্ঠানে উপস্থিত অনেকেই জাবরের মন্তব্যের পরে বিরক্ত হন। যেহেতু তাকে এর আগেও সতর্ক করা হয়েছিল, তাই এবারের ঘটনার পর জাবর আর এনওয়াইইউ ল্যাঙ্গোনের কর্মী নন।’

গাজায় চলমান ইসরায়েলের হামলাকে ‘গণহত্যা’ বলে উল্লেখ করায় যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক সিটির একটি হাসপাতাল এক ফিলিস্তিনি আমেরিকান মুসলিম নার্সকে বরখাস্ত করেছে।

রয়টার্সের শুক্রবারের প্রতিবেদনে বলা হয়, এনওয়াইইউ ল্যাঙ্গোন হাসপাতালে গর্ভাবস্থা এবং প্রসবের সময় সন্তান হারানো মায়েদের সঙ্গে তার কাজের জন্য পুরস্কার গ্রহণের বক্তৃতায় গাজায় ইসরায়েলের যুদ্ধকে ‘গণহত্যা’ বলে উল্লেখ করেন নার্স হেসেন জাবর।

এর আগে গত বছর ডিসেম্বরে জাবরকে গাজা ও ইসরায়েল যুদ্ধের মতো বিভেদজনক বিষয়ে কর্মক্ষেত্রে নিজের মতামত প্রকাশ না করতে সতর্ক করা হয়েছিল বলে জানান হাসপাতালের একজন মুখপাত্র।

জাবর এ বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করে বলেছেন, তিনি ৭ মে মন্তব্যটি করছিলেন, যেদিন তাকে পুরস্কৃত করা হয়। পরে ওই মাসেই তাকে চাকরি থেকে বরখাস্তের নোটিশ দেয়া হয়।

মন্তব্যটি বক্তৃতার একটি অংশ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘পুরস্কারটি আমার কাছে বেশ ব্যক্তিগত। তাই আমি গাজায় যুদ্ধের সময় শিশু হারানো মায়েদের সম্পর্কে কথা বলছিলাম।’

ওই দিনের বক্তৃতায় তিনি বলেন, ‘গাজায় বর্তমান গণহত্যার সময় আমার দেশের নারীরা অকল্পনীয় ক্ষতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, যা দেখে আমার কষ্ট হয়।’

এ বিষয়ে হাসপাতালের মুখপাত্র বলেন, ‘অনুষ্ঠানে উপস্থিত অনেকেই জাবরের মন্তব্যের পরে বিরক্ত হন। যেহেতু তাকে এর আগেও সতর্ক করা হয়েছিল, তাই এবারের ঘটনার পর জাবর আর এনওয়াইইউ ল্যাঙ্গোনের কর্মী নন।’

গাজায় গণহত্যা নিয়ে বক্তব্য, নিউ ইয়র্কে মুসলিম নার্স বরখাস্ত
উত্তর গাজা উপত্যকার জাবালিয়া শরণার্থী শিবির। ছবি:রয়টার্স

স্থানীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, গাজায় ইসরায়েলের চলমান হামলায় গত আট মাসে ৩৬ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। এ যুদ্ধ প্রায় ২ দশমিক ৩ মিলিয়ন জনসংখ্যাকে বাস্তুচ্যুত করেছে।

এর আগে ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে আক্রমণ করে ফিলিস্তিনের গাজার স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাস। প্রায় ১ হাজার ২০০ জন নিহত হয় ওই হামলায় এবং ২৫০ জনেরও বেশি জিম্মি করা হয়।

আরও পড়ুন:
রাফাহতে হামলার ঘটনায় ইসরায়েল নিয়ে নীতির পরিবর্তন আসবে না: যুক্তরাষ্ট্র
গাজাবাসীর জন্য পাঁচ হাজার ফ্রি ভিসা দিচ্ছে কানাডা
গাজায় হামলা চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা নেতানিয়াহুর
রাফায় শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলের হামলা, নিহত অন্তত ৪৫
যুক্তরাষ্ট্রে টর্নেডোতে ১৪ জনের প্রাণহানি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Trump supporters angry at the verdict want to stop the riots

দাঙ্গা বাধাতে চান রায়ে ক্ষুব্ধ ট্রাম্প সমর্থকরা

দাঙ্গা বাধাতে চান রায়ে ক্ষুব্ধ ট্রাম্প সমর্থকরা পর্ন তারকার মুখ বন্ধ রাখতে অর্থ দেয়ার মামলায় বৃহস্পতিবার নিউ ইয়র্কের আদালতে ট্রাম্প দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর ফ্লোরিডার পাম বিচে ট্রাম্পের রিসোর্ট মার-এ-লাগোর বাইরে প্ল্যাকার্ড হাতে তার এক সমর্থক। ছবি: রয়টার্স
ট্রাম্পপন্থি তিনটি ওয়েবসাইটের (সাবেক প্রেসিডেন্টের নিজস্ব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ট্রুথ সোশ্যাল, প্যাট্রিয়টস ডট উইন ও গ্যাটওয়ে পানডিট) কমেন্ট বিশ্লেষণ করেছে রয়টার্স। এসব ওয়েবসাইটে ট্রাম্প সমর্থকদের কেউ কেউ বিচারকদের ওপর হামলার আহ্বান জানিয়েছেন। কেউ কেউ বিচারক ও রায় ঘোষণাকারী বিচারপতি জুয়ান মেরচ্যানকে হত্যার ডাক দিয়েছেন। কেউ আবার সরাসরি গৃহযুদ্ধ ও সশস্ত্র বিদ্রোহের আহ্বান জানিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের আদালতে বৃহস্পতিবার ৩৪টি অপরাধে ডনাল্ড ট্রাম্প দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর দাঙ্গা, ‘বিপ্লব’ ও সহিংস প্রতিশোধের আহ্বানে সাবেক প্রেসিডেন্টপন্থি ওয়েবসাইটগুলো সয়লাব হয়ে গেছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে জানানো হয়, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে দায়িত্ব পালন করা প্রথম কোনো ব্যক্তি হিসেবে ট্রাম্প দোষী হওয়ার পর তার সমর্থকরা অনলাইনে বেশ কিছু সহিংসতা উদ্রেককারী পোস্ট দেন।

ট্রাম্পপন্থি তিনটি ওয়েবসাইটের (সাবেক প্রেসিডেন্টের নিজস্ব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ট্রুথ সোশ্যাল, প্যাট্রিয়টস ডট উইন ও গ্যাটওয়ে পানডিট) কমেন্ট বিশ্লেষণ করেছে রয়টার্স।

সংবাদমাধ্যমটির খবরে বলা হয়, এসব ওয়েবসাইটে ট্রাম্প সমর্থকদের কেউ কেউ বিচারকদের ওপর হামলার আহ্বান জানিয়েছেন। কেউ কেউ বিচারক ও রায় ঘোষণাকারী বিচারপতি জুয়ান মেরচ্যানকে হত্যার ডাক দিয়েছেন। কেউ আবার সরাসরি গৃহযুদ্ধ ও সশস্ত্র বিদ্রোহের আহ্বান জানিয়েছেন।

ট্রাম্প সমর্থকদের এমন সহিংস আহ্বান নতুন নয়। ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্প হেরে যাওয়ার পর সহিংসতার হুমকি ও ভীতি প্রদর্শনকারী বক্তব্য বাড়তে থাকে।

দ্বিতীয়বার হোয়াইট হাউসে যাওয়ার দৌড়ে থাকা ট্রাম্প তার মামলার বিচারক ও কৌঁসুলিদের বাইডেন প্রশাসনের ‘দুর্নীতিগ্রস্ত হাতিয়ার’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন।

পর্ন তারকার মুখ বন্ধ রাখতে অর্থ দেয়ার বিষয়টি ধামাচাপা দিতে ব্যবসা সংক্রান্ত নথিতে মিথ্যা বর্ণনা দেয়ার ঘটনায় দোষী হন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট।

এ মামলার সাজা ঘোষণা হবে ১১ জুলাই, যে তারিখের চার দিন পর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে ট্রাম্পকে আনুষ্ঠানিক মনোনয়ন দেবে রিপাবলিকান পার্টি।

আরও পড়ুন:
জেনারেল আজিজের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা, যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
জেনারেল আজিজের ওপর নিষেধাজ্ঞায় খুশি হওয়ার কিছু নেই: ফখরুল
যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা নিয়ে জেনারেল আজিজ যা বললেন
সাবেক সেনাপ্রধান আজিজ ও তার পরিবারের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা
জিএসপি সুবিধা ফিরিয়ে দেয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন লু: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Can Trump who is guilty of a crime run for president?

দোষী সাব্যস্ত ট্রাম্প কি লড়তে পারবেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে

দোষী সাব্যস্ত ট্রাম্প কি লড়তে পারবেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রের সাউথ ক্যারোলিনার চার্লসটন এলাকায় রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের মনোনয়নের নির্বাচনের আগে চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত প্রচার অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের অভিব্যক্তি। ছবি: রয়টার্স
চলতি বছরের শুরুতে ব্লুমবার্গ ও মর্নিং কনসাল্ট পরিচালিত জনমত জরিপ অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে দোদুল্যমান ভোটার থাকা অঙ্গরাজ্যগুলোর ৫৩ শতাংশ ভোটার জানিয়েছেন, দোষী হলে ট্রাম্পকে ভোট দেবেন না তারা।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে দায়িত্ব পালন করা প্রথম কোনো ব্যক্তি হিসেবে বৃহস্পতিবার অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন ডনাল্ড ট্রাম্প।

গুরুতর ৩৪টি অপরাধের অভিযোগের সবগুলোতে ট্রাম্পকে দোষী ঘোষণা করেন নিউ ইয়র্ক সিটির একজন বিচারক।

পর্ন তারকার মুখ বন্ধ রাখতে অর্থ দেয়ার বিষয়টি ধামাচাপা দিতে ব্যবসা সংক্রান্ত নথিতে মিথ্যা তথ্য দেয়ার ঘটনায় দোষী হন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট।

এ মামলার সাজা ঘোষণা হবে ১১ জুলাই, যে তারিখের চার দিন পর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে ট্রাম্পকে আনুষ্ঠানিক মনোনয়ন দেবে রিপাবলিকান পার্টি।

এমন বাস্তবতায় আদালতে দোষী হওয়া ট্রাম্প ৫ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে লড়তে পারবেন কি না, সে প্রশ্ন সামনে এসেছে।

এ নিয়ে বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, অন্যান্য দেশের তুলনায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থিতার যোগ্যতা অপেক্ষাকৃত কম। দেশটির সংবিধান অনুযায়ী, প্রেসিডেন্ট পদের কোনো প্রার্থীর বয়স হতে হবে কমপক্ষে ৩৫ বছর। তাকে জন্মসূত্রে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক হতে হবে এবং কমপক্ষে ১৪ বছর যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করতে হবে।

দেশটিতে অপরাধের ইতিহাস থাকা কারও প্রার্থিতা বাতিলের বিধান নেই, তবে মামলায় ট্রাম্পের দোষী হওয়ার প্রভাব পড়তে পারে নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে।

চলতি বছরের শুরুতে ব্লুমবার্গ ও মর্নিং কনসাল্ট পরিচালিত জনমত জরিপ অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে দোদুল্যমান ভোটার থাকা অঙ্গরাজ্যগুলোর ৫৩ শতাংশ ভোটার জানিয়েছেন, দোষী হলে ট্রাম্পকে ভোট দেবেন না তারা।

চলতি মাসে কুইনিপিয়াক ইউনিভার্সিটির এক জরিপ অনুযায়ী, দোষী সাব্যস্ত হলে ট্রাম্পকে ভোট দেবেন না ছয় শতাংশ ভোটার। হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের নির্বাচনে সংখ্যাটি গুরুত্বপূর্ণ।

আরও পড়ুন:
জেনারেল আজিজের ওপর নিষেধাজ্ঞায় খুশি হওয়ার কিছু নেই: ফখরুল
যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা নিয়ে জেনারেল আজিজ যা বললেন
সাবেক সেনাপ্রধান আজিজ ও তার পরিবারের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা
জিএসপি সুবিধা ফিরিয়ে দেয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন লু: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
হিউস্টনে প্রবল ঝড়, চারজনের মৃত্যু

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Trump is the first president of the United States to be convicted of a crime

যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট হিসেবে অপরাধে দোষী ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট হিসেবে অপরাধে দোষী ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কর ম্যানহাটনের অপরাধ আদালতে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার ট্রাম্পের উপস্থিতিতে রায় ঘোষণা করা হয়। ছবি: রয়টার্স
বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, নিউ ইয়র্কের একজন বিচারক ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করেন। এর মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো অপরাধে দোষী হলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে দায়িত্ব পালন করা কোনো ব্যক্তি।

যুক্তরাষ্ট্রে ২০১৬ সালের নির্বাচনের আগে পর্ন তারকার মুখ বন্ধ রাখতে অর্থ দেয়ার বিষয়টি ধামাচাপা দিতে নথিতে মিথ্যা বর্ণনার ঘটনায় বৃহস্পতিবার দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, নিউ ইয়র্কের একজন বিচারক ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করেন। এর মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো অপরাধে দোষী হলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে দায়িত্ব পালন করা কোনো ব্যক্তি।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে জানানো হয়, দুই দিনের যুক্তিতর্ক শেষে ১২ সদস্যের বিচারক প্যানেল ৩৪টি গুরুতর অপরাধের অভিযোগের সবগুলোতে ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করেন।

বিচারপতি জুয়ান মেরচ্যান মামলার রায়ের জন্য ১১ জুলাই দিনক্ষণ ঠিক করেন। এ তারিখের কয়েক দিন পরই ৫ নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রার্থী হিসেবে ট্রাম্পকে আনুষ্ঠানিক মনোনয়ন দেয়ার কথা আছে রিপাবলিকান পার্টির।

যুক্তরাষ্ট্রে ব্যবসা সংক্রান্ত নথিতে মিথ্যা বর্ণনার সর্বোচ্চ সাজা চার বছরের কারাদণ্ড। যদিও এ ধরনের মামলায় সাজাপ্রাপ্তরা প্রায়ই অপেক্ষাকৃত কম কারাদণ্ড পান। সাজাপ্রাপ্তদের জরিমানা করা কিংবা কারাগারে না পাঠিয়ে প্রবেশনে থাকার সুযোগও দেয়া হয়।

এ মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে থাকলেও নির্বাচনি প্রচার চালানো কিংবা নির্বাচনে জয়ের পর দায়িত্ব গ্রহণে আইনি বাধা নেই ট্রাম্পের।

দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পরও সাজাপ্রাপ্তির আগে কারাবরণ করতে হবে না রিপাবলিকান পার্টি থেকে নির্বাচিত যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্টকে।

আদালতে দোষী ঘোষণা হওয়া ট্রাম্প কোনো ধরনের অন্যায় করেননি বলে দাবি করেছেন।

তার আইনজীবী বলেছেন, রায়ের বিরুদ্ধে যত দ্রুত সম্ভব আপিল করা হবে।

আরও পড়ুন:
যুক্তরাষ্ট্রে টর্নেডোতে ১৪ জনের প্রাণহানি
ইসরায়েলের প্রতি আইসিসির নিষেধাজ্ঞা সমর্থনের ইঙ্গিত যুক্তরাষ্ট্রের
হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় ইরানকে সহায়তা ‘দিতে পারেনি’ যুক্তরাষ্ট্র
জেনারেল আজিজের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা, যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
জেনারেল আজিজের ওপর নিষেধাজ্ঞায় খুশি হওয়ার কিছু নেই: ফখরুল

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Netanyahu gets invitation to US despite arrest warrant application

গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদন সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্রে আমন্ত্রণ পাচ্ছেন নেতানিয়াহু

গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদন সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্রে আমন্ত্রণ পাচ্ছেন নেতানিয়াহু যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে ২০১৫ সালের মার্চে সর্বশেষ ভাষণ দেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। ছবি: নিউ ইয়র্ক টাইমস
কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে ভাষণের জন্য বিদেশি নেতাদের আমন্ত্রণকে বিরল সম্মান হিসেবে দেখা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠতম মিত্র বা বিশ্বজুড়ে পরিচিত কোনো ব্যক্তিকে এ ধরনের সুযোগ দেয়া হয়।

আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদন সত্ত্বেও ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে আমন্ত্রণের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার মাইক জনসন।

নেদারল্যান্ডসের হেগভিত্তিক আইসিসির প্রসিকিউটর করিম খান সোমবার জানান, ২০২৩ সালের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে ঢুকে হামাসের হামলা এবং পরবর্তী সময়ে গাজায় ইসরায়েলের হামলার ঘটনায় যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে কয়েকজনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদন করা হয়েছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন গাজায় হামাসের প্রধান ইয়াহইয়া সিনওয়ার, দলটির সামরিক শাখা আল কাসাম ব্রিগেডসের প্রধান মোহাম্মদ দেইফ ও রাজনৈতিক ব্যুরোর প্রধান ইসমাইল হানিয়া এবং ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইউআভ গালান্ট।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, আইসিসির এ ঘোষণার এক দিন পর মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের স্পিকার মাইক জনসন জানান, তিনি এখনও নেতানিয়াহুকে আমন্ত্রণপত্র পাঠাননি। কারণ তিনি কংগ্রেসে যৌথ অধিবেশনে নেতানিয়াহু আমন্ত্রণের চিঠিতে উচ্চকক্ষ সিনেটের ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতা চাক শুমারের সাড়ার অপেক্ষায় আছেন।

জনসন আরও জানান, শুমার চিঠিতে সই করতে রাজি না হলে নেতানিয়াহুকে কংগ্রেসের নিম্নকক্ষে আমন্ত্রণ জানানো হবে।

কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে ভাষণের জন্য বিদেশি নেতাদের আমন্ত্রণকে বিরল সম্মান হিসেবে দেখা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠতম মিত্র বা বিশ্বজুড়ে পরিচিত কোনো ব্যক্তিকে এ ধরনের সুযোগ দেয়া হয়।

নেতানিয়াহু এরই মধ্যে তিনবার সেই সুযোগ পেয়েছেন, যার সর্বশেষটি ছিল ২০১৫ সালে।

আরও পড়ুন:
ইসরায়েলের সঙ্গে দীর্ঘ যুদ্ধে প্রস্তুত হামাস: মুখপাত্র
হামাসের সুড়ঙ্গ থেকে ৩ জিম্মির মরদেহ উদ্ধারের দাবি ইসরায়েলের
গাজা নিয়ে ইসরায়েলের মন্ত্রিসভার বিরোধ প্রকাশ্যে
‘যুক্তরাষ্ট্র নির্মিত ঘাট দিয়ে গাজায় ত্রাণ ঢুকছে’
নিজেদের হামলায় ৫ ইসরায়েলি সেনা নিহত

মন্তব্য

p
উপরে